শিশুদের ঈদ

শিশুদেরঈদ নিয়ে কি ভাবছো?

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

শিশুরা সারাবছর ধরে ঈদের দিনটির জন্য অপেক্ষা করে। আর নতুন পোশাক কেনার বায়না শুরু হয়ে যায় রমজানের আগেই। এ বায়না বড়দের ঈদ আনন্দের একটা অংশ হয়ে গেছে। কারণ ছোটদের আনন্দের মধ্য দিয়েই তারা শিহরিত হন। ঈদ আয়োজনে মেয়েদের জন্য রয়েছে ফ্রক, টপ স্কার্ট, থ্রি পিস, বেবি টপস স্কার্ট, ডিভাইডার, জিনস প্যান্ট, ফতুয়া, পাঞ্জাবি ও গেঞ্জি সেট। আর ছেলেদের জন্য রয়েছে জিনস প্যান্ট, নরমাল প্যান্ট, থ্রি কোয়ার্টার সেট, পাঞ্জাবি, ফতুয়া, বাবা সেট, গেঞ্জি, শার্ট ও গেঞ্জি সেট। আজ আমরা আলোচনা আপনার ছোট সোনামনি বা রাজকুমারীর ঈদ পোশাক নিয়ে l

কিনতে ক্লিক করুন                                                কিনতে ক্লিক করুন 

ঈদের এখনও ঢের বাকি। কিন্তু এর মাঝে পড়ে গেছে কেনা-কাটার ধুম।ঈদের সময় শিশুদের আনন্দ অন্য সবাইকে হার মানায়। তাই শিশুদের কথা মাথায় রেখে রাজধানীর শপিংমলগুলো সেজেছে রঙিন সাজে। আর এই আয়োজন থেকে বাদ পড়েনি দেশীয় ফ্যাশন হাউজগুলো, সাথে অনলাইন শপিং সাইটগুলোও। এসব পোশাকে ডিজাইন ও কাঁটছাটের পাশাপাশি নামেও রয়েছে নানা বৈচিত্র্য। ঈদটা হবে খানিকটা গরমেই। তাই এ সময় দরকার আরামদায়ক পোশাক। গরমকে বিবেচনা করে হাতাসহ ও হাতা কাটা দুই ধরনের পোশাকই থাকছে।

 

কিনতে ক্লিক করুন                                                   কিনতে ক্লিক করুন

বরাবরের মতো এ বছরও শিশুদের জন্য বিশাল আয়োজন নিয়ে হাজির হয়েছে শপিংমলগুলো। এরই ধারাবাহিকতায় রাজধানীর মিরপুরের বুটিক পল্লী, বসুন্ধরা সিটি, ধানমন্ডির রাপা প্লাজা, জেনেটিক প্লাজা, অর্কিড প্লাজা, মেট্রো শপিং মল, আড়ং, এলিফ্যান্ট রোড, নিউমার্কেট, চাঁদনী চক, গাউছিয়া মার্কেট, ইস্টার্ন প্লাজা, ইস্টার্ন মল্লিকা, মৌচাক মার্কেট, আজিজ সুপার মার্কেট, মাসকাট প্লাজা, বনানী, গুলশান ও উত্তরার অভিজাত ফ্যাশন হাউসগুলোর প্রতিটি দোকানে বড়দের পাশাপাশি হাতের কাজ করা ছোটদের বাহারি রং ও ডিজাইনের পোশাক সাজিয়ে রাখা হয়েছে। এ ছাড়া নিউমার্কেট, পল্টন, মিরপুর, গুলিস্তানসহ সব বাণিজ্যিক এলাকা সংলগ্ন রাস্তায়ও ব্যবসায়ীরা সাজিয়ে রেখেছেন বাচ্চাদের পোশাক। পিছিয়ে নেই দেশের সবচেয়ে বড় অনলাইন শপিং মল আজকের ডিল।  

