ব্লক

আলোহীন ল্যাম্পপোস্ট: একটি বেশব্লগ লিখেছে

অনেকদিন পর হঠাৎ করেই কি মনে করে ফেসবুকের ব্লক লিস্ট দেখলো নুপুর। বেশ কিছু বিরক্তিকর নাম আছে ব্লক লিস্টে যারা বিভিন্ন সময় তাকে নানাভাবে বিরক্ত করেছে। এমন মানুষের সংখ্যা ১০জন। অনেকের ছবি দেখে মনে মনে গালিও দিল। তবে এতসব খারাপ মানুষের ভিড়ে একটি প্রিয় নামও আছে এই লিস্টে। যার নাম সায়েম। সায়েম নুপুরের সাবেক সহকর্মী, খুবই ভাল ছেলে, যাকে নুপুর একসময় ভালবাসতো। নুপুরের মনে পড়ে যায় ৮ বছর আগেকার স্মৃতি।

নতুন অফিসে জয়েন করার পর আস্তে আস্তে সহকর্মীদের সাথে পরিচয় হয় নুপুরের। সায়েম নামের এক সহকর্মীর সাথেও তার পরিচয় হয়। সায়েম পরিচয় পর্ব শেষ হওয়ার পর তাকে বলে

- আপনার চাকরি পাওয়ার পিছনে আমারো কিছুটা অবদান আছে নুপুর ম্যাডাম।

-সেটা কিভাবে? জিজ্ঞাসা করলো নুপুর

-সায়েম বলে ৮০০সিভির মধ্যে শর্ট লিস্ট করার দায়িত্ব আমাকেই দেওয়া হয়েছিল। আমি লিস্টে ২০টি সিভি রেখেছিলাম, তারমধ্যে আপনার সিভিটিও ছিল।

-তাহলেতো আপনাকে ধন্যবাদ দিতেই হয়।

-শুধু ধন্যবাদ দিলেই হবে না একদিন কফিও খাওয়াতে হবে সায়েম বললো।

-অবশ্যয়ই কফিতো আপনার পাওনা হয়ে গেছে।

এভাবেই নতুন সহকর্মী সায়েমের সাথে নুপুরের বন্ধুত্ব বেশ ভালই জমে উঠলো। মাঝেমাঝেই কফি সপে যাওয়া হতো সায়েমের সাথে।

একদিন নুপুর অনুভব করে সে সায়েমকে ভালবেসে ফেলেছে। কিন্তু মেয়েরাতো কখনোই আগে ভালবাসার কথা বলে না। অবশ্য সায়েমের হাবভাব দেখেই নুপুর বুঝতে পারে সেও তাকে ভালবাসে।

একদিন স্বাভাবিকভাবে সায়েম ফোন দেয় নুপুরকে।

-হ্যালো ম্যাডাম আপনি ভাল আছেন বলে সায়েম।

-জি স্যার আমি ভাল ,আপনি? নুপুর বলে।

-আপনি আমাকে স্যার বলছেন কেন? বললো সায়েম।

-ঔই যে আপনি আমাকে ম্যাডাম বললেন তাই।

-তাহলে কি বলে ডাকবো আপনাকে?

-নাম ধরেই ডাকতে পারেন। নুপুর উওর করলো।

-ওকে মিস নুপুর আপনার বাসার সবাই কেমন আছে?

-জি ভাল, আপনার বাসার সবাই?

-জি, ভাল সায়েম বললো। এভাবে নানান কথা বলতে বলতে একসময় সায়েম জিজ্ঞাসা করলো

-আচ্ছা আপনার বয়ফ্রেন্ড কেমন আছে?

এইবার নুপুর কিছুক্ষণ চুপ করে রইল তারপর বললো,

-আচ্ছা আপনার উদ্দেশ্য কি মশাই? কায়দা করে জানতে চাচ্ছেন আমার বয়ফ্রেন্ড আছে কি না? আপনি কি কিছু বলতে চান?

এবার ইতস্তত করলো সায়েম, এমনটা আশা করেনি সে। সায়েম বললো

-বলতেতো চাই অনেক কিছুই সুযোগ দিলেন কই?

