শিশুকাল

শিশুকাল নিয়ে কি ভাবছো?

সাদাত সাদ: আজ যে ছেলেটা শিশু সে একদিন কিশোর হবে। আজ যে ছেলেটা কিশোর সে একদিন বাবা হবে। ছেলেদের নিয়মনীতি এটাই। আবার আজ যে মেয়েটি শিশু সে একদিন কিশোরী হবে, সে একদিন মা হবে তার ঘর সংসার হবে। এটাই জগতের নিয়ম। শিশুকাল থেকেই যেন প্রত্যেক টা ছেলে মেয়ে সু শিক্ষা পায়, হাসি আনন্দের মাঝে বড় হয়। দুঃখ কষ্ট যেন কাউকেই স্পর্শ না করে এটাই কাম্য। মানসিক কষ্ট নিয়ে বড় হওয়া শিশুটির মাঝে চিরকাল ই এক রকম কষ্ট বেদনা থাকে যা সহজে পুরণ হয়না। শুভ কামনা সব শিশুদের জন্যে ... .

*শিশু* *ছেলে* *মেয়ে* *শিশুকাল* *শৈশব*
ছবি

আড়াল থেকেই বলছি: ফটো পোস্ট করেছে

আশা করি,এমন সময়গুলো আমাদের সকলের জীবনে একবার হলেও আসছিল

*শৈশবকাল* *শিশুকাল* *আমাদেরশৈশব*

সাদাত সাদ: একটি বেশব্লগ লিখেছে

 একটি শিশু যখন জন্মায়, ঠিক সেই মুহূর্ত থেকেই তাকে ঘিরে বাবা-মা স্বপ্ন দেখতে শুরু করেন। কিন্তু দুঃখের বিষয় হলো, সেই স্বপ্ন পূরণের অংশ হিসেবে সেই শিশুর উপর অনেকসময় এমন কিছু বিষয় চাপিয়ে দেওয়া হয় যা শিশুর জন্য ক্ষতিকর হয়ে দাঁড়ায়। শিশুদের মন খুবই কোমল থাকে। কাজেই শিশুর সাথে কিছু কিছু কাজ করা বড়দের একেবারেই উচিত নয়।

আর আদর্শ বাবা-মা হতে হলে সন্তানদের প্রতি কিছু দায়িত্ব পালন করতে হয়। পাশাপাশি এমন কিছু আচরণ করা কখনোই উচিত না যেগুলো সন্তানদের জন্য ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে। আসুন জেনে নিই সন্তানদের প্রতি এমন কিছু আচরণ যা একেবারেই করা উচিত না-
 
তুলনা করা: কোন মানুষই পুরোপুরিভাবে আরেকজন মানুষের মত হবেনা। এছাড়া কেইউ অন্য আরেকজনের সাথে নিজের নেতিবাচকভাবে তুলনা পছন্দ করেন না। শিশুদের ক্ষেত্রে এটা আরো বেশি। প্রায় সময়েই দেখা যায়, পরীক্ষায় খারাপ করলে অথবা অন্য যেকোন কারণে বাবা-মা শিশুকে অন্যদের সাথে তুলনা করেন। এই কাজ করলে শিশুর আত্মবিশ্বাস ভেঙে যায়।

সবার সামনে ছোট করা: অনেক বাবা-মা বাচ্চাদের অন্যদের সামনে বকা-ঝকা করেন। কারণে-অকারণে ছোট করেন। এতে শিশুরা মনে কষ্ট পায়। অনেক শিশু কথা কম বলে বা অন্যদের থেকে একটু আলাদা। অন্য সবাই যখন চিৎকার করে বাড়ি মাতিয়ে রাখে, তখন সে হয়তো আপনমনে ছবি আঁকে, গল্পের বই পড়ে। অনেকে সবার সাথে মিশতে পারে না। এ ধরণের শিশুর সাথেও অনেকেই খুব বাজে আচরণ করেন। তাকে সবার সামনে ক্রমাগত ছোট করলে সেই শিশু নিজের মধ্যে আরো গুটিয়ে যায়। ফলশ্রুতিতে সে আত্মবিশ্বাসহীন মানুষ হিসেবে গড়ে ওঠে।

