জিন্স

জিন্স নিয়ে কি ভাবছো?

দীপ্তি: একটি নতুন প্রশ্ন করেছে

 ডেনিম জিন্সের উৎপত্তি কিভাবে হয়েছিল?

উত্তর দাও (১ টি উত্তর আছে )

.
*ডেনিম* *জিন্স* *ডেনিমজিন্স* *ইতিহাস*

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

ফ্যাশনে ৯০ দশকের পর থেকে এক চেটিয়া রাজত্ব করছে জিন্স প্যান্ট। তবে বর্তমানে যুগের সাথে পাল্লা দিয়ে জিন্স প্যান্টের পাশাপাশি গ্যাবার্ডিন প্যান্টও ফ্যাশনে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। গরম কিংবা শীত সব সময়েই জিন্স ও গ্যাবার্ডিন প্যান্ট হিট। জিন্স  তো দিন দিন স্টাইলিশ হচ্ছেই পাশাপাশি গ্যাবার্ডিন প্যান্টের কাটেছাঁটেও তাই এসেছে নতুনত্ব।

গ্যাবার্ডিন প্যান্টঃ

তরুণদের পাশপাশি মধ্যবয়সী পুরুষেরাও সেমিফরমাল বা ক্যাজুয়াল লুকের জন্য বেছে নিচ্ছে গ্যাবার্ডিন প্যান্ট। সাধারণত টুইল ও জিন এই দুইটা কাপড়ে প্যান্ট তৈরি হচ্ছে বেশি। এতে করে গ্যাবার্ডিনের সাধারণ দর্শনের বাইরে কিছুটা নতুনত্ব এসেছে। এই প্যান্টগুলো জিন্সের মতো ভারী নয় বলেও অনেকে পছন্দ করেন।

ফ্যাশনে  উজ্জ্বল রঙের গ্যাবার্ডিন প্যান্টের চল দেখা যাচ্ছে। আগাগোড়া ঢোলা প্যান্টের বদলে এখন বেশি চলছে ন্যারো শেপ। প্যান্টের পকেট ও পাশে নানা ধরনের কাট ও নকশা চোখে পড়ছে। গ্যাবার্ডিন প্যান্ট ক্যাজুয়াল ও সেমিফরমাল দুই ধরনের লুকেই সহজে মানিয়ে যায় বলে এর চাহিদা বাড়ছে। সাধারণত অনেক অফিসে একটি দিন থাকে কিছুটা ঢিলেঢালা। সেই ‘ক্যাজুয়াল ডে’তে শার্টের সঙ্গে একটা গ্যাবার্ডিন প্যান্ট পরে যেতে পারেন। এ ছাড়া কলারওয়ালা টি-শার্টের সঙ্গে রঙের কনট্রাস্ট করেও পরতে পারেন প্যান্ট।

জিন্স প্যান্টঃ

আগেই বলেছি জিন্স প্যান্টের জনপ্রিয়তা কয়েক দশক ধরে বেশ তুঙ্গে। তরুণ-তরুণীদের কাছে জিন্স প্যান্ট প্রথম পছন্দের পোশাক, বাদ যায় না বৃদ্ধ এবং শিশুরা। অবশ্য বিভিন্ন পার্টিতে আজকাল জিন্সের আধিক্য চোখে পড়ার মতো। রুচি এবং চাহিদার প্রেক্ষিতে জিন্স প্যান্টের রয়েছে রকমভেদ। যেমন ব্যাগি জিন্স, ন্যারো শেপ, স্ট্রেট, স্টিচ ইত্যাদি। ফুটপাথ থেকে শুরু করে বড় বড় শপিং কমপ্লেক্সগুলোয় জিন্সের চমকপ্রদ সমাহার।

আগে জিন্স প্যান্ট মানেই ছিল নীল রঙ, কিন্তু বর্তমানে জিন্সের রয়েছে বহু রঙ এবং স্টাইল। বর্তমান সময়ে ব্লু জিন্স ছাড়াও চোখে পড়ে লাল, সবুজ, কালো, হলুদ, কমলা রঙের জিন্স, তারুণ্যের সঙ্গে মানিয়েও যাচ্ছে বেশ। দেশেই প্রস্তুত হচ্ছে উন্নতমানের জিন্স প্যান্ট। ফলে পর্যাপ্ততার কারণে দামও সাধ্যের মধ্যে।এখন শুধু নিজের সাধ্য এবং রুচি অনুযায়ী বেছে নিলেই হলো।

