মূল্য

মূল্য নিয়ে কি ভাবছো?

সাদাত সাদ: [ক্রিকেটরঙ্গ-আবেছক্কা] বর্তমানে আমার প্রতিটা সেকেন্ডের মূল্য পাঁচ পয়সা, অথচ কোনো এক সময় এই পাঁচ পয়সা দিয়ে একটা হজমি কেনা যেত। আমি আদিকালের কথা বলছি। অবশ্য আমি নিজেও ১০ পয়সা দিয়ে হজমি খেয়েছি (খুশী২)

*হজমি* *পয়সা* *মূল্য* *সময়_পাল্টাই*

আলোহীন ল্যাম্পপোস্ট: একটি বেশব্লগ লিখেছে

" হে নারী......! " ණ কানাডায় প্রতি সপ্তাহে একদম উলঙ্গ হয়ে একজন নারী হাজারো পুরুষের সামনে দীর্ঘ সময় দাঁড়িয়ে থাকে। আর পুরুষরা তার যৌবনের প্রশংসা করে । এতে সে অনেক ডলার আয় করে । দাড়ি শেইভ করার ক্রিমের বিজ্ঞাপনেও এখন নারীকে ব্যবহার করা হয় । যে কোন প্রোগ্রামের উদ্বোধনীতেও অশ্লিল ভঙ্গিমায় কিছু ভাড়াটে নারী তাদের যৌনতা দেখায় । এবার আপনি বলুন ! এগুলোতে কি নারীর সম্মান বৃদ্ধি পাচ্ছে?? আইয়ামে জাহিলিয়্যাতে নারীদের দুই পা'কে দুটি ঘোড়ায় বেঁধে দুইদিকে ছেড়ে দেয়া হতো । আর নারীর দেহটি দ্বিখন্ডিত হয়ে যেত মুহুর্তেই । কোন কণ্যা সন্তান জন্ম নিলে তাকে জীবন্ত কবর দেয়া হতো । ইহুদী ধর্মঃ- নারীদের গুণের চেয়ে পুরুষদের দোষও ভাল । খ্রিষ্ট ধর্মঃ- নারীরা নরকের দ্বার । বৌদ্ধ ধর্মঃ- সকল পাপের মূলে নারী । হিন্দু ধর্মঃ- নারীদের কোন উত্তরাধিকার নেই । গ্রিস ধর্মঃ- নারীরা শয়তানের প্রতিভূ । ইসলাম ধর্মঃ- মায়ের পায়ের নীচে সন্তানের জান্নাত । গর্ত থেকে তুলে মা , মেয়ে , স্ত্রীর মর্যাদা ইসলাম দিয়েছে তোমাদের । সম্পদে বা অন্য কোন ক্ষেত্রে নারীদের বিন্দুমাত্র অধিকার ছিলনা । কিন্তু রাসূল ( সা: ) তাদের পদতলে জান্নাতের টিকেট দিয়েছেন । বিবাহের জন্য মোহর বাধ্যতামূলক করেছেন । পিতার চেয়ে মাতার অধিকার তিন গুণ বাড়িয়েছেন । সম্পদে তাদের ভাগ দিয়েছেন । এখনো হিন্দু ধর্মে নারীদের কোন সম্পদের অধিকার নেই । তবুও ইসলামে নাকি নারীদের অধিকার নেই । হে নারী! তুমি তোমার অধিকার জেনে নাও । জেনে রাখ ! পর্দাতেই তোমার সম্মান ও মর্যাদা রয়েছে ; অশ্লীল দেহ প্রদর্শনীতে নয় । তোমার ইজ্জাত - আভ্রুর হেফাজত করার দায়িত্ব তোমারই ।এ সমাজ তোমাকে কি দিয়েছে ধর্ষন ছাড়া, আর যার বিচার ও পাওনা। অথচ রাস্তায় নাম তুমি অধিকার চেয়ে কিন্তু নবীকে কেউ গালি দিলে তুমাকে রাস্তায় দেখিনা কেন? যে নবীর জন্য আজ তুমি নারী হয়ে বেঁচে আছ।

