তোফায়েল আহমদ

@TufayelBD

প্রতিনিয়তই নিজেকে পরিবর্তনের অদম্য ইচ্ছে লালন করি। কিন্তু,পরিবর্তন! সেতো আকাশচুম্বী; ধরা দিয়েও ধরা দিচ্ছে না ...
business_center প্রফেশনাল তথ্য নেই
school এডুকেশনাল তথ্য নেই
location_on লোকেশন পাওয়া যায়নি
1420366718000  থেকে আমাদের সাথে আছে

তোফায়েল আহমদ: একসময় যুবকেরা হিমু হতে চাইতো। হলুদ পাঞ্জাবি গায়ে দিয়ে, মরুভূমিতে গর্ত খুঁড়ে জ্যোৎস্না দেখার স্বপ্ন দেখতো। দেখিস,এমন একদিন আসবে, যেদিন যুবকেরা সাজিদ হতে চাইবে (ভালো)[বইমেলা-বইটাজোস]

তোফায়েল আহমদ: ৭/৭/২০১৬ লাস্ট পোস্ট (ব্যাপকটেনশনেআসি) এরপর লম্বা সময় এই পরিবার থেকে আড়ালে (মনখারাপ) আড়ালে থাকলেও পাশে থাকার চেষ্টা করেছি সর্বদা। ভালো আছেন তো সবাই (চিন্তাকরি)

তোফায়েল আহমদ: [ঈদ-ঈদমুবারাক] ঈদ মানে আপনা খুশি, নয়তো একা একা, ঈদ মানে সবাই মিলে চালায় সুখের চাকা। ঈদ মানে নয় ঈদের দিনে একাই থাকবে সুখি, ঈদ মানে সবাই সমান হোক সে গরীব দুঃখী। ঈদ মানে নয় শুধু আনন্দ উৎসব ধুলা খেলা, ঈদ মানে গরিব ধনি পুন্যমিলনের এক মহামেলা। ঈদ মানে নয় তুমিই বড় তুমিই প্রধান, ঈদ মানে বড় ছোট সকল মানুষ এক সমান। ‘ঈদ মোবারক' [ঈদ-কোলাকুলি]

তোফায়েল আহমদ: জিবনটাকে পুর্ণ উপভোগ করতে হলে সবচে বেশি প্রয়োজন যে জিনিষটার সেটা হচ্ছে 'মনের প্রশান্তি। আপনার সবকিছুই আছে; যেমন টাকা,বাড়ি,গাড়ি এবং নারী, কিন্তু মনে শান্তি নেই; তাহলে জিবনটাকে চালিয়ে নিতে পারবেন ঠিকই কিন্তু উপভোগ করতে পারবেন না! আর করবেনই বা কিভাবে যেখানে মনের ভেতরেই শান্তি নেই! খাদ্যদ্রব্য গ্রহণ করার পর যদি তা হজম না হয় তাহলে যেমন খাদ্য গ্রহন কোন উপকারে আসে না ঠিক মনের ভিতর শান্তি না থাকলে জিবনটাকেও পুর্ণ উপভোগ করা হবে না/যায় না ...

তোফায়েল আহমদ: একটি বেশব্লগ লিখেছে

✏ ০৩. হযরত আবূ সা’লাবা (রা.) এর হাদীস-

شعب الإيمان (5/ 359)
3551 - أَخْبَرَنَا أَبُو طَاهِرٍ الْفَقِيهُ، أَخْبَرَنَا أَبُو حَامِدِ بْنُ بِلَالٍ، حَدَّثَنَا مُحَمَّدُ بْنُ إِسْمَاعِيلَ الْأَحْمَسِيُ، حَدَّثَنَا الْمُحَارِبِيُّ، عَنِ الْأَحْوَصِ بْنِ حَكِيمٍ، عَنِ الْمُهَاصِرِ بْنِ حَبِيبٍ، عَنِ مَكْحُولٍ، عَنْ أَبِي ثَعْلَبَةَ الْخُشَنِيِّ، عَنِ النَّبِيِّ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ، قَالَ: " إِذَا كَانَ لَيْلَةُ النِّصْفِ مِنْ شَعْبَانَ اطَّلَعَ اللهُ إِلَى خَلْقِهِ فَيَغْفِرُ لِلْمُؤْمِنِ، وَيُمْلِي لِلْكَافِرِينَ، وَيَدَعُ أَهْلَ الْحِقْدِ بِحِقْدِهِمْ حَتَّى يَدَعُوهُ "
❏ অর্থ : হযরত আবূ সা’লাবা (রা.) বলেন : রসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেন : ১৫ই শা’বানের রাতে আল্লাহ পাক বান্দাদের দিকে মনোনিবেশ করেন এবং মু’মিন বান্দাদের ক্ষমা করে দেন। অপরদিকে পরস্পর হিংসা বিদ্বেষপোষণকারীদের আপন অবস্থায় ছেড়ে দেন। অর্থাৎ যতক্ষণ না তারা তা থেকে বিরত হয়ে তওবা করতঃ ক্ষমা প্রার্থনা করে। শোয়াবুল ঈমান-৫/৩৫৯, হাদীস-৩৫৫১, কিতাবুস সুন্নাহ-১/২২৩, হাদীস-৫১১, আসসিলসিলাতুস সহীহাহ-৩/১৩৬, হাদীস-১১৪৪, আল মুজামুল কাবীর লিত তাবরানী-২০/২২৩, হাদীস-৫৯০, আন নুযুল দি দারে কুতনী-১৫৯, হাদীস-৭৮ ইত্যাদি অসংখ্য কিতাবে হাদীসটি উল্লেখ রয়েছে।

░▒▓█►হাদীসটির মান :
উক্ত হাদীসটি তার সমর্থিত বর্ণনার কারণে হাসান তথা প্রমাণযোগ্য।
উল্লেখ্য যে উক্ত হাদীস এর সূত্রে একজন বর্ণনাকারী রয়েছেন, ‘‘আহওয়াস ইবনে হাকীম’’ যার সিকাহ ও নির্ভর হওয়ার বিষয়ে জারাহ ও তাদিলের ইমামগণের মাঝে মতবিরোধ রয়েছে। কিন্তু সঠিক সমাধান হলো যা ইমাম দারে কুতনী বলেছেন-
وفيه الأحوص بن حكيم وهو ضعيف "انتهى
والأحوص بن حكيم: القول فيه قول الدارقطني:" يعتبر به إذا حدث عن ثقة "انتهى [التهذيب:1/168]، فمثله يحتج به في باب المتابعات والشواهد.
অর্থ : ‘‘আহওয়াস ইবনে হাকীম’’ যখন কোন নির্ভর বর্ণনাকারী থেকে বর্ণনা করেন, তখন তা গ্রহণযোগ্য আর ঐ ধরনের বর্ণনাগুলোর সমর্থিত বর্ণনা পাওয়া গেলে তা প্রমাণযোগ্য হয়ে থাকে। আত তাহযীব-১/১৬৮।
এখানে ইমাম দারে কুতনী (রহ.) এর সিদ্ধান্ত সম্পূর্ণ ভাবে পাওয়া গিয়েছে তাই ‘‘আহওয়াস ইবনে হাকীম’’ এর মত বর্ণনাকারী থাকলেও হাদীসটি হাসান তথা প্রমাণযোগ্য হতে কোন বাঁধা বাকি রইলো না।
এছাড়াও ইমাম আহমদ ইবনে আব্দুল্লাহ আল ইজলী (রহ.) তার সম্পর্কে বলেন-لا بأس به তার মাঝে কোন সমস্যা নেই, ইমাম সুফইয়ান ইবনে উয়াইনা বলেন-ثقة সে নির্ভরযোগ্য, ইমাম বুখারী (রহ.) এর উস্তাদ আলী ইবনে মাদীনি বলেন-صالح ، ومرة : ثقة সে সৎ আর কখনো বলতেন সে নির্ভরযোগ্য, ইমাম মুহাম্মদ ইবনে আব্দুল্লাহ ইবনে আম্মার আল মাওসেলী (রহ.) বলেন-صالح সে সৎ।

❏ প্রিয় পাঠক তাহলে এতগুলো জরাহ তাদিলের ইমাম তার বিষয়ে নন্দিত মন্তব্যের পরও কি কোন আহলে হাদীস ভাই তিনি প্রমাণযোগ্য নয় বলে দাবী করা যুক্তি যুক্ত হবে? নিশ্চয় না। আল্লাহ আমাদেরকে সঠিক তাহকীক করে সিদ্ধান্ত নেয়ার তাওফীক দান করুন। আমীন

✏ ০৪. (ক) শবে বরাত যে এক মহাগুরুত্বপূর্ণ রজনী তার দলীল কোরআন থেকে-
প্রথমত একটি বিষয় জানা প্রয়োজন যে, আমরা কসম করে থাকি মহান সত্ত্বা আল্লাহর নামে, আর সেই আল্লাহ নিজেই যদি তার কোন সৃষ্টিকে নিয়ে কসম করে, তাহলে তার মহত্ব কেমন হতে পারে?

