জান্নাত

জান্নাত নিয়ে কি ভাবছো?
ছবি

সমুদ্র তীর: ফটো পোস্ট করেছে

ঋণ পরিশোধ করি .. .

*মৃত্যু* *ঋণ* *জান্নাত*

আলোহীন ল্যাম্পপোস্ট: একটি বেশব্লগ লিখেছে

এক যুবক ফেসবুকে এক যুবতীকে উত্যক্ত করার মনস্থ করে। এ উদ্দেশ্যে যুবকটি মেয়েটির ইনবক্সে অশালীন বক্তব্য সম্বলিত একটি ম্যাসেজ পাঠায় ম্যাসেজটি পড়ে যুবতী তার কাছে ফিরতি ম্যাসেজ পাঠায়। যুবতী ম্যাসেজে যা লিখেছিল, তা এখানে উল্লেখ করা হলঃ “আসসালামু আলাইকুম, প্রিয় ভাই! আপনার ম্যাসেজ পেয়েছি। ম্যাসেজটি পড়ে মনে হল আপনি আমাকে চিনতে পারেননি। আমি বিবি হাওয়া। আমাকে আপনার পাঁজর থেকেই সৃষ্টি করা হয়েছে। আমি আপনার অর্ধাংশ। আমি জান্নাতে আপনার সঙ্গি ছিলাম তারপর আল্লাহ পাক যখন আপনাকে পৃথিবীর খলিফা বানিয়ে একাকী পাঠান, তখনও আমিই ছিলাম আপনার সাথি। এরপর থেকে পৃথিবীতে আমি আপনার মা, আমি আপনার বোন, আমি আপনার কন্যা, আমি আপনার স্ত্রী হিসেবে আপনার ঘরের ব্যবস্থাপনা, আপনাকে চিন্তামুক্ত রাখা এবং আপনার শান্তি ও প্রশান্তি বিধানের সার্বিক দায়িত্ব আমি পালন করে আসছি। আমি নারী, প্রচণ্ড শক্তিশালী। আপনাকে এবং গোটা মানবজাতিকে আমি গর্ভে ধারণ করেছি, দুধপান করিয়েছি, প্রতিপালন করেছি, গড়ে তুলেছি। আমি মরিয়ম, আমি খাদিজা, আমি আয়েশা, আমি ফাতিমা। আমি নবীদেরও মা, নবীদেরেও স্ত্রী এবং নবীদের কন্যা। আমি যখন, যখন আপনার মা, আমার পদতলে আপনার জান্নাত। আল্লাহ পাক আপনাকে আমার অভিভাবক বানিয়েছেন। আপনাকে আল্লাহর রসূল (সাঃ) অসিয়ত করেছেন, “নারীদের সাথে উত্তম আচরণ করো।” মনে রাখবেন, জান্নাত আমার খুবই নিকটে। প্রিয় রসূল (সাঃ) বলেছেনঃ “নারী যদি পাঁচ ওয়াক্ত সালাত আদায় করে, রমজান মাসের রোজা পালন করে, সকল পজেটিভ (বৈধ) কাজে স্বামীর আনুগত্য করে এবং তার যৌন জীবনকে হেফাজত করে, তবে জান্নাতের দরজা তার জন্যে উন্মুক্ত।” আমি নারী, আমি যদি পুণ্যবতী হই, তবে হাজার পুরুষের চাইতে আমি উত্তম। আপনি যদি বিনোদন করতে চান, তবে ফেসবুকে অনেক বিনোদন আইডি আছে, সেখানে আপনার লালসা পূরণের মেয়েরা আছে, সেখানে ক্লিক করুন। আর আমি ? হ্যাঁ,আমি এবং আমার মতো আরও অনেক মেয়ে আছে, আমরা ফেসবুকে এসেছি যুব সমাজকে আল্লাহর দিকে আহবান জানাতে, তাদের কাছে আল্লাহর বার্তা পৌঁছে দিতে, তাদেরকে রসূলের উত্তম আদর্শের দিকে ডাকতে, তাদেরকে জাহান্নামের দাউ দাউ করে জ্বলা আগুণ থেকে বাঁচার পথ বলে দিতে, তাদেরকে জান্নাতের অনন্ত সুখের জীবন লাভ করার পথ দেখিয়ে দিতে। এবার বলুন, আপনিকে ? কী পরিচয় আপনার ?” ফিরতি বার্তায় যুবকঃ “আমি আপনার মাধ্যমে সুন্দর, শ্রেষ্ঠ ও অনাবিল জীবনের সন্ধান লাভকারী এক অনুতপ্ত যুবক। 

আমাকে ক্ষমা করুন, আমি আপনার নিকট কৃতজ্ঞ।
ইনশাআল্লাহ! দেখা হবে জান্নাতে।”

*নারী* *জান্নাত* *ছেলে* *ইসলাম* 
*জান্নাত* *ছেলে*

সাদাত সাদ: একটি বেশটুন পোস্ট করেছে

কর্ম ছাড়া দুনিয়াতে সুখে বাঁচা যায়(না) ঠিক তেমনই নেক আমল বিহিন কেহ জান্নাতে যাবার চাবি পাবে (না)
*জান্নাত*

