ছেলেদের ফ্যাশন

ছেলেদেরফ্যাশন নিয়ে কি ভাবছো?

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

হুটহাট বৃষ্টির মিশেল পরিবেশ গরম আসছে এই আভাসই দিয়ে যায়। গরমের প্রকোপ বাড়ছে। উত্তরের হিমেল হাওয়া কমে এসেছে। প্রকৃতির এই পরিবর্তনের ছোঁয়া লেগেছে প্রতিদিনের জীবনে। দিন এখন শুরু হচ্ছে হালকা পোশাকে। তাই এই বৈরী আবহাওয়ায় একটু হালকা ধরনের কাপড় পরতে পারলেই ভালো। আর সেজন্যই চলতি ফ্যাশনে হালকা গরমে তরুণদের প্রথম পছন্দ নানা রঙের পোলো শার্ট। এক সময় স্পোর্টস শার্ট হিসাবে পোলো-এ ব্যবহার হলেও এখন ফরমাল বা ক্যাজুয়াল আউটফিট হিসাবে পোলো এর জনপ্রিয়তা বাড়ছে। পোলো শার্টের চাহিদা সর্বজনীন। সব বয়সেই পরা যায়। শুধু ব্যক্তিত্ব আর রুচি অনুযায়ী নির্দিষ্ট পোলো শার্টটি বাছাই করে নিতে হবে। এখন একরঙা পোলো শার্ট যেমন চলছে, তেমনি স্ট্রাইপ পোলো শার্টও অনেকে পছন্দ করছেন।
 
বলা যায়, ক্যাজুয়াল-ফর্মাল এর কনফিউশন কাটিয়ে উঠতে পোলো শার্টের চেয়ে সহজ সমাধান আর কিইবা আছে। এর না আছে আয়রনের ঝামেলা, আর না রং মিলিয়ে অনুষঙ্গ নির্বাচনের কোনও বিষয়। পোলো শার্ট সব সময়, সব মুহূর্তের জন্যই মানানসই। তবে উজ্জ্বল রঙের পোলো শার্টের কাটতি বেশি। ছবিতে কিংবা সেলফিতে উজ্জ্বল রংই যে বেশি চোখে লাগে! নতুনত্ব আনতে গলায় ও কাঁধে যোগ করা হচ্ছে বাড়তি নকশাহালকা রঙের কিংবা স্ট্রাইপ পোলো শার্ট মানিয়ে যাবে যেকোনো অনুষ্ঠানেই। 
এটি হালকা কাপড় হিসেবে যেমন আরামদায়ক, তেমনি ফ্যাশনেবলও। এছাড়া রঙে ও নকশায় একটু ফ্যাশন সচেতন হলে পোলো শার্ট গায়ে দিয়ে যাওয়া যায় অফিস কিংবা বিভিন্ন পার্টিতেও। অন্যদিকে পোলো শার্ট পরা যায় জিন্স, গ্যাবাডিন কিংবা অন্য কাপড়ের প্যান্টের সঙ্গে। আবার পোলো শার্টের সঙ্গে মানিয়ে পরা যায় কেডস, স্নিকার, স্যান্ডেল কিংবা অন্য জুতাও। সব মিলিয়েই পোলো শার্ট আরামদায়ক, মানানসই এবং একই সঙ্গে ফ্যাশনেবলও। তবে পোলো শার্ট গায়ে দিয়ে অফিস যেমন করা যাবে, তেমনি যাওয়া যাবে বিভিন্ন পার্টিতেও।
জিম করা পেশিবহুল বাহু যাঁদের, তাঁরা হাতায় রাবার দেওয়া কাফের পোলো শার্ট বেছে নিতে পারেন । আকর্ষণীয় দেখাবে। হালকা গড়নের হাতে রাবার ছাড়া কাফ পোলোই বেশি মানানসই। যে গড়নেই শরীর হোক না কেন, ঢিলেঢালা শার্ট না পরে বেছে নিন ফিট কিংবা সেমি ফিট পোলো শার্ট। ব্র্যান্ডভেদে পোলো শার্টের বোতামের সংখ্যায় ভিন্নতা আছে। কোনো পোলো শার্টে তিন থেকে চারটি বোতাম দেখা যায়। আবার কোনোটিতে দুই বা তিনটি বোতাম। বোতামবিহীন পোলো শার্টের কদরও কম না। ফ্যাশনের জন্য অল্প বোতামের পোলোর চাহিদাই বেশি বাজারে। এই বোতামের ডিজাইনেও আছে বৈচিত্র্য। মেটালের তৈরি বোতাম পোলো শার্টে নিয়ে এসেছে ভিন্নমাত্রা। 
সাইজ ম্যাটার্স
পোলো শার্টের ক্ষেত্রে সাইজ ম্যাটার্স। সাধারণভাবেই পিকে পোলো শার্টের পেছনের অংশ লম্বা আর সামনের অংশ অপেক্ষাকৃত খাটো থাকে। যাতে ঝুকলেও পেছন উদোম না হয়ে যায়।
তবে লম্বা হলো নাকি খাটো হলো সেটা বুঝতে খেয়াল করুন শার্টের পেছনভাগ প্যান্টের পেছনের পকেটের অর্ধেকেরও বেশি ঢেকে দিচ্ছে কিনা।
 
