প্রযুক্তি পন্য

প্রযুক্তিপন্য নিয়ে কি ভাবছো?

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

প্রযুক্তির কল্যাণে এখন আর তারের ঝামেলা কেউ করতে চায় না। তাই তার বিহীন প্রযুক্তি পন্যগুলির জনপ্রিয়তা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। বিশেষ করে মাউস, কি বোর্ড, স্পিকারের ব্যবহার বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। আজকের আয়োজন সেরা কিছু ব্লুটুথ স্পিকার নিয়ে। ব্লুটুথ স্পিকারগুলো আপনার মোবাইল ফোন বা অন্য কোনো ডিভাইস থেকে তারহীন প্রযুক্তিতে গান বাজাতে পারে।

HP ROAR BT ব্লুটুথ স্পিকার:

কিনতে ক্লিক করুন
প্রযুক্তি পন্য নির্মাতা প্রতিষ্ঠান এইচপির ROAR BT ব্লুটুথ স্পিকারটি বর্তমানে বেশ জনপ্রিয়তা পেয়েছে। এ স্পিকারটি দেখতে অত্যন্ত চমৎকার। একটি অ্যাপের সাহায্যে এ স্পিকারটির ফিচারগুলো স্মার্টফোনের মাধ্যমেই নিয়ন্ত্রণ করা যায়। প্রিমিয়াম কোয়ালিটির সাউন্ড সিস্টেমের এই স্পিকারটি ৮ ঘন্টা ব্যাক আপ দেবে।

BOSE SOUNDLINK মিনি ব্লুটুথ স্পিকার:

কিনতে ক্লিক করুন
নিখুঁত সাউন্ড সিস্টেমের জন্য বোসের কোনো তুলনা হয় না। বোস নির্মিত এ ব্লুটুথ স্পিকার তাই ব্যবহারকারীদের কাছে অত্যন্ত জনপ্রিয়। গান শোনার জন্য যদি বাইরে যেতে চান তাহলে বোস নির্মিত এ ব্লুটুথ স্পিকারটি সঙ্গে নিতে পারেন। এটি স্পিকারের মানের দিক দিয়ে অত্যন্ত উন্নত। পাশাপাশি এর ব্যবহারও সুবিধাজনক।

সনি এসআরএস এক্স২:

কিনতে ক্লিক করুন
জাপানি প্রযুক্তিপণ্য নির্মাতা সনি ভালো সাউন্ড সিস্টেম নির্মাতা হিসেবে পরিচিত। তাদের এ ছোট স্পিকারটিতে রয়েছে হাতের তালুতে রেখেই উন্নত মানের গান শোনার ব্যবস্থা। ১০ ওয়াট অডিও ক্ষমতার এ স্পিকারটির ব্যবহারও সুবিধাজনক। এই স্পিকারটির চার্জ ব্যাকআপ খুব ভাল। এটির সাথে থাকবে চার্জিং ক্যাবল ও সাউন্ড ক্যাবল।

টিপি-লিং এইচএ১০০ ব্লু-টুথ স্পিকার:

কিনতে ক্লিক করুন
স্পিকারটি দেখতে যেমন সুন্দর তেমন কাজেও ভালো। এটি শুধু স্পিকার হিসেবে নয়, ফ্যাশন সামগ্রী হিসেবেও ব্যবহার করা যাবে। মূলত আকর্ষণীয় ডিজাইনের জন্যই এটি মেয়েদের হ্যান্ডব্যাগের সঙ্গে মানিয়ে যায়। ব্লুটুথ অথবা ৩.৫ মি মি জ্যাকের মাধ্যমে এই ব্লুটুথ স্পিকারটি কানেক্ট করা যাবে। প্রিমিয়াম কোয়ালিটির সাউন্ড সিস্টেমের এই স্পিকারটি ৬ ঘন্টার অধিক সময় ব্যাক আপ দেবে।

BEATS MONSTER ব্লুটুথ স্পিকার:

কিনতে ক্লিক করুন
আপনার যদি বাজেটে সীমাবদ্ধতা থাকে কিন্তু মানসম্মত জিনিস চান তাহলে এটি কিনতে পারেন। সাধারণ ডিজাইনের এ স্পিকারটিতে মানসম্মত সাউন্ড পাওয়া যায়। ১০ মিটার রেঞ্জের এই স্পিকারটি একটি কক্ষের ভেতর বাজানোর জন্য যথেষ্ট। এতে সহজে ব্যবহারযোগ্য প্লাস ও মাইনাস বাটন রয়েছে। এগুলোর মাধ্যমে ভলিউম নিয়ন্ত্রণ করা যায়। এটির শব্দের মানও উন্নতমানের।
অনলাইনে স্পিকারগুলো কিনতে এখানে ক্লিক করুন

