আসবাবপত্র

আসবাবপত্র নিয়ে কি ভাবছো?

দীপ্তি: একটি নতুন প্রশ্ন করেছে

 ব্যাক পেইন থেকে রেহাই পেতে অফিসে কেমন চেয়ার বেছে নেবো ?

উত্তর দাও (০ টি উত্তর আছে )

.
*চেয়ার* *এক্সিকিউটিভচেয়ার* *অফিসেরচেয়ার* *লাইফস্টাইলটিপস* *ফার্নিচার* *আসবাবপত্র*

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

বাচ্চাদের ঘর কিভাবে সাজানো যায় তা নিয়ে চিন্তায় থাকেন সকল বাবা না। বাসা হোক বা ফ্ল্যাট, বাচ্চাদের জন্য চাই আলাদা একটা ঘর। যত্নে আর ভালবাসায় সাজানো। বাচ্চার ঘর বলে কথা, সেটা তো যেমন তেমন করে সাজানো যায় না। মনের মাধুরি থেকে যত্ন সহকারে সাজাতে হবে সেই ঘর। ঘরের রঙ থেকে শুরু করে নজর দিতে হবে পাপশ পর্যন্ত। বাচ্চাদের ঘর ডিজাইন করার সময়ে খেয়াল রাখবেন- ঘর যেন বেশি ক্রাইডেড না হয়। শিশুর ঘরে ছোট আকৃতির দু-একটি সোফা অনায়াসে রাখতে পারেন। 

সোফা যে শুধুই বসার ঘরের জন্য আর বেডরুমের জন্য তা নয়,  আর চাইলে আপনার সোনামনির ঘরেও ছোট সোফা রাখা যায়। তবে তার ছোট রুমে ঢাউস আকৃতির চিরাচরিত সোফা না রাখাটাই ভালো, এক্ষেত্রে বেছে নিতে পারেন নান্দনিক ইনফ্লাটেবল সোফা। সব মিলিয়ে সোফা নির্বাচনের সময় বাচ্চার রুমের দেয়ালের রঙ, রুমের আকৃতি ও রুমের অন্যান্য ফার্নিচারের রঙ খেয়াল রাখতে হবে। এই তিনটি বিষয়ের সমন্বয় আপনাকে তার জন্য মানানসই সোফা পেতে সাহায্য করবে।

 

বর্তমানে ইনফ্লাটেবল সোফার ক্ষেত্রে রঙ, নকশা, আকৃতি সবকিছুতেই বেশ পরিবর্তন এসেছে।ঘরের ভেতরেই শিশু খেলবে, পড়বে, সে নিজের মতো সময় কাটাবে শিশুর কল্পনার মতো এমন একটা জগৎ গড়ে তোলা যেতে পারে। ঘরটা যে শিশুর নিজস্ব, সেই অনুভূতিটাও সে পাবে। তার বন্ধুবান্ধব আসলে তার রুমে তারা একে অপরের সাথে এমন সোফায় বসে খুনসুটিতে মেতে উঠবে। 

এই সব কিছুর সামঞ্জস্য রেখে যদি আপনি আপনার শিশুর ঘরটি ইন্টেরিয়র করতে পারেন তাহলে দেখবেন সেই ঘরটি শিশুর কাছে হয়ে উঠবে আকর্ষণীয় এবং সবচেয়ে পছন্দের জায়গা।

সোফাগুলো কিনতে ছবিতে আর এই লিংকে ক্লিক করুন।

*সোফা* *ইনফ্লাটেবলসোফা* *শিশুরঘর* *গৃহসজ্জা* *বাচ্চাদেরঘর* *ফার্নিচার* *আসবাবপত্র*

