শীতের পোশাক

শীতেরপোশাক নিয়ে কি ভাবছো?

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

ঋতুর পালা বদলে বাংলার প্রকৃতিতে এখন শীতকাল। দিনের আলো মিলিয়ে যেতে না যেতেই শীত এসে জেঁকে বসে চারপাশে। হাড় কনকনে শীতে পরিপূর্ণ উষ্ণতা পেতে অন্যান্য শীত পোশাকের মতই মাফলার একটি অতি প্রয়োজনীয় পরিধান। বাজারেও রয়েছে নিত্যনতুন মাফলারের সমাহার। যেকোনো পোশাকের সঙ্গে স্টাইলিশ মাফলার এখন তরুণদের ফ্যাশনের অন্যতম অনুষঙ্গ। জিন্স, টি-শার্ট, ফতুয়া কিংবা শার্টের সঙ্গে চমৎকারভাবে মানিয়ে যায় এটি।

আমাদের দেশে মাফলারের প্রচলন যদিও বহু আগে থেকেই, তবে তার ব্যবহার সীমাবদ্ধ ছিল শুধু পুরুষের মধ্যে। আধুনিক সময়ে বদলে গেছে সে ধ্যান-ধারণা। বৈচিত্র্যময় ডিজাইন আর বাহারি রঙের মাফলারগুলো এখন শোভা পাচ্ছে ছেলেমেয়ে উভয়ের গলায়। তরুণ-তরুণী শুধু নয়, যেকোনো বয়সের মানুষের শীত নিবারণে মাফলার নিত্য সঙ্গী। নগরীর ফ্যাশন হাউজ থেকে শুরু করে ফুটপাতেও মিলবে দৃষ্টি নন্দন এসব মাফলার। উলের নেট মাফলার, এন্ডি কটন, পশমি মাফলারসহ নানা রকম চেক মাফলার পাওয়া যাচ্ছে বাজারে। এর পাশাপাশি এসেছে মেয়েদের জন্য বিনি ক্যাপ। শীত থেকে রক্ষার পাশাপাশি কানও সুরক্ষা করবে বিনি ক্যাপ। টুপির সঙ্গে ম্যাচ করে নিন মাফলারও। টুপির রং ও ম্যাটেরিয়ালের সঙ্গে মানানসই মাফলার বেশ আকর্ষণীয় করে তুলবে আপনাকে। 

বাজারে লং এবং শর্ট দু’ রকম মাফলার পাওয়া যায়। মেয়েদের মাফলারগুলো একটু শর্ট হয়। তবে কিছু মাফলার ছেলেমেয়ে উভয়ে ব্যবহার করতে পারবেন সেভাবেই তৈরি করা হয়। উলের নেট নকশার মধ্যেও পাওয়া যায় বিভিন্ন মাফলার। মাফলারের মধ্যে হাতে বোনা এবং চিকন উলের বিভিন্ন চেক মাফলার পাবেন ১০০ থেকে ৮০০ টাকার মধ্যে। দেশি মাফলারগুলো পাবেন ১০০ থেকে ৩০০ টাকার মধ্যে। এছাড়া স্টাইলিশ মাফলার পাবেন ৪০০ থেকে ১ হাজার ৫০০ টাকার মধ্যে। এই মাফলার গুলো বেশিরভাগ আসে চায়না, ব্যাংককসহ বিভিন্ন দেশ থেকে। লাল-কালো, কমলা-সবুজ, টিয়া-সাদা, বেগুনি-গোলাপি, সাদা-কালোর মিশেলের মাফলারগুলো বেশ পছন্দ হবে আপনার। তাই পোশাকের রঙের সঙ্গে মিলিয়ে বেছে নিন আপনার গলার বন্ধনিটি।

বাংলাদেশের সবচেয়ে বড়  অনলাইন শপিং মল আজকের ডিলে বিক্রি হচ্ছে চায়না ইন্ডিয়ান ও বাংলাদেশী বিভিন্ন ধরনের মাফলার। আরও আছে ইংল্যান্ডের বিভিন্ন ব্র্যান্ডের মাফলার। চায়না, ইন্ডিয়ান, বাংলাদেশী মাফলার বিক্রি হচ্ছে ১০০ থেকে ৩০০ টাকার মধ্যে। এছাড়া ব্র্যান্ডের মাফলার সেনি, রিবোক, কুমা, নাইফ বিক্রি হচ্ছে ৩০০ থেকে ৬০০ টাকা দামের মধ্যে। নারী-পুরুষদের ব্যবহার উপযোগী মাফলার । ছেলেদের শীতের ফ্যাশনে অনেক বড় ভূমিকা রাখে টুপি। পুরো স্টাইলকে যেন পাল্টে দেয়। তবে মাফলারও বেশ মানানসই। এ ছাড়া ছোট শিশু থেকে শুরু করে তরুণ-তরুণী বা বড়দের কানটুপিতেই আনা হয়েছে ভিন্নতা। সুতি, উল, পশমি কাপড়ের পাশাপাশি নিট কাপড়ের কানটুপির কদর বেড়েছে। রঙেও আনা হয়েছে ভিন্নতা। 

আজকেরডিল থেকে টুপি  ও মাফলার  কিনতে এখানে ক্লিক করুন।

মাফলার বাঁধবার টিপস : 

ইউরোপের বিভিন্ন পার্টিতে তরুণ-তরুণীরা মাফলার বাঁধার স্টাইলের জন্য বাড়তি সমাদর পেয়ে থাকে। লম্বাকৃতি, স্কয়ার বা ত্রিভুজ করে আপনি মাফলার পরতে পারেন। পাগড়ির মতো করে মাথায় বাঁধতে পারেন। মাথার চারদিকে ব্যান্ড করতে পারেন। গলায় পেঁচিয়ে দুই কোনা বুকের ওপর রাখতে পারেন। কাঁধের দু’পাশে ছড়িয়ে অথবা বাড়তি অংশ শার্টের ভেতরে ঢুকিয়ে রাখতে পারেন। গলায় পেঁচিয়ে বিনুনি করে নিতে পারেন। যেভাবে খুশি পরতে পারেন। তবে যে যাই বলুক আপনি নিজের স্টাইলটাই বেছে নেবেন।

*টুপি* *মাফলার* *শীতেরপোশাক* *স্মার্টশপিং* *শীতেরফ্যাশন*

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

দেশী ব্রান্ড LE REVE ’র সাথে নতুন করে পরিচয় করিয়ে দেবার কিছু নেই । তরুণ-তরুণীদের মাঝে বিভিন্ন ডিজাইনের ট্রেন্ডি সব পোশাক আশাকের দারুণ সব কালেকশন নিয়ে এটি ইতিমধ্যে তুমুল জনপ্রিয়তা পেয়েছে। এই শীতে ‘এন্ড অফ সিজন সেল’-এর আওতায় ৭০ শতাংশ পর্যন্ত ছাড় দিচ্ছে পোশাক ও অনুষঙ্গ প্রতিষ্ঠান ‘লা রিভ’। শীতের পোশাকসহ ছাড়ের আওতায় পাওয়া যাচ্ছে নারী, পুরুষ ও শিশুদের যেকোনো উৎসব ও ঘরোয়া পোশাক। আর সেই সব পোশাক কিনতে আপনাকে ভীড় আর জ্যাম ঠেলে দৌড়াতে হবে না। শুধুমাত্র অনলাইনে কয়েকটা ক্লিক করেই এখন বাসায় বসে ডেলিভারি নিতে পারেন পছন্দের পোশাকটি লা রিভের বিশাল কালেকশন থেকে । 
 
 
LE REVE রেডিমেড মিক্সড কটন থ্রি-পিস
 
LE REVE রেডিমেড মিক্সড কটন থ্রি-পিস
ব্র্যান্ড: Le রেভে ফেব্রিক: 
সালওয়ার ও কামিজ - মিক্সড কটন
ওড়না: মিক্সড কটন
এক্সক্লুসিভ ডিজাইন
সাইজ: 40,32,34,36,38
মুল্য - ২,০৯৩ টাকা
 
 
LE REVE নিট কটন ক্যাজুয়াল সোয়েটার
 
 
ব্র্যান্ডঃ Le Reve 
কটন ক্যাজুয়াল সোয়েটার
ফেব্রিকঃ নিট কটন
কালারঃ রেড
ফ্রী সাইজ
মুল্য ৭৬৩ টাকা
 
 
LE REVE রেডিমেড মিক্সড কটন থ্রি-পিস
 
LE REVE রেডিমেড মিক্সড কটন থ্রি-পিস
ব্র্যান্ড: Le Reve ফেব্রিক: 
সালওয়ার ও কামিজ - মিক্সড কটন
ওড়না: মিক্সড কটন
এক্সক্লুসিভ ডিজাইন
সাইজ: 36,38
মুল্য ১,৫৫৪ টাকা
 
 
 
