কক্সবাজার ভ্রমন

কক্সবাজারভ্রমন নিয়ে কি ভাবছো?

দীপ্তি: একটি টিপস পোস্ট করেছে

ভ্রমন বাংলাদেশ
http://www.kachalong.com/index.php/en/publications/vromon-bangladesh
কাচালং ট্যুরিজম ...বিস্তারিত
*ভ্রমনটিপস* *কক্সবাজারভ্রমন* *রাঙামাটিভ্রমন* *বান্দরবানভ্রমন* *থাইল্যান্ডভ্রমন* *ট্যুরপ্যাকেজ* *নেপালভ্রমন* *মালয়েশিয়াভ্রমণ* *দার্জিলিংভ্রমন* *অল্পতেভ্রমন* *সুন্দরবনভ্রমন* *বিদেশভ্রমন* *সিলেটভ্রমন*
৬১৫ বার দেখা হয়েছে

আমানুল্লাহ সরকার: একটি বেশব্লগ লিখেছে

ঈদের ছুটিতে পর্যটকের পদধূলিতে মুখরিত হয়ে উঠেছে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত। প্রতিদিনই সমুদ্র সৈকতের আনন্দ উপভোগ করতে এখানে আসছে অসংখ্য পর্যটক। আর পর্যটকদের বরণে বর্ণিল সাজে সেজেছে কক্সবাজারের হোটেল-মোটেলগুলো। পর্যটকদের নিরাপত্তায় টু্রিস্ট পুলিশের পাশাপাশি প্রস্তুত রয়েছে ‘লাইফ গার্ড’ কর্মীরাও। তবে দীর্ঘ যানজটের কারণে অনেক পর্যটক আসার ইচ্ছা থাকলেও আসছেন না বলে মনে করছেন পর্যটন ব্যবসায়ীরা।
জানা গেছে, পর্যটন নগরীতে ছোট-বড় মোট ৩ শতাধিক হোটেল-মাটেল, শতাধিক গেস্ট হাউস ও কটেজ রয়েছে। এসব স্থানে প্রতিদিন দেড় লক্ষাধিক মানুষের থাকার ব্যবস্থা রয়েছে। কেবল স্থানীয় পর্যটক নয়, দেশী-বিদেশী পর্যটকদের জন্য রয়েছে থাকার সুব্যবস্থা। কক্সবাজার হোটেল মোটেল গেস্ট হাউজ মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আবুল কাশেম সিকদার জানান,”টানা ছুটি মানেই কক্সবাজারের পর্যটকের ঢল। এবার ঈদ ও দূর্গপূজার কারণে এ ছুটি অনেক দীর্ঘ। ফলে ব্যাপক পর্যটকের সমাগম দেখা যাচ্ছে। অন্যান্য বছরের মতো অগ্রীম বুকিং নেই। তারপরও দেশি-বিদেশি পর্যটক আসছে প্রচুর।”
