সালাত

সালাত নিয়ে কি ভাবছো?

সাদাত সাদ: একটি বেশব্লগ লিখেছে

নামাযের পূর্বে অযু করা
"বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম-আমি নাজাযের উদ্দেশে পবিত্রতা লাভের উদ্দেশে ও আল্লাহ্'র সন্তুষ্টি লাভের উদ্দেশে ওযু করিতেছি" বলে প্রথমে দু‘হাত কব্জি পর্যন্ত- তিনবার ধৌত করার পর
মুখে ও নাকে তিনবার পানি দিয়ে কুলি করবে ও নাক ঝাড়বে।

অতঃপর মুখমন্ডল ধৌত করবে (কপালের উপর চুল গজানোর স্থান থেকে নিয়ে দাড়ির নিম্নভাগ, এবং এক কান থেকে নিয়ে অপর কান পর্যন্ত-)।

এরপর দু’হাতের আঙ্গুলের শুরু থেকে কনুই পর্যন- তিন বার ধৌত করবে। প্রথমে ডান হাত অতঃপর বাম হাত।

আবার নতুন করে দু’হাত পানি দিয়ে ভিজিয়ে তা দ্বারা মাথা মাসেহ্ করবে। দু‘হাত মাথার অগ্রভাগ থেকে নিয়ে পিছন দিকে ফিরাবে অতঃপর অগ্রভাগে নিয়ে এসে শেষ করবে। তারপর দু‘কান মাসেহ্ করবে। দু‘হাতের দুই তর্জনী কানের ভিতরের অংশ এবং দু‘বৃদ্ধাঙ্গলী দিয়ে বাহিরের অংশ মাসেহ্ করবে। এর জন্য নতুনভাবে পানি নেয়ার দরকার নেই।

অতঃপর দু‘পা টাখনুসহ তিনবার ধৌত করবে। প্রথমে ডান পা, তারপর বাম পা।
ওজু শেষে এই দোয়া পড়া
أَََشْهَدُ أَنْ لا إلَه إِلّا الله وَ أَشْهَدُ أَنَّ مُحَمَّدًا عَبْدُهُ وَرَسُوْلُهُ

জায়নামাজের দোয়াঃ
জায়নামাজে দাঁড়িয়ে নামাজ শুরুর পূর্বেই এই দোয়া পড়তে হয়,
বাংলা উচ্চারন-ইন্নি ওয়াজ্জাহ তু ওয়াজ্ হিয়া লিল্লাজি, ফাত্বরস্ সামা-ওয়া-তি ওয়াল্ আরদ্বঅ হানি-ফাওঁ ওয়ামা-আনা মিনাল মুশরিকী-ন।
অর্থ-নিশ্চই আমি তারই দিকে মুখ করলাম, যিনি আসমান ও যমীন সৃষ্টি করেছেন এবং বাস্তবিকই আমি মুশরিকদের অন্তর্ভুক্ত নই ।
এরপর নামাজের নিয়াত ও তাক্বীরে তাহঃরীমা
নামাজের ইচ্ছা করাই হচ্ছে নামাজের নিয়াত করা। মুখে উচ্চারণ করা জরুরী নয়, তবে মুস্তাহাব।
সমস্ত নামাজেই ,নাওয়াইঃতু আন্ উছাল্লিয়া লিল্লাহি তায়া'লা
(২ রাকাত হলে) রাক্ 'য়াতাই ছালাতিল
(৩ রাকাত হলে) ছালাছা রাক্ 'য়াতাই ছালাতিল
(৪ রাকাত হলে) আর্ বায় রাক্ 'য়াতাই ছালাতিল
(ওয়াক্তের নাম) ফাজ্ রি/ জ্জুহরি/আ'ছরি/মাগরিবি/ইশাই/জুমুয়া'তি
(কি নামাজ তার নাম) ফরজ হলে ফারদ্বুল্ল-হি/ ওয়াযিব হলে ওয়াজিবুল্ল-হি/ সুন্নত হলে সুন্নাতু রসূলিল্লাহি/নফল হলে নাফলি।
(সমস্ত নামাজেই) তায়া'লা মুতাওয়াজ্জিহান্ ইলা জিহাতিল্ কা'বাতিশ শারীফাতি আল্ল-হু আক্ বার।
বাংলায় নিয়াত করতে চাইলে বলতে হবে,
আমি আল্লাহ্'র উদ্দেশ্যে ক্কেবল মুখী হয়ে,
ফজরের/জোহরের/আসরের/মাফরিবের/ঈশার/জুময়ার/বি'তরের/তারঅবি/তাহাজ্জুদের (অথবা যে নামাজ হয় তার নাম)
২ র'কাত/৩র'কাত/৪ র'কাত (যে কয় রাকাত নামাজ তার নাম)
ফরজ/ওয়াজিব/সুন্নাত/নফল নামাজ পড়ার নিয়াত করলাম, আল্লাহু আকবার ।

