মেয়েদের ফ্যাশন

মেয়েদেরফ্যাশন নিয়ে কি ভাবছো?

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

ফ্যাশনে মেলে রুচিবোধের পরিচয়। ব্যাগ তেমনি একটি আভিজাত্যের অনুষঙ্গ। পোশাক আর সাজের সঙ্গে মানানসই ব্যাগ আনে ফ্যাশনে ভিন্নমাত্রা। তরুণ-তরুণীরা অনেক ফ্যাশন সচেতন। ফ্যাশনে নতুনত্ব আনতে রকমারি বাহারি ব্যাগ প্রয়োজন তো পূরণ করবেই সঙ্গে ফ্যাশনেও আনবে আধুনিকতা। কন্ট্রাস্ট রঙের ব্যাগের ব্যবহারই এখন ফ্যাশন। বাজারে পাওয়া যাচ্ছে নানান ডিজাইন আর আকৃতির ব্যাগ। ইচ্ছেমতো রং বা আকারের ব্যাগ ব্যবহারের চল এখন। পোশাকটা সাদামাটা হলেও নজর কাড়বে হয়তো ব্যাগটাই। রঙের বাহার যেমন আছে, তেমনি নানা রকম প্রিন্ট বা নকশারও কমতি নেই।  চলছে বড় ব্যাগ বা ছোট ক্লাচই ট্রেন্ডি এ সময়ে—এমন কথা বলা যাবে না। বড়, ছোট বা মাঝারি সব ধরনের ব্যাগের চাহিদা রয়েছে ক্রেতাদের কাছে। 

শুধু ফিটফাট পোশাক আর স্টাইলিশ জুতাতেই এখন আর ‘ফ্যাশনেবল’ শব্দটা আটকে নেই। সুন্দর একটা ব্যাগও কিন্তু আপনার পুরো লুকে নিয়ে আসতে পারে চমক। আপনার পোশাক-আশাক, সাজে যোগ করতে পারে বাড়তি সৌন্দর্য। ব্যাগের নকশায় বা আকারে থাকছে নানা বৈচিত্র্য। কোনো ব্যাগ হচ্ছে ত্রিভুজ আকারের বা গোলাকার। কোনোটিতে আছে চৌকোনার নানা ধরন। টোটি, ন্যাপস্যাক, মেসেঞ্জার নামে পরিচিত এই ব্যাগগুলোতে থাকছে উজ্জ্বল রঙের ব্যবহার। ছোট ক্লাচ ব্যাগগুলোতেও পাথর আর পুঁতির ব্যবহারে আনা হচ্ছে আভিজাত্যের ছোঁয়া।

হাল ফ্যাশনে প্রতিনিয়তই চলছে পরিবর্তন। বাজারে এখন একটু ঘুরলেই চোখে পড়বে বাহারি নকশার সব ব্যাগ। দোকানগুলোতে বিভিন্ন নকশা ও রঙের আধিক্য দেখলেই বোঝা যায় বর্তমান ফ্যাশনে ব্যাগের বেশ জনপ্রিয়তা। বিশেষ করে মেয়েদের ফ্যাশনে পোশাকের সাথে ম্যাচিং করে মানানসই বাহারি রংয়ের বিচিত্র নকশার ছোট বড় ব্যাগ অন্যতম অনুষঙ্গ হিসেবে পরিণত হয়েছে। স্টাইলিশ ব্যাগ সাথে না থকলে ফ্যাশনটাই যেন মাটি হয়ে যায়। তাইতো ক্রেতাদের চাহিদা অনুযায়ী দোকান ও শপিংমলে বাহারি ডিজাইনের সব ব্যাগের কালেকশনের রেখেছে। দোকানগুলোতে বিভিন্ন নকশা এবং রংয়ের আধিক্য দেখলেই বোঝা যায় বর্তমান ফ্যাশনে ব্যাগের বেশ জনপ্রিয়তা রয়েছে। আজকের আয়োজন লেডিস ব্যাগ নিয়ে। বর্তমান ফ্যাশনে কোন ব্যাগ গুলো চলছে চলুন জেনে নেই।

আজকের ডিলে  একটু খুঁজে ফরমায়েশ দিতে পারেন ব্যাগের। 

 

