সেমিফাইনাল

সেমিফাইনাল নিয়ে কি ভাবছো?

দীপ্তি: একটি নতুন প্রশ্ন করেছে

 বাংলাদেশ-ভারত সেমিফাইনাল নিয়ে আপনার প্রেডিকশন কি?

উত্তর দাও (২ টি উত্তর আছে )

.
*বাংলাদেশ* *ভারত* *সেমিফাইনাল*

আমানুল্লাহ সরকার: একটি নতুন প্রশ্ন করেছে

 সেমিফাইনালে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ কে হতে পারে?

উত্তর দাও (১ টি উত্তর আছে )

*সেমিফাইনাল* *আইসিসিচ্যাম্পিয়নট্রফি* *বাংলাদেশ* *টিমটাইগার*

মোঃ হাবিবুর রহমান (হাবীব): একটি নতুন প্রশ্ন করেছে

 ওয়ার্ল্ড কাপ টি-টুয়েনটি ২০১৬ সালে বাংলাদেশ টিম কতদূর পর্যণ্ত পৌছাতে পারবে ? আপনি কি আশা রাখেন ? ১) সেমিফাইনাল । ২) ফাইলান । এবং ৩) চাম্পিয়ন ।

উত্তর দাও (১ টি উত্তর আছে )

*ওয়ার্ল্ডকাপ* *টি-টুয়েনটি* *২০১৬* *সাল* *বাংলাদেশটিম* *কতদূর* *পর্যণ্ত* *পৌছাতে* *আশা* *সেমিফাইনাল* *ফাইলান* *চাম্পিয়ন*

খেলার খবর: একটি বেশব্লগ লিখেছে

খেলার শেষ পর্যন্ত টান-টান উত্তেজনা। কারা খেলবে এবারের বিশ্বকাপের ফাইনাল হতাশায় দুই দলের খেলোয়াড় ও সমর্থকরা। নিউজিল্যান্ডের দুই বলে দরকার ছিল ৫ রান কিন্তু একবল বাঁকী থাকতেই ছক্কা হাকিয়ে স্বপ্নের ফাইনালে পৌঁছে গেল কিউইরা। এটিই নিউজিল্যান্ড দলের ১ম ফাইনাল এর আগে তারা বেশ কয়েকবার সেমিফাইনাল খেললেও একবারও ফাইনালে উঠতে পারেনি। আজকের এই জয়ের মাধ্যমে তাদের দীর্ঘদিনের স্বপ্ন পূরণ হলো। বেশতোর পক্ষ থেকে  নিউজিল্যান্ড দলের জন্য রইলো অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা।

সেমিফাইনালের তালা ভেঙ্গে নিজেদের বিশ্বকাপ ইতিহাসে প্রথমবারের মতো ফাইনালে উঠেছে নিউজিল্যান্ড। ১১তম আসরে প্রথম সেমিফাইনালের বৃষ্টিবিঘ্নিত উত্তেজনাপূর্ণ ম্যাচে দক্ষিণ আফ্রিকাকে ৪ উইকেটে হারিয়ে স্বপ্নের ফাইনালে পা রেখেছেন কিউইরা। তাও আবার ৪৩ ওভারে ২৯৮ রানের লক্ষ্য তাড়া করে! অপরদিকে চতুর্থবারের মতো সেমিফাইনালে উঠেও বিশ্বকাপের ফাইনাল খেলার স্বপ্ন অধরাই রয়ে গেল দক্ষিণ আফ্রিকার।

মঙ্গলবার অকল্যান্ডের ইডেন পার্কে টস জিতে আগে ব্যাট করে বৃষ্টির কারণে ৪৩ ওভারে নেমে আসা ম্যাচে ৫ উইকেটে ২৮১ রান সংগ্রহ করে দক্ষিণ আফ্রিকা। ডাকওয়ার্থ ও লুইস পদ্ধতিতে ৪৩ ওভারে নিউজিল্যান্ডের লক্ষ্য দাঁড়ায় ২৯৮ রান। তবে ব্রেন্ডন ম্যাককালাম, কোরি অ্যান্ডারসন ও গ্র্যান্ট ইলিয়টের দারুণ ফিফটিতে ৪ উইকেট ও ১ বল হাতে রেখে জয় তুলে নেয় নিউজিল্যান্ড।

