জোকস

জোকস

মিস্টার বিন: একটি জোকস পোস্ট করেছে

শান্তি নিকেতনে রবীন্দ্রনাথের প্রিয় ছাত্রদের অন্যতম ছিলেন কথাশিল্পী প্রমথনাথ বিশী। একবার প্রমথনাথ বিশী কবিগুরুর সঙ্গে শান্তি নিকেতনের আশ্রমের একটি ইঁদারার পাশ দিয়ে যাচ্ছিলেন। ওখানে একটি গাবগাছ লাগানো ছিল। কবিগুরু হঠাৎ প্রমথনাথকে উদ্দেশ্য করে বলে উঠলেন- রবীন্দ্রনাথ : জানিস, একসময়ে এই গাছের চারাটিকে আমি খুব যত্নসহকারে লাগিয়েছিলাম? আমার ধারণা ছিল, এটা অশোকগাছ; কিন্তু যখন গাছটি বড় হলো দেখি, ওটা অশোক নয়, গাবগাছ। এরপর কবিগুরু প্রমথনাথের দিকে সরাসরি তাকিয়ে স্মিতহাস্যে বললেন- রবীন্দ্রনাথ : তোকেও অশোকগাছ বলে লাগিয়েছি, বোধকরি তুইও গাবগাছ হবি।
*জোকস*
জোকস

আলোহীন ল্যাম্পপোস্ট: একটি জোকস পোস্ট করেছে

খুব মশা কামড়াচ্ছে বলে রেগে গিয়ে কালিদাস বিষ খেয়ে নিলেন ..বললেন, নে এবার রক্ত খা ! খেলেই মরবি !!
*জোকস* *মশা*
জোকস

MD. Jaber Ahmed: একটি জোকস পোস্ট করেছে

সব প্রাপ্তবয়স্ক পুরুষই 'বউ' নিয়ে চোখের পানি ফেলছে। কেউ ঘরে এনে কাঁদছে, কেউ আনার জন্য কাঁদছে!(শয়তানিহাসি)
*জোকস*
জোকস

অনি: একটি জোকস পোস্ট করেছে

"বিয়ে বাড়িতে সবচেয়ে বেশী আফসোস করে বর নিজে, পুরো বাড়িতে সুন্দরী মেয়ে দেখে ভাবে, শালার এতদিন এগুলো কই ছিল?”
*জোকস* *বিয়েবাড়ি* *বর*
জোকস

আলোহীন ল্যাম্পপোস্ট: একটি জোকস পোস্ট করেছে

একদিন বউ স্বামীকে বলছে আমি মরে গেলে তুমি কি করবে? স্বামী বললো, পাগল হয়ে যাবো! তখন বউ বললো, অন্য নারীকে বিয়ে করবে না তো? তখন হাজবেন্ড বললো, পাগলে কি না করে! .
*জোকস* *বউ* *পাগল*

আলোহীন ল্যাম্পপোস্ট: একটি বেশব্লগ লিখেছে

এক তরুণ ইঞ্জিনিয়ার ট্রেনের এসি কামরায় ভ্রমন করছিলেন ৷ ভদ্রলোকের পাশের সিট খালি। আশে পাশেও কেউ নেই। ট্রেন মোটাুটি খালিই বলা চলে।
.
একটু পরে, একজন সুন্দরী মেয়ে উঠে ভদ্রলোকের পাশের সিটটাতে বসলেন ৷ ইঞ্জিনিয়ার বেশ খুশি হলেন এই ভেবে যে, যাক জার্নিটা বোধহয় বোরিং হবে না!
.
ভদ্রমহিলা ইঞ্জিনিয়ার এর  দিকে তাকিয়ে মুচকি মুচকি হাসছিলেন । এতে ব্যাংকার ভদ্রলোকের মনের ভেতর খুশির জোয়ার বইতে শুরু করলো। মেয়েটি ইঞ্জিনিয়ার তরুনের আরও ঘনিষ্ট হয়ে বসলেন । তরুন আনন্দে আত্মহারা হয়ে কি করবেন আর কি না করবেন বুঝে ওঠার আগেই মেয়েটি ওই তরুনের কানের কাছে গিয়ে ফিসফিস করে বললেন 'সঙ্গে যা আছে ঘড়ি, টাকা, পার্স সব বের করুন, নয়তো চিৎকার করে পুলিশ ডেকে বলব যে, আমাকে একলা পেয়ে, আপনি আমার সঙ্গে খারাপ ব্যাবহার করার চেষ্টা করছিলেন।'

