লাইফস্টাইল

লাইফস্টাইল নিয়ে কি ভাবছো?
ছবি

Lutfun Nessa: ফটো পোস্ট করেছে

নিজে করুন যা আপনার শিশুকে শেখাতে চান

*লাইফস্টাইল* *শিক্ষা*

পাগলা হাওয়া: একটি নতুন প্রশ্ন করেছে

 কালো মেয়েদের কোন রং এর ড্রেস পরলে বেশি মানায়?

উত্তর দাও (২ টি উত্তর আছে )

.
*ড্রেস* *লাইফস্টাইল*

দীপ্তি: একটি নতুন প্রশ্ন করেছে

 শীতে অনেকেই শারীরিক ও মানসিকভাবে ক্লান্তি অনুভব করেন এবং শক্তি কম পান। শীতের সময় ঘুম ও ক্লান্তি কেন বেড়ে যায়?

উত্তর দাও (১ টি উত্তর আছে )

.
*ঘুমঘুমভাব* *ক্লান্তিবোধ* *শীতেরঘুম* *লাইফস্টাইল* *লাইফস্টাইলটিপস*

আমানুল্লাহ সরকার: একটি বেশব্লগ লিখেছে

সুখী ও স্বাচ্ছন্দময় জীবন সকলেরই কাম্য। প্রতিদিনের কিছু ভুলের কারণে আমরা জীবনের প্রাপ্ত সুখ থেকে বঞ্চিত হচ্ছি। অথচ কিছু কার্যকরী নিয়ম মানলেই কিন্তু সুখী ও সুন্দর জীবন যাপন করা সম্ভব। চলুন এমন কিছু কার্যকরী টিপস সম্পর্কে জেনে নেই্।

 ১. প্রতিদিন অন্তত ৩০ মিনিট হাঁটুন৷
২. নির্জন কোন স্থানে একাকী অন্তত ১০ মিনিট কাটান ও নিজেকে নিয়ে ভাবুন৷
৩. ঘুম থেকে উঠেই প্রকৃতির নির্মল পরিবেশে থাকার চেষ্টা করুন। সারা দিনের করণীয় গুলো সম্পর্কে মনস্থির করুন।
৪. নির্ভরযোগ্য প্রাকৃতিক উপাদানে ঘরে তৈরি খাবার বেশি খাবেন আর প্রক্রিয়াজাত খাবার কম খাবেন।
৫. সবুজ চা এবং পর্যাপ্ত পানি পান করুন।
৬. প্রতিদিন অন্তত ৩ জনের মুখে হাসি ফোটানোর চেষ্টা করুন।
৭. গালগপ্প, অতীতের স্মৃতি, বাজে চিন্তা করে আপনার মূল্যবান সময় এবং শক্তি অপচয় করবেন না। ভাল কাজে সময় ও শক্তি ব্যয় করুন।
৮. সকালের নাস্তা রাজার মত, দুপুরের খাবার প্রজার মত এবং রাতের খাবার খাবেন ভিক্ষুকের মত।
৯. জীবন সব সময় সমান যায় না, তবুও ভাল কিছুর অপেক্ষা করতে শিখুন।
১০. অন্যকে ঘৃনা করে সময় নষ্ট করার জন্য জীবন খুব ছোট, সকলকে ক্ষমা করে দিন সব কিছুর জন্য।
১১. কঠিন করে কোন বিষয় ভাববেন না। সকল বিষয়ের সহজ সমাধান চিন্তা করুন।
১২. সব তর্কে জিততে হবে এমন নয়, তবে মতামত হিসাবে মেনে নিতে পারেন আবার নাও মেনে নিতে পারেন।
১৩. আপনার অতীতকে শান্তভাবে চিন্তা করুন, ভূলগুলো শুধরে নিন। অতীতের জন্য বর্তমানকে নষ্ট করবেন না।
১৪. অন্যের জীবনের সাথে নিজের জীবন তুলনা করবেন না।
১৫. কেউ আপনার সুখের দায়িত্ব নিয়ে বসে নেই। আপনার কাজই আপনাকে সুখ এনে দেবে।
১৬. প্রতি ৫ বছরমেয়াদী পরিকল্পনা করুন এবং ওই সময়ের মধ্যেই তা বাস্তবায়ন করুন।
১৭. গরীবকে সাহায্য করুন। দাতা হোন, গ্রহীতা নয়।
১৮. অন্য লোকে আপনাকে কি ভাবছে তা নিয়ে মাথা ঘামানোর দরকার নেই বরং অাপনি অাপনাকে কি ভাবছেন সেটা মুল্যায়ন করুন ও সঠিক কাজটি করুন।
১৯. কষ্ট পুষে রাখবেন না। কারণ সময়ের স্রোতে সব কষ্ট ভেসে যায় তাই কষ্টের ব্যাপারে খোলামেলা অালাপ করুন ও ঘনিষ্টদের সাথে শেয়ার করুন।
২০. মনে রাখবেন সময় যতই ভাল বা খারাপ হোক তা বদলাবেই।
২১. অসুস্থ হলে আপনার ব্যবসা বা চাকুরী অন্য কেউ দেখভাল করবে না। করবে বন্ধু কিংবা নিকটাত্মীয়রা, তাদের সাথে সম্পর্ক বজায় রাখুন।
২২. ফেইসবুক অনেক সময় নষ্ট করে। পোষ্টটি পড়তে পড়তেই অনেক খানি সময় নষ্ট করেছেন। ফেইসবুকে আপনার সময় নির্দিষ্ট করুন। কতক্ষণ সময় থাকবেন এখানে।
২৩. প্রতি রাত ঘুমানোর আগে আপনার জীবনের জন্য বাবা মাকে মনে মনে ধন্যবাদ দিন।
২৪. মনে রাখুন জীবনের কোন কোন ভুলের জন্য আপনি ক্ষমা পেয়েছেন। সেসব ভুল আর যেন না হয় তার জন্য সতর্ক থাকুন।
২৫. আপনার বন্ধুদেরও তথ্যগুলো জানান, যেন তারাও আপনার ভাল দিকগুলো সম্পর্কে জানেন এবং আপনাকে আপনার মত করে চলতে দেয়।

