বিয়ের কেনাকাটা

বিয়েরকেনাকাটা নিয়ে কি ভাবছো?

আমানুল্লাহ সরকার: একটি নতুন প্রশ্ন করেছে

 তুলনামূলক সস্তায় ভালোমানের বিয়ের বেনারশী কোথায় থেকে কিনব?

উত্তর দাও (২ টি উত্তর আছে )

.
*বিয়েরবেনারশী* *শাড়ি* *বিয়েরকেনাকাটা*

দস্যু বনহুর: *বিয়েরকেনাকাটা* বিয়ের দিন আবিষ্কৃত হল আমার বিয়ের শার্ট কেনা হয়নি। তক্ষুনি মামা কে পাঠানো হলেও উনি যে শার্ট নিয়ে আসলো তা আমার খলজি মার্কা হাতে ছোট হয়ে গেল। পরে বাবার একটা পুরোনো শার্ট পড়ে বিয়ে সাড়তে গেলাম, মানে বিয়েটা আগেই করে ফেলেছিলাম।(খুশী২)

মারিয়া আক্তার অর্পিতা: *বিয়েরকেনাকাটা* (খিকখিক)(খিকখিক)(খিকখিক)

তিথি মনি: একটি বেশব্লগ লিখেছে

বিয়ের বিশেষ আকর্ষণ হচ্ছে কনে। আর কনে সাজানোর জন্য শাড়িই হচেছ প্রধান অনুসঙ্গ। বিয়েতে কনের জন্য লাল, সাদা, নীল, মেরুন, ভারী কাজের শিফন, জামদানি, বেনারসি বা জর্জেট শাড়ি থাকতে পারে। শাড়ির মধ্যে কমলা বা সবুজ রঙের শাড়িও রাখতে পারেন। বিয়ের শাড়ির সঙ্গে অতিরিক্ত দুটি সুতি বা হাফ সিল্কের শাড়ি রাখতে হয়। স্বর্ণের গহনার পাশাপাশি শাড়ির সঙ্গে অ্যান্টিক লুক বিভিন্ন পাথরের তৈরি নেকলেস বা কানের দুলও দিতে হয়। সে ক্ষেত্রে কনের বিয়ের বেনারসি, শিফন, জর্জেট ও জলপাই রঙের শাড়িসহ বিয়ের সব শাড়ির দাম পড়বে ৬ হাজার থেকে ৭০ হাজার ৫০০ টাকা পর্যন্ত। 

কোথায় পাবেন
বিয়ের যাবতীয় উপকরণ কিনতে আপনাকে যেতে হবে রাজধানীর বিভিন্ন ফ্যাশন হাউসে। এগুলোর মধ্যে রয়েছে লুবনান, বাংলার মেলা, ইনফিনিটি, ও টু, রঙ, অঞ্জন’স, কে-ক্র্যাফট প্রভৃতি। এ ছাড়া যেতে পারেন রাজধানীর বসুন্ধরা সিটি শপিংমল, বেইলি স্টার, ফরচুন, টুইন টাওয়ার, মৌচাক, গুলশান, বনানী, হাতিরপুল, নিউ এলিফ্যান্ট রোড, নিউমার্কেট, চাঁদনীচকসহ বিভিন্ন মার্কেটের শোরুমগুলোতে।
*বিয়ে* *বিয়েরকেনাকাটা*

তিথি মনি: একটি বেশব্লগ লিখেছে

গায়ে হলুদ এবং বিয়ের অন্যান্য আয়োজনে বাহারী ডিজাইনের ডালা,কুলা ইত্যাদি খুবই প্রয়োজনীয়। কোথায় পাবেন এই প্রয়োজনীয় জিনিস গুলো চলুন জেনে নেই।

দরদামঃ

এলিফ্যান্ট রোডে বিয়ের ডালা, কুলা, বাটি/প্রদীপ, রাঁখি ইত্যাদির দাম পড়বে ১০০ থেকে ১ হাজার ২০০ টাকার মধ্যে। বিয়ের উপটান, সোন্দা, চন্দন, চন্দন তেল, সোহাগপুরী ইত্যাদির দাম পড়বে ৩৫০ থেকে ৯৫০ টাকার মধ্যে। কনের জন্য আলতা ৩০ থেকে ৬০ টাকা, মেহেদি ৪০ থেকে ১২০ টাকা, পাটি ১৫০ থেকে ১ হাজার ৬০০ টাকা, হলুদ তোয়ালে ১২০ থেকে ৪৫০ টাকা পর্যন্ত।

