মোবাইলফটোগ্রাফি

মোবাইলফটোগ্রাফি নিয়ে কি ভাবছো?

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

স্মার্টফোনের এই যুগে মোবাইল দিয়ে ছবি কিংবা সেলফি তুলতে ভালবাসে না এমন মানুষ নেই বললেই চলে। আর তাই সৌখিন সেইসব মোবাইল ফটোপ্রেমীদের ছবি তোলার সুবিধার্থে বাজারে এসেছে আকর্ষণীয় কিছু  গ্যাজেট। সে সব স্মার্ট গ্যাজেটগুলো নিয়েই আজকের পোস্ট। 



ব্লু-টুথ সেলফি স্টিক
৭০০ টাকা
সব ফোনের সাথে কমপ্যাটিবল হোল্ডার 
৩.৫ ফিট পর্যন্ত এক্সটেন্ডেবল 
মনোপড অ্যাডজাস্টেবল বলহেড ও থাম্ব-স্ক্রু 
মাল্টিপল অ্যাঙ্গেল শুটিং 
১৮০° রোটেটিং পজিশন 
ওয়্যারলেস ব্লু-টুথ রিমোট কন্ট্রোল 
৪২" (১০৭ সেমি) পর্যন্ত স্ট্রেচেবল)






ক্যাপচার স্টিক
৪০০ টাকা
সেলফ-টাইমার ও ট্রাইপড সকেট আছে এমন ডিজিটাল ক্যামেরার সাথে কমপ্যাটিবল
ক্যামেরা ইন্টারফেস: ইউনিভার্সেল 1/4
স্ক্রু ম্যাটেরিয়াল: স্টেইনলেস স্টীল
এক্সটেন্ডিং সাইজ: আনুমানিক ১০৯ সেমিরিট্র্যাক্টিং 
সাইজ: আনুমানিক ২২ সেমিথাম্ব 
স্ক্রু লক -এর সাহায্যে অাপনি ১৮০ ডিগ্রি অ্যাঙ্গেলে ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে ছবি তুলতে পারবেন
সর্বোচ্চ লোড: ৫০০ গ্রাম





পোর্টেবল 16 LED সেলফি ফ্ল্যাশলাইট
৪৫০ টাকা
পোর্টেবল 16 LED সেলফি ফ্ল্যাশলাইট আর দিনে নয় এখন সেলফি তুলুন রাতের বেলায় এই সেলফি ফ্ল্যাশলাইট দিয়ে





ব্লুটুথ রিমোট শাটার
৫০০ টাকা
সেলফি তোলার জন্য ব্যবহার করুন 
Android , iOS সাপোর্টেড





মনোপড সেলফি স্টিক উইথ ব্লু-টুথ
১,৫০০ টাকা
ব্লু-টুথ ভার্সন: V3.0
রিমোট রেঞ্জ: ১০ মিটার পর্যন্ত (৩০ ফিট)
ফ্রিকোয়েন্সী: 2.4GHz-2.4835GHz
ব্যাটারি লাইফ: প্রায় ৬ মাস (দিনে ১০ বার)





16 LED সেলফি ফ্ল্যাশলাইট
২৯৯ টাকা
সব স্মার্টফোনের সাথে কমপ্যাটিবল পোর্টেবল সেলফি ফ্ল্যাশলাইট
ডাইমেনশন্স: ৩৮x৩৮x১০ মিমি
১৬টি LED লাইট
৩.৫ মিমি জ্যাকI
OS, অ্যান্ড্রয়েড, WP8, iblazr সাপোর্ট করে
ওজন: ১৫ গ্রাম
১ বার ফুল চার্জে ৫০০ বার ছবি তোলা যাবে





মোবাইল ফোন ক্যামেরা লেন্স
৫৬০ টাকা
পোর্টেবল ক্লিপ-অন মোবাইল ফোন ক্যামেরা লেন্স
 (Wide Angle + Marco + Fish eye Lens) 
 Lens১৮০ডিগ্রী field-of-view তে অসাধারণ ছবি তুলতে সক্ষম এর Wide-angle Lens সাধারণ আই ফোনের চেয়ে দ্বিগুন field-of-view কভার করে
Macro Lens টি ollo clip এ দারুনভাবে এটাচ করে যা wide-angle lens টিকে না সরিয়েই ব্যবহার করা যায়
১৩মিমি বা এর এর চেয়ে কম ডায়ামিটার বিশিষ্ট ক্যামেরা লেন্স আছে এরকম অধিকাংশ মোবাইল ফোনে ব্যবহার করা যাবে।

