শরীরচর্চা

শরীরচর্চা নিয়ে কি ভাবছো?

দীপ্তি: একটি বেশব্লগ লিখেছে

পেটের চর্বি কমানোর সবচেয়ে ভাল এক্সারসাইজ হলো প্লাঙ্ক। শুধু তাই নয়, এই বিশেষ ব্যায়ামের রয়েছে অন্য অনেক সুবিধেও। আর তাই আজকাল সেলেব্রেটি থেকে আমজনতা সবারই পছন্দের এই ব্যায়াম হচ্ছে প্লাঙ্ক। 

বাসায় যেভাবে এই এক্সারসাইজ করতে পারেন :

প্রথম দিকে টানা ১০-২০ সেকেন্ড করার চেষ্টা করুন। পরে ধীরে ধীরে বাড়াবেন। টানা এক মিনিট করতে পারলে বুঝবেন, আপনার ফিটনেস লেভেল বাড়ছে। প্লাঙ্কের রকমফের রয়েছে। বেসিক প্লাঙ্ক এবং এলবো প্লাঙ্ক দিয়ে শুরুটা করতে পারেন। তারপর লেগ রেজ, ওয়ান সাইডেড প্লাঙ্কও চেষ্টা করে দেখুন।

এই এক্সারসাইজ করার সময় পেটের মাসল টেনে রাখবেন। কিন্তু নিঃশ্বাস-প্রশ্বাস যেন স্বাভাবিক থাকে। নিজে থেকে একেবারেই এটা করতে যাবেন না। ইউটিউব দেখেও করতে পারেন, তবে সাবধানে। কোমরে ব্যথা হলে বুঝবেন, ঠিক মতো হচ্ছে না এক্সারসাইজটা। 

বাসায় করতে না চাইলে জিমে গিয়ে পেশাদারের সাহায্য নিয়ে করুন।

প্লাঙ্কের উপকারিতা অনেক, কিছু তুলে ধরছি :

  • পেটের চর্বি কমাতে সবচেয়ে ভাল এক্সারসাইজ।
  •  আপার-লোয়ার অ্যাবডোমেনের চর্বি স্রেফ প্লাঙ্কেই কমে যাবে।
  •  কোমরে যাঁদের ব্যথা, তাঁদের জন্য এটা উপকারী।
  • মেরুদণ্ড মজবুত করতে প্লাঙ্কের জুড়ি নেই।
  • অ্যাসিডিটির সমস্যা কমাবে।
  • বেশ কিছুদিন প্লাঙ্ক করলে দেখবেন, আপনার মেটাবলিজম রেট বাড়ছে। -
  • দেহের গঠন সুন্দর করবে। কারণ, শুধু পেটই নয়, কোমরের শেপ ঠিক করার জন্যও এই এক্সারসাইজ জরুরি।
  • নিয়মিত এটা করতে থাকলে দেখবেন, ফ্লেক্সিবিলিটি বেড়ে গিয়েছে। 
*ব্যায়াম* *ফিটনেস* *শরীরচর্চা* *পেটেরচর্বি* *স্লিমিংটিপস* *মেদভুঁড়ি* *লাইফস্টাইলটিপস*

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

ঘর ও বাইরের বিভিন্ন কাজ সামলানোর পর নিয়ম করে সময় মেনে অনেকেরই জিমে যাওয়া হয়ে ওঠে না। তাই বাড়িতেই একটি ছোট্ট জিম তৈরি করে নিতে পারেন। তবে জিম তৈরির আগে চাই সঠিক পরিকল্পনা।এতে আকাশচুম্বি কোনো খরচ হবে না। একটি হোম জিম থাকলে আপনি জিমে যাতায়াতের সময় ও জিমের সদস্য ফিস বাঁচাতে পারবেন এবং জিমের গাদাগাদি পরিবেশে কোনো একটা সরঞ্জাম ব্যবহারের অপেক্ষায় আপনাকে বসে থাকতে হবে না। ব্যায়ামের সরঞ্জাম যদি আমাদের বাড়িতেই থাকে তাহলে খুব সম্ভবত আমরা নিয়মিতভাবে ব্যায়াম চালিয়ে যাবো। এটা অবশ্যই বেশি সুবিধাজনক।
 