মূল লেখক: ডা:শিরিন চৌধুরী মেরী

*সুখ* *লাইফস্টাইল* *টিপস*
খবর

NatunSomoy : একটি খবর জানাচ্ছে

পোকামাকড়-ইঁদুর তাড়াতে বাড়িতে রাখুন পুদিনা পাতা
http://www.natunsomoy.com/%E0%A6%AA%E0%A7%8B%E0%A6%95%E0%A6%BE%E0%A6%AE%E0%A6%BE%E0%A6%95%E0%A6%A1%E0%A6%BC-%E0%A6%87%E0%A6%81%E0%A6%A6%E0%A7%81%E0%A6%B0-%E0%A6%A4%E0%A6%BE%E0%A7%9C%E0%A6%BE%E0%A6%A4%E0%A7%87-%E0%A6%AC%E0%A6%BE%E0%A7%9C%E0%A6%BF%E0%A6%A4%E0%A7%87-%E0%A6%B0%E0%A6%BE%E0%A6%96%E0%A7%81%E0%A6%A8-%E0%A6%AA%E0%A7%81%E0%A6%A6%E0%A6%BF%E0%A6%A8%E0%A6%BE-%E0%A6%AA%E0%A6%BE%E0%A6%A4%E0%A6%BE/60630
স্কুলে বাস্তুতন্ত্র বা ইকো সিস্টেমের প্রাথমিক পাঠ সকলে পেয়েছেন। তাতে লিখা আছে বিশ্বে প্রাকৃতিক ভারসাম্য বজায় রাখতে হলে কীটপতঙ্গের প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। তাই বলে বাড়িতে পোকামাকড়ের উতপাৎ মুখ বুজে সহ্য করতে হবে। বাড়িতে আরশোলা মাকড়সা টিকটিকি বা ইঁদুরের উ ...বিস্তারিত
*পুদিনা_পাতার_গুনাগুন* *পুদিনাপাতা* *ইঁদুরতাড়ান* *ইঁদুর* *পোকামাকড়* *আড্ডা* *জানাঅজানা* *লাইফস্টাইল* *ইঁদুর_তাড়ানোর_উপায়*
৭৮ বার দেখা হয়েছে

