স্মার্ট ফ্যাশন

স্মার্টফ্যাশন নিয়ে কি ভাবছো?

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

লেটেস্ট জুতার কালেকশনএবারের ঈদ ফ্যাশনে একটু স্টাইলিশ লুক আর ফ্যাশনে নতুনত্ব আনতেই একালের ছেলে মেয়েরা জিন্স প্যান্টের সাথে মানানসই জুতার দিকে ঝুঁকে পড়েছে। বর্তমানে জিন্স প্যান্টের সাথে মানানসই স্টাইলিশ জুতা ফ্যাশনেবল ছেলে ও মেয়েদের আধুনিক পরিধেয়। প্যান্টের সাথে জুতা যদি মিসম্যাচ করে তাহলে ফ্যাশনটা তো গোল্লায় যাবেই সাথে নিজেকে দেখাবে বেমানান ও সেকেলে। তাই নিজেকে সমসাময়িক ফ্যাশনের সাথে আপডেট রাখতে চাইলে জিন্সের সাথে মানানসই জুতার কোন বিকল্প নেই। চলুন ঈদ ফ্যাশনের মানানসই স্টাইলিশ কিছু জুতা সম্পর্কে জেনে নেই।

ক্যাজুয়াল লেদার শু

শু কিনতে ক্লিক করুনশু কিনতে ক্লিক করুন

ঈদের দিনে পছন্দের পোশাকের সাথে ভিন্ন লুক আনতে হলে নান্দনিক ডিজাইনের ক্যাজুয়াল লেদার শু হতে পারে আপনার অন্যতম অনুসঙ্গ। সব ধরনের জিন্সের প্যান্টের সাথে নিজেকে মানিয়ে নিতে চাইলে এধরনের জেন্টস ক্যাজুয়াল সু নিশ্চিন্তে কিনে নিতে পারেন। এগুলো পরতে আরাম আর দেখতেও বেশ স্টাইলিশ।

মেনজ লোফার শু

শু কিনতে ক্লিক করুন
বর্তমান সময়ে লোভার শু গুলো বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। একটা সময় ছিল যখন ছেলেরা ফ্যাশনে স্যান্ডেলকে বেশি প্রাধান্য দিত। কিন্তু এখন এধরনের জুতার ব্যবহারের কারণে এটি বেশ সেন্ডেলের ব্যবহার অনেকটাই কমে গেছে। এই ধরনের লোফার শু গুলো গ্রীষ্মকালিন আরামদায়ক ফুট ওয়্যার হিসেবে বেশ জনপ্রিয়তা পেয়েছে।

লেডিজ লেদার পাম্পি

 শু কিনতে ক্লিক করুনশু কিনতে ক্লিক করুন
বর্তমানে বাজারে মেয়েদের জন্য জিন্সের সাথে মানানসই বিভিন্ন ধরনের ওয়াকিং সু পাওয়া যাচ্ছে। এই গরমে স্বস্তিতে বাইরে বের হওয়ার জন্য অনেকেই নানা রংয়ের জিন্স ও টিশার্টের সঙ্গে মানিয়ে লেদার পাম্পি শু পরছে। জেনুইন লেদারে তৈরী এই পাম্পি গুলো বেশ সফট ও আরাম দায়ক। ঈদ ফ্যাশনে জিন্স প্যান্টের সাথে এটিকে আপনার সঙ্গী করতে পারেন।

কনভার্স

শু কিনতে ক্লিক করুন
জুতার জগতে বর্তমানে কনভার্স শু গুলো বেশ জনপ্রিয়। শীত গরম সব সময়েই প্রত্যেকের পায়ে পায়ে কনভার্স লক্ষ্য করা যায়। বিশেষ করে যারা জিন্স বা টাইট প্যান্ট পরে তাদের কাছে কনভার্স বেশ পছন্দের। ছেলে মেয়ে উভয়ের পায়ে কনর্ভাস মানিয়ে যায়। পারফেক্ট আউটলুক তৈরী করতে এই স্টাইল কনভার্স বেছে নিতে পারেন। কনভার্স গুলো পরতে আরাম দায়ক ও টেকসই।