বিয়ের অনুষঙ্গের মধ্যে আরও রয়েছে আফসান, রুমাল, পালকি ও ঝুড়ি। এগুলোর দাম পড়বে ১০০ থেকে ৭৫০ টাকার মধ্যে। এ ছাড়াও পান-সুপারী, মাছডালা ২৫০ থেকে ১ হাজার ২০০ টাকা, টুথপিক ২০ থেকে ৫০ টাকা, তাজা গোলাপ ফুল প্রতি পিস ৫ থেকে ১০ টাকা, সাদা ফুল প্রতি পিস ৪ থেকে ৬ টাকা, রজনীগন্ধা প্রতি স্টিক ৫ থেকে ১০ টাকা।

কোথায় পাবেনঃ
বিয়ের যাবতীয় উপকরণ কিনতে আপনাকে যেতে হবে রাজধানীর বিভিন্ন ফ্যাশন হাউসে। এগুলোর মধ্যে রয়েছে লুবনান, বাংলার মেলা, ইনফিনিটি, ও টু, রঙ, অঞ্জন’স, কে-ক্র্যাফট প্রভৃতি। এ ছাড়া যেতে পারেন রাজধানীর বসুন্ধরা সিটি শপিংমল, বেইলি স্টার, ফরচুন, টুইন টাওয়ার, মৌচাক, গুলশান, বনানী, হাতিরপুল, নিউ এলিফ্যান্ট রোড, নিউমার্কেট, চাঁদনীচকসহ বিভিন্ন মার্কেটের শোরুমগুলোতে। 
*বিয়ে* *বিয়েরকেনাকাটা*

তিথি মনি: একটি বেশব্লগ লিখেছে

বর ও কনে এই দুইজনকে ঘিরেই বিয়ের সব কেনাকাটা নির্ভর করে। বিয়ের দিনে বরের জন্য যে তিনটি জিনিস খুবই প্রয়োজন তা হল শারওয়ানী,পাগড়ী,নাগরা। চলুন তাহলে এই পোশাক গুলোর দামদর ও কোথায় পাওয়া যায় তা জেনে নেই।

দরদামঃ
বিভিন্ন মানের শেরওয়ানির দাম পড়বে ৪ হাজার থেকে ৩০ হাজার টাকা পর্যন্ত। বরের শেরওয়ানির সঙ্গে পায়জামার দাম পড়বে ৫০০ থেকে ১ হাজার টাকা পর্যন্ত। বরের শেরওয়ানির জৌলুস আরও ফুটিয়ে তুলতে প্রয়োজন পড়ে ওড়নার। এর দাম ৭০০ থেকে ১ হাজার ৫০০ টাকা পর্যন্ত। আর পাগড়ির দাম পড়বে ১ হাজার ৫০০ থেকে ৩ হাজার টাকা পর্যন্ত। বিয়েতে আরও কিছু উপকরণের প্রয়োজন রয়েছে, যা প্রতিটি বিয়ের আয়োজনকে পরিপূর্ণ করে তুলবে। এর মধ্যে বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ বরের নাগরা জুতা। এর দাম পড়বে ১ হাজার ৫০০ থেকে ৬ হাজার টাকা।

কোথায় পাবেনঃ
বিয়ের যাবতীয় উপকরণ কিনতে আপনাকে যেতে হবে রাজধানীর বিভিন্ন ফ্যাশন হাউসে। এগুলোর মধ্যে রয়েছে লুবনান, বাংলার মেলা, ইনফিনিটি, ও টু, রঙ, অঞ্জন’স, কে-ক্র্যাফট প্রভৃতি। এ ছাড়া যেতে পারেন রাজধানীর বসুন্ধরা সিটি শপিংমল, বেইলি স্টার, ফরচুন, টুইন টাওয়ার, মৌচাক, গুলশান, বনানী, হাতিরপুল, নিউ এলিফ্যান্ট রোড, নিউমার্কেট, চাঁদনীচকসহ বিভিন্ন মার্কেটের শোরুমগুলোতে। 

*বিয়ে* *বিয়েরকেনাকাটা*

শ্যামল মিত্র: একটি বেশব্লগ লিখেছে

বিবাহ কেনাকাটায় বিভিন্ন সামগ্রীর তালিকায় আছে কসমেটিকস, বেল্ট, মানিব্যাগসহ নানা খুঁটি-নাটি জিনিস। বিয়ের এসব উপকরণের খোজ করতে বিভিন্ন দোকানে ছুটোছুটি করে ঘাম ঝরাতে হয়। তাই বিয়ের টুকি-টাকি সামগ্রীগুলোর দেখা ঢাকার কোথায় পেতে পারেন তা জানিয়ে দেওয়া হলো-

