হিজাব

হিজাব নিয়ে কি ভাবছো?

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

সামনে রমজান মাস। এমাসে সিয়াম সাধনার পাশাপাশি সবাই পর্দানশীল থাকতে পছন্দ করেন। এছাড়াও যারা ধর্মভীরু তারা সবসময় ফ্যাশন করতে চায় পর্দা মেনে। সেজন্য ইসলামি ফ্যাশনের সাথে মানানসই বিভিন্ন রকম পোশাকের সাথে নিজেদের মানিয়ে নিচ্ছেন অনেকেই। ধর্মভীরু প্রতিটি নারীর পছন্দের একটি পোশাক হলো হিজাব। মাথার চুল ঢেকে রাখাই এই হিজাবের মুখ্য উদ্দেশ্য। হিজাবের পাশাপাশি বোরকা, আবায়া ও স্কার্ফ বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। চলুন পর্দার সহিত ফ্যাশনেবল হয়ে উঠার মত কয়েকটি ইসলামিক পোশাকের কালেকশন দেখে নেই।

বোরকাঃ

 

বোরকা আমাদের ধর্মীয় পোশাক হলেও এখন এটি ফ্যাশন হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে। বোরকা সম্পর্কে প্রথমেই যা বুঝতে হবে তা হচ্ছে, এটি সৌন্দর্য প্রকাশের জন্য নয়; সৌন্দর্য আবৃত রাখার জন্য। এমন বোরকা ব্যবহার করতে হবে, যা এই উদ্দেশ্য পূরণ করে।


বোরকার ব্যবহার অনেক আগেও ছিলো, রয়েছে সবসময়। তবে পরিবর্তন হয়েছে ধরন-ধারণে। পর্দা বা শালীনভাবে চলার পাশাপাশি বোরকা এখন মেয়েদের ফ্যাশনও। সেই ফ্যাশনও পরিববর্তন হচ্ছে দিনকে দিন। তবে যারা বোরকা, হিজাব কিংবা আবায়া পড়েন তারা সেই পোশাকের মধ্য দিয়েই নিজেকে ফুটিয়ে তোলেন। সব মুসলিম দেশেই একে আবায়া বোরকা বলে।

হিজাবঃ

 

একটা সময় ছিল যখন নারীরা পর্দা করার উদ্দেশ্যে বোরকার সাথে হিজাব ব্যবহার করতেন। তবে বর্তমানে হিজাব শুধু গুটিকয়েক নারীর মাঝে সীমাবদ্ধ নয়। এটি একটি ফ্যাশন ট্রেন্ড হিসাবে ছড়িয়ে পড়েছে সব বয়সের নারী ও তরুনীদের মাঝে। হিজাব যেমন পর্দা করার জন্য উপকারী, ঠিক তেমনি এর রয়েছে আরও অনেক উপকারী দিকও। বাইরে বের হলে আপনার ত্বক এবং চুলের সব থেকে বড় শত্রু হল ধুলাবালি ও ক্ষতিকর সূর্যকিরণ।আপনার ত্বক এবং চুলকে রক্ষা করার একটি ভাল উপায় হতে পারে হিজাব ব্যবহার। শুধু বোরকার সাথে নয়, হিজাব পরতে পারেন শাড়ি, কামিজ, কুর্তা বা অন্য যে কোনো পোশাকের সাথে।

স্কার্ফঃ

 

হিজাবের পাশাপাশি অনেক তরুণী পিন দিয়ে আটকে স্কার্ফ ব্যবহার করেন। আর পার্টি, অনুষ্ঠান কিংবা বিশেষ দিনে পোশাকের রঙের সঙ্গে রঙ মিলিয়ে স্কার্ফ পরাও বেশ জনপ্রিয়। টপস কিংবা ফতুয়া যা-ই হোক না কেনো এর সঙ্গে মিলিয়ে স্কার্ফ ব্যবহার করেন প্রায় সব তরুণী। কখনো একরঙা আবার কখনো বা বহু রঙের মিশেলে তৈরি স্কার্ফ তরণীদের পছন্দের তালিকায় শীর্ষে থাকে।

কোথায় থেকে কিনবেন?