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

প্রতিদিন কাপড় বের করা এবং রাখার জন্য আলমারির ভেতরের কাপড় এলোমেলো হয়ে যায়। তারপর যদি হয় ছোট আলমারি আর ইঁদুর, তেলাপোকার উপদ্রব ? এতো এতো পোশাক কি আর ভালোভাবে ছোট আলমারিতে আটে ! আপনার চাই একটা বড় সড় পোক্ত সেগুন কাঠের টেকসই আলমারি। সেগুন কাঠের উপর কোনো কাঠ আছে নাকি আর। ঘরের নান্দনিকতা বাড়াতে কাঠের আসবাবের জুড়ি নেই। আপনার আলমারি যেমন গোছানো থাকবে ঠিক তেমনই আপনার ঘরের আভিজাত্যেও প্রকাশও এই কাঠের আসবাব থেকেই হবে, আর সেটা যদি হয় সেগুন কাঠের ফার্নিচার তাহলে তো কোনো কোথায় নেই। সেগুন কাঠ মানেই কাঠের মানের সঙ্গেও আপোষ চলবে না। হ্যাঁ মান ও নান্দনিকার চমৎকার মেলবন্ধনের নাম আজকের ডিল, সেখান থেকেই কিনুন হরেকরকম ফার্নিচার। আর দামও হাতের নাগালে। তাই ঘর সাজাতে পছন্দ আসবাব কিনতে ঘুরে আসতে পারেন আজকের ডিলে। খাট, ওয়ারড্রব, ড্রেসিং টেবিল, সোফা, ডাইনিং, চেয়ার থেকে শুরু করে ঘরের প্রায় সব আসবাব মিলবে এখানে। সুন্দর ও আকর্ষণীয় ফার্নিচারগুলো তৈরি করা হয়েছে কাঠ, ফ্লাই উড ও মেটাল দিয়ে। বিভিন্ন সাইজ ও ডিজাইনের সমাহারে তৈরি বোর্ড এবং ওক কাঠের আলমারি ১০ হাজার টাকা থেকে শুরু করে বিভিন্ন দামে পাওয়া যাচ্ছে এখানে। আপনাদের জন্য রয়েছে স্বল্প দামে সেগুন কাঠের আলমারি, দেখে নিন এক ঝলক আর পছন্দ হলে ছবিতে ক্লিক করুন।

*সেগুনকাঠ* *কাঠেরআলমারি* *আলমারি* *ফার্নিচার* *আসবাবপত্র*

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

শতকরা ৮০ ভাগ মানুষই তার জীবনকালে একবারের জন্য হলেও কোমরব্যথায় আক্রান্ত হয়ে থাকেন। ৪০ থেকে ৫০ বছর বয়সেই এই সমস্যায় আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা বেশি। তবে তরুণরাও আশঙ্কার বাইরে নন। ডাক্তারি ভাষার এই সমস্যাকে বলা হয় এলবিপি (লো ব্যাক পেইন)। বেশিরভাগই দৈনন্দিন জীবনযাত্রার বিভিন্ন অভ্যাসগত ভুলের কারণে এই রোগে আক্রান্ত হন। দীর্ঘ সময় চেয়ারে বসে থাকা কোমরব্যথা হওয়ার একটি বড় কারণ। অনেকেই মনে করেন শক্ত কাঠের চেয়ারে কিংবা নরম গদিযুক্ত চেয়ারে বসলে কোমরব্যথার হওয়ার সম্ভাবনা কমে। তবে এই ব্যথা এড়ানোর জন্য পিঠে হেলান দিয়ে বসাই বেশি জরুরি।

কম্পিউটারের সামনে বসে কাজ করার সময় কমফোর্ট ফিল করবেন এমন যেকোন চেয়ারই উপযোগি বলা যায়। তবে এমন চেয়ার ব্যবহার করবেন যেন সেটা বসে কাজ করার সময় আপনার মেরুদন্ড সোজা রাখে। কিছুটা হেলানো কিংবা হেলান দেয়ার মতো কিছু না থাকা টা মোটেও ঠিক নয়। কারণ চেয়ারে কাজ করার সময় যদি কমফোর্ট ফিল না করেন তবে সেটা আপনার পিঠ, ঘাড় ইত্যাদি স্থানে ব্যথা বা অস্বস্তি সৃষ্টি করবে। এক্ষেত্রে যেসব চেয়ারের হেলান দেওয়ার অংশটি বাঁকানো সেসব চেয়ার ব্যবহার করা দরকার। আর অতিরিক্ত নরম গদিযুক্ত চেয়ারে বসলেও কোমরের ক্ষতি হতে পারে। এজন্য পাতলা গদির চেয়ারে বসতে হবে। পিসির সামনে বসার চেয়ারটা কেমন হওয়া উচিৎ এটা নিয়ে একটা দারুণ ভিডিও আছে দেখে আইডিয়া নিতে পারেন।