❏আহলে হাদীস ভাইদের নয়নের শিরোমণী শায়খুল ইসলাম ইবনে তাইমিয়্যা (রহ.) বলেন-
مجموع الفتاوى (1/ 290)
فَإِنَّ اللَّهَ يُقْسِمُ بِمَا يُقْسِمُ بِهِ مِنْ مَخْلُوقَاتِهِ لِأَنَّهَا آيَاتُهُ وَمَخْلُوقَاتُهُ. فَهِيَ دَلِيلٌ عَلَى رُبُوبِيَّتِهِ وَأُلُوهِيَّتِهِ وَوَحْدَانِيِّتِهِ وَعِلْمِهِ وَقُدْرَتِهِ وَمَشِيئَتِهِ وَرَحْمَتِهِ وَحِكْمَتِهِ وَعَظْمَتِهِ وَعِزَّتِهِ فَهُوَ سُبْحَانَهُ يُقْسِمُ بِهَا لِأَنَّ إقْسَامَهُ بِهَا تَعْظِيمٌ لَهُ سُبْحَانَهُ.
....মহান আল্লাহ তার সৃষ্টির কোন কিছু নিয়ে কসম করা, তা ঐ জিনিষের মহান গুরুত্ব সন্মান ইত্যাদির উপর বুঝায়....। মাজমুউল ফাতাওয়া-১/২৯০।

❏ এখন দেখুন মহান আল্লাহ নিজেই পবিত্র কোরআনে শবে বরাত নিয়ে কসম করেছেন-
وقال العلامة الجرجاني رحمه الله (المتوفى: 471هـ) فى درج الدرر في تفسير الآي والسور (2/ 709)
2 - {وَلَيالٍ عَشْرٍ:} الظّاهر أنّهنّ ليالي (4) الأيام المعلومات، (5) ويجوز أن يكون المراد بهنّ ليلة الجائزة، وهي ليلة الفطر، وليلة المزدلفة، وهي ليلتا النّحر، وليالي منى، وهي ثلاث، وليلة النّصف من شعبان، وهي ليلة البراءة، وأربع ليال في العشر الأواخر من شهر رمضان اللّواتي إحداهن ليلة القدر.

(5) ينظر: تفسير ابن أبي حاتم (19233) عن ابن عباس، وتفسير الثعلبي 10/ 191، وتفسير السمعاني 6/ 217، والكشاف 4/ 749.
অর্থাৎ : পবিত্র কোরআনের সূরায়ে আল ফজরের শুরুতেই মহান আল্লাহ বলেন-শপথ দশ রাত্রির, উক্ত দশ রাত্রি সম্পর্কে বিভিন্ন মতামত রয়েছে, কিন্তু আল্লামা জুরযানী (রহ.) বলেন, এর দ্বারা উদ্দেশ্য হলো ঐ সব রাত্রি যাতে পুরুস্কার ঘোষনা করা হয়েছে যেমন ..... শবে বরাত..। দারজুদ দুরার-২/৭০৯।

❏ উল্লেখ যে উক্ত দশ রাত্রির ব্যাখ্যায় কোন কোন মুফাসসের বলেন, যিলহজের দশ রাত্রি, আবার কেউ বা বলেন, মাহে রমজানের শেষ দশ রাত্রি ইত্যাদি বিভিন্ন মতামত রয়েছে।

❏ বিখ্যাত তাবেয়ী মাসরুককে জিজ্ঞাসা করা হয়েছিল-
مصنف عبد الرزاق الصنعاني (4/ 376)
8120 - عَنْ مَعْمَرٍ، عَنِ الْأَعْمَشِ، عَنْ أَبِي الضُّحَى قَالَ: سُئِلَ مَسْرُوقٌ عَنِ {الْفَجْرِ وَلَيَالٍ عَشْرٍ} [الفجر: 2] قَالَ: «هِيَ أَفْضَلُ أَيَّامِ السَّنَةِ»
{الْفَجْرِ وَلَيَالٍ عَشْرٍ} এই আয়াত দ্বারা কি উদ্দেশ্য? তিনি বললেন বছরের সব উত্তম রাত্রিগুলো উদ্দেশ্য। মুসান্নাফে আব্দুর রাজ্জাক-৪/৩৭৬, হাদীস-৮১২০। আর শবে বরাত বছরের একটি উত্তম রজনী তা আমরা হাদীস দ্বারা আলোচনা করেছি।

✏ ৪. (খ) মহান আল্লাহ তায়ালা পবিত্র কোরআনে আরোও বলেন-
تفسير ابن كثير (7/ 225)
حم (1) وَالْكِتابِ الْمُبِينِ (2) إِنَّا أَنْزَلْناهُ فِي لَيْلَةٍ مُبارَكَةٍ إِنَّا كُنَّا مُنْذِرِينَ (3) فِيها يُفْرَقُ كُلُّ أَمْرٍ حَكِيمٍ (4)............. إِنَّهَا لَيْلَةُ النِّصْفِ مِنْ شَعْبَانَ كَمَا رُوِيَ عَنْ عِكْرِمَةَ الخ
হা-মীম, শপথ সুস্পষ্ট কিতাবের, আমি একে নাযিল করেছি এক বরকতময় রাতে, নিশ্চয় আমি সতর্ককারী। এ রাতে প্রত্যেক প্রজ্ঞাপূর্ণ বিষয় স্থিরীকৃত হয়। সূরা আদ দুখান-১-৪।
উক্ত আয়াতে ‘‘বরকতময় রাত’’ নিয়ে মুফাসিরদের মাঝে মতানক্য রয়েছে, কেউ বলেন, সেই রাত্রি হলো লাইলাতুল কদর আবার কেউ বা বলেন, শবে বরাত। কিন্তু লাইতালুল কদর এটি অধিক গ্রহণযোগ্য মত। তাফসীরে ইবনে কাসীর-৭/২২৫। আর এই ব্যাখ্যা আহলে হাদীসদের নয়নের শিরোমনি আব্দুর রহমান মুবারকপুরীও বলেছেন। (তুহফাতুল আহওয়াযী:৩/৩৬৭)

❏ সারকথা হলো, পবিত্র কোরআনের ব্যাখ্যাবিদগণ কোন না কোন ভাবে পবিত্র কোরআন থেকেও শবে বরাতের দিকে ইংঙ্গিত দেয়ার চেষ্টা করেছেন। যা তার মহত্বের প্রতি ইংঙ্গিত বহন করে।