রাজধানীসহ দেশের সব শপিংমল গুলোতেই ধর্মীয় পোশাক পাওয়া যাবে। কেনা যাবে ৪০০-১০০০০ টাকায়। তবে সবচেয়ে লেটেস্ট কালেকশনগুলো পাওয়া যাবে অনলাইন শপগুলোতে। তাই যারা ঘরে বসে বোরকা ও হিজাবের নান্দনিক সাজে নিজেকে সাজাতে চান তারা ঘুরে আসতে পারেন বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় অনলাইন শপিংমল আজকের ডিল থেকে। তাদের কালেকশন দেখতে ও কিনতে এখানে ক্লিক করুন

*ইসলামিকফ্যাশন* *স্পন্সরডকনটেন্ট* *আজকেরডিল* *হিজাব*

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

বোরকা এক ধরনের ধর্মীয় পোশাক। শরীরকে আবৃত করে বাড়ির বাইরে বের হবার জন্য মেয়েরা বোরকা ও হিজাব পরিধান করে। তবে বোরকা এখন আর ধর্মীয় পোশাকের মধ্যে সীমাবদ্ধ নেই এটি এখন ফ্যাশনের অন্যতম একটি অংশ। আমাদের একটি কথা মনে রাখা উচিৎ বোরকা সৌন্দর্য প্রকাশের জন্য নয়; সৌন্দর্য আবৃত রাখার জন্য। এমন বোরকা ব্যবহার করতে হবে, যা এই উদ্দেশ্য পূরণ করে।

বোরকার ব্যবহার অনেক আগেও ছিলো, রয়েছে সবসময়। তবে পরিবর্তন হয়েছে ধরন-ধারণে। পর্দা বা শালীনভাবে চলার পাশাপাশি বোরকা এখন মেয়েদের ফ্যাশনও। সেই ফ্যাশনও পরিববর্তন হচ্ছে দিনকে দিন। বোরকা এখন লং থেকে রূপান্তরিত হয়েছে শর্ট, থ্রি-কোয়ার্টারে। তবে যারা বোরকা, হিজাব কিংবা আবায়া পড়েন তারা সেই পোশাকের মধ্য দিয়েই নিজেকে ফুটিয়ে তোলেন। সব মুসলিম দেশেই একে আবায়া বোরকা বলে।

চলুন যুগের সাথে মানানসই বেশ কিছু বোরকা ও হিজাবের লেটেস্ট কালেকশন দেখে নেই-

রেডিমেড গাউন স্টাইল বোরকা

কিনতে ক্লিক করুন

হিজাব ইনার ক্যাপ

.

কিনতে ক্লিক করুন

রেডিমেড গাউন স্টাইল বোরকা

কিনতে ক্লিক করুন

 

রেডিমেড গাউন স্টাইল বোরকা

কিনতে ক্লিক করুন

ডাবল লেয়ার নিনজা ইনার হিজাব

রাজধানীসহ দেশের সব শপিংমল গুলোতেই বোরকা পাওয়া যাবে। কেনা যাবে ৪০০-১০০০০ টাকায়। তবে সবচেয়ে লেটেস্ট কালেকশনগুলো পাওয়া যাবে অনলাইন শপগুলোতে। তাই যারা ঘরে বসে বোরকা ও হিজাবের নান্দনিক সাজে নিজেকে সাজাতে চান তারা ঘুরে আসতে পারেন বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় অনলাইন শপিংমল আজকের ডিল থেকে। বোরকা ও হিজাবের কালেকশন দেখতে এখানে ক্লিক করুন

*বোরকা* *হিজাব* *ধর্মীয়পোশাক* *স্মার্টশপিং*

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

একটা সময় ছিল যখন নারীরা পর্দা করার উদ্দেশ্যে বোরকার সাথে হিজাব ব্যবহার করতেন। তবে বর্তমানে হিজাব শুধু গুটিকয়েক নারীর মাঝে সীমাবদ্ধ নয়। এটি একটি ফ্যাশন ট্রেন্ড হিসাবে ছড়িয়ে পড়েছে সব বয়সের নারী ও তরুনীদের মাঝে। হিজাব যেমন পর্দা করার জন্য উপকারী, ঠিক তেমনি এর রয়েছে আরও অনেক উপকারী দিকও। বাইরে বের হলে আপনার ত্বক এবং চুলের সব থেকে বড় শত্রু হল ধুলাবালি ও ক্ষতিকর সূর্যকিরণ।আপনার ত্বক এবং চুলকে রক্ষা করার একটি ভাল উপায় হতে পারে হিজাব ব্যবহার। শুধু বোরকার সাথে নয়, হিজাব পরতে পারেন শাড়ি, কামিজ, কুর্তা বা অন্য যে কোনো পোশাকের সাথে।

পবিত্র ঈদ-উল-আজহার আর মাত্র কয়েক দিন বাকি। মুসলমানদের সবচেয়ে বড় এই ধর্মীয় উৎসবকে সামনে রেখে শপিং নিয়েও অনেকে এখন হয়তো ব্যস্ত সময় পার করছেন। চলুন জেনে নেওয়া যাক সামনের এই ঈদের জনপ্রিয় কিছু হিজাব ট্রেন্ড সম্পর্কে।