 
বোতাম বা প্ল্যাকেট ডিজাইন
সাইজ মিললে মনোযোগ দিন বোতামে। অনেক পোলো শার্টেই তিন থেকে চারটা বোতাম থাকে। ব্র্যান্ডভেদে এক বা দুই বোতাম এমনকি বোতামহীন পোলো শার্টও মেলে বাজারে। তবে ট্রেন্ড আর ফ্যাশন ধারা বজায় রাখতে কম বোতামের পোলো পরাই ভালো। আর প্ল্যাকেট এর দৈর্ঘ্যও নির্ভর করে বোতাম এর সংখ্যার উপর। সাধারণত এক বোতামের প্ল্যাকেট-এ ক্রস স্টিচ থাকে।
 
হাতার রকমফের
শীত ছাড়া ফুল স্লীভ পোলো শার্ট ফ্যাশনে ফোকাস আউট! তাছাড়া পেশিবহুল শরীরের জন্য হাফ স্লীভ পোলোই স্মার্ট সমাধান। একেক ব্র্যান্ডের পোলো শার্টের কলার ও হাতা একেক রকম হয়। তবে পেশিবহুল বাহুতে রাবার দেয়া হাতাই ভালো মানায়। হালকা পাতলা গড়ন হলে বেছে নিতে পারেন রাবার ছাড়া কাফ। পেশী দেখাতে গিয়ে আবার খুব টাইট হাতা পরবেন না। কলার এবং হাতার কাফ-এ ট্রিপিং (চিকন লাইন) ডিজাইনও এক রঙা পোলোতে বেশ চলতি এখনও।
ওয়াশ এফেক্ট
বেসিক পোলোতে ইদানিং সিলিকন এনজাইম ওয়াশ-এর পাশাপাশি বেশকিছু ওয়াশ এফেক্ট ব্যবহার হচ্ছে। পিগমেন্ট ড্রাই ওয়াশ, স্টোন ওয়াশ, এ্যানজাইম ওয়াশ, টাইডাই ওয়াশ, কুল ওয়াশ,ওয়েল ওয়াশ, এসিড ওয়াশ উল্লেখযোগ্য।
 
