লাঞ্চ বক্স

লাঞ্চবক্স নিয়ে কি ভাবছো?

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

চাকুরীজীবী মানুষের জন্য প্রতিদিনের খাবার নিয়ে যাওয়াটা খুব জরুরি। খাবার নিয়ে গেলে ঠান্ডা হয়ে যায় আবার অনেক সময় নস্টও হয়ে যায়। দুপুরের খাবার আয়েশ করে খেতে না পারলে কার ভাল লাগে বলুন তো? আর কর্মজীবীদের সাধারণত যে সমস্যায় প্রতিদিন পড়তে হয় সেটা হলো দুপুরের খাবার সমস্যা।

আর চিন্তা নেই, কারণ কর্মজীবীদের এই সমস্যা সমাধানের জন্য বাজারে এখন পাওয়া যাচ্ছে ইলেকট্রিক লাঞ্চ বক্স। যা দিয়ে খুব সহজে আপনি খাবার গরম করতে পারবেন যখন ইচ্ছা তখন। এসব ঝামেলা সরিয়ে দিতেই এসেছে এই  Electric Lunch Box নিয়ে। আপনি যে কোন জায়গায় যান না কেন শুধু মাত্র box টি plug করে দিন , ব্যাস ! ঝটপট আপনার খাবারটি গরম হয়ে যাবে ...চলুন জেনে আসি পণ্যের বিস্তারিত।

পন্যের বিবরনঃ
১. এই লাঞ্চ বক্সের খাবার ঠাণ্ডা হয়ে গেলেও চার্জের মাধ্যমে আবার গরম করা যায়
২. খাবার নষ্ট হওয়ার আশঙ্কা নেই
৩. গরমকাল তো বটেই শীতের সময়ও যথেষ্ট গরম রাখার নির্ভরযোগ্য উপায় হচ্ছে এই ইলেকট্রিক লাঞ্চ বক্স
৪. কালারঃ আপনি আপনার পছন্দ মত যে কোন রঙের লাঞ্চ বক্স বেছে নিতে পারেন।

এই electric lunch Box-টি আপনার খাবারকে গরম করবে মাত্র ১০ মিনিটে তাছাড়া এটি Shock proof এবং কম বিদ্যুৎ খরচে চলে। ঢুঁ মেরে দেখতে পারেন আজকের ডিলে, সেখানে ইলেকট্রিক লাঞ্চ বক্স লিখে সার্চ দিলেই আপনি পেয়ে যাবেন হরেক রকম ডিজাইনের লাঞ্চ বক্স। কিছু পণ্যের ছবি দেয়া হলো, সেগুলো কিনতে ছবিতে ক্লিক করুন অথবা এই লিংক থেকে ঘুরে আসুন। 

*লাঞ্চবক্স* *ইলেকট্রিকলাঞ্চবক্স*

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

টিফিন কিংবা লাঞ্চে কেউই চায় না ঠান্ডা খাবার খেতে। তার উপরে এখন চলছে শীত মৌসুম। ঠান্ডা খাবার খেতে এ সময় কারোরই ভালো লাগবে না এটাই স্বাভাবিক। তাছাড়া ঠান্ডা খাবারে বিভিন্ন স্বাস্থ্যঝুকিরও প্রবল সম্ভাবনা থেকে যায়। এসব ঝক্কি ঝামেলা সহজেই এড়াতে ব্যবহার করতে পারেন খাবার গরম করার বা গরম রাখার জন্য বাজারে প্রচলিত জনপ্রিয় কিছু লাঞ্চ বক্স বা ওয়ার্মার। 
আজকের এই পোস্টে জানবো  তেমনই কিছু ইলেকট্রিক লাঞ্চ বক্স বা ওয়ার্মার সেটের কথা >  













*লাঞ্চবক্স* *ওয়ার্মার* *টিফিনবক্স* *স্মার্টশপিং*

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

নিত্য নতুন গ্যাজেট আমাদের জীবনযাপনকে করে দিচ্ছে অনেক ইজি। এগুলোর ব্যবহার যেমন সহজ তেমন পোর্টেবিলিটির কারণে যে কারোও পছন্দ হবে। তাই চলুন হালের  চমক সৃষ্টিকারী তিনটি গ্যাজেটের সাথে পরিচিত হয়ে নিই।


শীতের এই সময়ে অতি প্রয়োজনীয় একটি জিনিস এই পোর্টেবল রুম হিটারটি। এটি চালু করার অল্প সময়ের মধ্যে আপনার ঘর হয়ে উঠবে উষ্ণ, আরামদায়ক। এটি শীতের সময় দারুণ সাহার্য করবে।
ফুল মেটাল বডি 