LE REVE নিট কটন ক্যাজুয়াল সোয়েটার-রেড
 
ব্র্যান্ডঃ Le Reve 
কটন ক্যাজুয়াল সোয়েটার
ফেব্রিকঃ নিট কটন
কালারঃ রেড
ফ্রী সাইজ
মুল্য ৬৯৩ টাকা
 
 
LE REVE কটন স্লিম-ফিট ক্যাজুয়াল ব্লেজার-মেরুন
 
ব্র্যান্ডঃ Le Reve
স্লিম-ফিট কটন ক্যাজুয়াল ব্লেজার
কালারঃ মেরুন
ফেব্রিকঃ কটন
সাইজঃ XXS (নেক- ১৪.২৫”, চেস্ট- ৩২-৩৪”)
মুল্য -১,৯৬৪ টাকা
 
 
LE REVE কটন স্লিম-ফিট ক্যাজুয়াল ব্লেজার-ব্লু অ্যাশ
 
ব্র্যান্ডঃ Le Reve
স্লিম-ফিট কটন ক্যাজুয়াল ব্লেজার
কালারঃ ব্লু অ্যাশ
ফেব্রিকঃ কটন
সাইজঃ XXS (নেক- ১৪.২৫”, চেস্ট- ৩২-৩৪”)
মুল্য - ৫,৬৬৭ টাকা
 
 
LE REVE নিট কটন ক্যাজুয়াল ব্লেজার-আশ
 
ব্র্যান্ডঃ Le Reve
মিক্সড কটন ক্যাজুয়াল ব্লেজার
কালারঃ Ash
ফেব্রিকঃ নিট কটন
সাইজঃ XXS (নেক- ১৪.২৫”, চেস্ট- ৩২-৩৪”)
মুল্য : ২,৪০৬ টাকা
 
 
 
উপরের কোন কোন পোশাক কিনতে চাইলে বা আরো ভিন্ন আঙ্গিকের পোশাক দেখতে চাইলে লা রিভের এই লিংকে ক্লিক করো। 
 
*লা-রিভ* *শীতেরপোশাক* *ডিসকাউন্ট* *স্মার্টশপিং*

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

শীতে আপনি কি আপনার শিশুর উষ্ণতা নিয়ে চিন্তিত? নো টেনশন! এই শীতে আপনার শিশুকে উষ্ণতার পরশ দিতে বাজারে এসে গেছে আকর্ষণীয় চাইনিজ টুপি। এই টুপি আপনার বাচ্চার শীতের শতভাগ সুরক্ষা  নিশ্চিত করবে আর আপনার বাচ্চাকে করে তুলবে অন্যরকম স্টাইলিশ। তাছাড়াও নতুন নতুন ফ্যাশনে যে সকল বাবা মায়েরা অভ্যস্থ তারা তাদের আদরের শিশুটির জন্য একটা বাড়তি উষ্ণতার ফ্যাশনেবল শীতের টুপি খুঁজবেন এটাই স্বাভাবিক। সত্যিই সোনামনিকে যদি আরও আরও কিউট করে তুলতে চান তাহলে এই টুপি আপনার তুলতুলে আদরের বাচ্চার জন্য।  

কিডস চাইনিজ টুপি
সোনামনির মুখ দেখলেই বাবা-মায়ের মন ভরে যায়। আদরের শিশুটির সোনামুখটি কিউট করে তুলতে বাবা মায়ের চেষ্টার কমতি থাকে না। শিশুর তুলতুলে কিউট মুখখানি আরও কিউট করে তুলতে পারেন কিডস চাইনজ টুপি পরিয়ে। বাহারি ডিজাইন ও রঙের এই টুপি পরলে আপনার শিশুর চেহারাই পাল্টে যাবে পাশাপাশি ও হয়ে উঠবে এত্তগুলা কিউট! চাইনিজ কিডস টুপি শীতে আপনার সোনামনির মাথা ও কানকে সুরক্ষিত রাখবে। শীতের হাত থেকে বাঁচাবে। ফাইবার উলের তৈরি আকর্ষনীয় ডিজাইন ও উলের কাজ করা রয়েছে এই টুপিতে। নরম ও আরামদায়ক যে কোন পোশাকের সাথে এই টুপি বেশ মানানসই। 

কোথায় পাবেন টুপি?
বাজারে খোঁজ করলে প্রায় প্রতিটি শপিংমলেই এ ধরনের টুপি পেয়ে যাবেন। তবে আপনাকে চাইনিজ বলে অন্য ব্র্যান্ডের টুপিও দিয়ে দিতে পারে। তাই বাজারে ঘুরে ঝামেলা না বাড়িয়ে বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় অনলাইন শপিং মল আজকের ডিল ডটকমে গিয়ে ঘরে বসে পছন্দের চাইনিজ টুপির অর্ডার করুন। আজকের ডিলে বিভিন্ন রঙের আসল চাইনিজ টুপির বাহারি কালেকশন রয়েছ। চাইনিজ টুপি কিনতে নিচের লিংকে ক্লিক করুন-
*টুপি* *শিশুরযত্ন* *শীতেরপোশাক* *শিশুরপোশাক* *শপিং* *স্মার্টশপিং*

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

শীত মানেই যুবুথুবু হয়ে ঘরে বসে থাকা নয়। বর্তমানে শীত মানে স্টাইলিশ ফ্যাশন। শীত মানে নতুন বৈচিত্র। শীত ফ্যাশনের এই বৈচিত্রে সবচেয়ে এগিয়ে রয়েছে মেয়েরা। ফ্যাশনে বাজিমাত করতে শীত ঋতুতে মেয়েরা বেছে নিয়েছে নিজস্ব এক স্টাইল। বাজারে শীতকে সাজাতে এসেছে নানা রকমারি পোশাক। ফ্যাশন হাউজগুলো বাহারী শীতের কাপড়ের পরশা সাজিয়ে বসেছে।  এতো কিছুর পরেও কোন পোশাকটি পরবেন তা নিয়ে অনেকেরই দ্বিধাদ্বন্দ্ব রয়ে যায়। যারা পোশাক নির্বাচনে একটু সেকেলের তারা দেখে নিন শীতের এই সময়টাতে কোন ফ্যাশন বেশি চলছে। 

স্টাইলিশ ব্লেজার
শীতে পোলোশার্ট বা ফর্মাল শার্টের সাথে মেয়েরা স্টাইলিশ ব্লেজার পরতে পারেন। অফিসের জন্য মেয়েরা শার্ট এর সঙ্গে ব্লেজার পরতে পারেন। এই শীতে ফ্যাশন ডিজাইনাররা নানা রকম ডিজাইনের ব্লেজার তৈরি করেছেন।  যেগুলো ব্যবহারে আপনি শীতের হাত থেকে বাঁচবেন পাশাপাশি আপনার ফ্যাশনও ঠিক থাকবে।

শর্ট কিংবা লং সোয়েটার
শীতে ফ্যাশন এবং সৌন্দর্য্য দুটাই রক্ষা করবে সোয়েটার। শীতে পোশাকের উপরে সোয়েটার পরে অনায়াসে সব জায়গায় যেতে পারবেন।  ছেলে ও মেয়ে উভয়ের জন্যই সোয়েটার উপযোগী। বর্তমান ফ্যাশনে লং এবং শর্ট সোয়েটার দুটোই চলছে। অনেক মেয়েরা লং বেশি চুজ করে অনেকে আবার শর্টটা।  বাজারে নানা কালারের সোয়েটার পাওয়া যাচ্ছে আপনি ইচ্ছে মত আপনারটি কিনে নিতে পারেন। দাম খুব একটা বেশি পড়বে না। ২০০ টাকা থেকে শুরু করে ৫ হাজার টাকা দামের সোয়েটার পাওয়া যাবে। 

শাল/চাদর
শীতে ফ্যাশনেবল শাল পরতেই  বেশি ভাল বাসেন। বাজারে শালের প্যাটার্নের মধ্যেও বৈচিত্র্য রয়েছে। কিছু শাল রয়েছে রয়েছে স্টাইলিশ ডিজাইনের আবার কিছু রয়েছে একরঙ্গা। আপনি  আপনার রুচি ও  পছন্দের সাথে মিলিয়ে মানানসেই শাল কিংবা চাদর  কিনে নিন। তবে শাল কিনলে একটু ফ্যাশনেবল শাল কেনাই উত্তম। যাতে শীতও মরবে আবার আপনার ফ্যাশনও ঠিক থাকবে। 

কোট
শীতের পোশাকে কোট খুবই জনপ্রিয়। প্রফেশনাল অফিস লুকের সাথে এটি সলিড ও ভারী পোশাকে ভাল লাগবে। দূরে কোথাও গেলে অবশ্যই লংকোট গায়ে জড়াবেন। হাই-ক্লাস ফক্স-ফারে আপনাকে উষ্ণ ও সুরুচিসম্পন্ন দেখাবে। একইসঙ্গে রাতের পোশাকের সম্পূরক হবে। কোট পরার আগে প্রথমে আবহাওয়া ও পরে ফ্যাশনের দিকে নজর দিন।