তাকবীরে তাহরীমা-
আল্লাহু আকবার (৪বার)
আশহাদু আল্লাইলাহা ইল্লাল্লাহ(২বার)
আশহাদু আন্নামুহাম্মাদার রাসুল্লাহ‌(২বার)
হাইয়া আলাস্ সালাহ(২বার)
হাইয়া আলাল্ ফালাহ(২বার)
কাদকামাতিস সালাহ্(২বার)
আল্লাহু আকবার(২বার)
লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ(২বার)
সানাঃ (হাত বাধার পর(বুকের বা নাভীর উপর বাম হাতের উপর ডান হাত) এই দোয়া পড়তে হয়)
উচ্চারণ : সুবহা-না কাল্লা-হুম্মা ওয়া বিহাম্ দিকা ওয়াতাবারঅ কাস্ মুকা ওয়াতা’ আ-লা জাদ্দুকা ওয়া লা-ইলা-হা গাইরুক।
অর্থ-হে আল্লাহ ! আমি আপনার পবিত্রতা ঘোষণা করছি এবং আপনার মহিমা বর্ণনা করছি। আপনার নাম বরকতময়, আপনার মাহাত্ম্য সর্বোচ্চ এবং আপনি ভিন্ন কেহই ইবাদতের যোগ্য নয় ।
নবী (সাঃ) নামায অবস্থায় মাথা নীচু করে যমীনের দিকে দৃষ্টি রাখতেন। তিনি আকাশের দিকে দৃষ্টি উঠাতে নিষেধ করেছেন।
তাআ’উজঃ
উচ্চারণ- আউযুবিল্লা-হি মিনাশ শাইত্বা-নির রাজীম ।
অর্থ-বিতশয়তান থেকে আল্লাহর কাছে আশ্রয় চাচ্ছি ।
তাসমিয়াঃ বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম ।
অর্থ-পরম দাতা ও দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি ।
এরপর সূরা ফাতিহা পাঠ করতে হয়,
আয়াত নং ১ الْحَمْدُ للّهِ رَبِّ الْعَالَمِينَ
বাংলা উচ্চারন আলহামদুলিল্লাহি রাব্লিল আ’লামিন
বাংলা অনুবাদ সমস্ত প্রসংশা একমাত্র আল্লাহ তা’য়ালার জন্য ।

আয়াত নং ২ الرَّحْمـنِ الرَّحِيمِ
বাংলা উচ্চারন আর রাহহমানির রাহিম
বাংলা অনুবাদ যিনি পরম করুনাময় ও মহান দয়ালু

আয়াত নং ৩ مَالِكِ يَوْمِ الدِّينِ
বাংলা উচ্চারন মালিকি ইয়াওমিদ্দিন
বাংলা অনুবাদ যিনি বিচার দিনের মালিক

আয়াত নং ৪ إِيَّاكَ نَعْبُدُ وإِيَّاكَ نَسْتَعِينُ
বাংলা উচ্চারন ইয়্যা কানা’বুদু ওয়াইয়্যা-কানাসতাঈন
বাংলা অনুবাদ আমরা যেন তোমারই এবাদত করি এবং তোমারই সাহায্য প্রার্থনা করি

আয়াত নং ৫ اهدِنَـا الصِّرَاطَ المُستَقِيمَ
বাংলা উচ্চারন ইহদিনাস সিরাত্বাল মুস্তাক্বিম
বাংলা অনুবাদ তুমি আমাদের সরল এ সহজ পথ দেখাও

আয়াত নং ৬ صِرَاطَ الَّذِينَ أَنعَمتَ عَلَيهِمْ
বাংলা উচ্চারন সিরাত্বাল্লাযিনা আন আ’মতা আলাইহিম
বাংলা অনুবাদ তাদের পথ যাদের তুমি অনুগ্রহ দান করেছ ।

আয়াত নং ৭ غَيرِ المَغضُوبِ عَلَيهِمْ وَلا الضَّالِّينَ َ

বাংলা উচ্চারন গাইরিল মাগদুবে আলাইহিম ওয়ালাদ্বদ্বো-য়াল্লিন
বাংলা অনুবাদ তাদের পথ নয়,(যারা) অভিশপ্ত এ পথহারা হয়েছে।
সূরা ফাতিহা তিলাওয়াতের পর পবিত্র কোরআনের যে কোন জায়গা থেকে তিলাওয়াত বা অপর একটি সূরা পাঠ করতে হয়।