পোলো শার্টের যত্ন
কাপড়ের রং ঠিক রাখতে পোলো শার্টটি হালকা ডিটারজেন্টে পরিষ্কার করুন এবং দড়িতে শুকাতে না দিয়ে বরং সমতল কোনো জায়গায় বিছিয়ে রাখুন। পানিতে ভেজা পোলো শার্টটি দড়িতে ঝুলিয়ে দিলে, দৈর্ঘ্যের তারতম্য দেখা দিতে পারে। এ ছাড়া কড়া রোদে শুকাতে দিলে রং জ্বলে যাওয়ার শঙ্কা থাকে। তাই শার্টটি উল্টো করে ভেতরের পাশটা বাইরে রেখে হালকা রোদে কিংবা ছায়ায় শুকিয়ে নিন।’ এবার আশ মিটিয়ে শার্টটি পরুন দীর্ঘদিন।
ব্র্যান্ডভেদে পোলো শার্টের বোতামের সংখ্যায় ভিন্নতা আছে। কোনো পোলো শার্টে তিন থেকে চারটি বোতাম দেখা যায়। আবার কোনোটিতে দুই বা তিনটি বোতাম। বোতামবিহীন পোলো শার্টের কদরও কম না। ফ্যাশনের জন্য অল্প বোতামের পোলোর চাহিদাই বেশি বাজারে। এই বোতামের ডিজাইনেও আছে বৈচিত্র্য। মেটালের তৈরি বোতাম পোলো শার্টে নিয়ে এসেছে ভিন্নমাত্রা। চলতি ফ্যাশনে হালকা গরমে তরুণদের প্রথম পছন্দ নানা রঙের পোলো শার্ট। এক সময় স্পোর্টস শার্ট হিসাবে পোলো-এ ব্যবহার হলেও এখন ফরমাল বা ক্যাজুয়াল আউটফিট হিসাবে পোলো এর জনপ্রিয়তা বাড়ছে। পোলো শার্টের চাহিদা সর্বজনীন। সব বয়সেই পরা যায়। শুধু ব্যক্তিত্ব আর রুচি অনুযায়ী নির্দিষ্ট পোলো শার্টটি বাছাই করে নিতে হবে। এখন একরঙা পোলো শার্ট যেমন চলছে, তেমনি স্ট্রাইপ পোলো শার্টও অনেকে পছন্দ করছেন।
 
কোথায় পাবেন
ক্যাটস আই, এক্সট্যাসি, ইয়েলো, জেন্টল পার্ক, আমবার, সেইলর, মেনজ ক্লাব, আর্টিস্টি, রিচম্যানসহ প্রায় সব ফ্যাশন হাউসেই পোলো শার্ট পাওয়া যায়। এ ছাড়া ঘুরে ঘুরে কিনতে চাইলে, বসুন্ধরা, যমুনা ফিউচার পার্ক, নিউমার্কেট, নূরজাহান মার্কেটসহ পলওয়েলে মিলবে পোলো। ব্র্যান্ডভেদে দামের তারতম্য হয়। ৪৫০ টাকা থেকে শুরু করে ২০০০ টাকার মধ্যেই পেয়ে যাবেন পছন্দের পোলো। আর অনলাইন থেকে অর্ডার করেও আপনি পোলো শার্ট কিনতে পারেন আপনার পছন্দ অনুযায়ী l এক্ষেত্রে আজকের ডিলকেই সবচেয়ে সাশ্রয়ী আর ভরসার জায়গা বলে মনে হয়েছে, কারণ ওদের সাইটে প্রায় ৩০০০ রকমের পোলো শার্টের কালেকশন রয়েছে l 
প্রত্যেকটি ছবিই ক্লিকেবল, আপনি আজকের ডিলের পোলো শার্টের বিশাল সম্ভার দেখতে চাইলে এই লিঙ্কে ক্লিক করুন আর বেছে নিন আপনার পছন্দের পোলো শার্টগুলো l 

 

*পোলোশার্ট* *ছেলেদেরফ্যাশন* *হালফ্যাশন*

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

বর্তমান সময়ে ফ্যাশনের অন্যতম আকর্ষণ বেল্ট। ফরমাল শার্ট,প্যান্ট ও জিন্সের সাথে রঙ বেরঙের বাহারি বেল্ট আপনার পোশাকের সৌন্দর্য্যই বদলে দিতে পারে। মূলত  ঢিলেঢালা পোশাকের ফিটিংটা ঠিক করতেই  বেল্ট  ব্যবহার হতো , যা অনেক আগে থেকেই ফ্যাশন অনুষঙ্গে পরিণত হয়েছে। বেল্ট যদি পরা হয় মানানসইভাবে, তবে তা সাধারণ একটি পোশাকের চেহারাই পাল্টে দেবে আর আপনার ফ্যাশনে যুক্ত করবে অসাধারণ লুক। আজকের আয়োজন ফ্যাশনেবল মেনজ বেল্ট নিয়ে।
 