*ব্যাগ* *ব্যাগফ্যাশন* *মেয়েদেরফ্যাশন* *শপিং* *স্মার্টশপিং*

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

বর্তমান সময়ে নারীর ফ্যাশনে সালোয়ার কামিজের পাশাপাশি যুক্ত হয়েছে শার্ট। এই আউটগোয়িং রেডি টু ওয়ারটি এখন হাল ফ্যাশনে তরুণীদের কাছেও জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। আন্তর্জাতিক ফ্যাশন অঙ্গনে এবং ডিজাইনারদের চুলচেরা বিশ্লেষনে নারীদের শার্টের নকশায়ও এখন এসেছে বেশ পরিবর্তন। এসব শার্ট কাটছাঁটে সম্পূর্ণ ভিন্ন খুবই আরামদায়ক এবং স্টাইলিশ তো বটেই। সিনথেটিক কাপড়ের পরিবর্তে শার্ট তৈরিতে এখন ব্যবহৃত হচ্ছে ডেনিম জিন্স। ফ্যাশন সচেতন, কলেজ বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া তরুণীরা স্কার্ট, জেগিংস বা প্যান্টের সাথে শার্ট পরে থাকে। তবে তা অবশ্যই মানানসই হওয়া চাই। প্যান্টের সাথে যে শার্ট মানাবে তা স্কার্টের সাথে নাও মানাতে পারে।

 আবার বৈচিত্র্যপূর্ণ ডেনিম-জিন্স প্যান্টের সাথে পরা উচিত লেডিজ ক্যাজুয়াল সফট ডেনিম শার্ট । মেয়েদের শার্টে ফিটিংটা খুব জরুরি। ফিটিং মানে কিন্তু খুব টাইট না আবার খুব  ঢোলাও না, সৌন্দর্যের জন্য ফিটিং শার্ট ব্যবহার করা উচিত প্রত্যেক ফ্যাশন সচেতন তরুণীর। শার্টের সুন্দর ফিটিংয়ের জন্য টেকেন কাটিং প্রিন্সেস কাটিং দেয়া যেতে পারে। কাফ, কলার ইত্যাদির মাপ হতে হবে জুতসই।

যেখানে পাবেনঃ
রাজধানীসহ দেশের প্রায় সব শপিং মলেই পাবেন বাহারি এসব ডেনিম শার্ট। ফ্যাশন হাউস আমবার লাইফস্টাইল, একস্ট্যাসি, ক্যাটস আই,ইয়েলো , জেন্টল পার্ক ওমেন, ওয়েস্টেকস, স্মার্টেক্স, ওটু, ফ্রিল্যান্ড, আর্টিস্টি, তানজিম স্ট্রিটসসহ বিভিন্ন ব্র্যান্ডের দোকানে ঘুরে দেখতে পারেন। এছাড়া ব্র্যান্ডগুলোর ফেসবুক পেইজে নিত্যনতুন পোশাকের আপডেট পাবেন। আর যদি নিজের পছন্দসই ইউনিক ডিজাইন এর শার্ট পরে সবাইকে তাক লাগাতে চান তাহলে আপনার যেতে হবে আপনার পছন্দসই দর্জি দোকানে। আর অনলাইন থেকে কিনতে হলে আজকের ডিলই একমাত্র ভরসা। 

 

*হালেরফ্যাশন* *হালফ্যাশন* *লেডিজডেনিমশার্ট* *ডেনিমশার্ট* *মেয়েদেরফ্যাশন*

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

বিভিন্ন আচার অনুষ্ঠানে পাশ্চাত্যে বরাবরই ব্যাপকভাবে হ্যাট নামক টুপির প্রচলন আছে। সামাজিক স্ট্যাটাসের প্রচলিত রীতি থেকে বের হয়ে বর্তমানে ফ্যাশন অনুষঙ্গ হিসেবে হ্যাট এদেশেও বেশ জনপ্রিয়। ফ্যাশন মানেই যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলা। আর যারা ফ্যাশনপ্রেমী তারা ফ্যাশন আর স্টাইলের সমন্বয়ে আরামদায়ক অনুষঙ্গটি তাদের ফ্যাশন হিসেবে বেছে নেন। মাথায় একটা লাল রঙের হ্যাট, চোখে সানগ্গ্নাস, গায়ে টি-শার্ট, পরনে জিন্স, আর পায়ে এক জোড়া চমৎকার জুতা। ভাবছেন এমন সাজ পোশাকে নিজেকে অবশ্যই স্মার্ট লাগবে। হ্যাঁ, আপনার অন্য সব সাজপোশাকের সঙ্গে গোলাকার এক টুকরো কাপড়ের হ্যাট আপনাকে করে তুলতে পারে ফ্যাশনেবল।

