সংখ্যা

সংখ্যা নিয়ে কি ভাবছো?

উদয়: একটি বেশব্লগ লিখেছে

আজ সকাল থেকেই একটার পর একটা প্রব্লেম, হঠাৎ ক্যালেন্ডারের দিকে চোখ রাখতেই মনে হলো আজ তো ১৩ তারিখ আর ১৩ তারিখ বেচারা তো নিজেই বড্ডো আনলাকি মানে দুর্ভাগা। অনেকেই আছেন যারা আরও নানা বিষয়ে কুসংস্কার মনের মধ্যে পুষে রেখেছেন। এগুলোর মধ্যে ১৩ সংখ্যাটিও একটি। অন্য সংখ্যা বিশেষ করে ১১, ১২, ১৪, ১৫ সংখ্যাগুলো পেতে চাইলেও কিন্তু সবাই সযত্নে ১৩ সংখ্যাটি এড়িয়ে যান। কেউ কেউ আবার এই সংখ্যাটিকে এতটাই ভয় পান যে, টেবিলের ১৩ নম্বর সিটটিতেও বসতে চান না। ১৩ নম্বরটি সঙ্গে খারাপের যোগসূত্র আছে অনেকেই বিশ্বাস করেন, ইতিহাসে যত খারাপ কিছু আছে সেগুলোর সঙ্গে ১৩ সংখ্যাটির একটি যোগসূত্র রয়েছে। তবে এটা সত্যিই কিনা, তা আজও কেউ জানেনা। সবাই সবসময় এটাকে দুর্ভাগ্যের প্রতীক হিসেবে মনে করে।

মাথায় ভুত চাপলো কেন ১৩ আনলাকি, এর কারণ জানতেই হবে। অবশেষে জেনে গেলাম, তবে জনপ্রিয় এই মিথটির পিছনেও কিন্তু কারণ রয়েছে।

জেনে নিন ১৩ কেন আনলাকি নম্বর-

যীশুর সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতাকারী ১৩ তম ব্যক্তি:  বলা হয়ে থাকে, একদিন যীশু তার ১২ জন শিষ্যকে নিয়ে নৈশভোজে বসেছিলেন। কিন্তু শেষ মুহূর্তের গণনায় দেখা যায়, সেখানে ১৩ জন ছিলেন। আর ওই ১৩তম ব্যক্তিই যীশুর সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করেছিলেন। এ কারণে যীশুকে পরে ক্রুশকাঠে বিদ্ধ করে হত্যা করা হয়েছিল। 

যীশুর ক্রসবিদ্ধ হয়েছিলেন ১৩ তারিখে:অনেক খ্রিষ্টান বিশ্বাস করেন, যীশু খ্রিষ্টকে শুক্রবার হত্যা করা হয়েছিল এবং তারিখটি ছিল ১৩। তখন থেকেই যীশুর মৃত্যুর তারিখ হিসেবে ১৩ তারিখকে গণ্য করা হয়। 

দ্য গ্যালোচ : দ্য গ্যালোচ হলো এমনই একটি জায়গা যেখানে মানুষ তার জীবনের শেষ নিঃশ্বাস নিতে পারে। সাধারণত গ্যালোচ বলা হয় সেই স্থানকে যেখানে একজন ব্যক্তিকে ফাঁসিতে ঝুলোনো হয়। এটা বিশ্বাস করা হয় যে, একজন মানুষকে ফাঁসিতে ঝুলানোর জন্য ১৩ টি ধাপের মধ্য দিয়ে যেতে হয়। কাজেই ১৩ সংখ্যাটি নিঃসন্দেহে দুর্ভাগ্যের প্রতীক। 

কভেনস : সাধারণত কভেনস বলতে ডাইনি বা খারাপ লোকদের একটা দলকে বোঝানো হয় যে দলে সবসময় ১৩ জন সদস্য থাকে। এজন্য কুসংস্কারবশত মানুষ সবসময় এটাই ধারণা করে, যে দলে ১৩ জন থাকে সে দলের কোন উন্নতি হয়না। এমনকি দলটির সব চেষ্টাই ব্যর্থতায় পর্যবসিত হয়। 

১২ নম্বরটি পারফেক্ট :বলা হয়ে থাকে, সংখ্যার জগতে ১২ নম্বরটিই একদম পারফেক্ট। কারণ আমাদের ১২ মাস, ঘড়িতে ১২ ঘণ্টা আছে। সেইসঙ্গে আমাদের রাশিচক্রও কিন্তু ১২টা। তাই ১৩ সংখ্যাটিকে সবাই দুর্ভাগ্যের প্রতীক হিসেবে মনে করে। অনেকেই মনে করেন, এ সংখ্যাটি শুধু তাদের জন্য দুর্ভাগ্যের বার্তা বয়ে আনে। 