*স্পিকার* *প্রযুক্তিপন্য* *স্মার্টশপিং*

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

কিনতে ক্লিক করুনপ্রযুক্তি এখন আমাদের হাতের মুঠোয়। তাই কষ্ট করে পকেটের স্মার্টফোনটি এখন আর বারবার বের করার প্রয়োজন হয় না। হাতের স্মার্ট ওয়াচটিই স্মার্ট ফোনের সব কাজ করে দেয়। যদিও এটি একটি ঘড়ি তারপরেও এর এক্সট্রা সুবিধা হলে এটার মধ্যে পুরা একটা অপারেটিং সিস্টেম লোড করা আছে। স্মার্ট ওয়াচটি আপনার স্মার্ট মোবাইলের এক্সট্রা গিয়ার হিসেবে কাজ করবে এবং চাইলে এতে সিম ভরে মোবাইল হিসেবেও ব্যবহার করতে পারবেন। বন্ধুরা আজকের আলোচনা স্মার্ট ওয়াচ নিয়ে।


কেন কিনবেন স্মার্ট ওয়াচ

কিনতে ক্লিক করুন

ধুরুন আপনি অফিসে কোন গুরুত্বপূর্ণ মিটিং এ ব্যস্ত, এমন সময় আপনার বাসা থেকে কোন জরুরী বার্তা (Message) এল। মিটিং চলাকালীন তো আর মুঠোফোন বের করে মেসেজের রিপ্লাই দেয়া যায় না। আবার মেসেজের রিপ্লাই দেয়াটাও হয়তো খুব জরুরী হতে পারে। অগত্যা আপনার কিছু করার নেই। আবার ধরুন, নিজেই গাড়ি চালাচ্ছেন এমন সময় বেজে উঠলো ফোন। ব্যস্ত রাস্তায় গাড়ি চালাতে চালাতে তো আর পকেট থেকে মোবাইল বের করে কল রিসিভ করা যায় না। কিনতে ক্লিক করুনহয়তো বেশ ভীড়ের মাঝে আছেন, এমন সময় যদি বেরসিক ফোনখানা বেজে ওঠে তবে ভীড়ের মাঝে পকেট বা ভ্যানিটি ব্যাগ থেকে মোবাইল বের করে কল রিসিভ করাটা রীতিমতো দুঃসাধ্য ব্যপার। এমন সব মুহূর্তে বেশ অস্বস্তিকর অবস্থার মধ্যে পড়তে হয়। আপনি না পারেন মোবাইলের বিড়ম্বনা এড়াতে, না পারেন চলমান কাজে মনোযোগ দিতে। আধুনিক যুগে প্রায় প্রত্যেকেরই স্মার্ট ফোন রয়েছে। কল রিসিভ অথবা মেসেজ চেক করার জন্য প্রত্যেককেই পকেট কিংবা পার্স থেকে ফোন বের করতে হয়। কিন্তু এমন বিড়ম্বনায় পড়লে, প্রায়ই গুরুত্বপূর্ণ কল রিসিভ বা ম্যাসেজের রিপ্লাই দেয়া প্রায়ই সম্ভব হয় না। এসব ক্ষেত্রে সমাধান হতে পারে আপনার হাতের স্মার্টওয়াচটি। একটি স্মার্ট ওয়াচ আপনি আপনার হাতে পড়ে এমন সব বিড়ম্বনা খুব সহজেই এড়াতে পারেন।