জোর করা: অনেক সময় এমন হতে পারে, শিশু খেতে চাচ্ছে না। অথবা টিভি দেখার জন্য সে বই নিয়ে বসতে চাচ্ছে না। এক্ষেত্রে শিশুকে আদর করে ধীরে ধীরে বোঝাতে হবে। রাগারাগি করলে অথবা জোর করলে হীতে বিপরীত হবে। শিশু আরো বেশি জেদ দেখাবে।

বকা দেয়া: বিভিন্ন কারণে বাবা মায়েরা বাচ্চাদের বকা দিয়ে থাকেন। কিন্তু এটা করা একেবারে উচিত না। কেননা এর ফলে বাচ্চাদের মস্তিষ্কে বাজে প্রভাব পড়ে। এছাড়া অনেক বাবা-মা বিভিন্ন গালিগালাজ করে বকা দিয়ে থাকেন। এতে বাচ্চাদের বাবা-মার প্রতি খারাপ ধারণা হতে পারে। 

কাজের স্বীকৃতি না দেওয়া: শিশুরা যেমন ভালোবাসা চায়, তেমনি স্বীকৃতি ও উৎসাহ চায়। যেকোন গঠনমূলক কাজেই তাকে উৎসাহ দিতে হবে। শিশুকে পড়তে বলা হলো, সে যদি অনেক তাড়াতাড়ি পড়া তৈরি করতে পারে, তাকে তার জন্য প্রশংসা করতে হবে। তাকে ছোট একটা পুরস্কারও দিতে পারেন। এতে সে আরো বেশি অনুপ্রাণিত হবে। আর ভালো কাজ করলে ও তাড়াতাড়ি পড়া শেষ করেও যদি স্বীকৃতি না পায় তবে সে কাজের উৎসাহ হারিয়ে ফেলবে দ্রুতই।

গায়ে হাত তোলা: শিশুরা অনেকভাবেই বিরক্ত করে থাকে। বিভিন্ন জিনিসপত্র অগোছালো করা থেকে শুরু করে নানা ধরনের দুষ্টমি করে থাকে। এসব কারণে অনেক বাবা মা বিরক্ত হয়ে বাচ্চাদের মারধর করে থাকেন। কিন্তু এটা একেবারেই ভুল কাজ। ছোট বয়সে বাচ্চাদের মানসিক অবস্থা অনেক শক্তিশালী থাকে। তাদেরকে বিভিন্ন কারণে মারধর করলে তা তাদের মস্তিষ্কে আঘাত আনে। এ কারণে বাচ্চাদের গায়ে কখনই হাত তোলা উচিত না।

লোভ দেখানো: অনেক বাবা-মা সন্তানদের বিভিন্ন লোভ দেখিয়ে কাজ করে নেন। এর ফলে বাচ্চাদের মাঝে লোভ বিষয়টা স্থায়ী হয়ে যায়। পরে তারা বিনিময় ছাড়া কোনো কাজই করে না। পাশাপাশি লোভের মত খারাপ স্বাভাবটি থেকে যায়।

ঝগড়া করা: অনেক সময়ই বাবা মায়ের মধ্যে ঝগড়া হয়ে থাকে। এক্ষেত্রে বাবা মায়ের যে আচরণটি একেবারেই করা উচিত না সেটি হল সন্তানদের সামনে ঝগড়া করা। এর ফলে বাচ্চাদের মনে এক ধরনের ভয় তৈরি হয়, পাশাপাশি তাদের মানসিক অবস্থারও বিভিন্ন ধরনের সমস্যা হতে পারে।
*শিশুকাল* *স্নেহ* *শিশু*
ছবি