দ্বিতীয় সেমিফাইনালে ভারত-অস্ট্রেলিয়া ম্যাচের জয়ী দলের বিপক্ষে আগামী ২৯ মার্চ মেলবোর্নে ফাইনাল খেলবে ব্রেন্ডন ম্যাককালামের দল।

লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে নিউজিল্যান্ডকে ঝোড়ো সূচনা এনে দেন ব্রেন্ডন ম্যাককালাম। প্রকৃতির বৃষ্টিতে ভেজা ইডেন পার্কে চার-ছক্কার বৃষ্টি নামান কিউই অধিনায়ক। মাত্র ২২ বলে ঝোড়ো ফিফটি তুলে নেন তিনি। তবে দলীয় ৭১ রানে মরনে মরকেলের বলে বিদায় নেন ম্যাককালাম। ডেল স্টেইনের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন তিনি। ২৬ বলে ৮ চার ও ৪ ছক্কায় ৫৯ রান করেন ম্যাককালাম।

এরপর স্কোরবোর্ডে আর ১০ রান জমা হতেই বিদায় নেন কেন উইলিয়ামসন (৬)। ওই মরকেলের বলে বোল্ড হন তিনি। তৃতীয় উইকেটে প্রতিরোধ গড়েন মার্টিন গাপটিল ও রস টেলর। তবে দলীয় ১২৮ রানে ইমরান তাহিরের ওভারে রানআউটের শিকার হয়ে ফেরেন গাপটিল। ৩৮ বল খেলে তার সংগ্রহ ৩৪ রান। দলীয় ১৪৯ রানে রস টেলরও ফিরে যান। জেপি ডুমিনির বলে কুইন্টন ডি ককের গ্লাভসবন্দি হন ৩০ রান করা টেলর।

১৪৯ রানে ৪ উইকেট হারানোর পর দলের হাল ধরেন গ্র্যান্ট ইলিয়ট ও কোরি অ্যান্ডারসন। পঞ্চম উইকেটে ফিফটি রানের জুটি গড়ে দলকে এগিয়ে নিতে থাকেন দুজন। দলীয় ২০৪ ও ব্যক্তিগত ৩৪ রানে জীবন ফিরে পান অ্যান্ডারসন। সহজ রান আউট মিস করেন এবি ডি ভিলিয়ার্স। স্টেইনের বলে ননস্ট্রাইকার প্রান্ত থেকে বেরিয়ে গিয়েছিলেন অ্যান্ডারসন। তিনি ক্রিজে ফেরার আগেই বল পেয়ে যান ডি ভিলিয়ার্স। কিন্তু বলের আগে হাত দিয়ে স্ট্যাম্প ফেলে দেন প্রোটিয়া অধিনায়ক। এরপর অ্যান্ডারসন-ইলিয়ট দুজনই ফিফটি তুলে নেন।

শেষ ৪২ বলে নিউজিল্যান্ডের জয়ের জন্য প্রয়োজন পড়ে ৪৭ রান। তবে ইনিংসের ৩৮তম ওভারে মরকেলের শেষ বলে ফিরে যান অ্যান্ডারসন। ৫৭ বলে ৬ চার ও ২ ছক্কায় ৫৮ রান করেন তিনি। দলীয় ২৬৯ রানে সাজঘরে ফেরেন লুক রনকি। তখন নিউজিল্যান্ডের জয়ের জন্য প্রয়োজন পড়ে ১৭ বলে ২৯ রান।