বুট শু

শু কিনতে ক্লিক করুনশু কিনতে ক্লিক করুন
ফ্যাশনপ্রিয় স্টাইলিশ ছেলে মেয়েদের পছন্দের তালিকায় বুট জাতীয় শু গুলোর পাধাণ্য রয়েছে। অসাধারণ আউটলুক তৈরী করতে এধরনের বুট শু গুলো প্রায় সকলেই পরছে। সব ধরনের জিন্সের প্যান্টের সাথে নিজেকে মানিয়ে নিতে চাইলে এধরনের শু আপনিও পরতে পারেন।

কোথায় পাবেনঃ

শু কিনতে ক্লিক করুন
বাটা, গ্যালারি এপেক্স, ডিজেল, বাটারফ্লাই, লিভাইস, নাইক, স্প্যারো, ক্যাটস আই, বেলেরিনা, হাস পাপিস সহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান থেকে শু কিনে নিতে পারবেন। তাছাড়া রাজধানীর গুলিস্তান, নিউমার্কেট, গাউসিয়া. মৌচাক ও আনারকলি মার্কেট তো আছেই। তবে বর্তমান সময়ে অনলাইন শপিং এ মানুষের আগ্রহ বেড়ে যাওয়ায় দেশের নামি দামি অনলাইন শপিং মল গুলো তাদের ওয়েবসাইটে স্টাইলিশ জুতার অসংখ্য কালেকশন রেখেছে। আপনি চাইলে ঘরে বসেই আপনার পছন্দের প্রোডাক্টটি অর্ডার করতে পারেন। অনলাইনে কিনতে এখানে ক্লিক করুন

*সু* *ফ্যাশনেসু* *স্মার্টফ্যাশন* *স্মার্টশপিং*

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

কিনতে ক্লিক করুনবর্তমানে তরুণ তরুণীদের ফ্যাশন মানেই অন্যরকম ভাব একটু আলাদা স্টাইল! তাই যুগের সাথে তাল মিলেয়ে তরুণ তরুণীদের ফ্যাশনে যুক্ত হচ্ছে নতুন নতুন সব অনুসঙ্গ। ফ্যাশনের আধুনিক সব আকর্ষণ গুলোর মধ্যে ব্রেসলেট অন্যতম। শুধু তরুণী নয়, এখন তরুণদের হাতেও শোভা পাচ্ছে ব্রেসলেট।

ফ্যাশনে বাহারি ব্রেসলেট

কিনতে ক্লিক করুন
সোনা বা রুপার বাইরে মেটাল, সিটি গোল্ড, কাঠ, পাথর, পুঁথি, মাটি, কাপড়, রুদ্রাক্ষ, চামড়াসহ নানা ধরনের জিনিস দিয়ে তৈরি করা হচ্ছে বিচিত্র রকমের ব্রেসলেট।

কিনতে ক্লিক করুনতরুণ ও তরুণীদের জন্য ব্রেসলেট বানানোর উপকরণ ক্ষেত্রবিশেষে ভিন্ন হতে পারে। যেমন মেয়েদের ব্রেসলেটে রংবেরঙের পুঁথি, পাথর, কাঠ কিংবা সিটি গোল্ড ব্যবহার করা হয়। অন্যদিকে ছেলেদের ব্রেসলেটে তামা, ব্রোঞ্জ, লোহা, আবার চামড়াও ব্যবহার করা হয়। ব্রেসলেট বানানোর উপাদান যেমন আলাদা হয়, তেমনি এগুলোর গড়নও হয় ভিন্ন রকমের।

কিনতে ক্লিক করুনমেটালের ওপরে সোনালি রং করা ব্রেসলেট পশ্চিমা ধাঁচের পোশাকের সঙ্গে দারুণ মানাবে। অনেক মেটালের ওপরে বাসানো হয়েছে মুক্তা। ছোট-বড় নানা ধরনের মুক্তার রং বদলেছে নকশার ক্ষেত্রে। কাঠের তৈরি ছোট ছোট বোতাম ও বল দিয়ে তৈরি রঙিন ব্রেসলেটে রাবার দিয়ে ইচ্ছেমতো পরার সুবিধা আছে।

কিনতে ক্লিক করুনমেটালের পাশ দিয়ে অনেক সময় পেঁচা, হাতি, ঘোড়াসহ নানা ধরনের মোটিফ ব্যবহার করা হচ্ছে। আধুনিক সময়ে ফ্যাশনের এই অনুষঙ্গটি নিজেকে যুগের চাহিদার সঙ্গে তাল মিলিয়ে বদলে নিয়েছে। তাই বর্তমান সময়ের ফ্যাশনসচেতন তরুণীরা হাতের শোভা বাড়াতে পছন্দ করছে নানা ঢঙের ব্রেসলেট।