ফ্যাশনেবল ফর্মাল বেল্ট
অফিস কিংবা চাকরির ভাইভায় ফ্যাশনেবল ফর্মাল বেল্ট এক অন্যতম অনুসঙ্গ। ফর্মাল ড্রেসের এই বেল্ট গুলো কালো প্যান্ট ও সাদা শার্টের সাথে মিলে যায়। ফর্মাল ড্রেসের সঙ্গে  এ ধরনের বাকল্ বেল্ট সবচেয়ে ভালো যায়। গোল্ডেন বা সিলভার কালারের বেল্ট অফিস ড্রেসের সঙ্গে পারফেক্ট। এগুলো বেশ স্টাইলিশ । ফর্মাল  এই বেল্ট চাইনিজ লেদারে তৈরী। বেল্ট এর বাকল স্টেইনলেস স্টিল এ তৈরী।
 
FERRAGAMO জেন্টস বেল্ট
বর্তমান সময়ে একটু এলোমেলোভাবেই বাহারি ঢঙে সাজসজ্জার পোশাকে ফ্যাশনেবল স্টাইলিশ বেল্ট গুলো ব্যবহার করছে তরুনরা।   জিন্স প্যান্টের সাথে এ ধরনের বেল্ট বেশ ভালো মানায়। যারা স্টাইলিশ ফ্যাশনে বিশ্বাসী তারা নিঃসন্দেহে এ ধরনের বেল্ট ব্যবহার করতে পারেন। Ferragamo জেন্টস বেল্ট গুলো  PU লেদারে তৈরী।  এই বেল্ট গুলো মালোয়েশিয়া থেকে ইম্পোর্টেড করা। দাম ১হাজার থেকে ১৫শ টাকা। 
 
ক্যাজুয়াল ফেব্রিক বেল্ট
ক্যাজুয়াল ফেব্রিক বেল্ট গুলো বর্তমান প্রজন্মের কাছে বেশ জনপ্রিয়। এই বেল্টের বাকল গুলো বেশ স্টাইলিশ। জিন্স প্যান্ট ও টি শার্টের সাথেও এটি পরা যায়। ভারী ডেনিমের প্যান্টের সঙ্গে ক্যাজ়ুয়াল লুকের বেল্ট খুব ভালো খাপ খায়। খুব বেশি সাহসী লুক আনতে চাইলে একটু অন্য লুকের এই বেল্ট পরতেই পারেন। 
 
লেদার বেল্ট
চামড়ার বেল্টের বেশ কদর রয়েছে আমাদের দেশে। চামড়ার স্টাইলিম ও আকর্ষণীয় ডিজাইনের বেল্ট গুরো তরুণ ও বয়স্ক সবার কাছেই বেশ জনপ্রিয়।  চামড়ার মোটা বা চিকন বেল্ট দুটোই এখন চলছে। তবে পোশাকের সঙ্গে মিলিয়ে বেছে নিতে হবে সঠিক আকারের বেল্ট। করপোরেট পোশাকের সঙ্গে চামাড়ার এই বেল্ট গুলো বেশ মানানসই।
 
 
ফর্মাল লেদার বেল্ট
অফিসিয়াল ড্রেসের সাথে চামড়ার বেল্টগুলো বেশ যায়। যে কোন অনুষ্ঠানে ফর্মাল প্যান্ট ও ফুল স্লিভ ফর্মাল শার্টের সাথে এটি বেশ মানায়।  তবে বর্তমানে অনেকেই নানা রকমের প্যান্ট ও পোশাকের সাথে এ ধরনের বেল্ট ব্যবহার করছেন। বাজারে ফর্মাল লেদার বেল্টের বেশ কিছু কালেকশন রয়েছে। তাছাড়াও ভিন্ন ভিন্ন কালারে এ ধরনের ফর্মার লেদার বেল্ট পাওয়া যায়। এই বেল্টগুলো পুরোটাই লেদার আর বাকল মেটালে তৈরী । বাজারে ৫০০ থেকে ১ হাজার টাকার মধ্যে এই বেল্ট গুলো পাওয়া যাবে। 
 
উপরের বেল্ট গুলো ছাড়াও ভিন্ন ভিন্ন ডিজাইনের অনেক গুলো বেল্ট কালেকশন দেখতে ও কিনতে বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় অনলাইন শপিংমল আজকের ডিল থেকে ঘুরে আসুন। 
 