সাদাত সাদ: ফটো পোস্ট করেছে

দেয়ালে টাঙ্গানো সেই ছবিটা

বুবু এখন অনেক বড়। সদা হাসিখুশিতে ভরে থাক তোমার প্রতিটি দিন। তোমায় ভালবাসি

*শিশুকাল* *আমারছবি* *সাদ* *বুবু*

আকমল হোসেন আজাদ: আমি ছোট্ট ছিলাম ভালই ছিলাম, ভালই ছিল শিশুকাল। ইস্পাহানী চায়ের মতই জীবন ছিল নির্ভেজাল..!! (শয়তানিহাসি)

*শিশুকাল*

আলোহীন ল্যাম্পপোস্ট: একটি বেশব্লগ লিখেছে

রূপকথা !

যে বয়সে " ওরে বাবা, পৃথিবীটা এত্তো বড় নাকি ? " খুব স্বাভাবিক একটা প্রশ্ন !
যে বয়সে আকাশের নীলিমায় আশ্রয় নেয়া সুবিশাল যান্ত্রিক দৈত্য পাখিটাকে মনে হয় ছোট্ট একটা ময়না !
যে বয়সে প্রচণ্ড ঝড়ের সময় বিজলির চমকে পাগলের মতন দোল খাওয়া নারিকেল গাছটাকে দেখে মনে হয় কি ভয়ঙ্কর ! কত্ত বড় হাঁ করে !

সেই বয়সে আমাদের প্রায় সবারই একটা করে কল্পনার সঙ্গী ছিল।
কারও ছিল জিনি ! জাদুর জিনি ! জিনির কাছে মনে মনে যেটা চাওয়া হত জিনিটা সেটাই এনে দিত !
সিন্দাবাদের ভূতও কি মাথার পোকা কম নাড়াতো ?
কারও কল্পনায় ছিল আলীবাবা ! চল্লিশ চোরের দলকে একাই নাস্তানাবুদ করে দিত ! ঘুমন্ত সুন্দরী বা সিন্ডারেলা ওই ছোট্ট অবস্থাতেই অনেকেরই ক্রাশ ছিল !
কেউ কেউ বা স্বপ্নে চলে যেত চাঁদের বুড়ির সাথে দেখা করতে !


" দাদী, ও দাদী, আরেকটা গল্প কও না ! " মীনার মত আমরাও কি ছোটবেলায় কম বায়না ধরেছি মুরুব্বিদের কাছে ? কতই না মজার ছিল সেই দিনগুলি, তাই না ? জানি, আজকের বাস্তবতায় বসে শৈশবের নানা রংয়ের দিনগুলির কথা মনে করে দীর্ঘশ্বাসটা অনেকেই গোপন করেন। একটু খোলা আকাশ, বিশুদ্ধ বাতাসের নির্মলতা, মাটির সোঁদা গন্ধে উন্মুখ হয়ে ছুটে চলা ক্ষেতের আইল ধরে, দিগন্তের সূর্যটাকে খপ করে নিজের মুঠোয় ভরে নেয়া, দুপুরের তপ্ত রোদ গায়ে মেখে পুকুরে ঝাঁপিয়ে পরে ডুব সাঁতারে একদমে অন্যপারে চলে যাওয়া এসবই এখন সোনালী অতীত !

ইচ্ছে করে, জানেন তো ? খুব ইচ্ছে করে ! যান্ত্রিকতার এই জঙ্গল ছেড়ে সবুজের মাঝে হারিয়ে যেতে। মাঝে মাঝে কিচ্ছু ভালো লাগে না। একটানা কাজের ফাঁকে একটু ফুরসৎ পেলে তাই জানালাটা খুলে দিয়ে আকাশের দিকে তাকিয়ে থাকি অপলক। মেঘের কোলে নিজেকে মেলে দিয়ে ভেসে বেড়ানো গাংচিলের ঝাঁক যেন আমায় হাতছানি দিয়ে ডাকছে,

" চলে এসো, জীবনের আহ্বানে ! "

একটু বেশীই নস্টালজিক হয়ে গিয়েছি আজকে। তাই আবেগটা একটু বেয়াড়া হয়ে গেছে। হয়তো ফিরে পাবো না সেই কোলাহল ! দল বেঁধে লুকোচুরি খেলা হবে না কোন বিষণ্ণ দুপুরে ! হওয়া হবে না কানামাছির চোর কিংবা বোম বাস্টিংয়ের টার্গেট !

