যারিন তাসনিম

@priyonty

সুকন্যা
business_center প্রফেশনাল তথ্য নেই
school এডুকেশনাল তথ্য নেই
location_on লোকেশন পাওয়া যায়নি
1383245830000  থেকে আমাদের সাথে আছে

যারিন তাসনিম: গড়ের মাঠ!! অক্কে বাই (খুশী২)

যারিন তাসনিম: (গ্যাংনাম)(গ্যাংনাম)(গ্যাংনাম)(গ্যাংনাম) অনেক দিন পর পাসওয়ার্ড টা মনে পড়ে গেলো!! (চাখাই)

যারিন তাসনিম: . তুমি আছ তাই তো সবই ... তোমায় ঘিরে মেঘের রাশি... সীমার মাঝে অসীম তুমি.. আকাশ জুড়ে তোমার ছবি...

ছবি

যারিন তাসনিম: ফটো পোস্ট করেছে

(ভালবাসি)(কিস) আমার বেস্টফ্রেন্ড গুলো এত্ত ভালো (খরগোশ)(চুম্মা)

[এজে-নিঃস্বার্থভালোবাসা]

*বেস্টফ্রেন্ড*

যারিন তাসনিম বেশটুনটি শেয়ার করেছে
"মেয়েরা মায়াবতী, আর মায়াবতীর পুরুষবাচক কোনো শব্দ নেই.... "

মায়াবতী (হার্ট)
কপালের ব্যবহার করা টিপটার আঠা নষ্ট হলেও মেয়েরা সেটা যত্ন করে রেখে দেয় , একজোড়া কানের দুলের একটা হারিয়ে গেলেও অন্যটা ফেলে না , পুরাতন শাড়িটা ভাঙা চুড়িটা কাজে লাগবেনা জেনেও তুলে রাখে। কারণ হল মায়া , মেয়েরা মায়ার টানে ফেলনা জিনিষও ফেলে না । অসংখ্য কষ্ট , যন্ত্রণা পেয়েও মেয়েরা মায়ারটানে একটা ভালবাসা , একটা সম্পর্ক , একটা সংসার টিকিয়ে রাখতে চায়...
এই জন্য মেয়েরা মায়াবতী আর মায়াবতীর কোন পুরুষবাচক শব্দ নেই।
ছবি

যারিন তাসনিম: ফটো পোস্ট করেছে

(খুশী২) এই কাজটা আমি আনন্দের সাথেই করি(খিকখিক)

পুচকি পিচ্চি(হাসি-৩)

*মজার-ছবি*

যারিন তাসনিম বেশব্লগটি শেয়ার করেছে

হাঁটছিলাম। হেঁটে হেঁটে অনেক পথ পার হয়ে গেলাম একপায়ে নূপুর নিয়ে। আরেক পায়েরটা কখন যে খুলে গেছে টের পাইনি। ... স্বপ্ন দেখে ঘুম ভেঙে গেল। নূপুরের মৃদু টুনটুন শব্দ কানে এলো কি এলো না এমনই এক আবেশে ফের ঘুমিয়ে পড়ি।


... আর সব কিশোরীর মতো আমারও নূপুরের শখ ছিল। বড়াপু চট্টগ্রামে পড়াশোনা করেন। ছোটাপু চুপচাপ শান্তশিষ্ট। কাউকেই বলা হতো না আমি নূপুর পরতে চাই। মনে মনে নূপুর পরে 'হৃদয় আমার নাচেরে আজিকে..' নেচে বেড়াতাম। পাশের বাসার আল্পনা আপা ফেরীওয়ালাকে ডেকে কানের দুল দেখেন, আমি উঁকি দিয়ে নূপুর দেখি, আপা বলতেন, 'রুশু, কিছু নিবি'। আমি দ্রুত লজ্জা জড়ানো গলায় বলতাম, 'ন্ না না ... আমি কিছু নেবো না।'