ট্যুর অপারেটর এসোসিয়েন অব কক্সবাজার (টুয়াক) এর সভাপতি কিবরিয়া খান জানান, ”কক্সবাজারে এসেই পর্যটকরা ছুটছেন সৈকতে। নীল জলরাশিতে গা ভাসাতে যেন তাদের উচ্ছাসের শেষ নেই। ঈদের ছুটিতে সৈকতে আসতে পেরে বেজায় খুশি পর্যটকরা।” হোটেল দি কক্স টুডে জেনারেল ম্যানেজার শাহাব উদ্দিন জানান, ”পর্যটকদের আনন্দ দিতে হোটেল-মোটেল গুলো সাজানো হয়েছে বর্ণিল সাজে। এছাড়া হোটেলগুলোতে আয়োজন করা হয়েছে নানা অনুষ্ঠানেরও।” কক্সবাজারের নয়নাভিরাম দৃশ্য এবং হোটেলের বিভিন্ন আয়োজন দেখে মুগ্ধ বেড়াতে আসা হাজার হাজার পর্যটক। পর্যটকরা ঘুরছেন হিমছড়ি, দরিয়া নগর, পাথুরে বীচ ইনানীতে। এছাড়া তাদের অনেকে ছুটছেন প্রবাল দ্বীপ সেন্টমার্টিনে। আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় তারা নিরাপদে গিয়ে ফিরে আসছেন। ট্যুরিজম প্রতিষ্ঠান ট্রাভেল টিউন’র নির্বাহী পরিচালক বেলাল আবেদীন ভুট্টো জানান, ”বিগত বছরগুলোতে এমন দিনে দুই হাজারের বেশি পর্যটক সেন্টমার্টিন ভ্রমণ করতেন। এবছর অনেক কমে গেছে। দৈনিক কেবল ৭/৮ শ’ পর্যটক এখন সেন্টমার্টিন যাচ্ছেন।”
এদিকে সৈকতে গোসল তথা গা ভেজাতে গিয়ে পর্যটকরা যেন প্রাণহানির শিকার না হয়-সে বিষয়ে প্রস্তুত রয়েছে লাইফ গার্ড সংস্থা গুলো। রবি লাইফ গার্ডের ইনচার্জ ছৈয়দ নুর জানিয়েছেন, ”আমরা প্রস্তুত। সৈকতের সী ক্রাউন, সী ইন, সী গাল, লাবণী, শৈবাল ও ডায়াবেটিকসহ সব পয়েন্টে ‘লাইফ গার্ড’ কর্মীরা রয়েছে। তারা প্রতি মুহুর্তে পর্যটকের সেবায় কাজ করছে। তবে নিজেকে বাঁচতে হলে আগে নিজেকেই ‘সজাগ’ থাকতে হবে।” তিনি আরও বলেন, ”জোয়ার-ভাঁটার সময় দেখেই সৈকতে নামতে হবে। ভাঁটায় সৈকত কম নিরাপদ। সাঁতার না জানলে সমুদ্রের বেশি গভীরে না যাওয়া ভাল। ” লাইফ গার্ড কর্মীর পাশাপাশি নিরাপত্তাদানে প্রস্তুত সৈকতের ট্যুরিস্ট পুলিশও। তারা সব ক’টি পর্যটন স্পটে নিরাপত্তাদানে কাজ করছে। কক্সবাজার জেলার পুলিশ সুপার শ্যামল কানি্ত নাথ জানান, ”সৈকতের বিভিন্ন পয়েন্টে ট্যুরিস্ট পুলিশ আছে। পর্যটকরা যেন হয়রানি শিকার না হয়। তারা সে বিষয়টি লক্ষ্য রাখবে। এছাড়া চুরি, ছিনতাই এবং ইভটিজিং ঠেকাতেও পুলিশ কড়া সতর্ক অবস্থানে রয়েছে।
*ভ্রমন* *কক্সবাজারভ্রমন* *কক্সবাজার* *ঈদেবেড়ানো* *ছুটিতেবেড়ানো*