' OLD SCHOOL 'র সাথে গলা মিলিয়ে তখন গাইতে ইচ্ছে করে......

" কেরে তুই, কেরে তুই
সব সহজ শৈশবকে বদলে দিলি
কিছু যান্ত্রিক বর্জ্যে

তুই, কে রে তুই যত বিষাক্ত প্রলোভনে
আমায় ঠেলে দিলি কোনো এক ভুল স্রোতে "

কিন্তু এটা তো ঠিক সামনের অনাগত দিনগুলোতে এই স্মৃতির টনিকেই আমাদের অন্যমনস্ক মুহূর্তে ঠোঁটের কোনের এক চিলতে হাসিটা হয়ে উঠবে আরও প্রানবন্ত ! প্রাণোচ্ছল !

সেই এক চিলতে মুহূর্তের কামনায়
*রূপকথা* *শিশুকাল* *সৈশব* *রাত*
*শিশুকাল* *সৈশব*

তোফায়েল আহমদ: একটি বেশব্লগ লিখেছে

 ১) পৃথিবীতে দুইটা দেশ আছে বাংলাদেশ আর বিদেশ।

২) সাড়ে বারোটার পর বাজে সাড়ে একটা,সাড়ে একটার পর সাড়ে দুইটা।

৩) কারো মাথার সাথে যদি নিজের মাথা একটা গুঁতা খায় তাইলে শিং ওঠে দুইটা
খাইলে আর ওঠে না।

৪) কোন ফলের বিচি খাইয়া ফেললে পেটের মধ্যে সেই ফলের গাছ হয়।

৫) সিনেমার মধ্যে নায়ক নায়িকারা নিজের গলায় গান গায়।

৬) "আই লাভ ইউ" খুব খারাপ একটা শব্দ,একেবারে অশ্লীল।

৭) টিভির পেছনে উকি দিলে ভেতরে মানুষ দেখা যাবে ।

৮) যে যত ভালো ছাত্র তার রোল তত কম আর যত খারাপ তত বেশি. এইটা কেমন সিস্টেম?

৯) সিনেমার গানের মধ্যে নায়ক নায়িকা এত তাড়াতাড়ি ড্রেস চেঞ্জ করে কেমনে? নিশ্চয়ই? একটার উপর আরেকটা পরে থাকে,হুটকরে উপরেরটা খুলে ফেলে দেয় কোনো সময়.

১০) এক গালে থাপ্পর দিলে অন্য গালেও দিতে হবে নাইলে বিয়ে হবে না!! কি কিছু কি মনে পড়ে???


<কার্টেসি>

*ছোটকাল* *শিশুকাল* *বাল্যকাল* *ছেলেবেলা* *মজার-তথ্য*

পাগলী: আমাদের জীবন.........(শিশুকাল, কিশোরবেলা, যৌবনকাল, বৃদ্ধকাল, সংগীহীন, কবর) (মনখারাপ)

*জীবন* *শিশুকাল* *কবর* *সংগীহীন* *যৌবনকাল*

বেশতো সাইট টিতে কোনো কন্টেন্ট-এর জন্য বেশতো কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

কনটেন্ট -এর পুরো দায় যে ব্যক্তি কন্টেন্ট লিখেছে তার।

...বিস্তারিত

QA

★ ঘুরে আসুন প্রশ্নোত্তরের দুনিয়ায় ★