স্যান্ডেল

স্যান্ডেল নিয়ে কি ভাবছো?

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

ঈদ ফ্যাশনে পোশাকের সাথে তাল মিলেয়ে জুতা কিনতে কে না চায়! তাইতো সবখানেই চলছে পছন্দের জুতা-স্যান্ডেল কেনার হিড়িক। কেউ কেউ জুতা কিনছেন পোশাকের সঙ্গে মিলিয়ে, কেউবা কিনছেন নতুন ফ্যাশনের জুতা। আর ঈদকে সামনে রেখে জুতার দোকানগুলোও সেজেছে বাহারি সব ফ্যাশনাবল জুতার সম্ভার নিয়ে। অনলাইন শপ গুলোতে ফ্যাশনেবল স্টাইলিশ জুতার কমতি নেই। চলুন ট্রেন্ডি কিছু জুতা-স্যান্ডেলের কালেকশন দেখে নেই।

পবিত্র ঈদ-উল-ফিতরকে সামনে রেখে দেশের নামিদিমি সু ষ্টোর গুলো বাহারি কালেকশন নিয়ে হাজির হয়েছে। হাল সময়ে বাজারে পাওয়া যাচ্ছে দেশি-বিদেশি বিভিন্ন ব্র্যান্ডের নানা ডিজাইনের জুতা ও স্যান্ডেল। তাই এখনকার ছেলেদের পছন্দের তালিকা স্থান পেয়েছে স্বস্তির জন্য নান্দনিক ডিজাইনের স্যান্ডেল। পাঞ্জাবি ও পায়জামার সাথে কিছুটা খোলামেলা চামড়ার স্যান্ডেল পরতে বেশ আরামদায়ক। আর তা যদি হয় ফ্যাশনেবল তো কথাই নেই। পোশাক কেনা যাদের শেষ তারা মিলিয়ে জুতা কেনার পালা। আর ঈদের আনন্দের সঙ্গে আরও নতুন মাত্রা যোগ করতে নতুন নতুন কালেকশন আপনার ফ্যাশন স্টাইলকে আরও আকর্ষণীয় করে তুলতে পারবে। মহিলা ও শিশুসহ সবার জন্যেই রয়েছে আকর্ষণীয় একং চমকপ্রদ কালেকশন।

ছেলেদের জন্য পাঞ্জাবির সঙ্গে গর্জিয়াস স্যান্ডেলটাই এখন বেশি চলছে। ঈদ উপলক্ষে ডিজাইনেও আনা হয়েছে নতুনত্ব। স্যান্ডেলের বেল্টও থাকতে পারে, সঙ্গে সোল কিছুটা উঁচু ধরনের হবে। সকালের দিকে কেমন হবে? সকালে নামাজের পর এদিক-সেদিক ঘুরতে পাতলা স্যান্ডেলই ভালো। এর সঙ্গে স্যান্ডেলটা মানিয়ে যাবে দারুণ।


মেয়েদের ক্ষেত্রে হালকা গড়নের স্যান্ডেল বা শু বেশি চলছে। যারা একটু আকর্ষণীয় লুক পেতে চায় তারা হিলকে এগিয়ে রাখছেন। ঈদে ফতুয়া, টপস এর সাথে এমন জুতা পরতে চান যেন দেখতে অনন্য লাগে তাদের জন্য লোফার বেশ ভালো হবে।


দেশের বিভিন্ন অনলাইন শপিং মলের ওয়েবসাইট ঘুরে দেখা গেছে, নান্দনিক ডিজাইনের ও বাহারি রংয়ের জুতা। এসব জুতা ও স্যান্ডেলে ব্যবহূত মোটিফে রয়েছে বৈচিত্র্য এবং নানা রঙের ব্যবহার। গতানুগতিক কালো, ঘিয়া, চকলেট ইত্যাদি রং তো আছেই। কিছু সু আবার দারুণ বর্ণিল। বর্তমানে বিভিন্ন ব্র্যান্ড তরুণদের পছন্দের কথা মাথায় রেখে স্যান্ডেলের ডিজাইন করছেন। সময়ের সাথে চলনসই অর্থাৎ যখন যে ট্রেন্ড চলে সেই অনুযায়ী জুতা ও স্যান্ডেলের কালেকশন রাখেন তারা। এই ঈদে আপনাকে যদি আরও ট্রেন্ডি করে তুলতে চান তাহলে এই জুতা-স্যান্ডেলগুলো কিনে নিতে পারেন।
ঘরে বসে স্বল্পদামে ভালোমানের জুতা ও স্যান্ডেল কিনতে এখানে ক্লিক করুন