         কিনতে ক্লিক করুন                                        কিনতে ক্লিক করুন 

এক সময় মানুষ হ্যাট পরত ধর্মীয় বিভিন্ন আচার-অনুষ্ঠানে। আবার সামাজিক স্ট্যাটাসের প্রতীক হিসেবেও হ্যাটের প্রচলন ছিল। কিন্তু বর্তমানে ফ্যাশন অনুষঙ্গ হিসেবে হ্যাট অনেক জনপ্রিয়। ক্যাপের পাশাপাশি হ্যাটের চাহিদা এখন তুমুল। তবে একুশ শতক থেকেই তরুণ প্রজন্মের পছন্দের তালিকায় চলে আসে হ্যাট। জনপ্রিয় পপ তারকা লেডি গাগাও হ্যাট বেছে নেন পছন্দের অনুষঙ্গ হিসেবে। ছেলেমেয়ে উভয়ের পছন্দের তালিকায় রয়েছে হ্যাট। যদিও এখন কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয় পড়ূয়া ছেলেমেয়েদের খুব একটা হ্যাট পরতে দেখা যায় না, কিন্তু যারা একটু আলাদা ঢঙে চলতে পছন্দ করেন তারা ঠিকই নিজেদের সাজে বৈচিত্র্য নিয়ে আসেন।

                 কিনতে ক্লিক করুন                                    কিনতে ক্লিক করুন

জিন্স, টপসের সঙ্গে নিজেকে সবার থেকে আলাদা করতে হ্যাটের জুড়ি মেলা ভার।' সাধারণত রোদ থেকে রক্ষা পেতেই ছেলেদের দেখা যায় হ্যাট পরতে। মেয়েদের হ্যাটের ডিজাইনে রয়েছে বেশ বৈচিত্র্য। মেয়েদের হ্যাট আকারে একটু বড় হয়। আর এই হ্যাট বিশেষভাবে লেস দিয়ে ডিজাইন করা থাকে। আবার রঙের ক্ষেত্রেও রয়েছে বেশ বৈচিত্র্য। যেমন লাল, গোলাপি, কমলা, হলুদ ইত্যাদি। কাপড়ের তৈরি হ্যাট ছাড়াও মেয়েদের জন্য রয়েছে বেতের আকর্ষণীয় ডিজাইনের হ্যাট।

                    কিনতে ক্লিক করুন                               কিনতে ক্লিক করুন

ধরা যায় ফ্যাশনে হ্যাটের আগমন আঠারো শতকেই। প্রথমে এর বিশদ প্রচলন দেখা যায় সামরিক বাহিনীর বিভিন্ন সম্মাননা দেওয়ার ক্ষেত্রে। পরবর্তী সময়ে তা সমাজের প্রভাবশালীদের নজরে এলে ধীরে ধীরে বিস্তার ঘটে জনসাধারণে। হ্যাট শুধু ফ্যাশন আর সম্মাননাতেই নয়, সূর্যালোক থেকেও তা নিশ্চিন্ত রাখে। তাই গ্রীষ্মের রোদে বাংলাদেশে হ্যাট ফ্যাশনের গুরুত্বটাও একটু বেশি। স্পোর্টসেও ব্যবহৃত হয় হ্যাট। তবে ফ্যাশনের জন্য তার বিচিত্রতা ভিন্ন। বিশ্বের সব রকম হ্যাটের ব্যবহার আমাদের দেশে না থাকলেও দেখা মেলে প্রচলিত কয়েকটির। বিভিন্ন গেটআপের জন্য নেওয়া উচিত ভিন্ন ভিন্ন হ্যাট।

