রেজার

রেজার নিয়ে কি ভাবছো?

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

দাড়ি কিংবা গোফে বাহারি কাট ছাট দিয়ে তারকা সাজার ভাব প্রায় প্রতিটি পুরুষের মধ্যেই লক্ষ্য করা যায়। প্রিয় তারকার মতো শেপ দিয়ে চুল কিংবা দাড়ি রাখতে আপনার অন্যতম অনুসঙ্গ হতে পারে ইলেকট্রিক ট্রিমার। ইলেকট্রিক শেভার দিয়ে মুহুর্তেই কোনরুপ কাটা-ছড়ার ঝুঁকি ছাড়াই ইচ্ছেমতো দারুণ সব শেপ দিতে পারেন নিজের গোফ কিংবা দাড়িতে।

বর্তমান সময়ে আধুনিতার ছোঁয়া সর্বত্র। ম্যানুয়াল রেজারের বদলে এসেছে আধুনিক ইলেকট্রিক শেভার। কম সময়ে ঝুঁকিমুক্ত আরামদায়ক শেভ। অনেক আগে থেকে, মূলত শুরুর দিকে প্রাচীন যুগে ঝিনুকের খোলস, মাছের বড় কাঁটা বা পশুর হাড়ের অংশ দিয়ে চলত ছাঁটাই-কাটাই। আলেকজান্ডার দ্য গ্রেটের সময় থেকে শুরু হয় দাড়ি-গোঁফ কামানোর প্রথা। ত্বক মসৃণ রাখা তখন খুব কঠিন ছিল পুরুষের জন্য। আর এখন শুধু একটা বোতামের চাপই যথেষ্ট।

সুবিধা : যখন-তখন, ঘরে-বাইরে, যে কোনো জায়গায় সহজে বহন ও ব্যবহার করা যায়। আরামদায়ক শেভের জন্য যন্ত্রটি ভালো। এটি ব্যবহারে কাটার শঙ্কা কমায়। এতে কোনো আলাদা শেভিং ক্রিম বা লোশনের প্রয়োজন হয় না। এখন বাজারে যেসব ইলেকট্রিক শেভার পাওয়া যায় তা দুই ধরনের। রোটারি ইলেকট্রিক শেভার, এতে গোলাকার দু'তিনটি ঘূর্ণায়মান ব্লেড থাকে। এগুলো খুব সহজেই যে কোনো ধরনের চেহারায় ব্যবহার করা যায়। ফয়েল ইলেকট্রিক শেভার, এই যন্ত্রে ব্লেড একটি পাতলা ছিদ্রযুক্ত স্টিল ফয়েলের পেছনে লুকানো থাকে এবং পাশাপাশি দুলে। সাধারণত কাজ সারে এ শেভারগুলো।

ত্বকের ধরন বুঝে আপনি আপনার পছন্দ অনুযায়ী কিনতে পারেন ইলেকট্রিক শেভার। যাদের ত্বক এবং দাড়ি-গোঁফ রুক্ষ, তারা ব্যবহার করতে পারেন রোটারি ইলেকট্রিক শেভার। ষ যাদের দাড়ি-গোঁফ তাড়াতাড়ি বাড়ে তারা ব্যবহার করতে পারেন ফয়েল ইকেট্রিক শেভার। আপনার পছন্দ অনুযায়ী বেছে নিন ইলেকট্রিক শেভার। রঙচঙে শেভারের রকমারি ফিচারে ভুলে না গিয়ে নামি ব্র্যান্ডেরটি বেছে নেওয়াই হবে বুদ্ধিমানের কাজ। শেভারের ব্যাটারির মেয়াদ, ব্লেডগুলো কোয়ালিটি আর ভেতরের কলকব্জা যাচাই করে নিন।

ব্র্যান্ড ও দাম :