*জুতা* *স্যান্ডেল* *ঈদশপিং* *স্মার্টশপিং*

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

ট্রেন্ডি স্যান্ডেলের লেটেস্ট কালেকশনফ্যাশনে নিজেকে ট্রেন্ডি করে তুলতে বাহারি সব অনুসঙ্গ ট্রাই করেন ছেলেরা। মেকআপের বিষয়টি বাদ দিয়ে আর সব ক্ষেত্রেই ছেলেদের ফ্যাশনের বিষয়টি সামনে চলে আসছে। চুলের স্টাইল, পোষাক, জুতো-স্যান্ডেল, রোদচশমা ইত্যাদি সব ব্যাপারেই ছেলেরা এখন আগের চাইতে অনেক বেশি সচেতন। পা থেকে মাথা পর্যন্ত সবখানেই ফিট দেখাতে চায় ছেলেরা। এজন্য বর্তমান ফ্যাশনে স্যান্ডেলকে বেশ গুরুত্ব দিচ্ছে ছেলেরা। পছন্দের পোশাকের সঙ্গে মিলিয়ে খুঁজে নিচ্ছেন ফ্যাশনেবল জুতা বা স্যান্ডেল। আপনি যদি ফ্যাশনে নিজেকে আরও ট্রেন্ডি করে তুলতে চান তাহলে রইল নিচের সেন্ডেল গুলি আপনার জন্য।

ফ্যাশনে স্যান্ডেলঃ

(০১)কিনতে ক্লিক করুন(০২)কিনতে ক্লিক করুন

(০৩)কিনতে ক্লিক করুন(০৪)কিনতে ক্লিক করুন

ছেলেদের ফ্যাশন অ্যাকসেসরিজ হিসেবে প্রথমেই আসে জুতা-স্যান্ডেলের প্রসঙ্গ। আর এখন স্যান্ডেলের ট্রেন্ড হিসেবে একটু পা ঢাকা স্যান্ডেলের চলই বেশি। শার্টের সাথে মিলিয়ে পড়তে পারেন সামনের দিকে গোলাকার শু বা একটু চৌকানো শু। রং কালো বা হালকা মেরুন হতে পারে। এছাড়া হালকা ডিজাইনের নানা স্যান্ডেল পরতে পারেন পাঞ্জাবীর সাথে। পাঞ্জাবির সাথে পড়বার উপযোগী পাতলা সোল এর ডিজাইন করা স্যান্ডেলেরও কাটতি রয়েছে কমবেশি। এছাড়া যারা জিন্স দিয়ে হাই শোল্ডার পাঞ্জাবী পড়বেন তারা এর সাথে পড়তে পারেন বাহারী ডিজাইনের স্নিকার্সও।

(০৫)কিনতে ক্লিক করুন(০৬)কিনতে ক্লিক করুন

(০৮)কিনতে ক্লিক করুন

ছেলেদের এইসব স্টাইলিশ স্যান্ডেলের জন্য জন্য প্রথমেই ঢুঁ মারতে পারেন। দেশের সবচেয়ে বড় অনলাইন শপিং মল আজকের ডিলের ওয়েবসাইটে। তাদের কালেকশনে ছেলেদের জন্য ট্রেন্ডি স্যান্ডেল বাহারি সংগ্রহ রয়েছে। এরপর যেতে পারে বসুন্ধরা সিটিতে। তাছাড়া বাটা, এপেক্স ও অন্যান্য ব্র্যান্ডের শোরুম তো রয়েছেই।
ঘরে বসে বাহারি স্যান্ডেল কিনতে এখানে ক্লিক করুন