হ্যাটের আছে প্রকারভেদ

সামার হ্যাট :এই হ্যাট অনেক ফ্যাশনেবল এক্সেসরিস। জিন্স এবং টি-শার্টের সঙ্গে তরুণ-তরুণীরা তাদের পছন্দের হ্যাট বেছে নিতে পারে।

গিয়ান্ট সান হ্যাট :হ্যাট মূলত দিনের বেলায় পরা হয়। আর এ ধরনের ফ্লপি হ্যাট শীতকালে ভালো মানায়। নিউজবয় হ্যাট :এই হ্যাট ভিন্টেজ মুভির হকার পরত। তাই এর নামকরণ করা হয়েছে নিউজবয়।

ইভিনিং হ্যাট :মেয়েরা শুধু রোদ থেকে সুরক্ষা পেতেই হ্যাট পরেন না, বরং পার্টিতে রয়েছে হ্যাট পরার স্টাইল। মিনি টপ হ্যাট, ককটেল জাতীয় হ্যাট মেয়েরা অনায়াসে পার্টিতে পরতে পারেন।

বেনি হ্যাট :বেনি হ্যাট কিন্ট হ্যাট নামে পরিচিত। আবার এটাকে স্কালি হ্যাটও বল হয়। সাধারণত শীতকালে এই হ্যাট ব্যবহৃত হয়।

ফ্লপি হ্যাট :এটি ক্ল্যাসিক হ্যাট। এই হ্যাটের কিনারা অনেক প্রশস্ত। রোদ থেকে রক্ষার জন্য ভালো।

টপ হ্যাট :আব্রাহম লিংকন প্রথম আমেরিকান, যিনি টপ হ্যাটের প্রচলন করেন। ১৯ ও ২০ শতক থেকে এই হ্যাটের জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি পায়।

থ্রিলবাই হ্যাট : আধুনিক ফ্যাশন ট্রেন্ডে জনপ্রিয় পপ তারকা মাইকেল জ্যাকসন তরুণদের মধ্যে এই হ্যাটের জনপ্রিয়তা ছড়িয়েছিলেন। এ ছাড়াও রয়েছে রানি হ্যাট, বেসবল হ্যাট, বাকেট হ্যাট, ক্লসি হ্যাট, ফ্ল্যাট হ্যাট, গলফ হ্যাট, পানামা হ্যাট, স্ট্র হ্যাট, ওয়াটারপ্রুফ হ্যাট।

ফেডোরা : এই হ্যাটের প্রচলন সারাবিশ্বের সঙ্গে বাংলাদেশেও বেশি দেখা যায়। একটু ফরমাল কাটের ফেডোরা পরা যায় বিভিন্ন ক্যাজুয়াল এবং ফরমাল পোশাকের সঙ্গে। ক্যাজুয়াল শার্ট ও প্যান্টের সঙ্গে খুব সহজেই মানিয়ে নেওয়া যায় ফেডোরা। তেমনি তা কোটি, বো-টাইয়ের মতো ফরমালেও খাপে খাপ। প্রায় এই কাছাকাছি গড়নের আরেকটি হ্যাটের নাম 'পানামা' হ্যাট।


কাউবয় হ্যাট : যারা একটু ড্যাশিং, ফাঙ্কি লুক পছন্দ করেন তাদের জন্য বিশ্বব্যাপী কাউবয় হ্যাটের রাজত্ব। একটু বড় আকারের হওয়ায় এই হ্যাট রোদের তীব্রতা থেকে বাঁচাতে বেশিই সহায়ক। কাউবয় গেটআপের সঙ্গেই বেশি মানায় এই হ্যাট। তবে কেউ চাইলে টি-শার্ট, কার্গো প্যান্ট ড্রেসআপেও নিতে পারেন।


বোলার : এই হ্যাটের চারদিকটা অনেক কম ছড়ানো থাকে। বোলারের সবচেয়ে ইতিবাচক দিক হচ্ছে, তা ছেলেমেয়ে উভয়েই পরতে পারে। ক্যাজুয়াল পোশাকেই বেশি মানানসই এ ধরনের হ্যাট। তবে পশ্চিমাদের অনেক সময় পার্টি টাইপের ফরমালে ব্যবহার করতে দেখা যায় বোলার। কোনো ক্ষেত্রে এই একই গড়নের অথবা একটু ভিন্ন গড়নের হ্যাটকে 'ডেরবি'ও বলা হয়ে থাকে। তবে ডেরবিতে ফ্লোরাল ডিজাইন থাকলে তা আবার শুধু মেয়েদের উপযোগী।