*ফ্যাশন* *বেল্টফ্যাশন* *ছেলেদেরফ্যাশন* *শপিং* *স্মার্টশপিং* *কেনাকাটা*

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

শার্ট ছেলেদের ফ্যাশনে সর্বাধিক পরিধেয় পোশাক। অফিস কিংবা বাসা সব জায়গাতেই শার্টের আলাদা কদর রয়েছে। সেই সাথে শার্টের পুরনো কাটিং, প্যাটার্ন, ডিজাইনের জায়গায় নিত্য নতুন পরিবর্তন আসছে। কিছুদিন আগেও ছেলেদের মাঝে শার্টের তুলনায় টিশার্ট কিংবা পোল শার্ট বেশি পছন্দের ছিল। কেননা শার্ট অফিস ও অনুষ্ঠান ছাড়া অন্য জায়গা গুলোতে তেমন যায়না। কিন্তু বর্তমান সময়ে শার্টের ডিজাইনে ও নকশায় বেশ পরিবর্তন ‍হওয়ায় শার্টের ব্যবহার দ্বিগুণ বেড়েছে। এই সময়ের উপযোগী অনেক শার্ট এখন বাজারে পাওয়া যাচ্ছে। যেগুলো আপনি সব জায়গায় খুব সাবলীলভাবে পরতে পারেন। তাছাড়াও বর্তমান বাজারে প্রাপ্ত শার্টগুলো বেশ ফ্যাশনেবল ও আরামদায়ক। 

ছেলেরা তাদের পোশাকের জন্য শার্টকেই বেশি পছন্দ করছে। চেকশার্ট একটি লম্বা সময় ধরে ফ্যাশনে বেশ ভালোভাবে রয়েছে। ছোট-বড়, মিশেল নানা ধরনের চেকশার্ট বাজারে রয়েছে। এগুলোর কালার ভেরিয়েশনও বেশ উল্লেখ করার মতো। সহজেই নজর কাড়ে দু-তিন রঙে কম্বিনেশন করা চেকশার্টগুলো কলার ও হাতায় কন্ট্রাস কালার বা প্রিন্টের কাপড় ব্যবহার করে কিছু শার্টে ডিজাইন করা হচ্ছে। একটু ফ্যাশনেবল পোশাক যাদের পছন্দ, তারা এসব শার্ট বেশ আগ্রহ নিয়েই কিনছেন।

কিছু দিন আগে খাটো শার্ট বেশি চললেও এখন আবার লম্বা শার্ট অনেকের পছন্দের তালিকায় উঠে এসেছে। আর সঙ্গে চলছে থ্রি-কোয়াটার হাতার শার্টও। শার্টের বিভিন্ন জায়গায় রয়েছে ভিন্নতা। শার্টের কলারে এবং হাতার নিচের দিকটাতেও পরিবর্তনের ছাপ লক্ষ্য করার মত। বোতামেও ভিন্নতার রেশ পড়েছে।


অফিসে পরার জন্য ফরমাল টিশার্ট সকলেরই প্রথম পছন্দ। তাছাড়াও বিভিন্ন পরীক্ষা, ভাইভা পরীক্ষা বা ভিইপি কোন জায়গায় যাওয়ার জন্য ফর্মাল শার্ট
 খুব বেশি প্রয়োজন।  সুতি কাপড়ের ফর্মাল শার্ট এখন সকলের পছন্দ। কলারের ক্ষেত্রে এক কালার, যেমন, সাদা, কালো, আকাশী বেশি ব্যবহৃত হচ্ছে। 


এক কালারের শার্টের পাশাপাশি বিভিন্ন ধরনের চেক, স্কিনপ্রিন্ট অথবা এমব্রয়ডারির কাজ সকলের দৃষ্টি আকর্ষণ করে চলেছে। এসব শার্টের পকেটের মধ্যে বেশ বিবর্তন দেখা যাচ্ছে। কোন কোন শার্ট পকেট ছাড়া আবার কোন কোন শার্টে এক পকেট আবার কোন কোনটাতে দুই পকেটও লাগানো হয়েছে। হাতার নিচের অংশ গুঁজে রাখার জন্য কনুয়ের সাথে লাগানো হচ্ছে বোতাম। এখন শীতকাল চলছে এসময়টাতে জিন্স শার্টও গুলো বেশ ভাল চলে।

