দীপ্তি: একটি বেশব্লগ লিখেছে

আসলে প্রায় সব ধরনের চলচ্চিত্রেই খলনায়ক, চালবাজ ইত্যাদি বিভিন্ন চরিত্র দেখা যায়। মূলত পরিচালকের হাতে এসব চরিত্র চলচ্চিত্রের কাহিনী এগিয়ে নেওয়া বা কাহিনী পরিবর্তনের এক যাদুকরী অস্ত্র।
বিভিন্ন ধরনের চলচ্চিত্রের তালিকার ওপর দৃষ্টিপাত করলে দেখা যায়, চলচ্চিত্রের পর্দায় হত্যাকারী, মাস্তানি, মনস্তত্ত্ব ইত্যাদি সম্পর্কিত কালজয়ী চরিত্রের র‍্যাংকিং নিয়ে তেমন বিতর্ক নেই। তবে মানুষের মনে গভীর দাগ কাটা কালজয়ী চালবাজ চরিত্রের সংখ্যা তেমন বেশি নয়। এর কারণ হিসেবে বলা যায়, নানান চলচ্চিত্রে চালবাজ চরিত্রের সংখ্যা অনেক বেশি। তাই এসব চরিত্রের সংখ্যা আমরা হিসেব করতে পারি না এবং মনেও রাখতে পারি না।
চিত্রনাট্যকার এবং চলচ্চিত্র পরিচালক উভয়ই চলচ্চিত্রে চালবাজ চরিত্র যোগ করতে পছন্দ করেন। আসলে চলচ্চিত্রে হত্যাকারী যদি মানুষকে হত্যা না করেন তবে তাকে হত্যাকারী বলা হবে না, সন্ত্রাসী বা মাস্তানি চরিত্র যদি তাদের চরিত্রের ধরণ অনুযায়ী কাজ না করেন তবে তাকে সন্ত্রাসী বা মাস্তান বলা হবে না।
এসব চরিত্র অবশ্য সকল চলচ্চিত্রের সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ নয়। তবে এসব চরিত্রের তুলনায় চালবাজ চরিত্র একটু ভিন্ন। চলচ্চিত্রে চালবাজ ছলচাতুরীর মাধ্যমে অন্যদের অর্থ, সম্পত্তি ও প্রাণ ছিনিয়ে নিতে পারেন।
বিভিন্ন ধরনের চলচ্চিত্রে বিভিন্ন ধরনের চালবাজ থাকেন। চিত্রনাট্যকার ও চলচ্চিত্র পরিচালক মূলত চলচ্চিত্রে সংঘর্ষ সৃষ্টি এবং কাহিনী বিপরীত দিকে নিয়ে যাওয়ার জন্য কৌশল হিসেবে এসব চরিত্র অত্যন্ত সূক্ষ্মভাবে ব্যবহার করেন।
‘ক্যাচ মি ইফ ইউ ক্যান' চলচ্চিত্র হলো সম্ভবত চালবাজ সম্পর্কিত সবচেয়ে কালজয়ী একটি চলচ্চিত্র। এ চলচ্চিত্রের কাহিনী একদিকে যেমন ভীষণ আকর্ষণীয়, অন্যদিকে এর দু'জন প্রধান অভিনেতা দারুণ সুদর্শনও। লিওনার্দো ডিক্যাপ্রিও অভিনীত ফ্রাঙ্ক চরিত্র জন্ম থেকেই চালবাজ। তিনি যেমন মিথ্যা প্রতিশ্রুতিতে মানুষকে মুগ্ধ করতে পারেন, বিমান চালকের ভান করতে পারেন, আবার নিজেকে হাসপাতালের একজন চিকিত্সক হিসেবেও নিজেকে তুলে ধরতে পারেন।
*মুভি* *সিনেমা* *হলিউড* *বলিউড* *ঢালিউড* *বিনোদন*
কমেন্ট

হিমু: মুভিটা আমার অনেক বার দেখা খুব ভালো মুভি ।

1437632815000 ভালো ০

পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?


অথবা,

এক্ষনি একাউন্ট তৈরী কর

বেশতো সাইট টিতে কোনো কন্টেন্ট-এর জন্য বেশতো কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

কনটেন্ট -এর পুরো দায় যে ব্যক্তি কন্টেন্ট লিখেছে তার।

...বিস্তারিত