মিষ্টিমুখ

মিষ্টিমুখ নিয়ে কি ভাবছো?

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

যে কোন উৎসব আর নুতন আয়োজন মানেই মিষ্টির ছড়াছড়ি। হোক সেটা বর্ষ বরণ, বিয়ে কিংবা বিজয় দিবসের অনুষ্ঠান সব খানেই মিষ্টির আধিপত্য। চলছে ডিসেম্বর মাস। এ মাসেও বাঙ্গালির ঘরে ঘরে শোভা পাবে বিজয় আনন্দের বিজয় মিষ্টি। বাঙ্গালির বিজয়ের এই মাসে  মিষ্টি মুখ হোক বিভিন্ন জেলার মিষ্টি দিয়ে। আজকের আয়োজন বিজয় দিবসে বিভিন্ন জেলার মিষ্টি নিয়ে।  

টাঙ্গাইলের চমচমঃ
আমাদের এই উপমহাদেশে জনপ্রিয় মিষ্টি গুলোর মধ্যে টাঙ্গাইলের চমচম  অন্যতম। এই মিষ্টি এখনো তার পুরনো ঐতিহ্য নিয়ে  কীর্তি ছড়িয়ে যাচ্ছে। এর গ্রহনযোগ্যতা কিশোর যুবা বৃদ্ধ সবার কাছেই সমান। দেশের বিভিন্ন জায়গায় নানান বর্নের, স্বাদের চমচম তৈরী হলেও ইট রঙের টাঙ্গাইলের এই চমচম অনন্য। বিজয়ের এই মাসেও ঘরে রাখতে পারেন টাঙ্গাইলের চমচম। বাজারে প্রতি কেজি চমচমের দাম ২০০ টাকা থেকে ৫০০ টাকার মধ্যে।

যশোরের জামতলার স্পঞ্জঃ
জামতলার রসগোল্লার স্পঞ্জের আসল নাম সাদেক গোল্লা। এই সাদেক গোল্লা এখন জামতলার মিষ্টি হিসেবে দেশ-বিদেশে সমাদৃত। যশোরের শার্শা উপজেলার জামতলার এই রসগোল্লা দীর্ঘ ৫৫ বছরের ইতিহাস-ঐতিহ্য ধরে রেখে নিজের শ্রেষ্ঠত্ব বজায় রেখেছে। এই মিষ্টি অনেকটা বাদামি টাইপের তবে মাঝে মাঝে এটি সাদাটে টাইপের হয়। বিজয় দিবসের উৎসবে আপনিও কিনে নিতে পারেন ঐতিহ্যবাহী এই মিষ্টি। প্রতি কেজি স্পঞ্জের দাম দাম ২০০ টাকা থেকে ৫০০ টাকার মধ্যে।

পাবনার ঐতিহ্যবাহী কালোজামঃ
কালোজাম কিনুন
পাবনার ঐতিহ্যবাহী একটি মিষ্টির নাম কালোজাম। আমরা রাজধানী সহ সারা দেশে যে কালোজাম পাই তার চেয়ে পাবনার কালোজাম ভিন্নধর্মী ও সুস্বাদু। এই কালোজাম স্পেশাল সুস্বাদু ছানা দিয়ে তৈরী করা হয়। পাবনার ঐতিহ্যবাহী প্যারাডাইস এর মুখরোচক কালোজাম মিষ্টি প্রতি কেজির দাম ২০০ থেকে ৫০০ টাকা। পাবনা থেকে কিনে নিতে পারেন অথবা অনলাইনে আজকের ডিলে পাওয়া যাচ্ছে। তাদের ওয়েবসাইটে গিয়ে নক করুন। 

মেহেরপুরের বিখ্যাত সাবিত্রীঃ
মেহেরপুরের ঐতিহ্যবাহী মিষ্টি সাবিত্রী  ১৮৬১ সাল থেকে এখন পর্যন্ত তাদের ঐতিহ্য ধরে রেখেছে। এই মিষ্টি তৈরির বর্তমান মালিক ও কারিগর জানালেন, এটি তৈরি করার যে কৌশল তা কেবল তাদের বংশপরম্পরায় সীমাবদ্ধ। আজ থেকে তাদের পাঁচ পুরুষ আগে পঞ্চানন শাহা কৌশলটি আবিষ্কার করেছিলেন। এই মিষ্টি সাধারণত অর্ডার ছাড়া মিষ্টি খুব কম তৈরি করা হয়। বিজয়ের মাসে ঐতিহ্যবাহী এই মিষ্টি খেতে চাইলে ঘুরে আসুন আজকের ডিল থেকে। 


গাইবান্ধার বিখ্যাত রসমঞ্জুরীঃ 
গাইবান্ধার ঐতিহ্যবাহী ও সুস্বাদু এক মিষ্টির নাম রসমঞ্জরী। দেশভাগেরও আগে থেকে এ এলাকায় পাওয়া যেত এই মিষ্টি। সে সময় শহরের মিষ্টি ভান্ডারের মালিক রামমোহন দে তৈরি শুরু করেছিলেন এই মিষ্টি। এখন তো পুরো এলাকায় নানা মিষ্টির দোকানে পাওয়া যায় এটি। কেজিপ্রতি দাম ২০০ থেকে ৫০০ টাকা। দোকানে গিয়েও খেতে পারেন। অনলাইনেও কিনতে পারেন।

বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন  বিজয় দিবসের মিষ্টি

*মিষ্টি* *মিষ্টিমুখ* *বিজয়েরমিষ্টি* *বিজয়েরমাস* *কেনাকাটা* *স্মার্টশপিং*

ঝিঁঝিপোকা: একটি বেশব্লগ লিখেছে

পহেলা বৈশাখের দিনে একটু মিষ্টিমুখ হবে না তা কি হয়? মোটেই না বর্ষবরণে সকলের ঘরেই মিষ্টি থাকে। অতিথি আপ্যায়নেও মিষ্টি অবশ্যই চাই। কিন্তু অনেকেই কড়া মিষ্টি পছন্দ করেন না। ছানার মিষ্টি একটু কম মিষ্টি হয় বলে সকলেই এই মিষ্টি পছন্দ করেন। আপনি চাইলে খুব কম সময়ে এবং একেবারে সহজ উপায়ে এই ছানার মিষ্টি ঘরেই তৈরি করে নিতে পারেন। এবারের বর্ষবরণে চলুন না পরিবারের সকলকে সারপ্রাইজ করে দেয়া যাক খুব সুস্বাদু এই ছানার মিষ্টি তৈরি করে। জেনে নিন ছানার মিষ্টি তৈরির সবচাইতে সহজ রেসিপিটি।

উপকরণঃ
 - দেড় লিটার দুধ
- আধা কাপ চিনি
- ১ টেবিল চামচ লেবুর রস
- ১ চিমটি এলাচ দানা গুঁড়ো
- ২-৩ চা চামচ কন্ডেনসড মিল্ক
- বাদাম বা কিশমিশ

পদ্ধতিঃ

  • একটি বড় পাত্রে দুধ নিয়ে চুলায় দিয়ে জ্বাল দিতে থাকুন। দুধ ফুটে উঠার পর আরও খানিকক্ষন জ্বাল দিয়ে নিন। এরপর চুলা থেকে নামিয়ে রাখুন।
  • এবার জ্বাল দেয়া দুধে লেবুর রস দিয়ে একটু নেড়ে দিন। এতে দুধ ছানা হয়ে যাবে। এইসময় একটু ধৈর্য ধরে অপেক্ষা করতে হবে। দুধ পুরোটা ছানা না হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করুন।
  • দুধ ছানা হয়ে গেলে প্রথমে ছেকে ছানা আলাদা করে নিন। এরপর একটি পাতলা সুতি কাপড়ে ছানা রেখে পানি চিপে নিন। পুরো পানি ঝরে যাওয়ার জন্য কাপড়ে বেধে ছানা ঝুলিয়ে রাখুন।
  • এরপর কাপড় থেকে ছানা বের করে হাতে চেপে যদি পানি থাকে তাহলে তা বের করে দিন। তারপর ছানা হাতে মথে নিন ৩-৪ মিনিট।
  • এরপর একটি প্যানে ছানা, চিনি, কন্ডেনসড মিল্ক এবং এলাচ দানা গুঁড়ো দিয়ে নেড়ে নেড়ে জ্বাল করতে থাকুন। কিছুক্ষণের মধ্যেই ছানার মিশ্রণটি আঠালো হয়ে উঠবে, তখন তা একটি চারকোণা ট্রে তে কিনবা পছন্দসই পাত্রে ঢেলে উপরে হাতে চেপে সমান করে দিন।
  • উপরে ছিটিয়ে দিন বাদাম কুচি এবং কিশমিশ। এরপর ঠাণ্ডা হয়ে এলে নিজের পছন্দমতো আকারে কেটে নিন।
    ব্যস
    , তৈরি হয়ে গেলো খুব সহজেই ছানার মিষ্টি।





    সূত্রঃ ইন্টারনেট
*নববর্ষ* *পহেলাবৈশাখ* *মিষ্টি* *মিষ্টিমুখ* *রেসিপি* *মিষ্টিররেসিপি* *খাওয়াযাওয়া*

আশিকুর রাসেল: আজ আমি খেয়েছি ... আপনি খেয়ছেনতো ? (শয়তানিহাসি) মিষ্টি মুখ করেন ... ক্যান সেটা আমি কমুনা (খুশী২)(খুশী২) বিঃদ্রঃ কেহ অন্য কিছু মনে করিবেন্না।(শয়তানিহাসি)

*মিষ্টি* *মিষ্টিমুখ*

বেশতো সাইট টিতে কোনো কন্টেন্ট-এর জন্য বেশতো কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

কনটেন্ট -এর পুরো দায় যে ব্যক্তি কন্টেন্ট লিখেছে তার।

...বিস্তারিত

QA

★ ঘুরে আসুন প্রশ্নোত্তরের দুনিয়ায় ★