স্টাইলিশ মাফলার
শীতের সময়টাতে সবচেয়ে বেশি শীত লাগে কানে। তাই সবার আগে কানটা ঢাকা চাই। কিন্তু কানটাকে কি যাতা মাতা পোশাকে ঢাকা উচিৎ হবে? নিশ্চয় না। অতএব ফ্যাশন সচেতনরা এই শীতে বেছে নিতে পারেন স্টাইলিশ মাফলার। এগুলো বেশ সফট এবং পরতে খুবই আরাম। আপনি মাথা আর গলায় জড়িয়ে রাখলে টেরই পাবেন না। 

হুডি/জ্যাকেট
বর্তমান তরুণ প্রজন্মের কাছে শীতের পোশাক মানেই হুডি। ছেলে মেয়ে উভয়েই হুডি পোশাক পরছে। ফ্যাশনেবল হুডি তরুণ-তরুণীদের পছন্দের পোশাকে জায়গা করে নিয়েছে। যখন গরম লাগবে, তখনহুড ফেলে রাখলেই যথেষ্ট। আবার ঠাণ্ডার সময় হুড পরে ফেললেই কাজ হয়ে যায়। ফ্যাশনের সঙ্গে সঙ্গে শীত মোকাবেলার ভালো বন্ধুও বটে এ হুডি পোশাক। মেয়েরা যখন হুডি পছন্দ করবেন তখন আপনার শরীরের সাথে খাপ খায় এমন টাইপের হুডি কিনবেন। কালার আপনার পছন্দ মত চয়েজ করে নিন।

কোথায় পাবেন দাম কেমন?
পোশাক গুলোর দাম জানতে ও কিনতে ঘুরে আসুন বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় অনলাইন শপিং মল আজকের ডিল থেকে। অথবা নিচের লিংকে ক্লিক করুন।
*শীতফ্যাশন* *শীতেরপোশাক* *শপিং* *অনলাইনশপিং* *স্মার্টশপিং*

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

শীতের এই সময়টাতে খুব সকালেই অফিসের জন্য বের হতে হয়। জবুথবু শীতের সকালে অফিসে বেরোনোর সময়  গরম কাপড় দিয়ে শুধু আপাদমস্তক ঢেকে রাখলেই চলবে না! অহেতুক ঢাকাঢুকি করলে কিন্তু আপনার ফ্যাশন, স্টাইল সব মাটি হয়ে যাবে। বিশেষ করে অফিসে আর আপনার মান থাকবে না। তাই শীতেও পোশাক পরুন সচেতনতার সঙ্গে। যাতে একদিকে রক্ষা পাওয়া যাবে শীতের কামড় থেকে, অন্যদিকে বজায় থাকবে ফ্যাশনও।

ফর্মাল শার্ট ব্লেজার
শীতে ফর্মাল শার্টের সাথে ব্লেজার পরতে পারেন। সাধারণ শার্ট হলেও চলবে তবে সেটা আয়রন করে নিতে হবে। এতে স্মার্ট দেখতে লাগবে আপনাকে। অফিসের জন্য পুরুষদেরকে শার্ট এর সঙ্গে ব্লেজার পড়লে বেশ মানায়। তবে এ ধারায় পিছিয়ে নেই নারীরাও। ছেলেদের মত মেয়েরাও শীতে অফিসে যাওয়ার জন্য স্টাইলিশ ব্লেজার পরে।  এই শীতে অফিসের জন্য ফ্যাশন ডিজাইনাররা নানা রকম ডিজাইনের ব্লেজার তৈরি করেছেন। আপনি আপনার চয়েজ মত সেরাটি বেছে নিন।

সোয়েটার
শীতে ফ্যাশন এবং সৌন্দর্য্য দুটাই রক্ষা করবে সোয়েটার। শীতে পোশাকের উপরে সোয়েটার পরে অনায়াসে অফিসে যাওয়া যায়। শীতের উষ্ণতা কাছে আসতে পারবে না সোয়েটার পরলে। ছেলে ও মেয়ে উভয়ের জন্যই সোয়েটার উপযোগী। বাজারে নানা কালারের সোয়েটার পাওয়া যাচ্ছে আপনি ইচ্ছে মত আপনারটি কিনে নিতে পারেন। দাম খুব একটা বেশি পড়বে না। ২০০ টাকা থেকে শুরু করে ২ হাজার টাকা দামের সোয়েটার বাজারে পাওয়া যাবে। 
 
ওয়েস্ট কোট
কয়েকটি পোশাক কখনওই আউট অফ ফ্যাশন হয় না। তার মধ্যে অন্যতম ওয়েস্ট কোট। ওয়েট কোট আগেও ইন ছিল, এখনও ইন। যে কোনও অকেশনে ওয়েস্ট কোট দিব্যি মানিয়ে যায়। শার্ট, কুর্তার সঙ্গে দারুণভাবে মানিয়ে যায় ওয়েস্ট কোট। শুধু সঠিকভাবে মিক্স অ্যান্ড ম্যাচ করে পরতে হবে। সঠিক ওয়েস্ট কোট বেছে নিতে হবে – ওয়েস্ট কোটের পুরো ব্যাপারটাই ফিটিংস। ফিটিংস ঠিক না থাকলে ওয়েস্ট কোট পরার মানেই হয় না। পলিয়েস্টারের মতো চকচকে কাপড়ের ওয়েস্ট কোট পরবেন না। সুতির ওয়েস্ট কোট বেছে নিন। নিদেনপক্ষে বেছে নিন টুইড কাপড়ের ওয়েস্ট কোট। 

জ্যাকেট কিংবা ফ্যাশনেবল শাল
শীতে অফিসের জন্য ছেলে মেয়ে উভয়েই জ্যাকেট পরতে পারেন। অনেকেই আবার ফ্যাশনেবল শাল পরতেই ভাল বাসেন। বাজারে জ্যাকেটের কাটিং প্যাটার্নের মধ্যেও বৈচিত্র্য রয়েছে। কিছু জ্যাকেট সামনে খোলা। তাতে হয়তো বোতাম বা ফিতা ব্যবহার করা হয়েছে আটকানোর জন্য। আপনার পছন্দ অনুযায়ী অফিসের সাথে মানানসেই জ্যাকেট কিনে নিন। আর শাল কিনলে একটু ফ্যাশনেবল শাল কেনাই উত্তম। যাতে শীতও মরবে আবার আপনার ফ্যাশনও ঠিক থাকবে। 

দরদাম ও কেনাকাটা
রাজধানী ঢাকার বড় বড় ফ্যাশন হাউজগুলো ছাড়াও দেশের সর্বত্র শীতের পোশাক পাবেন। অফিসিয়াল শীত পোশাকের দাম খুব একটা বেশি না তবে ভাল মানের পোশাক নিতে গেলে দাম একটু বেশিই পড়বে। সেক্ষেত্রে ২০০ টাকা থেকে শুরু করে ১০ হাজার টাকার মধ্যে। অনলাইন শপ গুলো থেকেও শীতের পোশাক কিনতে চাইলে নিচের লিংক  থেকে ঘুরে আসুন।
অনলাইন লিংকঃ
পোশাক সহ শীতের সব কালেকশন কিনতে ক্লিক করুন
*শীতেরপোশাক* *অফিসেরসাজ* *ড্রেসআপ* *শপিং* *স্মার্টশপিং*

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

শীতে ফ্যাশনেবল আউটলুক ধরে রাখতে মেয়েয়ের পছন্দের তালিকায় যুক্ত হয়েছে বাহারি সব সোয়েটার।রুচিশীল মার্জিত সোয়েটারই এখন মেয়েদের পছন্দের শীর্ষে। পছন্দসই ও সময়োপযোগী সোয়েটার শুধু শীত নিবারণ নয় সৌন্দর্যও বাড়িয়ে তোলে দ্বিগুণ। সোয়েটারে ফ্যাশনে আধুনিক মেয়েদের পছন্দের তালিকায় যে সব সোয়েটার উঠে  এসেছে আজকের আয়োজন সেই সব সোয়েটার নিয়ে। 

স্ট্রাইপ সোয়েটার 
তরুণীদের মানসিকতার প্রতি লক্ষ্য রেখে পাশ্চাত্য ধারা অনুসরণ করে তৈরি করা হয়েছে মেয়েদের জন্য বিশেষ সোয়েটার। দৈর্ঘ্য একটু বেশি ও স্ট্রাইপ সোয়েটার এবার বেশি চলছে। সোয়েটারের গলায় ওভার ফ্লিপ ডিজাইন ব্যববার করা হয়েছে।এটি স্কার্ফের বিকল্প হিসেবে কাজ করে।শীত থেকে দূরে থাকতে এই সোয়েটারটি ব্যাবহার করতে পারেন। এটি বেশ আরামদায়ক ও স্টাইলিশ। যে কোন প্যান্ট বা পোশাকের সাথে এটি মানিয়ে যায়।