এরপর নিউজিল্যান্ডের জয়ের জন্য শেষ ৬ বলে প্রয়োজন পড়ে ১২ রান। স্টেইনের করা ওভারের তৃতীয় বলে ড্যানিয়েল ভেট্রোরি চার মেরে এবং পঞ্চম বলে ইলিয়ট ছক্কা হাঁকিয়ে নিউজিল্যান্ডকে রুদ্ধশ্বাস জয় এনে দেন। ৭৩ বলে ৭ চার ও ৩ ছক্কায় ৮৪ রানে অপরাজিত থাকেন ইলিয়ট। ম্যাচসেরার পুরস্কারও জেতেন তিনি।

এর আগে টস জিতে আগে ব্যাট করে বৃষ্টির কারণে ৪৩ ওভারে নেমে আসা ম্যাচে ৫ উইকেটে ২৮১ রান সংগ্রহ করে দক্ষিণ আফ্রিকা। ডাকওয়ার্থ ও লুইস পদ্ধতিতে ৪৩ ওভারে নিউজিল্যান্ডের লক্ষ্য দাঁড়ায় ২৯৮ রান। 

দক্ষিণ আফ্রিকার পক্ষে সর্বোচ্চ ৮২ রান করেন ফাফ ডু প্লেসিস। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৬৫ রানে অপরাজিত থাকেন এবি ডি ভিলিয়ার্স।

টস জিতে ব্যাট করতে নামা প্রোটিয়াদের শুরুতেই বিপদে ফেলে দেন নিউজিল্যান্ডের পেসার ট্রেন্ট বোল্ট। ইনিংসের চতুর্থ ওভারে দলীয় ২১ রানে ওপেনার হাশিম আমলাকে বোল্ড করে সাজঘরে ফেরান বোল্ট। ১৪ বল মোকাবিলা করে ২ চারে ১০ রান করেন আমলা। ইনিংসের চতুর্থ ওভারে প্রোটিয়া ‍শিবিরে আবার অাঘাত হানেন বোল্ট। এবার আরেক ওপেনার কুইন্টন ডি কককে টিম সাউদির ক্যাচে পরিণত করেন এই কিউই পেসার। ডি ককের সংগ্রহ ১৪ রান।

ডি ককের উইকেট নিয়ে রেকর্ড বুকে নাম লেখান বোল্ট। বিশ্বকাপের এক আসরে নিউজিল্যান্ডের হয়ে সর্বোচ্চ শিকারের রেকর্ড করেন তিনি। ডি ককের উইকেট নিয়ে অাসরে বোল্টের উইকেটসংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২১টি। এর আগে ১৯৯৯ বিশ্বকাপে নিউজিল্যান্ডের হয়ে ২০ উইকেট নিয়েছিলেন জিওফ অ্যালট।

৩১ রানেই ২ উইকেট হারানোর পর তৃতীয় উইকেটে প্রতিরোধ গড়েন ফাফ ডু প্লেসিস ও রিলে রুশো। ফিফটি রানের জুটি গড়ে দলকে ভালোই এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছিলেন দুজন। তবে রুশোকে ফিরিয়ে ৮৩ রানের জুটি ভাঙেন কোরি অ্যান্ডারসন। রুশোকে মার্টিন গাপটিলের ক্যাচে পরিণত করেন তিনি। ৫৩ বলে ২ চার ও এক ছক্কায় রুশোর সংগ্রহ ৩৯ রান।

চতুর্থ উইকেটে এবি ডি ভিলিয়ার্সকে সঙ্গে নিয়ে বড় জুটি গড়ে তোলেন ফাফ ডু প্লেসিস। দুজনই ফিফটি তুলে নেন। ৩৮ ওভার শেষে দলের সংগ্রহ যখন ৩ উইকেটে ২১৬ রান তখন বৃষ্টি হানা দেয় অকল্যান্ডে। বৃষ্টির কারণে ২ ঘন্টা খেলা বন্ধ থাকায় ম্যাচের দৈর্ঘ্য কমে ৪৩ ওভারে নেমে আসে।