✏ ০৫. হযরত আয়েশা (রা.) এর হাদীস-
سنن الترمذي (2/ 108)
739 - حَدَّثَنَا أَحْمَدُ بْنُ مَنِيعٍ، قَالَ: حَدَّثَنَا يَزِيدُ بْنُ هَارُونَ، قَالَ: أَخْبَرَنَا الحَجَّاجُ بْنُ أَرْطَاةَ، عَنْ يَحْيَى بْنِ أَبِي كَثِيرٍ، عَنْ عُرْوَةَ، عَنْ عَائِشَةَ قَالَتْ: فَقَدْتُ رَسُولَ اللهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ لَيْلَةً فَخَرَجْتُ، فَإِذَا هُوَ بِالبَقِيعِ، فَقَالَ: أَكُنْتِ تَخَافِينَ أَنْ يَحِيفَ اللَّهُ عَلَيْكِ وَرَسُولُهُ، قُلْتُ: يَا رَسُولَ اللهِ، إِنِّي ظَنَنْتُ أَنَّكَ أَتَيْتَ بَعْضَ نِسَائِكَ، فَقَالَ: إِنَّ اللَّهَ عَزَّ وَجَلَّ يَنْزِلُ لَيْلَةَ النِّصْفِ مِنْ شَعْبَانَ إِلَى السَّمَاءِ الدُّنْيَا، فَيَغْفِرُ لأَكْثَرَ مِنْ عَدَدِ شَعْرِ غَنَمِ كَلْبٍ.
❏ অর্থ : হযরত আয়েশা (রা.) বলেন, একরাতে আমি রাসূল (সা.) কে বিছানায় পেলাম না। তাই (খোজার উদ্দেশ্যে) বের হলাম। তখন দেখতে পেলাম তিনি জান্নাতুল বাকীতে আছেন। আমাকে দেখে তিনি বলে উঠলেন, তুমি কি এ আশঙ্কা করছো যে, আল্লাহ এবং তার রাসূল তোমার প্রতি অবিচার করবেন? আমি বললাম হে আল্লাহর রাসূল! আমি ধারণা করছিলাম, আপনি আপনার অন্য স্ত্রীর ঘরে তাশরীফ নিয়েছেন। রাসূল (সা.) বলেন, শা’বানের পনের তারিখ রাতে আল্লাহ তা‘আলা দুনিয়ার আসমানে অবতরণ করেন এবং ‘বনু কালব’ গোত্রের ভেড়ার পশমের চেয়েও অধিক সংখ্যক লোককে মাফ করে দেন। তিরমিযী শরীফ: ১/১০৮, হাদীস-৭৩৯, ইবনে মাজা-১৩৮৫, মুসান্নাফে ইবনে আবী শায়বাহ-১০/৪৩৭, ৪৩৮, হাদীস-৯৯০৭, মুসনাদে আহমদ-৬/২৩৮, সিলসিলাতুস সহীহা-৩/১৩৮, হাদীস-১১৪৪।

❀ ফায়দা : আরবের লোকেরা সাধারণতঃ বকরী পালন করে থাকত, প্রায় সকল গোত্রের লোকেরই বহু বকরীর মালিক ছিল, তম্মধ্যে ‘‘বনূ কালব’’ গোত্রের অধীনে সর্বাধিক বকরী ছিল। অত্র হাদীসে সেই ‘‘বনূ কালবের’’ সকল বকরীর গায়ের পশম অপেক্ষা অধিক পরিমাণ বান্দাহকে ক্ষমা করে দেয়ার কথা বলা হয়েছে।

░▒▓█► হাদীসটির মান :
উক্ত হাদীসটি হাসান (মুনকাতে) যা হানাফীদের নিকট প্রমাণযোগ্য। এই হাদীস এর সকল বর্ণনাকারী সিকাহ বা নির্ভরযোগ্য তার পাশাপশি তার সমর্থনে রয়েছে আরো একাধিক হাদীস।

ইমাম ইবনে হিব্বান (রহ.) উক্ত হাদীসটিকে সহীহ বলেছেন-
المواهب اللدنية بالمنح المحمدية (3/ 300)
وصحح ابن حبان بعضها وخرجه فى صحيحه، ومن أمثلها- كما نبه عليه الحافظ ابن رجب- حديث عائشة قالت: فقدت النبى- صلى الله عليه وسلم-
অর্থাৎ : ইমাম ইবনে হিব্বান (রহ.) শবে বরাত সম্পর্কে বর্ণিত কিছু হাদীসকে সহীহ বলেছেন এবং তার নিজ গ্রন্থে সংকলনও করেছেন। যেমন ইবনে রজব (রহ.) বলেন, হযরত আয়েশা (রা.) এর হাদীস। আমি একদা.......। (আল মাওয়াহিবুল লাদুনিয়্যাহ বিল মিনহীল মুহাম্মাদিয়া: ৩/৩০০)
এছাড়া ইমাম ইবনে মাজা (রহ.) তার সুনানে ইবনে মাজাতে, ইবনে আবী শাইবা তার মুছান্নাফে, ইমাম আহমদ তার মুসনাদে এছাড়া আরো অনেকেই হাদীসটি উল্লেখ করেছেন। কিন্তু কেউ হাদীসটিকে জাল বা অত্যাধিক দুর্বল বলেন নি। হাদীসটির বর্ণনাকারী ছিকাহ (বিশ্বস্ত) আর অন্য হাদীসের সহযোগিতায় হাদীসটি শক্তিশালী। এছাড়া আবু বকর (রা.) মু‘আজ বিন জাবাল (রা.) প্রমূখ প্রসিদ্ধ সাহাবী থেকে এরূপ বর্ণনা রয়েছে। সুতরাং নিঃসন্দেহে হাদীসটি হাসান ।

❑ উল্লেখ্য যে ইমাম বুখারী (রহ.) (মুনকাতে) হাদীসকে যয়ীফ বলে থাকেন। তাই ইমাম তিরমিযী (রহ.) ও উক্ত হাদীসটি সম্পর্কে ইমাম বুখারী (রহ.) এর যয়ীফ বলে মন্তব্যটি নকল করেছেন-
سنن الترمذي ت بشار (2/ 108)
وَسَمِعْتُ مُحَمَّدًا يُضَعِّفُ هَذَا الحَدِيثَ.
وقَالَ يَحْيَى بْنُ أَبِي كَثِيرٍ لَمْ يَسْمَعْ مِنْ عُرْوَةَ، وَالحَجَّاجُ بْنُ أَرْطَاةَ لَمْ يَسْمَعْ مِنْ يَحْيَى بْنِ أَبِي كَثِيرٍ.
তিরমিযী-২/১০৮। অতএব উক্ত ক্ষেত্রে শুধু ইমাম বুখারী (রহ.) এর কথা অনুসারে সিদ্ধান্ত হবে না। কেননা এটি মতানৈক্যধীন একটি বিষয়, যা অনেক ইমামদের নিকট গ্রহণযোগ্য। অতএব ইমাম বুখারী (রহ.) এর দোহাই দিয়ে উক্ত হাদীসকে যয়ীফ বলার সুযোগ কোথায়? যেখানে অন্য অন্য জারাহ তাদিলের ইমাম উক্ত হাদীসকে হাসান ও সহীহ বলে মন্তব্য করেছেন।