হাতাকাটা লং সোয়েটার
টি-শার্ট ও শার্টের ওপর পরার জন্য হাতাকাটা সোয়েটার মানানসই। এর মধ্যে কুচি দেয়া, চুড়িদার বাতা তরুণীদের পছন্দ। এগুলো সম্পূর্ণ আঁটসাঁট নয় বরং একটু ঘের দেয়া, ঢোলা শীত পোশাকের বেশ চাল দেখা যাচ্ছে। নিট কাপড় দিয়েই মূলত তৈরি হয়েছে এসব সোয়েটার।


পশমি উল ও ক্রুশ কাজের সোয়েটার 
বর্তমানে পশমি উল ও ক্রুশ কাজের সোয়েটারও পরছেন অনেকে। তবে সোজা কাটের প্যান্ট বা জিনসের সঙ্গে মানানসই বেন্টজার ও কোট অনেকের পছন্দ। এর নিচের দিকে ফিতা দিয়ে নকশা করা হয়েছে, যাতে ফিকিং ভালো হয়। নকশায় ইয়ার্কিও ব্যববার করা হয়েছে ছোট ছোট পাথর।

হাতায়-গলায় কুচি দেয়া সোয়েটার
হাতায়-গলায় কুচি দেয়া, ভাঁজ করা সোয়েটার চলছে।  কি-শার্টের মতো সোয়েটারের চাহিদাও রয়েছে। পাতলা কাপড়ের সোয়েটার চলছে বেশ। অল্প শীতে এ ধরনের পাতলা সোয়েটার আরামদায়ক। এসব সোয়েটার স্কিন জিন্স ছাড়াও সালোয়ার-কামিজের সঙ্গে পরা যায়। এটি বেশ আরামদায়ক ও স্টাইলিশ। যে কোন প্যান্ট বা পোশাকের সাথে এটি মানিয়ে যায়। ফ্যাশনে আউটলুক ধরে রাখতে এই ধরনের সোয়েটার আপনাকে সবসময় সাহায্য করবে।


ক্রু নেক বা গোল গলার সোয়েটার 
বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডায়, পার্কিতে বা বেড়াতে গেলে সব থেকে সহজ ও আরামদায়ক হতে পারে ক্রু নেক বা গোল গলার সোয়েটারগুলো। যে-কোন ট্রাউজার বা জিনসের সঙ্গে মানিয়ে যায় এটি। এ ছাড়া ব্লেজার কিংবা জ্যাকেটের নিচে পরা যায়, যা ট্রেন্ডি ও স্টাইলিশ। 


কোথায় পাবেন 
স্টাইলিশ সোয়েটারের দেখা মেলে বসুন্ধরার ইনফিনিকি, মুস্তফা মার্ট, স্মার্টটেক্স, আর্টিস্টিতে। এছাড়া গুলিস্তান, মালিবাগ, ফার্মগেট, সদরঘাট, উত্তরা, বনানী, গুলশান, মিরপুর, সদরঘাট, কেরানীগঞ্জ, এলিফ্যান্ট রোড, নিউমার্কেটসব রাজধানীর বিপণিবিতানে সোয়েটার পাওয়া যায়। দরদাম সাধারণত হাতকাটা বা ম্যাগিবাহ সোয়েটার পাওয়া যাবে ৯০ থেকে ২৫০ টাকা। ফুলহাতা মেয়েদের সোয়েটার ১৫০ থেকে ৩৫০ টাকা। ভাল মানের সোয়েটারের দাম পড়তে পারে প্রতিটি সোয়েটার ৭০০  থেকে ৩০০০ টাকা। ফুলহাতা সোয়েটার ১২৫০ থেকে ৭০০০ বাজার টাকা পর্যন্ত।অনলাইন থেকে কিনতে চাইলে ঘুরে আসুন দেশের সবচেয়ে বড় অনলাইন শপিংমল আজকের ডিল ডটকমের ওয়েব সাইট থেকে। 
*সোয়েটার* *শীতেরপোশাক* *শীতেরফ্যাশন* *শপিং* *অনলাইনশপিং*

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

যুগের সাথে তাল মিলিয়ে ফ্যাশনে নিত্য নতুন পরিবর্তন আসছে।  পরিবর্তন এসেছে আমাদের চিন্তা-ভাবনা, আচার আচরণ ইত্যাদিতেও। সেই সাথে পরিবর্তন হয় আমাদের পোশাকের স্টাইলও। তারপরেও কিছু কিছু পুরানো স্টাইল আছে যা আজও তার আবদার ধরে রাখতে সক্ষম। সেই ধারাবাহিকতায় অনেক আগের প্রচলিত পোশাকগুলোই এখন জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। ঠিক তেমন একটি পোশাক হচ্ছে ওয়েস্ট কোট। একটা সময় ছিল যখন এই পোশাকটির বেশ প্রচলন ছিল। কালক্রমে তা হারিয়ে গেলেও এই সময়ে এসে ওয়েস্ট কোট আবার ব্যাপক চাহিদা পেয়েছে। এমনকি সব বয়সী মানুষের জন্যই যথেষ্ট মানানসই। চলুন শীত ফ্যাশনে ওয়েস্ট কোট সম্পর্কে জেনে নেই। 

মেনজ ওয়েস্ট কোট
রুষদের কয়েকটি পোশাক কখনওই আউট অফ ফ্যাশন হয় না। তার মধ্যে অন্যতম ওয়েস্ট কোট। ওয়েট কোট আগেও ইন ছিল, এখনও ইন। যে কোনও অকেশনে ওয়েস্ট কোট দিব্যি মানিয়ে যায়। শার্ট, কুর্তার সঙ্গে দারুণভাবে মানিয়ে যায় ওয়েস্ট কোট। শুধু সঠিকভাবে মিক্স অ্যান্ড ম্যাচ করে পরতে হবে। সঠিক ওয়েস্ট কোট বেছে নিতে হবে – ওয়েস্ট কোটের পুরো ব্যাপারটাই ফিটিংস। ফিটিংস ঠিক না থাকলে ওয়েস্ট কোট পরার মানেই হয় না। পলিয়েস্টারের মতো চকচকে কাপড়ের ওয়েস্ট কোট পরবেন না। সুতির ওয়েস্ট কোট বেছে নিন। নিদেনপক্ষে বেছে নিন টুইড কাপড়ের ওয়েস্ট কোট। 

লেডিস ওয়েস্ট কোট
আমাদের দেশের ফ্যাশনেবল মেয়েদের কাছেও এখন ওয়েস্ট কোটের ব্যাপক চাহিদা। কারণ এই কটি যে কোন পরিবেশে বিশেষ করে শীতের মৌসুমে পরতেও বেশ ভাল লাগে এবং বেশ মানানসই। ওয়েস্ট কোট পোশাকের শ্রী-বৃদ্ধি করে।  মেয়েরা টিশার্ট, ক্যাজুয়াল শার্ট এবং জিন্স প্যান্টর সাথে মিলিয়ে মাননসেই ফ্যশনেবল ওয়েস্ট কোট পরতে পারেন।  মেয়েরা বিভিন্ন রঙের  ওয়েস্ট কোটও পরতে পারেন এতে আপনাদেরকে বেশ রঙিন দেখাবে। । যদি আপনি কোথাও বেড়াতে যাবেন বলে ঠিক করেন, তাহলে সেই পরিবেশের সঙ্গে এবং আপনার অন্য পোশাকটির সঙ্গে ওয়েস্ট কোটটি অবশ্যই মিলিয়ে নেবেন।

দরদাম ও কেনাকাটা
বাজারে এখন পর্যন্ত ৭০টি রঙের এবং ভিন্ন ডিজাইনের ওয়েস্ট কোট শোভা পাচ্ছে। য়েস্ট কোট কেনার  জন্য বসুন্ধরা শপিং সেন্টার, এ্যালিফ্যান্ট রোড, ইস্টার্ন প্লাজা, রাপা প্লাজা, মেট্রো শপিংমল, কর্ণফুলী গার্ডেন সিটিসহ কিছু অভিজাত শপিংমলে যেতে পারেন। তবে দর দামের ক্ষেত্রে খুব বেশি পার্থক্য কোথাও থাকছে না। সবগুলো শপিংসেন্টারে ৯০০ টাকা থেকে 2000 টাকায় এটি কিনতে পাওয়া যাবে।  এছাড়াও যারা অনলাইনে কিনতে ইচ্ছুক তারা দেশের বড় বড় অনলাইন শপিংমল গুলোর ওয়েব সাইটে নক করতে পারেন। নিচে ওয়েস্ট কোট সহ বিভিন্ন ধরনের কোটের একটি লিংক শেয়ার করলাম। ঘরে বসে এখান থেকেও আপনি পছন্দমত শীতের পোশাক কিনতে পারবেন।
*শীতেরপোশাক* *শীতফ্যাশন* *ফ্যাশন* *ওয়েস্টকোট* *কোট* *শপিং* *স্মার্টশপিং* *অনলাইনশপিং*