মুক্তাদীর জন্য সূরা ফাতিহা পাঠ জরুরীঃ
ইমামের পিছনে মুক্তাদীও সূরা ফাতিহা পাঠ করবে। কারণ রাসূল (সাঃ) এর বাণী “যে ব্যক্তি সূরা ফাতিহা পাঠ করবেনা, তার নামায হবেনা।” (বুখারী-মুসলিম) এ কথাটি ইমাম, মুক্তাদী এবং একাকী নামায আদায়কারী সবাইকে অন-র্ভুক্ত করে। কাজেই সকলকেই সূরা ফাতিহা পাঠ করতে হবে। যেসমস- নামাযে ইমাম স্বরবে কিরাত পাঠ করেন, সে সমস- নামাযে মুক্তাদী ইমামের কিরাত শ্রবন করবে এবং নীরবে শুধুমাত্র সূরা ফাতিহা পাঠ করবে। অন্যান্য সূরা পাঠ থেকে বিরত থাকবে।
সুন্নীরা চুপকে চুপকে আর শিয়ারা জোরে আমিন বলতঃ।
হাদীছে আছে, রাসূল (সাঃ) বলেছেন, তোমরা আমীন বল, আল্লাহ তোমাদের দু‘আ কবুল করবেন। (মুসলিম)

রুকূ করাঃ
কিরা‘আত পাঠ শেষে রাসূল (সাঃ) আল্লাহ আকবার (اَللَّهُ اَكْبَرُ) বলে রুকূতে যেতন। (বুখারী)
রুকুতে স্বীয় হাঁটুদ্বয়ের উপর হস-দ্বয় রাখতেন এবং তিনি এজন্য নির্দেশ দিতেন। (বুখারী) তিনি কনুই দু‘টোকে পাঁজর দেশ থেকে দূরে রাখতেন। তিনি রুকু অবস্থায় পিঠকে সমান করে প্রসারিত করতেন। এমন সমান করতেন যে, তাতে পানি ঢেলে দিলেও তা যেন সি'র থাকে। (বুখারী, তিরমিজী, তাবরানী) তিনি নামাযে ত্রুটিকারীকে বলেছিলেন, অতঃপর যখন রুকূ করবে, তখন স্বীয় হস্তদ্বয় হাটুদ্বয়ের উপর রাখবে এবং পিঠকে প্রসারিত করে সি'রভাবে রুকূ করবে। (আহমাদ) তিনি পিঠ অপেক্ষা মাথা উঁচু বা নীচু রাখতেন না। বরং তা মাঝামাঝি থাকত। (বুখারী, আবু দাউদ)

রুকুতে রাসূল (সাঃ) এই দূ‘আ পাঠ করতেন سُبْحَانَ رَبِّيَ الْعَظِيْمِ)) উচ্চারণঃ ‘সুবহানা রাব্বীয়াল আযীম’। অর্থঃ আমি মহান প্রতিপালকের পবিত্রতা ঘোষণা করছি। এই দূ‘আটি তিনি তিনবার বলতেন। কখনও তিনবারের বেশীও পাঠ করতেন। (আহমাদ)

অতঃপর রাসূল (সাঃ) রুকূ হতে সোজা হয়ে দাঁড়াতেন। তিনি এই দূ‘আ বলতে বলতে রুকূ হতে মাথা উঠাতেন, ( سَمِعَ اللَّهُ لِمَنْ حَمِدَهُ) উচ্চারণঃ সামিআল্লাহু লিমান হামিদাহ। অর্থঃ যে ব্যক্তি আল্লাহর প্রশংসা করে, আল্লাহ তার কথা শ্রবন করেন। (বুখারী-মুসলিম) তিনি যখন রুকূ হতে মাথা উঠাতেন, তখন এমনভাবে সোজা হয়ে দাঁড়াতেন যে, মেরুদন্ডের হাড়গুলো স্ব-স্ব স্থানে ফিরে যেত। অতঃপর তিনি দাঁড়ানো অবস্থায় বলতেন, رَبَّنَا لَكَ الْحَمْدُ)) উচ্চারণঃ রাব্বানা লাকাল হাম্ দ। হে আমার প্রতিপালক! সকল প্রশংসা তোমার জন্য। মুক্তাদী ও ইমাম উভয়েই দূ‘আ দু‘টি পাঠ করবে।


সাজদাহ করাঃ
অতঃপর রাসূল (সাঃ) আল্লাহ আকবার বলে সাজদায় যেতেন। তিনি বলেছেন, কারও নামায ততক্ষন পর্যন- পূর্ণ হবেনা, যতক্ষন না সে সামিআল্লাহ হুলিমান হামিদাহ বলে সোজা হয়ে দাঁড়াবে অথঃপর আল্লাহ আকবার বলবে, অতঃপর এমনভাবে সাজদাহ করবে যে, তার শরীরের জোড়াগুলো সুসি'রভাবে অবস্থান নেয়। সাজদাহ অবস্থায় পার্শ্বদ্বয় থেকে হস'দ্বয় দূরে রাখতেন। (বুখারী, আবু দাউদ)
তিনি মাটিতে হাটু রাখার পূর্বে হস-দ্বয় রাখতেন। (ইবনু খুযাইমাহ)
নবী (সাঃ) রুকূ-সাজদাহ পূর্ণাঙ্গরূপে ধীরসি'রভাবে আদায় করার নির্দেশ দিতেন।
সাজদার দূ‘আঃ সাজদাহ অবস্থায় তিনি এই দূ‘আ পাঠ করতেন, (سُبْحَانَ رَبِّيَ الاَعْلَى) উচ্চারণঃ “সুবহানা রাব্বীয়াল আ‘লা”। অর্থঃ ‘আমি আমার সুউচ্চ প্রতিপালকের পবিত্রতা বর্ণনা করছি’। তিনি এই দূ‘আটি তিনবার পাঠ করতেন। অতঃপর নবী (সাঃ) আল্লাহ আকবার বলে সাজদাহ থেকে মাথা উঠাতেন। তিনি বলেছেন, কোন ব্যক্তির নামায ততক্ষন পর্যন- পূর্ণ হবেনা, যতক্ষন না এমনভাবে সাজদাহ করবে যে, তার দেহের প্রত্যেকটি জোড়া সুসি'রভাবে অবস্থান নেয়।