ঢোলা ম্যাক্সি ড্রেসের সাথে ফুলেল প্রিন্টের পোশাক এই সিজনের জন্য বেশ উপযুক্ত। ফুলেল প্রিন্টের ম্যাক্সির সাথে পরতে পারেন সাদা ব্লাউজ এবং ম্যাক্সির সাথে ম্যাচিং হিজাব। এতে আপনার যেমন ক্লাসিক লুক বজায় থাকবে তেমনি এই পোশাক পরে ঈদের দিন সকালে বেড়াতে যেতে পারেন যে কারো বাসায়। ঈদের জন্য আরও পরতে পারেন লম্বা হাতাযুক্ত আবায়া। আপনি যদি মনে করেন, ঈদের দিন সকালে আপনার বাসায় মেহমান আসবে তাহলে এই পোশাকটি বেছে নিতে পারেন।

কিনতে ক্লিক করুন 

আপনি যদি আরেকটু ক্যাজুয়াল এবং স্পোর্টি লুক বেছে নিতে চান, তাহলে সাধারণ প্যান্টস এবং লম্বা হাতাযুক্ত টপস বেছে নিতে পারেন। এবং টপসের সাথে ম্যাচিং করে হিজাব করতে পারেন। সাথে পরতে পারেন ট্রেঞ্চ সামার জ্যাকেট এবং স্নিকারস অথবা ফ্ল্যাট শু। ভেস্ট এবং লম্বা হাতাযুক্ত আইটেম এই সিজনের সবচেয়ে জনপ্রিয় আইটেম। সুতরাং ফুলেল প্রিন্টের একটি পোশাক বেছে নিন। চাইলে এটি পরতে পারেন জিন্সের সাথেও। 

 কিনতে ক্লিক করুন 

হিজাব ব্যবহারের ক্ষেত্রে পোশাকের রং ও ধরণকে মাথায় রেখে হিজাব বাছাই করতে হবে। পোশাকের রঙের সাথে মিলিয়ে বা বিপরীত রঙের হিজাব ব্যবহার করতে পারেন। যদি পোশাকটি বেশী নকশা করা বা প্রিন্টের হয় তবে সেক্ষেএে একরঙা হিজাব নির্বাচন করুন। আবার পোশাকটি হালকা কাজের বা একরঙা হলে তার জন্য বেছে নিন বিপরীত রঙের বা নকশা করা ও প্রিন্টের হিজাব। হিজাব পড়ার আগে অবশ্যই পোশাকের হাতের দিক নজর দিন।

কিনতে ক্লিক করুন 

পোশাকের হাতা যেন অবশ্যই ফুলহাতা বা থ্রি কোয়াটার হাতা হয়। কারণ হিজাবের সাথে ছোট হাতার পোশাক একদমই বেমানান। বাজার ঘুরে কটন , লেস, জর্জেট ও সাটিনসহ নানা ধরনের কাপড়ের হিজাব দেখা যায়। কাপড়ের মান ও নকশার উপর ভিওি করে এগুলোর দাম নির্ধারণ করা হয়েছে। বেছে নিন নিজের বাজেটের মাঝে। হিজাব শুধু পর্দা করার ক্ষেত্রেই না , নারীদের সৌন্দর্য বর্ধনেও পিছিয়ে নেই। চাইলেই হিজাব পড়ার আগে চোখ বুলিয়ে নিতে পারেন আজকের ডিলের পেজে। সেখান থেকেই পেয়ে যাবেন আপনার রুচিমত একটি স্টাইল ।

কিনতে ক্লিক করুন 

ঢাকায় হিজাবের সবচেয়ে বড় মার্কেট হচ্ছে বসুন্ধরা সিটির লেভেল ফোর। এই ফ্লোরে প্রায় দেড়শো দোকান রয়েছে হিজাব ও বোরকার। শুধুমাত্র হিজাব বিক্রি করে এমন দোকানও অনেক রয়েছে। মার্কেটের নিচতলাতেই ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে অনেকগুলো হিজাব ও বোরকার দোকান। এছাড়াও ঢাকার প্রতিটি মার্কেট ও শপিং প্লাজায় রয়েছে হিজাব ও বোরকার দোকান। সময়টা এখন ফ্যাশনের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলা, তাই বোরকাও আর আগের মতো নেই। গাউন, ওভারকোট ও ভিন্ন ভিন্ন ডিজাইনের বোরকা পাওয়া যায় বাজারে। রয়েছে প্রায় ৪-৫ ধরনের হাজারো রঙের হিজাব। মাথা থেকে কোমড় পর্যন্ত ঢেকে রাখে মাদানী হিজাব। সাধারণত হজ্বের সময় এই হিজাব পরেন নারীরা। নামাযের সময়ও এই হিজাব ব্যবহার করা যায়। মাদানী হিজাবের চেয়ে একটু ছোট হিজাবকে কুচি হিজাব বলে। এই হিজাব দিয়ে গলা ও বুক ঢেকে রাখা যায় খুব সহজেই।