✏ ০৬. হযরত আয়েশা (রা.) এর হাদীস-
شعب الإيمان (5/ 361)
3554 - أَخْبَرَنَا أَبُو نَصْرِ بْنُ قَتَادَةَ، حَدَّثَنَا أَبُو مَنْصُورٍ مُحَمَّدُ بْنُ أَحْمَدَ الْأَزْهَرِيِّ الْهَرَوِيُّ، حَدَّثَنَا الْحُسَيْنُ بْنُ إِدْرِيسَ، حَدَّثَنَا أَبُو عُبَيْدِ اللهِ ابْنُ أَخِي ابْنِ وَهْبٍ، حَدَّثَنَا عَمِّي، حَدَّثَنَا مُعَاوِيَةُ بْنُ صَالِحٍ، عَنِ الْعَلَاءِ بْنِ الْحَارِثِ، أَنَّ عَائِشَةَ، قَالَتْ: قَامَ رَسُولُ اللهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ مِنَ اللَّيْلِ يُصَلِّي فَأَطَالَ السُّجُودَ حَتَّى ظَنَنْتُ أَنَّهُ قَدْ قُبِضَ، فَلَمَّا رَأَيْتُ ذَلِكَ قُمْتُ حَتَّى حَرَّكْتُ إِبْهَامَهُ فَتَحَرَّكَ، فَرَجَعْتُ، فَلَمَّا رَفَعَ رَأْسَهُ مِنَ السُّجُودِ، وَفَرَغَ مِنْ صَلَاتِهِ، قَالَ: " يَا عَائِشَةُ أَوْ يَا حُمَيْرَاءُ ظَنَنْتِ أَنَّ النَّبِيَّ خَاسَ بِكِ؟ "، قُلْتُ: لَا وَاللهِ يَا رَسُولَ اللهِ وَلَكِنِّي ظَنَنْتُ أَنَّكَ قُبِضْتَ لِطُولِ سُجُودِكَ، فَقَالَ: " أَتَدْرِينَ أَيَّ لَيْلَةٍ هَذِهِ؟ "، قُلْتُ: اللهُ وَرَسُولُهُ أَعْلَمُ، قَالَ: " هَذِهِ لَيْلَةُ النِّصْفِ مِنْ شَعْبَانَ، إِنَّ اللهَ عَزَّ وَجَلَّ يَطْلُعُ عَلَى عِبَادِهِ فِي لَيْلَةِ النِّصْفِ مِنْ شَعْبَانَ فَيَغْفِرُ لِلْمُسْتَغْفِرِينَ، وَيَرْحَمُ الْمُسْتَرْحِمِينَ، وَيُؤَخِّرُ أَهْلَ الْحِقْدِ كَمَا هُمْ "
❏ অর্থ : হযরত আ’লা ইবনুল হারিছ (রাহ.) থেকে বর্ণিত, উম্মুল মু’মিনীন হযরত আয়েশা (রা.) বলেন, একবার রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম রাতে নামাযে দাঁড়ালেন এবং এত দীর্ঘ সেজদা করলেন যে, আমার আশঙ্কা হল, তাঁর হয়তো ইন্তেকাল হয়ে গেছে। আমি তখন উঠে তাঁর বৃদ্ধাঙ্গুলি নাড়া দিলাম। তাঁর বৃদ্ধাঙ্গুলি নড়ল। যখন তিনি সেজদা থেকে উঠলেন এবং নামায শেষ করলেন তখন আমাকে লক্ষ করে বললেন, হে আয়েশা! অথবা বলেছেন, ও হুমায়রা! তোমার কি এই আশঙ্কা হয়েছে যে, আল্লাহর রাসূল তোমার হক নষ্ট করবেন? আমি উত্তরে বললাম, না, ইয়া রাসূলুল্লাহ। আপনার দীর্ঘ সেজদা থেকে আমার আশঙ্কা হয়েছিল, আপনি মৃত্যুবরণ করেছেন কি না। নবীজী জিজ্ঞাসা বললেন, তুমি কি জান এটা কোন্ রাত? আমি বললাম, আল্লাহ ও তাঁর রাসূলই ভালো জানেন। তিনি তখন বললেন, এটা হল অর্ধ শা’বানের রাত। (শা’বানের চৌদ্দ তারিখের দিবাগত রাত)। আল্লাহ তাআলা অর্ধ শা’বানের রাতে তাঁর বান্দাদের প্রতি রহমতের দৃষ্টি প্রদান করেন, ক্ষমা প্রার্থনাকারীদের ক্ষমা করেন এবং অনুগ্রহপ্রার্থীদের প্রতি অনুগ্রহ করেন। আর বিদ্বেষ পোষণকারীদের ছেড়ে দেন তাদের অবস্থাতেই। শুআবুল ঈমান, বায়হাকী-৫/৩৬১, হাদীস-৩৫৫৪, জমউল জাওয়ামি-১/১৮৫, আততারগীব ওয়াত তারহীব লিল মুনজেরী-২/২৪২।

░▒▓█► হাদীসটির মান :
ইমাম বায়হাকী নিজেই উক্ত হাদীস উল্লেখ করে বলেন-
قُلْتُ: هَذَا مُرْسَلٌ جَيِّدٌ وَيُحْتَمَلُ أَنْ يَكُونَ الْعَلَاء بْنُ الْحَارِثِ أَخَذَهُ مِنْ مَكْحُولٍ وَاللهُ أَعْلَمُ،
অর্থাৎ : উক্ত হাদীসটি (মুরসাল) সনদ অনেক উত্তম। অতএব হাদীসটি প্রমাণযোগ্য।
উল্লেখ্য যে কিছু কিছু ইমাম বলেছেন মুরসাল হাদীস প্রমাণযোগ্য নয়, তার সাথে আমাদের সালাফী ভাইগনও সুর মিলিয়ে হানাফীদের দলীলযোগ্য অনেক হাদীস এর ক্ষেত্রে আপত্তি উঠাতে চায়। যেমন উক্ত হাদীস এর ক্ষেত্রেও তারা বলে হাদীসটি মুরসাল তাই প্রমাণযোগ্য নয়?
❑ জবাব : ০১ : ইমাম বায়হাকী (রহ.) বলেন উক্ত হাদীসটি মুরসাল কি না? তার মাঝেও সন্দেহ আছে। কেননা উক্ত হাদীস এর সূত্রে থাকা বর্ণনাকারী ‘আলা ইবনে হারেস’ যদি ‘‘মাকহুল’’ থেকে উক্ত হাদীস শুনে থাকে তাহলে হাদীসটি মুরসাল না। আর যদি না শুনে থাকেন তাহলে মুরসাল। শুআবুল ঈমান, বায়হাকী-৫/৩৬১, হাদীস-৩৫৫৪।
❑ জবাব : ০২ : আহলে হাদীস ভাইদের অনেক ইমামগণ, বিশেষ করে শায়খ আলবানী ও বর্তমানে কথিত শায়খ মতিউর রহমান মাদানীসহ আরো অনেকেই যখন নিজ মতবাদের দলীল পেশ করতে গিয়ে মুরসাল হাদীস আসে, তখন তাদের মুখ থেকে শুনা যায় যে উক্ত হাদীসটি প্রমাণযোগ্য। কেননা ইমাম আবূ হানীফা (রহ.) সহ আরো কতক ইমাম মুরসাল হাদীসকে প্রমাণযোগ্য বলেছেন।

✏ দেখুন তার একটি দৃষ্টান্ত ‍বুকের উপর হাত বাঁধার বিষয় নিয়ে-
سنن أبي داود (1/ 201)
759 - حَدَّثَنَا أَبُو تَوْبَةَ، حَدَّثَنَا الْهَيْثَمُ يَعْنِي ابْنَ حُمَيْدٍ، عَنْ ثَوْرٍ، عَنْ سُلَيْمَانَ بْنِ مُوسَى، عَنْ طَاوُسٍ، قَالَ: كَانَ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ «يَضَعُ يَدَهُ الْيُمْنَى عَلَى يَدِهِ الْيُسْرَى، ثُمَّ يَشُدُّ بَيْنَهُمَا عَلَى صَدْرِهِ وَهُوَ فِي الصَّلَاةِ»
_________
[حكم الألباني] : صحيح
হযরত তাউস (রহ.) রাসূল (সা.) এর থেকে বর্ণনা করেন, নিশ্চয় তিনি ডান হাতকে বাপ হাতের উপর রেখে, তার বুকের উপর মজবুত করে বাঁধতেন, আর তখন তিনি নামাযে ছিলেন। আবূ দাউদ-১/২০১, হাদীস-৭৫৯।
উক্ত হাদীসটি সর্ব সম্মত ভাবে মুরসাল তারপরও হাদীসটিকে শায়খ আলবানী নিজেও সহীহ বলেছেন।
এখন বলুন আহলে হাদীস ভাইগণ উল্লেখিত মুরসাল হাদীস বা হানাফীদের প্রমাণের জন্য অন্য অন্য মুরসাল হাদীস সম্পর্কে কি বলবেন? বলারতো কিছু নেই আসুন, এই সব দৃষ্টান্ত থেকে নিজের দিলকে হাসাদ মুক্ত করুন। আর ঈমানকে বিদ্বেষ থেকে মুক্ত করুন।