যা কিছু করতে পারবেন স্মার্ট ওয়াচ দিয়ে

কিনতে ক্লিক করুন

আপনার ফোন পকেটে আছে হেডফোন কানে লাগিয়ে গান শুনছেন, গান চেঞ্জ করবেন ঘড়ির মিউজিক অ্যাপটা ওপেন করেন তারপর গান চেঞ্জ করেন, ভলিউম বাড়ান কমান, প্লে পজ করেন। নতুন ম্যাসেজ আসছে কিন্তু মোবাইল পকেট থেকে বের করতে ইচ্ছা করছে না সমস্যা নেই ম্যাসেজিং অ্যাপ দিয়ে ঘড়িতেই পড়ে ফেলতে পারবেন ম্যাসেজটি। এমনকি প্রিডিফাইন্ড রিপ্লাই বা কল ব্যাক ও করতে পারবেন যাস্ট টাচ করেই। যার অর্থ এইটা একটা ঘড়ি হলেও আপনার মোবাইলের রিমোট কন্ট্রোল হিসাবে কাজ করবে। আর চাইলে আপনি অনেক স্মার্ট ওয়াচে সিমও লাগিয়ে নিতে পারবেন। অ্যালার্ম দিয়ে রাখতে পারবেন, ক্যালেন্ডার ও ক্যালকুলেটর সুবিধা পাবেন। ছবি উঠাতে পারবেন, ভিডিও রেকর্ড করতে পারবেন। অডিও রেকর্ড করতে পারবেন। ইমেজ ভিউ ও ভিডিও প্লেয়ার হিসেবে ব্যবহার করতে পারবেন।


কোথা থেকে কিনবেন

কিনতে ক্লিক করুন

বর্তমান বাজারে দেশের বিভিন্ন ইলেকট্রিক এক্সেসরিজ, কম্পিউটারশপ গুলোতেই স্মার্ট ওয়াচ কিনতে পারবেন। তবে বিশ্বস্থতার সাথে ঘরে বসে ভাল মানের স্মার্টওয়াচ কিনতে চাইলে ভরসা রাখতে পারেন দেশের সবচেয়ে বড় অনলাইন শপিংমল আজকের ডিল এর উপর। আজকের ডিলে বিভিন্ন ব্র্যান্ডের অনেকগুলো স্মার্টওয়াচের কালেকশন রয়েছে। দেশের যেকোন প্রান্ত থেকে অনলাইনে অর্ডার করে আপনি আপনার পছন্দমত স্মার্টওয়াচ কিনে নিতে পারবেন। আজকের ডিল কর্তৃপক্ষ আপনার অর্ডারকৃত পণ্যটি দ্রুত আপনার ঠিকানা বরাবার পৌঁছে দেবে। আজকের ডিল থেকে স্মার্ট ওয়াচ কিনতে এখানে ক্লিক করুন। 

 

U8 স্মার্ট ব্লুটুথ গিয়ার ওয়াচ (NO SIM)

W90 স্মার্ট ওয়াচ (সিম সাপোর্টেড)

A1 স্মার্ট ওয়াচ - সিম সাপোর্টেড

W90 গিয়ার ওয়াচ-সিম সাপোর্টেড

KING WEAR GT08S স্মার্টওয়াচ ফোন (সিম সাপোর্টেড)

M26 স্মার্ট ব্লুটুথ ওয়াচ (NO SIM)

X3 স্মার্ট ওয়াচ (সিম সাপোর্ট)

G9 স্মার্ট মোবাইল ওয়াচ - সিম সাপোর্টেড

 

 

*স্মার্টওয়াচ* *প্রযুক্তিপন্য* *স্মার্টশপিং*

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

কিনতে ক্লিক করুনব্যবসায়িক অথবা ব্যক্তিগত প্রয়োজনে প্রতিদিন আমরা হাজার হাজার টাকা লেনদেন করি। স্বাভাবিক এই লেনদেনের মধ্যে অনেক সময় বড় ধরনের ভুল হয়ে যায়। অনেকেই আবার আপনার সরলতার সুযোগে হাতে জালটাকা ধরিয়ে দেয়। বড় লেনদেন হলে টাকা গুনতে গুনতে অনেকটা সময় কেটে যায়। কিন্তু এখন আর এসব সমস্যার সম্মুখীন হতে হবে না। এখন কেউ আপনাকে জাল টাকা ধরিয়ে দিয়ে ঠকাতে পারবেনা। টাকাও গুণনাও হয়ে যাবে মহূর্তে। তবে এই সুবিধা পেতে আপনার বাড়িতে অবশ্যই নিচের প্রোডাক্ট গুলো থাকা চাই।
 
 
মানি কাউন্টিং মেশিন
টাকা গুণে সময় ক্ষেপনের দিন শেষ। অনেকদিন আগে থেকেই বাজারে এসেছে টাকা গণনার মেশিন। এই মেশিন ব্যবহার করে খুব সহজে এবং দ্রুত সময়ে টাকা কাউন্টিং করতে পারবেন। এ ধরনের মেশিন মিনিটে ১০০০ থেকে ১২০০ পিস টাক গুনে দিতে পারবে। এটি অপারেট করাও খুব সহজ। শুধু মেশিনকে বলে দিতে হবে কত টাকার নোট তাহলেই মেশিন তা হিসাব করে দেবে। বাজারে এগুলো প্রডাক্টের দাম ১০ হাজার টাকা থেকে শুরু।
 