বাড়িতে জিম করার পরিকল্পনা থাকলে প্রথমেই আপনার ফিটনেস এক্সপার্টের সঙ্গে যোগাযোগ করুন। তালিকা করে জিমের ফিটনেস ইকুইপমেন্ট কিনুন এবং প্রতিটি ইকুইপমেন্ট ব্যবহারের সঠিক পদ্ধতি ও ওয়ারেন্টি  জেনে নিন। 
 
 
স্থান নির্বাচন 
প্রথমেই আপনাকে যা করতে হবে তা হলো, ব্যায়ামের জন্য আপনার বাড়ির কোন স্থানটি ব্যবহার করতে চান তা ঠিক করা। এর জন্য আপনি যদি একটি নির্ধারিত ব্যায়ামকক্ষ তৈরি করে নেন তাহলে আপনি অনেক বেশি স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করবেন এবং সম্ভবত প্রতিদিনই আপনি তা ব্যবহার করবেন। আপনি আপনার বাড়ির বেজমেন্ট, গ্যারেজ অথবা কোনো একটি অতিরিক্ত কক্ষকে হোম জিম হিসেবে ব্যবহার করতে পারেন। কক্ষটি খোলামেলা এবং আরামদায়ক হতে হবে। গ্যারেজটি যদি তেলের গন্ধযুক্ত থাকে তাহলে আপনি অবশ্যই তা পছন্দ করবেন না। সেক্ষেত্রে ভিন্ন কোনো স্থান নির্বাচন করুন।
 
 
আপনার কাজ চালানোর মতো কোনো কক্ষ যদি নাই থাকে তবে আপনাকে আপনার বাড়ির কোনো একটা কক্ষের সাথেই ব্যায়ামকক্ষটিকে সমন্বয় করে নিতে হবে। সেটিকে তখন লিভিংরুম, গ্রেটরুম অথবা মিডিয়ারুমের এক কোণায় স্থাপন করার কথা ভাবা যেতে পারে। এটি নির্ভর করে কক্ষটির আকার-আয়তন এবং এটি কতটা গাদাগাদি অবস্থায় রয়েছে তার উপর। বেডরুমকে পারতপক্ষে ব্যায়ামকক্ষ হিসেবে ব্যবহার করবেন না। 
বাড়িতে জিম তৈরি করার আগে কী ধরনের শরীরচর্চা করতে চান সে সম্পর্কে নিদিষ্ট ধারণা রাখুন। ওয়েট ট্রেনিং করতে চাইলে অপেক্ষাকৃত কম জায়গা লাগবে। অ্যারোবিকস করতে চাইলে একটু বেশি জায়গা নিয়ে গড়ে তুলুন আপনার জিম। জিম তৈরির আগে কি কি  করবেন জানুন।
 
