কৃপণ

জোকস

ফ্রেশ ফ্রজেন: একটি জোকস পোস্ট করেছে

এক কৃপণ গেছে পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি দিতে। কৃপণ: ভাই, আমার বাবা মারা গেছেন। সবচেয়ে ছোট্ট একটা বিজ্ঞপ্তি দিতে কত টাকা লাগবে? কর্মকর্তা: ১০০ টাকা। কৃপণ: ওহ্ ! এত টাকা ? আচ্ছা যাক, দিলাম না হয় ১০০ টাকা। লিখুন, ‘রফিক সাহেব মারা গেছেন।’ কর্মকর্তা: স্যার, কমপক্ষে আট শব্দের হতে হবে। কৃপণ: আচ্ছা, তাহলে লিখুন, ‘রফিক সাহেব মারা গেছেন। তার একটি গাড়ি বিক্রয় হইবে।’
*কৃপণ*
জোকস

মিকু: একটি জোকস পোস্ট করেছে

এক কৃপণ গেছে পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি দিতে। কৃপণ: ভাই, আমার বাবা মারা গেছেন। সবচেয়ে ছোট্ট একটা বিজ্ঞপ্তি দিতে কত টাকা লাগবে? কর্মকর্তা: ১০০ টাকা। কৃপণ: ওহ্! এত? আচ্ছা যাক, দিলাম না হয় ১০০ টাকা। লিখুন, ‘রফিক সাহেব মারা গেছেন।’ কর্মকর্তা: স্যার, কমপক্ষে আট শব্দের হতে হবে। কৃপণ: আচ্ছা, তাহলে লিখুন, ‘রফিক সাহেব মারা গেছেন। তার গাড়িটি বিক্রয় হইবে...! (ব্যাপকটেনশনেআসি)(ভেঙ্গানো২)
*কৃপণ*
জোকস

হাফিজ উল্লাহ: একটি জোকস পোস্ট করেছে

৫/৫
শিক্ষক: বলো তো, কৃপণ কাকে বলে? বল্টু: যাকে ১০০ ম্যাসেজ দিলেও Reply করে না। তাঁকে কৃপণ বলে । শিক্ষক: খুব ভালো । একটা উদাহরন দাও । , , , বল্টু: যেমন আপনার মেয়ে!
*কৃপণ* *জোকস* *কমেডিয়ানহাফিজ*
জোকস

পাগলী: একটি জোকস পোস্ট করেছে

এক কৃপণ মৃত্যু শয্যায় তার ছেলে অভিকে পরামর্শ দিলো ,কখনো কোনো বুদ্ধির প্রয়োজন হলে সে যেন তার কৃপণ-বন্ধু রাজকুমার এর কাছে যায়। বাবার মৃত্যুর পর অভির একদিন বুদ্ধির প্রয়োজন পড়লো, তাই রাতে সে বাবার বন্ধু রাজকুমারের কাছে গেলো। রাজকুমার সাগ্রহে অভিকে অভিবাদন জানালো,বসতে দিয়ে বললো,"কথা বলতে তো আর বাতির প্রয়োজন হয়না, বাতিটা বরং নিভিয়ে রাখি।"বলে রাজকুমার বাতিটা নিভিয়ে রাখলো। কথা শেষ করে অভির যখন চলে আসার সময় হল । (নিচেদেখ)
*জোকস* *কৃপণ* *লুংগি* *বুদ্ধি*
জোকস

শাকিল আহমেদ: একটি জোকস পোস্ট করেছে

এক কৃপণ ছেলের সাথে এক কৃপণ মেয়ের প্রেম হয়ে গেল। মেয়েঃ যখন বাবা ঘুমিয়ে যাবে আমি রাস্তাতে একটা টাকার কয়েন ফেলব তুমি শব্দ শুনে ভিতরে চলে আসবা । যথারীতি মেয়ে কয়েন ফেলল ,কিন্তু ছেলে কয়েন ফেলার এক ঘণ্টা পর আসলো। মেয়েঃএত দেরি করলা কেন?? ছেলেঃআরে আমি কয়েনটা খুজতাছিলাম ... . . . . মেয়েঃআরে পাগল আমি তো ওইটা সুতা বাইন্ধা ফেলছিলাম পরে আবার উঠাইয়া নিছি ।(হাসি-৩)
*কৃপণ* *জোকস*
জোকস

হাফিজ উল্লাহ: একটি জোকস পোস্ট করেছে

চার বন্ধু। হাসান, রুমি, খালেদ আর ফারহাদ। এদের মধ্যে ফারহাদ ছিল ভীষণ কৃপণ। অন্য তিন বন্ধু ফারহাদকে জব্দ করবে বলে আয়োজন করল এক বনভোজনের। ঠিক হল বনভোজনে প্রত্যেককে কিছু না কিছু নিয়ে আসতে হবে। বনভোজনের দিন হাসান নিয়ে এল রুটি, মাংস। রুমী নিয়ে এল কলা, ডিম, লেবু। খালেদ ঠাণ্ডা পানীয়। আর ফারহাদ নিয়ে এল ছোট ভাইকে। :D
*কৃপণ* *দুষ্টবন্ধু*

বেশতো সাইট টিতে কোনো কন্টেন্ট-এর জন্য বেশতো কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

কনটেন্ট -এর পুরো দায় যে ব্যক্তি কন্টেন্ট লিখেছে তার।

...বিস্তারিত

QA

★ ঘুরে আসুন প্রশ্নোত্তরের দুনিয়ায় ★