উপরের কোন আইটেম অনলাইনে কিনতে চাইলে নিচের লিংকে যান।
*ফটোগ্রাফি* *সেলফি* *মোবাইলফটোগ্রাফি* *গ্যাজেট* *প্রযুক্তিপণ্য*
ছবি

ইমরান নাজির লিপু: ফটো পোস্ট করেছে

৫/৫

খড়ের গাদা - অসাধারন একটি গ্রামীণ ‍চিত্র

ছবিটি নেয়া www.chhobimela.com থেকে।

*গ্রামীণছবি* *গ্রামেরছবি* *মোবাইলফটোগ্রাফি*

নাহিন: একটি বেশব্লগ লিখেছে

ছবি তোলার ব্যাপারে আমাদের সবারই কম বেশি আগ্রহ আছে । আমাদের অনেকের যেমন নিজের ছবি তুলতে ভালো লাগে, সেই সাথে অন্যর ছবি তুলতে আরো বেশি ভালো লাগে। সামাজিক সাইটগুলার কল্যানে এখন ছবি তোলার ঝোক বেড়ে গেছে। কিভাবে ভালো ছবি তোলা যায় সেইটা জানা থাকলে আমরাও প্রফেশনাল ফটোগ্রাফার এর মত ভালো ছবি তুলতে পারবো । ভালো ছবি কিভাবে তুলতে হয় তা নিয়েই আলোচনা ….

 
ভালো ছবি তোলার কিছু বেসিক কৌশল

* দিনের আলোতে ছবি তুলতে হলে সকালে অথবা বিকেলে ছবি তুললে ভালো হয়। সূর্য ওঠা থেকে দুই ঘণ্টা পর্যন্ত এবং ডুবে যাওয়ার আগের দুই ঘণ্টার মধ্যে ছবি তোলা ভালো। তবে বিশেষ ঘটনা বা সংবাদচিত্রের ক্ষেত্রে এ নিয়ম মেনে চলা যায় না।
* সবচেয়ে ভালো হয়, ভোরবেলা অথবা সন্ধ্যার আগে আগে ছবি তুললে। তখন ছবিতে অনেক ভালোভাবে আলোর ব্যবহার করা যায়। সকালে ও বিকালে সূর্যের আলো কিছুটা হেলে পড়ার কারণে আলো-ছায়ার পার্থক্য অনেক ভালোভাবে ধরা যায়।

* সকালে বা বিকেলে মানুষের মুখোচ্ছবি (পোর্ট্রেট) তুললে ভালো ছবি পাওয়া যায়।
* বিয়েবাড়িতে ছবি তুলতে হলে ফ্ল্যাশ লাইট কম ব্যবহার করুন। বিয়েবাড়িতে সাজগোজের ক্ষেত্রে মেকআপের ব্যবহার বেশি হওয়ায় ফ্ল্যাশের আলো দিয়ে ছবি তুললে ছবি খারাপ হওয়ার আশঙ্কা বেশি থাকে। এ ক্ষেত্রে ক্যামেরার সঙ্গে থাকা (বিল্ট-ইন) ফ্ল্যাশ দিয়ে ছবি তুললে ছবি ভালো পাওয়া যাবে।
* ছবি তোলার সময় ছবির পেছনে সাদা রং না রাখাই ভালো।


* আপনি কী তুলবেন, সেটা সবার আগে আপনার মাথায় নিয়ে আসতে হবে। প্রথমেই ছবি তোলার বিষয়বস্তু ঠিক করতে হবে।
* পোর্ট্রেটের ক্ষেত্রে আপনি যার ছবি তুলবেন, তার মুখের যে দিকটা দেখতে সুন্দর, সেদিকে খেয়াল করে ছবি তুলতে পারেন।
* কোনো শিশুর ছবি তুলতে হলে তার আকারের (উচ্চতা) কথা চিন্তা করে ছবি তুলুন।

* কোনো ব্যক্তি যদি রেগে থাকেন, সেই অবস্থায় ছবি না তোলাই ভালো। আনন্দময় অভিব্যক্তির ছবি তুললে যে কারোরই ছবি ভালো হবে।
* কোনো অনুষ্ঠানের ছবি তুলতে হলে (বাড়িতে কারও নাচের ছবি) তার বিভিন্ন অঙ্গভঙ্গির ছবি তোলার চেষ্টা করতে হবে। তা হলে কোনো একটি ভালো ছবি পেয়ে যাবেন।
* গ্রুপ ছবিতে যেন সবাই সাবলীল থাকে, সেভাবে ছবি তুলবেন। যেন ছবিটায় একটা আনন্দময় অনুভূতি পাওয়া যায়।
* ফুলের সঙ্গে ছবি তুলতে হলে, যার ছবি তুলবেন সে যেন সাবলীল ও হাস্যোজ্জ্বল থাকে।
* বেশি আলোতে ছবি তুললে, যার ছবি তুলবেন তার চোখেমুখে আলো পড়ে খারাপ যাতে না দেখায় সেদিকে লক্ষ রাখুন।