কিনতে ক্লিক করুন                                                কিনতে ক্লিক করুন

এবার ঈদে মেয়েদের জন্য রয়েছে ফ্রক, লেহেঙ্গা, এক্সটা টপস, ঘাঘরা সেট, রেডি শাড়ি, থ্রিপিচ ও পার্টি ড্রেস। আর ছেলেদের বিশেষ আয়োজনে রয়েছে, জিন্স, টি-শার্ট, ফতুয়া, পাঞ্জাবি ও ধুতি পাজামা। বাচ্চাদের পার্টি ফ্রক এবার সবচেয়ে বেশি নজর কাড়ছে খুদে ক্রেতাদের। পোশাকে ব্যবহার করা হয়েছে বিভিন্ন ধরনের নকশা। বস্নক, স্প্রে, টাইডাই, স্ক্রিনপ্রিন্ট এগুলো মিডিয়া হিসেবে ব্যবহার হয়েছে। এ ছাড়া রয়েছে এপলিক, অ্যামব্রয়ডারি, কারচুপি, আড়ি, লেস, কাতান ও হাতের ভরাট কাজ।

কিনতে ক্লিক করুন                                               কিনতে ক্লিক করুন

এছাড়াও দেশীয় ফ্যাশন হাউজগুলোর মধ্যে নগরদোলা, আড়ং, সাদাকালো, অন্যমেলা, নিত্য উপহার, রঙ, দেশাল, প্রবর্তনা, নিপুণ, অঞ্জন’স, ওটু, চাঁদের হাসি, ইনফিনিটিসহ প্রায় সব ধরনের ফ্যাশন হাউজেই বড়দের পাশাপাশি বাচ্চাদের পোশাক রয়েছে। এবার ঈদের অন্যতম আকর্ষণ মেয়ে শিশুদের বিভিন্ন ফ্রক ও ফ্রিলের পার্টি ফ্রক। আরও রয়েছে সালোয়ার-কামিজ, ঘাঘড়া চোলি ও নকশা করা বিভিন্ন ধরনের প্যান্ট।তবে সব কাজেই উজ্জ্বল রঙকে বেশি প্রাধান্য দেওয়া হয়েছে। ড্যান্ডির ও সুতির কাপড়কে বেশি প্রাধান্য পেয়েছে। ভিন্নতা আনতে মেয়েদের পোশাকে ব্যবহার করা হয়েছে রঙিন রঙিন সব বেল্ট।

কিনতে ক্লিক করুন                                                  কিনতে ক্লিক করুন

অনেক শিশুই ঈদের দিন বড়দের মতো করে সাজতে ভালোবাসে। মা-খালাদের মতো সালোয়ার-কামিজ ও শাড়ি, বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ুয়া বড় বোনের মতো লং স্কার্ট বা টপসও চাই শিশুদের। বয়স কম হলেও শখ তো আর কম নয়। তাই শিশুদের ফাঁকি দেওয়ার জো নেই। মেয়েদের সালোয়ার-কামিজের দাম পড়ছে ৮৫০ থেকে ৭ হাজার টাকা পর্যন্ত। ফ্রক পাওয়া যাচ্ছে ৫০০ টাকা থেকে ৪ হাজার টাকার মধ্যে। একে তো তো গরম তারপরে আবার মার্কেটে যে ভিড়, তাই ভিড় এড়াতে আপনার সোনামণিকে পাশে নিয়ে আজকের ডিলের কিডস কালেকশন থেকে বাসায় বসেই থেকে তার পছন্দের পোশাকটি কিনে দিন।

*ঈদফ্যাশন* *শিশুদেরঈদ* *ফ্রক* *বাচ্চাদেরঈদপোশাক* *স্মার্টশপিং* *অনলাইনশপিং*

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

শিশুদের বাহারি পোশাকঈদ উৎসবকে ঘিরে শিশুদের আগ্রহ ও উচ্ছ্বাস থাকে তুঙ্গে। বিশেষ করে ঈদের পোশাক ও ফ্যাশন নিয়ে শিশুদের মধ্যে বেশ আগ্রহ দেখা যায়। নতুন পোশাক, নতুন জুতো আরো কত কিছু নিয়ে ঈদ ঘিরে কত ভাবনা তাদের। ঈদের নতুন জামা ও পাঞ্জাবিটা কেমন হবে। রং কী হবে? শিশুরাও এখন ফ্যাশন-সচেতন। একেকজনের পছন্দ একেক রকম। সেই সাথে অভিভাবকরাও চান নিচের পিচ্চিটাকে ফ্যাশনেবল করতে। কারণ তাদেরকে ঘিরেই তো বাবা মায়ের ঈদ। চলুন ছোটদের ঈদ ফ্যাশনের চলতি ট্রেন্ড নিয়ে জানা যাক।

কি চলছে শিশুদের ফ্যাশনে?