... স্বপ্ন দেখার শুরু তখনি। ক্লাস এইটে পড়ি। বড়াপু এইচএসসি পাশ করে চট্টগ্রাম মহিলা কলেজে ভর্তি হলেন। বড্ড একা একা লাগতো। বড়াপুকে চিঠি লিখে কত আর সময় কাটে! স্কুলছুটির দিনগুলোয় ভরদুপুরে সবাই ভাতঘুমে তলিয়ে যায়, আমি এঘর ওঘর ঘুরেটুরে বাড়ির পেছন দিকে চলে যেতাম। সেখানে গোলাপ জাম গাছ, পাটিপাতার ঝাড়, অচেনা ঝোপ, লম্বা বড় আম গাছ আর গাছে জড়ানো বড় বড় পাতার মানিপ্ল্যান্টের সাথে আমার সখ্য গড়ে ওঠে। আমি ভাবতে শুরু করি ... আমি আসলে পরীর মেয়ে। একটা নীল পরী আমার মা। ... সেই নির্জন দুপুরগুলোতে সাপের ভয় ভুলে ঘোররাগা গলায় গাছেদের সঙ্গে নীলপরী মায়ের গল্প করতাম।

... ১৩ বছর পরের কথা। কলেজ শিক্ষক আমি। শাড়ি আর মোটা ফ্রেমের চশমায় দিব্যি স্যোশলজি ম্যাডাম হয়ে গেছি। পাশাপাশি এম.ফিল করছি চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে। প্রতি সপ্তাহে চট্টগ্রাম যাই, থাকি লালখান বাজার সেজমামার বাড়িতে। ওই বাড়ির বড় ভাইয়ার বউ শর্মী ভাবী যিনি বয়সে আমার ছোট হলেও সম্পর্কের সম্মানে 'আপনি' বলি, বেশ যত্ন করতেন আমার। কোনোদিন কথায় কথায় হয়তো নূপুর নিয়ে কিছু একটা বলেছিলাম ... এক জন্মদিনে ভাবীর পাঠানো গিফট বক্স খুলে দেখি একজোড়া রূপার নূপুর। ঠিক যেমনটা আমি কৈশোরের স্বপ্নে পায়ে পরে নাচতাম, ছোট্ট একটা ঘুঙুর বাঁধা, হাঁটার সময় টুনটুন বাজে ...। অপার আনন্দে বিভোর আমি নূপুর জোড়া গালে চেপে ধরি। 

... ২০১৩ সালের জুলাই মাস। তানিমের ফোন ... 'রশিদা আপু, বিকেলে রাশিদা সুলতানা যেতে বলেছেন। আপনি সাথে যাবেন? প্লিজ!' অনুরোধ ফেলে দিতে মন চাইলো না। বললাম, 'যাবো।' ... আমি তখন যন্ত্রমানবী, শরীরের ক্লান্তিতে, মনের ক্লান্তিতে ডুবেভেসে দিন পার করছি। চুপচাপ থাকতে থাকতে অবস্থা এমন যে কথা বলতে গেলে জিহ্বা জড়িয়ে যায়। হাসতে পারি না। একজায়গায় ঠায় বসে ঘণ্টার পর ঘণ্টা কাটাই। ফেব্রুয়ারি থেকে প্রায় না খেয়ে বেঁচে আছি। খাবারে কোনো স্বাদ পাই না। ... রাশিদা সুলতানাকে সামনাসামনি না দেখলেও আমার অজানা নন, ততদিনে উনার লেখা একটা ছোট গল্প আর একটা উপন্যাস পড়ে আরও লেখা পড়ার আগ্রহ বোধ করছি। ... নির্ধারিত সময়ে রেস্টুরেন্টে বসলাম। কালো চুড়িদার, কালো সিল্কের কামিজের উপর ফিরোজা কাঁথাস্টিচ আর কালো ওড়নায় ছোট চুলের সেই নারীকে দেখছিলাম ... হাত-চোখ-মুখ সব নেড়েটেড়ে শব্দের পর শব্দ জোড়া দিয়ে অসাধারণ ভঙ্গিতে কথা বলে যাচ্ছেন। প্লেটে ভেটকি মাছের তৈরি আঙ্গুল আর গ্লাসে পেঁপের শরবত। আচমকা আমার চারপাশের দৃশ্যপট বদলে গেল ... মনে হতে লাগলো লম্বা সোফায় বসা নারীটি কোনো লেখক নন, তিনি একটা নীলপরী... এক অদ্ভুত মায়াময় আরামে চোখের পলক না ফেলে তাকে দেখতে দেখতে পাঁচ মাসের উপোসী আমি বুভুক্ষের মতো মাছ আঙ্গুল খেয়ে যাচ্ছি। আমি যেন ১৩ বছরের কিশোরী আর সামনে বসা ৩৮ বছর বয়সী নারী আসলে অনেক বছর আগে হারিয়ে যাওয়া নীলপরী। ... শুনতে পাই তিনি বলছেন, 'আরেকটা অর্ডার করি? ... ঠিক আছে তুমি এখান থেকে খাও' ...চশমায় তলায় চোখ ভিজে উঠতে শুরু করেছে, আমি ক্রমেই অনুভূতিপ্রবণ হয়ে উঠছি, শব্দ না করে বলে উঠি, মা!