https://www.youtube.com/watch?v=Whhf55No15U 

অভিজ্ঞরা চেয়ার কেনার সময় অনেকে কাঠের তৈরি চেয়ার কেনার পরামর্শ দেন পিঠের স্বাস্থর কথা ভেবে। তবে যেহেতু আপনি অনেকসময় ধরে কাজ করবেন সেক্ষেত্রে ফোম বা মেটাল বডির বিভিন্ন ফোল্ডিং চেয়ার থেকে পছন্দ করে কিনতে পারেন, সাথে কিনে নেবেন "সিট রাইট ব্যাক সাপোর্ট ফর অফিস চেয়ার"। ভালো চেয়ারগুলো ৪০০০ থেকে ৫০০০ টাকার মধ্যে পেয়ে যাবেন। শুধু তাই নয়, এক্সিকিউটিভ চেয়ার এখন পাওয়া যাচ্ছে আজকের ডিলেও। 

 

আজকের ডিলের এক্সিকিউটিভ চেয়ার ও সিট রাইট ব্যাক সাপোর্ট ফর অফিস চেয়ার সমন্ধে ছোট একটি রিভিউ দেখে নিতে পারেন এক ঝলকে। 

  • এক্সিকিউটিভ সুইভেল চেয়ার
    ব্যাক ম্যাটেরিয়াল: ব্ল্যাক মেস আপহোলস্ট্রি
    হাতল ম্যাটেরিয়াল: PP
    সিট ম্যাটেরিয়াল: স্ট্যান্ডার্ড মোল্ডেড ফোম উইথ ব্ল্যাক মেস আপহোলস্ট্রি
    টিল্ট এবং লকড ম্যাকানিজম, যা আরামদায়কভাবে পিছন দিকে হেলতে সহায়তা করবে
    হাই কোয়ালিটি গ্যাস লিফট, তাই চেয়ারকে স্মুদলি আপ-ডাউন করানো যায়
    ক্রোমিয়াম ধাতু এবং নাইলনের সমন্বয়ে তৈরি মজবুত চেয়ার
    অফিস, সেলুন বা VIP লাউঞ্জে অতিথীদের বসার জন্য আদর্শ একটি চেয়ার

 

  • সিট রাইট ব্যাক সাপোর্ট ফর অফিস চেয়ার
  • দীর্ঘ সময় কম্পিউটার সামনে বা পড়ার টেবিলে বসে থাকতে থাকতে কিংবা অফিসে চেয়ারে বসে অথবা গাড়ি চালাতে চালাতে পিঠ ব্যথার সমস্যা গুলোকে দূর করবে এবং আনন্দময় কাজের অনুভুতি দিবে- যাতে আপনি দীর্ঘক্ষণ কাজ করতে পারবেন
    এছারা যাদের মেরুদন্ডে ব্যথা তাদের জন্য অত্যন্ত কার্যকরি
    কাজের গতি বাড়াতে সাহায্য করে
    মেরুদন্ড / কোমর ও পিঠের ব্যথা দূর করতে সাহায্য করে
    Adjustable যা আপনার সুবিধা অনুযায়ী Adjust করতে পারবেন
    মেরুদন্ডের শেপ অনুযায়ী ব্যবহার করা যায়
    যে কোন চেয়ারে ব্যবহার করা যায়

এগুলো পছন্দ হলে অর্ডার করতে পারেন সরাসরি ছবিতে ক্লিক করে।  

*চেয়ার* *এক্সিকিউটিভচেয়ার* *অফিসেরচেয়ার* *লাইফস্টাইলটিপস* *ফার্নিচার* *আসবাবপত্র*