* দর্শনীয় স্থাপনার ছবি তুলতে গেলে (সংসদ ভবন, শহীদ মিনার) স্থাপনা থেকে কিছুটা দূরে এসে ছবি তুললে ভালো হয়। স্থাপনা থেকে দূরে এসে ছবি তুললে সেটির আশপাশের অনেক কিছুই ভালোভাবে তোলা যাবে।

* মনোরম প্রাকৃতিক দৃশ্যের ছবি তুলতে গেলে পুরো দৃশ্য আসে—এমন জায়গা থেকে ছবি তুললে অনেক ভালো ছবি পাওয়া যাবে।
* বাইরে সূর্যের আলোতে ছবি তুলতে হলে লক্ষ রাখবেন, ক্যামেরার লেন্সে যেন কোনোভাবেই আলো প্রবেশ না করে।
* সমুদ্রের পানিতে সূর্যের ছবি তোলার জন্য ক্যামেরায় জুম লেন্স ব্যবহার করতে পারেন। এতে সূর্যের অনেক ভালো ছবি তোলা যাবে।
* কক্সবাজারে সূর্য ওঠার সময় থেকে সকাল ১০টার মধ্যে অনেক ভালো ছবি পাওয়া যাবে।
* প্রখর রোদে (বেলা ১১টা থেকে বিকেল তিনটা পর্যন্ত) ছবি না তোলাই ভালো।


* গ্রুপ ছবি তোলার সময় ক্যামেরায় ওয়াইড লেন্স ব্যবহার করলে ভালো।
* দূরের ছবি তোলার জন্য টেলিলেন্স ব্যবহার করলে অনেক ভালো ছবি পাওয়া যায়।
* কোনো পোর্ট্রেট বা শিশুর ভালো ছবি তুলতে হলে, তাকে না জানিয়ে ছবি তুলুন।এতে স্বাভাবিক ছবি পাওয়া যাবে। তাই যার ছবি তুলবেন, তাকে না জানিয়ে তুলুন।
* ক্যামেরা দিয়ে ভালো ছবি তুলতে চাইলে, ছবি তোলাকে ভালোবাসতে হবে।
* ছবি নিয়ে সৃষ্টিশীল কাজ করতে চাইলে অন্তর্দৃষ্টি অনেক বেশি প্রখর হওয়া প্রয়োজন।

* আপনি যে বিষয়টি নিয়ে ছবি তুলতে চান, সেটা আগে থেকে ঠিক করে নিন।
* ছবিতে কী রাখবেন, কী রাখবেন না, সেটা আগে থেকে পরিষ্কার চিন্তা করতে হবে।

* কারও পোর্ট্রেট সরাসরি না তোলার চেয়ে কিছুটা কৌণিকভাবে ডানে-বাঁয়ে ঘুরিয়ে তুললে ছবিটা খুব ভালো হবে।
* যার ছবি তুলবেন, তার চোখে যদি চশমা থাকে, খেয়াল রাখুন চশমা থেকে আলোর প্রতিফলন যেন না হয়।
* রাতে ছবি তোলার সময় ফ্ল্যাশ ব্যবহার করতে পারেন। আলো থাকলে ফ্ল্যাশ ব্যবহার না করে ছবি তোলার চেষ্টা করুন। তখন আইএসও বাড়িয়ে দিতে পারেন।
* অনেকে ২১ ফেব্রুয়ারি শহীদ মিনারের ছবি তুলতে পছন্দ করেন। শহীদ মিনারের ছবি তুলতে হলে ভোরের আগে যেতে হবে। এ সময় অনেক ভালো ছবি পাওয়া যাবে।
* আলোকসজ্জার ছবি তুলতে চাইলে একেবারে অন্ধকারে না গিয়ে আকাশের আলো বা অন্য আলোর সঙ্গে তুললে ভালো ছবি পাওয়া যাবে।
* পয়লা বৈশাখে অনেক বেশি রঙের ব্যবহার করা হয়। তাই মানুষ, পোশাক, মুখোশ বা শোভাযাত্রার ছবি তোলার জন্য সকালটাকে বেছে নিতে হবে।
* যার ছবি তুলবেন, তার থেকে যেন পটভূমির (ব্যাকগ্রাউন্ড) আলো বেশি উজ্জ্বল না হয়।