১-সনি জরি হাউজ : ৮৬২৬৩৫৮।
২-কল্যাণী :০১৭১০৩২৮৬১৫, ৮৬২৫২০৫।
৩-দুলহান :৮৬১৬৭১৩, ০১৭১২০৬৫৭৮৪, ০১৭১৫০৭৮৭৭৮।
৪-পালকি : ৮৬২৫২০৫।
৫-সানাই : ৮৬২৫৫৯৭।
৬-আলমাস জেনারেল স্টোর : ৮১৫১৩৪৪।
৭-ওয়ান স্টপ মল : ৯১৪১৭৬৪, ৮১১০৪৯২।
৮-অ্যারাবিয়ান্স : ৯৬৭১৯৭৩, ০১৭১৪০৬৬১৫০।
৯-নগরদোলা : ৯১২৭০৩৫, ৮১১৩০১০, ০১৯১১০২৬৯৭৩।
১০-জিনিয়াস : ৯৮৮৬৬৫৪।
১১-প্যান্টিনা : ৯১৪১৩৬৯।

*বিয়েরকেনাকাটা* *বিয়েরসাজ* *শপিং*

নাহিন: বিয়ের শাড়ি, অলংকার, গহনাসহ নানাবিধ কেনাকাটার জন্য ভিজিট করুন বাংলাদেশের সবথেকে বড় ই-কমার্স সাইট আজকেরডিল http://www.ajkerdeal.com/Category/28/0/wedding-shopping

*বিয়েরকেনাকাটা* *শপিং*
ছবি

আমানুল্লাহ সরকার: ফটো পোস্ট করেছে

ছবি

নাহিন: ফটো পোস্ট করেছে

৫/৫

বিয়ের কেনাকাটার জন্য যেতে পারেন এলিফেন্ট রোড।

*বিয়েরকেনাকাটা* *শপিং*

আমানুল্লাহ সরকার: একটি বেশব্লগ লিখেছে

বিয়ে মানেই বড় ধুমধাম আয়োজন ও একটু বাড়তি আনন্দ উত্তেজনা। তাই বিয়ের অনুষঙ্গ নিয়ে জল্পনা-কল্পনা যেন শেষই হতে চায় না। কোনটা রেখে কোনটি কিনলে ভাল হয় তা নিয়ে চিন্তার শেষ থাকে না! তবে পরামর্শ একটাই চিন্তা না করে কয়েকজন বসে একটি লিস্ট তৈরী করুন আর ঝটপট বাজারে নেমে পড়ুন দেখবেন কেনা কাটার ঝামেলা থেকে মুক্ত হতে পারবেন। তবে এ ব্যপারে আপনাদের কে একটু সহযোগিতা করার জন্য আমি আমার সাধ্যমত চেষ্টার হাত বাড়িয়ে দিলাম।

বিয়ের ষোলোআনা পূর্ণ করতে বিয়ে-অনুষঙ্গের ব্যবহার যুগ-যুগান্তরের। রীতিমতো বরের হাত ধরে কনের বাড়িতে বিয়ের উপকরণের পসরা বসে। তাই তো বিয়ে-পূর্ব অনুষঙ্গের কেনাকাটার বিষয়টি বেশ গুরুত্বপূর্ণ। রাজধানীর বিয়ের বাজার ঘুরে দেখা যায়, শহরটির বিভিন্ন মার্কেট ও ফ্যাশন হাউসসহ বেশকিছু দোকানে বিয়ের উপকরণের মেলা বসেছে। এগুলোর মধ্যে এলিফ্যান্ট রোডে রয়েছে ৩০টিরও বেশি দোকান। আর হিন্দুদের বিয়ের জন্য শাঁখারীপট্টির প্রায় পুরোটাজুড়ে রয়েছে অগণিত দোকান। এ ছাড়া বিয়ের অনুষঙ্গ পাইকারি কেনার জন্য ঢাকার চকবাজারে রয়েছে বেশ কিছু দোকান।

একটি বিয়ের অনুষ্ঠানে সাধারণত যেসব উপকরণের দরকার হয়, সে সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক_

