র‍্যাশ

র‍্যাশ নিয়ে কি ভাবছো?

দীপ্তি: একটি নতুন প্রশ্ন করেছে

 গরমে ত্বকে র‌্যাশ উঠলে করণীয় কি?

উত্তর দাও (৫ টি উত্তর আছে )

.
*গরম* *ত্বকেরযত্ন* *র‌্যাশ*

দীপ্তি: একটি নতুন প্রশ্ন করেছে

 নবজাতক শিশুর সারা শরীরে ছোট ফুস্কুরি বা র‍্যাশকে অনেকে ‘মাসিপিসি’ বলে থাকেন। মাসিপিসি হলে করণীয় কি?

উত্তর দাও (১ টি উত্তর আছে )

.
*নবজাতক* *মাসিপিসি* *চর্মরোগ* *র‍্যাশ* *স্বাস্থ্যতথ্য* *হেলথটিপস*

দীপ্তি: একটি নতুন প্রশ্ন করেছে

 জ্বরের পাশাপাশি ত্বকে দানা বা ফুসকুড়ি (র‌্যাশ) হলেই কি সেটা হাম বলে ধরে নিতে হবে?

উত্তর দাও (৬ টি উত্তর আছে )

.
*জ্বর* *ত্বকেরসমস্যা* *দানা* *ফুসকুড়ি* *র‌্যাশ* *হাম* *স্বাস্থ্যতথ্য* *হেলথটিপস*

দীপ্তি: একটি নতুন প্রশ্ন করেছে

 বর্ষায় ত্বকের র‍্যাশ কমানোর ঘরোয়া উপায় কি কি হতে পারে?

উত্তর দাও (১ টি উত্তর আছে )

.
*বর্ষা* *ত্বকেরযত্ন* *র‍্যাশ* *স্বাস্থ্যতথ্য* *হেলথটিপস*

দীপ্তি: একটি নতুন প্রশ্ন করেছে

 গরমে বাচ্চাদের গায়ে প্রচন্ড র‍্যাশ উঠে। কিভাবে র‍্যাশ প্রতিরোধ ও প্রতিকার করা সম্ভব?

উত্তর দাও (১ টি উত্তর আছে )

*র‍্যাশ* *চুলকানি* *চর্মরোগ* *স্বাস্থ্যতথ্য* *হেলথটিপস*

দীপ্তি: একটি নতুন প্রশ্ন করেছে

 অনেকের ক্ষেত্রেই গরম মানেই হিট র‍্যাশ l এই সমস্যার থেকে মুক্তি পাওয়ার কি কোনো ঘরোয়া উপায় কারো জানা আছে?

উত্তর দাও (৩ টি উত্তর আছে )

.
*গরমেরঅসুখ* *চর্মরোগ* *র‍্যাশ* *স্বাস্থ্যতথ্য* *হেলথটিপস* *ফিডব্যাক*

গাজী আজিজ: একটি বেশব্লগ লিখেছে

জীবনে একবারও ত্বকে চুলকানি হয়নি এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া অসম্ভব ব্যাপার। খুব সাধারণ এই ব্যাপারটি অসহ্যকর একটি সমস্যা হয়ে দাঁড়ায় যখন ত্বকের চুলকানি বেড়ে যায়। অনেকেই এই সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য আশ্রয় নেয় নানান মলম বা ক্রিমের যা ত্বকের জন্য ক্ষতিকর। চুলকানি থেকে মুক্তি পাওয়ার আছে প্রাকৃতিক কিছু উপায়। ঘরোয়া এই উপায়গুলোতে খুব সহজেই ত্বকের ক্ষতি ছাড়াই চুলকানির যন্ত্রণা থেকে মুক্তি পাবেন আপনি। জেনে নিন চুলকানির ঘরোয়া কিছু প্রতিকার সম্পর্কে।


বেকিং সোডা
বেকিং সোডা চুলকানি প্রতিরোধে অত্যন্ত উপকারী। গোসলের সময়ে হালকা গরম পানিতে বেকিং সোডা দিয়ে গোসল করলে শরীরের চুলকানি অনেকটাই কমে যায়। এক্ষেত্রে একটি চৌবাচ্চাতে ১ কাপ বেকিং সোডা মেশাতে হবে এবং বড় এক বালতি পানিতে ১/২ কাপ বেকিং সোডা মেশাতে হবে। বেকিং সোডা মেশানো পানিতে কমপক্ষে ৩০ মিনিট শরীর ভিজিয়ে রাখার পর শরীর পানি দিয়ে না ধুয়ে শুকিয়ে ফেলতে হবে।