খেলা আবার শুরু হলে বিদায় নেন ডু প্লেসিস। কোরি অ্যান্ডারসনের বলে উইকেটরক্ষক লুক রনকির গ্লাভসবন্দি হন তিনি। ১০৭ বলে ৭ চার ও এক ছক্কায় ৮২ রান করেন ডু প্লেসিস। ডি ভিলিয়ার্স-ডু প্লেসিস জুটিতে আসে ১০৩ রান। এরপর দলীয় ২৭২ রানে ডেভিড মিলার বিদায় নেন ব্যক্তিগত ৪৯ রান করে। তার মাত্র ১৮ বলের ঝোড়ো ইনিংসে ছিল ৬টি চার ও ৩টি ছক্কার মার। শেষ পর্যন্ত অপরাজিত থাকেন ডি ভিলিয়ার্স (৬৫) ও জেপি ডুমিনি (৮)।


*ক্রিকেটবিশ্বকাপ* *বিশ্বকাপক্রিকেট* *বিশ্বকাপ২০১৫* *ফাইনাল* *সেমিফাইনাল* *নিউজিল্যান্ড*
ছবি

আমানুল্লাহ সরকার: ফটো পোস্ট করেছে

৪/৫

নিউজিল্যান্ড ১ম বারের মত বিশ্বকাপের ফাইনালে

দক্ষিণ আফ্রিকাকে ৪ উইকেটে হারিয়ে ১১তম বিশ্বকাপে প্রথম বারের মত ফাইনাল খেলার গৌরব অর্জন করলো নিউজিল্যান্ড।

*ক্রিকেটবিশ্বকাপ* *বিশ্বকাপক্রিকেট* *বিশ্বকাপ২০১৫* *সেমিফাইনাল* *ফাইনাল*

খেলার খবর: একটি বেশব্লগ লিখেছে

বিশ্বকাপের প্রথম সেমিফাইনালে বৃষ্টি বিঘ্নিত ম্যাচে ডার্ক ওয়ার্থ লুইস পদ্ধতিতে দক্ষিণ আফ্রিকার দেওয়া ২৯৮ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করছে নিউজিল্যান্ড। শুধুমাত্র ২৯৮ রানের মাইলফলক পাড়ি দিলেই ফাইনালে পৌঁছাতে পারবে নিউজিল্যান্ড না পারলে বিদায় নিতে হবে স্বাগতিকদের আর সেই সুযোগে ফাইনালে চলে যাবে দক্ষিণ আফ্রিকা। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত ৭ ওভার শেষে ১ উইকেট হারিয়ে কিউইদের সংগ্রহ ৭৭ রান। ম্যাককালাম ২৬ বল খেলে  ৫৯ রান করে আউট হন। আর গাপটিল ১০ রান ও উইলিয়ামসন ২ রান নিয়ে ব্যাট করছে।

এর আগে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে ২৮১ রান সংগ্রহ করেছে দক্ষিণ আফ্রিকা। বৃষ্টির কারণে ডার্ক লুইস পদ্ধতিতে নিউজিল্যান্ডের লক্ষ্য দাঁড়ায় ২৯৮। ডি ভিলিয়ার্স ৬৫ আর ডুমিনি ৮ রান নিয়ে অপরাজিত থাকেন। বৃষ্টির কারণে ম্যাচটি ৪৩ ওভারে নেমে এসেছে।

ফাইনালে যাওয়ার মিশন নিয়ে ব্যাট করতে নেমে শুরু থেকেই দেখে শুনে খেলতে থাকে দুই প্রোটিয়া ওপেনার হাশিম আমলা ও ডি কক। তবে দলীয় ২১ ও ব্যাক্তিগত ১০ রান করে বোল্ড হয়ে মাঠ ছাড়েন অভিজ্ঞ আমলা।