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

ছেলেদের শীতের ফ্যাশনে অনেক বড় ভূমিকা রাখে টুপি। পুরো স্টাইলকে যেন পাল্টে দেয়। তবে মাফলারও বেশ মানানসই। এ ছাড়া ছোট শিশু থেকে শুরু করে তরুণ-তরুণী বা বড়দের কানটুপিতেই আনা হয়েছে ভিন্নতা। সুতি, উল, পশমি কাপড়ের পাশাপাশি নিট কাপড়ের কানটুপির কদর বেড়েছে। রঙেও আনা হয়েছে ভিন্নতা। 
























*টুপি* *মাফলার* *শীতেরপোশাক* *স্মার্টশপিং*

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

সোনামণির পোশাক কিনতে ক্লিক করুন হাটি হাটি পাপা করে শীত ঘরের দরজায় চলে এসছে। শীতের এই সময়টাতে সবচেয়ে বেশি চিন্তা শিশুদের নিয়ে। এই শীতে শিশুর জন্য চাই বাড়তি যত্ন। কারণ শীতে ঋতু পরিবর্তনের ফলে শিশু নানা রকম অসুখে আক্রান্ত হয়। এজন্য শীতে শিশুদের সব সময় শীতের পোশাক পরিয়ে রাখতে হবে। তবে শিশুকে শীতের যে পোশাক পরাবেন তা হওয়া চাই আকর্ষণীয় ও ফ্যাশনেবলও। আর এ দিকটি মাথায় রেখে বর্তমানে বিভিন্ন ফ্যাশন হাউস ও শপিং মলে তোলা হয়েছে শিশুদের জন্য নানা ডিজাইনের শীতের পোশাক। এই শীতে আপনার শিশুর জন্য কোন ধরনের শীত পোশাক বেছে নিবেন সে সম্পর্কে জেনে নেই।
 
 
সোয়েটার/ জ্যাকেট 
এই শীতে শিশুর জন্য সোয়েটার না জ্যাকেট বেছে নেবেন তা নিয়ে দ্বিধায় পড়ে যেতে পারেন। নজরকাড়া নকশাই আপনাকে এ দ্বিধায় ফেলে দেবে। নতুন নানা ডিজাইনে মেয়েদের ফ্রক সোয়েটার, শর্ট সোয়েটার এসেছে। জিন্সের কাপড়েও পাওয়া যাচ্ছে ফ্রক সোয়েটার। ডেনিমের প্যান্ট আর উলের সোয়েটারও বাজারে পাওয়া যাচ্ছে। চাইলে চামড়ার জ্যাকেটও কিনতে পারেন। আপনি আপনার সোনামণির জন্য পছন্দ অনুযায়ী ফ্যাশনেবল ও আকর্ষণীয় কালেকশনটি খুঁজে নিন।
 
 
কিডস উইন্টার স্যুট
শিশুদের শীতের পোশাকে নতুন মাত্রা যোগ করেছে উইন্টার স্যুট।  শিশুদের শীতের পোশাকের কাপড় সুতি হলে পরতে আরামদায়ক হয়।  তাছাড়াও উল ও কটনের তৈরী স্যুট ও বেশ আরাম দাময়ক। শিশুদের স্যুট গুলো দেখতে খুব চমৎকার। রয়েছে আকর্ষণীও ডিজাইনের বাহার। ৬ মাসে থেকে ২ বছর বয়সী শিশুদের এই ড্রেসে বেশ মানায়। 
 
 
শিশুদের হুডি
শীত ফ্যশনের অন্যতম অনুসঙ্গ হুডি। শুধু বড়দের নয় বাজারে শিশুদের জন্যও রয়েছে বাহারি ডিজাইনর হুডি। শীতের হিমেল হাওয়া বইতে থাকলে মায়েরা আদর করে শিশুর মাথাটা হুডির হুড দিয়ে ঢেকে দিতে পারবেন। সুতি, কটন ও সফট কাপুড়ে তৈরীকরা নানান রঙের ফুলতোলা ডিজাইনের হুডি বাজারে পাওয়া যাচ্ছে। আপনি আপনার সোনামণির জন্য পছন্দ অনুযায়ী ফ্যাশনেবল কালেকশনটি খুঁজে নিন। 
 
 
টুপি, জুতা ও অন্যান্য পোশাক
লাল নীল টুপিতে শিশুদের বেশ মানায়। তাছাড়া পায়ে রঙ্গিন কাপুড়ের জুতা থাকলে তো কথায় নেই। কান আর পা ঢাকা থাকলে শিশুর কাছে শীত ঘেঁষতেই পারবেনা। কানটুপি, মাফলার, হাত মোজা, পা মোজা শিশুকে শুধু উষ্ণতায় দেয় না  পাশাপাশি এটি শিশুদের করে তুলবে স্টাইলিশও।  কানটুপি, মাফলারে নানা ধরনের আকর্ষণীয় ঝালর, উলের বল, ফিতা সৌন্দর্য বাড়িয়ে দিয়েছে বহু গুণ। শীতের এই সময়টাতে সব খানেই সোনামণির শীতের পোশাক পেয়ে যাবেন। পছন্দমত আপনি আপনার পছন্দেরটি বেছে নিন।
 
 
দরদাম ও কেনাকাটাঃ
রাজধানী ঢাকার বড় বড় ফ্যাশন হাউজগুলো ছাড়াও দেশের সর্বত্র শিশুদের শীতের পোশাক পাবেন। শিশুদের পোশাকের দাম খুব একটা বেশি না তবে ভাল মানের পোশাক নিতে গেলে দাম একটু বেশিই পড়বে। সেক্ষেত্রে ১০০ টাকা থেকে শুরু করে ৫ হাজার টাকার মধ্যে। চাইলে অনলাইন শপ গুলো থেকেও সোনামণির শীতের পোশাক কিনতে পারবেন। 
অনলাইন লিংকঃ
*শীতেরপোশাক* *শিশুরপোশাক* *শিশুরযত্ন* *শপিং* *কেনাকাটা*

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

শীতে তরুণ-তরুণীর আকর্ষণীয় পোশাক হুডি। বাহারি ডিজাইন আর নানান রঙের সমন্বয়ে তৈরী হুডি শীত ফ্যাশনে অন্যতম অলংকারে পরিণত হয়েছে। এই শীতে পায়ে কনভার্স, পরনে জিন্স ও টি-শার্ট, সঙ্গে যোগ হয় যোগ হয় ফ্যাশনেবল হুডি। এ যেন ফ্যাশনের সঙ্গে নিত্যনতুন পথচলা। শীত ফ্যাশনে হুডি মূলত সোয়েটারের উন্নত সংস্করণ। শীতে পরার মতো পোশাক তো অনেক কিছুই আছে। কিন্তু শীত তাড়ানো এবং ফ্যাশন একসঙ্গে এই দুই শর্ত পূরণ করছে হুডি। চলুন শীতের সঙ্গী হুডি পোশাকের মেনজ ও লেডিস সংস্করণ সম্পর্কে জেনে নেই। 


মেনজ হুডি
ফ্যাশনেবল ছেলেদের যদি প্রশ্ন করা হয় হুডি কেন পরা হয় এর উত্তর বোধহয় ফ্যাশন আর শীতে আরাম। ছেলেদের যেকোনো পোশাকের চেহারা বদলে যায় শুধু হুড যোগ করার ফলে।  শীতে  হুডি দারুণ কার্যকর। এমনকি গরমেও অনেক তরুনরা হুডসহ শার্ট পরতে পছন্দ করেন।  হডি পরলে একটু ভিন্ন রকম ক্যাজুয়াল ভাব আসে । যে সকল তরুন রা গরমেও খাটো হাতার হুডি টপ পরতে ভালবাসেন। তাদের কাছে ডেনিম প্যান্টের সঙ্গে হুডি টপ দারুণ ফ্যাশনেবল বলে মনে হয়। জিন্স প্যান্ট, টিশার্ট, ফুলশার্ট সব ধরনের পোশাকের উপরেই হুডি পরা যায়।  


