ঈদের ছুটি

ঈদেরছুটি নিয়ে কি ভাবছো?

দীপ্তি: একটি নতুন প্রশ্ন করেছে

 এবারের ঈদের ছুটিতে কে কোথায় ঘুরতে যাচ্ছেন?

উত্তর দাও (৪ টি উত্তর আছে )

.
*ঈদ* *ঈদেরছুটি* *ভ্রমণটিপস*

দীপ্তি: একটি নতুন প্রশ্ন করেছে

 ঈদের ছুটিতে সাজেক যাবো। সাজেক ভ্রমণের কিছু টিপস চাই।

উত্তর দাও (৮ টি উত্তর আছে )

.
*ঈদেরছুটি* *সাজেক* *ভ্রমণটিপস*

দীপ্তি: একটি নতুন প্রশ্ন করেছে

 ঈদের ছুটি বান্দরবানের নীলগিরি ঘুরতে যেতে চাই ; কিছু ভ্রমণ টিপস প্রয়োজন?

উত্তর দাও (৪ টি উত্তর আছে )

.
*ঈদেরছুটি* *বান্দরবান* *নীলগিরি* *ভ্রমণটিপস*

আমানুল্লাহ সরকার: একটি নতুন প্রশ্ন করেছে

 ঈদে বাড়ি যাবার আগে কোন বিষয়গুলো খেয়াল করা জরুরি?

উত্তর দাও (২ টি উত্তর আছে )

.
*ঈদেবাড়িফেরা* *ঈদেরছুটি*

দীপ্তি: একটি নতুন প্রশ্ন করেছে

 ঈদের ছুটিতে কোন কোন ভ্রমণসংস্থা সুন্দরবন ভ্রমণের আয়োজন করেছে?

উত্তর দাও (১ টি উত্তর আছে )

.
*ঈদেরছুটি* *ভ্রমণসংস্থা* *সুন্দরবন*

দীপ্তি: একটি নতুন প্রশ্ন করেছে

 ঈদের ছুটির জন্য বাসের অগ্রিম টিকেট কবে ছাড়বে?

উত্তর দাও (২ টি উত্তর আছে )

.
*ঈদেরছুটি* *অগ্রিমটিকিট*

পূজা: একটি বেশব্লগ লিখেছে

ঈদের ছুটির পর কাজে বা গতানুগতিক জীবনে ফিরে আসতে একদমই মন চায় না, কিন্তু ছুটি তো সব সময়ের নয়। ছুটির আমেজ কাটিয়ে তো কাজে ফিরতেই হবে। রাতের বাসে ফিরেই সকালে অফিস, রেল স্টেশন বা বিমানবন্দর থেকে প্রথম গন্তব্য অফিস—এমনটা কিন্তু করা উচিত নয়। যতটা বেশি সম্ভব ছুটিকে ব্যবহার করার ইচ্ছা থেকেই আমরা অনেকে এমন করে থাকি, কিন্তু সেটা কিন্তু আপনার প্রফেশনাল লাইফের জন্য ভুল সিদ্ধান্ত। আপনি হয়তো চাইবেন, একদম শেষ দিন পর্যন্ত ঘুরে বেড়াতে। কিন্তু এতে আদতে আপনার মনঃসংযোগের ক্ষতিই হবে।


ছুটি শেষে এক দিন বাড়িতে বিশ্রাম নেওয়া ভালো। কারণ, ছুটিতে গেলে যাতায়াত, বেড়ানো এসব মিলে একটা ধকলও তো পোহাতে হয়। ছুটির পর বাড়ি ফিরে মনে মনে গুছিয়ে নেবেন অফিসের কাজগুলো। সেদিন নিজের বাসাতেই বিশ্রাম নেবেন। তারপর একদম ভাবনাহীন মনে পরদিন যাবেন অফিসে। নির্দিষ্ট দিনে ছুটি শেষ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে অফিসে যোগদান করা প্রয়োজন। এতে আপনার প্রতি কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি পরিলক্ষিত হবে। অফিসে পৌঁছে সবার সঙ্গে কোলাকুলি করে নিজের সৌহার্দ্য ফুটিয়ে তোলা ভালো। আপনার নির্দিষ্ট টেবিলে বা ক্যাবিনেটে ফাইলগুলো ঠিকঠাক মতো রয়েছে কিনা তা যাচাই করে ফেলুন। প্রয়োজনে যাওয়ার সময় যে তালিকা নিয়ে গেছেন তার সঙ্গে মিলিয়ে দেখুন।