❀❖ উপরোক্ত হাদীসগুলো থেকে এ রাতের ফযীলত যেমন জানা যায় তদ্রূপ এ রাতের আমল কেমন হওয়া উচিত তাও বোঝা যায়। অর্থাৎ দীর্ঘ নামায পড়া, সেজদা দীর্ঘ হওয়া, দুআ ও ইস্তেগফার করা ইত্যাদি। মোটকথা, সহীহ হাদীস থাকা অবস্থায় শবে বরাতের ফযীলত ও গুরুত্বকে সম্পূর্ণ অস্বীকার করা এবং এ সংক্রান্ত সকল রেওয়ায়েতকে মওযূ বা যয়ীফ বলা যে কত বড় অন্যায়, তা তো বলাই বাহুল্য। তাই মহান আল্লাহ আমাদেরকে সঠিক দ্বীন ‍বুঝে আমল করা তাওফীক দান করুন। আমীন

✔ বি. দ্র. আলোচনাটি কত পর্ব হয় এখনো বুঝা যাচ্ছে না। যাই হোক আলোচিত বিষয়টির মাঝে চলে আসছে অনেক যয়ীফ হাদীস (যা ফাযায়েলের ক্ষেত্রে গ্রহণযোগ্য) ও সাহাবায়ে কেরাম (রা.) এর আসার আর আমাদের আহলে হাদীস ভাইগণ দুটিকেই নিজ সুবিধে ব্যতীত মানতে আগ্রহী নন। তাই তৃতীয় পর্বে আলোচনা হবে দুইটি বিষয় নিয়ে এক. সাহবাগণ আমাদের অনুসরণীয় কেন? দুই. যয়ীফ হাদীস নিয়ে আলোচনা।

✍ইতি মুফতী মো. ছানা উল্লাহ

তোফায়েল আহমদ: একটি বেশব্লগ লিখেছে

❖প্রশ্ন : আজকাল কারো কারো মুখে শোনা যায় যে, শবে বরাত বলতে কিছু নেই, এ রাতের ফযীলত বিষয়ে যত রেওয়ায়েত আছে সব মওযূ বা যয়ীফ। তাই শবে বরাতকে ফযীলতপূর্ণ রাত মনে করা এবং সে অনুযায়ী আমল করা জায়েয নয়। তাদের দাবী কি সঠিক? যদি সঠিক না হয় তাহলে হাদীস ও সুন্নাহর আলোকে শবে বরাতের গুরুত্ব ও ফযীলত সম্পর্কে জানিয়ে বাধিত করবেন।

❖উত্তর : না তাদের দাবী সম্পূর্ণ ভুল ও ভ্রান্ত। শবে বরাত অর্থাৎ ১৫ শা’বানের রজনী। যার ফযীলত সম্পর্কে সহীহ হাদীসে বর্ণিত হয়েছে। যেমন-

✏ ০১. হযরত মুয়াজ ইবনে জাবাল (রা.) এর হাদীস-
صحيح ابن حبان - محققا (12/ 481)
5665 - أَخْبَرَنَا مُحَمَّدُ بْنُ الْمُعَافَى الْعَابِدُ بِصَيْدَا، وَابْنُ قُتَيْبَةَ وَغَيْرُهُ، قَالُوا: حَدَّثَنَا هِشَامُ بْنُ خَالِدٍ الْأَزْرَقُ، قَالَ: حَدَّثَنَا أَبُو خُلَيْدٍ عُتْبَةُ بْنُ حَمَّادٍ، عَنِ الْأَوْزَاعِيِّ، وَابْنِ ثَوْبَانَ، عَنْ أَبِيهِ، عَنْ مَكْحُولٍ، عَنْ مَالِكِ بْنِ يُخَامِرَ عَنْ مُعَاذِ بْنِ جَبَلٍ، عَنِ النَّبِيِّ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ قَالَ: «يَطْلُعُ اللَّهُ إِلَى خَلْقِهِ فِي لَيْلَةِ النِّصْفِ مِنْ شَعْبَانَ فَيَغْفِرُ لِجَمِيعِ خَلْقِهِ إِلَّا لِمُشْرِكٍ أَوْ مُشَاحِنٍ»
অর্থ : হযরত মুয়াজ ইবনে জাবাল রা. থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেন, আল্লাহ তাআলা অর্ধ শা’বানের রাতে (শা’বানের চৌদ্দ তারিখ দিবাগত রাতে) সৃষ্টির দিকে (রহমতের) দৃষ্টি দেন এবং মুশরিক ও বিদ্বেষ পোষণকারী ব্যতিত সবাইকে ক্ষমা করে দেন।--সহীহ ইবনে হিব্বান-১২/৪৮১, হাদীস-৫৬৬৫, কিতাবুস সুন্নাহ-১/২২৪, হাদীস-৫১২, আল ইহসান-৭/৪৭, মাওয়ারিদুয যমআন-৪৮৬, হাদীস-১৯৮০, মাজমাউ যাওয়াইদ-৮/৬৫, সিলসিলাতুস সহীহা-৩/১৩৫, হাদীস-১১৪৪, শোয়াবুল ঈমান-৩/৩৮২, হাদীস-৩৮৩৩, আল মু’জামুল কাবীর-২০/১০৮,১০৯, আততারগীব-২/২৪২ ইত্যাদি অসংখ্য কিতাব।

░▒▓█►হাদীসটির মান :

হাদীসটি সম্পূর্ণ সহীহ
০১. ইমাম ইবনে হিব্বান (রহ.-৩৫৪) বলেন, হাদীসটি সহীহ। সহীহ ইবনে হিব্বান-১২/৪৮১, হাদীস-৫৬৬৫।

০২. আহলে হাদীসদের মহাগুরু শায়খ নাসীর উদ্দীন আলবানী(১৪২০) বলেন-
سلسلة الأحاديث الصحيحة وشيء من فقهها وفوائدها (3/ 135)
1144 - " يطلع الله تبارك وتعالى إلى خلقه ليلة النصف من شعبان، فيغفر لجميع خلقه إلا لمشرك أو مشاحن ".
حديث صحيح، روي عن جماعة من الصحابة من طرق مختلفة يشد بعضها بعضا وهم معاذ ابن جبل وأبو ثعلبة الخشني وعبد الله بن عمرو وأبي موسى الأشعري وأبي هريرة وأبي بكر الصديق وعوف ابن مالك وعائشة.
উক্ত হাদীসটি সহীহ, যা সাহাবায়ে কেরাম (রা.) এর এক বড় জামাত বর্ণনা করেছেন এবং একটি হাদীস অন্য হাদীস এর সনদকে আরো মজবুত করে তুলে। সাহাবীদের থেকে বর্ণনাকারীগণ হলেন (০১) হযরত মুয়াজ ইবনে জাবাল (রা.) (০২) আবূ সালাবা আল খাসানী (রা.) (০৩) আব্দুল্লাহ ইবনে আমর (০৪) আবূ মূসা আল আশআরী (রা.) (০৫) আবূ হুরায়রা (রা.) (০৬) আবূ বকর সিদ্দীক (রা.) (০৭) আউফ ইবনে মালেক (রা.) (০৮) হযরত আয়েশা (রা.)। সিলসিলাতুস সহীহা-৩/১৩৫, হাদীস-১১৪৪।

০৩. আল্লামা মুনজেরী (রহ.-৬৫৬) বলেন উক্ত হাদীসটি সহীহ। আত তারগীব ওয়াত তারহীব-২/৭৩, হাদীস-১৫৪৬।

০৪. আল্লামা হায়সামী (রহ.-৮০৭) বলেন-
مجمع الزوائد ومنبع الفوائد (8/ 65)
رَوَاهُ الطَّبَرَانِيُّ فِي الْكَبِيرِ وَالْأَوْسَطِ وَرِجَالُهُمَا ثِقَاتٌ.
উক্ত হাদীসটি ইমাম তাবরানী তার মুজামুল কাবীর ও আওসাতে সংকলন করেছেন, এবং সংকলিত হাদীস এর সকল বর্ণনাকারী নির্ভরযোগ্য। মাজমাওজ যাওয়েদ-৮/৬৫, হাদীস-১২৯৬০।