লেবু
লেবুর রসে আছে অ্যান্টি ইনফ্লেমেটরি উপাদান যা ত্বকের চুলকানি কমিয়ে দিতে সহায়তা করে। চুলকানির প্রতিকার পাওয়ার জন্য লেবুর রস ব্যবহার করাও খুব সহজ। ত্বকের যে স্থানে চুলকানি অনুভূত হচ্ছে সেখানে লেবুর রস লাগিয়ে শুকিয়ে ফেলুন। চুলকানি কমে যাবে কিছুক্ষণের মধ্যেই।


তুলসী পাতা
তুলসী পাতায় আছে ইউজেনল যা একটি অ্যান্সথেটিক উপাদান। এই উপাদানটি চুলকানি কমিয়ে দিতে সহায়ক। এক মগ ফুটন্ত পানিতে ১৫/২০টি তুলসী পাতা জ্বাল দিয়ে নির্যাস বের করে নিন। এরপর একটি পরিষ্কার টাওয়েলে পানিটি লাগিয়ে হালকা গরম থাকা অবস্থাতেই চুলকানির স্থানে লাগিয়ে নিন। কিছুক্ষণের মধ্যেই বেশ আরাম অনুভূত হবে।


পুদিনা পাতা
পুদিনা পাতারও আছে অ্যান্সথেটিক ও ইনফ্লেমেটরি উপাদান। চুলকানির প্রতিসেধক হিসেবে তাই পুদিনা পাতাও অত্যন্ত উপকারী। এক মগ ফুটন্ত পানিতে এক আউন্স পুদিনা পাতা জ্বাল দিয়ে নির্যাস তৈরি করে নিন। এরপর এই পানিটি চুলকানির স্থানে লাগিয়ে রাখুন। চুলকানি কমে যাবে কিছুক্ষণের মধ্যেই।


অ্যালোভেরা
ত্বকের যত্নে অ্যালোভেরার ব্যবহারের কথা তো সবাই জানেন। চুলকানি প্রতিকারেও অ্যালোভেরার জুড়ি নেই। ত্বকের যে স্থানে চুলকানি হচ্ছে সেখানে একটি তাজা অ্যালোভেরা পাতা থেকে রস বের করে লাগিয়ে রাখুন। চুলকানি কমে যাবে কিছুক্ষণের মধ্যেই।
 

*চলকানি* *র‌্যাশ* *হেলথটিপস* *স্বাস্থ্যতথ্য*

দীপ্তি: একটি নতুন প্রশ্ন করেছে

 গরম এলেই নবজাতকের শরীরে ঘামাচি ও ন্যাপি র‍্যাশের মাত্রা বেড়ে যায়। গরমে নবজাতকের পোশাক কেমন হওয়া উচিত?

উত্তর দাও (৪ টি উত্তর আছে )

*নবজাতক* *গরম* *গরমেরঅসুখ* *ঘামাচি* *র‍্যাশ* *লাইফস্টাইলটিপস* *শিশুরযত্ন*
৪/৫

মো:আ:মোতালিব: চুলকানি জাতীয় চর্মরোগে নিমপাতা ও কাঁচা হলুদ একত্রে বেটে গোসলের আধা ঘন্টা পূর্বে লাগিয়ে রাখুন। শুকিয়ে গেলে ভালো করে গোসল করে ফেলুন। নিয়মিত করলে সেরে যাবে।

*স্বাস্থ্যতথ্য* *হেলথটিপস* *চুলকানি* *র‌্যাশ*
ছবি

আমানুল্লাহ সরকার: ফটো পোস্ট করেছে

★ছায়াবতী★: একটি বেশব্লগ লিখেছে

এলার্জি একটি সর্বজনীন বহুল প্রচলিত শব্দ। কিন্তু এই এলার্জি সম্পর্কে সঠিক ধারণা কিন্তু আমাদের অনেকেরই নেই। শ্বাস কষ্ট, এক্জিমাসহ বহু চর্মরোগেরই কারণ হচ্ছে এলার্জি। তাই এলার্জি সম্পর্কে আমাদের ধারণা রাখা খুবই প্রয়োজনীয়। সচরাচর নির্দোষ বলে গণ্য কোন জিনিস যদি শরীরে প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করে তাবে তাকে এলার্জি বলা হয়। যেসব দ্রব্য এলার্জি সৃষ্টি করে তাকে বলা এলারজেন বা এন্টিজেন এবং এসব দ্রব্য দেহে প্রবেশের ফলে দেহের অভ্যন্তরে যে দ্রব্য সৃষ্টি হয় তাকে বলা হয় এন্টিবডি। এন্টিজেন ও এন্টিবডি পরস্পর মিলিত হলে যে প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয় তাকে বলা হয় এন্টিজেন-এন্টিবডি বিক্রীয়া।