কোথায় থেকে কিনবেনঃ

রাজধানী ঢাকা সহ দেশের বিভিন্ন ফ্যাশন হাউসগুলো থেকেই আপনার পছন্দের জিন্স ও গ্যাবার্ডিন প্যান্ট কিনে নিতে পারবেন। তবে বর্তমানে প্যান্ট কেনার জন্য অনেকেই অনলাইন শপিংমলের উপর আস্থা রাখছে। আপনিও আপনার পছন্দের প্যান্ট অনলাইন শপিংমল থেকে কিনে নিতে পারেন। কমদামে সব ধরনের প্যান্টের লেটেস্ট কালেকশন পাবেন দেশের সবচেয়ে বড় অনলাইন শপিংমল আজকেরডিলে। ঘরে বসে আজকেরডিল থেকে পছন্দের জিন্স ও গ্যাবার্ডিন প্যান্ট কিনতে এখানে ক্লিক করুন।

*জিন্স* *গ্যাবার্ডিন* *স্পন্সরডকনটেন্ট* *আজকেরডিল* *স্মার্টশপিং*

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

জিন্স প্যান্টের জব্বর কালেকশনবেশ কয়েক দশক থেকেই জিন্স প্যান্টের জনপ্রিয়াতা তুঙ্গে। তবে আগের জিন্স প্যান্ট আর এখনকার জিন্স প্যান্টের ধরণে বেশ প্রার্থক্য রয়েছে। বিংশ শতকে এসে দেখা গেল বেশির ভাগ সেলিব্রেটির প্রথম পছন্দ জিন্স আর টি-শার্ট। ক্যাম্পাস কিংবা আড্ডায় জিন্স প্যান্টের বিকল্প নেই। তরুণ-তরুণীদের কাছে জিন্স প্যান্ট প্রথম পছন্দের পোশাক, বাদ যায় না বৃদ্ধ এবং শিশুরা। অবশ্য বিভিন্ন পার্টিতে আজকাল জিন্সের আধিক্য চোখে পড়ার মতো। রুচি এবং চাহিদার প্রেক্ষিতে জিন্স প্যান্টের রয়েছে রকমভেদ।

কিনতে ক্লিক করুনকিনতে ক্লিক করুনমানুষ নিজ জীবনের মাধুর্য ও সৌন্দর্য অটুট রাখতে প্রতিনিয়ত ব্যস্ত। ব্যস্ততার ধারায় ঋতু বৈচিত্র্যের পালাবদলে ক্রেতাদের ফ্যাশন ট্রেন্ডের পরিবর্তন ঘটে। এই ট্রেন্ডকে অনুসরণ করেই এগিয়ে চলে ফ্যাশন হাউসগুলো। কিন্তু কিছু পোশাক কখনো যেন পুরনো হয় না, বরং বেড়ে চলে চাহিদা। তেমনি একটি ফ্যাশন অনুষঙ্গ জিন্স প্যান্ট।

কিনতে ক্লিক করুনকিনতে ক্লিক করুনমোটা কটন কাপড়কে জার্মান ভাষায় বলা হয় জিনিয়া। যা বর্তমানে জিন্স হিসেবে পরিচিত। জিন্সের প্রথম ব্যবহার শুরু হয়েছে আমেরিকার ওয়েস্টার্ন কাউবয়দের থেকে। তারা দীর্ঘস্থায়ীত্বের জন্য এটা পরতো বলে ধারণা করা হয়। তবে ১৮৭২ সালের কিছু সময় পরে জার্মান কাপড় ব্যবসায়ী লেভি স্ট্রস নামের এক ব্যক্তি জিন্স প্যান্টের বাটন, হুক এবং ব্যাকপকেটের প্রথম ডিজাইন করেন। এরপর থেকেই শুরু হয় জনপ্রিয় জিন্স প্যান্টের ব্যবহার।

কিনতে ক্লিক করুনকিনতে ক্লিক করুনক্যাম্পাস কিংবা আড্ডায় জিন্স প্যান্টের বিকল্প নেই। তরুণ-তরুণীদের কাছে জিন্স প্যান্ট প্রথম পছন্দের পোশাক, বাদ যায় না বৃদ্ধ এবং শিশুরা। অবশ্য বিভিন্ন পার্টিতে আজকাল জিন্সের আধিক্য চোখে পড়ার মতো। রুচি এবং চাহিদার প্রেক্ষিতে জিন্স প্যান্টের রয়েছে রকমভেদ। যেমন ব্যাগি জিন্স, ন্যারো শেপ, স্ট্রেট, স্টিচ ইত্যাদি। ফুটপাথ থেকে শুরু করে বড় বড় শপিং কমপ্লেক্সগুলোয় জিন্সের চমকপ্রদ সমাহার।