ছুটির পরই হয়তো আপনার কাঁধে পড়ছে বড় কোনো কাজ। তার কিছুটা প্রস্তুতি আগেই নিয়ে রাখা ভালো। কাজটা কিভাবে করবেন, সেই পরিকল্পনা ছুটির আগেই করে রাখতে পারেন। তারপর ফিরে সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা নিন। ছুটির পর ফিরে আনন্দের স্মৃতিগুলো ভাগ করে নিতে পারেন সহকর্মীদের সঙ্গে। কাজের ফাঁকে ফাঁকে ছুটির আনন্দ বা ভ্রমণের কথা সবার সঙ্গে শেয়ার করুন। তবে এগুলো করবেন অবশ্যই কাজের ফাঁকে ফাঁকে। কোনো অবস্থাতেই কাজ বাদ দিয়ে অন্যকে বিরক্ত করে গল্পে মশগুল হবেন না। 

অফিসের প্রশাসন বিভাগকে আপনার উপস্থিতির কথা অবশ্যই অবহিত করবেন। প্রয়োজনীয় কাগজপত্রে সই করা লাগলে অফিসে পৌঁছেই তা করে ফেলবেন, যাতে পরবর্তীতে প্রশাসনিক সমস্যায় পড়তে না হয়। ভবিষ্যতে কোনো ঝামেলার হাত থেকে রক্ষা করার জন্য এসব করা বাঞ্ছনীয়। ছুটি থেকে ফিরে প্রথম কর্মদিবসে অতিরিক্ত কাজের চাপ না নেওয়াই ভালো। হঠাৎ করে বাড়তি চাপ আপনার জন্য ক্ষতি হতে পারে। চেষ্টা করুন সাবলীলভাবে প্রাত্যহিক কাজগুলো সেরে ফেলতে। 

ছুটি শেষ মানেই তো একেবারে শেষ নয়। এ রকম আরেকটি আনন্দময় ছুটি কাটানোর সুযোগ তো আপনি আবার পাবেন। ছুটির দিনের আনন্দঘন মুহূর্তগুলো আর পরবর্তী ঈদের ছুটির কথা স্মরণ করে কাজে মন দেওয়ার চেষ্টা করুন।

*ঈদেরছুটি* *ছুটিরপর* *কাজেফেরা* *ক্যারিয়ার* *ক্যারিয়ারটিপস*

অভিযাত্রী: *ঈদেরছুটি* ঈদের ছুটি গুলি চোখের পলকেই কেটে যায়। টিভিতে প্রোগ্রাম দেখে, ঘুমিয়ে বেড়িয়ে। এবারো তাই। (হাইতুলি)

ট্রাভেলার: একটি বেশব্লগ লিখেছে

পাহাড়ি সবুজ বন, মেঘমালা, পাহাড়ি ঝরনা আর সাংগু নদীর একমুখী ছুটে চলার দৃশ্য আপনাকে হাতছানি দেবে বান্দরবানের পথে পথে। বান্দরবান থেকে থানচির পথে যেতে প্রায় ১০ কিলোমিটার পর শৈলপ্রপাত। পাহাড়ি ঝরনা। যদিও এটি এখন শুকিয়ে গেছে। এর কিছু দূর যাওয়ার পর মিলবে চিমবুক পাহাড়। বান্দরবান থেকে চিমবুকের দূরত্ব ২৪ কিলোমিটার। এ পাহাড়ের চূড়া থেকে আপনি বঙ্গোপসাগর, চট্টগ্রাম বন্দর দেখতে পাবেন। মেঘের আনাগোনার দিনে হাত বাড়ালেই শীতল ছোঁয়া পাবেন।