কোথায় থেকে কিনবেন?
সবধরনের শার্ট আপনি রাজধানী ঢাকাসহ দেশের যেকোনো শপিং মলে পেয়ে যাবেন। অনলাইনের মাধ্যমেও আপনি আপনার পছন্দের শার্ট বেঁছে নিতে পারেন। অনলাইনে শার্ট কিনতে চাইলে নিচের লিংক থেকে ঘুরে আসুন। 
*শার্ট* *ছেলেদেরফ্যাশন* *ফ্যাশন* *কেনাকাটা* *শপিং* *স্মার্টশপিং*

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

হাতে হাতে ব্রেসলেট বর্তমান প্রজন্মের কাছে ফ্যাশনের অন্যতম একটি অনুসঙ্গ। ফ্যাশনে ব্রেসলেটের ধারণা বেশ পুরনো হলেও নতুন করে পুরানো ফ্যাশনকে জাগিয়ে তুলেছে তরুন প্রজন্ম। একটা সময় ছিল যখন ছেলেদের চেয়ে মেয়েরাই এটি বেশি  ব্যবহার করত। কিন্তু বর্তমানে ছেলেমেয়ে উভয়েই সমভাবে ব্যবহার করছে ব্রেসলেট। উপকরণ ডিজাইনেও এসেছে ব্যাপক পরিবর্তন। এখন  সোনা, কাঠের টুকরো, লেদার, পস্নাস্টিক কিংবা তামা দিয়ে তৈরি হচ্ছে সুন্দর সুন্দর ব্রেসলেট। আজকের আয়োজন ছেলেদের ব্রেসলেট নিয়ে। 

মেনজ গোল্ড প্লেটেড ব্রেসলেট
হ্যাল ফ্যাশনে বৈচিত্র আনতে বর্তমান প্রজন্মের ছেলেরা মেনজ গোল্ড প্লেটেড ব্রেসলেট ব্যবহার করছে। এটি বেশ ফ্যাশনেবল ও আকর্ষণীয় ডিজাইনের। বন্ধু-বান্ধবদের আড্ডায় কিংবা ক্যাম্পাসের যে কোন অনুষ্ঠানে সহজেই এধরনের ব্রেসলেট মানিয়ে যাবে। টিশার্ট-জিন্সপ্যান্ট স্যুট-টাই যে কোনো ধরনের পোশাকের সঙ্গে সহজেই মানিয়ে যায়। সোনার ব্রেসলেট সাধারণত বড় কোনো অনুষ্ঠানে বিবাহিতরাই বেশি পরেন। 

বেস্ট ফ্রেন্ড ব্রেসলেট
বেস্ট ফ্রেন্ড লেখা ব্রেসলেট গুলো বর্তমানে বেশ চলছে। এগুলো স্টাইলিশ ও এক্সক্লুসিভ ব্রেসলেট যা রোপ ও লেদারের সমন্বয়ে তৈরী। যে কোন উৎসবে এটি পরতে পারবেন। ইচ্ছে করে সবসময় হাতের পরে থাকা যায় । বন্ধুর জন্মদিন কিংবা বন্ধুত্বের শুরুতে বন্ধুকে এই ধরনের ব্রেসলেট উপহার দিতে পারেন। এ ব্রেসলেট বন্ধুত্বের বন্ধনকে আরও দৃঢ় ও শক্তিশালী করবে।

ইউনিসেক্স ব্রেসলেট
আকর্ষণীয় ডিজাইন ও স্টাইলিশ  ইউনিসেক্স ব্রেসলেট এখন বেশ চলছে। বর্তমান ফ্যাশনে প্রায সব ধরনের ছেলে মেয়েদের হাতেই এ ধরেনের ব্রেসলেট শোভা পায়।  এক্সক্লুসিভ এই ব্রেসলেট যা অ্যালয় ও লেদারের সমন্বয়ে তৈরী। যে কোন উৎসবে এটি পরতে পারবেন। ইচ্ছে করে সবসময় হাতের পরে থাকা যায় । এই ব্রেসলেটের দামও খুব একটা বেশি না মাত্র ১০০ থেকে ২০০ টাকা খরচা করলেই ফ্যাশনের এই অনুসঙ্গটি কিনতে পারবেন। 