বিয়ের উপকরণ হিসেবে বিয়ের লিস্টের প্রথমেই থাকে বিভিন্ন আকারের লাগেজ। সহজে কেনাকাটা করতে এই লাগেজ আপনাকে অনেক সাহায্য করবে। প্রেসিডেন্ট, ডেসি মিলানসহ অসংখ্য ব্র্যান্ডের লাগেজ বাজারে পাওয়া যায়। এর মধ্য থেকে আপনার পছন্দের লাগেজটি প্রথমেই সংগ্রহ করে নিন। ব্র্যান্ডেড লাগেজগুলোর দাম শুরু হয়েছে ২ হাজার ৫০০ টাকা থেকে। তবে আকারভেদে এর দাম হতে পারে ৯ হাজার ২০০ টাকা পর্যন্ত। চাইলে নন-ব্র্যান্ডেড লাগেজ কিনতে পারেন। সে ক্ষেত্রে লাগেজের দাম শুরু হবে ১ হাজার ৫০০ টাকা থেকে। এরপর প্রয়োজন বরের শেরওয়ানি। বিভিন্ন মানের শেরওয়ানির দাম পড়বে ৪ হাজার থেকে ৩০ হাজার টাকা পর্যন্ত। বরের শেরওয়ানির সঙ্গে পায়জামার দাম পড়বে ৫০০ থেকে ১ হাজার টাকা পর্যন্ত। বরের শেরওয়ানির জৌলুস আরও ফুটিয়ে তুলতে আরও প্রয়োজন পড়ে ওড়নার। এর দাম পড়বে ৭০০ থেকে ১ হাজার ৫০০ টাকা। আর পাগড়ির দাম পড়বে ১ হাজার ৫০০ থেকে ৩ হাজার টাকা পর্যন্ত।

রাজধানীর এলিফ্যান্ট রোডের বিয়ের উপকরণ বিক্রেতা শাহেদ শিহাব বলেন, বিয়েতে আরও কিছু উপকরণের প্রয়োজন রয়েছে, যা প্রতিটি বিয়ের আয়োজনকে পরিপূর্ণ করে তুলবে। এর মধ্যে বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ বরের নাগরা জুতা। এর দাম পড়বে ১ হাজার ৫০০ থেকে ৬ হাজার টাকা। এ ছাড়া বিয়ের ডালা, কুলা, বাটি/প্রদীপ, রাঁখি ইত্যাদির দাম পড়বে ১০০ থেকে ১ হাজার ২০০ টাকার মধ্যে। বিয়ের উপটান, সোন্দা, চন্দন, চন্দন তেল, সোহাগপুরী ইত্যাদির দাম পড়বে ৩৫০ থেকে ৯৫০ টাকার মধ্যে। কনের জন্য আলতা ৩০ থেকে ৬০ টাকা, মেহেদি ৪০ থেকে ১২০ টাকা, পাটি ১৫০ থেকে ১ হাজার ৬০০ টাকা, হলুদ তোয়ালে ১২০ থেকে ৪৫০ টাকা পর্যন্ত।

বিয়ের অনুষঙ্গের মধ্যে আরও রয়েছে আফসান, রুমাল, পালকি ও ঝুড়ি। এগুলোর দাম পড়বে ১০০ থেকে ৭৫০ টাকার মধ্যে। এ ছাড়াও মাছডালা ২৫০ থেকে ১ হাজার ২০০ টাকা, টুথপিক ২০ থেকে ৫০ টাকা, তাজা গোলাপ ফুল প্রতি পিস ৫ থেকে ১০ টাকা, সাদা ফুল প্রতি পিস ৪ থেকে ৬ টাকা, রজনীগন্ধা প্রতি স্টিক ৫ থেকে ১০ টাকা। এ ছাড়া বিয়ের বিশেষ আকর্ষণ হিসেবে কনের শাড়ি তো থাকছেই।

বিয়েতে কনের জন্য লাল, সাদা, নীল, মেরুন, ভারী কাজের শিফন, জামদানি, বেনারসি বা জর্জেট শাড়ি থাকতে পারে। শাড়ির মধ্যে কমলা বা সবুজ রঙের শাড়িও রাখতে পারেন। বিয়ের শাড়ির সঙ্গে অতিরিক্ত দুটি সুতি বা হাফ সিল্কের শাড়ি রাখতে হয়। স্বর্ণের গহনার পাশাপাশি শাড়ির সঙ্গে অ্যান্টিকলুক বিভিন্ন পাথরের তৈরি নেকলেস বা কানের দুলও দিতে হয়। সে ক্ষেত্রে কনের বিয়ের বেনারসি, শিফন, জর্জেট ও জলপাই রঙের শাড়িসহ বিয়ের সব শাড়ির দাম পড়বে ৬ হাজার থেকে ৭০ হাজার ৫০০ টাকা পর্যন্ত। আর জুতার দাম পড়বে ১ হাজার ৮০০ থেকে ৪ হাজার ৫০০ টাকার মধ্যে।