Diamond রিফ্লেক্টর কম্প্যাক্ট,
 পোর্টেবল ডিজাইন; 
বহন করা সহজ 
এডজাস্ট্যাবল এঙ্গেল
ডাইমেন্সনঃ ২০০ x ১০৫x ২০৩ মিমি 
ভোল্টেজঃ ২২০ ভোল্ট 
পাওয়ারঃ ২২০ ওয়াট @ 50Hz
কালারঃ র‌্যান্ডম 
বি. দ্র. : হিটারটি অবশ্যই শিশুদের নাগালের বাইরে রাখুন



ছোট্ট সুদৃশ্য এই ফ্রিজটি আধুনিক গ্যাজেটের চরম একটি নিদর্শন। এই স্মার্ট সময়ে আমাদের সবার বাসায় ল্যাপটপ বা ডেস্কটপ রয়েছে। এই ফ্রিজটি আপনার পিসির সাথে কানেক্ট করে দিলে যেকোন ড্রিংকস বা ক্যান রাখবে কুল ও অনেকদিন রেখে খেতে পারেন। যাদের বাসায় পিসি নাই তারা ফোনের ইউনিভার্সাল চার্জার দিয়েও কাজ সারতে পারেন। এই মিনি ফ্রিজটির মুল্য মাত্র ১,৬০০ টাকা
USB পাওয়ার্ড
একটি পানীয় ক্যান এর সাইজের যে কোন ক্যান কিংবা বোতল ঠান্ডা করতে পারে



বাসার বাইরে যাদের নিয়মিত ববেরোতে হয় তাদের জন্য আদর্শ একটি গ্যাজেট এই মিনি ইলেক্ট্রনিক লাঞ্চ বক্স। খাবার গরম করার ব্যবস্থা রয়েছে এটিতে। 
হাই কোয়ালিটি মিনি ইলেক্ট্রনিক লাঞ্চ বক্সটি আপনার খাবার রাখবে গরম আর টাটকা 
রাইস, কারি আর ডাল রাখার জন্য ৩টি চমৎকার কম্পার্টমেন্ট 
হাই-গ্রেড প্লাস্টিক বডি 
ক্যাপাসিটিঃ ১.২ লিটার (একজনের জন্য আদর্শ)
অফিসগামী মানুষদের জন্য খুবই উপকারী এই লাঞ্চবক্সটি।
এটির দাম পড়বে মাত্র১,৩৯৯ টাকা


*লাঞ্চবক্স* *রুমহিটার* *ইউএসবিফ্রিজ* *স্মার্টশপিং*

উজ্জ্বল: সেদিন *সন্ধ্যাবেলা* *অভিমানী* *বান্ধবী* কে সাথে করে *ঈদপূজারকেনাকাটা* করতে আসা ক্রেতাদের ভিড় ঠেলে অনেকটা *পথ* পেড়িয়ে রেস্টুরেন্টে বসবো মনের *নাবলাকথা* বলতে,কিন্তু *কিবিপদ* দেখি আমার *জিনিয়াস* বড় ভাইটি ওখানে *বার্গার* খাচ্ছে আর দুপুরে অবহেলায় ↓

*সন্ধ্যাবেলা* *অভিমানী* *বান্ধবী* *ঈদপূজারকেনাকাটা* *পথ* *নাবলাকথা* *কিবিপদ* *জিনিয়াস* *বার্গার* *লাঞ্চবক্স* *ঈদশপিং* *পূজারকেনাকাটা*

jayed জায়েদ: *লাঞ্চবক্স* সাজায়া দেয়ার মত কেউ নাই, তাই নেয়া হয় (না)। বাইরেই করি (কান্না)

মোঃ রাশেদ: *নাবলাকথা* মনে চেপে রেখে *বান্ধবী* র *অভিমান* ভাঙ্গাতে *সারপ্রাইজ* দেবে ভেবে হাবলু দুপুরবেলা *ক্ষমতা* র দাপট দেখিয়ে *ঈদপূজারকেনাকাটা* করতে গিয়ে *কিবিপদ* এই না পরেছিল। *সন্ধ্যাবেলা* ফেরার *পথ* এ *লাঞ্চবক্স* টাও ভুল করে ফেলে আসলো। *জিনিয়াস* (চরকি)