✏ ০২. হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে আমর (রা.) এর হাদীস-
مسند أحمد (6/ 197)
6642 - حدثنا حسن حدثنا ابن لَهِيعة حدثنا حييُّ بن عبد الله عن أبي عبد الرحمن الحُبُلّي عن عبد الله بن عمرو، أن رسول الله -صلي الله عليه وسلم - قال: "يطَّلعُ الله عَزَّ وَجَلَّ إلي خلقه ليلةَ النصف من شعبان، فيغفر لعباده، إلا لاثنين: مشاحنٍ، وقاتِلِ نفسٍ".
অর্থ : হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে আমর (রা.) হতে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেন : ১৫ই শা’বানের রাত্রে আল্লাহ পাক তার বান্দাদের ক্ষমা করে দেন দুই ব্যক্তি ছাড়া। এক. পরশ্রীকাতর। দুই. অন্যায় ভাবে কাউকে হত্যাকারী।
মুসনাদে আহমদ-৬/১৯৭, হাদীস-৬৬৪২, মাজমাউস জাওয়ায়েদ-৮/৬৫, হাদীস-১২৯৬১, আত তারগীব ওয়াত তারহীব লিল মুনজেরী-৩/৩০৮, হাদীস-৪৮৯২। ইত্যাদি অসংখ্য কিতাব..।

░▒▓█► হাদীসটির মান :
উক্ত হাদীসটি হাসান তথা প্রমাণযোগ্য।
হাদীস এর সূত্রের মাঝে একজন বর্ণনাকারী হলেন ‘‘ইবনে লাহিয়া’’ কতক ইমাম তার সিকাহ বা নির্ভর হওয়ার বিষয়ে দ্বিমত পোশন করেছেন কিন্তু সঠিক সমাধান আল্লামা ইবনে হাজার আসকালানী (রহ.), ইমাম আবূ হাফস ওমর ইবনে শাহিন (রহ.), আহমদ ইবনে সালেহ আল মিসরী, তাকে সিকাহ বা নির্ভরযোগ্য বলে মন্তব্য করেছেন। ইমাম আব্দুল্লাহ ইবনে ওহাব আল মিসরী বলেন-الصادق البار ইমাম আব্দুর রহমান ইবনে ইউসূফ ইবনে খেরাশ (রহ.) বলেন-يكتب حديثه হফেজ যাহাবী (রহ.) বলেন-ذكره في الكاشف ، وقال : العمل على تضعيف حديثه আর আল্লামা হায়সামী (রহ.) বলেন-رَوَاهُ أَحْمَدُ، وَفِيهِ ابْنُ لَهِيعَةَ وَهُوَ لَيِّنُ الْحَدِيثِ، وَبَقِيَّةُ رِجَالِهِ وُثِّقُوا. অন্যত্র আল্লামা হায়সামী (রহ.) তার সূত্রে বর্ণিত হাদীসকে হাসান বলে মন্তব্য করেছেন। নিন্মে তার দুটি দৃষ্টান্ত দেয়া হলো।

❐০১. নং হাদীস-
مجمع الزوائد ومنبع الفوائد (1/ 53)
163 - «وَعَنْ جَابِرٍ - رَضِيَ اللَّهُ عَنْهُ - قَالَ: أَمَرَ النَّبِيُّ - صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ - سُحَيْمًا أَنْ يُؤَذِّنَ فِي النَّاسِ أَنْ " لَا يَدْخُلَ الْجَنَّةَ إِلَّا مُؤْمِنٌ» ".
رَوَاهُ أَحْمَدُ، وَفِيهِ ابْنُ لَهِيعَةَ، وَإِسْنَادُهُ حَسَنٌ.
❐০২. নং হাদীস-
مجمع الزوائد ومنبع الفوائد (1/ 155)
702 - وَعَنْ عَبْدِ اللَّهِ بْنِ الْحَارِثِ أَنَّ رَسُولَ اللَّهِ - صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ - قَالَ: " «لَوَدِدْتُ أَنَّ بَيْنِي وَبَيْنَ أَهْلِ نَجْرَانَ حِجَابًا مِنْ شِدَّةِ مَا كَانُوا يُجَادِلُونَهُ» ".
رَوَاهُ الْبَزَّارُ وَالطَّبَرَانِيُّ فِي الْكَبِيرِ، وَفِيهِ ابْنُ لَهِيعَةَ، وَحَدِيثُهُ حَسَنٌ.
❀ এছাড়াও ইমাম মুসলিম (রহ.) তার সহীহ মুসলিমে ‘‘ইববে লাহিয়ার’ সনদে বর্ণিত হাদীসকে উল্লেখ করছেন-
صحيح مسلم (1/ 435)
197 - (624) حَدَّثَنَا عَمْرُو بْنُ سَوَّادٍ الْعَامِرِيُّ، وَمُحَمَّدُ بْنُ سَلَمَةَ الْمُرَادِيُّ، وَأَحْمَدُ بْنُ عِيسَى، وَأَلْفَاظُهُمْ مُتَقَارِبَةٌ، قَالَ عَمْرٌو: أَخْبَرَنَا، وَقَالَ الْآخَرَانِ: حَدَّثَنَا ابْنُ وَهْبٍ، أَخْبَرَنِي عَمْرُو بْنُ الْحَارِثِ، عَنْ يَزِيدَ بْنِ أَبِي حَبِيبٍ، أَنَّ مُوسَى بْنَ سَعْدٍ الْأَنْصَارِيَّ، حَدَّثَهُ عَنْ حَفْصِ بْنِ عُبَيْدِ اللهِ، عَنْ أَنَسِ بْنِ مَالِكٍ، أَنَّهُ قَالَ: " صَلَّى لَنَا رَسُولُ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ الْعَصْرَ، فَلَمَّا انْصَرَفَ أَتَاهُ رَجُلٌ مِنْ بَنِي سَلَمَةَ، فَقَالَ: يَا رَسُولَ اللهِ، إِنَّا نُرِيدُ أَنْ نَنْحَرَ جَزُورًا لَنَا، وَنَحْنُ نُحِبُّ أَنْ تَحْضُرَهَا "، قَالَ: «نَعَمْ، فَانْطَلَقَ وَانْطَلَقْنَا مَعَهُ، فَوَجَدْنَا الْجَزُورَ لَمْ تُنْحَرْ، فَنُحِرَتْ، ثُمَّ قُطِّعَتْ، ثُمَّ طُبِخَ مِنْهَا، ثُمَّ أَكَلْنَا قَبْلَ أَنْ تَغِيبَ الشَّمْسُ» وقَالَ الْمُرَادِيُّ، حَدَّثَنَا ابْنُ وَهْبٍ، عَنِ ابْنِ لَهِيعَةَ، وَعَمْرِو بْنِ الْحَارِثِ فِي هَذَا الْحَدِيثِ
উক্ত হাদীসটিকে উল্লেখ করেছেন। (আর মুসলিম এর সকল হাদীস সহীহ তার মাঝে কোন সন্দেহ নেই) অতঃপর ইমাম মুসলিম (রহ.) নিজ উস্তাদ আল্লামা মুরাদী (রহ.-২৪৮) এর উক্তি উল্লেখ করেছেন যে, তিনি বলেন নিন্ম হাদীসটি আমি শুনেছি ইবনে ওহাব থেকে, তিনি ‘‘ইবনে লাহিয়া’’ থেকে, তিনি আমর ইবনে হারেস থেকে বর্ণনা করেছেন। প্রিয় পাঠক এখন আপনি নিজেই ভেবে দেখুন “ইবনে লাহিয়া” কি প্রমাণযোগ্য কি না? সহীহ মুসলিম-১/৪৩৫, হাদীস-৬২৪।

❁প্রিয় পাঠক বৃন্দ উক্ত দুটি হাদীস দ্বারা আমরা স্পষ্ট যে, আহলে হাদীস ভাইদের নিন্ম দাবী-
❏‘‘শবে বরাত বলতে কিছু নেই, এ রাতের ফযীলত বিষয়ে যত রেওয়ায়েত আছে সব মওযূ বা যয়ীফ। তাই শবে বরাতকে ফযীলতপূর্ণ রাত মনে করা এবং সে অনুযায়ী আমল করা জায়েয নয়।’’❏
এ দাবীটি সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন। কেননা শবে বরাত/১৫ শা’বান ইবাদত করা কোন বেতআতী পন্থা নয়, বরং সহীহ হাদীস দ্বারা এই রাত্রি প্রমাণিত এবং এটি মহান আল্লাহ ক্ষমা করার এক মহা রাত্রি। অতএব মানুষের মাঝে মিথ্যাচার করার সুযোগ আর বাকী রইলো কোথা থেকে?