কিনতে ক্লিক করুনকিনতে ক্লিক করুনআগে জিন্স প্যান্ট মানেই ছিল নীল রঙ, কিন্তু বর্তমানে জিন্সের রয়েছে বহু রঙ এবং স্টাইল। বর্তমান সময়ে বস্নু জিন্স ছাড়াও চোখে পড়ে লাল, সবুজ, কালো, হলুদ, কমলা রঙের জিন্স, তারুণ্যের সঙ্গে মানিয়েও যাচ্ছে বেশ। দেশেই প্রস্তুত হচ্ছে উন্নতমানের জিন্স প্যান্ট। ফলে পর্যাপ্ততার কারণে দামও সাধ্যের মধ্যে। জিন্সের প্যান্টগলো ৫০০ টাকা থেকে শুরু করে ১২০০০ টাকার মধ্যে পাওয়া যায় নগরীর বিপণি বিতানগুলোয়। স্মার্টেক্স, ব্যাঙ, ইজি, মেনজক্লাব, স্বপ্ন চূড়া প্রভৃতি ফ্যাশন হাউসসহ সব হাউসেই দেখা মিলে নিত্যনতুন ডিজাইনের জিন্স প্যান্ট। শুধু নিজের সাধ্য এবং রুচি অনুযায়ী বেছে নিলেই হলো।

কিনতে ক্লিক করুনরাজধানী ঢাকা সহ দেশের বিভিন্ন ফ্যাশন হাউসগুলো থেকেই আপনার পছন্দের জিন্সপ্যান্ট কিনে নিতে পারবেন। তবে বর্তমানে জিন্স কেনার জন্য অনেকেই অনলাইন শপিংমলের উপর আস্থা রাখছে। আপনিও আপনার পছন্দের প্যান্ট অনলাইন শপিংমল থেকে কিনে নিতে পারেন। কমদামে জিন্স প্যান্টের লেটেস্ট কালেকশন কিনতে এখানে ক্লিক করুন

*জিন্সফ্যাশন* *জিন্সপ্যান্ট* *শীতফ্যাশন* *জিন্স* *প্যান্ট* *স্মার্টশপিং*

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

এক সময় জিন্স মানেই ছিল অনেক মোটা কাপড় আর শীতের সময়ে  পরার জন্য আরামদায়ক এমন পোশাক। কিন্তু সময়ের  সঙ্গে বদলে গেছে জিন্স। যেহেতু তরুণ-তরুণীরা দিনের অনেকটা সময় বাইরে থাকে, তাই তাদের আরামের কথা ভেবেই এখন জিন্সের প্যান্ট তৈরি করা হয়। জিন্স প্যান্টের  রং ও সুতার ব্যবহারে এখন মাথায় রাখা হয় ঋতু। তাই শীত-গ্রীষ্ম সব সময়ই জিন্স পরা আরামদায়ক। আর তাই ফ্যাশনেবল কিছু জিন্সের প্যান্ট ও দরদাম নিয়ে আজকের এই পোস্ট। 

JACK & JONES ডেনিম প্যান্ট
 মাত্র ৬৭৫ টাকায় পাবেন  Jack & Jones ডেনিম জিন্স প্যান্ট।
ডেনিম ফেব্রিক্সের জিন্সটি ফ্যাশনপ্রিয় ছেলেদের কাছে বেশ জনপ্রিয়তা পেয়েছে।
প্যান্টটির রয়েছে বিভিন্ন সাইজ - ২৯, ৩০, ৩১, ৩২, ৩৩, ৩৪, ৩৫, ৩৬
বাসায় বসেই কিনতে চাইলে ক্লিক করুন http://www.ajkerdeal.com/Product/62822/jack-jones-pant 


জিন্স প্যান্ট Black 
একসময় জিন্স শুনলেই মনে হতো ধুসর ব্লু বা নীলাভ কোন রঙের কাপড়ের কথা। কিন্তু ফ্যাশনে বৈচিত্র আনতে এখন জিন্স পাওয়া যায় বিভিন্ন রঙের। তার মধ্যে ফেডেড ব্লাক কালারের স্টাইলিশ এই জিন্স প্যান্টটির মুল্য মাত্র ১,৩০০ টাকা। এখনই প্যান্টটি কিনতে চাইলে ক্লিক