হাপানির সঙ্গে এলার্জির গভীর সংযোগ আছে। ফুলের পরাগ, দুষিত বাতাসা, ধোয়া, কাঁচা রংয়ের গন্ধ, চুনকাম, ঘরের ধুলো, পুরানো ফাইলের ধুলো দেহে এলার্জিক বিক্রিয়া করে হাপানি রোগের সৃষ্টি করে। কাজেই যারা হাপানিতে ভুগছেন তাদেরকে এগুলি পরিত্যাগ করে চলতে হবে। ছত্রাক দেহে এলার্জি তথা হাপানি সৃষ্টি করে। ছত্রাক হচ্ছে অতি ক্ষুদ্র সরল উদ্ভিদ। মাত্র ২০ সেঃ গ্রেঃ থেকে ৩২ সেঃ গ্রেঃ উত্তাপে জন্মে, ভেজা পদার্থে এই ছত্রাক জন্মাতে দেখা যায়। আবার কোন কোন খাদ্য ছত্রাক দ্বারা দুষিত হয়ে থাকে। পনিরে ছত্রাক মিশিয়ে তৈরি করা হয়। কোন কোন পাউরুটি এবং কেক তৈরি করতেও ইস্ট জাতীয় ছত্রাক ব্যবহার করা হয়। আলু, পেয়াজ ও ছত্রাক দ্বারা দুষিত হয়। এই ছত্রাক ও এলার্জি তথা হাপানি সৃষ্টির একটি অন্যতম কারণ।ঘরের ধুলো হাপানি জনিত এলার্জির জন্য একটি অন্যতম কারণ। ঘরের ধুলোতে একটি ক্ষুদ্র জীবানু থাকে যা কিনা ‘মাইট' নামেই সচরাচর পরিচিত। এক অনুসন্ধানে দেখা গেছে যে, শতকরা প্রায় ষাট শতাংশ ক্ষেত্রে এলার্জি সৃষ্টির জন্য এই ‘মাইট' দায়ী। সে জন্যে যারা হাপানি জনিত এলার্জিক সমস্যায় ভোগেন তারা ঘরের ধুলো সবসময় এড়িয়ে চলবেন। বিশেষ করে যখন ঘর ঝাড়ু দেবে তখন সেখান থেকে দুরে সরে থাকতে হবে। ঘরের আপবাবপত্র কম্বল, পর্দা, তোষক, বালিশ, প্রভৃতিতে যে ধুলো জমে থাকে তা পরিস্কার করার সময় দুরে সরে থাকতে হবে।
খাদ্যে প্রচুর এলার্জির সম্ভাবনা থাকে যেমন, দুধে এলার্জি, বিশেষ করে শিশুদের ক্ষেত্রে গরুর দুধে খুবই বেশি এলার্জি হতে দেখা যায়। গরুর দুধে বিশেষ করে শিশুদের ক্ষেত্রে গায়ে চুলকানি, হাপানি ইত্যাদি হতে দেখা যায়। এছাড়া গমে এলার্জি, ডিমে, মাছে এলার্জি হতে দেখা যায়। এছাড়া বাদাম, কলা, আপেল, আঙ্গুর, ব্যাঙের ছাতা, তরমুজ, পেয়াজ, রসুন, চকোলেট, এমনকি ঠান্ডা পানীয় কোন কোন ব্যক্তির ক্ষেত্রে এলার্জি সৃষ্টি করে।
পতঙ্গের কামড়ে গায়ে চুলকানি, স্থানটি ফুলে যাওয়া এমনকি হাপানি পর্যন্তও হতে দেখা যায়। মশা, বেলেমাছি, মৌমাছি, বোলতা, ভীমরুল প্রভৃতি পতঙ্গের কামড়ে দেহে এলার্জির সৃষ্টি হয়। এছাড়াও রোমশ ও পালক বিশিষ্ট জীবজন্তু.... যেমন- বিড়াল, কুকুর, অশ্ব, প্রভৃতি গৃহপালিত পশু, অনেক সময় এলার্জি সৃষ্টির জন্য বিশেষভাবে দায়ী। এছাড়া একটি চর্মরোগ আছে যাকে বলা হয় আর্টিকোরিয়া, বাংলায় কেউ কেউ আমবাতও বলে থাকেন। এক্ষেত্রে ত্বকে চাকা চাকা হয়। আর ফুলে ওঠে চুলকাতে দেখা যায়। এটিও হল এলার্জির অন্যতম প্রকাশ। অধিকাংশ লোকের জীবনেই কোন না কোন সময় এই রোগ হতে দেখা যায়। এই আর্টিকোরিয়া শরীরের কোন অংশে সীমাবদ্ধ থাকতে পারে অথবা সমস্ত শরীর ছড়িয়ে পড়তে পারে। এতে বিভিন্ন আকারের লালচে চাকা চাকা ফোলা দাগ হতে দেখা যায় এবং সেই সঙ্গে থাকে প্রচন্ড চুলকানি। অনেকগুলো কারণ এর মধ্যে খাদ্য এলার্জি থেকেও এরোগ হতে পারে। যেমন- বাদাম, ডাল, মাংস, ডিম ইত্যাদি। এছাড়া এই এলার্জির সৃষ্টি পতঙ্গ থেকেও হতে পারে যেমন- বোলতা, মৌমাছি, ভীমরুল, মাকড়সা প্রভৃতির কামড়ে এই এলার্জি দেখা দিতে পারে। এছাড়া ওষুধে এলার্জি হতে পারে। অনেক ওষুধই এলার্জি সৃষ্টির জন্য দায়ী। এর মধ্যে পেনিসিলিন আর অ্যাসপিরিন অন্যতম।
জ্বর, গায়ে ব্যথা, মাথার ব্যথা, পাচড়া, ফোড়া ইত্যাদির জন্য এই ওষুধ দুটো আমরা ডাক্তারের প্রেসক্রিপশন ছাড়াই খেয়ে থাকি। কিন্তু মনে রাখতে হবে এর থেকে গয়ে এলার্জি জনিত চুলকানিতো হতেই পারে। এমনকি পেনিসিলিন ব্যবহারের কারণে মৃত্যু পর্যন্তও হতে পারে। এছাড়াও আরো অসংখ্য ওষুধ আছে যা খেয়ে গায়ে এলার্জির সৃষ্টি হতে পারে। সুতরাং ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া কোন ওষুধ কখনই খাওয়া উচিত নয়।
*স্বাস্থ্যতথ্য* *হেলথটিপস* *সুস্থ্যথাকা* *লাইফস্টাইলটিপস* *চর্মরোগ* *র‌্যাশ*