*ভালোবাসা* *ইঞ্জিনিয়ার* *টাকা* *মেয়ে* *জোকস* *রসিকতা*
জোকস

আলোহীন ল্যাম্পপোস্ট: একটি জোকস পোস্ট করেছে

ছেলে: বাবা, ইডিয়ট কাকে বলে? বাবা: ইডিয়ট হলো সেই সব বোকা ব্যক্তি যারা নিজেদের বক্তব্য এত বেশি প্রলম্বিত করে যে কেউ তার কথা বুঝতে পারে না। বুঝতে পেরেছ? ছেলে: না।
*রসিকতা* *জোকস* *বাবা* *ছেলে* *ইডিয়ট*
জোকস

আলোহীন ল্যাম্পপোস্ট: একটি জোকস পোস্ট করেছে

বল্টুঃ আন্টি মা এক কাপ চিনি দিতে বলছে!! আন্টিঃ চিনি দিয়ে, হেসে বলল, আচ্ছা আর কিছু বলছে?? বাচ্চাঃ বলছে, হারামজাদি যদি না দেয় তাইলে সুমি আন্টির কাছ থাইকা নিয়া আসিস!!
*রসিকতা* *জোকস* *আন্টি* *মা* *কথা*
জোকস

আলোহীন ল্যাম্পপোস্ট: একটি জোকস পোস্ট করেছে

বিবাহিত ভাইদের প্রতি… যদি মাঝ রাতে আপনার মন চায় আর আপনার বউয়ের মুড না থাকে তবে বউ কে বিরক্ত না............................................. করে নিজেই উঠে আপনার হাত দিয়ে চা বানিয়ে নিন।
*বৌ* *চা* *রসিকতা* *জোকস*
জোকস

আলোহীন ল্যাম্পপোস্ট: একটি জোকস পোস্ট করেছে

একসাথে দশ জনের ভাইভা নিচ্ছে স্যার! এক ছেলে স্যারের কানে ফিসফিস করে কি যেনো বলছে! ভাইভার রেজাল্ট দিলো কানেকানে যে ছেলে কথা বলছিলো সে ব্যতীত সবাই ফেইল! সবার মনে সন্দেহ আর কৌতূহল! কি কথা বলেছে তারা! অবশেষে ছেলেটি বললো সে বলছে, স্যার আপনার প্যান্টের চেইন খোলা! ওরা ৯ জন এটা নিয়ে হাসাহাসি করছে!
*জোকস* *ভাইবা* *স্যার* *রসিকতা* *প্যান্ট* *চেইন*
জোকস

আলোহীন ল্যাম্পপোস্ট: একটি জোকস পোস্ট করেছে

বিদেশে পড়াশোনা করতে গিয়ে এক মেয়ে সেখানে এর ছেলেকে বিয়ে করে বসে। ছেলেটির আবার একটি পা ছিল না। মেয়েটি মাকে চিঠিতে জানালো- মা তুমি শুনে হয়তো দুঃখ পাবে তবুও বলছি- মাই হাসব্যান্ড হ্যাজ অনলি ওয়ান ফুট! উত্তরে মা লিখেছে- দুঃখ করিস না মা, তোর আব্বারটা মোটে পাঁচ ইঞ্ছি!!!
*জোকস* *মা* *বিদেশ* *হাজব্যান্ড* *ইঞ্চি*
জোকস

আলোহীন ল্যাম্পপোস্ট: একটি জোকস পোস্ট করেছে

“এক মোরগ আর একটা হাসকে অপরাধ করার জন্য জেল খানায় ঢুকানো হয়েছে। মন তাদের খারাপ খুব। হাসটি মোরগকে জিজ্ঞেস করলো – আচ্ছা ভাই, এরা কি আমাদের পাঁলক ছেটে দেবে? মোরগ বললো, আমি তো ঠিক বলতে পারবো না; তুমি বরং ঐ কোনায় বসে থাকা ইঁদুরটাকে জিজ্ঞেস করো। হাস তখন ইদুঁরকে জিজ্ঞেস করলো, আচ্ছা ইঁদুর ভাই, এরা কি আমাদের পালক ছেটে দেবে? ইঁদুর টা গম্ভীর হয়ে বললো – আমি ইঁদুর নই, আমি শজারু”।
*রসিকতা* *মোরগ* *জোকস* *ইঁদুর*