গাজী আজিজ: একটি বেশব্লগ লিখেছে

রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন: সর্বশেষ যে ব্যক্তি জান্নাতে প্রবেশ করবে, সে একজন পুরুষ। কখনো সে হাটবে, কখনো উপুড় হয়ে চলবে, কখনো আগুন তাকে ঝলসে দিবে। যখন এ পথ অতিক্রম করে সামনে চলে যাবে। তখন সে তার দিকে ফিরে বলবে: বরকতময় সে আল্লাহ, যিনি আমাকে তোমার থেকে মুক্তি দিয়েছে। আল্লাহ আমাকে এমন জিনিস দান করেছেন, যা আগে-পরের কাউকে তিনি দান করেননি। অতঃপর তার জন্য একটি বৃক্ষ উম্মুক্ত করা হবে।

 

সে বলবে, হে আল্লাহ! এ বৃক্ষের কাছে নিয়ে যাও, যাতে এর ছায়াতলে আশ্রয় নিতে পারি, এর পানি পান করতে পারি। আল্লাহ বলবেন :হে বনি আদম, আমি যদি তোমাকে এটা প্রদান করি, তুমি নিশ্চয় আরেকটি প্রার্থনা করবে। সে বলবে: না, হে আমার রব। সে এর জন্য ওয়াদাও করবে।

 

আল্লাহ বার বার তার অপরাগতা গ্রহণ করবেন। কারণ, সে এমন জিনিস দেখবে যার উপর তার ধৈর্যধারণ সম্ভব হবে না। অতঃপর আল্লাহ তার কাছে নিয়ে যাবেন, সে তার ছায়ায় আশ্রয় নিবে, তার পানি পান করবে। অতঃপর আগের চেয়ে উত্তম আরেকটি বৃক্ষ তার জন্য উম্মুক্ত করা হবে।

 

তখন সে বলবে: হে আমার রব! এ বৃক্ষের কাছে নিয়ে যাও, এর ছায়াতলে আশ্রয় নিব, এর পানি পান করব। এ ছাড়া আর কিছু প্রার্থনা করব না। তখন আল্লাহ তাকে মনে করিয়ে দিবেন: হে বনি আদম, তুমি কি আমার সাথে ওয়াদা করনি যে, আর কিছু প্রার্থনা করবে না? এর কাছে যেতে দিলে তুমি আরো অন্য কিছু প্রার্থনা করবে। অতঃপর সে প্রার্থনা না করার ওয়াদা করবে। আল্লাহ তার অপরাগতা কবুল করবেন, কারণ সে এমন জিনিস দেখবে, যার ওপর তার ধৈর্যধারণ সম্ভব হবে না। অতঃপর তাকে সে গাছের নিকটবর্তী করা হবে। সে তার ছায়াতলে আশ্রয় নিবে, তার পানি পান করবে।

 

অতঃপর জান্নাতের দরজার নিকট আরেকটি বৃক্ষ উম্মুক্ত করা করা হবে, যা আগের দু’বৃক্ষ থেকেও উত্তম। সে বলবে : হে আল্লাহ! এ বৃক্ষের নিকটবর্তী কর, আমি তার ছায়াতলে আশ্রয় নিব, তার পানি পান করব, আর কিছু প্রার্থনা করব না। তিনি বলবেন : হে বনি আদম, তুমি আর কিছু প্রার্থনা না করার ওয়াদা করনি? সে বলবে, হ্যাঁ, তবে, এটাই শেষ, আর কিছু চাইব না।

 

আল্লাহ তার অপরাগতা কবুল করবেন। কারণ, সে এমন জিনিস দেখবে, যার ওপর ধৈর্যধারণ করা তার পক্ষে সম্ভব হবে না। আল্লাহ তার নিকটবর্তী করবেন। যখন তার নিকটবর্তী হবে, তখন সে জান্নাতবাসীদের আওয়াজ শুনতে পাবে। সে বলবে : হে আমার রব! আমাকে এতে প্রবেশ করাও। আল্লাহ বলবেন: হে বনি আদম, তোমার চাওয়া আর শেষ হবে না। তোমাকে দুনিয়া এবং এর সাথে দুনিয়ার সমতুল্য আরো প্রদান করব, এতে কি তুমি সন্তুষ্ট হবে? সে বলবে : হে আল্লাহ, তুমি দুজাহানের রব, তা সত্বেও তুমি আমার সাথে উপহাস করছ?

 

রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এ ঘটনা বলতে বলতে হেসে দিলেন। সাহাবারা তাকে বলল: হে আল্লাহর রাসূল! কেন হাসছেন? তিনি বললেন : আল্লাহর হাসি থেকে আমার হাসি চলে এসেছে। যখন সে বলবে : আপনি দু’জাহানের মালিক হওয়া সত্বেও আমার সাথে উপহাস করছেন?