❀❖শবে বরাতের নামকরণ❁✪
হাদীস শরীফে এ রাতের কোন নির্দিষ্ট নাম উল্লেখ করা হয়নি। ليلة النصف من شعبان অর্থাৎ শা’বানের পঞ্চদশ রাত বলেই এর বিভিন্ন তাৎপর্য তুলে ধরা হয়েছে।
মুলত : শবে বরাআত (شب براءت) শব্দটি ফারসী ভাষা হতে উদ্ভুত। শব (شب ) এবং বরাআত (براءت) এর সমন্বয়ে গঠিত। ‘‘শব’’ অর্থ রজনী বা রাত্রি। আর ‘বরাআত’ শব্দের অর্থ পবিত্রতা, নাজাত, মুক্তি, পরিত্রাণ ইত্যাদি। এর রাতে যেহেতু অগণিত মানবের গুনাহ ক্ষমা করে দেয়া হয় এবং বহু জাহান্নামীদের জাহান্নাম থেকে মুক্তি দেয়া হয়, এজন্যই রাত্রটি শবে বরাআত বা মুক্তির রজনী নামে পরিচিত। পরিভাষায় শবে বরাআত না বলে শবে বরাত বলা হয়।

❀❖একটি সন্দেহের অবসান❁✪
কেউ কেউ বলে থাকে যে, যেহেতু এ রাতের নাম ``শবে বরাত'' বলে হাদীসের কোথাও উল্লেখ নেই তাই তাকে শবে বরাত নামে নামকরণ করা বৈধ নয়। তাদের এ ধারণা নিতান্তই অমূলক। কারণ এ ব্যাপারে কারো সন্দেহ নেই যে, ``শবে বরাত'' শব্দটি ফারসী। তাহলে হুবহু এই ফারসী শব্দ আরবীতে কি করে আসবে ?
যদি এর কোন সমার্থবোধক শব্দ হাদীসে নাও পাওয়া যায় তাও কোন অসুবিধে নেই। কারণ এ রাতের গুরুত্ব ও তাৎপর্যের দিকে লক্ষ্য রেখেই পরিভাষায় এ নামটির প্রসিদ্ধ ঘটেছে। হ্যাঁ, যদি একে শবে বরাত বলা কিংবা এ নামেই তাকে চিহ্নিত করাকে কেউ ফরয, ওয়াজিব, সুন্নত কিংবা মুস্তাহাব মনে করতো তাহলেই এর স্বপক্ষে প্রমাণাদি অন্বেষণের প্রয়োজন হতো। যেমন আমরা কারো বিরত্বের প্রতি লক্ষ করে বলে থাকি অমুক বাঘের ন্যায় তেমনি ভাবে উক্ত রাত্রির ফযিলতের প্রতি লক্ষে রেখে শবে বরাত বলা হয়।

❁✪আরেকটি সন্দেহের অবসান❁✪
কিছু লোক বলে থাকেন যে, শবে বরাত শিয়া সম্প্রদায় কর্তৃক দেওয়া একটি নাম। তাই এ বরকতময় রাতকে শবে বরাত নামে অভিহিত করা মোটেও বৈধ নয়। আসলে এটিও একটি ভিত্তিহীন দাবী। যতক্ষণ না তারা এর স্বপক্ষে প্রমাণ পেশ করতে সক্ষম হবে যে, কোন শিয়া কবে এ নামটি রেখেছে, ততক্ষণ পর্যন্ত তাদের এ দাবী অগ্রাহ্য বলেই বিবেচিত হবে।
উপরন্ত আমরা তাদের এ কথা মেনেও যদি নেই যে, শিয়া সম্প্রদায়ই এ নামটি রেখেছে, তদুপরি তা অবৈধ হবার কোন কারণ হতে পারে না।
تخريج أحاديث বা হাদীস অন্বেষণের ধারায় কতিপয় প্রাচ্যবিদ একটি গ্রন্থ রচনা করে তার নাম দিয়েছে معجم المفهرس لألفاظ الحديث এখন যদি কারো মনে এ প্রশ্ন জাগে যে, যদিও এটি একটি ধর্মীয় গ্রন্থ কিন্তু যেহেতু এর নামটি পাশ্চাত্য পণ্ডিত কর্তৃক রাখা হয়েছে তাই এমন ধর্মীয় পুস্তকের ক্ষেত্রে এ নামটি বৈধ নয়। তবে তা একটি ভুল ধারণা বলেই আখ্যায়িত হবে।

❁✪আরো একটি সন্দেহের অবসান❁✪
শবে বরাত সম্পর্কে কেউ কেউ বলে থাকেন যে, (বরাআত) براءت শব্দটি মুল ধাতু হচ্ছে (তাবাররা) تبرا সুতরাং শবে বরাআত অর্থ, শবে তাবাররা’’ (شب تبرا) বা তাবাররার রাত্রি। কুরআন ও হাদীসের যত জায়গায় তাবাররা বা অনুরূপ কোন শব্দ ব্যবহার করা হয়েছে, অসন্তুষ্টি অর্থেই ব্যবহৃত হয়েছে। সে হিসাবে শবে বরাত’’ অর্থ হয় অসন্তুষ্টির রাত। একটি পবিত্র রজনীর ক্ষেত্রে এমন নাম মোটেও শোভনীয় নয়।
তাদের এ ধরণাও যুক্তিহীন একটি দাবীমাত্র। (বরাআত) براءت শব্দটি কেবল (তাবাররা) تبرا বা অসন্তুষ্টি অর্থেই ব্যবহৃত হয় এমন নয় বরং পবিত্রতা, নাজাত, মুক্তি ও পরিত্রাণ ইত্যাদি অর্থেও শব্দটি বহুল ব্যবহৃত। কুরআন ও হাদীসে এর একাধিক প্রমাণ রয়েছে। যেমন-
(১) সূরা ক্বামার এর ৪৩ নং আয়াতে বলা হয়েছে-
{ أَكُفَّارُكُمْ خَيْرٌ مِنْ أُولَئِكُمْ أَمْ لَكُمْ بَرَاءَةٌ فِي الزُّبُرِ } [القمر: 43]
অর্থাৎ : তোমাদের মধ্যকার কাফেররা কি তাদের চেয়ে উত্তম? না তোমাদের মুক্তির সনদপত্র রয়েছে কিতাবসমূহে?
এ আয়াতে বরাআত (براءت ) শব্দটি মুক্তি অর্থে এসেছে।
(২) সূরা আহযাব এর ৬৯ নং আয়াতে বলা হয়েছে-
{يَا أَيُّهَا الَّذِينَ آمَنُوا لَا تَكُونُوا كَالَّذِينَ آذَوْا مُوسَى فَبَرَّأَهُ اللَّهُ مِمَّا قَالُوا } [الأحزاب: 69]
অর্থাৎ : হে মুমিনগণ! মূসাকে (আ.) যারা কষ্ট দিয়েছে তোমরা তাদের মত হয়োনা। তারা যা বলেছিল আল্লাহ তা থেকে তাকে নির্দোষ প্রমাণ করে ছিলেন।
এখানে নির্দোষ প্রমাণ শব্দটি বরাআত (براءت ) শব্দের অনুবাদ।
(৩) বুখারী শরীফের تعدل النساء بعضهن بعضا অধ্যায় ২৬৬ নং হাদীসে বলা হয়েছে :
قال لها أهل الإفك ما قالوا ، فبرأها الله منه ـ
অর্থাৎ : অপবাদ আরোপকারীরা তার (হযরত আয়েশা রা.) ব্যাপারে যা বলার বলেছিল। আল্লাহপাক তা থেকে তাকে পবিত্র ঘোষণা করেছেন। এর কয়েক লাইন পর বলা হয়েছে :
فإن كنت بريئة فسيرئك الله ـ
অর্থাৎ : যদি তুমি পবিত্র আর নির্দোষ হয়ে থাকো তবে অতি সত্বর আল্লাহ পাক তোমার পবিত্রতা ঘোষনা করবেন।
এছাড়াও আরো বহু আয়াত ও হাদীসে এ শব্দটির প্রয়োগ পরিলক্ষিত হয় যাতে تبرا অসন্তুষ্টি ছাড়া অন্য অর্থে শব্দটিকে ব্যবহার করা হয়েছে এবং সে সকল স্থানে তাবাররা (تبرا ) এর অর্থ গ্রহণ করা সম্ভবই নয়। বরং জায়গা বিশেষে ক্ষমা, নির্দোষিতা, বিচ্ছেদ, অব্যহতি, পবিত্রতা ইত্যাদি অর্থে ব্যবহৃত হয়েছে। তাই এ কথা বলা মোটেও শুদ্ধ নয় যে, কুরআন ও হাদীসের সর্বস্থনেই براءت বরাআত শব্দটি তাবাররা (تبرا ) অর্থে ব্যবহৃত হয়েছে।