ঈশান রাব্বি: একটি বেশব্লগ লিখেছে

দৈনন্দিন জীবনে মাথা ব্যথা খুব সাধারণ একটি সমস্যা। মাথা ব্যথা অনেক বিরক্তিকর, তবে বেশীর ভাগ মাথা ব্যথাই মারাত্মক রোগ নির্দেশ করেনা। দুশ্চিন্তা ও মাইগ্রেন শতকরা ৯০ ভাগ মাথা ব্যথার জন্য দায়ী। মাথা ব্যথা নানা রকমের। টেনশন হেডেক বা দুশ্চিন্তাজনিত মাথা ব্যথা, মাইগ্রেন হেডেক, ক্লাস্টার হেডেক, সাইনাস হেডেক, আর্জেন্ট হেডেক, আইহেডেক বা চক্ষুজনিত মাথা ব্যথা, হরমোনজনিত মাথা ব্যথা। তাছাড়া মগজের টিউমার, মগজের ঝিল্লির ভিতর রক্তপাত, উচ্চ রক্তচাপ ইত্যাদি কারণেও মাথা ব্যথা হয়।

১. টেনশন হেডেক বা দুশ্চিন্তাজনিত মাথা ব্যথা

মাথা ব্যথা মাথার উভয় দিকে হয়। মাথায় তীব্র চাপ অনুভূত হয় এবং ব্যথা ঘাড়ে সংক্রমিত হতে পারে। মানসিক চাপে ব্যথা বাড়তে পারে। পুরুষ, মহিলা সমানভাবে আক্রান্ত হয়।

চিকিৎসা:
সাধারণত বেদনা নাশক দ্বারা চিকিতৎসা করা হয়। স্বল্পমাত্রার ট্র্যাঙ্কুলাইজারও দেওয়া যেতে পারে।

২. মাইগ্রেন–এর মাথা ব্যথা

শতকরা ১০-১৫ ভাগ লোক এ ধরণের মাথা ব্যথায় আক্রান্ত হয়। মাইগ্রেন মহিলাদের বেশী হয়। সাধারণত: ১৫-১৬ বছর বয়স থেকে মাইগ্রেনের লক্ষণ দেখা দেয় এবং বেশীর ভাগ ক্ষেত্রেই ৪০-৫০ বছর বয়স পর্যন্ত স্থায়ী হয়। মাইগ্রেনের আক্রমণের সময় মগজের রাসায়নিক বাহক সেরোটনিন-এর মাত্রা বেড়ে যায় এবং মাথা বাইরের ধমনীগুলো প্রসারিত হয়।

চিকিতৎসা:
যেসব কারণে মাইগ্রেনের আক্রমণ বৃদ্ধি পায়, তা পরিহার করতে হবে। স্বল্পস্থায়ী চিকিতৎসা হিসাবে অ্যাসপিরিন বা প্যারাসিটামলের সাথে এন্টিইমেটিক যেমন প্রোক্লোরপেরাজিন, মেটাক্লোপ্র্যামাইড দেয়া যেতে পারে। তীব্র আক্রমণের চিকিত্সা হিসাবে সুমাট্রিপটিন, যা মাথার বাইরের ধমনীকে সংকুচিত করে, তা মুখে বা ইনজেকশনের মাধ্যমে দেওয়া যেতে পারে। আর্গোটামিন বিকল্প হিসাবে দেওয়া যেতে পারে। ঘন ঘন আক্রমণ থেকে রক্ষা পেতে প্রতিরোধকারী হিসাবে প্রোপানোলল, পিজোটিফেন বা অ্যামিট্রিপটাইলিন দেওয়া যেতে পারে।

৩. ক্লাস্টার হেডেক

ক্লাস্টার হেডেক মাইগ্রেনের চেয়ে কম হয়। এ ধরনের মাথা ব্যথা মধ্য বয়স্ক পুরুষদের বেশী হয়ে থাকে। কিন্তু মাইগ্রেন মহিলাদের বেশী হয়।

চিকিতৎসা:
চিকিত্সা হিসাবে উচ্চ মাত্রায় প্রদাহ বিনাশকারী (এন্টিইনফ্লামেটরী) দেওয়া হয়। সুমাট্রিপটিনও ফলপ্রসূ। আর্গোটামিন ও ভেরাপামিল রোগ প্রতিরোধের জন্য কার্যকর। অর্ধেকের বেশী রোগী ফেস মাস্কের মাধ্যমে ১০০% অক্সিজেন শ্বাসের সাথে নিয়ে উপকার পায়। ধূমপান ও মদ্যপান বর্জন করা উচিত।