লেডিস হুডি
ফ্যাশনে মেয়েরাও পিছিয়ে নেই। ছেলেদের পাশাপাশি শীত ফ্যাশনে মেয়েরাও বেছে নিয়েছেন নানান ডিজাইনের ফ্যাশনেবল হুডি। হুডি যেমন আকর্ষণীয় তেমনি মানানসই। বর্তমান বাজারে  মেয়েদের জন্য আছে নানা রঙের স্ট্রাইপ দেয়া হুডি টপ। মেয়েরা ডেনিম প্যান্টের সঙ্গেই হুডি বেশি পরছেন।  মেয়েরা স্কার্টের সঙ্গেও হুডি পরতে পারেন। তাছাড়াও লেগিংস প্যান্ট, এবং সবধরনের জিন্সপ্যান্ডের সাথেও মেয়েরা মানানসই হুডি পরতে পারেন। 


কোথায় পাবেন, দাম কেমন?
ফ্যাশন হাউসগুলোর পাশাপাশি নিউমার্কেট, বঙ্গবাজারসহ নগরীর অভিজাত শপিং মলগুলোতেও বেশ হুডি কালেকশন রয়েছে।  ব্র্যান্ডের হুডিগুলোর দাম পড়বে ৭০০ থেকে ৫০০০ টাকা পর্যন্ত। আর নিউমার্কেট, বঙ্গবাজার হকার্স মার্কেটে হুডির দাম পড়বে ২৫০ থেকে ৭৫০ টাকা। শীত উপলক্ষে বাংলাদেশের বড় অনলাইন শপিংমল আজকের ডিলে ফ্যাশনেবল সব ধরনের হুডি পাবেন। তাছাড়াও থাকছে ক্রেজি ডিল অফার। ফুরফুরে মেজাজে শীতকে উপভোগ করতে সেইসঙ্গে শীতে স্মার্ট থাকতে আজই কিনে নিন আপনার পছন্দের হুডি। 
নিচে প্রায় এক হাজারটি হুডির কালেশন তুলে ধরলাম। দেখতে নিচের লিংকে ক্লিক করুন।
*হুডি* *শীতেরপোশাক* *শীতফ্যাশন* *ফ্যাশন* *শপিং* *কেনাকাটা* *স্মার্টশপিং* *অনলাইনশপিং*

দীপ্তি: একে উলের পোশাক ধোয়া কষ্টকর, তার উপর আবার উলের পোশাক ধুলেই খসখসে হয়ে যায় বলে অনেকেই পুরো শীতে একবার উলের কাপড় ধুয়ে থাকেন (খিকখিক) এটা ঠিক (না) শুনুন, উলের পোশাক ধোবার পর এক বালতি পানিতে আধ চামচ গ্লিসারিন দিয়ে তাতে ডুবিয়ে রাখুন খানিকক্ষণ, দেখবেন পোশাকের নরম ভাব বজায় থাকবে দারুনভাবে সেই সাথে উজ্জ্বলতাও অটুট থাকবে কাপড়ের (খুকখুকহাসি)

*শীতেরপোশাক* *উলেনকাপড়* *গৃহস্থালিটিপস*

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

এই শীতে আপনার বৃদ্ধ বাবার জন্য দারুণ একটি উপহার হতে পারে কাশ্মীরি শাল। মানসম্পন্ন উল ও পশম থেকে তৈরি কাশ্মীর থেকে আমদানিকৃত এই শালটি শীতের সময় খুবই আরামদায়ক হবে। 



কাশ্মিরী শাল
৩,০০০ টাকা
অরিজিনাল কাশ্মিরী শাল
কাশ্মিরী পশমিনা ফেব্রিক
ট্রাডিশনাল ডিজাইনহাই কোয়ালিটি ইম্পোর্টেড প্রোডাক্ট। কাশ্মিরী শাল কিনতে ক্লিক করুন





কাশ্মিরী শাল (ধুসর)
৩,০০০ টাকা
অরিজিনাল কাস্মিরী শাল
কাশ্মিরী পশমিনা ফেব্রিক
ট্রাডিশনাল ডিজাইন
হাই কোয়ালিটি ইম্পোর্টেড প্রোডাক্ট

আরো বিস্তারিত দেখতে ক্লিক করুন কাশ্মিরী শাল

*কাশ্মিরী-শাল* *শাল* *স্মার্টশপিং* *শীতেরপোশাক*

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

অফিস আর সংসার, দুটোই নিপুণ হাতে সামলাচ্ছে আজকের কর্মজীবী নারীরা। অফিস হোক বা বাসা, সব জায়গাতেই একজন নারী চায় নিজেকে সুন্দরভাবে উপস্থাপন করতে। হয়ে উঠতে চায় ফ্যাশনেবল l শীতের পোশাক হিসেবে কর্মজীবী নারীদের প্রথম পছন্দ শাল l শীতের ফ্যাশন অনুষঙ্গ হিসেবে শাল বা চাদর যাই-ই বলুন না কেন, শীত তাড়াতে অন্য পোশাকের তুলনায় এর ব্যবহার একটু বেশীই হয়। বিশেষ করে কর্মজীবী মহিলাদের ক্ষেত্রে এর কদর খানিকটা বেশিই l তাই আজ কথা হবে শাল নিয়ে l 



বিভিন্ন ডিজাইন ও মোটিফের শাল মিলছে আজকাল। ভারি কাজ করা দামি বিদেশি শাল থেকে শুরু করে কমদামি দেশীয় শালের কতই না রঙের বাহার। চমৎকার বুনন আর ডিজাইনে তৈরি হচ্ছে এসব নজরকাড়া চাদর বা শাল। দেশি শালের মধ্যে বাঙ্গালি মেয়েদের প্রথম পছন্দ খাদি শাল। তবে এখন যে শালটি খুব চলছে, তা হলো পশমিনা এবং কাশ্মীরি। 

কাশ্মীরি শালের মধ্যে পশমিনা শাল জনপ্রিয়তার শীর্ষে। দেশেও আজকাল তৈরি হচ্ছে পশমিনা শাল। হালকা এবং নিখুত ডিজাইনের জন্য কর্মজীবী নারীরা আজকাল এই শালের প্রতিই বেশি ঝুকছেন l এসব শালে ফুলের নকশা বা কলকা মোটিফের চাহিদাই বেশি। 

কর্মজীবী নারীরা পোশাকের সাথে মিলিয়ে শাল পরতে পছন্দ করেন l এক্ষেত্রে সাদা-কালো, সবুজ, বাদামি, বেগুনি, বিস্কিট-ম্যাজেনটা, আকাশি , ছাই রং রঙগুলোই বেছে নেবেন ; কন্ট্রাস্ট শেডগুলোও বেছে নিতে পারেন নির্দ্বিধায় l 

দুই পাশে পাড় এবং আধাআধি ভিন্ন রঙের শাল এসেছে এবারের ফ্যাশনে। দেশের বৃহত্তম অনলাইন শপিং মল আজকের ডিলে পাওয়া যাচ্ছে হরেক রকম রং বেরঙের শালের কালেকশন l চলুন দেখে আসি একবারl 
http://www.ajkerdeal.com/Category/13/222/winter-collection/shalswrappers 
*শীতেরপোশাক* *শাল* *কেনাকাটা* *শপিং* *অনলাইনশপিং* *স্মার্টশপিং*

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

চলছে মাঘ মাস! হীম শীতের ঠাণ্ডা হাওয়া শরীরটাকে নিমেষেই শীতল করে দিচ্ছে। শীতের এই সময়টাতে উষ্ণতার পর নিতে ফ্যাশন ও ট্রেন্ড বজায় রেখে চলছে শীতের পোশাক কেনার ধুম। হিম কুয়াশায় আর সন্ধ্যায় ঝিরঝিরে বাতাসটাকে ফাঁকি দিয়ে তরুণ তরুনীরা মেতে উঠছে শীত ফ্যাশনে। প্রতিবারের মত শীতের ফ্যাশনে এসেছে হুডি। শীতে তরুণ-তরুণীর পোশাক মানেই চোখে ভেসে ওঠে পায়ে কনভার্স, পরনে জিন্স ও ফুল স্লিভ টি-শার্ট, ফুল স্লিভ পোলো শার্ট, জ্যাকেট, কাশ্মীরি শাল, চাদর, মাফলার সঙ্গে যোগ হয় শীত ফ্যাশনের মুডি পোশাক হুডি। 

হুডি: 
হুডি পোশাক পশ্চিমা ফ্যাশনের গুরুত্বপূর্ণ একটি সংস্করণ। সময় বদলের ফ্যাশনে হুডি টিনএজদের মধ্যে জনপ্রিয় একটি পোশাক ও ফ্যাশন হয়ে উঠেছে। শুধু ছেলেরাই নয়, স্বাচ্ছন্দ্যে চলাফেরার জন্য টিনএজ মেয়েরাও বেছে নিচ্ছেন চমৎকার এ শীত পোশাকটি। শীতে হিমেল হাওয়ার হাত থেকে কানকে বাঁচাতে হুডির বিকল্প নেই। কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়সহ যে কোনো জায়গায় হুডি পরে সহজেই চলাচল করা যায় এবং অন্যান্য শীত পোশাকের মতো বাড়তি কোনো ঝামেলা নেই। হুডির সবচেয়ে বড় সুবিধা হল জিন্স, সালোয়ার-কামিজসহ যে কোনো পোশাকের সঙ্গে মানানসই। হালকা শীতের মধ্যে এ পোশাকটির চাহিদা সব থেকে বেশি থাকে।  তবে হাড় কাপানো শীতের মোকাবিলা দিতেও হুডির জুড়ি নেই l দেশের শীতের তাপমাত্রা অনুযায়ী নরম উলের হুডি এবং ভারী সিন্থেটিক হুডি সব রকমের কালেকশনই এখন সর্বত্রই পাওয়া যায় l একবার ঢু মেরে দেখতে পারেন আজকের ডিল ডট কমের উইন্টার কালেকশনে, তরুণ তরুনীদের জন্য সেখানে রয়েছে বিভিন্ন স্টাইলের হুডি l 