*স্যান্ডেল* *জুতা* *স্মার্টশপিং*

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

শীতে আসছে, আসছে নতুন বছর, হয়তো আপনার ঘরে আসছে নবজাতক শিশু আর তার জন্যই চাই নতুন জুতা! এ যেন এক অন্যরকম অনুভূতি। তুলতুলে নবজাতক শিশুকে নতুন জুতা দিতে পারার আনন্দটাই আলাদা। তাই নবজাতক শিশুর জন্য মানানসই জুতা কেনা চাই ই চাই। কিন্তু এখন তো শীতকাল! এই সময়ে যে কোনো বয়সী শিশুদের জুতা নির্বাচনে একটু সর্তক হওয়া জরুরী। বিশেষ করে নবজাতক শিশুদের জন্য খুব সর্তকতার সাথে জুতা কিনতে হবে। কোন ভাবেই যেন তাদের পায়ে শীত হানা দিতে না পারে সেদিকেও খেয়াল রাখতে হবে। নবজাতক শিশুদের জন্য কেমন জুতা কিনবেন সেটা নিয়ে আপনার চিন্তা কমানোর জন্য কনটেন্টটিতে বেশ কয়েকটি ছবি ও লিংক দেওয়া হয়েছে। ছবি গুলোতে ক্লিক করেও নবজাতকের জুতা সহ যে কোনো বয়সের শিশুদেড় জুতা কিনতে পারবেন।

ধুলো-বালি, ময়লা এবং রোগ-জীবাণু থেকে সার্বক্ষণিক রক্ষা করে জুতা। পায়ের হাড় গঠন থেকে শুরু করে, সঠিক গড়ন এবং নানা রকম প্রদাহসহ বিভিন্ন রোগব্যাধির হাত থেকে রক্ষা করে জুতা বা স্যান্ডেল। তবে সে জন্য প্রয়োজন সঠিক সময়ে সঠিক জুতা নির্বাচন। বাচ্চাদের জন্য মূলত তিন ধরণের জুতা হয়ে থাকে, যেমন: স্যান্ডেল, কেডস এবং শু। ঋতুভেদে এসব জুতায় পরিবর্তন আনা প্রয়োজন। 

সোনামনির তুলতুলে সুন্দর দুটি পায়ের জন্য জুতা কিনতে যাচ্ছেন? একটু খেয়াল রাখবেন-
শিশুর জুতা যেন কাপড়ের অথবা চামড়ার হয়। কিছুতেই প্লাস্টিক সোলের জুতা না কেনায় ভাল। জুতা যেন হালকা হয় সেদিকে খেয়াল রাখুন। বেশি টাইট জুতা কিনবেন না। একটু লুজ জুতা কিনুন। যেন শিশুর পায়ে চাপ না লাগে। শিশুরা কিন্তু রঙ্গিন জিনিস খুব পছন্দ করে, তাদের জন্য রঙ্গিন জুতা কিনুন। সবকিছুর আগে লক্ষ্য রাখুন জুতাটি আপনার সোনামনির জন্য আরামদায়ক হবে কি না। আরেকটি কথা, শিশুরা খুব তাড়াতাড়ি বেড়ে ওঠে। তাদের জন্য অনেক দাম দিয়ে জুতা কিনলেও খুব বেশি সময় পরতে পারবে না। অনেক দামি জুতা না কিনে, অল্প দামের মধ্যে শিশুর জন্য আরাম দায়ক, সুন্দর জুতা কিনুন।