*নাবলাকথা* *বান্ধবী* *অভিমান* *সারপ্রাইজ* *ক্ষমতা* *ঈদপূজারকেনাকাটা* *কিবিপদ* *সন্ধ্যাবেলা* *পথ* *লাঞ্চবক্স* *ঈদশপিং*

নাদিয়া : *লাঞ্চবক্স* নামের একটা হিন্দি সিনেমার বিজ্ঞাপন টিভিতে দেখেছিলাম। খারাপ লাগে নি। সিনেমাটা দেখতে হবে।

শুভ্র: আমার মতো চরম অলস,সাথে করে *লাঞ্চবক্স* নিয়ে যাবে,আবার তা ফেরত আনবে? অসম্ভব! স্কুলে থাকতে,জোর করে দু-একবার গছানোর চেষ্টা করেছিল মা! আমি যথারীতি,ভুল করে হারিয়ে ফেলতাম বক্স! (খিকখিক) পরে,সে আশা বাদ দিয়ে,খাওয়ার টাকা দিয়ে দিতো! টাকা কিন্তু হারাতামনা মোটেও(গ্যাংনাম)(গ্যাংনাম)(গ্যাংনাম)

*জিনিয়াস*

ওয়াছিম: আজ *লাঞ্চবক্স* এ ছিলো খেচুরি........ ইলিশ।

মারিয়া আক্তার অর্পিতা: আমি স্কুল কলেজ এ *লাঞ্চবক্স* নিয়ে কোনদিন ও শান্তি মতো খেতে পারতাম না আমার .......(পেটুক) বন্ধু গুলো তা খেয়ে আগেই সাবার করে ফেলতো........তখন কি যে (রাগী২) লাগতো.....কিন্তু এখন সেই কথা মনে পড়লে কি যে হাসি পায় ......(খুশী২)

আদিত্য: *লাঞ্চবক্স* বন্ধের দিন ব্যতিত অফিসের দিনগুলোতে একই ধরনের খাবার, যদিও ভালো লাগে না তবুও চলছে। আজকের লাঞ্চ মুরগি, ডাল আর ভাজি।(রাগারাগি)(নাআআআ)

ফররুখ আহমেদ রাজীব: *লাঞ্চবক্স* দুপুরে সাধারণত ভাত-ই খাওয়া হয় প্রতিদিন l আজকের আইটেম হলো কাচকি মাছ ভুনা আর বেগুন আলু দিয়ে ছোট মাছের তরকারী l

প্যাঁচা : *লাঞ্চবক্স* আজকে কিছু নাই। সকালের নাস্তা খারাপ হইছে, মনে হয় আবার বেশী খাইয়া ফেলছি। তাই (সংযম)...বউ জানলে (রাগারাগি)(চিৎকার)(ঘোলাটেদেখি)...বহুত দিন বাঁচব...(শুভেচ্ছাবিনিময়)(সংযম)(খাড়াআইতাসি)...ভয় পাইসি,(নাআআআ)(ভাগোওওও)

মোঃ রাশেদ: *নাবলাকথা* যদি কোনভাবে *বান্ধবি* জানতে পারে তবে সে *অভিমান* করে অন্য *পথ* ধরে। কিন্তু যাবার আগে আমার *লাঞ্চবক্স* টা খালি করে আবার বলে- *সন্ধ্যাবেলা* ফুচকা খাওয়াতে হবে, এটাই নাকি শাস্তি। *জিনিয়াস*

*নাবলাকথা* *বান্ধবি* *অভিমান* *পথ* *লাঞ্চবক্স* *সন্ধ্যাবেলা* *জিনিয়াস*

আরেফিন রাব্বী: ১ঘণ্টার লাঞ্চ প্যাক । বাসায় যেতে যেতে ১০ মিনিট ,বাসায় পউছে ২মিনিট ঘুড়াঘুড়ি করা ,১৫মিনিট ঘুম আবার ১৫ মিনিটে খাওয়া ,৮মিনিট আবার ঘুড়াঘুড়ি করা এবং শেসের ১০ মিনিট আবার অফিস আশা ! (খুশী২) । এই হল আমার আজকের লাঞ্চবক্স , আপনারটা ?

*লাঞ্চবক্স*

বেশতো সাইট টিতে কোনো কন্টেন্ট-এর জন্য বেশতো কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

কনটেন্ট -এর পুরো দায় যে ব্যক্তি কন্টেন্ট লিখেছে তার।

...বিস্তারিত

QA

★ ঘুরে আসুন প্রশ্নোত্তরের দুনিয়ায় ★