আলোহীন ল্যাম্পপোস্ট: একটি বেশব্লগ লিখেছে

আমার এক অফিসের অ্যামেরিকা ফেরত নোয়াখালির এক ডাইরেক্টর ছিলেন। স্যারের কথাবার্তা শুনলে উপায় নেই তিনি ক্যালিফোর্নিয়ার, দোষের মধ্যে দোষ বলতে “প” উচ্চারন করতে গিয়ে উনি “ফ” উচ্চারন করতেন।
পাখি উনার কাছে হতো ফাখি; প্রশ্ন হতো ফ্রশ্ন; পরশুকে বলতেন ফরশু।
এতোটুকু পর্যন্ত ঠিক ছিলো। সমস্যা হলো যেদিন অফিসের এক ছেলে দেরী করে অফিসে ঢুকলো।
“এই ফাজিল ছেলে, তুমি ফ্রতিদিন দেরী করে অফিসে আসো কেনো?”
“স্যার, আমি মেসে থাকি, নিজের রান্না নিজেই পাক করে খাই”।
“নিজেই রান্না নিজেই ফাক করো? ফ্রতিদিন ফাক করতে হয়? প্রতিদিন ফাক করলে কাজ কখন করবা?”
ছেলে চুপ, অফিসের মেয়ে কলিগরা লজ্জায় মাথা নিচু করে আছে, ছেলেরা চোখ মুখ কুচকে হাসি বন্ধ করার চেষ্টা করছে।
“বলো, জবাব দাও, ফ্রতিদিন ফাক করলে অফিসের কাজ করবা কখন?”
“এইতো স্যার”।
“এইতো স্যার মানে? আমার ফ্রশ্ন ক্লিয়ার; আমি আশা করি উত্তর ও ক্লিয়ার করে দিবা, আজকে কি ফাক করছো বলো?”
ছেলে কোনো মতে উত্তর দিলো “স্যার মুরগী রান্না করছি, মাছ ও রান্না করতে হইছে রাতের জন্য”।
“সকাল সকাল মুরগী ফাক করছো? মাছ ও ফাক করছো? কাজকর্মের চেয়ে ফাক করা ইম্পরটেন্ট তোমার কাছে। আর একদিন দেরী করলে অফিসে ঢূকতে দিবো না বলে দিলাম”।

*জোকস* *রসিকতা* *অফিস* *নোয়াখালি*

আলোহীন ল্যাম্পপোস্ট: একটি বেশব্লগ লিখেছে

কোর্ট এ একটা কেস চলতেছে। সাক্ষী এর কাঠগড়ায় দাড়িয়ে আছেন এক দাদীমা। তার বয়স অনেক, সাদা চুল, মুখে ফলসে দাঁত, হাই পাওয়ার চশমা। যাই হোক, বাদী পক্ষের উকিল এগিয়ে এলেন দাদিমার দিকে।

উকিলঃ আচ্ছা দাদীমা, আপনি আমারে চেনেন?

দাদীমাঃ চিনি না মানে? বিলক্ষণ চিনি। তোমারে তো আমি লেংটা হইয়া ঘুরে বেরাইতে দেখছি। কিন্তু মোতালেব, তুমি তো জীবনে কিছু করবার পারলা না। তুমি মিছা কথা কও। তোমার সুন্দরী বউ থাকতে অন্য মাইয়ার পিছনে ঘুর ঘুর কর। লোকেরে উল্টা বুঝাও, সবাইরে ঠকাও, আর পিছনে লোকের বদনাম কর । তুমি মনে কর তুমি নিজেরে মনে কর রাঘব বোয়াল ! আসলে তুমি একটা পুঁটি মাছও না ! আমি তোমারে অবশ্যই চিনি

উকিল এই শুইন্যা পুরা ঘাবড়ায় গেলেন। গোটা কোর্টের লোকজনও একদম হা হইয়া গেছে। কী করবে বুঝতে না পাইরা এইবার উকিল আসামি পক্ষের উকিলরে দেখায় বললেন,

উকিলঃ দাদীমা, আপনি কী ওরে চেনেন?