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

মূল ফটকের প্যাসেজে বা মূল ফটকের বাইরে অথবা ডুপ্লেক্স বাড়ির সিঁড়ির নিচ হতে পারে একটি চমত্কার শু র‌্যাকের জায়গা ! এর কোণে বসিয়ে দিন একটি আকর্ষণীয় লম্বা ফুলদানি আর দেয়ালে ফ্যামিলি ফটোগ্রাফ বা চিত্রকর্ম । জুতা, স্যান্ডেল যেমন প্রয়োজনীয় ঠিক তেমনই শৌখিন, জুতা সাধারণত একটু দাম দিয়ে, টেকসই দেখে কেনা হয়। বিশেষ করে যারা ম্যাচিং করে জুতা পরেন না, তারা জুতার ব্যাপারে একটু বেশিই নজর রাখেন। পয়েন্টেড হিল, স্নিকার বা ফর্মাল শু - যেকোনো ধরনের জুতা বেশিদিন টেকসই ও ভালো রাখতে পারে এই শু র‌্যাক।  এতে যেমন জুতা থাকে যত্নে, ঠিক তেমনই বাড়ে ঘরের শোভা। প্যাসেজে জুতার র‌্যাক বানাতে চাইলে দেয়ালের সঙ্গে মিলিয়ে শু র‌্যাক বক্স আকারে তৈরি করে নিন। ডেকোরেটিভ টেবিলের মতোই শু র‌্যাকের ওপরে কিছু ডেকোরেটিভ আইটেম রাখুন।

 

উঁচু বা পয়েন্টেড হিল রয়েছে এরকম জুতা র‌্যাকে রাখার সময় শুইয়ে রাখুন। জুতার দুটোর মুখ একে অপরের বিপরীত দিকে থাকবে। এইভাবে জুতার বাক্সেও জুতা ভরিয়ে র‌্যাকে রাখতে পারেন। বুটের  মতো ফ্যাশনেবল জুতা সব সময় ব্যবহার করা হয় না। তাই গরমে ও বর্ষার সময় বুট শু র‌্যাকে তুলে রাখার সময় বিশেষ খেয়াল রাখা দরকার। বুটের ভেতর কাগজ ভরে বা লম্বা প্লাস্টিকের বোতল উল্টে রাখুন। শেপ বজায় থাকবে। বুটের চামড়ায় ভাঁজ পড়বে না। তবে ভেতরে ভারী কোনো জিনিস রাখবেন না। ব্যবহার করার সময় বুটের ভেতর থেকে কাগজ বের করে কিছুক্ষণ রোদে রাখুন। কাগজের গন্ধ চলে যাবে। সুইডিশ লেদারের তৈরি বুট হলে ব্যবহার করার আগে ব্রাশ দিয়ে ঝেড়ে ফেলুন। সাধারণ লেদারের জুতা হলে শু পলিশ লাগিয়ে নিন। শু র‌্যাক কাঠেরই ভালো হয়ে থাকে আর দেখতেও নান্দনিক, তবে বেশি খরচ করতে না চাইলে বোর্ডের বা প্লাস্টিকের শু র‌্যাকও কিনতে পারেন। 

আজকের ডিলে বোর্ডের ও প্লাস্টিকের পোর্টেবল কিছু শু র‌্যাক পাওয়া যাচ্ছে, ছবি গুলো দেখে পছন্দ হলে এক্ষুনি ক্লিক করুন।