*নারী* *সম্মান* *মূল্য* *ইসলাম* *ধর্ম* *ইতিহাস* *কানাডা* *সংগৃহিত*

আলোহীন ল্যাম্পপোস্ট: একটি বেশব্লগ লিখেছে

বিশ্বের অনেক দেশে অনলাইনে ওষুধ কেনা অনেকটা জনপ্রিয় হয়েছে। প্রেসকিপশন না পাওয়া, ডাক্তার দেখাতে না পারা, বিশেষ করে ওষুধের দাম বেশি হওয়ার কারণে অনলাইনে ওষুধ কিনছেন অনেকে।
ব্রিটিশ এক নারীও কম দামে ওষুধ কিনতে অনলাইনের ওপর নির্ভর করেছিলেন।
বাংলাদেশ থেকে অনলাইনের মাধ্যমে 'হেপাটাইটিস সি' নিরাময়ের ওষুধ কিনেছিলেন জো শারাম নামে এক ব্রিটিশ নারী।
এনএইচএস ইংল্যান্ডের তৈরি ওষুধ সেখানে সহজে পাওয়া গেলেও অনেক উচ্চমূল্যের ওষুধ হবার কারণে এগুলো শুধুমাত্র বেশি অসুস্থ রোগীদের দেয়া হয়ে থাকে।
যুক্তরাজ্যে হেপাটাইটিস সি আক্রান্ত প্রায় দুই লাখ পনের হাজারের মতো রোগী রয়েছে, যাদের একজন জো শারাম।

মিস শারামের বয়স যখন ২০ বছর তখন এই ভাইরাসে আক্রান্ত হন তিনি। ভাইরাসটি শনাক্ত না হওয়ায় অন্য অনেকের মতো এই ভাইরাস বহন করেই বছরের পর বছর চলছিলেন তিনি।
"আমি অফিসের চেয়ারেই ঘুমিয়ে পড়তাম, স্মৃতিজনিত অনেক সমস্যাও হচ্ছিল আমার। এছাড়াও হজমে সমস্যা হচ্ছিল, ঘৃণা মনোভাব জাগছিল।
এরপর পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে বের হলো আমার দেহে হেপাটাইসিস সি ভাইরাস রয়েছে। তখন বুঝলাম এ কারণেই আমি বহু বছর ধরে বিভিন্ন সমস্যায় ভুগছি"-বলছিলেন জো শারাম।
হেপাটাইটিস সি ভাইরাস নিরাময়ে যে ওষুধ পাওয়া যায় ইংল্যান্ডে তার খরচ জোগাতে মোটামুটি হিমশিম খেতে হয় ন্যাশনাল হেলথ সার্ভিসকে।
প্রতি রোগীর জন্য প্রায় দশ হাজার পাউন্ড খরচ হয় সংস্থাটির, আর এ কারণে শুধুমাত্র বেশি অসুস্থ রোগীদেরই এ ওষুধ দেয়া হয়।
জো শারাম যেহেতু খুব বেশি অসুস্থ ছিলেন না তাই তিনিও ওই ওষুধ কিনতে পারেননি।
সে কারণে তিনি নির্ভর করলেন অনলাইনের ওপর এবং অনলাইনেই সস্তা দামের ওষুধ কিনলেন বাংলাদেশ থেকে। এতে তাঁর খরচ পড়েছিল প্রায় এক হাজার পাউন্ড।
"আপনিতো দামের জন্য আপনার জীবনকে হুমকির মধ্যে রাখতে পারেন না, তাই না?"
কিন্তু ওই ওষুধ কাজ করবে কিনা সেটা না জেনে কিভাবে সেটা কিনলেন তিনি?
"আসলে আমাকে একটা সিদ্ধান্ত নিতে হয়েছিল। শারিরীক সমস্যাগুলো নিয়ে চলতে আর ভালো লাগছিলো না। আসলে এটা আমার পছন্দ ছিল, এটা অনেকটা বাতাসে কয়েন ছুঁড়ে দেবার মতো"-বলছিলেন জো।
অনলাইনে বাংলাদেশ থেকে কেনা ওষুধ
গত নভেম্বর মাসে তিনি তাঁর ওষুধের কোর্স শেষ করেন।
এরপর তিনি আবার কিছু রোগ নির্ণয় পরীক্ষা করান। গত ১৮ই ফেব্রুয়ারি সেই ডায়াগনসিস রিপোর্ট হাতে পেয়ে জো দেখেন তাঁর রক্তে হেপাটিাইসিস সি ভাইরাসের কোনো লক্ষণ ধরা পড়েনি।
"এখানে ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানিগুলো যে দামে ওষুধ বিক্রি করছে তার তুলনায় অনেক কম দামে আমি ওষুধ কিনলাম। অথচ সেটা কাজও করলো।
আর প্রত্যেকেরই সুস্থ হবার অধিকার আছে, যদি সেটা সম্ভব হয়"-বলছিলেন জো। 
সূত্র: http://www.bbc.com/bengali/news-39129792