৪. সাইনাস এর মাথা ব্যথা

যাদের ঘন ঘন সর্দি-কাশি হয়, তাদের সাইনুসাইটিস থেকে এ ধরণের মাথা ব্যথা হয়ে থাকে।

চিকিতৎসা:
চিকিতৎসা হিসাবে এন্টিবায়োটিক, এন্টিহিস্টামিন, নাজাল ডিকনেজস্ট্যান্ট বা নাজাল স্প্রে দেওয়া হয়।

৫. চক্ষুজনিত মাথা ব্যথা

শতকরা ৫ ভাগ মাথা ব্যথা চক্ষুজনিত। চোখের দৃষ্টিশক্তি কম থাকলে মাথা ব্যথা হতে পারে। অনেকক্ষণ পড়াশুনা করা, সেলাই করা, সিনেমা দেখা বা কম্পিউটার স্ক্রিনের দিকে তাকিয়ে থাকলেও মাথা ব্যথা হতে পারে। চোখের কোন রোগ যেমন- কর্ণিয়া, আইরিশের প্রদাহ, গ্লুকোমা বা রেট্রোবালবার নিউরাইটিস ইত্যাদি কারণেও মাথা ব্যথা হতে পারে। চক্ষুজনিত মাথা ব্যথা সাধারণত: চোখে, কপালের দু’দিকে বা মাথার পিছনে হয়ে থাকে। চক্ষুজনিত মাথা ব্যথায় চক্ষু বিশেষজ্ঞের শরণাপন্ন হওয়া উচিত।

৬. হরমোনজনিত মাথা ব্যথা

মহিলাদের মাসিক কালীন সময়ে প্রোজেষ্টেরন ও এষ্ট্রোজেন হরমোনের উঠানামার কারণে মাথা ব্যথা হতে পারে। জন্ম নিয়ন্ত্রণ বড়ি খেলেও মাথা ব্যথা হতে পারে। মাসিক চক্র শেষ হলে বা জন্ম নিয়ন্ত্রণ বড়ি খাওয়া বন্ধ করলে এ ধরণের মাথা ব্যথা ভাল হয়ে যায়

*মাথাব্যথা* *প্রতিকার* *কারণ* *টিপস* *লাইফস্টাইল*

ঈশান রাব্বি: একটি বেশব্লগ লিখেছে

প্রত্যেকেই আমরা সফল হতে চাই। সফল হওয়ার জন্য খুঁজে বেড়াই নানান পথ। কিভাবে চললে, কিভাবে গেলে সহজে সফল হওয়া যায়, সে পথই আমরা সবাই খুঁজি। কিন্তু নিজের জায়গায় প্রতিষ্ঠিত হতে গেলে কিছু মন্ত্র মেনে চলতেই হবে আমাদের। তবেই সাফল্য ধরা দিবে, তার আগে নয়। আজ জেনে নিন সফল হওয়ার সেসব মন্ত্রগুলো।

মনকে স্থির করুন :
সবার আগে মন স্থির করা ভালো, কী হতে চা। নিজের লক্ষ্য স্থির থাকলে জীবনের সঠিক চালটা দেয়া যায় সঠিকভাবে।

সময় জ্ঞান :
যদি লক্ষ্য স্থির থাকে তাহলে সেই কাজের প্রতি সময় দেয়া উচিত। জানেন তো সবুরে মেওয়া ফলে।

হাল ছাড়া যাবে না :
‘হাল ছেড়ো না বন্ধু, বরং…’ আবার হাল ধরো। লক্ষ্যে পৌঁছতে গেলে বার বার ব্যর্থ হতে হয়। কিন্তু হতাশ না হয়ে রবার্ট ব্রুশের মতো লড়ে যাওয়াই বুদ্ধিমানের পরিচয়।

অসম্ভব বলে কিছু নেই :
জীবনের ডিকশনারি থেকে ইম্পসিবল শব্দটি রবার দিয়ে মুছে ফেলতে হবে। এরপর অসম্ভবকে সম্ভব করা কোনো ব্যাপারই নয়।