hijan

কিনতে ক্লিক করুন 

কাপড়, ডিজাইন ও প্রাপ্তির স্থানভেদে হিজাবের দামে রয়েছে তারতম্য। বসুন্ধরা সিটি শপিংমল এবং ঢাকার অন্যান্য মার্কেটগুলোতে শর্ট হিজাবগুলো ২০০টাকা থেকে ৯৫০ টাকায় পাওয়া যাবে। অনলাইনে কিনতে চাইলে আজকের ডিল এখন ফ্যাশনেবল নারীদের প্রথম পছন্দ l হিজাবের ওড়না পাওয়া যাবে ৪০০ টাকা থেকে ১২০০ টাকায়। মাদানী হিজাবের দাম ৩০০ থেকে ৭৫০ টাকা। আর ৩০০টাকার মধ্যেই কেনা যাবে খোপা হিজাব।
 

ঈদে আপনার সঙ্গে মানানসই হিজাব ট্রেন্ডকে উপভোগ করুন। পরিবারের সঙ্গে আপনার ঈদ উদযাপনের শুভকামনা রইল।

*হিজাব* *হালফ্যাশন* *পর্দা* *অনলাইনশপিং*

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

একটা সময় ছিল যখন নারীরা পর্দা করার উদ্দেশ্যে বোরকার সাথে হিজাব ব্যবহার করতেন। তবে বর্তমানে হিজাব শুধু গুটিকয়েক নারীর মাঝে সীমাবদ্ধ নয়। এটি একটি ফ্যাশন ট্রেন্ড হিসাবে ছড়িয়ে পড়েছে সব বয়সের নারী ও তরুনীদের মাঝে। হিজাব যেমন পর্দা করার জন্য উপকারী, ঠিক তেমনি এর রয়েছে আরও অনেক উপকারী দিকও। বাইরে বের হলে আপনার ত্বক এবং চুলের সব থেকে বড় শত্রু হল ধুলাবালি ও ক্ষতিকর সূর্যকিরণ।আপনার ত্বক এবং চুলকে রক্ষা করার একটি ভাল উপায় হতে পারে হিজাব ব্যবহার। শুধু বোরকার সাথে নয়, হিজাব পরতে পারেন শাড়ি, কামিজ, কুর্তা বা অন্য যে কোনো পোশাকের সাথে।

কিনতে ক্লিক করুন l  স্কুল কলেজ সহ সকল কর্মস্থলে মেয়েরা অনায়াসে ব্যবহার করতে পারেন হিজাব। হিজাব ব্যবহারের ক্ষেত্রে পোশাকের রং ও ধরণকে মাথায় রেখে হিজাব বাছাই করতে হবে। পোশাকের রঙের সাথে মিলিয়ে বা বিপরীত রঙের হিজাব ব্যবহার করতে পারেন। যদি পোশাকটি বেশী নকশা করা বা প্রিন্টের হয় তবে সেক্ষেএে একরঙা হিজাব নির্বাচন করুন। আবার পোশাকটি হালকা কাজের বা একরঙা হলে তার জন্য বেছে নিন বিপরীত রঙের বা নকশা করা ও প্রিন্টের হিজাব। হিজাব পড়ার আগে অবশ্যই পোশাকের হাতের দিক নজর দিন।

কিনতে ক্লিক করুন l পোশাকের হাতা যেন অবশ্যই ফুলহাতা বা থ্রি কোয়াটার হাতা হয়। কারণ হিজাবের সাথে ছোট হাতার পোশাক একদমই বেমানান। বাজার ঘুরে কটন , লেস, জর্জেট ও সাটিনসহ নানা ধরনের কাপড়ের হিজাব দেখা যায়। কাপড়ের মান ও নকশার উপর ভিওি করে এগুলোর দাম নির্ধারণ করা হয়েছে। বেছে নিন নিজের বাজেটের মাঝে। হিজাব শুধু পর্দা করার ক্ষেত্রেই না , নারীদের সৌন্দর্য বর্ধনেও পিছিয়ে নেই। চাইলেই হিজাব পড়ার আগে চোখ বুলিয়ে নিতে পারেন আজকের ডিলের পেজে। সেখান থেকেই পেয়ে যাবেন আপনার রুচিমত একটি স্টাইল ।