♦ বাড়ির জিমে অবশ্যই মিউজিক সিস্টেম রাখুন।
♦ বাড়ির বসার ঘরে বা শোবার ঘরে জিম তৈরি করবেন না। যে ঘরে জিম তৈরি করতে চান, তার মধ্যে দিয়ে রান্নাঘর বা বাথরুমে যাওয়ার পথ যেন না থাকে সেদিকে লক্ষ্য রাখুন। কারণ আপনার শরীরচর্চার সময় বাড়ির সদস্যরা ক্রমাগত জিম দিয়ে যাওয়া-আসা করলে আপনার মনসংযোগে ব্যাঘাত ঘটতে পারে।
♦ হোম জিম পরিকল্পনার জন্য প্রথমেই আপনার ফিটনেট এক্সপার্টের সাথে যোগাযোগ করুন। নির্দিষ্ট তালিকা জেনে নিয়ে জিমের ফিটনেস ইকুইপমেন্ট কিনুন এবং প্রতিটি ইকুইপমেন্ট ব্যবহারের সঠিক পদ্ধতি জেনে নিন।
♦ বাড়ির জিমে ট্রেডমিল, টুইস্টার, স্টেশনারি সাইকেল, বল অবশ্যই রাখতে পারেন।
♦ আপনার নিজের গড়া জিমটি যেন দেখতে সুন্দর হয় সেদিকে অবশ্যই লক্ষ্য রাখুন। জিমের দেয়ালের রঙ, দেয়ালসজ্জার মাধ্যমে জিমটিকে আকর্ষক করে তুলুন।
♦ বাড়িতে জিম তৈরির জন্য আপনি যে ঘরটিকে বেছে নিয়েছেন তাতে জায়গা খুব কম মনে হলে ঘরের একদিকের দেয়াল জুড়ে আয়না বসাতেন পারেন। এর ফলে ঘরটিকে বেশ বড় মনে হবে এবং আপনি ঠিকমতো ব্যায়াম করছেন কি না, তাও দেখতে পাবেন।
♦ বাড়ির জিমের ট্রেডমিল বা স্টেশনারি সাইকেলের সামনে সুন্দর কোনো পোস্টার লাগান।
♦ যোগাসন, মেডিটেশন বা জিম করার সময় কী ধরনের মিউজিক শুনবেন তা আগে থেকেই ঠিক করে রাখুন এবং জিমের নির্দিষ্ট সিডি র্যাকে প্রয়োজনীয় সিডি গুছিয়ে রাখুন।
♦ নিয়মিত আধ ঘণ্টার বেশি জিম করলে কাছাকাছি একটি টেবিলে প্রয়োজনীয় পানি, ফলের জুস রাখুন।
♦ পরিবারের কোন সদস্য কোন সময়ে বাড়ির জিম ব্যবহার করবেন সেটা আগে থেকেই ঠিক করে রাখুন।
♦ বাড়িতে জিম তৈরি করার প্রাথমিক পর্যায়ে খুব বেশি খরচ করতে না চাইলে সেকেন্ড হ্যান্ড ফিটনেস ইকুইপমেন্ট কেনার কথা ভাবতে পারেন। তবে সেক্ষেত্রে অবশ্যই ইকুইপমেন্টের অবস্থা ভালো করে যাচাই করে নিন।
♦ জিমের ঘরের মেঝে কার্পেট দিয়ে ঢেকে রাখার চেষ্টা করুন এবং জিমটির জিনিসপত্র পরিষ্কার রাখুন।
♦ জিম করার জায়গা কম মনে হলে ঘরের একদিকের দেয়ালজুড়ে আয়না বসাতেন পারেন। এর ফলে ঘর বড় মনে হবে এবং আপনি ব্যায়াম করার সময় নিজেকে দেখতে পাবেন। 
 
 
ব্যায়ামকক্ষের জন্য অর্থপরিকল্পনা
যে কোনো ব্যায়ামকক্ষের জন্য ট্রেডমিল এবং ইলেপ্টিক্যাল যন্ত্রপাতি (elliptical machine) চমৎকার অনুষঙ্গ হতে পারে। সেগুলো যে খুব বেশি দামী হতে হবে এমন নয়। প্রায়শই, লোকেরা ব্যায়াম চালিয়ে যাওয়ার জন্য কঠিন প্রতিজ্ঞা করে বটে, কিন্তু সেই প্রতিজ্ঞা মেনে চলতে পারে না। বাস্তাবিকপক্ষেই, একসময় তারা ঘরের জায়গা উদ্ধারের জন্য সরঞ্জামটি বিক্রয় করে দেয়। আপনি ব্যবহৃত জিম সরঞ্জাম স্বাভাবিক দামের চেয়ে অনেক কমমূল্যে ক্রয় করার মাধ্যমে লাভবান হতে পারেন। বিক্রেতা যদি সরঞ্জামটি সামান্যই ব্যবহার করে থাকেন তবে তো হয়েই গেল। আপনি ব্যাপক দরকষাকষিতে একরকম নতুন জিনিসই পেয়ে যাবেন। ব্যবহৃত স্টেশনারি বাইক (stationary bikes), স্টেয়ার ক্লাইম্বার্স (stair climbers) এবং মাল্টিস্টেশন ওয়েট মেশিনও (multi-station weight machine) কিনতে পাওয়া যায়।
দরকারি জিনিসপত্র ক্রয়
আপনি কোন ধরনের জিম তৈরি করতে চান সে সিদ্ধান্ত নেয়ার পর আপনাকে ম্যাট (mat) এবং স্টোরেজের (storage) মত দরকারি জিনিসপত্র সম্পর্কে ভাবতে হবে। যোগব্যায়াম প্রেমীদের অনুশীলনের জন্য তাদের জিমের মেঝেতে ম্যাট বিছানোর দরকার হবে। এটিকে একটি প্রশান্ত স্থানে পরিণত করার প্রয়োজনে এখানকার আলোকসজ্জা এবং স্বাচ্ছন্দ আনয়নকারী উপাদান যেমন হালকা সংগীতের জন্য স্টেরিও ইত্যাদি নিয়ে আসার কথা ভেবে দেখতে হবে। ব্যায়াম করার জন্য ভিডিও, মিউজিক সিডি এবং রেজিস্ট্যান্স ব্যান্ডগুলো (resistance bands) রাখার জন্য আপনার একটি গোপন জায়গার (hidden storage) দরকার হবে। ওয়েট (weight) রাখার জন্য একটি স্ট্যান্ডও (stand) সাহায্যকারী হতে পারে। কক্ষটিকে আকর্ষণীয় করে তুলতে আপনি সেখানে কিছু চারাগাছ এনে রাখার কথাও ভাবতে পারেন, তাছাড়া সেগুলো ব্যায়ামকক্ষে অক্সিজেনের যোগান দিতেও সাহায্য করবে। একটি ব্যায়ামকক্ষকে বিশৃংখলা এবং মনোযোগ বিচ্ছিন্নকারক উপদান থেকে মুক্ত রাখা উচিত।
শুরু করার সময়
আপনার কর্মপরিকল্পনা ছকে নিয়ে সরঞ্জামাদি ক্রয় করার পর এবং আপনার ব্যায়ামকক্ষটিকে আকর্ষণীয় ও হৃদয়গ্রাহী করে সাজানোর পরই আপনি ব্যায়াম শুরু করতে পারেন। আপনার নিয়মিত ব্যায়ামের জন্য কিছু ব্যায়ামের পোষাক (workout clothes) ও আরামদায়ক জুতা (comfortable shoes) কিনতে ভুলবেন না। মনোযোগের ঘাটতি সর্বনিম্ন পর্যায়ে কমিয়ে আনতে ব্যায়ামের সময়টুকু পারিবারিক সংশ্লিষ্টতা থেকে দূরে একান্ত নিজস্বভাবে কাটান। এই সময়টুকু কেবল আপনার নিজের উপরে মনোযোগ নিবদ্ধ করার জন্যই বরাদ্দ রাখুন।
 