 
মানি চেকার পেন
আর নয় জাল টাকার প্রতারণা। আপনাকে এখন আর কেউ ঠকাতে পারবে না। দৈনন্দন প্রয়োজন কলমের সাথে এবার নকল টাকা সনাক্ত করার যন্ত্র। সবসময় সাথে রাখুন এবং প্রতারণার হাত থেকে রক্ষা পান। আলট্রা-ভায়োলেট লেজার টর্চ দিয়ে জাল টাকা সনাক্ত করুন। জাল টাকা সনাক্তের জন্য লাইট ব্যবহার করুন অথবা কলমের দাগ দিন। এগুলোর দাম ৮০ টাকা থেকে শুরু করে ৫০০ টাকা পর্যন্ত।
 
মানি চেকার মেশিন
বাজারে পাওয়া যাচ্ছে মানি চেকার মেশিন। এই মেশিন দিয়ে টাকা ছাড়াও চেক, টিকেট, ক্রেডিট কার্ড, স্ট্যাম্প সনাক্ত করতে পারবেন। মানিচেকার মেশিন গুলোর সাথে টর্চ ফাংশন রয়েছে। এধরনের মেশিনের দাম ৪০০ টাকা থেকে ৬০০ টাকা।
 
কোথায় থেকে কিনবেন?
একটু খোঁজ নিলে সবগুলো মার্কেটেই এই প্রযুক্তি পন্য গুলো পেয়ে যাবেন। যারা ঘরে বসেই এই পন্যটি হাতে পেতে চান তারা ঘুরে আসতে পারেন দেশের সবচেয়ে বড় অনলাইন শপিংমল আজকেরডিল ডটকম এর ওয়েবসাইট থেকে। 
 
প্রোডাক্ট গুলো কিনতে এখানে ক্লিক করুন
*মানিচেকার* *জালটাকা* *প্রযুক্তিপন্য* *স্মার্টশপিং*

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

বর্তমান প্রযুক্তি পন্যের বাজারে ট্যাবের জনপ্রিয়তা দিন দিন বাড়ছে। গেমিং এবং সহজে ইন্টারনেট ব্রাউজ করার সুবিধাই ট্যাবের জনপ্রিয়তার মূল কারণ। তাছাড়ও বহন সুবিধার পাশাপাশি নতুন এ মোবাইল ডিভাইসে প্রায় সব কাজ করা যায় বলে প্রযুক্তিপ্রেমীদের আকর্ষণ বাড়ছে। এ কারণে টেক জায়ান্ট প্রতিষ্ঠানগুলো ছাড়াও স্মার্টফোন প্রস্তুতকারক ও ছোটবড় প্রায় সব কোম্পানিই ট্যাব বানাচ্ছে। নিত্য নতুন ট্যাব আসছে বাজারে। আজকের আয়োজন সাশ্রয়ী দামের জনপ্রিয় কিছু ট্যাব নিয়ে। 

স্যামসাং ট্যাব ১০.৫
বড় স্ক্রিনের এ ট্যাবের নাম এস ১০.৫। ডিসপ্লের দিকটিই এটির সবচেয়ে আকর্ষণীয় দিক। স্লিমনেস এবং ওজনের দিক দিক থেকে এটি আইপ্যাড এয়ারকেও হারিয়ে দিয়েছে। পুরুত্ব মাত্র ৬.৬ মিলিমিটার ও ওজন ৪৬৫ গ্রাম, যা আইপ্যাড এয়ারের চেয়ে কম। তাই প্রথম দেখাতে একে চমৎকার প্রিমিয়াম ডিজাইনের ডিভাইস মনে হবে। এর ডিসপ্লের চারপাশের বেজেল খুবই সরু, তাই অসাবধানে মাঝে মাঝে না চাইতে ডিসপ্লে স্পর্শ হতে পারে। স্ক্রিনের আকার ১০.৫ ইঞ্চি, রেজুল্যুশন ২৫৬০*১৬০০ পিক্সেল। পিক্সেল ডেনসিটি ২৮৮ পিপিআই। টেক্সট, ইমেজসহ ভিডিও ঝকঝকে পরিস্কার আসবে ডিসপ্লেতে। দাম ৭,৯৯৯ টাকা মাত্র।