শান্ত থাকতে হবে :
চরম পরিস্থিতে যারা শান্ত থাকতে পারেন তারা সঠিক সময়ে ভালো সিদ্ধান্ত নিতে পারেন। বেশি অস্থির হয়ে পড়লে সিদ্ধান্ত নিতে সমস্যা হয়, যার ফল খুব খারাপ হয়।

নিজেকে চেনা :
আমরা যে কোনো একটি কাজে বেশ দক্ষ হতে পারি, কিন্তু আমাদের ভিতরে আরো অনেক ক্ষমতা থাকে, যেগুলো হয়তো কোনোদিন এক্সপ্লোর করা হয়নি। ঘুমিয়ে থাকা প্রতিভাগুলিকে খুঁজে বের করা উচিত সবার।

অত্যধিক আত্মবিশ্বাস :
কোনো কাজ করতে গেলে আত্মবিশ্বাস রাখা ভালো কিন্তু অত্যধিক আত্মবিশ্বাসে লক্ষভ্রষ্ট হতে পারে। ক্ষমতা ও বাস্তব পরিস্থিতি বুঝে এগিয়ে চলাই ভালো

*জীবন* *সফলতা* *করণীয়* *সফল* *লাইফস্টাইল* *ফালতুপোস্ট*

ঈশান রাব্বি: একটি বেশব্লগ লিখেছে

সারারাত ঘুমিয়েও সকালে কিছুতেই ক্লান্তি কাটে না। ক্লান্তি নিয়েই অফিস-ব্যবসা বা ঘর সামলাতে হয়। সারাদিন ঘুম চোখে নানা ভুলও হয়ে যায়। মনে হয়, আরেকটু ঘুমোলে হয়তো ভালো লাগতো। ঘুম জড়ানো চোখে বাসে ট্রামে ঢুলেও পড়ছেন। সহযাত্রীরা বিরক্ত হচ্ছেন। আপনিও বিরক্ত। মনে প্রশ্ন, কেনো ঘুম কাটতে চাইছে না? আসুন জেনে নেই কি এর কারণ?

স্লিপ অ্যাপনিয়া
ঠিকঠাক ঘুমের পরও আপনি ক্লান্ত। এই অসুখে প্রবল নাক ডাকার সঙ্গে শ্বাস বন্ধ হয়ে মাঝেমধ্যে ঘুম নষ্ট হয়। ভাঙা ভাঙা ঘুম। ফলে কম ঘুম গোটা দিনের জন্য আপনাকে ক্লান্তিতে ভরিয়ে তোলে।

ওবেসিটি
ঘুমের পরও ক্লান্তি? মোটা হয়ে যাচ্ছেন না তো? ওবেসিটি থাকলে বা শরীরের মেদ জমলে কিন্তু সারাদিন ঘুম পায়। ক্লান্তি চলে আসে বারবার।

টেনশন
টেনশন বা ডিপ্রেশন হতে পারে অনিদ্রার কারণ। আর যদি টেনশন বা ডিপ্রেশন নিয়ন্ত্রণে রাখতে আপনি ওষুধ নেন, তা হলে সারাদিন ঘুম পাওয়াটা স্বাভাবিক।

মদ্যপান
চেতনাকে বশ করে অ্যালকোহল। ফলে প্রচণ্ড ঘুম পায়। রাতে পুরোপুরি সেই ঘুম হয়ে ওঠে না। তাই সকালে গা ম্যাজম্যাজ, মাথা ঝিমঝিম করে।

মুক্তির উপায় জেনে নিন
ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতে হবে। অতিরিক্ত ওজন কমাতে হবে। জাঙ্ক ফুড এড়িয়ে চলতে হবে। নিয়ম করে এক্সারসাইজ় করুন। মদ্যপান থেকে বিরত থাকুন। এতেও যদি না কমে, তা হলে অবশ্যই চিকিত্সকের পরামর্শ নিন

*ঘুম* *লাইফস্টাইল* *ঘুমভাব*

বেশতো সাইট টিতে কোনো কন্টেন্ট-এর জন্য বেশতো কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

কনটেন্ট -এর পুরো দায় যে ব্যক্তি কন্টেন্ট লিখেছে তার।

...বিস্তারিত

QA

★ ঘুরে আসুন প্রশ্নোত্তরের দুনিয়ায় ★