বাচ্চাদের ঘর

বাচ্চাদেরঘর নিয়ে কি ভাবছো?

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

বাচ্চাদের ঘর কিভাবে সাজানো যায় তা নিয়ে চিন্তায় থাকেন সকল বাবা না। বাসা হোক বা ফ্ল্যাট, বাচ্চাদের জন্য চাই আলাদা একটা ঘর। যত্নে আর ভালবাসায় সাজানো। বাচ্চার ঘর বলে কথা, সেটা তো যেমন তেমন করে সাজানো যায় না। মনের মাধুরি থেকে যত্ন সহকারে সাজাতে হবে সেই ঘর। ঘরের রঙ থেকে শুরু করে নজর দিতে হবে পাপশ পর্যন্ত। বাচ্চাদের ঘর ডিজাইন করার সময়ে খেয়াল রাখবেন- ঘর যেন বেশি ক্রাইডেড না হয়। শিশুর ঘরে ছোট আকৃতির দু-একটি সোফা অনায়াসে রাখতে পারেন। 

সোফা যে শুধুই বসার ঘরের জন্য আর বেডরুমের জন্য তা নয়,  আর চাইলে আপনার সোনামনির ঘরেও ছোট সোফা রাখা যায়। তবে তার ছোট রুমে ঢাউস আকৃতির চিরাচরিত সোফা না রাখাটাই ভালো, এক্ষেত্রে বেছে নিতে পারেন নান্দনিক ইনফ্লাটেবল সোফা। সব মিলিয়ে সোফা নির্বাচনের সময় বাচ্চার রুমের দেয়ালের রঙ, রুমের আকৃতি ও রুমের অন্যান্য ফার্নিচারের রঙ খেয়াল রাখতে হবে। এই তিনটি বিষয়ের সমন্বয় আপনাকে তার জন্য মানানসই সোফা পেতে সাহায্য করবে।

 

বর্তমানে ইনফ্লাটেবল সোফার ক্ষেত্রে রঙ, নকশা, আকৃতি সবকিছুতেই বেশ পরিবর্তন এসেছে।ঘরের ভেতরেই শিশু খেলবে, পড়বে, সে নিজের মতো সময় কাটাবে শিশুর কল্পনার মতো এমন একটা জগৎ গড়ে তোলা যেতে পারে। ঘরটা যে শিশুর নিজস্ব, সেই অনুভূতিটাও সে পাবে। তার বন্ধুবান্ধব আসলে তার রুমে তারা একে অপরের সাথে এমন সোফায় বসে খুনসুটিতে মেতে উঠবে। 

এই সব কিছুর সামঞ্জস্য রেখে যদি আপনি আপনার শিশুর ঘরটি ইন্টেরিয়র করতে পারেন তাহলে দেখবেন সেই ঘরটি শিশুর কাছে হয়ে উঠবে আকর্ষণীয় এবং সবচেয়ে পছন্দের জায়গা।

সোফাগুলো কিনতে ছবিতে আর এই লিংকে ক্লিক করুন।

*সোফা* *ইনফ্লাটেবলসোফা* *শিশুরঘর* *গৃহসজ্জা* *বাচ্চাদেরঘর* *ফার্নিচার* *আসবাবপত্র*

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

বাচ্চাদের ঘর কিভাবে সাজানো যায় তা নিয়ে চিন্তায় থাকেন সকল বাবা না। বাসা হোক বা ফ্ল্যাট, বাচ্চাদের জন্য চাই আলাদা একটা ঘর। যত্নে আর ভালবাসায় সাজানো। বাচ্চার ঘর বলে কথা, সেটা তো যেমন তেমন করে সাজানো যায় না। মনের মাধুরি থেকে যত্ন সহকারে সাজাতে হবে সেই ঘর। ঘরের রঙ থেকে শুরু করে নজর দিতে হবে পাপশ পর্যন্ত। প্রতিটা জিনিস হওয়া চাই বাচ্চার পছন্দ সই। আপনার বাচ্চার রুমে বড় একটি বাস্কেট রাখুন যাতে করে সে তার খেলনাগুলো সেখানে নিজেই গুছিয়ে রাখতে পারে। এতে করে তার খেলনা গুলো সবসময় গুছিয়ে রাখার ভালো একটি অভ্যাসও তৈরি হবে।

বাচ্চারা কাপড় ময়লা করে বেশি। তারা অনেক সময় এই ময়লা কাপড় গুলো গোছাতে জানেনা, কি করতে হবে বোঝেনা, তাই তার রুমে ময়লা কাপড় রাখার জন্য একটি ঝুড়ি রাখুন এবং শিখিয়ে দিন যে ময়লা কাপড় যেখানে সেখানে না রেখে যাতে এই ঝুড়িতে রাখে। ছেড়ে ফেলা জামা কাপড়, বিছানার চাদর, পিলো কাভার ওয়াস দেওয়ার আগে জমা করুন। ওয়াস করার পরও প্রথমে সব কাপড় জামা বাস্কেটেই রাখুন যাতে গুছিয়ে আলমারিতে তুলে রাখতে পারেন। লন্ড্রি বাস্কেটটা মেঝের উপর ফেলে না রেখে, খাটের তলায় ঠেলে দিন। ঘরের জায়গা বাঁচবে। বাথরুমেও রাখতে পারেন এই বাস্কেট।

 

*বাচ্চাদেরঘর* *বাস্কেট* *ঝুড়ি*

বেশতো সাইট টিতে কোনো কন্টেন্ট-এর জন্য বেশতো কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

কনটেন্ট -এর পুরো দায় যে ব্যক্তি কন্টেন্ট লিখেছে তার।

...বিস্তারিত

QA

★ ঘুরে আসুন প্রশ্নোত্তরের দুনিয়ায় ★