বাজারে হরেক রকম ইলেকট্রিক শেভার পাওয়া যায়। ব্র্যান্ডও রয়েছে অনেক। এর মধ্যে আছে কিমেই, ফিলিপস, নোভা, এইচটিসি, ফিলিপস নরেলেস্পিড, ব্রন সিরিজ, প্যানাসনিকসহ আরও অনেক। সুপার শপগুলোয় বিভিন্ন ব্র্যান্ডের ইলেকট্রিক শেভারের দাম পড়বে ৫০০ থেকে ১৫ হাজার টাকা পর্যন্ত।
যত্ন : ইলেকট্রিক শেভার ব্যবহারের পর পরিষ্কার করে রাখা ভালো। প্রতিবার না পারলেও তিনবারে অন্তত একবার পরিষ্কার করে রাখুন। মাসে অন্তত একবার ব্লেডগুলো খুলে সাবান পানিতে ধুয়ে নিতে পারেন। শেভারের স্কিনে কখনও ব্রাশ লাগাবেন না। এতে টিকবে বেশি দিন।

এই ট্রিমারগুলো আপনি ইচ্ছে কলে ঘরে বসেই কিনে নিতে পারেন। এজন্য অনাইনে ঢুকে এই লিংকে ক্লিক করুন

*ট্রিমার* *রেজার* *ইলেকট্রিকট্রিমার* *স্মার্টশপিং*

NatunSomoy : একটি বেশব্লগ লিখেছে

ব্লেড চেনেন নিশ্চয়ই। একটু খেয়াল করলেই দেখবেন, সব ব্লেডই দেখতে এক রকম হয়। এমনটা হয় কেনো?

প্রথমেই মনে হতে পারে, অনেক ক্ষেত্রে একটি ব্লেডকে ভেঙে দুই টুকরো করে নেওয়ার সুবিধের জন্য এই ধরনের আকার বা শেপ। এ কথা একেবারে ভুল নয়। কেননা, দাড়ি কাটতে আগে ব্যবহার করা হত ক্ষুর। পুরনো ধাঁচের ক্ষুরের সঙ্গে ব্লেডের কোনো সম্পর্ক ছিল না।

পরে আর এক ধরনের ক্ষুর আসে, যাতে ব্লেড ভেঙে ঢোকাতে হয়। কিন্তু সেটাই পুরোটা নয়। আধুনিক রেডি-টু-শেভ রেজর বা ক্ষুর বেরনোর আগে ছিল থ্রি-পিস রেজর। এই থ্রি-পিস রেজর আজও পাওয়া যায়। তবে সময়ের নিয়মে তার জনপ্রিয়তা ফিকে হয়ে এসেছে। একটি ডাঁটিতে দুটি হোল্ডার পিস আলাদা করা। এই দুটি হোল্ডারের মধ্যে রাখা হয় ব্লেড।

এই হোল্ডারগুলির মধ্যে ব্লেড যাতে অনায়াসে ঢুকে যায়, সে জন্যই ব্লেডের এই ধরনের শেপ।

*ব্লেডেরআকার* *ব্লেডেরশেপ* *ব্লেড* *আড্ডা* *রেজার*

Risingbd.com: রেজার ব্লেডের ধার বাড়ানোর সহজ উপায় (ভিডিও) হাতে সময় কম থাকায় অনেক সময় তাড়াহুড়ো করে শেভ করার প্রয়োজন পড়ে। কিন্তু ঠিক সেই সময়টায় যদি দেখেন, রেজারের ব্লেডের ধার কমে গেছে, তাহলে ...বিস্তারিত পড়ুন - http://bit.ly/1X5PEN7

*কিভাবে_রেজারের_ধার_বাড়াবেন* *রেজার* *আড্ডা* *বেশম্ভব* *বিজ্ঞানওপ্রযুক্তি*

বেশতো সাইট টিতে কোনো কন্টেন্ট-এর জন্য বেশতো কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

কনটেন্ট -এর পুরো দায় যে ব্যক্তি কন্টেন্ট লিখেছে তার।

...বিস্তারিত

QA

★ ঘুরে আসুন প্রশ্নোত্তরের দুনিয়ায় ★