* কারও পোর্ট্রেট তুলতে চাইলে, ঘুমের পরে ছবি তুললে অনেক ভালো ছবি পাওয়া যাবে।
* পোর্ট্রেট তোলার সময় লক্ষ রাখতে হবে, যার ছবি তুলবেন সে যেন কখনো মূর্তির মতো হয়ে না থাকে। তাকে সাবলীল রাখার চেষ্টা করুন।
* পেশাদার আলোকচিত্রি হতে চাইলে অনেক বেশি ছবি তোলার দরকার নেই। কম ছবি তোলার মধ্যে আপনার চাহিদামতো ছবিটি পেয়ে যেতে পারেন।
* বিশেষ পেশা বা কারণ ছাড়া অনেক বেশি ছবি তুললে আপনার সৃষ্টিশীলতা কমে যেতে পারে। তাই কম ছবি তুলে উপযুক্ত ছবিটি নির্বাচন করাই ভালো।

তথ্যসুত্র : জেনেসিসব্লগ

*ফটোগ্রাফি* *শখেরফটোগ্রাফি* *মোবাইলফটোগ্রাফি*
ছবি

তোফায়েল আহমদ: ফটো পোস্ট করেছে

৫/৫

আপনি কি টক (বড়ই) খেতে পছন্দ করেন, যদি করে থাকেন তাহলে এগুলো আপনার জন্য (খুকখুকহাসি)

*ফটোগ্রাফি* *মাইফটোগ্রাফি* *শখেরফটোগ্রাফি* *মোবাইলফটোগ্রাফি* *তোফায়েল-ফটোগ্রাফ*
ছবি

তোফায়েল আহমদ: ফটো পোস্ট করেছে

মনোমুগ্ধকর এক মুহূর্ত!

*মোবাইলফটোগ্রাফি* *তোফায়েল-ফটোগ্রাফ*
ছবি

সাইফ: ফটো পোস্ট করেছে

৫/৫

(মেঘ)(মেঘ) মেঘলা আকাশ (মেঘ)(মেঘ)

*মোবাইলফটোগ্রাফি* *শখেরফটোগ্রাফি*

আমানুল্লাহ সরকার: একটি বেশব্লগ লিখেছে

প্রয়োজনে, অপ্রয়োজনে কিংবা শখের বসে আমরা অনেকেই মোবাইল দিয়ে ছবি তুলি। প্রতিদিনকার এসকল ছবি আপনার কি কোন কাজে আসে? মেমোরী কার্ডে ছবির পরিমান বেশী হয়ে গেলে আপনি কি ডিলেট করে দেন? আপনি যদি এই কাজ দুটি করে থাকেন তাহলে আপনাকেই বলছি আজ থেকে তা করবেন না কারন আপনি আপনার মোবাইলে তোলা ছবি গুলো কাজে লাগিয়ে  অনেক টাকা আয় করতে পারেন! চলুন দেখে নিই সেগুলোকে কিভাবে কাজে লাগিয়ে টাকা আয় করবেন।

গতানুগতিক ফটোগ্রাফি সাইটগুলোতে শুধুমাত্র উচ্চমানের ও ডিএসএলআরে তোলা ছবি গ্রহন করা হয়। সেই সাথে ছবি বিক্রির পর ফটোগ্রাফার সম্মানি পেয়ে থাকেন।
আপনি চাইলে www.phonestockfoto.com এর মতো সাইটে আপনার মোবাইলে তোলা ছবি বিক্রি করতে পারেন। প্রতিটি ছবির জন্য মোটামুটি ৫ ডলার পর্যন্ত পাওয়া যায়।

ছবির মান যত ভালো হবে তত আয় বাড়বে।
একই রকম আরেকটি সাইট হল www.roomtheagency.com . এখানেও আপনি ছবি বিক্রি করতে পারেন।

*মোবাইলফটোগ্রাফি* *ফটোগ্রাফি* *মোবাইল*

আমানুল্লাহ সরকার: একটি বেশব্লগ লিখেছে

বর্তমানে ফটোগ্রাফি মানেই মোবাইল ফোন। ছবি তুলতে মোবাইল ফোন অনন্য এক ডিভাইসের নাম। আর স্মার্টফোন সঙ্গে থাকলে ছবি তোলার জন্য এখন আলাদা করে ক্যামেরা প্রয়োজন পড়ে না। কিন্তু মোবাইল ফোন ব্যবহার করে কিভাবে ভাল মানের ছবি তোলা যায় তা অনেকেই জানে না। তাইতো আজকে আপনাদের সাথে কিছু পরামর্শ শেয়ার করব আশাকরি কিভাবে মোবাইলে ভাল ছবি তোলা যায় সে সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পারবেন। চলুন তাহলে জেনে নেওয়া যাক...