বিডি আইডল: ইনানী বীচ থেকে ফেরার পথে যেতে পারেন "হিমছড়ি পাহাড় " বিশাল এই পাহাড়ে উঠতে সবারই প্রাণ যায় যায় অবস্থা হলেও কিন্তু উঠার পর পাহাড় -আকাশ -সমুদ্রের যে সৌন্দর্য দেখবেন যখন তাতে মনে হবে কষ্ট স্বার্থক হয়েছে অামার...(খুশী২)(কিস)

*ভ্রমন* *কক্সবাজার* *কক্সবাজারভ্রমন*

নাহিন: জীবনের খুব মর্মস্পর্শী একটি স্মৃতি জড়িয়ে আছে আমার ১ম কক্সবাজার ভ্রমনের স্মৃতির সাথে । প্রচন্ড কষ্টের মাঝে প্রকৃতি মানুষের মনে কিভাবে রেখাপাত করে, কতটা প্রভাব ফেলতে পারে ভাবতে গেলে অবাক হতে হয়। (কান্না)(কান্না)

*ভ্রমন* *কক্সবাজার* *কক্সবাজারভ্রমন* *কস্টেরস্মৃতি*

নাহিন: সারাবছরই দেশি বিদেশি পর্যটকদের ভীড় লেগেই থাকে কক্সবাজারে। এখানে আসলে একসাথে পাহাড় সমুদ্র এবং নদী ও সমতল দেখার অপার সুযোগ মেলে। এই সৈকতে দাড়িয়ে অপরুপ সূর্যাস্ত দেখা যায়। বর্তমানে কক্সবাজারকে আন্তর্জাতিক মানের পর্যটন নগরী হিসেবে গড়ে তোলার সকল ব্যবস্থা করা হচ্ছে। ঢাকা থেকে ৪১৪ কি.মি. এবং চট্রগ্রাম থেকে ১৫২ কি.মি. দক্ষিনে কক্সবাজার অবস্থিত। সরাসরি সড়ক

*ভ্রমন* *কক্সবাজার* *কক্সবাজারভ্রমন*

শুভাশীষ: একটি বেশব্লগ লিখেছে

বিভিন্ন বেসরকারি ভ্রমণ সংস্থা নিয়মিত বিভিন্ন উৎসবকে সামনে রেখে দেশের বিভিন্ন ভ্রমণ-গন্তব্যগুলোতে তাদের বিশেষ প্যাকেজের আয়োজন করছে। 

ঢাকা-সেন্টমার্টিন-ঢাকা ৪ রাত ৩ দিনের ভ্রমণ মূল্য ৮৫০০ টাকা। প্যাকেজ মূল্যের মধ্যে রয়েছে এসি বাসে যাতায়াত, সেন্টমার্টিনে অবকাশের নিজস্ব হোটেল নন-এসি রুমে থাকা, টেকনাফ থেকে জাহাজের প্রথম শ্রেণীতে সেন্টমার্টিন, খাবার, সাইট সিয়িং ইত্যাদি।

যোগাযোগ :অবকাশ পর্যটন লিমিটেড, শামসুদ্দিন ম্যানশন, ১০ম তলা, ১৭ নিউ ইস্কাটন, ঢাকা। ফোন-৮৩৫৮৪৮৫, ০১৫৫২৪২০৬০২।

ঢাকা-কক্সবাজার-ঢাকা ৩ রাত ২ দিনের ভ্রমণ মূল্য ৭৫০০ টাকা। ঢাকা-সেন্টমার্টিন-ঢাকা, ৩ রাত ২ দিনের ভ্রমণ মূল্য ৬৫০০ টাকা।

যোগাযোগ :পিআইপি ট্যুরস, খ ৫৬/৩, প্রগতি সরণী, বারিধারা, ঢাকা।

ফোন :০২-৮৪১৫৬১৬, ০১৯১৫৫৪৪৪৫৫।

ঢাকা-কক্সবাজার-ঢাকা, ৫ দিন ৪ রাতের ভ্রমণ মূল্য ৪০০০-১৫০০০ টাকা। ঢাকা-কক্সবাজার-সেন্টমার্টিন-ঢাকা, ৩ দিন ৪ রাতের ভ্রমণ মূল্য ৫৫০০-১৭৫০০ টাকা। কক্সবাজার-সেন্টমার্টিন-কক্সবাজার, ২ দিন ১ রাতের ভ্রমণ মূল্য ২০০০-৩৫০০ টাকা। এ ছাড়াও এ প্রতিষ্ঠানের ৫০০ টাকায় হিমছড়ি ও ইনানী এবং ৭০০ টাকায় মহেশখালীতে অর্ধদিবসের গ্রুপ প্যাকেজ রয়েছে।