হোমবার্গ : মাঝারি গড়নের এবং খুবই ছিমছাম দেখতে হোমবার্গ হ্যাট। শুধু ফরমালে ব্যবহারের জন্য জুড়ি নেই হোমবার্গের। ফরমাল বলতে তা ছেলেদের শার্ট, প্যান্ট, কোট, টাই, পাইপার টাইপের ফরমাল বোঝায়। একই গেটআপে তা মানানসই মেয়েদের ক্ষেত্রেও। তবে বাংলাদেশের বাজারে খুব বেশি দেখা যায় না এ ধরনের হ্যাট।


ক্লোচি : একটু কম ছড়ানো আর সাধারণত ফুলেল ডিজাইনে সাজানো থাকে মেয়েদের হ্যাট ক্লোচি। ক্লোচি দেখা যায় বার্বির মাথায়। বাংলাদেশে লেডিস হ্যাটের মধ্যে সবচেয়ে বেশি প্রচলন এই হ্যাটের। সাধারণত গাউনের মতো জমকালো পার্টি ড্রেসের সঙ্গেই এই হ্যাটের চল দেখা যায় পশ্চিমা বিশ্বে। তবে আমাদের দেশে তা সাধারণ কোনো জমকালো পোশাকের সঙ্গেই মানানসই বলা চলে।

               কিনতে ক্লিক করুন                                              কিনতে ক্লিক করুন

হ্যাট শুধু ফ্যাশন কিংবা রোদের হাত থেকে রক্ষার জন্যই নয়, যারা খেলাধুলার কাজে ব্যস্ত থাকেন তাদের জন্য রয়েছে স্পোর্টস হ্যাট। তবে স্পোর্টস হ্যাট আকারে একটু বড় হয়। আর রঙের ক্ষেত্রেও রয়েছে বেশ বৈচিত্র্য। আপনার পছন্দের হ্যাট কিনতে পারেন যে কোনো ক্যাপের দোকান থেকে। ঢাকার বসুন্ধরা সিটি, নিউ মার্কেট, এলিফ্যান্ট রোড, ফার্মগেট, গুলশান, মিরপুরে পাবেন আপনার মনের মতো হ্যাট। আর স্পোর্টস হ্যাট কিনতে আপনাকে যেতে হবে স্পোর্টস সামগ্রী পাওয়া যায় এমন দোকানে। ফার্মভিউ মার্কেটের দোতলা থেকে আপনি সংগ্রহ করতে পারেন স্পোর্টস হ্যাট। এছাড়া দেশের সবচেয়ে বড় অনলাইন শপিং মল আজকের ডিলেও পেয়ে যাবেন আকর্ষনীয় সব হ্যাট। স্পোর্টস হ্যাট কিনতে দাম পড়বে ৪৫০ টাকা। এছাড়া ছেলেদের হ্যাটের দাম পড়বে ৩৪০-৩৭০ টাকা আর মেয়েদের ফ্যাশনেবল হ্যাটের দাম পড়বে ৫০০ থেকে ৮০০ টাকা। গ্রীষ্মকালে প্রচণ্ড রোদের হাত থেকে রক্ষা পেতে পাতলা হ্যাট পরা ভালো। হ্যাট পরার সময় মেয়েদের রঙ বাছাই করে পরা উচিত। এ ছাড়া ফেস এবং মুখের সঙ্গে মানায় এমন হ্যাট নির্বাচন করতে হবে। হ্যাট কোট এবং বেলেজারের সঙ্গে পরা যায়। হ্যাট পরার সময় ভদ্রতার বিষয় মাথায় রাখা উচিত। হ্যাট পরার পর নিয়মিত কোট ব্রাশ দিয়ে পরিষ্কার করতে হয়। মাঝে মাঝে ধুয়ে দিতে হবে।
 

