মিট গ্রাইন্ডার

মিটগ্রাইন্ডার নিয়ে কি ভাবছো?

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

গরু বা খাসির মাংসের পছন্দসই টুকরো করা বেশ ঝামেলার কাজ। যারা মাংস দিয়ে রকমারি খাবার তৈরি করতে চান তাদের জন্য সঠিক মাপে ও ডিজাইনে মাংসের টুকরো করা খুবই জরুরি। মাংস কাটার এ সমস্যা থেকে সহজেই মুক্ত হতে পারেন মিট গ্রাইন্ডার ব্যবহার করে। মিট গ্রাইন্ডারে আছে বিভিন্ন ডিজাইনের ব্লেড। আপনার পছন্দমত ডিজাইনের ব্লেড লাগিয়ে নিলে নিমিষে পেয়ে যাবেন সেই ডিজাইনে কাটা মাংস।

মিট গ্রাইন্ডার ব্যবহার করাও বেশ সহজ। হাড়, চর্বি ছাড়া মাংস নির্দিষ্ট স্থানে রাখলেই তা মেশিনের অন্য পাশ দিয়ে কেটে বের হয়ে আসবে। বাজারে যেসব মিট গ্রাইন্ডার পাওয়া যায় সেগুলো বেশিরভাগই বিদ্যুত্চালিত। মিয়াকো এবং নোভা ব্র্যান্ড দুটি এখন বাজারে বেশি পাওয়া যায়। এগুলো সাধারণত টেকসই হয়। মিট গ্রাইন্ডারের দাম পড়বে ৫০০০-৭০০০ টাকা। যে কোনো মার্কেটে বড় ক্রোকারিজের দোকানে পাবেন এই মিট গ্রাইন্ডার।

তবে বাজারে বিদ্যুৎ চালিত ও হাতে চালানো এই দুই ধরনের কিমা মেশিন পাওয়া যায়। বিদ্যুৎ চালিত কিমা মেশিনগুলো স্বয়ংক্রিয়ভাবে মাংস ব্লেন্ড বা মিহি করে ফেলে। হাতে চালিত কিমা মেশিনে মাংস ঢুকিয়ে হাতল ঘুরিয়ে মাংসকে মিহি করা হয়। মাংসের রোয়ার ছোট ও বড় করার জন্য রয়েছে বিভিন্ন আকারের ডাইস। এইসব মেশিনের সঙ্গে তিন বা চার ধরনের ডাইস পাওয়া যায়। মাংসের আকার আকৃতি ছোট বা বড় যে ধরনের করতে চান ঠিক সে ধরনের ডাইস ব্যবহার করতে পারেন।

বাজারদর : হাতে চালিত কিমা মেশিনগুলোর আকার ও আকৃতির ছোট-বড় হওয়ার উপর মূল্য নির্ভর করে, দরদামও। ছোট থেকে বড় প্রতিটি কিমা মেশিনের মূল্য ১ হাজার ২শ’ ৫০ থেকে ৪ হাজার টাকা পর্যন্ত হয়ে থাকে।বিদ্যুৎ চালিত কিমা মেশিনের দাম ৩ হাজার থেকে ৬ হাজার টাকা।

যেখানে পাবেন : কিমা মেশিনগুলো পাওয়া যায়— ঢাকার নিউ সুপার মার্কেট (নিউ মার্কেট), চন্দ্রিমা সুপার মার্কেট (নিউ মার্কেটের পাশে) গুলশান ডিসিসি মার্কেট ১ ও ২, বসুন্ধরা শপিং কমপ্লেক্স লেভেল ওয়ান, গুলশান অ্যাভনিউ’র ফিক্স ইট, উত্তরা মিরপুর ১০, বায়তুল মোকাররম মার্কেট। এছাড়া অনলাইন শপ আজকের ডিলেও পেয়ে যাবেন মিট গ্রাইন্ডার। অনলাইনে ঘরে বসেই মিট গ্লাইন্ডার কিনতে চাইলে এখানে ক্লিক করুন