জ্যাকেট/ব্লেজার/ওয়েস্ট কোট: 
শীতে ফ্যাশনেবল পুরুষের সবচেয়ে পছন্দ এবং আরামদায়ক পোশাক হলো  জ্যাকেট। কারণ এগুলো কর্মক্ষেত্রে যেমন পরা যায়, তেমনি মানিয়ে যায় অন্য যে কোন স্থানেও। যাদের বাইকে করে  কাজে যেতে হয় তাদের জন্য জ্যাকেটের সবচেয়ে কমফর্টেবল পোশাক কারণ এটি যেমন ফ্যাশনেবল তেমনি শীত থেকে আমাদের রক্ষা করে দারুণভাবে। আজকের ডিলে রয়েছে জ্যাকেটের দারুন সব সম্ভার l  সিন্থেটিক লেদার, ডেনিম, ফ্লিচ এবং পলিয়েস্টারের জ্যাকেটকে রং-বেরঙের স্টিকার, পকেট, জিপার এবং প্রিন্ট যুক্ত করে করা হয়েছে আকর্ষণীয়। আজকাল মেয়েদের মধ্যেও জ্যাকেট পরার প্রবণতা বেশ লক্ষ্যনীয় l ডেনিম ট্রাউজার্স এবং হাই টপ স্নিকার্সের সঙ্গে  জ্যাকেট বেশ মানিয়ে যায় l হালকা-পাতলা গরম কাপড়ই পছন্দ এই সময়ের তরুণ তরুনীদের। আর তাই দেখা আজকাল ডিলে মিলছে পাতলা কাপড়ের জ্যাকেটের। শীতের পোশাকের মধ্যে পুরুষরা ফর্মাল গেট আপ নিতে বেছে নেয় কোট এবং ব্লেজারকে। কারণ এগুলো কর্মক্ষেত্রে যেমন পরা যায়, তেমন যেকোনো পার্টিতেও বেশ মানিয়ে যায়, কারণ শীতে মানেই তো বিয়ের মৌসুম l  এবারের শীতের ফ্যাশনে তরুণদের চাহিদা মাথায় রেখে ব্লেজারেও এসেছে পরিবর্তন। ব্লেজারের কাপড়, কাট-ছাঁট, বেতাম, রং ইত্যাদি বিষয়ে এবার বৈচিত্র্যের ছোঁয়া লেগেছে বেশি। জিনস, চামড়া, সুতির বাইরে এবার নতুন এসেছে মখমলের জ্যাকেট বা ওয়েস্ট কোট। চলুন দেখে নেই এক ঝলক আজকের ডিলে জ্যাকেট, ব্লেজার এবং ওয়েস্ট কোটের সব এক্সক্লুসিভ কালেকশন l


কাশ্মীরি শাল:
কুয়াশার প্রভাবে হালকা শীতে শাল হয়ে ওঠে নারীর প্রধান স্টাইল স্টেটমেন্ট। শীতের পোশাকের মধ্যে মেয়েদের পছন্দের তালিকায় অন্যতম শীর্ষে কাশ্মীরি শাল, হাজার ফ্যাশনের মধ্যেও চোখ আটকে যায় সব সময়। গোটা প্রকৃতি যেন প্রস্তুত হচ্ছে কাশ্মীরি বাহারি শালে নিজেকে জড়িয়ে শীত উপভোগ করতে। তাই আজকের ডিলেও লেগেছে শীতের আমেজ, সেখানে রয়েছে নানা ডিজাইনের আকর্ষনীয় সব কালেকশন l অনেক জায়গাতেই পশমিনা বা কাশ্মীরি  শাল বলে যা বিক্রি করা হয় সেগুলি কি আসল কাশ্মীরি শাল? একটি প্রশ্ন থেকেই যায়। তবে একটু সচেতন হলে আপনি নিজেই চিনে নিতে পারবেন আজকের ডিল থেকে আসল কাশ্মীরি শাল। চলুন তবে দেখে আসি কাশ্মীরি শালের এক্সক্লুসিভ সব কালেকশন l 


টুপি ও মাফলার: 
হাড়কাঁপানো শীত আর তার সঙ্গে তাল মিলিয়ে শুরু হয়েছে শীত ফ্যাশনের জোয়ার। সোয়েটার, জ্যাকেট আর অন্যসব শীতের পোশাকে আকর্ষণীয় করে তোলে এর এক্সেসরিজ। এর মধ্যে অন্যতম মাফলার ও টুপি। শীতের ফ্যাশনে অনেক বড় ভূমিকা রাখে টুপি। পুরো স্টাইলকে যেন পাল্টে দেয়। তবে মাফলরও বেশি মানানসই। এর পাশাপাশি এসেছে মেয়েদের জন্য বিনি ক্যাপ। শীত থেকে রক্ষার পাশাপাশি কানও সুরক্ষা করবে বিনি ক্যাপ। টুপির সঙ্গে ম্যাচ করে নিন মাফলারও। টুপির রং ও ম্যাটেরিয়ালের সঙ্গে মানানসই মাফলার বেশ আকর্ষণীয় করে তুলবে আপনাকে। পছন্দের কানটুপি ও মাফলার পেয়ে যাবেন রাজধানীর বিভিন্ন মার্কেট সহ আজকের ডিলেও l 


লেডিজ ওয়্যার/সোয়েটার: 
এবার পাশ্চাত্য ধারা অনুসরণ করে তৈরি করা হয়েছে মেয়েদের শীতপোশাক, বিশেষ করে সোয়েটার। দৈর্ঘ্য একটু বেশি ও স্ট্রাইপ সোয়েটার এবার বেশি চলছে। সোয়েটারের গলায় ওভার ফ্লিপ ডিজাইন ব্যবহার করা হয়েছে। এটি স্কার্ফের বিকল্প হিসেবে কাজ করে। শীতে অফিসে কর্মরত মেয়েদের পাশাপাশি সাধারণ মেয়েরাও স্যুটকে শীতের ফ্যাশন হিসেবে বেছে নিতে পারেন। এধরনের পোশাক শুধু আভিজাত্যই প্রকাশ করে না সেই সাথে করপোরেট লুকও বজায় রাখে। টি-শার্ট ও শার্টের ওপর পরার জন্য হাতাকাটা সোয়েটার মানানসই। মধ্যে কুচি দেওয়া, চুড়িদার হাতা তরুণীদের পছন্দ। এবার সম্পূর্ণ আঁঁটসাঁট নয় বরং একটু ঘের দেওয়া, ঢোলা শীতপোশাকের বেশ চল দেখা যাচ্ছে। নিট কাপড় দিয়েই মূলত তৈরি হয়েছে এসব সোয়েটার। এ ছাড়া পশমি উলের, ক্রুশ কাজের সোয়েটারও পরছেন অনেকে। তবে সোজা কাটের প্যান্ট বা জিনসের সঙ্গে পরতে পারেন ব্লেজার ও কোট। দৈর্ঘ্যে হাঁটুর ওপর পর্যন্ত এমন সোয়েটার মেয়েদের কাছে এবার জনপ্রিয়। ফুলহাতার পাশাপাশি খাটো হাতার সোয়েটারও চলছে। কালো, সাদা, চাপা সাদা, ছাই, ধূসর ছাড়াও হলদে সবুজ, লাল, গোলাপি, নীল ইত্যাদি বিভিন্ন রঙের স্ট্রাইপ দেওয়া সোয়েটার প্রাধান্য পেয়েছে। আপনি ঘুরে দেখতে পারেন আজকের দিলের উইন্টার কালেকশন সেই সাথে নিচের লিঙ্কটিতে রয়েছে স্টাইলিশ কিছু সোয়েটারের কালেকশন l 