আকাশ আর মেঘ যেখানে ভ্রমন পিপাসু মানুষকে হাতছানি দিয়ে ডাকে। অবারিত সবুজ প্রান্তর যেখানে মিশে যায় মেঘের ভেলায়। মেঘের সাথে পাহাড়ের যেখানে আজন্ম বন্ধুত্ব। বলছি নীলগিরি পর্যটনের কথা। এখানে পাহাড় ও মেঘের সাথেই বসবাস করে পাহাড়ি আদিবাসী ম্রো সম্প্রদায়ের অধিবাসীরা। সমুদ্র পৃষ্ঠ হতে ২ হাজার ২ শত ফুট উচ্চতায় এই নীলগিরি পাহাড়। বাংলাদেশ সেনাবাহিনী এখানে একটি পর্যটন কেন্দ্র গড়ে তুলেছে। চিমবুকের পর চলতে চলতে একটা জায়গায় এসে থমকে দাঁড়াতে হয়। একটি সাইনবোর্ড। তাতে লেখা_ 'বাংলাদেশের সর্বোচ্চ সড়ক'। এবার সামান্য পথ যেতেই নীলগিরি। পর্যটন স্পট। বান্দরবান থেকে দূরত্ব ৪৮ কিলোমিটার। সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ৩ হাজার ৬০০ ফুট উঁচু এ পাহাড়ে রয়েছে দৃষ্টিনন্দন সাতটি বিশ্রামাগার। মেঘদূত, আকাশনীলাসহ নানা বাহারি নামের এসব বিশ্রামাগারে রাত কাটানোর জন্য ৩ থেকে ৭ হাজার টাকা পর্যন্ত খরচ পড়ে।


তবে এমনিতে ৫০ টাকার টিকিট কেটে নীলগিরির চূড়া থেকে পাহাড়ের চারদিকের সবুজ দৃশ্য অবলোকন করা যায়। নীলগিরিতে করা হয়েছে একটি হেলিপ্যাডও। এখানকার বিশ্রামাগার ভাড়া নিতে হলে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে আগে যোগাযোগ করতে হয়। নীলগিরি থেকে যত দক্ষিণে যাবেন, ততই আস্তে আস্তে সর্বোচ্চ সড়ক থেকে নিচের দিকে নামতে থাকবেন। কখনো দুই পাহাড়ের মাঝ দিয়ে, কখনো বা পাহাড়ের পাশের সরু সড়ক ধরে চলে যাবে চাঁদের গাড়ি কিংবা নিজস্ব জিপ। পাহাড়ের ঢালে আদিবাসীদের ছোট ছোট ঘরবাড়ি থেকে মাঝেমধ্যে উঁকি দেবে কোনো নারীমুখ কিংবা ছোট্ট শিশু। জুম চাষও দেখতে পাবেন। বর্ষার এই সময়টাতে আদিবাসী নারী-পুরুষ ব্যস্ত থাকে জুমের মাঠে।


এ ছাড়া ঘুরে আসা যায় আদিবাসীদের বিভিন্ন ফলদ, বনজ ও ঔষধি গাছের বাগানে। পাহাড়ি ঝরনা থেকে আদিবাসী নারীদের পানি সংগ্রহ করার দৃশ্য দেখতে ভুলবেন না যেন। এ ছাড়া দুই পাহাড়ের মাঝখানে উন্মত্ত বর্ষায় ছুটে চলা সাংগু নদীও টানবে আপনাকে। আদিবাসীপাড়ার কার্বারি কিংবা কারো সহযোগিতায় ডিঙি কিংবা নৌকায় চড়ে আপনিও চলে যেতে পারেন আশপাশের কোনো মারমা পাড়ায়। আদিবাসীদের জীবনযাত্রা আপনার প্রাণ ছুঁয়ে যাবে। ঈদের ছুটিটা উপভোগ্য না হয়ে পারেই না!


