ছুরি চামচ

ছুরি-চামচ নিয়ে কি ভাবছো?

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

রেস্তোরাঁয় আমরা সবাই খেতে যাই। কিন্তু ছুরি চামচের ব্যবহার আমরা অনেকেই জানি না। আধুনিকতার সঙ্গে তাল মেলানো মানে শুধু পোশাক-আশাক বা গ্যাজেটে আধুনিক হওয়াই নয়, প্রয়োজন জীবন-যাপন রীতি বা লাইফস্টাইলেও পরিবর্তন আনা। তা হলেই বলা যেতে পারে আপনি পুরোপুরি আধুনিক। সূক্ষ্ম কিছু বিষয় সম্পর্কে সচেতন না থাকলে হয়তো মাটি হয়ে যেতে পারে আপনার পুরো সাজ পোশাক। যেমন—মনের ভুলেই হয়তোবা খাবার টেবিলে আপনি করে বসতে পারেন এমন কিছু, যাতে বরবাদ হয়ে যাবে অন্যদের খাওয়া-দাওয়া এমনকি আপনি বিরক্তিকর হয়ে উঠবেন সবার কাছে। তাই সচেতন হতে যেনে নিন অতি জরুরি কিছু টেবিল ম্যানার্স। 
 
 
* মুখ বন্ধ করে খান। খাওয়ার সময় আপনার মুখের খাবার দেখা গেলে তা মোটেই স্বস্তিদায়ক নয়। এটা যেমন অন্যদের বিরক্তিতে ফেলে, তেমনি খাওয়ার রুচিতেও ঘাটতি আনে। মনের অজান্তেই যদি এ অভ্যাসটি আপনার থাকে তবে মুখ বন্ধ করে খাওয়ার অভ্যাস করুন এখনই।
 
* শব্দ করে খাওয়া বন্ধ করুন। এটা কোনো গর্বের বিষয় নয় যে আপনি খাওয়ার সময় সবাইকে জানিয়ে দিচ্ছেন, আপনি খাচ্ছেন। যা আপনার পাশে বসা মানুষটির জন্য চূড়ান্ত অস্বস্তিদায়কও। বিষয়টি আমাদের দেশে একেবারেই গুরুত্ব না পেলেও পশ্চিমা দেশগুলোয়, যাদের সবকিছুই আমরা অনুকরণে ব্যস্ত, তাদের কাছে রীতিমত অপরাধ হিসেবে গণ্য হয়ে থাকে।
* চামচ বা হাত যেভাবেই অল্প করে খাবার মুখে দিন। যত ক্ষুধার্তই হোন না কেন একবারে খুব বেশি পরিমাণ খাবার মুখে দেয়া যেমন দৃষ্টিকটু, তেমনি তা ছড়িয়ে পড়ে খাবার টেবিলে, সৃষ্টি করতে পারে বিশৃঙ্খলা।
 
* খাবার সময় কাশি বা হাঁচি দেয়া ও নাক টানা থেকে বিরত থাকুন। বাকিদের কাছ থেকে অনুমতি নিয়ে একটু দূরে গিয়ে হাঁচি দিন। খাবার টেবিলে শব্দ করে ঢেঁকুর তোলাও চরম বাজে অভ্যাসগুলোর একটি।
 
* অনেকের সঙ্গে খেতে বসলে একসঙ্গে খাওয়া শুরু করুন। আগে আগে নিজের প্লেটে খাবার নেয়া অন্যদের কাছে আপনার ব্যক্তিত্বের ঘাটতি তুলে ধরবে সহজেই।
 
* রেস্টুরেন্টে খেতে যাওয়ার আগে অবশ্যই জেনে নিন চামচ, কাটা চামচ ও ন্যাপকিন ব্যবহারের নিয়মকানুনগুলো। খাবার সময় কখনোই চামচ বা কাটা চামচ শূন্যে তুলে কথা বলা বা কোনো দিকে নির্দেশ করবেন না। 
জেনে নিন কিভাবে রসনার অভিব্যক্তির বহিঃপ্রকাশ করে ছুরি-চামচ
 
ক্রিস-ক্রস ছুরি চামচ
প্লেটের মাঝে ছুরি ও চামচ দিয়ে যোগ চিহ্নের মতো তৈরি করা। অর্থাৎ আপনি দ্বিতীয় প্লেটে খাবার নেওয়া জন্য প্রস্তুত। তাই আপনি মুখে কিছু না বললেও, আপনার প্লেট দেখেই ওয়েটার বুঝে যাবে আপনাকে খাবার সার্ভ করতে হবে।
 