দুই সাজদার মাঝখানে বসাঃ প্রথম সাজদাহ ও সাজদার তাসবীহ পাঠ করার পর ‘আল্লাহ আকবার’ বলে স্বীয় মস-ক উত্তলন করতেন। দুই সাজদার মাঝখানে ধীরসি'রতা অবলম্ভন করা ওয়াজিব। নবী (সাঃ) দুই সাজদার মধ্যবতী অবস'ায় এমনভাবে সি'রতা অবলম্ভন করতেন, যার ফলে প্রত্যেক হাড় স্ব স্ব স'ানে ফিরে যেত। (আবু দাউদ)
দুই সাজদার মাঝখানে দূ‘আঃ দুই সাজদার মধ্যখানে নবী (সাঃ) এই দূ‘আ পাঠ করতেন,(اَللَّهُمَّ اغْفِرْلِىْ وَ ارْحَمْنِى وَ اهْدِنِىْ وَ عَافِنِىْ وارْزُقْنِىْ)

উচ্চারণঃ ‘আল্লাহু ম্মাগ ফিরলী ওয়ার হামনি ওয়ার যুক্কনী’

অর্থঃ “হে আল্লাহ! তুমি আমাকে ক্ষমা কর, দয়া কর, হিদায়াত দান কর, মর্যাদা বৃদ্ধি কর এবং জীবিকা দান কর”।
এই দূ‘আ পাঠ করে নবী (সাঃ) আল্লাহ আকবার বলে দ্বিতীয় সাজদায় যেতেন এবং প্রথম সাজদার মতই দ্বিতীয় সাজদায় তাসবীহ পাঠ করতেন। অতঃপর আল্লাহ আকবার বলে সাজদাহ থেকে মাথা উঠাতেন এবং দ্বিতীয় রাকা‘আতের জন্য দাঁড়ানোর পূর্বে বাম পায়ের উপর সোজা হয়ে বসতেন। এবং প্রত্যেক হাড় স্ব স্ব স্থানে ফেরত আসা পর্যন- বিরাম নিতেন। (বুখারী)
অতঃপর হাতে ভর দিয়ে দ্বিতীয় রাকা‘আতের জন্য দাঁড়াতেন এবং প্রথম রাকা‘আতের ন্যায় সবকিছু করতেন, তবে ছানা ও আউযুবিল্লাহ পাঠ করতেন না। একথা বিশেষভাবে স্মরণ রাখা দরকার যে, নামাযের প্রত্যেক রাকা‘আতে সূরা ফাতিহা পাঠ করা ফরজ।

তাশাহুদঃ
নবী (সাঃ) চার রাকা‘আত বা তিন রাকা‘আত বিশিষ্ট নামাযের প্রথম দুই রাকা‘আত শেষে তাশাহ্*হুদ পাঠের জন্য বসার সময় দুই সাজদার মাঝখানে বসার ন্যায় পা বিছিয়ে বসতেন। (বুখারী)

তাশাহহুদের উচ্চারণঃ
আত্তাহিয়াতু লিল্লাহি ওয়াস্ ছালাওয়াতু ওয়াত্বায়্যিবাতু আস্ সালামু আলাইকা আইয়্যুহান্ নাবিউ ওয়া রাহমাতুল্লাহি ওয়া বারাকাতুহু আস্-সালামু আলাইনা ওয়া আলা ইবাদিল্লাহিস্ সালিহীন আশহাদু আল্লাইলাহা ইল্লাল্লাহু ওয়া আশহাদু আন্না মুহাম্মাদান আব্দুহু ওয়া রাসূলুহু। এভাবে তাশাহ্হুদ পাঠ করার পর আল্লাহ আকবার বলে চার বা তিন রাকা‘আত বিশিষ্ট নামাযের বাকী নামাযের জন্য দাঁড়াবে। বাকী নামায পূর্বের নিয়মে সমাপ্ত করবে। তবে কিরা‘আতের ক্ষেত্রে শুধুমাত্র সূরা ফাতিহা পাঠ করবে।