*বাংলাদেশ* *অসুস্থ্য* *ঔষধ* *দাম* *খবর* *নারী* *স্বল্প* *মূল্য*
ছবি

খেলাধুলা: ফটো পোস্ট করেছে

আইপিএলে তামিম-সৌম্যদের মূল্য নির্ধারণ

ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (আইপিএল) নবম আসরে প্রায় ৭০০ খেলোয়াড়ের ভিত্তি মূল্য নির্ধারণ করেছে ভারতীয় ক্রিকেটের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা (বিসিসিআই)। এই তালিকায় রয়েছে বাংলাদেশের চার ক্রিকেটার। তারা হলেন ব্যাটসম্যান তামিম ইকবাল খান, সৌম্য সরকার এবং বোলার মুস্তাফিজুর রহমান ও তাসকিন আহমেদ। এছাড়া সাকিব আল হাসান খেলছেন আগের কয়েক আসর থেকেই। চারজন বাংলাদেশি ক্রিকেটারদের মধ্যে ইতোমধ্যে মুস্তাফিজের ভিত্তিমূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ৫০ লাখ রুপি। যা বাংলাদেশী টাকায় ৫৮ লক্ষ টাকা। এছাড়া ড্যাশিং ব্যাটসম্যান তামিম ইকবালের জন্যও একই ভিত্তিমূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে। এছাড়া ওপেনিং ব্যাটসম্যান সৌম্য সরকার ও পেসার তাসকিনের ভিত্তিমূল্য নির্ধারণ করেছে ৩০ লাখ রুপি। যা বাংলাদেশি টাকায় ৩৫ লাখ টাকা। প্রাথমিক তালিকার ৭০০ জন থেকে ৩০০ জনের একটি সংক্ষিপ্ত তালিকা প্রকাশ করেছে বিসিসিআই। ৬ ফেব্রুয়ারি এই তালিকার খেলোয়াড়দের নিলাম অনুষ্ঠিত হবে। এক নজরে আইপিএলে বাংলাদেশি ক্রিকেটারদের ভিত্তিমূল্য: তামিম ইকবাল: ৫০ লাখ রুপি (বাংলাদেশি টাকায় ৫৮ লক্ষ ) মুস্তাফিজুর রহমান: ৫০ লাখ রুপি (বাংলাদেশি টাকায় ৫৮ লক্ষ ) সৌম্য সরকার: ৩০ লাখ রুপি (বাংলাদেশি টাকায় ৩৫ লক্ষ ) তাসকিন আহমেদ: ৩০ লাখ রুপি (বাংলাদেশি টাকায় ৩৫ লক্ষ )।

*আইপিএল* *মূল্য* *নির্ধারণ* *ক্রিকেট*
ছবি

খেলাধুলা: ফটো পোস্ট করেছে

অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ টিকিটের সর্বনিম্ন মূল্য ২০ টাকা ?

অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের টিকিটের মূল্য চূড়ান্ত করেছে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল ‍(‌আইসিসি)। সর্বনিম্ন মূল্য ধরা হয়েছে ২০ টাকা। গ্র্যান্ড স্ট্যান্ডের টিকিটের মূল্য ধরা হয়েছে ৩০০ টাকা। ম্যাচের একদিন আগে স্টেডিয়ামের নির্ধারিত কাউন্টার থেকে টিকিট সংগ্রহ করতে পারবেন দর্শকরা। ম্যাচের দিন স্টেডিয়াম সংলগ্ন কোথাও টিকিট পাওয়া যাবে না। যুব বিশ্বকাপের একাদশতম আসর শুরু হচ্ছে আগামী ২৭ জানুয়ারি। ১৬ দলের এ বিশ্ব আসরের ম্যাচগুলো গড়াবে ঢাকা, চট্টগ্রাম, সিলেট ও কক্সবাজার এই চার শহরের আট ভেন্যুতে। মোট ১৬টি দল চার গ্রুপে লড়াই করবে এবারের আসরে। ৯টি টেস্ট খেলুড়ে দেশের সঙ্গে আইসিসির অ্যাসোসিয়েট ও অ্যাফিলিয়েট সদস্য দেশ সাতটি। ভেন্যু: শের-ই-বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়াম, ঢাকা কাউন্টার: মিরপুর ইনডোর স্টেডিয়াম। টিকিট পাওয়া যাবে: ২৭ জানুয়ারি থেকে। টিকিটের মূল্য: গ্র্যান্ড স্ট্যান্ড উত্তর/দক্ষিণ - ৩০০ টাকা। ভিআইপি স্ট্যান্ড - ১৫০। শহীদ মুস্তাক ও জুয়েল স্ট্যান্ড - ১০০। উত্তর/দক্ষিণ গ্যালারি - ৪০। পূর্ব গ্যালারি - ২০। ভেন্যু: খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়াম। টিকিট কাউন্টার: যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর, জালকুড়ি, ফতুল্লা। টিকিট পাওয়া যাবে: ২৭ জানুয়ারি থেকে। টিকিটের মূল্য: গ্র্যান্ড স্ট্যান্ড - ৩০০ টাকা। ইন্টারন্যাশনাল গ্যালারি (পশ্চিম) – ১৫০। ক্লাব হাউজ (পূর্ব/পশ্চিম) - ১০০। পশ্চিম গ্যালারি - ৮০। পূর্ব গ্যালারি - ২০। ভেন্যু: জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়াম। টিকিট কাউন্টার: বিটেক মোড়, সাগরিকা, চট্টগ্রাম। টিকিট পাওয়া যাবে: ২৬ জানুয়ারি থেকে। টিকিটের মূল্য: গ্র্যান্ড স্ট্যান্ড - ২০০ টাকা। রুফ টপ হসপিটালিটি - ২০০। ইন্টারন্যাশনাল স্ট্যান্ড - ১০০। ক্লাব হাউজ (পূর্ব/পশ্চিম) - ১০০। পশ্চিম গ্যালারি - ৫০। পূর্ব গ্যালারি – ৩০। ভেন্যু: এম এ আজিজ স্টেডিয়াম। টিকিট কাউন্টার: আলমাস সিনেমা হল, দামপাড়া, চট্টগ্রাম। টিকিট পাওয়া যাবে: ২৬ জানুয়ারি থেকে। টিকিটের মূল্য: ভিআইপি গ্র্যান্ড স্ট্যান্ড - ১০ টাকা। রুফ টপ - ১০০। ইন্টারন্যাশনাল স্ট্যান্ড (উত্তর/দক্ষিণ) - ৭৫। ক্লাব হাউজ (উত্তর/দক্ষিণ) - ৫০। সাধারণ গ্যালারি - ২০। ভেন্যু: সিলেট ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট স্টেডিয়াম। টিকিট কাউন্টার: লুকাতুরা, এয়ারপোর্ট রোড, সিলেট। টিকিট পাওয়া যাবে: ২৭ জানুয়ারি থেকে। টিকিটের মূল্য: গ্র্যান্ড স্ট্