লেন্স পরিষ্কার করুন

স্মার্টফোন সাধারণত অনেকক্ষণ হাতে,পকেটে বা ব্যাগে থাকে তাই লেন্সের ওপর তেল-ময়লা জমতে পারে। ছবির ওভারল্যাপিং বন্ধ করতে লেন্স পরিষ্কার করুন। লেন্স পরিষ্কার করার সময় যাতে দাগ না পড়ে সেদিকে সতর্ক থাকুন।

কাঁপা কাঁপা হাতে ছবি ভালো হয় না
ঝড়ো আবহাওয়া বা তীব্র শীত হাত কাঁপছে! হাত কাঁপলে ছবি ভালো হবে না। ছবি তোলার সময় স্থির হয়ে ছবি তুলুন। ছবি তোলার সময় ফোনটির ভারসাম্য ঠিক রাখা জরুরি।

আলোকে বন্ধু ভাবুন
স্বাভাবিক আলো ছবির জন্য ভালো। কিন্তু অনেক সময় স্বাভাবিক আলো অন্য বস্তুর ওপর ছায়া ফেলে। ছবির অতিরিক্ত আবছাভাব দূর করতে দিনের বেলাতেও ফ্ল্যাশ ব্যবহার করতে পারেন। আপনার ক্যামেরায় যদি পরিবেশ পরিস্থিতি অনুযায়ী আলো ঠিকঠাক করে নেওয়ার সুবিধা থাকে তবে অ্যাপ্লিকেশনের সাহায্য নিন। এতে আপনার ছবি হোয়াইট ব্যালান্স ঠিক করে নিতে পারবে।

বিভিন্ন কোণ থেকে চেষ্টা করতে পারেন
যখন আলো নিয়ে আপনার বিশেষ কিছু করার থাকবে না বা আপনার পছন্দ অনুযায়ী শট নিতে পারবেন না তখন ভিন্ন কোন থেকে চেষ্টা করে দেখতে পারেন। সাধারণ নিয়ম হচ্ছে, যদি একই বস্তু বা দৃশ্যের একাধিক ছবি তোলার সুযোগ থাকে তখন বিভিন্ন কোণ থেকে তা করা উচিত্। এতে আপনার কাঙ্ক্ষিত ছবিটি ঝাপসা বা অনেক বেশি আবছা এলেও বিভিন্ন কোন থেকে তোলা ছবি ব্যাকআপ হিসেবে থাকবে যা কাজে লাগবে। 

আপনার ক্যামেরা ফোনের সর্বোচ্চ রেজুলেশন ব্যবহার করুন
আপনার স্মার্টফোনে যদি ছবির আকার বাড়ানো কমানোর অপশন থাকে সেক্ষেত্রে সর্বোচ্চ মাপের ছবি তুলুন। সাধারণত ছবি যত বড় হবে তত বেশি ডিটেইল আপনার ছবিতে ধারণ করতে পারবেন। ছবি রিসাইজের সুবিধা পেতে এবং ঝকঝকে পরিষ্কার ছবি পাওয়ার জন্য সর্বোচ্চ রেজুলেশনের ছবি তোলার বিকল্প নেই।

ডিজিটাল জুম পরিহার করুন
তত্ত্বের ক্ষেত্রে ডিজিটাল জুম ভালো একটি ধারণা হতে পারে কিন্তু বাস্তব ক্ষেত্রে ডিজিটাল জুম করে তোলা ছবিটি আশানুরূপ নাও হতে পারে। পক্ষান্তরে আপনি যে বস্তুর ছবি তুলছেন তার কাছে গিয়ে আপনার সাবজেক্টের ছবি তুলতে পারেন এবং যদি ক্ষুদ্র কোনো বস্তুর পরিষ্কার ছবির ক্লোজ শট দরকার হয় তখন তার কাছে গিয়ে জুম ব্যবহার করতে পারেন। যতটা সম্ভব কাছাকাছি গিয়ে ছবি তোলা ভালো।

শুটিং মোড পরীক্ষা করুন
কোনো ক্ষুদ্র বস্তুর পরিষ্কার ছবি তোলার সময় ম্যাক্রো মোডে তুলতে পারেন। ক্যামেরা অ্যাপ্লিকেশনে এই মোডটি পাবেন।