কিডস কাতান পাঞ্জাবী (মেরুন)
ঈদের পোশাক নিয়ে সবচেয়ে বেশি উচ্ছ্বাস ও আগ্রহ থাকে শিশুদের মধ্যে। ঈদের জমজমাট শপিংয়ের মাঝে ছোটদের জন্য রয়েছে দেশী ও বিদেশী পোশাকের বিশাল সম্ভার। ছেলেদের পাঞ্চাবি থেকে শুরু করে মেয়েদের থ্রিপিস, ফ্রক, ফতুয়া, টপস, ঘাঘরা, চোলিও পেয়ে যাবেন হাতের কাছেই। সেই সাথে ফ্যাশনের অন্যতম অনুসঙ্গ হাতঘড়ি ও সানগ্লাস তো থাকছেই।

শিশুদের পাঞ্জাবি:

কিডস কটন পাঞ্জাবীকিডস কটন পাঞ্জাবী
ঈদে ছোট বড় সকলেরই পছন্দের পোশাক পাঞ্জাবি। ঈদের দিন পাঞ্জাবি না পরলে নিজেকে ঠিক পরিপূর্ণ লাগে না। ঈদের সকালে গোসলের পর পাঞ্জাবি ছাড়া আর কি! নতুন পাঞ্জাবি গায়ে চড়িয়ে হাতে আতরের গন্ধ ছড়িয়ে কোলাকুলি করাতেই ঈদের আনন্দ। শিশুদের পাঞ্জাবিতে এবার রঙের খেলা জেমেছে। বাদলা দিনে ঈদ উৎসব বলে পোশাকেও সেটাকে তুলে এনেছেন ডিজাইনাররা। এ ছাড়া সাদা, অফ হোয়াইট, ছাই, লেবু, হলুদ, বেগুনি, লাল ইত্যাদি রংয়ের আধিক্য রয়েছে পাঞ্জাবিতে। ঈদে সবচেয়ে বেশি চলছে কাতান ও কটন পাঞ্চাবি। এই পাঞ্চাবিগুলো আপনার শিশুকে আরও সুন্দর, আকর্ষণীয় ও ফ্যাশনেবল করে তুলবে। এই ঈদে শিশুদের ফ্যাশনে রাখতে পারেন ছবির এই পাঞ্চাবি গুলো। পাঞ্চাবি পাজামা ছাড়াও পাঞ্জাবি, ফতুয়া ও টি-শার্ট ঈদ ফ্যাশনে জায়গা করে নিয়েছে।

মামুনিদের ফ্রক ও রাজকুমারী পোশাক:

নেট জর্জেট রাজকুমারী ড্রেসরেডি মেড গার্লস ফ্রক রেড
নানা রঙের নকশায় ভরে উঠেছে এবারের মেয়ে শিশুদের পোশাকগুলো। তবে এবার শিশুদের পোশাকে নজর কেড়েছে বিভিন্ন রঙের ফ্রক ও রাজকুমারী পোশাক। পোশাকে বিভিন্ন নকশার পাশাপাশি লেইস ব্যবহার করা হয়েছে। পাশাপাশি পোশাকে বৈচিত্র্য আনতে ব্যবহার করা হয়েছে পুঁথি, পাথর আর জারদৌসির ব্যবহার। ফ্রক, লেহেঙ্গা, থ্রি-পিস, টপস, লং কটিতে এসেছে বাহারি পোশাক। মেয়েদের জন্যেও আছে নানা ধরণের ফতুয়া। ফুল হাতা, হাফ হাতা, হাতা কাটা সব ধরণের ফতুয়াই পাওয়া যাচ্ছে এবার।

শিশুদের ফ্যাশনের অন্য অনুসঙ্গ:

কিডস সানগ্লাসকিডস ওয়াচ
বাহারি পোশাক ছাড়াও শিশুদের ফ্যাশনের অন্যতম অনুসঙ্গগুলোর মধ্যে জুতা, সেন্ডেল, ব্যাগ, সানগ্লাস ও হাতঘড়ির পাধান্য রয়েছে। এছাড়াও পোশাকের সাথে মিলিয়ে বাহারি রাবার, চুলের ফিতা, ক্লিপ, ব্যান্ড, কানের দুল, ব্রেসলেটও শিশুদের ঈদ ফ্যশনে যুক্ত হয়েছে। ঈদে শিশুদের অন্যরকম ফ্যাশনেবল করে তুলতে এই অনুসঙ্গ গুলোর জুড়ি মেলা ভার।

দরদাম ও কেনাকাটা:

রেডি মেড গার্লস ফ্রক ব্লু

ফ্যাশন হাউসগুলোতে কাজ অনুসারে পাঞ্জাবিগুলোর দাম পরবে ৫৫০ টাকা থেকে ৩০০০টাকা, টি-শার্টগুলো ১৫০ টাকা থেকে ৫০০ টাকা, ফতুয়াগুলো পাবেন ২৫০ টাকা থেকে ১২০০ টাকা, মেয়ে শিশুদের স্যালোয়ার কামিজ পাবেন ৮৫০ টাকা থেকে ৭০০০টাকার মধ্যে, ফ্রকগুলো পাওয়া যাবে ৫০০ টাকা থেকে ৪৫০০টাকার মধ্যে। আর বিভিন্ন শপিংমলগুলো নান্দনিক নামের জামাগুলো পাবেন ১২০০ টাকা থেকে ৭০০০ টাকার মধ্যে। এই গরম ও রোজায় মাকের্টে গিয়ে গায়ের ঘাম না ঝরিয়ে আপনার সোনামনিকে নিয়ে ঝটপট কম্পিউটারের সামনে বসে পড়ুন আর অনলাইন থেকে পছন্দের পোশাকটি কিনে দিন। অনলাইনে শিশুদের বাহারি পোশাকের সমাহার থেকে পছন্দেরটি কিনতে এখানে ক্লিক করুন

*শিশুদেরঈদ* *ঈদফ্যাশন* *স্মার্টশপিং*

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

শিশুদের ঘিরেই ঈদের আনন্দ। তাই ঈদ মানেই তো শিশুর খুশি। শিশুদের জামাটা তাই কিনতে হয় সবার আগে। তাদের জামাটা হতে হয় অন্য রকম। সেই তোড়জোড় শুরু হয়ে গেছে শিশুদের ঈদেও পোশাকের বাজারে। আবহাওয়া, চলতি ধারা আর নানান নকশায় বেশ রঙিন হবে এবার শিশুদের ঈদ, শিশুদের সব খুশি ঈদের পোশাক ঘিরে। ঈদ বেশি আনন্দ দেয় ছোটদের। তাই ঈদের কেনাকাটায় তাদের আবদারেরও শেষ নেই।

কিনতে ক্লিক করুন 

ঈদের দিন পাঞ্জাবি না পরলে নিজেকে ঠিক পরিপূর্ণ লাগে না। ঈদের সকালে গোসলের পর পাঞ্জাবি ছাড়া আর কি! নতুন পাঞ্জাবি গায়ে চড়িয়ে হাতে আতরের গন্ধ ছড়িয়ে কোলাকুলি করাতেই ঈদের আনন্দ। শিশুদের পাঞ্জাবিতে এবার রঙের খেলা জেমেছে। বাদলা দিনে ঈদ উৎসব বলে পোশাকেও সেটাকে তুলে এনেছেন ডিজাইনাররা। এ ছাড়া সাদা, অফ হোয়াইট, ছাই, লেবু, হলুদ, বেগুনি, লাল ইত্যাদি রংয়ের আধিক্য রয়েছে পাঞ্জাবিতে।

কিনতে ক্লিক করুন

পাঞ্জাবির কাপড়ে ব্যবহার করা হয়েছে নানা ধরনের সুতি, জামেবার, তসর, সিল্ক, খাদি, তাঁতের কাপড়, মটকা, জয় সিল্ক, কাতান ইত্যাদি। নতুন কাটছাঁটে দেখা গেল টিউনিক কলার (ডাবল কলার), গলার কাজের সঙ্গে মিলিয়ে হাতার নিচে কাজ। কোনোটির বোতাম লাগানো হয়েছে কাঁধের দিকে কেটে। আছে জমিদারি কাটের জমকালো পাঞ্জাবি। বুকের দিকে ডাবল পকেট বা জরি সুতার কাজ করা। কোনো পাঞ্জাবিতে আবার ব্যবহার করা হয়েছে থ্রি কোয়ার্টার হাতা।