*অনূর্ধ্ব-১৯* *বিশ্বকাপ* *টিকিট* *মূল্য* *ক্রিকেট*

পাগলী: কোনোকিছু অর্জন করার পূর্বে এবং হারিয়ে ফেলার পর আমরা তার মূল্য বুঝতে পারি। এই দুইয়ের মধ্যবর্তী সময়ে তার মূল্য বুঝতে চেষ্টা করুন। তাহলেই পরে হা হুতাশ করতে হবেনা।

*ভালোবাসা* *মূল্য*
ছবি

লীনা জাম্বিল: ফটো পোস্ট করেছে

কষ্ট আর ঘৃণা চরমভাবে একাকার হয়ে মিশে আছে সাগড়ের নোনা জলের মত ---

মিথ্যা চোখের জলের অনেক মূল্য প্রকৃত চোখের জলের নেই কোন মূল্য

*চোখেরজল* *মূল্য*

মুকতাদির: এ পর্যন্ত *জুতাচুরি* হয়েছে তিনবার (কুল)......আমার *পদধূলি*র *মূল্য* বুঝুন (ভেঙ্গানো২)

*জুতাচুরি* *মূল্য*

পাগলী: জীবনে এমন কিছু *মানুষ* আসে, যাদের উপস্থিতিতে *মূল্য* বোঝা যায় না, কিন্তু তাদের অনুপস্থিতিতে অভাববোধটা তীব্র হয়.…তাদের সঙ্গে কাটানো মুহূর্তগুলো, তাদেরকে ঘিরে বিভিন্ন *ঘটনা* যতবার মনে পড়ে, ততবার কষ্টের পরিমাণটা একটু করে বাড়তে থাকে।

*মানুষ* *মূল্য* *অভাব* *মুহূর্ত* *মানুষ* *মূল্য*

গোলাম মুক্তাদির: অপরের কথার মূল্য না দিলে আপনার কথাকে যে *মূল্য* দিবে ক্যামনে ভাবেন ? ? সুতরাং মূল্য দিন মূল্য নিন (হাইতুলি)

*মূল্য*

পাগল গুরু: নিজেকে খবরদার *সহজলভ্য* করোনা, নিজের *মূল্য* বুঝতে শিখো, তুমি যে *অমূল্য* সেটি বুঝায় দাও, কমপক্ষে এইটুকু বুঝায় দাও চাইলেই তোমাকে পাওয়া সহজ নয়... ---*হুমায়ূন* আহমেদ

বেশতো সাইট টিতে কোনো কন্টেন্ট-এর জন্য বেশতো কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

কনটেন্ট -এর পুরো দায় যে ব্যক্তি কন্টেন্ট লিখেছে তার।

...বিস্তারিত

QA

★ ঘুরে আসুন প্রশ্নোত্তরের দুনিয়ায় ★