যন্ত্রনা

যন্ত্রনা নিয়ে কি ভাবছো?

আলোহীন ল্যাম্পপোস্ট: একটি বেশব্লগ লিখেছে

লিটু মিতুর সাথে প্রতারণা করেছে । আজ অনেকদিন হলো মিতু কিছুতেই এই ব্যাপারটা থেকে বেরিয়ে আসতে পারছে না । সে এখনো ভাবছে লিটু কোনভাবেই এমনটা করতে পারে না, সে এতো জগণ্য হতে পারে না। মিতুর মনে যতটা না দুঃখ ব্রেকাপ হওয়ার কারণে তার চেয়ে সে বেশি ভুগছে তাদের অন্তরঙ্গের ভিডিও ক্লিপগুলোর কারণে । কখন লিটু এগুলো অনলাইনে ছেড়ে দেয় এ ভেবে সে বারবার কেঁদে উঠছে । তাকে ভিডিও ক্লিপগুলো দুঃস্বপ্নের মত তাড়া করছে । তার শরীর ভেঙ্গে পড়েছে, চোখের নিচে কালি পড়েছে । সে বাইরে যাওয়াও বন্ধ করে দিয়েছে কখন পথের মধ্যে লিটুর সাথে দেখা হয়ে যায় আর সে ব্ল্যাকমেইল করে বসে তাকে এই ভয়ে । এভাবে অসহ্য জীবনযাপণ করছে মিতু । পরিবারের কারো সাথে সে তেমন কথা বলে না, বান্ধবীদের সাথেও কোন যোগাযোগ নেই । সে ফোন বন্ধ করে দিয়েছে লিটু যদি তাকে ফোন করে ব্ল্যাকমেইল করে এই ভয়ে । এভাবে ভুগতে ভুগতে একরাতে মিতু আত্মহত্যা করে । আর পরদিন একটা ভিডিও ক্লিপ ভাইরাল হয়ে গেল, ভিডিওটির নাম 'মিতু'স ইরোটিক স্ক্যান্ডাল'।

*মিতু* *স্ক্যান্ডাল* *যন্ত্রনা* *ভালোবাসা*

আলোহীন ল্যাম্পপোস্ট: একটি বেশব্লগ লিখেছে

কানি,

এই "আই লাভ ইয়্যু" যে কেউ তোমাকে বলতে পারে,যখন তখন,যে কেউ মানে কিন্তু যে কেউ ই!সকাল বিকেল এমনকি কখনও কথা হয়নি সেও।
রাস্তা দিয়ে হাটছ, কোন সুদর্শন যুবক গোলাপ হাতে এক নিঃশ্বাসে বলে ফেলবে "আই লাভ
অনার্স লাইফের সেকেন্ড দিনেই ডিপার্টমেন্টের বড় ভাইটা ডেকে বলবে, "মেয়ে, আমার কাছে সকল নোট-শিট পাবা! কল মি। আর শোন, তুমি বড্ড কিউট"
তুমি ভার্সিটি পড়! রোজ তোমার পিছনে বহু ছেলের আনাগোনা থাকবে,সে হতে পারে ডিএমসি বয়, বুয়েট সুপুরুষ কিংবা ঢাবিয়ান। আল্টিমেটলি, সবাই তোমাকে বলবে, "আই লাভ ইয়্য"
"অথবা "
ঠিক কোন এক রাতে এরকম কোন মূহুর্তে প্রত্যেক দিন যে মানুষটি তোমার ছবি দেখে ঘুমতে যায় আবার তোমার ছবি দেখেই ঘুম থেকে উঠে। কোনদিন দেখা হয়নি তারপরও যখন বন্ধুরা তার প্রিয়াকে নিয়ে বাইরে যায়,তখন দাতে দাত চেপে বলে আমারও আসবে সময় আথবা সবার থেকে ভাল হবে সেই দিন,তৈমার ছবি হাতে নিয়ে মুখে অস্পস্ট ভাবে বলে"তোমাকে ছাড়া পৃথিবীতে বাঁচে থাকা কি দুঃসহ !!"
অনেকগুলা রাত চোখের পানি মুছে চলে যায় তুমিহীনতায়।হয়তোবা রবীন্দ্রসঙ্গীতের সবথেকে মধুর গানটাও মন ভাল করে না। সিলিংয়ের দিকে তাকিয়ে তোমার মায়ামুখটুকু কথা ভেবে ঐ কাল্পনিক তোমার সাথে ঘন্টার পর ঘন্টা যুদ্ধ করে কাটিয়ে দেয় নিরন্তর।কতটা কষ্টকর সময় ছিলো ওটা, কতটা তুমি নামক অনুভূতি বাসা বেঁধেছিল তার বুঁকের ভেতরটায়, শুধু তুমিই জানো !!
অথচ দেখো, তুমি এখনো নিশ্চুপ থাক।তবে সে ভালোই আছে,সত্যি ভালই আছে।কারন তার ভাল থাকার কারন তুমিময়তা।
এই মূহুর্তের জন্য ঐ ছেলেটির আফসোস হয়না যখন সে তোমায় ভেবে সারা রাত কাটিয়ে ছিল বরং গর্ব হয় কারন তুমি নামক মেয়েটার ঘাতক চাহুনীতে মরে যেতে থাকে সেই ছেলেটা প্রতিদিন। গর্ব কারন এ নিশ্চিত আগস্ত যাত্রা শুধু তোমারই কারন। কারন সকাল বিকাল একহালি ভালবাসি বলার জন্যে পাওয়া যায় কিন্তু কয়জন পারে প্রিয়তমার জন্য অনন্ত অপেক্ষা করতে?
জীবনটা এমনই হুট করে জীবনে ঝড় আসে ।সেই ঝড়ে সব ওলটপালট হয়ে যায়।এই ছেলেটাও কি আগে ভেবেছিল এমন করে কোন এক অসম্ভব মায়াবতীর চোখের কাজলে প্রতিদিন খুন হবে।
মাঝে মাঝে কি মনে হয় জানো তোমার সাথে যখন ছেলেমানুষিগুলো করি হঠাৎ করে ভেবে নিজেকে ভীষণ বোকা বোকা লাগে।হঠাৎ করে দু গাল হেসে নি।তবে,মাঝে মাঝে বোকা হতেও বড্ড ভালো লাগে।সেটা তুমি বলেই লাগে।
আমি জানি শুধু ভালোবাসলেই হয়না,ভালোবাসার মানুষকে পাওয়ার চেষ্টা করতে হয় পাওয়ার জন্য অপেক্ষা করতে হয়।অপেক্ষার শেষ মূহুর্তেও যদি না পাওয়া হয় তবুও সেখানে একধরনের আত্মতৃপ্তি কাজ করে ভালোবাসার তৃপ্তি,অপেক্ষার তৃপ্তি।
গর্ব হয় কারন সেই হাসি অপেক্ষার হাসি,ভালোবাসার হাসি ও অনেকদিনের দৃঢ়তার হাসি।
তোমাকে ভালোবাসায় আমার ব্যর্থতা বলতে কিছু নেই।আছে দৃঢ় প্রত্যয়,একাগ্র কামনা,অদম্য চাওয়া আর আছে অপেক্ষা শুধু তোমার জন্যে অনন্ত এ অপেক্ষা।
প্রথম গুলো অনেকেই পারে কিন্তু তোমাকে যে খুব সাধারন ছেলেটির কথা বললাম যে তোমাকে স্বপ্নের মধ্যে নিয়েই দিন অতিবাহিত করে।সে যে আমি তা হয়তো বলার অপেক্ষা রাখে না তবে যেটা বলার অপেক্ষা রাখে সেটা হলো ছেলেটির আষ্ঠেপৃষ্ঠে জড়িয়ে আছে অদ্ভুত তুমিময়তা।আজন্ম তোমাকে চাওয়া হে আমর চির কাঙ্খিতা।