কিনতে ক্লিক করুন l প্রতিদিনের কর্মস্থলে আর স্কুল কলেজে তো আছেই, আজকাল অনেক বিয়ের অনুষ্ঠানে কনেকে হিজাব পড়ে উপস্থিত হতে দেখা যায়। তাই বুঝতেই পারছেন প্রতিনিয়ত হাল ফ্যাশনের সাথে তাল মিলিয়ে হিজাবও কিন্তু পিছিয়ে নেই। তাই নতুন ট্রেন্ডের সাথে তাল মিলিয়ে বাজার ঘুরে আপনিও বেছে নিতে পারেন আপনার পছন্দমত হিজাবটি। আর পর্দা করার পাশাপাশি নিজেকে দিতে পারেন ফ্যাশনেবল একটি লুক। আর নিজেকে করে তুলতে পারেন মার্জিত আর অনেকটাই আলাদা। বিগত কয়েক বছরে বাংলাদেশের নারীদের মাঝেও দেখা গেছে অভিজাত, রং বাহারী, ভিন্ন ভিন্ন কাপড়, আরাম ও ফ্যাশনেবল হিজাবের বহুল ব্যবহার। ধর্মের প্রতি যথাযথ সম্মান রেখেই নিজেকে ফ্যাশন সচেতন হিসেবে উপস্থাপনের উদ্দেশ্যেই এমন হিজাবের ব্যবহার করেন নারীরা।

কিনতে ক্লিক করুন l ঢাকায় হিজাবের সবচেয়ে বড় মার্কেট হচ্ছে বসুন্ধরা সিটির লেভেল ফোর। এই ফ্লোরে প্রায় দেড়শো দোকান রয়েছে হিজাব ও বোরকার। শুধুমাত্র হিজাব বিক্রি করে এমন দোকানও অনেক রয়েছে। মার্কেটের নিচতলাতেই ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে অনেকগুলো হিজাব ও বোরকার দোকান। এছাড়াও ঢাকার প্রতিটি মার্কেট ও শপিং প্লাজায় রয়েছে হিজাব ও বোরকার দোকান। সময়টা এখন ফ্যাশনের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলা, তাই বোরকাও আর আগের মতো নেই। গাউন, ওভারকোট ও ভিন্ন ভিন্ন ডিজাইনের বোরকা পাওয়া যায় বাজারে। রয়েছে প্রায় ৪-৫ ধরনের হাজারো রঙের হিজাব। মাথা থেকে কোমড় পর্যন্ত ঢেকে রাখে মাদানী হিজাব। সাধারণত হজ্বের সময় এই হিজাব পরেন নারীরা। নামাযের সময়ও এই হিজাব ব্যবহার করা যায়। মাদানী হিজাবের চেয়ে একটু ছোট হিজাবকে কুচি হিজাব বলে। এই হিজাব দিয়ে গলা ও বুক ঢেকে রাখা যায় খুব সহজেই।

কিনতে ক্লিক করুন l কিন্তু ফ্যাশনেবল তরুণীরা হিজাবকে আরো ছোট ও সহজে পরার জন্য বেছে নেন শর্ট হিজাব বা ফিক্সড হিজাব। এতে পিনের কোন ঝামেলা নেই। অবশ্য এ হিজাবের উপর ওড়নাও পরেন অনেকে। ওড়না হিজাবও বেশ জনপ্রিয়। ওড়নার মাঝখানে একটি ক্যাপ যুক্ত থাকে, সেটি মাথায় পরে নিলেই সম্পন্ন হয় হিজাব পরা। তবে ওড়নাটি পেঁচিয়ে পিন দিয়ে আটকে রাখতে হয়। এই হিজাবের প্রচলনই এখন সবচেয়ে বেশি। হিজাবের পাশাপাশি অনেক তরুণী পিন দিয়ে আটকে স্কার্ফ ব্যবহার করেন। আর পার্টি, অনুষ্ঠান কিংবা বিশেষ দিনে পোশাকের রঙের সঙ্গে রঙ মিলিয়ে হিজাব পরাও বেশ জনপ্রিয়।

কিনতে ক্লিক করুন l কাপড়, ডিজাইন ও প্রাপ্তির স্থানভেদে হিজাবের দামে রয়েছে তারতম্য। বসুন্ধরা সিটি শপিংমল এবং ঢাকার অন্যান্য মার্কেটগুলোতে শর্ট হিজাবগুলো ২০০টাকা থেকে ৯৫০ টাকায় পাওয়া যাবে। অনলাইনে কিনতে চাইলে আজকের ডিল এখন ফ্যাশনেবল নারীদের প্রথম পছন্দ l  হিজাবের ওড়না পাওয়া যাবে ৪০০ টাকা থেকে ১২০০ টাকায়। মাদানী হিজাবের দাম ৩০০ থেকে ৭৫০ টাকা। আর ৩০০টাকার মধ্যেই কেনা যাবে খোপা হিজাব।

*হিজাব* *হালফ্যাশন* *পর্দা* *অনলাইনশপিং*

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

ধর্মভীরু প্রতিটি নারীর পছন্দের একটি পোশাক হলো হিজাব। মাথার চুল ঢেকে রাখাই এই হিজাবের মুখ্য উদ্দেশ্য। হিজাব যেমন পর্দা করার জন্য উপকারি, ঠিক তেমনি এর রয়েছে আরও অনেক উপকারি দিকও। শুধু বোরকার সাথে নয়, হিজাব পরতে পারেন শাড়ি, কামিজ, কুর্তা বা অন্য যে কোনো পোশাকের সাথে। স্কুল কলেজ সহ সকল কর্মস্থলে মেয়েরা অনায়াসে ব্যবহার করতে পারেন হিজাব।