যেভাবে যাবেন
ঢাকা কিংবা চট্টগ্রাম থেকে বাসযোগে বান্দরবান। সেখানে রাতযাপনের জন্য বিভিন্ন হোটেল রয়েছে। এরপর কোনো এক সকালে বান্দরবান থেকে চাঁদের গাড়িযোগে আরো গহিন অরণ্যে যাত্রা করা যায়। এ জন্য ভাড়া পাওয়া যায় চাঁদের গাড়ি। বান্দরবান থেকে থানচি পর্যন্ত একটি গাড়ি আসা-যাওয়ায় ৬ হাজার টাকা পর্যন্ত নেয়। নিজস্ব গাড়ি নিয়েও যাওয়া যায়। তবে পাহাড়ি পথ, বিশেষ করে বান্দরবানের অাঁকাবাঁকা দুর্গম পাহাড়ি রাস্তা সম্পর্কে চালক অভিজ্ঞ হলে ভালো। শহর থেকে চাঁদের গাড়ীগুলো নীলগিরি পর্যন্ত ৩/৪ হাজার টাকা ভাড়া নিয়ে থাকে। এসব চাঁদের গাড়ীগুলো একসাথে ২০/২৫ জন পর্যন্ত যাত্রী পরিবহণ করে। 

কোথায় থাকবেন
বান্দরবানে এসেই আপনাকে কোন আবাসিক হোটেলে রুম নিয়ে বিশ্রাম নিতে হবে। শহরের মধ্যে বিভিন্ন বাজেটের মধ্যে এসি/ ননএসি হোটেল পাওয়া যায়। পর্যাপ্ত হোটেল থাকায় রুম পেতে কোন ঝামেলা পোহাতে হয় না। তবে পর্যটনের ভরা মৌসুমে আগেভাগে বুকিং দিয়ে আসা ভালো। এখন বেশির ভাগ আবাসিক হোটেলের সাথেই খাবারের রেস্তোরা রয়েছে। শহরের রুমা বাসষ্টেশন থেকে বিভিন্ন চাঁদের গাড়ী, জীপ ইত্যাদি নীলগিরী পর্যটন কেন্দ্রে চলাচল করে। আপনাকে এসব গাড়ী রিজার্ভ করেই যেতে হবে গন্তব্যে। কারণ রিজার্ভ গাড়ীতে না গেলে আপনাকে পথে অনেক ঝামেলা পোহাতে হতে পারে। যা আপনার ভ্রমনের আনন্দকে ম্লান করে দিতে পারে। গন্তব্যে পৌঁছাতে এসব গাড়ী ২-৩ ঘন্টা সময় নিতে পারে। নীলগিরি পৌঁছে আপনি সেখানে রাত যাপনও করতে পারবেন। এখানকার কটেজগুলো একটু ব্যয়বহুল। এখানকার প্রতিটি কটেজের ভাড়া রাতপ্রতি ৪/৫ হজার টাকার মধ্যে। আর থাকতে না চাইলে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে আপনাকে আবার বান্দরবান শহরের উদ্দেশ্যে রওনা দিতে হবে।

*ঈদেরছুটি* *ছুটিতেভ্রমন* *বান্দরবান* *নীলগিরি* *ভ্রমনটিপস*
ছবি

অনি: ফটো পোস্ট করেছে

কক্সবাজার রামু

*ঈদেরছুটি*

আরিয়ান দ্যা হিপ্নোটিক্স: *ঈদেরছুটি* মজা ফুরিয়ে গেলো...

আড়াল থেকেই বলছি: [ভাউ-ভেঙ্গানো]ঈদের ছুটিতে ঘুরতে বের হওয়ার আগে একবার রাশিফল দেখে নেবো,সেদিন আমার ভাগ্যে কি কি মজাদার খাবার লিখা আছে ...

*রাশিফল* *ঈদেরছুটি*

আল ইমরান: *ঈদেরছুটি* সেটা আবার কি?

বেশতো সাইট টিতে কোনো কন্টেন্ট-এর জন্য বেশতো কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

কনটেন্ট -এর পুরো দায় যে ব্যক্তি কন্টেন্ট লিখেছে তার।

...বিস্তারিত

QA

★ ঘুরে আসুন প্রশ্নোত্তরের দুনিয়ায় ★