হোম জিম অনেক লোকের জন্যই একটি সঠিক জিনিস হতে পারে কারণ তারা কোনো জিমে যোগ দিতে কিংবা ব্যায়াম করার জন্য বাহিরে যেতে চান না। এটি ব্যক্তিগত এবং এটি আপনাকে ব্যায়ামের জন্য অনেক বেশি স্বাধীনতার সুযোগ দেয়। আপনাকে কোনো মাসিক ফি দিতে হয় না, পার্কিং লটে গাড়ি পার্কিংয়ের ঝামেলা পোহাতে কিংবা ব্যায়ামের সরঞ্জাম খালি হওয়ার জন্য অপেক্ষা করতে হয় না। আপনার নিজের একটি হোম জিম থাকলে মনোযোগের বিঘ্ন ঘটারও কোনো কারণ থাকে না। সম্ভাব্য সেরা শারীরিক গঠন (the best possible shape) পেতে আপনি তখন নিজের উপর এবং নিজের শরীরের উপর মনোযোগ দিতে পারেন।
 
কোথায় পাবেন
আপনি এসব পেয়ে যাবেন স্টেডিয়াম মার্কেট, গুলিস্তান, নিউ মার্কেট সহ যে কোনো বড় শপিং মলে l এছাড়া অনলাইন শপ আজকের ডিল তো আছেই l 
 

 

*জিম* *বাড়িতেজিম* *ব্যায়াম* *শরীরচর্চা*

খুশি: একটি বেশব্লগ লিখেছে

এতো দিন তো মানুষের মত হেঁটেছেন। কিন্তু এখন শরীরটাকে সুস্থ্ রাখতে কিছুটা সময় যদি পশুর মত চার পায়ে হাঁটতে হয় তাতে ক্ষতি কি? মোটেও হাস্যকর কোন কথা বলছি না। সত্যিই দুই হাত দুই পা ব্যবহার করে পশুর মত হাঁটলে শরীর সুস্থ থাকবে। শুধু সুস্থ থাকা নয়, শরীরচর্চার ক্ষেত্রে এটাই সবচেয়ে উপকারী ব্যায়াম বলে সম্প্রতি পরামর্শ দিয়েছেন এক চিকিৎসক। চিকিৎসকের এই পরামর্শের পরে চিনে এখন এই ব্যায়াম ব্যাপক জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। ।