যোগাযোগ :হোটেল ডায়নামিক সি পার্ল, মেরিন ড্রাইভ রোড, কলাতলী মোড়, কক্সবাজার।

ফোন :০১৮২০০০৩৭৭৩। সংগ্রহিত তথ্য 

*কক্সবাজারভ্রমন* *ভ্রমনটিপস* *ট্যুরওপ্যাকেজ* *কক্সবাজার* *শীতেভ্রমন*

শুভাশীষ: একটি বেশব্লগ লিখেছে

 ঢাকা থেকে সৗদিয়া, এস আলম মার্সিডিজ বেঞ্জ, গ্রিন লাইন, হানিফ এন্টারপ্রাইজ, শ্যামলী পরিবহন, সোহাগ পরিবহন, এস.আলম পরিবহন, মডার্ন লাইন, শাহ্ বাহাদুর, সেন্টমার্টিনসহ বিভিন্ন বাসে সব সময় আসা যায়। এতে এসি, নন এসি বাস রয়েছে। ভাড়া পড়বে ৯০০ টাকা থেকে ২০০০ টাকার মধ্যে।

যদি ট্রেনে যেতে চান, তাহলে কমলাপুর থেকে উঠতে হবে।

বিমানেও মাত্র ৪৫ মিনিটে কক্সবাজারে যাওয়া যায়। নিয়মিত কক্সবাজারে বাংলাদেশ বিমান, জিএমজি এয়ার লাইনস, ইউনাইটেড এয়ার ওয়েজসহ অন্যান্য বিমান আসা যাওয়া করে। এক্ষেত্রে ভাড়া হবে ৮ হাজার টাকা। সংগ্রহিত তথ্য 

*কক্সবাজারভ্রমন* *ভ্রমনটিপস* *কক্সবাজার* *শীতেভ্রমন*

শুভাশীষ: একটি বেশব্লগ লিখেছে

কক্সবাজারে রয়েছে পর্যটকের জন্য সাড়ে ৪ শতাধিক আবাসিক হোটেল মোটেল, রিসোর্ট এবং কটেজ।  এর মধ্যে কয়েকটির যোগাযোগ নাম্বার দিলাম এখানে। ঢাকা থেকেই ফোন দিয়েই বুকিং দিতে পারেন।
বাংলাদেশ পর্যটন করপোরেশন কর্তৃক পরিচালিত মোটেল শৈবাল (ফোন -০৩৪১-৬৩২৭৪)
তারকা মানের সিগাল হোটেল (ফোন নং-০৩৪১-৬২৪৮০-৯১)
হোটেল সি-প্যালেস    (ফান নং-০৩৪১-৬৩৬৯২, ৬৩৭৯২, ৬৩৭৯৪, ৬৩৮২৬)
হোটেল সি-ক্রাউন (০৩৪১-৬৪৭৯৫, ০৩৪১-৬৪৪৭৪, ০১৮১৭ ০৮৯৪২০)
হোটেল মিডিয়া ইন্টারন্যাশনাল (০৩৪১-৬২৮৮১-৮৫     ৬২৮৮১-৮৫)
হোটেল ওসান প্যরাডাইস লি.    (০১৯৩৮৮৪৬৭৫৩) উল্লেখ্যযোগ্য।

এখানে এক রাত্রি যাপনের জন্য রয়েছে এক হাজার থেকে সর্বোচ্চ ৬০ হাজার টাকা দামের কক্ষ।

যারা থাকার জন্য এত খরচ করতে চাচ্ছেননা, তাদের জন্য কমমূল্যে থাকার হোটেলও রয়েছে। হোটের সীগালের পিছনে রোডে অর্থাৎ কলাতলি রোডের হোটেলগুলোতে মাত্র ৫০০ টাকাতেও থাকা যায়। সংগ্রহিত 