✪✿বি. দ্র. কয়েকটি পর্বে সংক্ষেপে এই বিষয়ের আলোচনা শেষ করবো, কেননা বিস্তারিত আলোচনা করতে গেলে প্রায় ২০০ এর অধিক পৃষ্ঠায় একটি পুস্তিকায় পরিণত হবে। শেষ পর্বে আপনাদের জন্য বিষেশ উপহার থাকবে আর তা হলো আহলে হাদীস ভাইদের কোন কোন ইমাম উক্ত রাত্রি পালন করা ও প্রামাণিত হওয়ার প্রবক্তা।

✔মহান আল্লাহ আমাদেরকে সঠিক দ্বীন বুঝে আমল করার তাওফীক দান করুন। আমীন

✍ ইতি মুফতী মো. ছানা উল্লাহ

ছবি

তোফায়েল আহমদ: ফটো পোস্ট করেছে

অষ্টমার্গ, রাঙামাটি

ছবি

তোফায়েল আহমদ: ফটো পোস্ট করেছে

পিক ৬৯; বান্দরবন

ছবি

তোফায়েল আহমদ: ফটো পোস্ট করেছে

মিলন ছড়ি, বান্দরবন

ছবি

তোফায়েল আহমদ: ফটো পোস্ট করেছে

জাতীয় উদ্ভিদ উদ্যান (বোটানিকাল গার্ডেন, ঢাকা

তোফায়েল আহমদ: দুঃখিত! সময়মত উইশ করতে পারি নি (মনখারাপ) সুন্দরভাবে বেঁচে থাকুন (ভালবাসি) দীর্ঘদিন বেঁচে থাকুন (ভালবাসি) প্রতিটি মানুষের হৃদয়ে হোক আপনার অবস্থান (ভালবাসি) সর্বোপরি সর্বাধিক দিয়ে ভালো থাকুন এই কামনাই করি @SAMARITAN অফ টপিকঃ ঝটিকা সফর! মাত্র দু দিনের জন্য পার্শ্ববর্তী দেশে যাচ্ছি; সবার দোয়া প্রার্থী (ভালবাসি)

তোফায়েল আহমদ: একটি বেশটুন পোস্ট করেছে

তোফায়েল আহমদ-এর রিপোর্ট কার্ড
জাতি তোমার সাফল্যে আজ বিস্ময়ে বিমোহিত, এ বছর তোমার সর্বমোট পয়েন্টঃ ৫০৩৩ । তোমার সবচেয়ে বেশি কমেন্ট হওয়া পোস্টে কমেন্ট আছে ৫৩ টি ।
তোমার করা পোস্টগুলোর মধ্যে সর্বোচ্চ ৩৮ % উত্তর
সর্বোচ্চ ৩৮ % ধন্যবাদ পেয়েছো
তোমার পোস্টে সবচেয়ে বেশি কমেন্ট করেছেঃ মি"ল"ন । সর্বমোট কমেন্ট সংখ্যা = ৫৫ টি
তুমি যার পোস্টে সবচেয়ে বেশি কমেন্ট করেছেঃ মেঘলা -মেয়ে । সর্বমোট কমেন্ট সংখ্যা = ৩২১ টি
*আমলনামা* *বেশতোজন্মদিন*

তোফায়েল আহমদ: একটি বেশটুন পোস্ট করেছে

কেমনে কি!!!
"আমি সুন্দরি নারী দেবো দেশি কারি"

তোফায়েল আহমদ: একটি বেশব্লগ লিখেছে

পরীক্ষা সে তো পরীক্ষাই! হোক সেটা যে কোন সেক্টরেই। আলহামদুলিল্লাহ! নতুন একটি অভিজ্ঞতা অর্জিত হল। 

প্রথমত একটু টেনশন ফিল করছিলাম। তবে, যেহেতু পূর্ব থেকেই (...) দেয়া হয়ে গেছে তাই একটু স্বস্তিতে ছিলাম। এরপরও পরিক্ষায় যখন অংশগ্রহণ করবই তখন আর খামোখা বসে থেকে কি লাভ! এই সুযোগে তো কমপক্ষে অনেক কিছু জানা হবে।

নির্ধারিত সময়ে পরিক্ষার জন্য উপস্থিত হলাম। ১ম পরীক্ষা ছিল সকাল ৮ টায় লিখিত; আলহামদুলিল্লাহ! শতভাগ কমন পড়েছিল। ২য় পরীক্ষা ছিল সকাল ১১ টায় মুখিক (ভাইবার); আলহামদুলিল্লাহ! এই পরীক্ষায়ও কোন সমস্যা হয় নি, তবে পরীক্ষা দেয়ার জন্য লাইনে দাড়াতে হয়েছিল ১ঃ৩০ ঘণ্টার মতো। এরপূর্বে কোন পরিক্ষার জন্য এতক্ষন অপেক্ষা করতে হয় নি। ৩য় পরীক্ষা ছিল প্যাকটিকেল দুপুর ২ঃ০০ টায়। শুরু হয়েছিল ৩ঃ২০ টায়। এই পরীক্ষা নিয়ে অনেক বেশি টেনশন করেছিলাম। যেহেতু টেনশন করার কিছু ছিল না; এরপরেও একটা ইচ্ছে ছিল যেন শতভাগ সফল হতে পারি! বাট পারি নি! কারণ, অভিজ্ঞরাও যেখানে সফল হচ্ছিল না সেখানে আমি কিভাবে সফল হই। নিচের চিত্র দেখলে কিছুটা অনুমান করতে পারবেন পরীক্ষাটা কেমন জটিল ছিল। সম্মুখ পানে অগ্রসর হয়ে নির্দিষ্ট সীমানা ছুয়ে আবার পিছনদিক থেকে বাহির হয়ে আসা 'ইট ওয়াজ ভেরি ডিফিকাল্ট ফর মি' যাক, এরপরেও আলহামদুলিল্লাহ! অন্যান্য অনেকের তুলনায় অনেক ভালো পারফর্মেন্স দেখাতে সক্ষম হয়েছি।

এখন অপেক্ষায় আছি কবে সেই (...) হাতে আসবে।

তোফায়েল আহমদ: একটি বেশটুন পোস্ট করেছে

মুরব্বীরা বলেন "যাচিয়া হেঙ্গা বওয়াত যাইয়ো না, বইলে পস্তাইবায়" এ কথাটির মর্ম বর্তমান সময়ে খুব বেশি অনুভব করছি। একেবারে আপনজন থেকে নিয়ে পর যতজনকেও নিজ থেকে সাহায্য করতে চেয়েছি সবার কাছ থেকেই কমবেশি অবমূল্যায়ন পেয়েছি। হয়তো আমি এর যোগ্য ...

তোফায়েল আহমদ: অনলাইন শপিং 'আজকের ডিল' এর সাথে কি বেশতোর কেহ সংযুক্ত আছেন (প্রশ্ন)

পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?


অথবা,

আজকের
গড়
এযাবত
৭,৩৫৫

বেশতো সাইট টিতে কোনো কন্টেন্ট-এর জন্য বেশতো কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

কনটেন্ট -এর পুরো দায় যে ব্যক্তি কন্টেন্ট লিখেছে তার।

...বিস্তারিত

+ আরও