কোথায় পাবেন : আপনি যদি শিশুর জন্য ব্র্যান্ডের কোনো জুতা কিনতে চান, তবে আপনাকে যেতে হবে সেই সব ব্র্যান্ডের দোকানগুলোয়। যেমন আছে বাটা, অ্যাপেক্স, জেনিস, লোটো, হাসপাপিজ এসব দোকানের দেখা মিলবে বসুন্ধরা সিটি শপিংমলে। তাছাড়া পাবেন ধানমন্ডি, বনানী, এলিফ্যান্ট রোড, গুলশানের আউটলেটগুলোয়। এলিফ্যান্ট রোডে ব্র্যান্ডের দোকানগুলোর পাশাপাশি যথেষ্ট নন-ব্র্যান্ড জুতার দোকানও রয়েছে। ক্রেতাদের পছন্দের জোগান দেওয়া তাদের প্রধান কাজ। পাশাপাশি নিউমার্কেট, গুলিস্তান, গাউছিয়া, এলিফ্যান্ট রোড, ফার্মগেটে সাধারণ দোকানগুলোতেও নন-ব্র্যান্ডের জুতা বাচ্চাদের জন্য পাবেন। তবে বর্তমান সময়ে অনলাইন শপিং এ মানুষের আগ্রহ বেড়ে যাওয়ায় দেশের নামি দামি অনলাইন শপিং মল গুলো তাদের ওয়েবসাইটে নবজাতক শিশুর জুতার অসংখ্য কালেকশন রেখেছে। আপনি চাইলে ঘরে বসেই আপনার পছন্দের প্রোডাক্টটি অর্ডার করতে পারেন। নিচে একটি অনলাইন শপের লিংক দিলাম এই লিংক থেকে নবজাতকের জুতা কিনতে পারবেন। 

দরদাম : লেদার ও সিনথেটিক কাপড়ের জুতার দাম পড়বে ২৫০-১ হাজার ২০০ টাকার মধ্যে। ছোটদের পছন্দের স্পাইডারম্যান, ডোরেমনের স্টিকারযুক্ত স্যান্ডেলগুলো পাবেন ৪০০-১ হাজার ১৯০ টাকার মধ্যে। জেনিস নিয়ে এসেছে চেন্নাই শু, যা পাবেন ৪৯০ টাকায়। উইনব্রেনার নর্থস্টারসহ দুই ফিতার কিছু স্যান্ডেল পাওয়া যাবে, দাম পড়বে ৪০০-২ হাজার টাকা। ব্র্যান্ডের জুতার দাম পড়বে ৫০০ থেকে ৩ হাজার টাকার মধ্যে। নন-ব্র্যান্ডের ভালো জুতাও বাজারে আছে। সেক্ষেত্রে খুব ভালোভাবে বাছাই করে নিতে হবে। বাচ্চাদের নন-ব্র্যান্ডের জুতার দাম পড়বে ২৫০ থেকে ১ হাজার ৫০০ টাকার মধ্যে।

পরামর্শ :বাচ্চার জুতা কেনার সময় মাথায় রাখতে হবে জুতাটি যেন অবশ্যই শিশুর পায়ে ঠিকমতো হয়, প্রয়োজনে পরিয়ে ট্রায়াল দিয়ে নিন। এতে পরে সাইজ না মেলার ঝামেলায় পড়তে হবে না। ট্রায়ালের সময় খেয়াল করুন, জুতা পায়ে দিয়ে শিশুটি ঠিকমতো হাঁটতে পারছে কিনা। অর্থাৎ জুতাটি তার জন্য আরামদায়ক হচ্ছে কিনা। শেষ পর্যন্ত জুতা-স্যান্ডেল যা-ই কেনা হোক না কেন, তা বেল্টযুক্ত হলে ভালো। এতে শিশুরা অন্য ডিজাইনের জুতার চেয়ে বেশি আরামবোধ করবে। শিশুদের জন্য হিলজাতীয় জুতা পরিহার করাই শ্রেয়। হিল পরে হাঁটতে বাচ্চাদের সমস্যা হতে পারে। 

পা ঘামানো এবং দুর্গন্ধের জন্য জুতা একমাত্র কারণ না হলেও অন্যতম প্রধান কারণ। তাই এমন জুতা নির্বাচন করা প্রয়োজন, যেখানে পায়ে যথেষ্ট বাতাস পৌঁছানোর সুযোগ থাকে। অবশ্যই খেয়াল রাখা প্রয়োজন জুতার তলা, পায়ের সংস্পর্শে থাকে যে পাশ, যেন অবশ্যই প্রাকৃতিক চামড়ার হয়। শিশুদের পায়ের গঠনে জুতা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। ছোটবেলায় মাপমতো জুতা না পরলে শিশুদের পা বেশি চওড়া হয়ে যায়। আবার বেশি সময়ের জন্য জুতা পরানো হলে পা ছোট হয়ে যাওয়ার আশঙ্কাও থাকে। যাঁদের পায়ে জন্মগত সমস্যা থাকে, তাঁদের জন্মের পর থেকে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে বিশেষ ধরনের জুতা পরানো দরকার। এতে পায়ের সমস্যা অনেকাংশেই কাটিয়ে ওঠা যায়।

