বগুড়া

বগুড়া নিয়ে কি ভাবছো?

ট্রাভেলার: একটি বেশব্লগ লিখেছে

মহাস্থানগড় প্রাচীন বাংলার অন্যতম একটি প্রত্নতাত্ত্বিক ও ঐতিহাসিক গুরুত্বপূর্ণ স্থান। মহাস্থানগর হচ্ছে বাংলাদেশের সবচেয়ে প্রাচীন নগরী। এক সময় এই নগরীটি প্রাচীন বাংলা রাজধানী ছিল। পূর্বে এর নাম ছিল পুন্ড্রবর্ধন ও পুণ্ড্রনগর। প্রাচীন ইতিহাস, ঐতিহ্য, দক্ষিণ এশিয়ার অন্যতম প্রাচীন নগররাষ্ট্র এবং তার ধ্বংসাবশেষ ও প্রত্নস্থল হিসাবে সমগ্র বিশ্বের পর্যটক এবং প্রত্নতাত্ত্বিকদের কাছে মহাস্থানগড় আকর্ষণীয় ভ্রমন স্পট। প্রাচীন এই পর্যটন কেন্দ্রটি দেখার জন্য প্রতিদিন হাজার হাজার পর্যটক বগুড়ার মহাস্থানগড়ে ভিড় জমান। তবে মহাস্থানগড় নামক প্রাচীন এই নগরীকে ঘিরে অনেক গুলো দর্শণীয় স্থান  রয়েছে যার মধ্যে বিশেষ কিছু স্থান রয়েছে যা না দেখলে মহাস্থানগড় ভ্রমন অপূর্ণ থেকে যাবে। মহাস্থানগড় ভ্রমনে গিয়ে যে ৭টি দর্শণীয় স্থান কখনোই মিস করা ঠিক হবেনা  তা নিয়েই আজকের এই আলোচনা ....

মহাস্থানগড়ের দর্শণীয় ৭টি স্থানঃ

১. মাহী সওয়ার মাজার শরীফ:

মহাস্থানগড় বাস স্ট্যান্ড থেকে কিছুটা পশ্চিমে একটি ঐতিহাসিক মাজার শরীফ রয়েছে। পীরজাদা হযরত শাহ সুলতান মাহমুদ বলখী (র:) কে কেন্দ্র করে প্রাচীন এই মাজার শরীফটি গড়ে ওঠেছিল। কথিত আছে মাছের পিঠে আরোহন করে তিনি বরেন্দ্র ভূমিতে আসেন। তাই তাকে মাহী সওয়ার বলা হয়। প্রচলিত এক গল্প থেকে জানা যায়, হযরত মীর বোরহান নামক একজন মুসলমান এখানে বাস করতেন। পুত্র মানত করে গরু কোরবানী দেয়ার অপরাধে রাজা পরশুরাম তার বলির আদেশ দেন এবং তাকে সাহায্য করতেই মাছের পিঠে আরোহন করে মাহী সওয়ারেরর আগমন ঘটে।

২. কালীদহ সাগর:
গড়ের পশ্চিম অংশে রয়েছে ঐতিহাসিক কালীদহ সাগর এবং পদ্মাদেবীর বাসভবন। কালীদহ সাগর সংলগ্ন ঐতিহাসিক গড় জড়িপা নামক একটি মাটির দূর্গ রয়েছে। প্রাচীন এই কালীদহ সাগরে প্রতিবছরের মার্চ মাসে হিন্দু ধর্মালম্বীদের রারুন্নী স্নান অনুষ্ঠিত হয়। স্নান শেষে পুণ্যার্থীগণ সাগরপাড়ে গঙ্গাপূজা ও সংকীর্তন অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন।

৩. শীলাদেবীর ঘাট:
গড়ের পূর্বপাশে রয়েছে করতোয়া নদী এর তীরে ‘শীলাদেবীর ঘাট’। শীলাদেবী ছিলেন পরশুরামের বোন। এখানে প্রতি বছর হিন্দুদের স্নান হয় এবং একদিনের একটি মেলা বসে।