রশিদা আফরোজ
২১.০৭.২০১৫ খ্রিস্টাব্দ
রাত: ১০টা ৩৯ মিনিট


যারিন তাসনিম বেশব্লগটি শেয়ার করেছে

সকালে রাজের ডাকে ঘুম ভাঙ্গে নিতুর কোন প্রশ্ন করার আগেই রাজ নিতুকে ওঠে রেডি হতে বলে সাথে বলে দেয় ডাইনিং রুমে শাড়ি এনে রেখেছে আর সাথে যেন নুপুর জোড়াও পায়ে দেয় ,নিতু কয়েকবার  জানতে চেয়েও রাজ এর কাছে কোন উত্তর পায় না প্রায় আধা ঘন্টা যাবার পর রাজ নিতুর চোখ রুমাল দিয়ে বেধে দেয় ,রিকশা থেকে নেমে কিছুদূর যাবার পর রাজ নিতুকে কোলে তুলে কোথাও বসিয়ে দেয় রাজ যখন নিতুর চোখ থেকে রুমাল সরিয়ে নেয় তখন নিতু অবাক হয় রাজের মুখের দিকে তাকিয়ে থাকে.........!!!

 পাঁচ বছর আগে যখন দুজন দুজনের প্রেমে দিনরাত ভুলে থাকছে তখনই কোন একদিন নিতু রাজকে তার স্বপ্নের কথা বলেছিলো "" জানো আমার না নৌকা করে দূরে কোথাও সারাদিন বেড়াতে যেতে ইচ্ছা করে ,আকাশি রং এর শাড়ি পরা থাকবে ,নুপুর পায়ে নৌকার পাশে পা ঝুলিয়ে দিবো ,ঢেউ এর সাথে সাথে পা ভিজবে আর বাতাসে খোলা চুল উড়বে আমি তাকিয়ে থাকবো নীল আকাশের দিকে ”কি অসাধারণ দৃশ্য তাই না ?কিন্তু আজ নিতু আকাশের দিকে নয় রাজ এর মুখের দিকে তাকিয়ে আছে,আর রাজ দুষ্টুমিভরা চোখে নিতুর দিকে তাকিয়ে হাসছে । নিতু কি বলবে ভেবে পেলনা শুধু রাজকে জড়িয়ে ধরে ওর গভীর ভালবাসায় হারিয়ে যেতে লাগলো !!! 