*হিজাব* *পর্দা* *আধুনিকহিজাব* *মেয়েদেরফ্যাশন* *স্মার্টশপিং*
খবর

Online Khobor: একটি খবর জানাচ্ছে

সৌখিন হিজাবীদের কথা বলছি - Online Khobor
http://onlinekhobor.com/lifestyle/news/26469
অনলাইন খবর ডটকমঃ   অনেকদিন ধরে ভাবছি হিজাব নিয়ে লিখবো। হিজাব ...বিস্তারিত
*হিজাব* *লাইফস্টাইল* *জীবন* *রুপচর্চা* *টিপস* *বিউটিটিপস* *অনলাইনখবর*
২২২ বার দেখা হয়েছে
জোকস

আলোহীন ল্যাম্পপোস্ট: একটি জোকস পোস্ট করেছে

৫/৫
পত্রিকাতে একটা বিজ্ঞাপন দেওয়া হলো__ এমন একটা জিনিস বিক্রয় করা হবে,যা ব্যবহার করলে আপনাকে কেউ আর দেখতে পাবেনা।সাথে gift ফ্রি। দাম:১০,০০০/- বিজ্ঞাপনটা দেখে এক মেয়ে জিনিসটি কিনে এনে প্যাকেট টি খুলে বেহুস হয়ে গেল। কারণ প্যাকেটের ভেতরে ছিল_ ... .... .... .... ... একটা বোরকা এবং সাথে নেকাব ও হিজাব ফ্রি।(খুশী২)
*রসিকতা* *মেয়ে* *হিজাব*
ছবি

বিডি আইডল: ফটো পোস্ট করেছে

★ছায়াবতী★: একটি বেশব্লগ লিখেছে




একটা সময় ছিল যখন নারীরা পর্দা করার উদ্দেশ্যে বোরকার সাথে হিজাব ব্যবহার করতেন। তবে বর্তমানে হিজাব শুধু গুটিকয়েক নারীর মাঝে সীমাবদ্ধ নয়। এটি একটি ফ্যাশন ট্রেন্ড হিসাবে ছড়িয়ে পড়েছে সব বয়সের নারী ও তরুনীদের মাঝে। হিজাব যেমন পর্দা করার জন্য উপকারী, ঠিক তেমনি এর রয়েছে আরও অনেক উপকারী দিকও। বাইরে বের হলে আপনার ত্বক এবং চুলের সব থেকে বড় শত্রু হল ধুলাবালি ও ক্ষতিকর সূর্যকিরণ।আপনার ত্বক এবং চুলকে রক্ষা করার একটি ভাল উপায় হতে পারে হিজাব ব্যবহার। শুধু বোরকার সাথে নয়, হিজাব পরতে পারেন শাড়ি, কামিজ, কুর্তা বা অন্য যে কোনো পোশাকের সাথে। স্কুল কলেজ সহ সকল কর্মস্থলে মেয়েরা অনায়াসে ব্যবহার করতে পারেন হিজাব। হিজাব ব্যবহারের ক্ষেত্রে পোশাকের রং ও ধরণকে মাথায় রেখে হিজাব বাছাই করতে হবে। পোশাকের রঙের সাথে মিলিয়ে বা বিপরীত রঙের হিজাব ব্যবহার করতে পারেন। যদি পোশাকটি বেশী নকশা করা বা প্রিন্টের হয় তবে সে ক্ষেএে একরঙা হিজাব নির্বাচন করুন। আবার পোশাকটি হালকা কাজের বা একরঙা হলে তার জন্য বেছে নিন বিপরীত রঙের বা নকশা করা ও প্রিন্টের হিজাব। হিজাব পড়ার আগে অবশ্যই পোশাকের হাতের দিক নজর দিন। পোশাকের হাতা যেন অবশ্যই ফুলহাতা বা থ্রি কোয়াটার হাতা হয়। কারণ হিজাবের সাথে ছোট হাতার পোশাক একদমই বেমানান। বাজার ঘুরে কটন , লেস, জর্জেট ও সাটিনসহ নানা ধরনের কাপড়ের হিজাব দেখা যায়। কাপড়ের মান ও নকশার উপর ভিওি করে এগুলোর দাম নির্ধারণ করা হয়েছে। বেছে নিন নিজের বাজেটের মাঝে। হিজাব শুধু পর্দা করার ক্ষেত্রেই না , নারীদের সৌন্দর্য বর্ধনেও পিছিয়ে নেই। ইন্টারনেটে রয়েছে বিভিন্ন পেজ, সাইট, ভিডিও ইত্তাদ যেখানে নানাভাবে হিজাব পরার পদ্ধতি ছবিসহ বর্ণনা করা থাকে। চাইলেই হিজাব পড়ার আগে চোখ বুলিয়ে নিতে পারেন এসব পেজগুলোতে। সেখান থেকেই পেয়ে যাবেন আপনার রুচিমত একটি স্টাইল । প্রতিদিনের কর্মস্থলে আর স্কুল কলেজে তো আছেই, আজকাল অনেক বিয়ের অনুষ্ঠানে কনেকে হিজাব পড়ে উপস্থিত হতে দেখা যায়। তাই বুঝতেই পারছেন প্রতিনিয়ত হাল ফ্যাশনের সাথে তাল মিলিয়ে হিজাবও কিন্তু পিছিয়ে নেই। তাই নতুন ট্রেন্ডের সাথে তাল মিলিয়ে বাজার ঘুরে আপনিও বেছে নিতে পারেন আপনার পছন্দমত হিজাবটি। আর পর্দা করার পাশাপাশি নিজেকে দিতে পারেন ফ্যাশনেবল একটি লুক। আর নিজেকে করে তুলতে পারেন মার্জিত আর অনেকটাই আলাদা।
*হিজাব* *ফ্যাশনট্রেন্ড*