এর কিছুক্ষণ পরই আরেক ওপেনার ডি কক ১৪ রান করে আমলাকে অনুসরণ করলে কিছুটা বিপদে পড়ে প্রোটিয়ারা। এরপর রুশোকে সাথে নিয়ে ৫৫ রানের জুটি গড়ে দলের প্রাথমিক বিপর্যয় কাটিয়ে তোলেন ডু প্লেসিস। অ্যান্ডারসনের বলে আউট হওয়ার আগে রুশো করেন ৩৯ রান।

এরপর ডু প্লেসিসকে সাথে নিয়ে ১০৩ রানের জুটি গড়ে দলকে বড় সংগ্রহের দিকে নিয়ে যায় ডি ভিলিয়ার্স। অ্যান্ডারসনের বলে আউট হওয়ার আগে ডু প্লেসিস করেন ৮২ রান। শেষ দিকে মিলার ১৮ বলে ৪৯ রান করলে  রানের সংগ্রহ পায় প্রোটিয়ারা। নিউজিল্যান্ডের পক্ষে অ্যান্ডাসন ৩ আর বোল্ট নেন ২ উইকেট।

*ক্রিকেটবিশ্বকাপ* *বিশ্বকাপক্রিকেট* *বিশ্বকাপ২০১৫* *সেমিফাইনাল*

খেলার খবর: একটি বেশব্লগ লিখেছে

১১তম বিশ্বকাপ আসরের প্রথম সেমিফাইনালে মুখোমুখি হয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকা ও নিউজিল্যান্ড। মঙ্গলবার অকল্যান্ডের ইডেন পার্কে টস জিতে ব্যাটিংয়ে নামে দক্ষিণ আফ্রিকা। কিন্তু বৃষ্টির কারণে খেলা আপাতত বন্ধ আছে। বৃষ্টির আগে পর্যন্ত ৩৮ ওভার শেষে দক্ষিণ আফ্রিকার সংগ্রহ ৩ উইকেটে ২১৬ রান। ফিফটি তুলে নিয়ে ফাফ ডু প্লেসিস ৮২ ও এবি ডি ভিলিয়ার্স ৬০ রানে অপরাজিত আছেন।

টস জিতে ব্যাট করতে নামা প্রোটিয়াদের শুরুতেই বিপদে ফেলে দেন নিউজিল্যান্ডের পেসার ট্রেন্ট বোল্ট। ইনিংসের চতুর্থ ওভারে দলীয় ২১ রানে ওপেনার হাশিম আমলাকে বোল্ড করে সাজঘরে ফেরান বোল্ট। ১৪ বল মোকাবিলা করে ২ চারে ১০ রান করেন আমলা। ইনিংসের চতুর্থ ওভারে প্রোটিয়া ‍শিবিরে আবার অাঘাত হানেন বোল্ট। এবার আরেক ওপেনার কুইন্টন ডি কককে টিম সাউদির ক্যাচে পরিণত করেন এই কিউই পেসার। ডি ককের সংগ্রহ ১৪ রান।

ডি ককের উইকেট নিয়ে রেকর্ড বুকে নাম লেখান বোল্ট। বিশ্বকাপের এক আসরে নিউজিল্যান্ডের হয়ে সর্বোচ্চ শিকারের রেকর্ড করেন তিনি। ডি ককের উইকেট নিয়ে অাসরে বোল্টের উইকেটসংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২১টি। এর আগে ১৯৯৯ বিশ্বকাপে নিউজিল্যান্ডের হয়ে ২০ উইকেট নিয়েছিলেন জিওফ অ্যালট।