সংবাদসংস্থা বিবিসি জানাচ্ছে, পূর্ব চিনের ঝেংঝু প্রদেশে অনেক স্বাস্থ্য সচেতন মানুষকে রাস্তায় এখন দেখা যাচ্ছে হাতমোজা পরে দুই পা আর দুই হাত দিয়ে উবু হয়ে ফুটপাত ধরে হাঁটতে। এভাবে হাঁটা দেখতে বেশ অস্বস্তিকর মনে হলেও ওই চিকিৎসকের পরামর্শ, এভাবে হাঁটার স্বাস্থ্যগুণ অনেক।

হেনান প্রভিন্স হাসপাতালের ডেপুটি চিফ ফিজিশিয়ান লু পেইওয়ান জানিয়েছেন, এতে শরীরের কিছু কিছু মাংসপেশী আরও সক্রিয় হয়ে ওঠে, যেসব মাংসপেশী মানুষ সাধারণত ব্যবহার করে না। এছাড়াও, এই ব্যায়াম মানুষের হাড় এবং লিগামেন্ট শক্ত করে। ওই চিকিৎসকের রিপোর্টে বলা হয়েছে, এই ব্যায়াম অনেকটা প্রাচীন চিনা ওষুধের মত কাজ করে।

এই ব্যায়াম পদ্ধতিতে মানুষকে পাঁচটি পশুর হাঁটাকে অনুকরণ করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। এগুলি হল ভালুক, বানর, হরিণ, বাঘ এবং পাখি। চিনে প্রচলিত ওষুধ ও চিকিৎসার বাইরে শরীর ভাল রাখার জন্য নানাধরনের বিকল্প পদ্ধতি ব্যবহারের প্রচলন বহুদিনের এবং সেগুলি খুবই জনপ্রিয় । 

চিনের কোনও কোনও জায়গায় পার্কে বা উন্মুক্ত স্থানে নৃত্যসঙ্গীতের তালে তালে পেছনদিকে হাঁটাও একটা জনপ্রিয় ব্যায়াম। তবে দুই হাত আর দুই পা ব্যবহার করে পশুর মত হাঁটার ব্যায়াম এক্কেবারে নতুন এক পদ্ধতি। ইতিমধ্যে এই ব্যায়াম নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়াতে ব্যাপক চর্চ্চা শুরু হয়েছে। কারোর মতে এই ধরণের ব্যায়াম খুবই হাস্যকর। তবে, শরীর সুস্থ রাখতে এই ধরণের ব্যায়ামই, অনেক কিছুই করা যেতে পারে বলে মনে করছেন সাধারন মানুষ।

কনটেন্ট সহযোগিতায়ঃ কলকাতা ২৪
*ব্যায়াম* *হাঁটা* *লাইফস্টাইলটিপস* *শরীরচর্চা*

শুভাশীষ: একটি নতুন প্রশ্ন করেছে

 শরীর চর্চা, মেকআপ, জিম নিয়ে কতটুকু সচেতন আপনারা? ফিটনেস ঠিক রাখার জন্যে কে কি ধরনের ডায়েট মেনে চলেন?

উত্তর দাও (৩ টি উত্তর আছে )

.
*শরীরচর্চা* *মেকআপ* *জিম* *ফিটনেস* *সচেতন* *ডায়েট* *লাইফস্টাইল*

Nisha Char: একটি নতুন প্রশ্ন করেছে

 হাতের পেশী কিভাবে বাড়ানো বা মোটা করা যায়???

উত্তর দাও (২ টি উত্তর আছে )

*জিম* *শরীরচর্চা* *পেশীগঠন* *ব্যায়াম*
ছবি

পাগলী: ফটো পোস্ট করেছে

এইরে গিঁট্টু লাইগ্যা গেছে!!

আমাদের হাফিজ ভাইয়া @chenapathik গিট্টু লাইগ্যা গেছেন। কে আছে জলদি আসো , গিট্টু খুইল্যা দাও। (খিকখিক)

*জোকস* *গিট্টু* *ব্যায়াম* *শরীরচর্চা*

বেশতো সাইট টিতে কোনো কন্টেন্ট-এর জন্য বেশতো কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

কনটেন্ট -এর পুরো দায় যে ব্যক্তি কন্টেন্ট লিখেছে তার।

...বিস্তারিত

QA

★ ঘুরে আসুন প্রশ্নোত্তরের দুনিয়ায় ★