কোথায় পাবেন
বিয়ের যাবতীয় উপকরণ কিনতে আপনাকে যেতে হবে রাজধানীর বিভিন্ন ফ্যাশন হাউসে। এগুলোর মধ্যে রয়েছে লুবনান, বাংলার মেলা, ইনফিনিটি, ও টু, রঙ, অঞ্জন'স, কে-কদ্ধ্যাফট প্রভৃতি। এ ছাড়া যেতে পারেন রাজধানীর বসুন্ধরা সিটি শপিংমল, বেইলি স্টার, ফরচুন, টুইন টাওয়ার, মৌচাক, গুলশান, বনানী, হাতিরপুল, নিউ এলিফ্যান্ট রোড, নিউমার্কেট, চাঁদনীচকসহ বিভিন্ন মার্কেটের শোরুমগুলোতে। তাই আর দেরি কেন! দিনক্ষণ ঠিক রেখে বাজেট করে বিয়ের বাজারে এখনই নেমে পড়ুন।
(সংকলিত)

*বিয়েরকেনাকাটা* *বিয়ে* *শপিং*

শ্যামল মিত্র: একটি বেশটুন পোস্ট করেছে

৫/৫
রাজার বিয়ের কেনাকাটা
রাজামশাই এত দ্রুত কই যান ?
বিয়ের কেনাকাটা করতে যাই, মনের মতো একজনারে পাইছি
*বিয়েরকেনাকাটা* *জোকস*

বিডি আইডল: একটি নতুন প্রশ্ন করেছে

 বিয়ের কেনাকাটার জন্য ঢাকার কোন মার্কেট ভালো ?

উত্তর দাও (২ টি উত্তর আছে )

*বিয়েরকেনাকাটা* *শপিং*
৫/৫

শ্যামল মিত্র: বিয়ের কেনাকাটার জন্য কেমু অনলাইন শপিং স্টোরে যোগ হলো ওয়েডিং স্টোর। স্টোরটি সাজানো হয়েছে বর-কনের সাজের যাবতীয় উপকরণ, বিয়ে-বৌভাত, হানিমুন, বিবাহ সংক্রান্ত উপহার ও আনুষঙ্গিক বিষয় নিয়ে। এখান থেকে অনলাইনেই অর্ডার দিয়ে সেরে ফেলতে পারেন বিয়ের সব ধরনের সাজসজ্জার কেনাকাটা। বিস্তারিত জানুন তাদের সাইট www.kaymu.com.bd থেকে

*বিয়েরকেনাকাটা* *শপিং*

আমানুল্লাহ সরকার: একটি বেশব্লগ লিখেছে

জন্ম, মৃত্যু ও বিয়ে এই তিনটি মানবজীবনের অপরিহার্য অংশ। বিয়ে মানেই একটি আনন্দঘন মুহুর্ত। বিয়ের প্রধান কেন্দ্রবিন্দু বর ও কনে। বিয়ের অনুষ্ঠানিকতা নিয়ে আত্মীয় স্বজনদের মধ্যেও থাকে ব্যাপক পস্তুতি। কেনাকাটা বিয়ের অনুষ্ঠান সম্পাদন জন্য অত্যান্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। আমরা যারা ঢাকাবাসী অনেকেই বিয়ের কেনাকাটার জন্য সঠিক স্থানের সন্ধান না পাওয়ার কারণে, বেশিদামে কিংবা অনেক আইটেম সম্পর্কে না জানার জন্য কেনাকাটা সঠিক হয়ে ওঠেনা। বিয়ের আগে হলুদের আয়োজনে থাকে একটু  বিশেষ কিছু কেনার চেষ্টা।কারন হলুদ এ সবাই চায় খুব আকর্ষনীয় করে সাজাঁতে।হলুদের  কেনাকাটা সম্পর্কে কিছু তথ্য তুলে ধরা হল।