অর্থঃ আমাদের সব সালাম শ্রদ্ধা, আমাদের সব নামাজ এবং সকল প্রকার পবিত্রতা একমাত্র আল্লাহর উদ্দেশ্যে। হে নবী, আপনার প্রতি সালাম, আপনার উপর আল্লাহর রহমত এবং অনুগ্রহ বর্ষিত হউক । আমাদের ও আল্লাহর নেক বান্দাদের উপর আল্লাহর রহমত এবং অনুগ্রহ বর্ষিত হউক। আমি সাক্ষ্য দিচ্ছি যে, আল্লাহ ছাড়া আর কেউ নেই, আমি আরও সাক্ষ্য দিচ্ছি যে, হযরত মুহাম্মদ (সঃ) আল্লাহর বান্দা এবং রাসুল ।

শেষ বৈঠক ও সালাম ফেরানোঃ
তাশাহ্হুদ পাঠের জন্য শেষ বৈঠকে বসা ওয়াজিব। তবে বসার সময় তাওয়াররুক করতে হবে। তাওয়াররুক অর্থ ডান পা খাঁড়া রেখে বাম পা ডান উরুর নীচ দিয়ে বের করে দিয়ে নিতম্বের উপর বসা। এভাবে বসে প্রথমে আত্যাহিয়াতু পাঠ শেষে রাসূল (সাঃ) এর উপর (দরূদ) সালাত পাঠ করতে হবে।

দরূদের উচ্চারণঃ আল্লাহুম্মা সাল্লি আলা মুহাম্মাদিও ওয়া আলা আলি মুহাম্মাদিন কামা সাল্লাইতা আলা ইব্রাহীমা ওয়া আলা আলি ইব্রাহীমা ইন্নাকা হামীদুম মাযীদ। আল্লাহুম্মা বারিক আলা মুহাম্মাদিও ওয়া আলা আলি মুহাম্মাদিন কামা বারাকতা আলা ইব্রাহীমা ওয়া আলা আলি ইব্রাহীমা ইন্নাকা হামীদুম মাযীদ ।

অর্থ-হে আল্লাহ, দয়া ও রহমত করুন হযরত মুহাম্মাদ (সঃ) এর প্রতি এবং তার বংশধরদের প্রতি, যেমন রহমত করেছেন হযরত ইব্রাহীম (আঃ) ও তার বংশধরদের উপর। নিশ্চই আপনি উত্তম গুনের আধার এবং মহান। হে আল্লাহ, বরকত নাযিল করুন হযরত মুহাম্মাদ (সঃ) এর প্রতি এবং তার বংশধরদের প্রতি, যেমন করেছেন হযরত ইব্রাহীম (আঃ) ও তার বংশধরদের উপর।নিশ্চই আপনি প্রশংসার যোগ্য ও সম্মানের অধিকারী ।

দরূদ পাঠ শেষে দূ‘আ মাসুরা পাঠ করতে হবে(বুখারী),
উচ্চারণঃ আল্লাহুম্মা ইন্নি জালামতু নাফসী জুলমান কাছীরাও ওয়ালা ইয়াগফিরুজ্ জুনুবা ইল্লা আনতা ফাগফিরলী মাগফিরাতাম মিন ইন্দিকা ওয়ারহামনী ইন্নাকা আনতাল গাফুরুর্ রাহীম।

অর্থ-হে মহান আল্লাহ, আমি আমার নিজের উপর অনেক জুলুম করেছি (অর্থাৎ অনেক গুনাহ/পাপ করেছি) কিন্তু আপনি ব্যতীত অন্য কেহ গুনাহ মাফ করতে পারে না। অতএব হে আল্লাহ অনুগ্রহ পূর্বক আমার গুনাহ মাফ করে দিন এবং আমার প্রতি সদয় হোন; নিশ্চই আপনি অতি ক্ষমাশীল ও দয়ালু ।

অতঃপর প্রথমে ডান দিকে পরে বাম দিকে সালাম ফিরিয়ে নামায সমাধা করবে।


বিতরের নামাজঃ
বিতরের নামাজের পর ৩য় রাকায়াতে সূরা ফাতিহা ও অন্য কিরআত পড়ার পর আল্লাহু আকবার বলে হাত তুলে আবার হাত বাঁধতে হয় এবং দোয়া কুনুত পড়তে হয় ।

উচ্চারণ-"আল্লাহুম্মা ইন্না নাসতা'ঈনুকা ওয়া নাসতাগ ফিরুকা, ওয়া নু'মিনু বিকা ওয়া না তা ওয়াক্কালু আলাইকা ওয়া নুছনি আলাইকাল খাইর। ওয়া নাশকুরুকা, ওয়ালা নাকফুরুকা, ওয়া নাখ লা, ওয়া নাত রুকু মাইয়্যাফ জুরুকা। আল্লাহুম্মা ইয়্যাকা না'বুদু ওয়ালাকা নুছাল্লি ওয়া নাসজুদু ওয়া ইলাইকা নাস'আ, ওয়া নাহফিদু ওয়া নারজু রাহমাতাকা ওয়া নাখ'শা আযাবাকা ইন্না আযা-বাকা বিল কুফফা-রি মুল হিক ।"