যারিন তাসনিম: . এত এত বিজ্ঞাপন এর ভীরে নাটক দেখা দুরাশা মাত্র। তাই youtube ই ভরষা https://youtu.be/AWS1wzc3zWY

*তাহসান*

যারিন তাসনিম: . বেশ ভাল একটা নাটক। কথাটা সত্যি যে এখন dedicated love rare. https://youtu.be/jFN4EwDbMcQ

*তাহসান*

যারিন তাসনিম বেশব্লগটি শেয়ার করেছে
"(ভেঙ্গানো২) শাড়ি পড়া সুন্দরিটা কে(খিকখিক)"

মেয়েটিকে দেখলেই ভাল লাগে। সারাক্ষণ হাসে। “মুখের মাংসপেশী অবশ হয়না?” জিজ্ঞাসা করতে ইচ্ছা হয়। ইদানিং বেশ কিছু পুরোন প্রিয় রোমান্টিক গান ভাল লাগছে। মেয়েটিকে ভাল লাগার সাথে সম্পর্ক আছে কিনা ধরতে পারছি না। লাস্যময়ী সুন্দরী যেকোন মেয়ে দেখেই তো ভাল লাগতো আগে । জীবনে কত বার কত জনের প্রতি ক্রাশ খাইসি হিসাব নাই , কিন্তু এইবার আর ..............  সেও ভাল লাগা তৈরী করেছিল ভেবেছিলাম কিন্তু  ............। শাড়ি পরে এভাবে এর আগে কাউকে এত  অপরুপা দেখিনি। বাতাসে ছড়িয়ে যাওয়া সুগন্ধী মিলিয়ে আসার আগ পর্যন্ত ভাল লাগা বজায় ছিল।  এই মেয়েটির ব্যাপারটা কি ভিন্ন? বেশততে  তার উপস্থিথি মানেই মনে ঝড় ........ ইচ্ছা হচ্ছে কথা বলতে। কিন্তু কোথায় যেন বাধা পাই।
আমি কি তাইলে সত্যি সত্যি ই .............

যারিন তাসনিম: . শুনি বাতাসের গান বাতাসে ভাসিয়ে কিছু আনমনা শীষ আয়োজনের আওভান দেখি বিরান শুন্য পথে অহর্নিশ (গ্যাংনাম)(গ্যাংনাম)(গ্যাংনাম)

ছবি

যারিন তাসনিম: ফটো পোস্ট করেছে

(বৃষ্টি)(বৃষ্টি)

(বৃষ্টি)(বৃষ্টি)

৫/৫

যারিন তাসনিম: [পিরিতি-কলিজাখানখান]আজ মন মেতেছে... ওগো তোমার প্রেমে (হার্ট)

যারিন তাসনিম: . এলোনা বেলোনা (ইয়েয়ে) কলা পাতার ঝুম (ওইসর) ছোট্ট বেলায় এই ছড়া কেটে গোল গোল ঘুরে খেলতাম (খুশীতেআউলা) অবশ্য আমি ছোট থাকায় (খুবকিউটলাগছে) আর কাজিনরা সব বড় বড় থাকায়, আমি দুধ ভাত খেলতে পারতাম(ভেঙ্গানো২) দুধ ভাত খেলার সুবিধা একটাই(খুশী২) কেউ টার্গেট করত না(খিকখিক)

*ছোটবেলারখেলা*
ছবি

যারিন তাসনিম: ফটো পোস্ট করেছে

(শয়তানিহাসি) ধন্যবাদ তাদের (খিকখিক)

(হ্যালো) টা টা (হ্যালো) বাই বাই

*ফাকা-ঢাকা*

যারিন তাসনিম: নয়ন ভরা জল গো আমার, হৃদয় ভরা সুখ (হার্ট)

ছবি

যারিন তাসনিম: ফটো পোস্ট করেছে

বৃষ্টি কাব্য (খিকখিক) ছন্দ মেলানোর অপচেষ্টা (খিকখিক)

পড়ছে বৃষ্টি সকাল দুপুর ভিজছে মনের উঠান করছে উদাস বৃষ্টি আমায় ঝপাং ঝপাং ঝপাং(খুশী২)

*ঝপাং*

পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?


অথবা,

আজকের
গড়
এযাবত
১৪,৯৩০

বেশতো সাইট টিতে কোনো কন্টেন্ট-এর জন্য বেশতো কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

কনটেন্ট -এর পুরো দায় যে ব্যক্তি কন্টেন্ট লিখেছে তার।

...বিস্তারিত

+ আরও