*হ্যাট* *মেয়েদেরফ্যাশন* *হালফ্যাশন* *ফ্যাশন*

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

লং হোক কিংবা শর্ট, মেয়েদের সালোয়ার-কামিজের আবেদন এতটুকু কমেনি। যেকোনো উৎসব-পার্বণে সব বয়সী মেয়েদের পছন্দের পোশাক সালোয়ার-কামিজ। ঝামেলাবিহীন স্বস্তির পোশাক হিসেবে সালোয়ার-কামিজকেই বেছে নেন তাঁরা।  বরাবরই এর কাটিংয়ে থাকে ভিন্নতা এবং প্যাটার্নে আসে নতুনত্ব। 

ফ্যাশন সচেতন নারীরা সব সময়েই নতুন কিছুর খোঁজে থাকেন। তাই তাদের জন্য দারুণ কিছু সালোয়ার কামিজের খুটিনাটি নিয়ে আজকের পোস্ট >। 





























*সালোয়ারকামিজ* *কামিজ* *মেয়েদেরফ্যাশন* *সালোয়ার* *স্মার্টশপিং*

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

হাল ফ্যাশনে প্রতিনিয়তই চলছে পরিবর্তন। বিশেষ করে মেয়েদের ফ্যাশনে পোশাকের সাথে ম্যাচিং করে মানানসই বাহারি রংয়ের বিচিত্র নকশার ছোট বড় ব্যাগ অন্যতম অনুষঙ্গ হিসেবে পরিণত হয়েছে। স্টাইলিশ ব্যাগ সাথে না থকলে ফ্যাশনটাই যেন মাটি হয়ে যায়।  তাইতো ক্রেতাদের চাহিদা অনুযায়ী দোকান ও শপিংমলে বাহারি ডিজাইনের সব ব্যাগের কালেকশনের রেখেছে। দোকানগুলোতে বিভিন্ন নকশা এবং রংয়ের আধিক্য দেখলেই বোঝা যায় বর্তমান ফ্যাশনে ব্যাগের বেশ জনপ্রিয়তা রয়েছে। আজকের আয়োজন লেডিস ব্যাগ নিয়ে। বর্তমান ফ্যাশনে কোন ব্যাগ গুলো চলছে চলুন জেনে নেই।

স্টাইলিশ লেডিজ ব্যাগ
আর্টিফিশিয়াল লেদার এ তৈরী স্টাইলিশ ও ট্রেন্ডি ব্যাগ গুলো বর্তমানে বেশি চলছে। এই ব্যাগ গুলো খুব একটা লম্বা না। এটি আদুনিকতার সাথে মানানসই। পোশাকের রংয়ের সঙ্গে মানানোর পাশাপাশি এখন কন্ট্রাস্ট স্টাইলেও ব্যাগ নিতে পছন্দ করেন অনেকে। সেক্ষেত্রে জুতো, ঘড়ি বা অন্যকোনো অনুষঙ্গের সঙ্গে মানিয়ে ব্যাগ বাছাই করা যেতে পারে। লেডিস এই ব্যাগ গুলোর অনেক গুলো কালেকশন রয়েছে রয়ের নানান রংয়ের কম্বিনেশন।

ট্রেন্ডি লেডিজ ব্যাগ
শর্ট সাইজের ট্রেন্ডি লেডিস ব্যাগ গুলো এখন বেশি চলছে। আর্টিফিশিয়াল লেদার এ তৈরী এই ব্যাগগুলো ফ্যাশনের অন্যতম অনুসঙ্গী। শাড়ি আর বিভিন্ন পার্টিওয়্যারের সঙ্গে এই ধরনের লেডিজ ব্যাগ বেশ মানানসই।। নিজের পছন্দের ড্রেসের সঙ্গে ম্যাচিং করে নেওয়া যেতে পারে ব্যাগটি। আরামদায়ক স্ট্র্যাপ রয়েছে ব্যাগটিতে। তাছাড়াও চাহিদা অনুযায়ী বিভিন্ন উইডথ এর ব্যাগ শপিংমল গুলোতে পেয়ে যাবেন। 