পরী: একটি বেশব্লগ লিখেছে

মেয়ে ঝকঝকে নতুন একটা iPhone কিনলো। শুধু তাই না, সাথে একটি স্ক্রিন প্রটেকটর এবং সুন্দর একটা কাভারও কিনলো। সে তার বাবাকে ফোনটা দেখালো, এরপর তাদের মধ্যে কী কথোপকথন হল পড়ুনঃ

বাবাঃ খুব সুন্দর মোবাইল এটি। কত দিয়ে কিনলে?

মেয়েঃ এই তো ৫০,০০০ টাকা দিয়ে ফোন, ১২০০ টাকা দিয়ে কাভার আর ২০০ টাকা দিয়ে স্ক্রিন প্রটেকটর।

বাবাঃ আচ্ছা তুমি কেন কাভার এবং স্ক্রিন প্রটেকটরটি কিনলে? তুমি তো চাইলে আরো ১৪০০ টাকা সেইভ করতে পারতে!

মেয়েঃ বাবা, আমি ৫০,০০০টাকা দিয়ে মোবাইল কিনতে পারলাম, আর এর সুরক্ষার জন্য ১৪০০ টাকা খরচ করতে পারব না? আর এই কাভারের কারণে ফোনটা আরো সুন্দর দেখাচ্ছে।

বাবাঃ এটা কি অ্যাপল কোম্পানির জন্য অপমান না? তারা কি যথেষ্ট সুরক্ষার ব্যবস্থা করে ফোনটা তৈরি করেনি?

মেয়েঃ না বাবা, তারা নিজেরাই পরামর্শ দিয়েছে যেন আমরা স্ক্রিন প্রটেকটর এবং কাভার ব্যবহার করি এর সুরক্ষার জন্য। আর ফোনটার কোনো ক্ষতি হোক তা আমি চাই না।

বাবাঃ এটার কারণে কি ফোনটার সৌন্দর্য কমে যাচ্ছে না?

মেয়েঃ না বাবা, সৌন্দর্য আরো বাড়িয়ে দিচ্ছে।.

এরপর বাবা তার মেয়ের দিকে তাকালেন এবং ভালোবাসা মাখা একটা হাসি দিয়ে বললেন, আমার মেয়ে তুমি জানো আমি তোমাকে অনেক ভালোবাসি। তুমি ফোনটা কিনতে ৫০,০০০ টাকা খরচ করলে এবং আরো ১৪০০ টাকা খরচ করলে এর সুরক্ষার জন্য, খুব ভালো। কিন্তু যিনি তোমাকে খুব সুন্দর করে সৃষ্টি করেছেন এবং তোমাকে নির্দেশও দিয়েছেন তোমার সুরক্ষার জন্য যেন কাভার তথা হিজাব পরিধান কর, তাহলে তোমার কি সেই সৃষ্টিকর্তার কথা শোনা উচিত না? ফোনটার সুরক্ষার জন্য তুমি কী করলে তার জন্য তোমাকে আখিরাতে প্রশ্ন করা হবে না, কিন্তু হিজাবের জন্য আমাকে এবং তোমাকে অবশ্যই জিজ্ঞেস করা হবে।....