*মিটগ্রাইন্ডার* *কিমামেশিন* *কিচেনটুল* *স্মার্টকিচেন*

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

গরু বা খাসির মাংসের পছন্দসই টুকরো করা বেশ ঝামেলার কাজ। যারা মাংস দিয়ে রকমারি খাবার তৈরি করতে চান তাদের জন্য সঠিক মাপে ও ডিজাইনে মাংসের টুকরো করা খুবই জরুরি। মাংস কাটার এ সমস্যা থেকে সহজেই মুক্ত হতে পারেন মিট গ্রাইন্ডার ব্যবহার করে। মিট গ্রাইন্ডারে আছে বিভিন্ন ডিজাইনের ব্লেড। আপনার পছন্দমত ডিজাইনের ব্লেড লাগিয়ে নিলে নিমিষে পেয়ে যাবেন সেই ডিজাইনে কাটা মাংস।

কিনতে ক্লিক করুন                                           কিনতে ক্লিক করুন 

মিট গ্রাইন্ডার ব্যবহার করাও বেশ সহজ। হাড়, চর্বি ছাড়া মাংস নির্দিষ্ট স্থানে রাখলেই তা মেশিনের অন্য পাশ দিয়ে কেটে বের হয়ে আসবে। বাজারে যেসব মিট গ্রাইন্ডার পাওয়া যায় সেগুলো বেশিরভাগই বিদ্যুত্চালিত। মিয়াকো এবং নোভা ব্র্যান্ড দুটি এখন বাজারে বেশি পাওয়া যায়। এগুলো সাধারণত টেকসই হয়। মিট গ্রাইন্ডারের দাম পড়বে ৫০০০-৭০০০ টাকা। যে কোনো মার্কেটে বড় ক্রোকারিজের দোকানে পাবেন এই মিট গ্রাইন্ডার।

কিনতে ক্লিক করুন                                       কিনতে ক্লিক করুন

তবে বাজারে বিদ্যুৎ চালিত ও হাতে চালানো এই দুই ধরনের কিমা মেশিন পাওয়া যায়। বিদ্যুৎ চালিত কিমা মেশিনগুলো স্বয়ংক্রিয়ভাবে মাংস ব্লেন্ড বা মিহি করে ফেলে। হাতে চালিত কিমা মেশিনে মাংস ঢুকিয়ে হাতল ঘুরিয়ে মাংসকে মিহি করা হয়। মাংসের রোয়ার ছোট ও বড় করার জন্য রয়েছে বিভিন্ন আকারের ডাইস। এইসব মেশিনের সঙ্গে তিন বা চার ধরনের ডাইস পাওয়া যায়। মাংসের আকার আকৃতি ছোট বা বড় যে ধরনের করতে চান ঠিক সে ধরনের ডাইস ব্যবহার করতে পারেন।

কিনতে ক্লিক করুন                                 কিনতে ক্লিক করুন

বাজারদর

হাতে চালিত কিমা মেশিনগুলোর আকার ও আকৃতির ছোট-বড় হওয়ার উপর মূল্য নির্ভর করে, দরদামও। ছোট থেকে বড় প্রতিটি কিমা মেশিনের মূল্য ১ হাজার ২শ’ ৫০ থেকে ৪ হাজার টাকা পর্যন্ত হয়ে থাকে।বিদ্যুৎ চালিত কিমা মেশিনের দাম ৩ হাজার থেকে ৬ হাজার টাকা।

কিনতে ক্লিক করুন                               কিনতে ক্লিক করুন

যেখানে পাবেন

কাবাব চুলা ও কিমা মেশিনগুলো পাওয়া যায়— ঢাকার নিউ সুপার মার্কেট (নিউ মার্কেট), চন্দ্রিমা সুপার মার্কেট (নিউ মার্কেটের পাশে) গুলশান ডিসিসি মার্কেট ১ ও ২, বসুন্ধরা শপিং কমপ্লেক্স লেভেল ওয়ান, গুলশান অ্যাভনিউ’র ফিক্স ইট, উত্তরা মিরপুর ১০, বায়তুল মোকাররম মার্কেট। এছাড়া অনলাইন শপ আজকের ডিলেও পেয়ে যাবেন মিট গ্রাইন্ডার। 

*মিটগ্রাইন্ডার* *কিমামেশিন*

বেশতো সাইট টিতে কোনো কন্টেন্ট-এর জন্য বেশতো কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

কনটেন্ট -এর পুরো দায় যে ব্যক্তি কন্টেন্ট লিখেছে তার।

...বিস্তারিত

QA

★ ঘুরে আসুন প্রশ্নোত্তরের দুনিয়ায় ★