সব বয়সী শিশুদের সবধরনের জুতা দেখতে ক্লিক করুন।

*জুতা* *শিশুরজুতা* *শপিং* *অনলাইনশপিং* *শু* *স্যান্ডেল* *নবজাতকেরজুতা*

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

স্যান্ডেলের আকর্ষণীয় কালেকশনঈদে আসতে আর কয়েকদিন বাঁকি। ইতিমধ্যে দেশজুড়ে ঈদের জোর কেনাকাটা শরু হয়েছে। গরম ও বৃষ্টির এই সময়টাতে ফ্যাশনের সাথে তাল মিলেয়ে যে যার মত নিজেকে সাজিয়ে নিতে পুরোপুরি প্রস্তুত। এবারের ঈদে পোশাকের সাথে তালমিলেয়ে তরুণ-তরুণীরা স্যান্ডেলকে বেছে নিয়েছে। কেননা এই গরমে স্বস্তিতে বাইরে বের হওয়ার জন্য অনেকেই চান একজোড়া মনের মতো স্যান্ডেল। তরুণরা এখন নানা রংয়ের জিন্স ও টিশার্টের সঙ্গে মানিয়ে স্যান্ডেল পরছে। আর পাঞ্জাবির সাথে স্যান্ডেল না পরলে নিজেকে পরিপাটি মনে হয় না। চলুন ছবিতে এবারের ঈদের বাহারি কিছু স্যান্ডেল কালেকশন দেখে নেই।

স্যান্ডেলে ঈদ ফ্যাশন:

ভালো লাগলে কিনুনভালো লাগলে কিনুন
পবিত্র ঈদ-উল-ফিতরকে সামনে রেখে দেশের নামিদিমি ফ্যাশন হাউস ও সুষ্টোর গুলো বাহারি কালেকশন নিয়ে হাজির হয়েছে। হাল সময়ে বাজারে পাওয়া যাচ্ছে দেশি-বিদেশি বিভিন্ন ব্র্যান্ডের নানা ডিজাইনের স্যান্ডেল। তাই এখনকার ছেলেদের পছন্দের তালিকা স্থান পেয়েছে স্বস্তির জন্য নান্দনিক ডিজাইনের স্যান্ডেল। পাঞ্জাবি ও পায়জামার সাথে কিছুটা খোলামেলা চামড়ার স্যান্ডেল পরতে বেশ আরামদায়ক। আর তা যদি হয় ফ্যাশনেবল তো কথাই নেই।

ভালো লাগলে কিনুনভালো লাগলে কিনুনরাজধানীর বিভিন্ন শপিং মলসহ বিভিন্ন ব্র্যান্ডের আউটলেটে ঘুরে দেখা গেছে, নান্দনিক ডিজাইনের ও বাহারি রংয়ের স্যান্ডেল। এসব স্যান্ডেলে ব্যবহূত মোটিফে রয়েছে বৈচিত্র্য এবং নানা রঙের ব্যবহার। গতানুগতিক কালো, ঘিয়া, চকলেট ইত্যাদি রং তো আছেই। কিছু স্যান্ডেল আবার দারুণ বর্ণিল। বর্তমানে বিভিন্ন ব্র্যান্ড তরুণদের পছন্দের কথা মাথায় রেখে স্যান্ডেলের ডিজাইন করছেন।