অর্থ-হে আল্লাহ, আমারা আপনার নিকট সাহায্য চাই। আপনার নিকট গোনাহের জন্য ক্ষমা প্রার্থনা করি। আপনার প্রতি ঈমান এনেছি। আমরা কেবল মাত্র আপনার উপরেই ভরসা করি। সর্বপ্রকার কল্যান ও মংগলের সাথে আপনার প্রশংসা করি। আমরা আপনার শোকর আদায় করি, আপনার দানকে অস্বীকার করি না।আপনার নিকট ওয়াদা করছি যা, আপনার অবাধ্য লোকদের সাথে আমরা কোন সম্পর্ক রাখব না-তাদেরকে পরিত্যাগ করব । হে আল্লাহ, আমরা আপনারই দাসত্ব স্বীকার করি। কেবলমাত্র আপনার জন্যই নামাজ পড়ি, কেবল আপনাকেই সিজদা করি এবং আমাদের সকল প্রকার চেষ্টা-সাধনা ও কষ্ট স্বীকার কেবল আপনার সন্ততুষ্টির জন্যই । আমরা কেবল আপনার ই রহমত লাভের আশা করি, আপনার আযাবকে আমাওরা ভয় করি। নিশ্চই আপনার আযাবে কেবল কাফেরগনই নিক্ষিপ্ত হবে

*নামাজশিক্ষা* *নামাজ* *সালাত*

ইমরান নাজির লিপু: একটি নতুন প্রশ্ন করেছে

 নামাজের আরকান ও আহকাম কয়টি ও কি কি জানতে চাই ?

উত্তর দাও (২ টি উত্তর আছে )

.
*নামাজ* *সালাত* *ইবাদত*
ছবি

ইমরান নাজির লিপু: ফটো পোস্ট করেছে

ইচ্ছে থাকলেই যেকোন পরিবেশে নামাজ আদায় করে নেয়া যায়।

ফরজ ইবাদত কেউ এড়িয়ে যাবেন না।

*নামাজ* *ইবাদত* *সালাত* *ইসলাম*

মারুফ: একটি বেশব্লগ লিখেছে

১ ) পেশাব ও পায়খানার চাপ রেখে স্বলাত আদায় করাঃ
রাসূলুল্লাহ্ (ﷺ) বলেন,
لَا صَلَاةَ بِحَضْرَةِ الطَّعَامِ وَلَا هُوَ يُدَافِعُهُ الْأَخْبَثَانِ
“খাদ্য উপস্থিত হলে এবং দুটি নাপাক বস্তুর (পেশাব-পায়খানা) চাপ থাকলে স্বলাত হবে না। (মুসলিম)
২ ) দ্রুততার সাথে দৌড়িয়ে স্বলাতে শরীক হওয়াঃ
অনেকে ইমামের সাথে তাকবীরে তাহরীমা পাওয়ার জন্য বা রুকু পাওয়ার জন্য দৌড়িয়ে বা দ্রুত হেঁটে স্বলাতে শামীল হয়। অথচ এটা নিষিদ্ধ।
রাসূলুল্লাহ্ (ﷺ) বলেন,
إِذَا أُقِيمَتِ الصَّلَاةُ فَلَا تَأْتُوهَا تَسْعَوْنَ وَأْتُوهَا تَمْشُونَ عَلَيْكُمُ السَّكِينَةُ فَمَا أَدْرَكْتُمْ فَصَلُّوا وَمَا فَاتَكُمْ فَأَتِمُّوا
“যখন স্বলাতের ইকামত প্রদান করা হয় তখন তাড়াহুড়া করে স্বলাতের দিকে আসবে না। বরং ধীর-স্থীর এবং প্রশান্তির সাথে হেঁটে হেঁটে আগমণ করবে। অতঃপর স্বলাতের যতটুকু অংশ পাবে তা আদায় করবে। আর যা ছুটে যাবে তা (ইমামের সালামের পর) পূর্ণ করে নিবে।” (বুখারী ও মুসলিম)
৩ ) জায়স্বলাত পাক করার জন্য দুয়া পাঠ করাঃ
ইন্নী ওয়াজ্জাহ্ তু … বলে জায়স্বলাত পাক করার জন্য দুয়া পাঠ করা হয়। এটি একটি বিদআত। কেননা জায়স্বলাত পবিত্র থাকলে দুয়া না পড়লেও স্বলাত হবে। আর জায়স্বলাত নাপাক থাকলে হাজার দুয়া পড়লেও তা পাক হবে না। তাছাড়া এঅবস্থায় দুয়া পাঠ করা নবীজীর স্বলাতের পদ্ধতীতে প্রমাণিত নয়।
৪ ) স্বলাত শুরুর সময় মুখে নিয়ত উচ্চারণ করাঃ
নাওয়াইতু আন… বলে মুখে নিয়ত উচ্চারণ করা আরেকটি বিদআত। কেননা এর পক্ষে কোন ছহীহ হাদীছ তো দূরের কথা কোন যঈফ হাদীছও পাওয়া যায় না। এ ভাবে নিয়ত না রাসূলুল্লাহ্ (ﷺ) না ছাহাবায়ে কেরাম না তাবেঈন না তাবে-তাবেঈন না চার ইমামের কেহ করেছেন। এটা কোন বুযুর্গ ব্যক্তির তৈরী করা প্রথা। তার সাথে ইসলামের কোন সম্পর্ক নেই। সুতরাং তা বর্জন করা প্রত্যেক ব্যক্তির জন্য ফরয। নিয়ত শব্দের অর্থ-ইচ্ছা বা সঙ্কল্প করা। আর তা অন্তরে হয় মুখে নয়। সুতরাং কোন কিছু করার জন্য অন্তরে ইচ্ছা বা সঙ্কল্প করলেই সে কাজের নিয়ত হয়ে গেল। তা মুখে বলতে হবে না।
৫ ) নাভীর নীচে হাত বাঁধাঃ
এক্ষেত্রে আহমাদ ও আবু দাঊদ বর্ণিত হাদীছটি দলীল হিসেবে পেশ করা হয়।
আলী (রাঃ) বলেন, সুন্নাত হচ্ছে স্বলাতে ডান হাতকে বাম হাতের উপর রেখে নাভীর নীচে রাখা। কিন্তু হাদীছটির সনদ দুর্বল, তাই উহা আমলযোগ্য নয়।
তার বিপরীতে ছহীহ হাদীছ হচ্ছে ডান হাতকে বাম হাতের উপর রেখে বুকের উপর রাখা। (হাদীছটি ওয়ায়েল বিন হুজর (রাঃ) এর বরাতে আবু দাঊদে বর্ণিত হয়েছে।)
*সালাত* *ইসলাম*