সোনামনিদের শীতের পোশাক: 
এবারের শীতে শিশুদের জন্যও পাওয়া যাচ্ছে নানা ধরনের পোশাক। শিশুদের শীতের এসব পোশাক তৈরি করা হয়েছে শৈল্পিকভাবে। ফুল, লতাপাতা, প্রাণিজগৎ ও তারার মোটিফগুলো সোয়েটার, জ্যাকেট বা জিন্সে যোগ করেছে ভিন্ন মাত্রা। নবজাতক শিশু থেকে শুরু করে সব মেয়েশিশুর শীতপোশাকেই আনন্দের ছোঁয়া আনার চেষ্টা করা হয়েছে। নবজাতক শিশুদের জন্য রয়েছে বেবিকিপার, যা পায়ের তালু থেকে মাথা পর্যন্ত উষ্ণ রাখবে শিশুকে। মেয়েদের ফতুয়া ও ফ্রকে যোগ করা হয়েছে হুডি আর থ্রি-কোয়ার্টার প্যান্টের বদলে ফুলপ্যান্ট। রয়েছে ডেনিমের জ্যাকেট আর উলের সোয়েটারও। এছাড়া চামড়ার জ্যাকেটও কিনতে পারেন। আর এসবই রয়েছে আজকের ডিলে l চলুন দেখে নেই l 

সোয়েটার: 
প্রচণ্ড শীতে চাই উষ্ণতায় মোড়া সোয়েটার। পোশাকের সঙ্গে ফ্যাশনেবল সোয়েটার নিয়ে আসে বৈচিত্র্য। এবার পাতলা কাপড়ের সোয়েটার চলছে বেশ। অল্প শীতে এ ধরনের পাতলা সোয়েটার আরামদায়ক। এছাড়া ফুলহাতা টি-শার্ট, ফুলহাতা পলো শার্টও পরতে পারেন এই মৌসুমে। ছেলেদের শীতের পোশাকের মধ্যে আছে নানা ধরনের সোয়েটার। গোল গলা, ভি গলা, চিকন কলারের এসব সোয়েটারে থাকছে বিভিন্ন ধরনের ডিজাইন। সামনের দিকে চেইন বা বোতাম আছে কিছু সোয়েটারে। মেয়েদের জন্য উলের তৈরি কার্ডিগানও রয়েছে, উলেন ছাড়াও পশমি উলের, ক্রুশ কাজের সোয়েটারও বেশ চলছে l হাফ স্লিভ সোয়েটার তো পুরুষদের অন্যতম পছন্দের শীত পোশাক l টি-শার্ট ও শার্টের ওপর পরার জন্য হাতাকাটা সোয়েটার মানানসই। স্টাইলিশ সোয়েটারের সব কটি কালেকশনই মিলছে আজকের ডিলে l 

ফুল স্লিভ টি শার্ট / ফুল স্লিভ পোলো শার্ট: 
হালকা শীতে ফুলহাতা টি-শার্ট আর ফুল হাত পোলো শার্টের চাহিদা প্রচুর। আর ক্যাজুয়াল লুক নিতে চাইলে টি-শার্টের চেয়ে ভালো আর কী আছে! নানা ধরনের ফুল হাতা টি-শার্ট এবং ফুল হাতা পলো শার্ট পাওয়া যাচ্ছে আজকের ডিলে l 

*শীতেরপোশাক* *হুডি* *জ্যাকেট* *সোয়েটার* *মাফলার* *কেনাকাটা* *শপিং* *স্মার্টশপিং* *অনলাইনশপিং*

দীপ্তি: একটি নতুন প্রশ্ন করেছে

 ভালো লেডিস জ্যাকেট কোথায় কিনতে পাওয়া যাবে?

উত্তর দাও (৩ টি উত্তর আছে )

.
*জ্যাকেট* *শীতেরপোশাক* *শপিং* *কেনাকাটা*

hridoy sporsho: একটি নতুন প্রশ্ন করেছে

 কোথায় সুন্দর সুন্দর শীতের কাপড় কিনতে পাওয়া যাবে?

উত্তর দাও (৩ টি উত্তর আছে )

*শীতেরপোশাক* *কেনাকাটা* *শপিং*

মো:আ:মোতালিব: একটি বেশব্লগ লিখেছে


 শীত এলেই আমরা পোশাক কিনে আলমারি ভরে ফেলি। শীত প্রায় শেষের পথে। এবার পোশাকগুলো ভালো করে পরিষ্কার করে, গুছিয়ে তুলে রাখার পালা আগামী শীত পর্যন্ত। পোশাক তুলে রাখার আগে বাকি আছে কিছু কাজ, সেগুলো জেনে নিন
শীতের পোশাক আলমারিতে ঝুলিয়ে রাখা ভালো
শীতের কাপড় নিয়মিত রোদে শুকালে অনেক দিন পর্যন্ত টিকে। তবে কখনও কড়া রোদে শুকাবেন না
ওয়াশিং মেশিনে পরিষ্কার না করে নিজ হাতে ধোয়ার অভ্যাস করুন
স্টোর করার সময় টিস্যু পেপার দিয়ে মুড়ে ঠাণ্ডা জায়গায় রাখুন, যেখানে বাতাস যাতায়াত করতে পারে
স্টোর করার সময় কিছু ন্যাপথলিন বল একটা পুরনো মোজায় ভরে আলমারিতে রাখুন
উল কাপড়ের যত্ন
উলের দামি জামাকাপড় ওয়াশিং মেশিনে না ধোয়াই ভালো। ঠাণ্ডা পানিতে অল্প ডিটারজেন্ট দিয়ে কাচুন
উলের জামা স্টোর করার সময় ভাঁজ না করে ঝুলিয়ে রাখুন
জ্যাকেট বা কোট ঝুলিয়ে রাখার সময় কাঁধের অংশ প্লাস্টিক দিয়ে ঢেকে রাখুন। এতে কাপড়ে ধুলো জমবে না
উলের জামাকাপড় বেশি ড্রাই ক্লিনিং না করাই ভালো। এতে উল নষ্ট হয়ে যেতে পারে
উলের জামাকাপড় ভিজে গেলে ছায়ায় শুকিয়ে নিন। কড়া রোদে বা গরম তাপে না শুকানোই ভালো
ইস্ত্রি করার সময় সোয়েটার বা শাল উল্টে নিন। স্টিম দিয়ে ইস্ত্রি করার চেষ্টা করুন, গরম আয়রন উলে না লাগানোর চেষ্টা করুন
উলের কাপড় ধোয়ার সময় কখনোই কাপড় ব্রাশ দিয়ে ঘষবেন না। এতে কাপড় নষ্ট হওয়ার সম্ভাবনা থাকে
উলের সোয়েটার শুকাতে দেওয়ার সময় তা বেশি টানটান করে শুকাতে দেবেন না। আবার কুঁচকানো করেও দেবেন না। স্বাভাবিকভাবে শুকাতে দিন, এতে কাপড়ের আকৃতি সঠিক থাকবে
উলের কাপড় ইস্ত্রি করার সময় এর ওপর সুতির কাপড় বিছিয়ে নিলে কাপড় অনেক দিন ভালো থাকে
উলের কাপড়ের প্রধান শত্রু মথ পোকা। তাই যেখানে উলের কাপড় রাখবেন, সেখানে কিছু শুকনো নিমপাতা ছড়িয়ে রাখুন
পশমি কাপড় বা লেদার কাপড়ের যত্ন
পশমি কাপড়ের রঙ ওঠার সম্ভাবনা থাকলে রিঠার পানিতে ধুয়ে নেবেন
ইস্ত্রি করার সময় পশমের কাপড়ের ওপর সুতি কাপড় বিছিয়ে নিয়ে ইস্ত্রি করুন
লেদার বা চামড়ার পোশাক বাড়িতে পরিষ্কার করা ঠিক নয়। ভালো কোনো লন্ড্রিতে পাঠান
কয়েক বছর পরপর লেদারের জামাকাপড়ের ভেতরের লাইনিং বদলানো খুবই জরুরি
লেদার যদি খুব পাতলা হয় তাহলে হোয়াইট টিস্যুর প্যাডিং দিতে ভুলবেন না
লিনেন কাপড়ের যত্ন
লিনেন কাপড়ের সোয়েটার বা জামা কিছু দিন পর পরই কাচুন। বেশিদিন না কেচে ব্যবহার করবেন না
সাদা লিনেন গরম পানিতে কাচবেন আর রঙিন লিনেন অল্প গরম পানিতে কাচবেন
লিনেন কাপড় ওয়াশিং মেশিনে না শুকিয়ে, দড়িতে শুকাতে দিন
লিনেন কাপড় কাচার পর পানি ঝরিয়ে, একটু ভিজে ভিজে অবস্থায় ইস্ত্রি করুন
*শীতেরপোশাক* *লাইফস্টাইলটিপস*

বেশতো সাইট টিতে কোনো কন্টেন্ট-এর জন্য বেশতো কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

কনটেন্ট -এর পুরো দায় যে ব্যক্তি কন্টেন্ট লিখেছে তার।

...বিস্তারিত

QA

★ ঘুরে আসুন প্রশ্নোত্তরের দুনিয়ায় ★