ভালো লাগলে কিনুনভালো লাগলে কিনুনসময়ের সাথে চলনসই অর্থাৎ যখন যে ট্রেন্ড চলে সেই অনুযায়ী জুতা ও স্যান্ডেলের ডিজাইন করেন তারা। সময় ও ফ্যাশনের সাথে মিলিয়ে পরা যায় এমনি সব জুতা ও স্যান্ডেল দিয়ে বিক্রেতারা তাদের আউটলেটগুলো সাজিয়েছেন। শপিং সেন্টারগুলো দেখা যায়, বিদেশি ব্র্যান্ডের স্যান্ডেলের ডিজাইনের মতো কিছু ডিজাইন আছে যেগুলো অনেক বাহারি রঙের। তরুণরা জিন্স ও টিশার্টের সাথে ম্যাচিং করে এগুলো পরতে পারবেন। ঢোলা জিন্স বা চাপা জিন্সের সাথে যেমন এগুলো পরা যায়, তেমনি চোস পায়জামার সাথেও পরা যায়। আবার গরমের কথা মাথায় রেখে দুই ফিতার স্যান্ডেলেও রয়েছে নান্দনিক ডিজাইন। আর হালকা সোলের এই স্যান্ডেলগুলো পরতে যেমন আরাম তেমনি দেখতেও যথেষ্ট ফ্যাশনেবল।

ভালো লাগলে কিনুনভালো লাগলে কিনুনবাজারে বিভিন্ন দামের স্যান্ডেল রয়েছে। ব্র্যান্ড ও ডিজাইন ভেদে স্যান্ডেল কিনতে পাবেন ২০০ থেকে ৫০০০ টাকায়। দেশের যে কোন সুষ্টোর থেকেই আপনি আপনার পছন্দের স্যান্ডেল কিনে নিতে পারেন। তবে যারা ঘরে বসে অনলাইন মার্কেটপ্লেসে হাজারও কালেকশনের মধ্য থেকে পছন্দের পণ্যটি কিনতে চান তারা এখনি এখানে ক্লিক করুন

*স্যান্ডেল* *ঈদফ্যাশন* *স্মার্টশপিং*

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

বর্ষায় জুতা নির্বাচন একটু ঝামেলারই বটে। সাধারণ চামড়ার জুতা বৃষ্টিজলে দ্রুত নষ্ট হয়। আর বর্ষা মানেই পায়ের নিচে নোংরা কাদাজল। বর্ষায় চামড়ার জুতা দিয়ে কাদা পানির ঝক্কি সামলানো মুশকিল। তাই এ সময় চাই রাবার, স্পঞ্জ, রেক্সিন, সিনথেটিক কিংবা প্লাস্টিকের মতো বর্ষার উপযোগী স্যান্ডেল। পানিতে ভিজলেও কিচ্ছু হবে না আবার কাদার মাখামাখিতেও ভয় নেই। সব মিলিয়ে পথ চলতে পারবেন বিনা বাধায়। 

কিনতে ক্লিক করুন

চামড়া বা রেক্সিনের জুতো পানিতে খুব দ্রুত নষ্ট হয়। সে কথা মাথায় রেখে পরতে পারেন নরম রাবার বা প্লাস্টিকের তৈরি স্যান্ডেল। একটা সময় শুধু দুই ফিতার স্পঞ্জের স্যান্ডেলই পাওয়া যেত। এখন এসব স্যান্ডেলে এসেছে নকশার ভিন্নতা ও রঙের বৈচিত্র্য। সারা বছর এক ভাবে হাটা চলা করলেও বৃষ্টিতে সবাইকেই বিপাকে পড়তে হয়। যদি ঘরে কোন রাবারের স্যান্ডেল না থাকে তবে তো সমস্যা আরো বেশি। চামড়ার জুতা ভিজে ভারি হয়ে যায়।

কিনতে ক্লিক করুন

ভেজা জুতা পড়ে থাকলে সারাক্ষণ অস্বস্তির মধ্যে থাকতে হয়। তখন দৌড়াতে হয় প্লাস্টিকের স্যান্ডেল কিনতে। কিন্তু বৃষ্টিতে সব ধরনের স্যান্ডেলও আবার আরামদায়ক নয়। আর পায়ের যত্ন বলে কথা! বৃষ্টিতে পা ভিজে অনেক সময় ফুসকুড়ি, চুলকানির মতো নানা ধরনের চর্মরোগ হতে পারে। বর্ষায়ও জুতা খোলামেলা হওয়াই ভালো। তবে খোলামেলা বা আঁটসাঁট যেমনই নির্বাচন করুন না কেন, নিয়মিত পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে পা ও পাদুকা উভয়ই। তাই একটু খোঁজ নিয়ে বাছাই করেই স্যান্ডেল কেনা উচিত।