দরদাম

কিনতে ক্লিক করুন
গহনা তৈরির উপাদান, কোথা থেকে কেনা হচ্ছে এসবের ওপর ব্রেসলেটের দাম নির্ভর করে। যেমন চাঁদনী চক মার্কেটে ১০০ থেকে ৪০০ টাকার মধ্যে মেটাল, পাথর বা পুঁথির ব্রেসলেটগুলো পাওয়া যায়। আবার কে-জেডে ১০৪ থেকে ২০০০ টাকা পর্যন্ত দামের ব্রেসলেট আছে। অন্যদিকে শাহবাগ মোড়ের ছোট দোকান কিংবা দোয়েল চত্বরের হস্তশিল্পের দোকান থেকে কিনলে ২০ থেকে ২০০ টাকার মধ্যেই কেনা যাবে পছন্দসই ব্রেসলেট। আবার ‘বড় জায়গার, বড় ঠাট’-এর মতো সীমান্ত স্কয়ার মার্কেট, বসুন্ধরা সিটি কিংবা যমুনা ফিউচার পার্কের রকমারি গহনার দোকান থেকে ব্রেসলেট কিনলে ৫০০ থেকে ৩০০০ টাকা দামে পাওয়া যাবে।

কিনবেন কোথায় থেকে

কিনতে ক্লিক করুন
ঢাকার নিউ মার্কেটের রকমারি গহনার দোকানে, চাঁদনী চক মার্কেট, ইস্টার্ন মল্লিকা মার্কেট, সীমান্ত স্কয়ার মার্কেট, বসুন্ধরা সিটি, যমুনা ফিউচার পার্ক, শাহবাগের মোড়ে ফুটপথের দোকানগুলো, আজিজ সুপার মার্কেটসহ বিভিন্ন জায়গায় পাওয়া যায় নানা রকমের ব্রেসলেট। এ ছাড়া আড়ং, কে-ক্রাফট, বিশ্বরঙ, রঙ বাংলাদেশ, কে-জেড, ধান শালিক, দেশাল, বিসর্গতেও পাওয়া যায় মেটাল, কাঠ, তামা, পুঁথি, পাথর ও হাড়ের তৈরি ব্রেসলেট। দোয়েল চত্বরে হস্তশিল্পের দোকানগুলোতে মাটি, কাঠ, মেটালের ব্রেসলেট পাওয়া যায়। অনলাইনেও বিভিন্ন দোকানের ব্রেসলেট কিনতে পাওয়া যায়। যারা ঘরে বসে অনলাইনে পছন্দের ব্রেসলেট কিনতে চান তারা এখানে ক্লিক করুন

*ব্রেসলেট* *স্মার্টফ্যাশন* *স্মার্টশপিং*

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

কিনতে ক্লিক করুনহাত ঘড়ির ব্যাপারটি এখন আর সময় দেখার মধ্যে সীমাবদ্ধ নেই। ঘড়ির টাইম ঠিক থাক আর না থাক স্টাইলিশ ফ্যাশনের জন্য হাতে ঘড়ি থাকা চাই-ই-চাই। আপনার হাতেও যদি একটি স্টাইলিশ ঘড়ি থাকে তাহলে আপনার  মন ভাল থাকবে আর ফ্যাশেনের মুড হবে একটু অন্য রকম। বর্তমানে বিভিন্ন বাজার ও অনলাইন মার্কেট প্লেস গুলোতে হরেক রকমের ফ্যাশনেবল হাত ঘড়ি পাওয়া যাচ্ছে। আপনি যদি ফ্যাশন সচেতন হন তাহলে হাত ঘড়ি হাতে না থাকলে পুরো ফ্যাশনটাই বেমানান। তাই ফ্যাশনের জন্য হাত ঘড়ি থাকা অত্যাবশ্যক। মনে রাখবেন, ফ্যাশনের জন্য যা ইচ্ছেতাই হাত ঘড়ি কিনলে কিন্তু ভুল করবেন। অনলাইন বা অন্য যে কোন মার্কেট প্লেস গুলো থেকে হাত ঘড়ি কিনতে চাইলে যে বিষয় গুলো উপর গুরুত্ব দিতে হবে তা আজকের এই লেখাটির মধ্যে তুলে ধরলাম।
(কনটেন্টটির ছবিগুলোতে ক্লিক করেও স্টাইলিশ হাতঘড়ি সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পারবেন)
 