-বলে ফেলেন, নুপুর বললো।

-আজ নয়, কাল যদি অফিস শেষে কফি সপে আসেন তখন বলবো, সায়েম বললো।

পরদিন অফিসে শেষে কফি সপে যায় নুপুর। সায়েম আগে থেকেই অপেক্ষা করছিল। ফোনে যতটা সহজ ছিল সায়েম বাস্তবে দেখা হওয়ার পর ইতস্তত করতে লাগলো।

-নুপুর বললো আপনি নাকি কি বলবেন? তাড়াতাড়ি বলে ফেলেন আমাকে বাসায় যেতে হবে।

-এরপর সায়েম ব্যাগ থেকে একগোছা ফুল, একবক্স চকলেট, একটি কার্ড বের করলো যাতে লেখা,' ভালবাসি, শুধু ভালবাসি নয়, বিয়েও করতে চাই '

এমন প্রস্তাবের কথা কোনদিন শোনেওনি নুপুর।

-ওরে বাবা প্রথম দিনই বিয়ের প্রস্তাব?নুপুর বললো।

-হুম জীবনে বহুত সময় পার করে ফেলেছি তাই ভনিতা করার সময় এখন আর নেই সায়েম বললো।

এরপর থেকেই নুপুর আর সায়েম দুজন দুজনার। তবে অফিসে সবসময় ফরমাল সম্পর্ক বজায় রাখতো। অফিস শেষ হলেই সায়েম নুপুরকে বাসায় পৌঁছে দিয়ে তবেই নিজে বাসায় যেতো। এভাবেই বেশ ভালই সময় কেটে যাচ্ছিল তাদের।

একদিন নুপুর তার বাবাকে সায়েমের কথা জানালো। নুপুরের বাবা সায়েমের সিভি দেখে বললেন ছেলে পছন্দ হয়নি তার। ছেলের আর্থিক অবস্থা ফ্যামিলি ব্যাকগ্রাউন্ড কোনটাই আমাদের সাথে যায় না।নুপুর বার বার তার বাবাকে অনুরোধ করার পরও বাবা কিছুতেই রাজী হলনা। বাবাকে অগ্রাহ্য করে সায়েমের সাথে পালিয়ে যাওয়া নুপুরের পক্ষে সম্ভব ছিল না। একসময় বাবার সিদ্ধান্তের নুপুরের বিয়ে হয়ে যায়।

নুপুর আজ তিন সন্তানের মা, অনেকদিন পর ফেসবুকের ব্লক লিস্টে সায়েমকে দেখে নুপুর ভাবলো শুধু অপ্রিয় মানুষ নয়, সবচেয়ে প্রিয় মানুষটিকেও অনেক সময় পরিস্থিতির কারণে ব্লক লিস্টে রাখতে হয়।

*ফেসবুক* *গল্প* *নুপুর* *ব্লক* *লিষ্ট*

দীপ্তি: একটি নতুন প্রশ্ন করেছে

 ব্লক হয়ে যাওয়া টয়লেট সারিয়ে তুলতে কি করণীয়?

উত্তর দাও (১ টি উত্তর আছে )

*ব্লক* *টয়লেট* *লাইফস্টাইলটিপস*

দীপ্তি: একটি নতুন প্রশ্ন করেছে

 মোবাইল ফোনে Pin এবং PUK কোড কি? PIN বা PUK কোড ব্লক হলে কি করতে হবে?

উত্তর দাও (৪ টি উত্তর আছে )

.
*মোবাইলফোন* *পিনকোড* *পাককোড* *ব্লক*

শ্রীলা উমা: ব্লকের কারণ একটাই "অনাকাঙ্খিত" (ঘৃণা)

*ব্লক*

সুফী ম্যাভেরিক: @beshtobuzz @admin আমার মতে বেশতো তে *ব্লক* অপশনটি রাখার সময় হয়ে এসেছে! নাহলে আমরা কাছের কিছু আপন জন টাইপ পাবলিক কে বেশতো থেকে হারাবো!

বেশতো সাইট টিতে কোনো কন্টেন্ট-এর জন্য বেশতো কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

কনটেন্ট -এর পুরো দায় যে ব্যক্তি কন্টেন্ট লিখেছে তার।

...বিস্তারিত

QA

★ ঘুরে আসুন প্রশ্নোত্তরের দুনিয়ায় ★