জেন্টস ফ্যান্সি ব্রেসলেট
জেন্টস ফ্যান্সি ব্রেসলেট দেখতে আকর্ষণীয় আর ডিজাইনটাও বেশ চমৎকার। হাল ফ্যাশনে যারা নিজেকে ভিন্ন ভাবে উপস্থাপন করতে চান তাদের জন্য এই ব্রেসলেটটি বেশ ফ্যাশনেবল হবে। বন্ধু-বান্ধবদের আড্ডায় কিংবা ক্যাম্পাসের যে কোন অনুষ্ঠানে সহজেই এধরনের ব্রেসলেট মানিয়ে যাবে। টিশার্ট-জিন্সপ্যান্ট স্যুট-টাই যে কোনো ধরনের পোশাকের সঙ্গে এটি পরতে পারবেন। এটি লেদার ও জিংক অ্যালয়ের সমন্বয়ে তৈরী। এটি দীর্ঘস্থায়ী ও টেকসই হবে। 

স্পোর্টস ব্রেসলেট
মূলত ক্রিকেট খেলার সময় এধরনের ব্রেসলেট ক্রিকেটার রা ব্যবহার করে থাকেন। অনেক বলারদের হাতে বল করার সময় এধরনের ব্রেসলেট দেখতে পাওয়া যায়। বিশেষ করে অষ্ট্রেলিয়ার ক্রিটাররা এটি বেশি পরে। বাধা নিষেধ না থাকলে যে  কোন খেলার সময় আপনি এধরনের ব্রেসলেট হাতে পরতে পারবেন। এই ব্রেসলেট গুলো  বেশ স্টাইলিশ ও এক্সক্লুসিভ। ডিজাইনও চমৎকার। 

যারা সবধরনের ব্রেসলেট কিংবা রিস্টব্যান্ড কিনতে ইচ্ছুক তারা নিচের লিংক থেকে ঘুরে আসতে পারেন। 

এক্সক্লুসিভ সব ব্রেসলেট রিস্টব্যান্ড কিনতে ক্লিক করুন
*ব্রেসলেট* *ফ্যাশন* *ছেলেদেরফ্যাশন* *শপিং* *স্মার্টশপিং*

ইমরান নাজির লিপু: একটি নতুন প্রশ্ন করেছে

 গরমে ট্রেন্ড বজায় রেখে ছেলেদের পোশাক কেমন হওয়া উচিৎ ?

উত্তর দাও (৩ টি উত্তর আছে )

*গরমেরপোশাক* *ছেলেদেরফ্যাশন*

Saif Islam: একটি টিপস পোস্ট করেছে

ছেলেদের চুলের যত্নে মনে রাখুন ৫টি টিপস | প্রিয়.কম
http://www.priyo.com/2014/06/22/78265.html
বর্ষা চলে এসেছে। বৃষ্টির পানিতে যখন তখন ভিজে যেতে পারে মাথার চুল। চুল ভেজার পর সহজে না শুকোলে মাথার ত্বক ও চুলের জন্য বেশ ক্ষতিকর। বর্ষাকালের স্যাঁতসেঁতে আবহাওয়ায় ছেলেদের চুলেরও প্রয়োজন একটুখানি বাড়তি যত্নের। স্বাস্থ্যকর চুল সৌন্দর্যের বাহক। আর পুরুষের ক্ষেত্রে যেন এটা আরও অনেক বেশি সত্য টেকো হয়ে যাওয়ার ভয়ে। একটু যত্ন নিলেই আপনার চুল থাকতে পারে স্বাস্থ্যকর। ফুটিয়ে তুলতে পারে আপনার যথাযথ সৌন্দর্য ও ব্যক্তিত্ব। ...বিস্তারিত
*ফ্যাশন* *চুল* *ছেলেদেরফ্যাশন*
৫২৯ বার দেখা হয়েছে

বেশতো সাইট টিতে কোনো কন্টেন্ট-এর জন্য বেশতো কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

কনটেন্ট -এর পুরো দায় যে ব্যক্তি কন্টেন্ট লিখেছে তার।

...বিস্তারিত

QA

★ ঘুরে আসুন প্রশ্নোত্তরের দুনিয়ায় ★