লাইফস্টাইলঃ
আপনি যেই স্টাইলে থাকতে পছন্দ করেন সেটার কথা মাথায় রেখেই ঘড়ি পছন্দ করুন। সেক্ষেত্রে হতে পারে ক্যাজুয়াল, ফর্মাল, অথবা এক্সক্লুসিভ ডিজাইনের যেকোনো কিছু।
 
বাজেটঃ 
বাজেট তৈরি করতে হবে আপনার সামর্থ্য অনুযায়ী। কম দামে খুব হাই ক্যাটাগরির ঘড়ি খোঁজাটা যেমন বোকামি, ঠিক তেমনি ঘড়ির বাজেট নিয়ে যদি ঠিকমত পরিকল্পনা করা না যায় তবে বেশী দাম দিয়ে নিম্ন মানের ঘড়ি কিনে পস্তাতে হবে। তবে যদি কোন দুষ্প্রাপ্য, শখের দামী জিনিসের প্রতি ঝোঁক থেকে থাকে তবে সেব্যাপারে ভেবে চিন্তে সিদ্ধান্ত নিন।
 
ফিচারঃ 
কেউ এনালগ পছন্দ করেন, কেউ ডিজিটাল খোঁজেন। কারো আবার এলার্মসহ ঘড়ি চাই আবার কারও তারিখ দেখার অপশন চাই। ঘড়ি কেনার আগে এইসব ফিচার গুলো ঠিকমত কাজ করছে কিনা ভালোভাবে পরীক্ষা করে তারপর নিন।
 
ব্র্যান্ডঃ 
অনেকের আবার ব্র্যান্ডের ঘড়ির প্রতি আগ্রহি বেশি থাকে। সাধারণত ব্র্যান্ডের ঘড়িগুলোর দাম একটু বেশিই থাকে। অনেকেই কম দামে ব্র্যান্ডের ঘড়ি খোঁজেন। ঘড়িটি যদি ব্র্যান্ডের হয় তবে সেটি আসল কিনা তা দেখে নিতে হবে। ব্র্যান্ডের ব্যাপারে যদি আপনার কোন আইডিয়া না থাকে তবে ব্র্যান্ডের পিছনে না ছোটাই উত্তম।
 
 
ব্যাটারিঃ যেকোনো ঘড়ি কেনার আগে অবশ্যই ব্যাটারির ব্যাপারে জেনে নেওয়া প্রয়োজন। ঘড়িটির জন্য ব্যাটারির মেয়াদ কয়দিন তা খোঁজ নিতে হবে।
 
কোয়ালিটিঃ 
ঘড়ির বডি দেখে অনেকটাই আন্দাজ করা যায় এর কোয়ালিটি নিয়ে। সেকেন্ড হ্যান্ড ঘড়ি হলে ঘড়ির গায়ে কোন আঁচড়, দাগ আছে কিনা দেখে নিন। অনেক সময় অনেকদিন ব্যবহার করতে করতে সেকেন্ড হ্যান্ড ঘড়ির কাঁটাগুলো নড়বড়ে হয়ে যায়। ঘড়িটি এরকম সমস্যামুক্ত কিনা নিশ্চিত হয়ে তারপর কিনুন।
 
উপরের সবকটি বিষয় বিবেচনার পরই আপনি বেছে নিতে পারবেন আপনার পছন্দসই স্টাইলিশ হাত ঘড়ি। তবে আর দেরী কেন জানা শেষ, এবার তাহলে কেনার পালা। চলুন তাহলে দেখে নিন আপনি কোনটি কিনবেন। হাজারও কালেকশন থেকে আপনারটি বেছে নিতে এখানে ক্লিক করুন
*স্মার্টফ্যাশন* *স্মার্টশপিং*

বেশতো সাইট টিতে কোনো কন্টেন্ট-এর জন্য বেশতো কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

কনটেন্ট -এর পুরো দায় যে ব্যক্তি কন্টেন্ট লিখেছে তার।

...বিস্তারিত

QA

★ ঘুরে আসুন প্রশ্নোত্তরের দুনিয়ায় ★