মেনজ জিন্স প্যান্ট
দাম মাত্র ৯০০ টাকা
সফট ফেব্রিক কালারড জিন্স প্যান্ট  
সাইজঃ ৩০, ৩২, ৩৪ । 
একটু ভিন্ন ধরনের আকর্ষণীয় ডিজাইনের এই প্যান্টটি কিনতে ক্লিক করুন http://www.ajkerdeal.com/Product/144711/jeans-pant-pjp-2277

JACK & JONES জিন্স প্যান্ট (কপি)
অত্যন্ত গর্জিয়াস ডিজাইনের এই জিন্স প্যান্টটি পাচ্ছেন মাত্র ১,২০০ টাকায়। 
জিন্সপ্যান্টটি সম্পুর্ণ সফট ফেব্রিকের, পাওয়া যাচ্ছে বিভিন্ন সাইজঃ ৩০, ৩২, ৩৪, ৩৬, ৩৮ এটি সম্পুর্ণ এক্সপোর্ট কোয়ালিটির প্যান্ট। 
আরো দেখুন এই লিংকে
http://www.ajkerdeal.com/Product/140445/jack-jones-jeans-pant-copy#

CELIO জিন্স প্যান্ট 
১,৬৫০ টাকায় আজকের ডিল থেকে কিনতে পারেন এই স্টাইলিশ জিন্স প্যান্টটি।
এটি পার্টলি ফেডেড এবং ওয়াশড স্লিম ফিট ষ্ট্রেচড প্যান্ট। বিস্তারিত দেখুন এখানে
http://www.ajkerdeal.com/Product/116404/celio-denim-2
*জিন্স* *জিন্সপ্যান্ট* *প্যান্ট* *ছেলেদেরপ্যান্ট* *স্মার্টশপিং*

উদয়: একটি বেশব্লগ লিখেছে

জিন্সের প্যান্ট এখন এতই প্রচলিত যে, কাউকে কটনের প্যান্ট পরতে দেখলেই আমাদের আশ্চর্য লাগে 
grin emoticon
 । আগে একহারা নীল রঙের জিন্সের প্রচলন থাকলেও যুগে যুগে কাটা, ফাটা, ফেইড শেড আর বিভিন্ন রঙের জিন্সের ফ্যাশন আমরা দেখেছি। কিন্তু এই জিন্সের জন্মস্থল কোথায়? আর নামটাই বা কীভাবে এলো?

অনেকেই ভাবেন, জিন্সের জন্ম আমেরিকায়। কিন্তু কথাটা ভুল। 
... 
অষ্টাদশ শতাব্দীর শেষ দিকে আমেরিকায় জিন্সের তুমুল ব্যবহার শুরু হয়। তখন থেকে দেশটি জিন্সের প্রসার ঘটিয়েছে, একে জনপ্রিয় করেছে সত্যি, কিন্তু জিন্স ফেব্রিকটা প্রথম বোনা হয়েছিলো ফ্রান্সের নিম (Nîmes) শহরে। আর ডেনিম নামটাও এসেছে "de Nîmes" থেকে, যার অর্থ "নিম-এর জিনিস"! 
আর এই জিন্স (Jeans) নামটা এসেছে ইতালির জেনোয়া শহরের ফরাসী উচ্চারণ "Gênes" থেকে। এতো শহর থাকতে কেন এই শহরের নামেই ফেব্রিকটির নামকরণ হল? কারণ এই শহরেই বিশ্বের প্রথম ডেনিম ট্রাউজারটি তৈরি হয়েছিলো!

সেই থেকে ডেনিম/জিন্স মিলেমিশে একাকার।

*হালেরফ্যাশন* *জিন্স* *প্যান্ট* *কৌতুহল* *জ্ঞান* *আজব*
জোকস

পাগলী: একটি জোকস পোস্ট করেছে

এই হবে আমাদের ভাইয়াদের প্যান্টের অবস্থা! (শয়তানিহাসি)(খিকখিক)
*জোকস* *ভাইয়া* *প্যান্ট* *ফ্যাশন* *জিন্স*

বেশতো সাইট টিতে কোনো কন্টেন্ট-এর জন্য বেশতো কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

কনটেন্ট -এর পুরো দায় যে ব্যক্তি কন্টেন্ট লিখেছে তার।

...বিস্তারিত

QA

★ ঘুরে আসুন প্রশ্নোত্তরের দুনিয়ায় ★