কিনতে ক্লিক করুন

বাবা-মারা সন্তানদের পছন্দ নিজেদের করে নেন বলে ঈদবাজারে শিশুদের কেনাকাটা জমে ওঠে বরাবরই। শিশুদের ঈদের আনন্দ ভরিয়ে তুলতে নগরের বিভিন্ন বিপণিকেন্দ্রে বাহারি পোশাকের পসরা সাজিয়েছেন দোকানিরা। শনিবার রাজধানীর বিভিন্ন শপিং মল ও বিপণি বিতানগুলোতে গিয়ে ঈদের কেনাকাটায় শিশুদের জমজমাট অবস্থা দেখা গেছে। 

কিনতে ক্লিক করুন

ঈদবাজারে শিশুদের বায়নার সঙ্গে মিলতে হচ্ছে বাবা-মার সাধ্য। অন্যদিকে শিশুদের মন ভোলানোর চেষ্টা চালাচ্ছেন দোকানিরা। বেশির ভাগ সময়েই পরাস্ত হতে হয় বাবা-মাকে।এভাবে আপনজনদের কাছ থেকে উপহার পেলেও পরিবারের শিশুদের জন্য ঈদের কেনাকাটায় কার্পণ্য করছেন না বড়রা। সাধ্যের মধ্যে সবটুকু দিয়ে চেষ্টা করছেন বাচ্চাদের মুখে হাসি ফোটাতে। আর ঈদ যত ঘনিয়ে আসছে ততই নতুন পোশাক পেতে উত্তেজনা বাড়ছে ছোটদের।

কিনতে ক্লিক করুন

দরদাম
বাচ্চাদের পাঞ্জাবির দাম ফ্যাশন হাউসে একধরনের, আবার বিভিন্ন শপিং মলে আরেক। বিভিন্ন শপিং মলে কিনতে চাইলে পেয়ে যাবেন ৫০০ থেকে ২৫০০ টাকায়। ফ্যাশন হাউসের পাঞ্জাবির দাম সাধারণত এক হাজার টাকা থেকে শুরু করে দশ হাজার টাকা পর্যন্ত আছে। আলাদা করে পায়জামা কিনতে চাইলে আপনাকে ৪০০ টাকা থেকে দুই হাজার টাকা পর্যন্ত গুনতে হবে। আজকের ডিলে বাচ্চাদের পাঞ্জাবি পাওয়া যাবে ১৫০০ টাকার মধ্যে। 

যেখানে পাবেন
ফ্যাশন হাউস লুবনান, ওটু, আর্টিস্টি, ইনফিনিটি, লা রিভ, আড়ং, যাত্রা, ইয়েলো, স্মার্টেক্স, মনসুন রেইন, ক্যাটস আই, একস্ট্যাসি, স্টুডিও এমদাদ, মায়াসীর, কুমুদিনী, কারুপল্লী, ব্যাং, অন্যমেলা, প্লাস পয়েন্ট, নগরদোলা, দেশি দশের সব দোকান, স্বদেশী, আজিজ সুপার মার্কেট, নিউমার্কেট, এলিফ্যান্ট রোড, পল্টন, গুলিস্তান, পিংক সিটি, রাপা প্লাজা, প্লাজা এ আর, মৌচাক মার্কেটসহ প্রায় সব মার্কেটেই মিলবে বাচ্চাদের পাঞ্জাবি। আর অনলাইনে কিনতে হলে আজকের ডিল তো আছেই।  

*শিশুদেরঈদ* *ঈদেরপোশাক* *ঈদেরপাঞ্জাবি* *পাঞ্জাবি* *ঈদশপিং*

বেশতো সাইট টিতে কোনো কন্টেন্ট-এর জন্য বেশতো কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

কনটেন্ট -এর পুরো দায় যে ব্যক্তি কন্টেন্ট লিখেছে তার।

...বিস্তারিত

QA

★ ঘুরে আসুন প্রশ্নোত্তরের দুনিয়ায় ★