ছুরি চামচ পাশাপাশি
ফিনিশ। মানে আপনার খাওয়া শেষ। ছুরি চামচ পাশাপাশি লম্বা করে রাখার অর্থ এটাই। যাতে ওয়েটার টেবিল পরিষ্কার করে নিতে পারেন।
ছুরি চামচ পাশাপাশি আড়াআড়ি
ছুরি চামচ পাশাপাশি আড়াআড়ি করে রাখার অর্থ আপনার খাওয়া শেষ এবং খাবার আপনার অত্যন্ত পছন্দ হয়েছে।
 
ছুরি চামচ একটির ভেতর অপরটি
ছুরি চামচ একটির ভেতর অপরটি মূলত কাটা চামচের ভেতর ছুরি গেঁথে কোণ তৈরি করে রাখার অর্থ আপনার খাওয়া শেষ কিন্তু খাবার একেবারেই পছন্দ হয়নি আপনার।
কিছু টিপস
  • খাওয়ার ছুরি কখনোই সাধারণ ছুরির মতো করে ধরবেন না
  • একবার টেবিল থেকে ছুরি চামচ তুলে তা আবার টেবিলে রাখবেন না। হাতে বা প্লেটে রাখুন।
  • ন্যাপকিন হাত মোছা/লিপস্টিক মোছা/ সর্দি মোছা্র কাজে ব্যবহার করবেন না।
  • প্লেট/চামচ/গ্লাস মোছার জন্য ন্যাপকিন ব্যবহার করবেন না।
  • ন্যাপকিন হাতে নিয়ে কাউকে ইশারা করবেন না।
  • মুখ থেকে কাটা, হাড় বা অন্য কিছু বের করতে হলে ন্যাপকিন ব্যবহার করবেন না। এক্ষেত্রে হাত বা কাঁটা চামচ ব্যবহার করুন।
  • ন্যাপকিন ফ্লোরে পড়ে গেলে তা তোলার চেষ্টা করবেন না। সার্ভারকে ডাকুন এবং আর একটি ন্যাপকিন চেয়ে নিন।
দাওয়াত খেতে গেলে ফিরে আসার সময় অবশ্যই আপ্যায়নকারীর রান্নার প্রশংসা করতে ভুলবেন না।
এগুলো ছিল প্রাথমিক কিছু টেবিল ম্যানার বা খাবার টেবিলের নিয়মকানুন। তবে এরও আছে নানা ভাগ ও ব্যাপ্তি। যদিও সব সময়ের জন্যই উপরের কয়েকটি নিয়ম খেয়াল রাখলেই আপনি এড়াতে পারেন বিব্রতকর পরিস্থিতি। শুধু বহিরাবরণেই নয়, ম্যানার সচেতন থাকলে হয়ে উঠতে পারবেন আপাদমস্তক আধুনিক। বাসায় নিমন্ত্রিত অতিথিদের জন্য এক সেট নান্দনিক কাট্লারী সেট কিন্তু আপনার রুচিরও প্রকাশ ঘটাতে দারুন ভূমিকা পালন করবে l 
 
কোথায় পাবেন
নিউ মার্কেট, চন্দ্রিমাসহ যে কোনো ক্রোকারিজ শপে পেয়ে যাবেন নানা ধরনের ছুরি, চামচ ও কাচির সেট, যাকে এক কথায় কাট্লারী সেট বলে l এছাড়া অনলাইন শপিং মল আজকের ডিল তো আছেই l ওদের কিচেন এপ্লাইন্সেসের রয়েছে বিশাল কালেকশন এবং সেখানেই পেয়ে যাবেন নান্দনিক সব কাট্লারী সেট l আজকের ডিলের সংগ্রহ দেখতে ক্লিক করুন l 
 

 

*ছুরি-চামচ* *কাচি* *গৃহস্থালিসামগ্রী* *কিচেনসামগ্রী*

বেশতো সাইট টিতে কোনো কন্টেন্ট-এর জন্য বেশতো কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

কনটেন্ট -এর পুরো দায় যে ব্যক্তি কন্টেন্ট লিখেছে তার।

...বিস্তারিত

QA

★ ঘুরে আসুন প্রশ্নোত্তরের দুনিয়ায় ★