রসকদম

রসকদম নিয়ে কি ভাবছো?

দীপ্তি: একটি বেশব্লগ লিখেছে

রসকদম মেহেরপুর অঞ্চলের প্রচলিত মিষ্টি। তবে বর্তমানে বাংলাদেশের অনেক জায়গাতেই পাওয়া যায়। গোলাকার শুকনো ছানার গোলার উপর সাবুদানার মতো দানা মাখানো থাকে। মিষ্টি হিসাবে রসকদম সবার চাইতে আলাদা। কেবল স্বাদে নয়, দেখতেও এই মিষ্টিটি একেবারেই ভিন্নধর্মী। আপনি চাইলে এখন থেকে ঘরেই তৈরি করে নিতে পারবেন। চলুন তাহলে জেনে নিই এর রেসিপি।

 

উপকরণ

তরল দুধ- ১ লিটার
সাদা সিরকা-৩ টেবিল চামচ।
চিনি -১/২ কাপ (একটু কম দিতে পারেন)
মাওয়া -১/২ কাপ
ছোট মিষ্টি বা মিষ্টির টুকরা- পরিমাণ মত
চিনি (ঘন সিরার জন্য) -আন্দাজমত।
গোল চিনির দানা ( গ্লোবিউলস)- প্রয়োজন মত
পানি -আন্দাজমতো

প্রণালী

♦ প্রথমে দুধ জ্বাল দিতে হবে। দুধ ফুটে উঠলে সিরকা ঢেলে নাড়া দিতে হবে। জমে গেলে ছেঁকে ধুয়ে নিতে হবে।
♦ ছানার সাথে চিনি মিশিয়ে জ্বাল দিতে হবে। পানি শুকালে মাওয়া গুঁড়ো দিয়ে কম আঁচে জ্বাল দিতে হবে।
♦ আঠালো ভাব হলে নামিয়ে নিতে হবে। হাত দিয়ে মেখে বল বানিয়ে তার ভিতরে মিষ্টির টুকরা ঢুকিয়ে গোল করে নিতে হবে।
♦ ঘন সিরা করে মিষ্টিতে লাগিয়ে গ্লোবিউলসের উপর গড়িয়ে নিতে হবে। বা একটা হাঁড়িতে গ্লোবিউলস রেখে তাতে মিষ্টি দিয়ে হাঁড়িতে চারদিকে ঘুরিয়ে দিতে হবে।
♦ বাটার পেপারের উপর রেখে পরিবেশন করুন রসকদম।

টিপস : মাওয়া না পেলে ১/২ কাপ গুঁড়ো দুধে ১/৪ কাপ ময়দা, ১ চা চামচ ঘি, অল্প দুধ দিয়ে মেখে ফ্রিজে ১ ঘণ্টা রেখে ব্যবহার করতে পারেন।


 

আর মেহেরপুর না গিয়েও সুদূর মেহেরপুরের রসকদমের স্বাদ নিতে অর্ডার করতে পারেন আজকের ডিলে। সেদিন দেখলাম ওদের সাইট নানা রকম মিষ্টি দিয়ে সাজানো।  মাত্র সাড়ে চারশো টাকায় উপভোগ করতে পারেন দারুন স্বাদের রসকদম। অর্ডার করতে এবং কিনতে ছবিতে ক্লিক করুন।

 

 

*রসকদম* *মিষ্টি* *রেসিপি*

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

সেই আদিকাল থেকেই মিষ্টির প্রতি অজানা এক টান রয়েছে মিষ্টি পাগল বাঙালির। দেশীয় কারিগরদের  হাত ধরে এদেশে বিভিন্ন সময়ে ভিন্ন ভিন্ন স্বাদের ব্যতিক্রমী মিষ্টির উদ্ভোবন হয়েছে। আমাদের দেশের ঐতিহ্যবাহী সব মিষ্টি গুলির মধ্যে মেহেরপুরের ঐতিহ্যবাহী রসকদম ও সাবিত্রী বেশ জনপ্রিয়। এই মিষ্টি দুটি মেহেরপুর জেলার ১৫০ বছরের ঐতিহ্য বহন করে এখনো সগৌরবে তার অবস্থানের কথা জানান দিয়ে যাচ্ছে। স্বাদে অতুলনীয়, গুণে ও মানে অদ্বিতীয় এই জনপদের 'নীরস' মিষ্টি দুটি নিয়ে আজকের আলোচনা। 
 