ঢাকা শহরে বিভিন্ন মার্কেট ও পাড়া মহল্লায় অল্প কিছু বিয়ের দোকান বিদ্যামান। এলিফ্যান্ট রোডে ৩০টির অধিক বিয়ের দোকান আছে। এ সব দোকানে যেমনি পাচ্ছেন বিয়ের কিছু পোশাক,তেমনি পাচ্ছেন হলুদের নানা উপকরণ। আর হিন্দুদের বিয়ের জন্য শাঁখারী পট্টির প্রায় পুরোটা জুরে রয়েছে অগনিত দোকান। আর পাইকারী কেনার জন্য ঢাকার চক বাজারে বেশ কতগুলো দোকান রয়েছে।

১।ডালা———————(২২০-৭০০)টাকা
২।কুলা———————-(১২০-৬০০)টাকা
৩।বাটি/প্রদীপ—————(১০-৫০)টাকা
৪।রাখী———————-(৬০-১২০০)টাকা
৫।চন্দন———————(১২০-২০০)টাকা
৬।পাটি———————-(১৫০-১৬০০)টাকা
৭।হলুদ তোয়ালে————–(১২০-৪৫০)টাকা
৮।আফসান——————(২০-৩০)টাকা
৯।পালকি———————(১৫০-৬০০)টাকা
১০।ঝুড়ি———————-(১০০-৭০০)টাকা
১১।মাছ ডালা—————–(২৫০-১২০০)টাকা

বিয়ের পাইকারি বাজার
বিয়ের আইটেম সস্তায় কেনার জন্য চকবাজার পাইকারি মার্কেট একমাত্র উপায়। এখান থেকে সারা বাংলাদেশে পাইকারি বিক্রি হয়।

পাইকারী দরদাম

ডালা ও কুলা পাইকারি কেনা এবং বিক্রি হয় সেট হিসেবে (প্রতি সেটে থাকে তিনটি আইটেম)। পিস হিসেবেও বিক্রি হয়। ছোট সেট ৪০০-৫০০, মাঝারি ৮০০-১০০০ ও বড় সাইজের দাম ১২০০-১৫০০ টাকা। আজকাল রঙিন কাপড়ে মোড়ানো কারুকার্যখচিত ডালা ও কুলার চাহিদা বেশি। পাইকারি হিসাবে প্রতি পাটির দাম কারুকার্যখচিত ৫০০-৫৫০, সাধারণ ২২০-২৫০ টাকা।

কয়েকটি দোকানের নাম নিম্নরুপ
১. সানি জরি হাউজ-২, ২২৯, নিউ এ্যালিফ্যান্ট রোড, ফোন- ৮৬২৬৩৫৮, ৮৬২৩২৭২, মোবাইল- ০১৯২৩-৩৬৯৩৪২, ০১৭১০-৮২৬২৪৩, ০১৭৪১-৬৯২৭৪৯।
২. নবরুপ জরি হাউজ, ২২০ নিউ এ্যালিফ্যান্ট রোড (পেট্রোল পাম্পের বিপরীতে), মোবাইল- ০১৭১২-৬৫০১৬৯, ০১৬৭৩৪৯৬৯৮৪।
৩. সোনালী জরি হাউজ, ২২০, নিউ এ্যালিফ্যান্ট রোড, ফোন- ৮৬২৫৩৮৪।
৪. বিয়ে শাদী, ২৩৪/১, নিউ এ্যলিফ্যান্ট রোড, মোবাইল- ০১৭১৫-৬৫৭৪৭০।
৫. লগন-১, ২১৮/এ, নিউ এ্যালিফ্যান্ট রোড (বাটার মোড়), শেলটেক শিয়েরার বিপরীতে, মোবাইল- ০১৭১৫-৪২১৬৮৭।
৬. রিলেশন, ২১৮/১ নিউ এ্যালিফ্যান্ট রোড ফোরাম মার্কেট (বাটার মোড়), মোবাইল- ০১৯২৩-২৮৯১৩৪, ০১৭৪৯-৫০৪৮০৬।
৭. পাইকারির জন্য চকের খান মার্কেট, মরিয়ম প্লাজা সহ বেশ কয়েকটি মার্কেটে শত শত দোকান বিদ্যমান।
(সংকলিত)

*বিয়েরকেনাকাটা* *হলুদেরতত্ব* *বিয়ে* *শপিং*

বেশতো সাইট টিতে কোনো কন্টেন্ট-এর জন্য বেশতো কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

কনটেন্ট -এর পুরো দায় যে ব্যক্তি কন্টেন্ট লিখেছে তার।

...বিস্তারিত

QA

★ ঘুরে আসুন প্রশ্নোত্তরের দুনিয়ায় ★