কুর'আনের আলো: শয়তানের একটা চালাকির কথা বলছি শুনুন… (Short Video) https://www.youtube.com/watch?v=Tk4BxvFBfqY

*সালাত* *নামাজ* *শয়তানেরচালাকি* *ইসলামিকভিডিও*

কুর'আনের আলো: https://www.youtube.com/watch?list=UU5sUkDFipH9YK99NAa864uw&v=Op2xXhtnVnQ

*নামাজ* *সালাত*

কুর'আনের আলো: একটি বেশব্লগ লিখেছে

আমি একজন মুসলিম অথচ আমি সালাত আদায় করতে পারছি না! আসলে দুটি আলাদা সমস্যায় দুই ধরনের উত্তর দেয়া হয়। প্রথম সমস্যা হল আমি দিনে পাঁচ বার সালাত আদায় করতে পারি না।আমি এটা পারছি না।
এখন, আমি আপনাকে বিশ্বাস করি না। যেই বলে আমি এটা পারছি না, আমি আপনাকে বিশ্বাস করি না। কেন জানেন? কারন আমি আল্লাহকে বিশ্বাস করি। আর আমি বলিনি আমি আল্লাহকে স্বীকার করি, আমি বলেছি আমি আল্লাহকে বিশ্বাস করি। এর মধ্যে পার্থক্য আছে, তাই না?
আমি আল্লাহকে স্বীকার করি মানে আমি আল্লাহের অস্তিত্বে বিশ্বাস করি।কিন্তু যখন আমি বলি, আমি আল্লাহকে বিশ্বাস করি, তার অর্থ আমি তার কথাগুলো বিশ্বাস করি।তিনি বলেন…আল্লাহ্‌ কখনোই কারও উপর সামর্থের অতিরিক্ত বোঝা চাপিয়ে দেন না।এটাই আল্লাহ্‌ বলেছেন ।
তিনি বলেছেন তিনি কারও উপরে এমন দায়িত্ব চাপিয়ে দেন না যতক্ষন না তারা সেই দায়িত্ব পালনের সক্ষমতা অর্জন করে। আপনি বলছেন, আপনি এমন দায়িত্ব পালনে অক্ষম যা আল্লাহ্‌ আপনাকে দিয়েছেন। তাই নয় কি? আপনি বলছেন, আমি পাঁচ ওয়াক্ত সালাত আদায় করতে পারছি না। এটা মাত্রাতিরিক্ত!
আর আল্লাহ্‌ বলছেন আপনি পারবেন।সুতরাং আমাকে বেছে নিতে হবে, আমি আপনাকে বিশ্বাস করব না আল্লাহকে। এবং সম্ভবত যদি আপনি তা বুঝতে না পারেন তাহলে নিজের সাথে মিথ্যাচার করছেন।

 সম্ভবত আপনি এমন ভাবছেন আপনার আলসেমীর কারনে, নিজের ইচ্ছার অভাবের কারনে, আপনি দিনে ৫ ওয়াক্ত সালাত আদায় করতে চান না।আপনাকে পারতে হবে… আমি আপনাকে বুঝতে পারছি না, আমি জানি না সমস্যাটা কি? কিংবা সমস্যাটা হল, আপনি অমুসলিমদের সামনে সালাত আদায়ে লজ্জা পাচ্ছেন।

মানুষ কাজের ফাঁকে ১৫ মিনিট ধূমপানের বিরতি নিতে পারে, তাই না? তারা বিরতি নিয়ে বাইরে যেতে পারছে, যা খুশি করতে পারছে আর আপনি দিনে ৫ বার সালাত আদায় করতে পারছেন না?