কিনতে ক্লিক করুন

গ্রীষ্ম, বর্ষা, শীত সব ঋতুতেই চপ্পল পছন্দ অনেকেরই। বর্ষার কথা মাথায় রেখেই বাজারে এসেছে রাবার, রেক্সিন ও স্পঞ্জের তৈরি বিভিন্ন ডিজাইনের চপ্পল এবং স্যান্ডেল। এগুলো পরতে যেমন আরামদায়ক, তেমনি পানিতে এর ঔজ্জ্বল্য নষ্ট হয় না, আবার দামেও সাশ্রয়ী।

কিনতে ক্লিক করুন

এখন অনেক তরুণ-তরুণীকেই আটপৌরে সাজের সঙ্গে নানা রকমের বাহারি চপ্পল পরতে দেখা যায়। বর্ষায় যেহেতু উজ্জ্বল রঙের পোশাক বেশি পরা হয়, তাই চপ্পল ও স্যান্ডেলও তৈরি হচ্ছে বাহারি রঙে। বাজার পাবেন বিভিন্ন রঙের চপ্পল ও স্যান্ডেল। বিশেষ করে গোলাপি, কালো, বেগুনি, সাদা, সবুজ ইত্যাদি রঙের চলই বেশি। এসব স্যান্ডেলের নকশাও নজর কাড়া। ফুল, রেখা ও জ্যামিতিক নকশা বেশ কয়েক বছর ধরেই জনপ্রিয়, সেই সঙ্গে যুক্ত হয়েছে প্লাস্টিকের সঙ্গে ভেলভেটের কাজ করা স্যান্ডেল। মেয়েদের স্যান্ডেলে ছোট ছোট চুমকি ও পুঁতির সামান্য কাজ বরাবরের মতো জনপ্রিয়। 

কিনতে ক্লিক করুন

কোথায় পাবেন: বৈচিত্র্যময় নকশা করা বিভিন্ন রঙের চপ্পল ও স্যান্ডেল পাওয়া যাবে নিউমার্কেট ও চাঁদনী চকে। নকশা ও মানের ওপর ভিত্তি করে রাবার ও স্পঞ্জের জুতার দাম ৩০০ থেকে ১০০০ টাকা। এ ছাড়া বিভিন্ন দেশীয় ফ্যাশন হাউস ও ব্র্যান্ডের দোকানগুলোতে পাবেন পছন্দমতো চপ্পল ও স্যান্ডেল। তাই আর দেরি নয়, বৃষ্টির সঙ্গে পাল্লা দিয়ে চলার জন্য দ্রুত কিনে ফেলুন বর্ষার বাহারি পাদুকা। অনলাইনে কিনতে চাইলে আজকের ডিলে একবার ঢু মেরে দেখতে পারেন। দামও কম, পেয়ে যাবেন ৫০০ টাকার মধ্যে।

*বর্ষাকাল* *পাদুকা* *স্যান্ডেল* *জুতা* *লিপস্টিকস্যান্ডেল*

মৃন্ময়ী সাবিহা: ঘুম থেকে উঠেই একি বিপদ!!!!!!(ব্যাপকটেনশনেআসি) চোরে আমাদের বাসার যত *স্যান্ডেল* *জুতো* আছে,সব নিয়ে গেছে!(মাইরালা)(মাইরালা২)

বেশতো সাইট টিতে কোনো কন্টেন্ট-এর জন্য বেশতো কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

কনটেন্ট -এর পুরো দায় যে ব্যক্তি কন্টেন্ট লিখেছে তার।

...বিস্তারিত

QA

★ ঘুরে আসুন প্রশ্নোত্তরের দুনিয়ায় ★