দাদীমাঃ আরে, আসলাম না? ওরে কেন চিনুম না। আমার যখন বিয়া হয় তখন ওই বেটা দুধের শিশু। ছোটবেলায় তো বেশ ভালই আছিল। বড় হইয়া হইল একটা অলস, অকর্মার ধারী। আবার শুনি রোজ রোজ মদ খাওয়া শুরু করছে। কারও সাথে ঠিকঠাক কথা কইবার পারে না। এই জেলার সবথিকা বাজে উকিল হইল ওই আসলাম।
ওঃ বলতে ভুইলা গেছিলাম, এ আবার তিনটা পরকীয়া প্রেম করছে। তার একটা তোমার বউ এর লগে।

এই কথা শুইন্যা আসলাম উকিল কোর্টের মধ্যে অজ্ঞান হয়া গেলেন। এইবার বিচারক বললেন,

বিচারকঃ “মোতালেব মিয়াঁ, আপনি সীট এ যায়া বসেন। আর যদি মুর্খের মত প্রশ্ন করছেন যে উনি আমারে চেনে কিনা, আপনারে আমি ফাঁসিতে ঝোলামু।

*রসিকতা* *জোকস* *উকিল* *মহিলা*

আলোহীন ল্যাম্পপোস্ট: একটি বেশব্লগ লিখেছে

রতন মাতব্বরের শালা আমেরিকা থেকে খুব সুন্দর, রঙ্গীন এবং দামি পাঁচটি আন্ডারওয়্যার পাঠায়ছে। মাতব্বর সাহেব প্রত্যেকদিন একটা করে আন্ডারওয়্যার পড়ে
লুঙ্গিটা এমনভাবে উঠায় যাতে সবাই আন্ডারওয়্যার দেখতে পায়, তখনই প্রশ্ন করে গ্রামবাসিরা "মাতব্বর সাহেব এত সুন্দর আন্ডারওয়্যার কোথায় পেলেন?"
:
মাতব্বরের উত্তর:
"শালা পাঠাইছে আমেরিকা থেকে,আমার শালা ওই দেশের নাগরিক"
:
একদিন গার্লস স্কুলের স্পোর্টসে মাতব্বর সাহেব স্টেজে চিফ গেস্ট ভাষণ
দিতে গিয়ে বলে ফেললো
"এই রকম দামি ওয়ান্ডারয়্যার বাড়ীতে আরও চাইরটা আছে,
খুব সুন্দর, তাই না"?
:
মাতব্বর সাহেব বাসায় গিয়ে দেখে তার আলমারীতে পাঁচটাই আন্ডারওয়্যার রয়েছে।

*রসিকতা* *আন্ডারওয়্যার* *জোকস*
জোকস

আলোহীন ল্যাম্পপোস্ট: একটি জোকস পোস্ট করেছে

স্যার লোকে বলে আপনি নাকি খুবই নিচু জাতের? কোন কুকুরের বাচ্চা, হারামির বাচ্চা, শুয়রের বাচ্চা, ফার্মের মুরগীর বাচ্চা, হাঁসের বাচ্চা, গরুর বাচ্চা, ছাগলের বাচ্চা, নাপিতের বাচ্চা, মেথরের বাচ্চা এই কথা কইছে? স্যার তারা এও বলেছেন যে, “ব্যবহারই বংশের পরিচয়।” খাড়া আইজকা তোরে খাইছি?
*ব্যাবহার* *বংশ* *পরিচয়* *জোকস* *রসিকতা*

শিমুল অর্জুনা: #LetMeKnowTheWorld চলেন একটু হ্যাসোরস করি

*mostimportantnews* *আড্ডা* *জোকস*
জোকস

আলোহীন ল্যাম্পপোস্ট: একটি জোকস পোস্ট করেছে

ছোট্ট এক বাচ্চা স্কুলে যাচ্ছে। পথিমধ্যে এক পরিচিত বয়স্ক লোকের সঙ্গে তার দেখা।তিনি রসিকতা করে ছেলেটিকে উদ্দেশ করে বললেন, বাবু তোমার পোস্ট অফিস তো খোলা। ছেলেটিও কম যায় না। ঝটপট উত্তর দিল, সেকি আঙ্কেল! আপনি তো দেখি ব্যাক ডেটেড। এই ইন্টারনেটের যুগেও আপনি পোস্ট অফিসের দিকে তাকিয়ে আছেন়।
*রসিকতা* *বাচ্চা* *ডিজিটাল* *জোকস*

বেশতো সাইট টিতে কোনো কন্টেন্ট-এর জন্য বেশতো কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

কনটেন্ট -এর পুরো দায় যে ব্যক্তি কন্টেন্ট লিখেছে তার।

...বিস্তারিত

QA

★ ঘুরে আসুন প্রশ্নোত্তরের দুনিয়ায় ★