ওয়াইফাই কিডস ট্যাব
শিশুদের কথা চিন্তা করে বর্তমান বাজারে নানান প্রযু্ক্তি পন্য তৈরী করা হয়েছে। যেগুলোর মধ্যে ট্যাব অন্যতম। গেমিং এর জন্য ট্যাব খুব কার্যকরী। পণ্যটিতে ৮ জিবি ষ্টোরেজ মেমোরি সহ বাড়তি মেমোররি জন্য পাওয়া যাবে মাইক্রো এসডি কার্ড স্লট। এছাড়া ফটোগ্রাফির জন্য ফ্রন্ট ও রেয়ার ক্যামেরা এবং ইন্টারনেট সংযোগে আছে ওয়াইফাই। এক বছরের বিক্রয়োত্তর সেবাসহ কিডস ট্যাবলেটটির দাম পড়বে ৩৬৫৫  টাকা।

টুইনমোস টি৭২৪
বাংলাদেশের বাজারে ‘টুইনমোস’ এর এই ট্যাবলেটটির দাম পড়বে ৫১৩৬  টাকা। ৭ ইঞ্চি পর্দা বিশিষ্ট এই ট্যাবলেটটিতে আছে ১.০ গিগাহার্য এর ডুয়েলকোর প্রোসেসর, ১ গিবি র‍্যাম ৫১২ জিবি ইন্টারনাল মেমরী, পিছনে থাকছে ২ মেগাপিক্সেল ক্যমেরা ও সামনে ৩ মেগাপিক্সের ক্যামেরা। অ্যান্ড্রয়েড ৪.২.২কিটক্যাট অপারেটিং সিস্টেমে চালিত এই ট্যাবলেটটি ৩০০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ারের ব্যাটারী দ্বারা ৭ ঘন্টা চলতে সক্ষম।

স্যামসাং ট্যাব ৭
টেকজায়ান্ট স্যামসাং এর স্বল্পমূল্যে রয়েছে একটি দারুন ট্যাব যার নাম সামসাং গ্যালাক্সি ট্যাব ৭ । আজকের ডিলের ক্রেজি ডিলে এই ট্যাবের মূল্য নির্ধারন করা হয়েছে ৩৫০০ টাকা। ৭ ইঞ্চি পর্দা বিশিষ্ট এই ট্যাবলেটটিতে আছে ২.৭ গিগাহার্য এর কোয়াডকোর প্রোসেসর, ১ জিবি র‍্যাম ১৬ জিবি ইন্টারনাল মেমরী, পিছনে ও সামনে উভয়পাশে থাকছে ৪ ও ২(ফ্রন্ট) মেগাপিক্সেল ক্যমেরা। অ্যান্ড্রয়েড ৪.৪ কিটক্যাট অপারেটিং সিস্টেমে চালিত এই ট্যাবলেটটি ৪৫০০মিলিঅ্যাম্পিয়ারের ব্যাটারী দ্বারা ৮ ঘন্টা চলতে সক্ষম।

লেনোভো এ৭-৩০
দেশের বাজারে এই ট্যাবের মূল্য নির্ধারন করা হয়েছে ১৪,০০০ টাকা। ৭ ইঞ্চি পর্দা বিশিষ্ট এই ট্যাবলেটটিতে আছে ১.৩ গিগাহার্য এর কোয়াডকোর প্রোসেসর, ১ গিবি র‍্যাম ৮ জিবি ইন্টারনাল মেমরী, পিছনে থাকছে ২ মেগাপিক্সেল ক্যমেরা ও সামনে ভিজিএ ক্যামেরা। । লেনোভো এ৭-৩০, অ্যান্ড্রয়েড ৪.৪ কিটক্যাট অপারেটিং সিস্টেমে পরিচালিত ও এর ব্যাটারী ৩৫০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ার।

কম দামে আকর্ষণীয় কিছু ট্যাব কিনতে এখানে ক্লিক করুন
*ট্যাব* *মোবাইল* *কেনাকাটা* *প্রযুক্তিপন্য* *স্মার্টশপিং* *অনলাইনশপিং*

বেশতো সাইট টিতে কোনো কন্টেন্ট-এর জন্য বেশতো কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

কনটেন্ট -এর পুরো দায় যে ব্যক্তি কন্টেন্ট লিখেছে তার।

...বিস্তারিত

QA

★ ঘুরে আসুন প্রশ্নোত্তরের দুনিয়ায় ★