৩১ রানেই ২ উইকেট হারানোর পর তৃতীয় উইকেটে প্রতিরোধ গড়েন ফাফ ডু প্লেসিস ও রিলে রুশো। ফিফটি রানের জুটি গড়ে দলকে ভালোই এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছিলেন দুজন। তবে রুশোকে ফিরিয়ে ৮৩ রানের জুটি ভাঙেন কোরি অ্যান্ডারসন। রুশোকে মার্টিন গাপটিলের ক্যাচে পরিণত করেন তিনি। ৫৩ বলে ২ চার ও এক ছক্কায় রুশোর সংগ্রহ ৩৯ রান।
*বিশ্বকাপক্রিকেট* *ক্রিকেটবিশ্বকাপ* *বিশ্বকাপ২০১৫* *সেমিফাইনাল*

খেলার খবর: একটি বেশব্লগ লিখেছে

বিশ্বকাপের ১১তম আসরে প্রথম বারের মত ফাইনাল খেলার হাতছানি নিউজিল্যান্ড ও দক্ষিণ আফ্রিকার সামনে। যে দল জিতবে তারাই প্রথম বারের মতো বিশ্বকাপ ইতিহাসে উঠবে ফাইনালের মঞ্চে। তাই বিশ্বকাপের প্রথম সেমিফাইনালের আগে, বেশ উত্তাপ ছড়াচ্ছে নিউজিল্যান্ড ও দক্ষিণ আফ্রিকার ম্যাচকে ঘিরে। ইতিহাসের স্বাক্ষী হওয়ার জন্য নিউজিল্যান্ড-দক্ষিণ আফ্রিকা দু’দলই প্রাণ প্রণ লড়াই করার জন্য প্রস্তুত। আগামী মঙ্গলবার অকল্যান্ডে দু’দলের মধ্যকার সেমিফাইনালের লড়াই শুরু হবে বাংলাদেশ সময় সকাল সাড়ে ৭টায়।

আমরা যদি অতীত ইতিহাসের দিকে তাকাই দেখা যাবে, গত বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে ঢাকায় কিউইদের কাছে হেরেছিলো প্রোটিয়ারা। তাই তারা চাইবে প্রতিশোধ নিতে। তবে, এ পর্যন্ত ৬ বার সেমিফাইনালে খেলার অভিজ্ঞতা থাকা কিউইরা চাইবে প্রথম বারের মতো ফাইনালে জায়গা করে নিতে। বিশ্বকাপে এখন পর্যন্ত অপরাজিত তারা। তবে, ইনজুরির কারণে,আগের ম্যাচের একাদশের বাইরে থাকবেন অ্যাডাম মিলনে। তার জায়গায় খেলবেন কাইল মিলস।

অন্যদিকে,তিন বার সেমিফাইনালে খেললেও,ফাইনালে খেলা হয়নি দক্ষিণ আফ্রিকারও। প্রতি আসরে ফেভারিটের তকমা থাকলেও, স্নায়ুচাপে নকআউট পর্ব থেকে বিদায় নিতে হয় প্রোটিয়াদের। তাই তাদের ক্রিকেট বিশ্বে বলা হয়ে থাকে চোকার্স। তবে, এবার সেই অপবাদ ঘোচাতে চায় তারা। দারুণ ব্যাটিং ও বোলিংয়ে ভারসাম্যপূর্ন দলটি। প্রোটিয়াদের এ ম্যাচের সেরা একাদশে আসতে পারে একটি পরিবর্তন।
*বিশ্বকাপক্রিকেট* *ক্রিকেটবিশ্বকাপ* *বিশ্বকাপ২০১৫* *নিউজিল্যান্ড-না-দক্ষিণআফ্রিকা* *সেমিফাইনাল* *বিশ্বকাপ*

তোফায়েল আহমদ: একটি বেশটুন পোস্ট করেছে

৪/৫
* ১ম সেমিফাইনাল >> নিউজিল্যান্ড বনাম দক্ষিণ আফ্রিকা। ইডেন পার্ক, অকল্যান্ড। ২৪ মার্চ মঙ্গলবার। বাংলাদেশ সময় ০৭:০০ << * ২য় সেমিফাইনাল >> ভারত বনাম অস্ট্রেলিয়া। সিডনি ক্রিকেট গ্রাউন্ড। ২৬ মার্চ বৃহস্পতিবার। বাংলাদেশ সময় ৯:৩০ <<
*খেলাধুলা* *ক্রিকেট* *বিশ্বকাপ২০১৫* *সেমিফাইনাল* *ক্রিকেটবিশ্বকাপ*