*ভালোবাসা* *চশমিশ* *আমি* *যন্ত্রনা* *আবেগ*

আলোহীন ল্যাম্পপোস্ট: আজকে ইচ্ছে করছে পৃথিবীর মায়া ত্যাগ করে চিরতরে বিদায় নিয়ে নেই।।। ভালোলাগে না প্যারা।। পুরা জীবনটাই প্যারাময়। *জীবন* *প্যারা* *যন্ত্রনা* [বাঘমামা-আম্মু]

*প্যারা* *যন্ত্রনা*

আমানুল্লাহ সরকার: [মনখারাপ]টাকা দিয়েও যে যন্ত্রনা কেনা যায় তা আগে কখনো অনুভব করিনি। কিন্তু দুই দিন থেকে তা হাড়ে হাড়ে টের পাচ্ছি......

*যন্ত্রনা*

লীনা জাম্বিল: একটি বেশটুন পোস্ট করেছে

বহুত যন্ত্রনা
ভীষন যন্ত্রনায় আছি না পারি কইতে না পারি সইতে দাঁতে দাঁত কামড় দিয়ে সহ্য করছি
*যন্ত্রনা*

হাফিজ উল্লাহ: আমরা সব কিছুতেই ফাস্ট হতে চাই ..... সবার আগে আমি থাকব এমন একটা মানসিকতা আমাদের l সবাই আগে যেতে চায়, কেউ কাওরে ছাড় দিতে রাজি না ফলে যা হবার তাই হয় ১০ মিনিটের রাস্তা ১ ঘন্টা বসে থাকি জ্যামে l আফসুস কবে যে আমরা একটু ছাড় দিতে শিখব (মনখারাপ)

*যন্ত্রনা*

শ্রীলা উমা: এই গরমে প্রায়ই আমাদের মাথা ব্যথা হয় ,এই যন্ত্রনা থেকে মুক্তি পেতে ১ গ্লাস বরফ ঠান্ডা পানিতে ১ টি সম্পূর্ণ লেবুর রস,চিনি আর সামান্য লবন মিশিয়ে খান দেখবেন মাথা ব্যথা কমে গেছে,দারুন রিফ্রেশিংও বটে l তবে বাহির থেকে ফিরে সাথে সাথে খেলে ঠান্ডা লাগবে কিন্তু

বেশতো সাইট টিতে কোনো কন্টেন্ট-এর জন্য বেশতো কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

কনটেন্ট -এর পুরো দায় যে ব্যক্তি কন্টেন্ট লিখেছে তার।

...বিস্তারিত

QA

★ ঘুরে আসুন প্রশ্নোত্তরের দুনিয়ায় ★