বন্ধুরা আশাকরি টিপস গুলো আপনারা ভাল ভাবে আয়ত্ব করেছেন। তাহলে আজ থেকে টিপস গুলো কাজে লাগানে শুরু করে দিন দেখবেন আপনার ফটোগ্রাফির দক্ষতা বেড়ে যাবে।
*মোবাইলফটোগ্রাফি* *ফটোগ্রাফি* *ফটোগ্রাফিটিপস*

আমানুল্লাহ সরকার: একটি বেশব্লগ লিখেছে

তথ্য প্রযুক্তি এখন আমাদের হাতের মুঠোয়। তাইতো ফটোগ্রাফির চমকপ্রদ কাজটিও হাতের মুঠোয় থাকা মোবাইল ফোনটির মাধ্যমে সম্পন্ন হচ্ছে। ছবি তোলা এখন শুধু পয়েন্ট অ্যান্ড শুট অথবা ডিএসএলআরের মধ্যেই সীমাবদ্ধ নেই। স্মার্টফোন ও অ্যান্ড্রয়েডের যুগে মোবাইল ফটোগ্রাফি বেশ জনপ্রিয়তা পেয়েছে। পারিবারিক ছবি, ভ্রমনের ছবি ও প্রফেশনাল ছবি সহ সব ধরনের ছবি তোলার জন্য মোবাইল ডিভাইস ব্যবহারিত হচ্ছে। মোবাইল ডিভাইসেও যে ভাল ছবি তোলা সম্ভব এ বিষয়ে কোন সন্দেহ নেই কিন্তু মোবাইল ডিভাইসে প্রফেশনাল ফটোগ্রাফির জন্য চাই একটু অভিজ্ঞতা। আপনাদের মোবাইল ফটোগ্রাফির অভিজ্ঞতাটা একটু বাড়াতে আজ প্রফেশনাল মোবাইল ফটোগ্রাফির দারুন কিছু টিপস তুলে ধরব। আশা করি নিম্নক্তো টিপস গুলি আপনার কাজ লাগবে।

১। ফটোগ্রাফির বেসিক নিয়ম গুলো জানুনঃ

ফটগ্রাফির কিছু বেসিক নিয়ম কানুন রয়েছে, আপনি ইন্টারনেট ঘাটলেই বিষয়গুলো বিস্তারিত জেনে নিতে পারবেন। যেমন ধরুন, সূর্যের সাত নিয়ম, রুল অফ থার্ড – ইত্যাদি। এগুলো জেনে নেয়ার মাধ্যমে আপনি সহজেই ভালো ফ্রেম নির্ধারন করতে পারবেন এবং ছবি তোলার পর অন্তত আগের কম্পোজিশন গুলোর ভিন্নতা আপনি নিজেই ধরতে পারবেন। এই বেসিক নিয়ম গুলো আপনার ফটোগ্রাফির বেস শক্ত করে নিতে (ভিত্তি) পারবেন এবং এই নিয়ম গুলো মেনে ছবি তুললে অতি সাধারণ একটি ছবিকেও অন্যের কাছে গ্রহণযোগ্য করে তুলতে পারবেন।

২। আলোর কথা মাথায় রাখুনঃ
মোবাইল ফোনের ক্যামেরায় এখনো একটি সীমাবদ্ধতা রয়েই গিয়েছে। বেশির ভাগ মোবাইলের ক্যামেরাই লো-লাইটে ভালো ছবি তুলতে সক্ষম নয়। তাই ছবি তোলার ক্ষেত্রে প্রথমে এমন একটি দিক নির্বাচন করুন যেন সেই দিকের বিপরীতে অবজেক্টকে রাখলে অন্তত ক্যামেরা প্রয়োজনীয় আলো পেতে পারে। স্থির সাবজেক্টের ক্ষেত্রে আপনি আপনার অবস্থান পরিবর্তন করার চেষ্টা করে দেখতে পারেন। ‘সিল্যুয়েট’ ফটোগ্রাফির ক্ষেত্রে এই দিক নির্দেশনা বিপরীত হবে।

৩। লেন্স পরিষ্কার রাখুনঃ
মোবাইল ব্যবহার করতে করতে এক সময় দেখা যায় মোবাইলের বডিতে স্ক্র্যাচ (দাগ) পড়েছে। এবং ক্যামেরা পিছনে থাকায় ক্যামেরার উপরের নিরাপত্তা স্তরেও দাগের কারণে ছবি ঝাপসা আসতে পারে। এর জন্য হয় এমন কিছু ব্যবহার করুন যা আপনার মোবাইলটির ক্যামেরা প্রোটেক্ট করতে পারে। এবং যদি দাগ পড়েই যায় তবে আপনি ছবি তোলার সময় ব্যাক কভার (সব মডেল আবার এক নয়) খুলে ছবি তুলতে পারেন। আর, মোবাইলের ক্যামেরার লেন্সের উপর মাঝে মাঝে ধুলোবালি বা জলীয় বাষ্প জমে যেতে পারে,তাই মাঝে মধ্যেই লেন্স পরিষ্কার করুন।

