আলোহীন ল্যাম্পপোস্ট: একটি বেশব্লগ লিখেছে

রফিকুন্নবী ওদের টোকাই হিসেবে চিনিয়েছিলেন। জেমসের গানের কথায় যদি বলা যায় 'পথের বাপই, বাপরে মনা, পথের মা-ই মা, পথের মাঝেই খুঁজে পাবি আপন ঠিকানা। ' ওদের ঠিকানা পথ, এই পথেই বেড়ে ওঠা।

আপনার পরিচয় কি?
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এর সোহেল কিংবা রাজুউক এর অর্পিতা! এই ধরনের কিছুইতো বলেন; নাকি?
অথবা বলেন আমি অমুক নেতার ভাতিজা, তমুকের মেয়ে! অমুক তমুক করে হলেও দেয়ার মত পরিচয়ের অভাব নেই আমাদের। আচ্ছা! আমাদের গলির মোড়ে বসে থাকা ছেলেটির কাছে, তার পরিচয় কি? টোকাই? মানুষ? নাকি অন্য কিছু! যে কিনা আমাদের নির্বুদ্ধিতাগুলোকে অতি যত্নের সাথে তার জীর্ন বস্তায় ভরে, ফেলে দেয়া জিনিসগুলোর আদলে।
.
আসুন না সবাই মিলে ওকে বলি "বাহ বাহ তুমি তো অনেক যত্নবান ছেলে"
আসুন না একবার মনে মনে ভাবি বাহ ছেলেটা তো দারুণ কাজের!
একবেলা পেট পুরে খেয়ে খুশি হতে না পারলেও; আনন্দে বিহবল হতে না পারলেও যেন এটুকু প্রশংসা শুনে ওর বাবা মার চোখ থেকে অন্তত আনন্দাশ্রু ঝড়তে পারে।
নাহ! অতটা সৌভাগ্য কি আর তাদের আছে! বাবা মা নামের এই ডাকগুলোর মালিকানা কাদের তাইতো ওদের অনেক সময়েই অজানা, অস্পৃশ্য!
আচ্ছা তাতে আমাদের কি?
.
ওর সাথে দেখা হলে "চল একটা স্যাড সেলফি তুলি" বলেই তো আমাদের দায়িত্ব শেষ, গল্পেরও শেষ !
না গল্পের শেষ এখানে না । গল্পটাকে বাড়াতে হবে । কিছু অগোছালো শব্দকে নিয়ে একটা গুছানো সুন্দর গল্প বানাতে হবে । সেই গল্পে থাকবে সবার সম্মানের কথা, থাকবে কিছু ভালোবাসার কথা, থাকবে এক হয়ে পথ চলার সাহসী কথা । তখনইতো আমরা বলতে পারবো "না আমরা শুধু সেলফি তুলেই মুখ ফিরিয়ে নেই না আমরা এখনও ওদের পাশে দাড়ানোর যোগ্যতাটুকু অন্তত রাখি"।
.
.
আর এই পাশে দাড়ানোর আহবান যদি আপনার ছোট ভাই, বোন, বন্ধুদের কাছ থেকে আসে তখন আপনার আমার সবার প্রান উসখুস করতে থাকে কিভাবে এই পরিস্থিতি বদলে দেয়া যায়, পরিবর্তন করা যায় এই চিন্তায়, হোক ব্যাস্ততার বেড়াজালে আবদ্ধ জীবনে খনিকের জন্যই। তা নাহলে এই লিখাটুকু পড়া হতো না। যারা নিরন্তর এই আহবান জানিয়ে যাচ্ছে তারাই আসলে আগামীর বাংলাদেশের পরিবর্তনের নেতৃত্বে।।

*টোকাই* *সমাজ* *ভালোবাসা* *আবেগ* *বাস্তবতা* *সেলফি* *জেমস*

পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?


অথবা,

এক্ষনি একাউন্ট তৈরী কর

বেশতো সাইট টিতে কোনো কন্টেন্ট-এর জন্য বেশতো কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

কনটেন্ট -এর পুরো দায় যে ব্যক্তি কন্টেন্ট লিখেছে তার।

...বিস্তারিত