খেলার খবর: একটি বেশব্লগ লিখেছে

১১তম বিশ্বকাপ ক্রিকেটে শ্রীলঙ্কাকে হারিয়ে প্রথম সেমিফাইনালে পা রাখলো দক্ষিণ আফ্রিকা। আজকে সিডনিতে বিশ্বকাপের প্রথম কোয়ার্টার ফাইনালে শ্রীলঙ্কাকে ৯ উইকেটের বিশাল ব্যবধানে হারিয়ে দেয় দক্ষিণ আফ্রিকা। শ্রীলঙ্কার দেওয়া ১৩৪ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে ১৮ ওভারেই জয় তুলে নেয় প্রোটিয়ারা। ডি কক ৭৮ আর ডু প্লেসিস ১৮ রান নিয়ে অপরাজিত থাকেন।

এর আগে ব্যাট করতে নেমে ইমরান তাহির আর ডুমিনির বোলিং তোপে মাত্র ১৩৩ রানে অল আউট হয়েছে গত দুই বারের ফাইনালিস্ট শ্রীলঙ্কা। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৪৫ রান আসে আগের চার ম্যাচের টানা সেঞ্চুরিয়ান সাঙ্গাকারার ব্যাট থেকে।

টস জিতে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই দুই ওপেনার কুশল পেরেরা আর দিলশানের উইকেট হারিয়ে বিপদে পড়ে লংকানরা। কুশাল পেরেরা ৩ আর দিলশান ০ রান করে আউট হন।

এরপর সাঙ্গাকারাকে সাথে নিয়ে ৬৫ রানের জুটি গড়ে তোলেন লাহিরু থিরিমান্নে। ৪১ রান করা থিরিমান্নে আর ৭ রান করা মাহেলা জয়াবর্ধনে দ্রুত আউট হলে আবার বিপদে পড়ে যায় শ্রীলঙ্কা।

অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউসকে সাথে নিয়ে ৩৪ রানের জুটি গড়ে বিপদ কাটিয়ে উঠার চেষ্টা করেন সাঙ্গাকারা। কিন্তু মাত্র ৫ ওভারের ব্যবধানে আর ৬ উইকেট হারালে ১৩৩ রানের শেষ হয় শ্রীলঙ্কার ইনিংস। দক্ষিণ আফ্রিকার পক্ষে ইমরান তাহির ৪ আর ডুমিনি নেন ৩ উইকেট। ম্যাচ সেরা হয়েছেন ইমরান তাহির।

উল্লেখ্য, সেমিফাইনালে ওঠার লড়াইয়ে আগামীকাল বাংলাদেশ ভারতের মোকবিলা করবে।
(সংকলিত)
*সেমিফাইনাল* *বিশ্বকাপক্রিকেট* *বিশ্বকাপ২০১৫* *ক্রিকেট*
৪/৫

আমানুল্লাহ সরকার: এবারের ১১তম বিশ্বকাপের প্রথম সেমিফাইনালিস্ট দক্ষিণ আফ্রিকা দলকে জানাই অনেক অনেক অভিনন্দন।