আমানুল্লাহ সরকার: একটি বেশব্লগ লিখেছে

শরীরে আচমকা র‌্যাশ বেরোচ্ছে? বিনা নোটিসে ফুলে যাচ্ছে দেহের নানা অংশ, সঙ্গে চুলকানি? রক্ত, মল, মূত্র পরীক্ষা করেও হয়নি র‌্যাশ রহস্যের সমাধান? একবার নজর ফেলুন নিজের আইপ্যাডটির দিকে। কারণ আইপ্যাড ব্যবহারে অ্যালার্জি ভয় বাড়ছে। আপনার অজান্তে দেহে অস্বস্তি ছড়াচ্ছে হয়ত 'ঘরশত্রু' আইপ্যাডটি।

চিকিৎসকদের সাম্প্রতিক সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে, নিত্য ব্যবহার্য বৈদ্যুতিন যন্ত্রপাতি থেকে মাত্রাতিরিক্ত নিকেল সংক্রমণ ঘটছে। এর জেরে শরীরে দেখা দিচ্ছে নানা উপসর্গ। দাবি, রোজের জীবনে অপরিহার্য হয়ে ওঠা ল্যাপটপ, আইপ্যাড ও সেলফোনই এর জন্য দায়ী। কিছু দিন আগে সারা শরীরে অজস্র র‌্যাশ নিয়ে স্যান ডিয়েগোর এক হাসপাতালে ভর্তি হয় এক কিশোর।

চিকিৎসক খোঁজ নিয়ে দেখেন, অ্যাপল আইপ্যাডকে নিত্যসঙ্গী করার পর থেকেই এই অস্বস্তি শুরু হয় তার। পরীক্ষায় ধরা পড়ে, ছেলেটির শরীরে বিষক্রিয়া ঘটিয়েছে নিকেল সংক্রমণ। চিকিত্সলকদের দাবি, ২০১০ সালে কেনা একটি অ্যাপল আইপ্যাডের থেকেই ঘটেছে এই বিষক্রিয়া। আইপ্যাডটি পরীক্ষা করে তার বাইরের আস্তরণে এমন এক রাসায়নিক মেলে যা নিকেলে উপস্থিত।