 

তখন আল্লাহ বলবেন : আমি তোমার সাথে উপহাস করছি না; তবে কি, আমি যা-চাই তা-ই করতে পারি । আরো প্রার্থনা করার জন্য আল্লাহ তাকে বললেন : এটা চাও, ওটা চাও। যখন তার সব চাওয়া শেষ হয়ে যাবে। তখন আল্লাহ বলবেন : এ সব তোমাকে দেয়া হল এবং এর সাথে আরো দশগুন।

রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন : অতঃপর সে তার ঘরে প্রবেশ করবে এবং সাথে সাথে তার স্ত্রী হিসেবে দু’জন হুরও প্রবেশ করবে। তারা তাকে বলবে : সমস্ত প্রসংশা সে আল্লাহর, যিনি আপনাকে আমাদের জন্য জীবিত করেছেন এবং আমাদেরকে আপনার জন্য জীবিত করেছেন।

 

রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন : সে বলবে, আমাকে যা দেয়া হয়েছে, তার মত কাউকে দেয়া হয়নি। সূত্রঃ সহীহ মুসলিম ১৮৭

☛ রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, ‘আল্লাহ তাআলা ঐ ব্যক্তির চেহারা উজ্জ্বল করে দিন, যে আমার কোনো হাদীস শুনেছে। অতঃপর অন্যের কাছে পৌঁছে দিয়েছে।’[-সুনানে আবু দাউদ ২/৫১৫]

 

*জান্নাত*

হাফিজ উল্লাহ: একটি বেশটুন পোস্ট করেছে

৪/৫
কেউ একজন '' মা '' কে প্রশ্ন করল : ''যদি আপনার পায়ের নিচ থেকে জান্নাত সরিয়ে নেয়া হয় এবং এর বদলে আল্লাহ থেকে অন্য কিছু চাইতে বলা হয় তাহলে আপনি আপনার সন্তানের জন্য আর কি চাইবেন?
'' মা '' খুবই সুন্দর এক জবাব দিলেন : ''আমি আল্লাহর কাছে আমার সন্তানদের নসিব নিজ হাতে লিখার অধিকার চাইব.. কারন, আমার কাছে আমার সন্তানদের খুশি ও জান্নাত এর সমান! - সংগৃহিত
*মা* *জান্নাত* *নসিব*

মো:আ:মোতালিব: একটি বেশব্লগ লিখেছে

হযরত উবাদা ইবনে সামেত(রা) থেকে বর্ণিত,রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, তোমরা আমাকে ছয়টি আমলের প্রতিশ্রুতি দাও,আমি তোমাদের জান্নাতের প্রতিশ্রুতি দিচ্ছি-
>কথা ব্ললে সত্য বলবে
> ওয়াদা করলে পূর্ণ করবে।
> আমানতের মাল যথাযথভাবে পৌঁছে দিবে।
> লজ্জাস্থানের হিফাজত করবে।
> দৃষ্টি অবনত রাখবে।
> হারাম উপার্জন থেকে হাতকে বিরত রাখবে।

(মুসনাদে আহমাদ)( সংগ্রহ করা )

*আমল* *জান্নাত* *ইবাদত*

ভাবনা শারমীন: জান্নাত এর একটুকরো মাটির মুল্য সাতটা পৃথিবীর সমান , একবার ভেবে দেখুন বন্ধুরা , জান্নাত মায়ের পায়ের নিচে , সুতারং মায়ের মুল্য কত হবে .

*মা* *জান্নাত* *পৃথবী*

মেঘবালক: একটি হাদিস ।

*আখেরাত* *জান্নাত*

মুসলিম উদ্দিন আরজু: আল্লাহ তুমি মহান করেছ আমাদের জন্মগত মুসলমান মরনে বাঁচিও আমাদের ঈমান পরকালে ক্ষমা দিও, দিও জান্নাতে স্থান। আল্লাহ তুমি অশেষ মহান।

*আল্লাহ* *মহান* *মুসলমান* *ঈমান* *পরকাল* *ক্ষমা* *জান্নাত*

রাজকুমারী: বিয়ের পর নতুন দম্পতি নামাজ পড়ছেন বাসর ঘরে নামাজের পর নবপরিনিতা স্ত্রী তার স্বামীকে জিজ্ঞেস করল ''কি দোয়া করলে?'' উত্তরে স্বামী বললঃ ''দোয়া করেছি আজ যে হাত ধরে নতুন জীবনে প্রবেশ করেছি, সেই হাত ধরেই যেন জান্নাতে প্রবেশ করতে পারি"

*নামাজ* *স্ত্রী* *বিয়ে* *নতুন* *দোআ* *স্বামী* *জিজ্ঞেস* *প্রবেশ* *জান্নাত*

বেশতো সাইট টিতে কোনো কন্টেন্ট-এর জন্য বেশতো কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

কনটেন্ট -এর পুরো দায় যে ব্যক্তি কন্টেন্ট লিখেছে তার।

...বিস্তারিত

QA

★ ঘুরে আসুন প্রশ্নোত্তরের দুনিয়ায় ★