৪। ডিজিটাল জুম ব্যবহার করবেন নাঃ
নিশ্চয়ই খেয়াল করেছেন আপনার মোবাইল ক্যামেরায় ছবি তোলার সময় জুম করে ছবি তুললে বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই ছবির মান যাচ্ছেতাই হয়। কেননা, মোবাইলের ক্যামেরা গুলোতে ডিজিটাল জুম ব্যবহার করা হয়ে থাকে ফলে জুম ব্যবহার করলে ছবি ফাটা ফাটা আসে এবং ছবিতে প্রচুর পরিমানে আইএসও দেখা যায়। তাই, চেষ্টা করবেন জুম না করে ছবি তোলার। দরকার হলে যতটা সম্ভব সাবজেক্টের কাছে গিয়ে ছবি তুলে দেখতে পারেন।

৫। ফ্ল্যাশ ব্যবহারে সতর্ক হনঃ
এখন প্রায় মোবাইলের ক্যামেরা ইউনিটেই এলইডি ফ্ল্যাশ থাকে। ফ্ল্যাশে ব্যবহারে আপনার সতর্ক থাকা উচিৎ। কেননা, অটো ফ্ল্যাশ নামে যে অপশনটি ক্যামেরা অ্যাপে ইন্টিগ্রেট করা থাকে তা মাঝে মধ্যেই সঠিক ভাবে কাজ করেনা। দেখা গেল, আপনি ছবি তুলছেন দিনের আলোয় যেখানে পর্যাপ্ত আলো রয়েছে। কিন্তু আপনার মোবাইলের ফ্ল্যাশটা তবুও জ্বলে উঠে আপনার ছবিতে ১২টা বাজিয়ে দিল। আবার ধরুন, অন্ধকারে যখন আপনার ফ্ল্যাশ দরকার তখন হঠাত করে ফ্ল্যাশের অটো মোড কাজ করলো না। তাই, ফ্ল্যাশ ব্যবহার করতে চাইলে আপনার প্রয়োজন বুঝে হয় ফ্ল্যশ অন অথবা ফ্ল্যাশ অফ মোডে ব্যবহার করা উচিৎ। আর আপনার যদি ফ্ল্যাশের আলোটা কিছুটা রাফ মনে হয় বা নির্দিষ্ট একটি মুহুর্তের জন্য অতিরিক্ত মনে হয় তবে আপনি ফ্ল্যাশের সামনে একটি সাদা টিস্যু পেপার ব্যবহার করতে পারেন, ভালো ফল পাবেন।

৬। রেজ্যুলেশন সেটিংস খেয়াল করুনঃ

আপনি আপনার ক্যামেরা অ্যাপের অপশনে গিয়ে বিভিন্ন রকম অপশন দেখতে পারবেন, যার মাঝে ছবির কোয়ালিটি এবং রেজ্যুলেশন নির্ধারন করে দেয়া যায়। আপনার মনে প্রশ্ন আসতে পারে ‘যে এখনো কেন রেজ্যুলেশনে ৬৪০x৪৮০ দেয়া থাকে?’ আসলে, আপনিতো আর একই পারপাসে ছবি তুলবেন না। ভিন্ন ভিন্ন কারণে আপনি একেক রেজ্যুলেশন নিয়ে কাজ করতে পারেন। যেমন, আপনি একজনকে একটি ছবি তুলে এমএমএস পাঠাতে চাইছেন। তখন আপনি ছোট রেজ্যুলেশনের ছবি ব্যবহার করতে পারেন। ছোট রেজ্যুলেশনের ছবি গুলোর মান কিন্তু ভালো হয় এবং মেমরীতে সেভও হয় দ্রুত। (টিপস তথ্যসূত্র নেট)

তাহলে তো প্রফেশনাল মোবাইল ফটোগ্রাফির দারুন দারুন সব টিপস জেনে গেলেন। এখন তাহেল নতুন নিয়মে ছবি তুলতে ভুল করবেন না। মনে রাখবেন, ভাল মানের ছবি কিন্তু আপনার মর্যদা ও গ্রহনযোগ্যতা বৃদ্ধি করবে।