অ্যাপোলো ১৩ : চাঁদে যাওয়ার জন্য নভোচারীদের অ্যাপোলো ১৩-এর অভিযান সফল হয়নি। ওই সময়ে সেখানে অক্সিজেন সিলিন্ডার বিস্ফোরিত হয়েছিল, যার কারণে তাদের বেঁচে থাকা অনেক কষ্টকর হয়ে পড়েছিল। তবে শেষ পর্যন্ত অবশ্য তারা নিরাপদে ফিরে আসতে পেরেছিলেন। যাহোক, তখন থেকে এই নম্বরটিকে আনলাকি নাম্বার হিসেবে মানুষ বিশ্বাস করে। 

বাকিমহ্যাম প্যালেসে বিস্ফোরণ : ইতিহাস পর্যালোচনা করে দেখা যায়, বৃটিশ রাজপরিবারের সদস্যরা যখন সবাই একসঙ্গে বসে খাচ্ছিলেন সে সময়ে বাকিমহ্যাম প্যালেসে বোমা বিস্ফোরণ করেছিল নাৎসিরা। সেই তারিখটি ছিল ১৯৪০ সালের ১৩ সেপ্টেম্বর।

১৩ বছর বয়স :  সন্তানদের ১৩ বছর বয়সটাকে ‘বিপদজনক অধ্যায়’ হিসেবে গণ্য করা হয়। এ সময় বাচ্চারা কুসর্গে মিশে নষ্ট হয়ে যায়। তাই বেশিরভাগেরই বিশ্বাস, ১৩ সত্যিই আনলাকি।

বিমান দুর্ঘটনা: দীর্ঘতম পর্বতমালা আন্দিজে ধাক্কা লেগে উরুগুয়ের এয়ার ফোর্স ফ্লাইট ৫৭১ বিমানটিতে আগুন ধরে যায়। ওই সময় দুর্ঘটনায় ২৯ জনের মৃত্যু হয়। ওই একই দিনে সোভিয়েত এরোফ্লেট রানওয়ে থেকে মাত্র এক কিলোমিটার দূরে একটি লেকের ধারে বিস্ফোরিত হয়েছিল। সে সময় ১৭৪ জনের মৃত্যু হয়েছিল। সেইদিন ছিল ১৩ তারিখ। তখন থেকে মানুষ বিশ্বাস করতে শুরু করে, এই ১৩ নম্বরই যত অঘটনের মূল।

তথ্যসূত্র: বোল্ডস্কাই ডট কম

*আনলাকি১৩* *১৩* *সংখ্যা* *কুসংস্কার*

মোঃ হাবিবুর রহমান (হাবীব): একটি নতুন প্রশ্ন করেছে

 "বেশতো"তে স্টার ব্যাজ ইউজার কারা হয়? স্টার ব্যাজ ইউজার এর সংখ্যা কত ? সাধারণ ইউজার ও স্টার ব্যাজ ইউজারের মধ্যে কি কোন পার্থক্য আছে?

উত্তর দাও (২ টি উত্তর আছে )

.
*স্টারব্যাজ* *সেলিব্রিটি-ব্যাচ* *বেশতো* *ইউজার* *স্টার* *ব্যাজ* *সংখ্যা* *সাধারণ* *মধ্যে* *পার্থক্য*

আলোহীন ল্যাম্পপোস্ট: একটি বেশব্লগ লিখেছে

একদা একটি বনে একটি পাখি ও মৌমাছি বাস করত।একদিন পাখি গাছের ডালে বসে ছিল।এমন সময় তার সামনে দিয়ে মৌমাছি যাচ্ছিল।তখন পাখি ও মৌমাছির মধ্যে কথা হলঃ
পাখিঃমৌমাছি কেমন আছ
মৌমাছিঃভাল তুমি কেমন আছ
পাখিঃভাল তোমাকে অনেকদিন ধরে একটি কথা বলব বাবছি।
মৌমাছিঃকি কথা বল
পাখিঃতুমি এত কষ্ট করে মধু তৈরী কর আর সেই মধু মানুষ তোমায় না জানিয়ে নিয়ে নেয় এতে তোমার কষ্ট হয় না
মৌমাছিঃনা
পাখিঃকেন
মৌমাছিঃতারা আমাদের মধু নিয়ে নেয় কিন্তু তারা কখনো আমাদের মধু তৈরীর শিল্প কেড়ে নিতে পারেনা

আপনি নিজের দূষ্টিকে নীতিবাচক রাখুন
এই ছোট মৌমাছির নীতির মত হওয়ার চেষ্টা করুন।তাহলেই সমাজে শান্তি প্রতিষ্ঠিত হবে।

*গল্প* *দৃস্টিভঙ্গি* *মৌমাছি* *স্বাধিনতা* *শহীদ* *সংখ্যা*
*দৃস্টিভঙ্গি* *মৌমাছি* *স্বাধিনতা* *শহীদ* *সংখ্যা*

বেশতো সাইট টিতে কোনো কন্টেন্ট-এর জন্য বেশতো কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

কনটেন্ট -এর পুরো দায় যে ব্যক্তি কন্টেন্ট লিখেছে তার।

...বিস্তারিত

QA

★ ঘুরে আসুন প্রশ্নোত্তরের দুনিয়ায় ★