জানা গিয়েছে, আইপ্যাড নিয়মিত ব্যবহার করত ওই কিশোর। এ ছাড়াও জানা গিয়েছে, হাসপাতালে ভর্তি ওই কিশোর জন্ম থেকেই এক বিশেষ চর্মরোগে আক্রান্ত। মাছের আঁশের মতো তার ত্বক থেকে মরা চামড়া ওঠে। কিন্তু এবার তার শরীরে যে র‌্যাশ দেখা দিয়েছে, তা আগে কখনও নজরে পড়েনি। নিকেলের সংক্রমণে শরীরে র‌্যাশ বেরোনোর ঘটনা অবশ্য নতুন নয়। ঝুটো গয়না, ঘড়ির চেন ইত্যাদিতে থাকা নিকেলের ছোঁয়া থেকেও এমন র‌্যাশের প্রকোপ হতে পারে। প্রাণঘাতী না হলেও অনেক সময় তা খুবই অস্বস্তির কারণ হয়ে উঠতে পারে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকেরা।। এমনকী এর ছোঁয়ায় অন্যদের শরীরেও র‌্যাশ দেখা যেতে পারে বলে জানিয়েছেন আমেরিকার র‌্যাডি চিলড্রেনস হসপিটালের ত্বক বিশেষজ্ঞ শ্যারন জেকব।

 তার মতে, এমন অবস্থায় অ্যান্টি বায়োটিক ও স্টেরয়েড প্রয়োগ করলে সুফল মেলে। এ বিষয়ে অ্যাপল-এর মুখপাত্র ক্রিস গেইদার জানিয়েছেন, তার সংস্থায় পণ্য তৈরির সময় কোনও রকম আপস করা হয় না। এ বিষয়ে মার্কিন সরকারের গাইডলাইন অক্ষরে অক্ষরে পালন করা হয়ে থাকে বলে তার দাবি। তার মতে, ওই কিশোরের ঘটনাটি নিতান্ত ব্যতিক্রম। তবে টরোন্টোর নিকেল ইনস্টিটিউট জানাচ্ছে, দীর্ঘ সময় নিকেলের সঙ্গে ত্বকের সংস্পর্ষ ঘটলে অ্যালার্জি হওয়ার সম্ভাবনা প্রবল। তবে, ব্যক্তি বিশেষের ত্বকের চরিত্রের ওপর সংক্রমণের সম্ভাবনা নির্ভর করে বলে ইনস্টিটিউটের দাবি।
(সূত্রঃ ইন্টারনেট)
*র‌্যাশ* *চুলকানি* *স্বাস্থ্যতথ্য* *হেলথটিপস* *ত্বকেরযত্ন* *আইপ্যাড*

আমানুল্লাহ সরকার: একটি বেশব্লগ লিখেছে

গরম কিংবা শীত এই দুই মৌসুমেই আপনার ত্বক তৈলাক্ত হতে পারে।ত্বক তৈলাক্ত হলে খুব সহজে ধুলাবালি ত্বকে আটকে যায়। ফলে ত্বকে র‌্যাশ, ব্রুণসহ নানা ধরণের সমস্যা দেখা দেয়। কিন্তু ত্বকের একটু যত্ন নিলেই ত্বক হবে নরম, কোমল ও দাগহীন। চলুন তাহলে জেনে নেই তৈলাক্ত ত্বকের যত্নে শর্টকার্ট টিপস।

তৈলাক্ত ত্বকের যত্নঃ
টকদইয়ের সঙ্গে মধু ও গোলাপের পাপড়ি বাটা মেশানো পেস্ট সপ্তাহে ৪ দিন ত্বকে লাগিয়ে ২০ মিনিট রেখে হালকা গরম পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এতে ত্বক পরিষ্কারের পাশাপাশি ত্বক উজ্জ্বল হবে। পাকা পেঁপে, ডিমের সাদা অংশ ও লেবুর রস সমপরিমানে মিশিয়ে ত্বকে লাগিয়ে ১০ থেকে ১৫ মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন। এই মাস্কটি ত্বকের তেলতেলেভাব দূর করে ত্বক সতেজ রাখবে আর আপনাকে দেখাবে আরো উজ্জল ও আকর্ষণীয়।
*ত্বকেরযত্ন* *শীতেত্বকেরযত্ন* *র‌্যাশ* *রূপচর্চা* *হেলথটিপস* *স্বাস্থ্যতথ্য*

বেশতো সাইট টিতে কোনো কন্টেন্ট-এর জন্য বেশতো কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

কনটেন্ট -এর পুরো দায় যে ব্যক্তি কন্টেন্ট লিখেছে তার।

...বিস্তারিত

QA

★ ঘুরে আসুন প্রশ্নোত্তরের দুনিয়ায় ★