*সেমিফাইনাল* *বিশ্বকাপক্রিকেট* *ক্রিকেটবিশ্বকাপ* *বিশ্বকাপ২০১৫*

মাসুম: *ব্রাজিল* হেরে যাওয়াতে দেখি *আর্জেন্টিনা* রা দেখি বেশ খুশি!যাহ তগোর জন্য আজ *বেশতোটিয়া* সাজলাম!! নেদারল্যান্ড ৩- আর্জেন্টিনা ২ !! ওহ হ্যা পেনাল্টি শুট করা লাগবে ! লও ঠেলা (খুশী২)(শয়তানিহাসি)(ভেঙ্গানো২)(ভেঙ্গানো) তবে আর্জেন্টিনা রে ৩ নং দল আর ব্রাজিল রে ৪ নং হিসেবে দেখতে চাই ! আমার জার্মানি তো ১ নং হবেই (খুশী২)(গ্যাংনাম)(লালালা)(খুশীতেনাচি)(কিমজা)

*ব্রাজিলনাআর্জেন্টিনা* *আর্জেন্টিনানানেদারল্যান্ড* *সেমিফাইনাল* *তৃতীয়স্থাননির্ধারণী* *ব্রাজিল* *আর্জেন্টিনা* *বেশতোটিয়া*

কেয়া _নাহিদা: মা গো মা ১ টা না ২ টা না ৭..৭ টা গোল, আরে ওরা তো দয়া করেছে তা না হলে তো ২য় আর্ধে ২৫ মিনিটে তো আরোও ৫ টা গোল দিতে পারতো, যাই হোক ৭ গোল খাওয়ার পর আমি তো মরে ও শান্তি পাবো না... তাই দেশান্তরী হইলাম। ব্রাজিলের একজন অন্ধ ভক্ত

*ব্রাজিল* *সেমিফাইনাল* *ফিফাসেমিফাইনাল*

শ্রীলা উমা: *ব্রাজিল* -কে সাপোর্ট করি না এটা ঠিক,ওরা হারুক এটাও চাইছি কিন্তু এরকম লজ্জাজনক হার কখনই চাই নাই l ব্রাজিল সমর্থক না হয়েও এরকম হারে আমিও কষ্ট পাইছি (হার্টব্রেক) কাল খেলা দেখায় মনে হচ্ছিল এটা বিশ্বকাপ *সেমিফাইনাল* এর খেলা নয় পাড়ার মাঠের খেলা চলছে l ছন্দময় খেলা যারা উপহার দেয় তাদের এই ছন্দপতন সত্যি বেদনার l

*ব্রাজিল* *সেমিফাইনাল* *ফিফাসেমিফাইনাল*

মাসুম: একটি বেশটুন পোস্ট করেছে

*ব্রাজিল* ২ - *জার্মানি* ৪
নাম মুলার হতে পারে কিন্তু গোল দিয়ে মুলা দেইনা ফুটবল দেই
সেত জানি এই জন্য দেখছ না মাটিতে কোমর ঘেষে বসে আছি কোমরে জোর বাড়ানোর লাই l কারন আমার কোমর আর কথা কয় না (কান্না২)
*সেমিফাইনাল* *ব্রাজিলনাজার্মানি*

কালো মনের মানুষ: খেলায় মেসির অন্যতম সঙ্গী ডিমারিয়া ইনজুরির কারণে সেমিফাইনালে খেলতে পারবেনা ! সবাই হয়ত ভয় পাইতেসেন মেসিময় এই খেলায় মেসির সঙ্গী ছাড়া আর্জেন্টিনা জিতবে কেমনে ? জানেন এর আগে আর্জেন্টিনা কখনো সেমিফাইনালে হারেনাই ?এর আগেও ৪ বার উঠে সব্বারেই বিজয়ী হয়েছে (বস) কাজেই,এই তথ্যের উপর ভরসা রাখে নিজের হার্টবিট ঠিক রাখেন (খুশী২)

*মেসি* *আর্জেন্টিনা* *সেমিফাইনাল*

বেশতো সাইট টিতে কোনো কন্টেন্ট-এর জন্য বেশতো কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

কনটেন্ট -এর পুরো দায় যে ব্যক্তি কন্টেন্ট লিখেছে তার।

...বিস্তারিত

QA

★ ঘুরে আসুন প্রশ্নোত্তরের দুনিয়ায় ★