সাবিত্রী ও রসকদম বৃত্তান্ত
সাবিত্রী আর রসকদম মিষ্টি দুটি এখন আর শুধু দেশেই নয় খতি ছড়িয়ে সুনাম অর্জন করেছে ইউরোপ আমেরীকা, সৌদিআরব,মালোয়শিয়া সহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বিদেশে।
১৮৬১ সালে ব্রিটিশ রাজত্বকালে প্রাচীন শহর মেহেরপুরের আদি বাসিন্দা বাসুদেব প্রধান নিজে এই মিষ্টি উদ্ভাবন করেন। খড়, টালি ও টিন দিয়ে নির্মিত তাঁর বাড়ির একাংশ ছিল মিষ্টির দোকান। আজ সে স্থানটিতে নির্মিত দোতলা দালানের নিচতলায় 'বাসুদেব গ্র্যান্ড সন্স' নাম দিয়ে প্রয়াত বাসুদেবের দুই নাতি বিকাশ কুমার সাহা ও অনন্ত কুমার সাহা ১৫০ বছরের ঐতিহ্যবাহী এই মিষ্টি দিয়ে আজও মানুষের রসনা সেবা করে যাচ্ছেন।
 
অবিভক্ত বাংলার এই অঞ্চলের জমিদার সুরেন বোসের জমিদার বাড়ির সিংহ ফটকের সামনেই ছিল বাসুদেবের সাবিত্রী আর রসকদম্বের দোকানের অবস্থান। জমিদার বাড়িতে মাঝেমধ্যেই আসতেন ব্রিটিশ রাজের অমাত্যবর্গ, রাজ কর্মকর্তা-কর্মচারী, গণ্যমান্য অতিথি ও অন্য অঞ্চলের জমিদাররা। সুরেন বোস বাসুদেবের সেই অতুলনীয় স্বাদের সাবিত্রী আর রসকদম্ব পরিবেশন করে আপ্যায়ন করতেন তাঁদের। আজও দেশের প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রী, এমপি, সামরিক-বেসামরিককর্মকর্তা, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, বিদেশি কূটনীতিক ও বিদেশি সংস্থার প্রতিনিধি মেহেরপুরে এলে তাঁদেরও আপ্যায়নের প্রধানতম মিষ্টান্ন হলো সাবিত্রী আর রসকদম।
 
এই মিষ্টির সবচেয়ে বড় বৈশিষ্ট্য ফ্রিজে না রেখে এক পক্ষকাল আর ফ্রিজে এক মাসেরও বেশি একই স্বাদ বজায় থাকে।  দুধ তথা দুধের চাছি আর চিনিই মূলত এই মিষ্টি তৈরির উপকরণ। তবে মিষ্টি তৈরির সবচেয়ে বড় দিক হচ্ছে চুলায় জ্বাল দেওয়ার বিষয়টি। নির্দিষ্ট সময়ব্যাপী নির্ধারিত তাপে মিষ্টির চুলায় জ্বাল দিতে হয়। সুচারুভাবে জ্বাল দেওয়ার কাজটি করতে হয়। । 
 
কোথায় পাবেন এই মিষ্টি? 
এতক্ষণ তো মিষ্টি নিয়ে নানা কথা হল এবার তাহলে রাজধানী ঢাকায় কোথায় পাওয়া যাবে এই মিষ্টি চলুন জেনে নেই্।  মেহেরপুরের আসল সাবিত্রী ও রসকদম এর স্বাদ পেতে হলে আপনি অনলাইন শপ আজকের ডিল ডট কমের ওয়েবসাইট এ গিয়ে অর্ডার করতে পারেন।  যতদূর জানি, দেশের জনপ্রিয় অনলাইন শপ আজকের ডিল সরাসরি মেহেরপুর থেকে এই মিষ্টি দুটি ঢাকা শহরে সরবারহ করে। এজন্য আপনারা যারা বাড়তি কষ্ট না করে বাড়িতে বসে সাবিত্রী ও রসকদমের স্বাদ নিতে চান তারা আজকের ডিলের ওয়েবসাইটে নক করতে পারেন। মিষ্টি কিনতে কনটেন্টটির ছবিতে ক্লিক করুন অথবা ই লিংক থেকে ঘুরে আসুন। 
*মিষ্টি* *সাবিত্রী* *রসকদম* *মেহেরপুর* *কেনাকাটা* *স্মার্টশপিং*

বেশতো সাইট টিতে কোনো কন্টেন্ট-এর জন্য বেশতো কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

কনটেন্ট -এর পুরো দায় যে ব্যক্তি কন্টেন্ট লিখেছে তার।

...বিস্তারিত

QA

★ ঘুরে আসুন প্রশ্নোত্তরের দুনিয়ায় ★