*কক্সবাজারভ্রমন* *ভ্রমনটিপস* *কক্সবাজার*

উদয়: একটি বেশব্লগ লিখেছে

প্রাচীন কাল হতে কুতুবদিয়া বাতিঘরের জন্য বিখ্যাত। দূর সমুদ্রের মাছ ধরার নৌকা, ট্রলার ও লঞ্চ গুলোকে রাতের আঁধারে পথ প্রদর্শনের জন্য ১৮৪৬ সালে এ বাতিঘর নির্মিত হয়। রাতের আঁধারে যে সকল নৌকা মাছ ধরার জন্য গভীর সমুদ্রে গমন করতো সে সকল নৌকাকে তীর প্রদর্শন করে স্থলে ভেঁড়ানোর কাজে এ বাতিঘরের ভূমিকা অপরিসীম। বর্তমানে পূরাতন বাতিঘরটি সম্পূর্ণরুপে সমুদ্রগর্ভে বিলিন হয়ে গিয়েছে। নতুন একটি বাতিঘর এর স্থলাভিষিক্ত হয়েছে। এ বাতিঘরটির আলো সমুদ্রের ৪০-৪৫ কিঃমিঃ দূর হতে দেখা যায়। আর এ আলোর সাহায্যেই রাতের আঁধারে পথ হারানো নৌকাগুলো পথ খুঁজে পায়। ঐতিহাসিক নিদর্শন হিসেবে এ বাতিঘরটি পর্যটকদের দৃষ্টি আকর্ষণ করে। কুতুবদিয়ায় আগমনকারী কোন পর্যটকই এ বাতিঘরটি দেখার লোভ সম্ভরণ করতে পারে না।

এক কথায়, দেশের অন্যতম ঐতিহাসিক নিদর্শন কুতুবদিয়া বাতিঘর এর সৌন্দর্য্য কুতুবদিয়াকে বহুলাংশে আকর্ষণীয় করে তোলে। 

*কক্সবাজারভ্রমন* *কক্সবাজার*

উদয়: কক্সবাজার জেলার আরেকটি দর্শনীয় স্থান কুতুবদিয়া দ্বীপ, যার আয়তন প্রায় ২১৬ বর্গ কিলোমিটার। এ দ্বীপের দর্শনীয় স্থান হলো বিখ্যাত প্রাচীন বাতিঘর, কালারমা মসজিদ এবং কুতুব আউলিয়ার মাজার। কক্সবাজারের কস্তুরী ঘাট থেকে কুতুবদিয়া স্পিডবোটে মাত্র ৪৫ মিনিটে যাওয়া যায়,যার ভাড়া ১৫০-২০০টাকা কিংবা খরচ বাচাতে যেতে পারেন ইঞ্জিন বোটে। সময় লাগে ২ ঘন্টা, ভাড়া ৫০-৭০টাকা

*কক্সবাজারভ্রমন* *ভ্রমনটিপস*
ছবি

দীপ্তি: ফটো পোস্ট করেছে

ইনানী সমুদ্র সৈকত

আরেক আকর্ষণ সৈকত ইনানী, যাকে বলা হয়, মিনি সেন্টমার্টিন

*কক্সবাজারভ্রমন* *ভ্রমনটিপস* *কক্সবাজার* *শীতেভ্রমন*

দীপ্তি: কক্সবাজার থেকে হিমছড়ি পাড় হয়ে আরও ৮কি.মি পূবে রয়েছে আরেক আকর্ষণ সৈকত ইনানী, যাকে বলা হয়, মিনি সেন্টমার্টিন। এখানে রয়েছে বিস্তীর্ণ পাথুরে সৈকত। সমুদ্র থেকে ভেসে এসে এখানকার ভেলাভূমিতে জমা হয়েছে প্রচুর প্রবাল। কক্সবাজার থেকে এখানে পৌছতে রিজার্ভ জীপ নিলে লাগবে ১৮০০-২৫০০ টাকা। ব্যাটারি চালিত রিকশা নিয়েও সারাদিনের জন্য ঘুরলে ভাড়া পড়বে ৮০০-১০০০টাকা।

*কক্সবাজারভ্রমন* *ভ্রমনটিপস*
ছবি

দীপ্তি: ফটো পোস্ট করেছে

নারিকেল জিঞ্জিরা

নারিকেল জিঞ্জিরা নামের স্বার্থকতা খুজতে বেড়িয়ে পড়ুন (খুকখুকহাসি)

*কক্সবাজারভ্রমন* *কক্সবাজার*

বেশতো সাইট টিতে কোনো কন্টেন্ট-এর জন্য বেশতো কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

কনটেন্ট -এর পুরো দায় যে ব্যক্তি কন্টেন্ট লিখেছে তার।

...বিস্তারিত

QA

★ ঘুরে আসুন প্রশ্নোত্তরের দুনিয়ায় ★