সুবহানাল্লাহ!পৃথিবীর এই প্রান্তে, আমি নিউ ইয়র্ক সিটিতে কাজ করি, আমি দেখি মুসলিমরা সব জায়গাতেই সালাত পড়ছে।রাস্তার মাঝে, ফুটপাতের উপরেও সে সালাত পড়ছে কারন তখন সালাতের সময়। কিংবা আপনি বিশ্ববিদ্যালয়ের লাইব্রেরীর দরজা খুলেও দেখবেন সেখানে ৩জনে মিলে সালাত আদায় করছে।মুসলিমরা সালাত আদায় করে, সময় হলেই তারা সালাত পড়ে নেয়।এটাই প্রথম ব্যাপার, আল্লাহ্‌ বলেছেন আপনি সক্ষম। আর যদি তাই হয়, আল্লাহ্‌ আসলেই আপনাকে এই দায়িত্ব দিয়েছেন, তাহলে আপনি পারবেন।

সুতরাং নিজেকে বোঝান, আল্লাহর উপর ভরসা করেন, তিনি আপনার জন্য এটা সহজ করে দিবেন। দ্বিতীয় প্রশ্ন হল, তিনি কি আসলে কিছু মনে করেন? আমার সালাত আদায় করা না করায় কি তার কিছু যায়-আসে?এখন এই প্রশ্নটা মূলতঃ, তাঁর কি আমার সালাতের কোন প্রয়োজন আছে?আপনি ভুলে যাচ্ছেন যে সালাত আল্লাহর প্রয়োজনে নয়। এটা আপনার জন্য, আল্লাহর প্রয়োজনে নয়।যদি পৃথিবীর সমস্ত মানুষ তাদের জীবনভর সালাত পড়ে, এটা আল্লাহর সম্পদ বিন্দুমাত্র বৃদ্ধি করে দিবে না। এটা তার রাজ্যও বাড়িয়ে দিবে না কারন সমস্ত রাজত্বই তাঁর।আর কেউ যদি আর কখনো তাঁর নাম নাও নেয়, তাঁর রাজত্ব, রাজ্য বা মর্যাদার কোনরকম খর্বও হবে না।
তাঁর আমাদের প্রয়োজন নেই, আমাদেরই তাকে দরকার, আমাদেরই তাকে দরকার।সুতরাং প্রশ্ন হল, আপনার কি মনে হয় আপনার প্রার্থনা করা দরকার? আপনার কি মনে হচ্ছে আপনার জীবনে এটা প্রয়োজনীয়?যদি না হয়, আপনার যদি আল্লাহর সাহায্য প্রার্থনার, আল্লাহর দিকে যাওয়ার এবং তাঁর আদেশ মানার প্রয়োজন না পড়ে, তাহলে আপনার ঈমান মারাত্মক সংকটের মুখে। (কান্না৩)(কান্না৩)

এমন আরো আর্টিকেল পড়তে বা ইসলামিক কনটেন্টি পেতে ভিজিট http://www.quraneralo.com/i-am-a-muslim-but-i-cant-pray-salah/


*নামাজ* *সালাত*

হাফিজ উল্লাহ: একটি বেশটুন পোস্ট করেছে

৫/৫
কোন ছাত্র যদি দুনিয়ার সাফল্য আর আখিরাতের সাফল্য এর মাঝে পার্থক্যটুকু বুঝতে পারত তাহলে তার এ প্লাস মিসের আফসোস কখনও এক ওয়াক্ত সলাত মিসের আফসোসকে ছাড়িয়ে যেত না!
*সালাত* *আফসোস*

গাজী আজিজ: একটি নতুন প্রশ্ন করেছে

 পাঁচ ওয়াক্ত নামাজে কত ফরজ ?

উত্তর দাও (১৭ টি উত্তর আছে )

.
*নামাজ* *ফরজ* *ইসলাম* *সালাত*

বেশতো সাইট টিতে কোনো কন্টেন্ট-এর জন্য বেশতো কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

কনটেন্ট -এর পুরো দায় যে ব্যক্তি কন্টেন্ট লিখেছে তার।

...বিস্তারিত

QA

★ ঘুরে আসুন প্রশ্নোত্তরের দুনিয়ায় ★