*মোবাইলফটোগ্রাফি* *ফটোগ্রাফি* *ফটোগ্রাফিটিপস*

আমানুল্লাহ সরকার: একটি বেশব্লগ লিখেছে

সেলফির এই যুগে মোবাইল ডিভাইস হচ্ছে ফটোগ্রাফির অন্যতম অনুসঙ্গ। যেখানে সেখানে যে কোন গুরুত্বপূর্ণ সময়ে ছবি তুলতে মোবাইল ডিভাইসের কোন জুড়ি নেই। তাছাড়া ডিএসএল আরের মত দামী ক্যামেরা গুলো তো আর সবার পক্ষে কেনা সম্ভব হয় না। তাই ফটোগ্রাফিতে মোবাই্ল হতে পারে একমাত্র জনপ্রিয় সঙ্গী। বর্তমানে আমাদের দেশ সহ সারা বিশ্বে মোবাইল ফটোগ্রাফির চাহিদা বেশ বৃদ্ধি পেয়েছে। বিশেষ করে তরুন প্রজন্মের কাছে মোবাইল ফটোগ্রাফি বেশ শক্ত অবস্থান দখল করে নিয়েছে। স্মার্টফোন ও ক্যামেরা সম্বলিত মোবাইল ফোন এখন সবার হাতে হাতে। তাইতো মোবাইল ফটোগ্রাফির জনপ্রিয়তা একটু বেশিই।

বর্তমানে সোশ্যাল মিডিয়াতে জনপ্রিয়াতা বাড়াতে সবাই গুরুত্বপূর্ণ সময় গুলোর চিত্র মোবাইলে ধারণ করে তা সোশ্যাল মিডিয়ায় সাবমিট করছে। এই সোশ্যাল মিডিয়ায় মোবাইল ফটোগ্রাফিকে বেশ জনপ্রিয় করেছে।
যাদের হাতে ভাল মানের স্মার্টফোন, অ্যান্ড্রয়েড ও আইফোন থাকে তারাতো যে কোন মুহূর্তে ভাল মানের ছবি তুলতে পারে। ভ্রমন, বিয়ে, বন্ধুদের সাথে আড্ডা সহ বিভিন্ন  অনুষ্ঠানে ছবি তোলার জন্য এ সকল মোবাইল ডিভাইস ব্যবহারিত হচ্ছে।

বেশ কয়েক জন মোবাইল ব্যবহার কারীর সাথে কথা বলে দেখা গেছে, তাদের কাছে ভাল মানের ক্যামেরা বয়ে বেড়ানোর চাইতে, স্মার্টফোন, অ্যান্ড্রয়েড ও আইফোনের মত ডিভাইস গুলোই ফটোগ্রাফির জন্য বেশী উপযুক্ত।

*মোবাইলফটোগ্রাফি* *সেলফি* *ফটোগ্রাফি*
৫/৫

নাহিন: বন্ধুরা আমাদের যাদের স্মার্টফোন আছে তারা তাদের এলাকার প্রসিদ্ধ স্থান বা বাংলাদেশের বিভিন্ন ট্যুরিষ্ট স্পটের (যেখানে আপনি ভ্রমন করেছেন) সেসব জায়গার চিত্তাকর্ষক কোন ছবি তুলে সংক্ষেপে সেই জায়গার পরিচিতি বেশতোতে বেশব্লগের মাধ্যমে সহজেই তুলে ধরতে পারি কিনা ? স্টারওয়ার্ড হতে পারে *বাংলারমুখ* *আমারবাংলা* *মোবাইলফটোগ্রাফি* ইফ সো, লেটস ট্রাই ফ্রম টুডে

*বাংলারমুখ* *আমারবাংলা* *মোবাইলফটোগ্রাফি*
ছবি

নাহিন: ফটো পোস্ট করেছে

৩/৫

মিরপুর তাতবস্ত্র মেলা থেকে উঠানো ছবি।

(খুশী২)

*ফটোগ্রাফি* *মোবাইলফটোগ্রাফি*

jayed জায়েদ: *পাট* বাছাই............ *মোবাইলফটোগ্রাফি*

*পাট* *মোবাইলফটোগ্রাফি*
ছবি

অভী আহমেদ খান: ফটো পোস্ট করেছে

বেশতো সাইট টিতে কোনো কন্টেন্ট-এর জন্য বেশতো কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

কনটেন্ট -এর পুরো দায় যে ব্যক্তি কন্টেন্ট লিখেছে তার।

...বিস্তারিত

QA

★ ঘুরে আসুন প্রশ্নোত্তরের দুনিয়ায় ★