*শুর‌্যাক* *জুতারযত্ন* *ফার্নিচার* *আসবাবপত্র*

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

টিভি রাখার জন্য ঢাউস একখানা ওয়াল ক্যাবিনেট বানালে স্টোরেজ স্পেস অনেকটা পাওয়া যায় ঠিকই, কিন্তু দেখতে বড় বেশি হযবরল লাগে। ট্রেন্ড কিন্তু এই ধরনের ক্যাবিনেটের বিপরীত। লো লাইং টিভি বা ওয়াল ক্যাবিনেট ছোট-বড় যে কোনও ড্রইং রুমের সঙ্গেই মানানসই। মাটি থেকে ক্যাবিনেট-এর স্টোরেজ স্পেসটির উচ্চতা হাতখানেকের একটু বেশি। ক্যাবিনেট-এর ওপরের দেওয়াল জুড়ে থাকতে পারে বিভিন্ন দৈর্ঘ্যের ছোট-বড় শেলফ, ডিভিডি, ছোটখাটো শো-পিস, বই রাখার জন্য। যদি মনে হয় যে, আপনার সাউন্ড সিস্টেম এই ক্যাবিনেট-এ রাখা সম্ভব হচ্ছে না, সে ক্ষেত্রে আস্ত একখানা সাউন্ড চেয়ারই কিনে নিতে পারেন। এতে বিল্ট ইন অডিয়ো সিস্টেম থাকে বলে ল্যাপটপে লাগিয়ে গান শোনা যাবে। তবে লো লাইং টিভি ক্যাবিনেট-এর সঙ্গে সিটিং অ্যারেঞ্জমেন্ট যেন মানানসই হয়, অবশ্যই সে দিকে খেয়াল রাখবেন। টিভি-র মুখোমুখি লো হাইটের সোফা কাম বেড রাখা যেতে পারে। লো হাইট-এর ফোম-এর বেঞ্চও থাকতে পারে, তবে এ ক্ষেত্রে রিল্যাক্স করার সুযোগ কম থাকবে। 

যারা ঘরের নকশায় পছন্দ করেন একটু অভিনবত্ব এবং লিভিং রুমটি সিঁড়ির পাশে করে নিতেও যাদের সমস্যা নেই, তারা এর নিচের কোণটিতে করে নিতে পারেন আধুনিক নকশার একটি টিভি ক্যাবিনেট। ফলে এটি হয়ে উঠবে আকর্ষণীয় ও প্রায়োগিক একটি ক্ষেত্র। ছোট্ট ড্রয়িং রুমের জন্য মানানসই স্টিলের টিভি ক্যাবিনেট  পাওয়া যাচ্ছে  আজকের ডিলে।

পণ্যটির বিবরণ :
সাইজ: হাইট-24”, লেন্থ-45”, ওয়াইড-15”
২টি ড্রয়ার
ম্যাটেরিয়াল: স্টেইনলেস স্টিল
বি:দ্র: অর্ডার করার পর পণ্য হাতের পাওয়ার জন্য ঢাকার ভিতরে ৫ এবং ঢাকার বাইরে ৭ কর্মদিবস পর্যন্ত অপেক্ষা করুন।

দাম মাত্র ৫,৯৯০ টাকা, এক্ষনি অর্ডার করুন। 

*টিভিক্যাবিনেট* *ফার্নিচার* *আসবাবপত্র*

সাদাত সাদ: একটি নতুন প্রশ্ন করেছে

 ফার্নিচারের জন্যে সবচেয়ে ভাল কাঠ কি, কোন কাঠ বেশি মজবুত?

উত্তর দাও (২ টি উত্তর আছে )

.
*আসবাবপত্র* *ফার্নিচার* *কাঠ*
শপিং

আড়াল থেকেই বলছি: কেনাকাটা সংক্রান্ত একটি তথ্য দিচ্ছে

দাম:খুবই সীমিত ....
http://www.ekhanei.com/

লিঙ্কটি সম্পর্কে তোমার কোন মতামত থাকলে তা এখানে লিখো

*শপিং* *আসবাবপত্র*
৯৫বার দেখা হয়েছে

বেশতো সাইট টিতে কোনো কন্টেন্ট-এর জন্য বেশতো কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

কনটেন্ট -এর পুরো দায় যে ব্যক্তি কন্টেন্ট লিখেছে তার।

...বিস্তারিত

QA

★ ঘুরে আসুন প্রশ্নোত্তরের দুনিয়ায় ★