৪. জিউৎকুন্ড কুপ:
মহাস্থান গড়ের শীলাদেবীর ঘাটের  পশ্চিমে জিউৎকুন্ড নামে একটি বড় কুপ আছে। কথিত আছে এই কুপের পানি পান করে পরশুরামের আহত সৈন্যরা সুস্থ হয়ে যেত। যদিও এর কোন ঐতিহাসিক ভিত্তি পাওয়া যায়নি।

৫. জাদুঘর:

মহাস্থান গড় খননের ফলে মৌর্য, গুপ্ত, পাল ও সেন যুগের বিভিন্ন দ্রব্যাদিসহ অনেক দেবদেবীর মূর্তি পাওয়া গেছে যা গড়ের উত্তরে অবস্থিত জাদুঘরে সংরক্ষিত আছে। মহাস্থান গড় ছাড়াও আরও বিভিন্ন স্থানের প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন এখানে সংরক্ষিত আছে।

৬. বেহুলার বাসর ঘর:

মহাস্থানগড় বাস স্ট্যান্ড থেকে প্রায় ২কি.মি দক্ষিণ পশ্চিমে একটি বৌদ্ধ স্তম্ভ রয়েছে যা সম্রাট অশোক নির্মাণ করেছিলেন বলে মনে করা হয়। স্তম্ভের উচ্চতা প্রায় ৪৫ ফুট। স্তম্ভের পূর্বার্ধে রয়েছে ২৪ কোন বিশিষ্ট চৌবাচ্চা সদৃশ একটি গোসল খানা । এটি বেহুলার বাসর ঘর নামেই বেশি পরিচিত।

৭. গোবিন্দ ভিটা:
মহাস্থানগড় জাদুঘরের ঠিক সামনেই গোবিন্দ ভিটা অবস্থিত। গোবিন্দ ভিটা একটি খননকৃত প্রত্নস্থল। গোবিন্দ ভিটা শব্দের অর্থ গোবিন্দ (হিন্দু দেবতা) তথা বিষ্ণুর আবাস। কিন্তু বৈষ্ণব ধর্মের কোনো নিদর্শন এ স্থানে পাওয়া যায়নি। তবুও প্রত্নস্থলটি স্থানীয়ভাবে গোবিন্দ ভিটা নামে পরিচিত।

বন্ধুরা মহাস্থানগড়ের ৭টি গুরুত্বপূর্ণ স্থান সম্পর্কে  জানানোর চেষ্টা করলাম। আশা করি, ভ্রমনে গিয়ে এবার আর এই ৭টি দর্শণীয় স্থান দেখতে ভুল করবেন না। আপনার ভ্রমন নিরাপদ ও আনন্দময় হোক এই শুভ প্রত্যাশা রইল। 
*ভ্রমন* *বগুড়া* *মহাস্থানগড়* *ভ্রমনটিপস* *ভ্রমনগাইড* *ছুটিতেভ্রমন*

আড়াল থেকেই বলছি: একটি বেশটুন পোস্ট করেছে

বিভিন্ন জেলার বিখ্যাত খাবার ও বস্তুর নাম:: ০১) নাটোর —কাঁচাগোল্লা,বনলতা সেন ০২) রাজশাহী —আম,রাজশাহী সিল্ক শাড়ী ০৩) টাঙ্গাইল —চমচম, টাংগাইল শাড়ি ০৪) দিনাজপুর —লিচু, কাটারিভোগ চাল, চিড়া, পাপড় ০৫) বগুড়া —দই ০৬) ঢাকা—বেনারসী শাড়ি,বাকরখানি ০৭) কুমিল্লা —রসমালাই, খদ্দর(খাদী) ০৮) চট্রগ্রাম —মেজবান , শুটকি ০৯) খাগড়াছড়ি—হলুদ
*নাটোর* *রাজশাহী* *টাঙ্গাইল* *দিনাজপুর* *বগুড়া* *ঢাকা* *কুমিল্লা* *চট্টগ্রাম* *খাগড়াছড়ি* *খাবার* *বিখ্যাত* *প্রথম*

