এয়ার ফ্রায়ার

এয়ারফ্রায়ার নিয়ে কি ভাবছো?

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

রমজানে নিতান্তই যারা স্বাস্থ্যের কথা ভেবে এবং এসিডিটি বাড়াতে ভাজাপোড়া এড়িয়ে চলেন, ইফতারের সময় ভাজাপোড়া খাওয়া থেকে নিজেদের মুখে কুলু আটেন তাদের নেই আর কোনো চিন্তা, তাদের জন্য বাজারে চলে এসেছে অত্যাধুনিক প্রযুক্তির এক কুকার। তেলে ভাজা খাবার মজাদার হলেও তাতে আছে কোলেস্টেরলের ভয়। অ্যাসিডিটিও একটা সমস্যা। তবু রসনা যেন কোনো বাধা মানতে চায় না। মজার ব্যাপার হলো, এখন আর কোনো খাবার তেলে ভাজতে হবে না। বাতাসেই সব কাজ সারা যাবে।

নিছক গল্প মনে হলেও এটিই এখন সত্য। প্রায় বিনা তেলেই যেকোনো ভাজাপোড়া করা যায় এই কুকারে, যার নাম এয়ার ফ্রায়ার। এই কুকারে রান্না করতে আলাদাভাবে তেলের দরকার হয় না। এয়ার ফ্রায়ার দিয়ে উপভোগ করা যায় মচমচে ফ্রেঞ্চ চিকেন ফ্রাই বা চিকেন ফ্রাইসহ নানা ভাজাপোড়া খাবার। এয়ার ফ্রায়ারে কোলেস্টেরল বা এসিডিটির টেনশন ছাড়াই এ সব লোভনীয় খাবার তৈরি করা যাবে।  

এনামেল কোটিং এর সঙ্গে স্টিনলেস স্টিলের বডি প্লেটের এই স্টোভে গ্যাস কমই খরচ হয়। তেলের ফ্যাট বা কোলেস্টেরলযুক্ত চর্বি শরীর মুটিয়ে যাওয়া, হৃদরোগ, ডায়াবেটিসসহ নানা রোগের সৃষ্টির কারন। এয়ার ফ্রায়ারের ভেতরকার গ্রিল এবং পাখার সমন্বয়ে উত্তপ্ত বাতাস খাবারের প্রতিটি কোনায় সুষমভাবে ছড়িয়ে গিয়ে খাবারকে ডুবোতেলে ভাজার মত তৈরি করে, যা প্রায় ৮০ ভাগ পর্যন্ত চর্বিমুক্ত রান্না করতে সক্ষম। অটো টাইমার অপশনের মাধ্যমে খাবার পুড়ে যাওয়ার ভয় থাকবে না। এ ছাড়া কী খাবারের জন্য কতোটুকু তাপের দরকার তাও নির্ধারণ করে দেওয়া যাবে।

মজার ব্যাপার হলো, একসঙ্গে দু'পদের খাবার এ মেশিনে রান্না করা সম্ভব। খাবার আলাদা করার জন্য এর ভেতরে আছে একটি 'সেপারেটর'। এটি মাঝখানে টেনে এনে দু'পাশের ঢাকনা বন্ধ করে সহজেই দুই ধরনের রান্না করা সম্ভব। তাছাড়া একটির গন্ধ অন্যটিতেও ছড়াবে না। এয়ার ফ্রায়ারের চেম্বারে ঢুকিয়ে দিতে হয়। সব্জির গায়ে তেল মাখিয়ে দিতে হয় সামান্য। যন্ত্র চালু হলে খুব উত্তপ্ত হাওয়া খুব জোর গতিতে ঘোরে। মিনিট ১২-১৫ লাগে ভাজার চেহারা নিতে।

বাজারে ফিলিপস, শিমিজু, ওয়ালটনের এয়ার ফ্রায়ার কিনতে পাওয়া যায়, এদের শোরুমে তো পাবেন, এছাড়া নিউ মার্কেট সহ যে কোনো বড় ইলেক্ট্রনিক্সের দোকানেও মিলবে এই কিচেন সামগ্রীটি, অনলাইনেও পাবেন সেক্ষেত্রে আজকের ডিলকে ভরসা করতে পারেন। তবে হ্যা, দাম কিন্তু একটু বেশি। ভালো জিনিস পেতে গেলে তো দাম নিয়ে চিন্তা করলে চলবে না। স্বাস্থ্যের কোনো রকম ক্ষতি ছাড়াই তেল বিহীন ভাজাপোড়া বা ইফতার করতে পারছেন এয়ার ফ্রায়ার দিয়ে এটাই বা কম কিসের। দেশীয় ব্র্যান্ড ওয়ালটন কিনলে ৮৫০০ টাকার মধ্যেই পেয়ে যাবেন, শিমিজুর দামঅ মোটামোটি একই নাগালের মধ্যে। তবে বিশ্বের নামকরা ব্র্যান্ড ফিলিপস কিনতে হলে আপনাকে ২০০০০ থেকে ২২০০০ টাকা বাজেটে রাখতে হবে। (কনটেন্টটির ছবিগুলোতে ক্লিক করে অর্ডার করতে পারেন)

*এয়ারফ্রায়ার* *কিচেনসামগ্রী*

বেশতো সাইট টিতে কোনো কন্টেন্ট-এর জন্য বেশতো কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

কনটেন্ট -এর পুরো দায় যে ব্যক্তি কন্টেন্ট লিখেছে তার।

...বিস্তারিত

QA

★ ঘুরে আসুন প্রশ্নোত্তরের দুনিয়ায় ★