লেডিজ লেদার ভ্যানিটি ব্যাগ
বাইরে বের হতে মেয়েদের সঙ্গে থাকতে হয় অতি প্রয়োজনীয় কিছু জিনিস যার মধ্যে ভ্যানিটি ব্যাগ অন্যতম। মেয়েদের ফ্যাশনে বেশ বড়সড় জায়গায়ই দখল করে নিয়েছে নানা রকম ভ্যানিটি ব্যাগ। রেপ্লিক, কাপুড় এবং চামড়ার বিভিন্ন ধরনের লেডিজ ভ্যঅনিটি ব্যাগ পাওয়া যায়। তবে ফ্যাশনে চাড়াটাকেই সবাই পাধান্য দেয়। ছবির এই ব্যাগটি ১০০% লেদার এলিগ্যান্ট। বাহারি ডিজাইনের এই ব্যাগে টাকা-পয়সা ও প্রয়োজনীয় জিনিস-পত্র রাখার জন্য রয়েছে কয়েকটি চেম্বার। বহনের সুবিধার জন্য রয়েছে হ্যান্ডেল।

লেদার ব্যাগ
সবসময়ই চামড়ার তৈরি জিনিসের কদর কিছুটা বেশি। ব্যাগের ক্ষেত্রেও তাই। এক রঙা হালকা নকশার চামড়ার ব্যাগের দাম তুলনামূলক বেশি। তবে ভালো চামড়ার ব্যাগ অনেকদিন টেকসই থাকে। তাছাড়া চামড়ার ব্যাগ ভিন্ন ধরনের ব্যক্তিত্ব ও রুচিশীলতা প্রকাশ করে। পার্টি, অফিস বা বিশ্ববিদ্যালয়ে সব জায়গায় চামড়ার ব্যাগ দারুণ মানিয়ে যায়। বাজারে কালো, বাদামি, লাল, নেভি-ব্লুসহ বিভিন্ন রংয়ের ব্যাগ পাওয়া যাচ্ছে। ছবির এই ব্যাগটি বেশ ফ্যাশনেবল ও স্টাইলিশ। ব্যাগটি আপনি এখনি কিনে নিতে পারেন।

লেডিজ প্রিন্টেড লেদার হ্যান্ডব্যাগ
চমকপ্রদ সব ছবি সম্বলিত প্রিন্টেড লেদার ব্যাগ বাজারে পাওয়া যাচ্ছে। ব্যাগগুলো বেশ স্টাইলিশ ও ফ্যাশনেবল। যারা স্টাইলিশ ফ্যাশনে অভ্যস্থ তারা ব্যাগটি সংগ্রহে রাখতে পারেন। ছবির এই ব্যাগটিতে রয়েছে: 
-ল্যাপটপের জন্য আলাদা চেম্বার
-দুইটি পানির বোতল রাখার পকেট দুপাশে
-ম্যাটেরিয়াল-পিউ লেদার
-স্কুল কলেজ বিশ্ববিদ্যালয় বা যেকোন পার্টিতে ব্যাবহারোপযোগী

সবধরনের লেডিস ব্যাগ কিনতে নিচের লিংকটিতে ক্লিক করুন
*ব্যাগ* *ব্যাগফ্যাশন* *মেয়েদেরফ্যাশন* *শপিং* *স্মার্টশপিং*

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

ধর্মভীরু প্রতিটি নারীর পছন্দের একটি পোশাক হলো হিজাব। মাথার চুল ঢেকে রাখাই এই হিজাবের মুখ্য উদ্দেশ্য। হিজাব যেমন পর্দা করার জন্য উপকারি, ঠিক তেমনি এর রয়েছে আরও অনেক উপকারি দিকও। শুধু বোরকার সাথে নয়, হিজাব পরতে পারেন শাড়ি, কামিজ, কুর্তা বা অন্য যে কোনো পোশাকের সাথে। স্কুল কলেজ সহ সকল কর্মস্থলে মেয়েরা অনায়াসে ব্যবহার করতে পারেন হিজাব।























*হিজাব* *পর্দা* *আধুনিকহিজাব* *মেয়েদেরফ্যাশন* *স্মার্টশপিং*

বেশতো সাইট টিতে কোনো কন্টেন্ট-এর জন্য বেশতো কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

কনটেন্ট -এর পুরো দায় যে ব্যক্তি কন্টেন্ট লিখেছে তার।

...বিস্তারিত

QA

★ ঘুরে আসুন প্রশ্নোত্তরের দুনিয়ায় ★