শফিক ইসলাম: ছোট বেলা থেকে শুনেই গেলাম *বগুড়ারদই* এর সুনাম. দোকান থেকে কিনে খাওয়াও হয়েছে কিন্তু দোকান ভেদে স্বাদ ভিন্ন হয়ে যায়. তার মানে হয়ত কোনটাই *বগুড়ারদই* *বগুড়া* যেয়ে খেয়ে আসলে বুঝা যাবে আসল স্বাদ কোনটা. বগুড়াবাসী কেউ আছেন *বেশতো* তে? থাকলে দাওয়াত দেন (শয়তানিহাসি)

ছবি

নাহিয়ান সেজান: ফটো পোস্ট করেছে

ছবি

নাহিয়ান সেজান: ফটো পোস্ট করেছে

পারিবারিক ছবি! আমাদের গ্রামের বাড়িতে! (খুকখুকহাসি) (খুকখুকহাসি) (খুকখুকহাসি)

প্রত্যেক বসর ইদ-উল-আযহার ৩য় দিন বগুড়ার শেরপুরে গ্রামের বাড়িতে আমাদের পবিবারে গেট-টুগেদার হয়! মিতু(মুসফিক) ভাইয়ার সাথে আমার কাজিন সিমু! আমাদের আসন্ন গেট-টুগেদারে আপনি-ও আমন্ত্রিত! (খুশী২) (খুশী২) (খুশী২)

*গেট-টুগেদার* *ঈদ* *গ্রামেরবাড়ি* *বগুড়া* *পরিবার* *বন্ধু*
ছবি

নাহিয়ান সেজান: ফটো পোস্ট করেছে

বেহুলা লক্ষিন্দরের বাসরঘর!!!! গোকুল, বগুড়া!

(খুকখুকহাসি)(খুকখুকহাসি)

*বাসরঘর* *বগুড়া* *বেহুলা-লক্ষিন্দর*
ছবি

নাহিয়ান সেজান: ফটো পোস্ট করেছে

আজ আপনেকেরক এনা মিষ্টি মুক করামু। কুন ডে খাবেন কবেন কলে? ক্যা বারে.....মনে আছে নাকি? ঐ পুচ্চি কালতঃ নানা-দাদার হাত ধর‍্যা হ্যাঁটে হ্যাঁটে মেলাত যাচ্ছিনু। মেলাত জ্যায়ে মিঠেয় খাওয়ার বায়না। এডে খামু, অডে খামু..., আসার সময় ঠোঙ্গা ভরে লিয়ে আসিচ্ছুনু বাতাসা, খাগড়াই, কদমা আরো কত কি। সেগলা কতা একনও মনে হলে জিউয়ের মধ্যে কেঙ্কা জানি আলাদা সুক সুক লাগে তাই লয়?

বগুড়ার মেলা!!!!!!(খুকখুকহাসি)(চুম্মা)(পেটুক)(হাসি-৩)(খুকখুকহাসি)

*বগুড়া* *মিষ্টি* *দাদা* *নানা* *মেলা* *বাতাসা* *খাগড়াই* *কদম* *সুখ*
ছবি

নাহিয়ান সেজান: ফটো পোস্ট করেছে

বগুড়া ক্যান্টনমেন্ট স্কুল ও কলেজ!

হামার কলেজ! (খুকখুকহাসি)(কিমজা)(লালালা)(গ্যাংনাম)

*কলেজ* *বগুড়া* *স্কুল*
ছবি

নাহিয়ান সেজান: ফটো পোস্ট করেছে

কাল খালেদা জিয়া বগুড়াত জাওয়ার জন্যে ইঙ্কা করে সাজাছিলো বগুড়াক... এডা হামাগেরে সাতমাতার আতের ছবি... ফাইন লাগিচ্চে কোলে, কন ? হামার পরানের বগুড়া!

হামার বগুড়া!!!! (খুকখুকহাসি)(খুকখুকহাসি)(গ্যাংনাম)(গ্যাংনাম)(খুশীতেআউলা)

*বগুড়া* *ফটো* *রাত*

বেশতো সাইট টিতে কোনো কন্টেন্ট-এর জন্য বেশতো কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

কনটেন্ট -এর পুরো দায় যে ব্যক্তি কন্টেন্ট লিখেছে তার।

...বিস্তারিত

QA

★ ঘুরে আসুন প্রশ্নোত্তরের দুনিয়ায় ★