*আইফোন* *মোবাইল* *হিজাব* *পর্দা*

আলোহীন ল্যাম্পপোস্ট: একটি বেশব্লগ লিখেছে

(আপনার ভাবনা।)একটা প্রশ্ন না করে পারছি না সেটা হলো যে আজকাল অনেক মেয়েকেই দেখা যায় শরীরে আটসাট পোশাক অথচ মাথায় হিজাব পরিহিত l এই ফ্যাশনটিকে কে কিভাবে দেখছেন? কাউকে আঘাত দিয়ে প্রশ্নটি করছি না, তবে বিষয়টিতে আমার আপত্তি আছে l এ বিষয়ে কিছু বলবেন?াপনারএকটা প্রশ্ন না করে পারছি না সেটা হলো যে আজকাল অনেক মেয়েকেই দেখা যায় শরীরে আটসাট পোশাক অথচ মাথায় হিজাব পরিহিত l এই ফ্যাশনটিকে কে কিভাবে দেখছেন? কাউকে আঘাত দিয়ে প্রশ্নটি করছি না, তবে বিষয়টিতে আমার আপত্তি আছে l এ বিষয়ে কিছু বলবেন?



আটঁসাঁট করে পোশাক পরা এবং মাথায় হিজাব দেয়া এটা কখনই ইসলামের সমর্থনযোগ্য পোশাক হতে পারে না। যারা এমন ধরনের পোশাক পরে থাকের তারা হয়ত জানেন না পর্দার আসল অর্থটি কি? আসুন জেনে নিই পর্দার ইসলামিক অর্থ কী?

পর্দা শব্দের আভিধানিক অর্থ হচ্ছে আচ্ছাদন, আবরণী বা কোনো কিছু ঢাকিয়া রাখার বস্তু । আর ইসলামিক পরিভাষায় পর্দার তাত্পর্য হচ্ছে মহিলাগণকে কোনো অপরিচিত পুরুষের নজর বা দৃষ্টি থেকে আড়ালে রাখা । পর্দা মলূত দুই প্রকার :
(এক) বাহির চোখের দৃষ্টির আড়ালে থাকা । এবং
(দুই) অন্তর দৃষ্টি বা মনচক্ষুর বাহিরে থাকা ।

পর্দা কিন্তু মানুষের মনের মধ্যেই রয়েছে। এক্ষেত্রে মন পরিস্কার থাকলেই হয় । বাহিরে যবনিকার আবরণ টানিয়া পর্দা রক্ষিত হয়না ,বরং মনকে পরিস্কার রাখলেই আসল পর্দা রক্ষা করা হয় ।

আবার পর্দার আভিধানিক অর্থই যদি আচ্ছাদন, আবরণী বা ঢেকে রাখা হয় তাহলে এতে পরিস্কার ভাবে বুঝা যাচ্ছে কোনো কিছু ঢাকলে সম্পূর্ণরূপে ঢেকে রাখতে হয় । যেমন আপনি ৪/৫ টা ভেজা খেঁজুর নিয়ে যদি খোলা বা মুক্তাবস্থায় সম্পূর্ণটা ঢেকে না রাখে তাহলে যত চেষ্টাই করেন না কেন ইনসেক্ট এর আক্রমন থেকে কিছুতেই রক্ষা করতে পারবেন না । এমতাবস্থায় আপনি খবরটির গুণগতমান ধরে রাখতে চাইলে পুরোটাই ঢেকে রাখা উচিত । তাহলে এটা শালীনতার মধ্যে পড়বে অন্যথায় সেটা শুধু পুরুষ লোভী ফ্যাশন বলে গণ্য হবে ।
*ফ্যাশন* *হিজাব*
*হিজাব*
৪/৫

বিডি আইডল: নিত্যনতুন পদ্ধতিতে যারা হিজাব পরতে পছন্দ করেন তাদের জন্য জিগ-জ্যাগ স্টাইল। https://www.youtube.com/watch?v=-LtSS2LOeU0

*হিজাব* *ইসলামিকফ্যাশন*
৫/৫

নাহিন: সঠিকভাবে *হিজাব* পরার পদ্ধতি “প্যারিস ট্রায়াঙগল স্টাইল” https://www.youtube.com/watch?v=qROeln5eJyc

*ফ্যাশন* *মেয়েদেরসাজ* *ইসলামিফ্যাশন*
ছবি

নাহিন: ফটো পোস্ট করেছে

ফ্যাশনে দিন দিন জনপ্রিয় হচ্ছে হিজাব

*হিজাব* *ফ্যাশন* *মেয়েদেরসাজ*

মেঘ: আমি কোন ফিমেইল নই, তবুও এই নিকাব/ হিজাব ভাল লাগল। ( ফেমিনিস্ট গন আমাকে দোষ দিলে বলবার কিছু থাকবেনা ) নাইস ইজ নাইস।

*আমি* *হিজাব*

বেশতো সাইট টিতে কোনো কন্টেন্ট-এর জন্য বেশতো কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

কনটেন্ট -এর পুরো দায় যে ব্যক্তি কন্টেন্ট লিখেছে তার।

...বিস্তারিত

QA

★ ঘুরে আসুন প্রশ্নোত্তরের দুনিয়ায় ★