হেলথ ড্রিঙ্কস

হেলথড্রিঙ্কস নিয়ে কি ভাবছো?

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

যুগ যুগ ধরে চলে আসা হামদর্দ ফুড প্রোডাক্টের সবচেয়ে জনপ্রিয় পানীয় রুহ আফজা নিতে পারেন ইফতারির পানীয় হিসেবে। হামদর্দ ভারত উপমহাদেশের একটি বিখ্যাত ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানি এবং একইসাথে পৃথিবীর বৃহত্তম ইউনানী ঔষধের প্রস্তুতকারক। তাই নির্ভয়ে রুহ আফজা খেতে পারেন। এই পানীয়টিতে আছে প্রায় ২৬ প্রকারের উপাদান। উপাদানগুলির মধ্যে কেওড়া, গোলাপ, শাপলা, গাজর, চন্দন, নাসপাতি, আঙ্গুর, ডালিম, আপেল ইত্যাদি উল্লেখযোগ্য। প্রত্যেকটি উপাদানই সঠিক পরিমাণে আয়ুর্বেদিক নিয়ম অনুযায়ী রুহ আফজায় মেশানো হয়েছে। কোনো পার্শ্বপতিক্রিয়াও নেই।

হামদর্দ ১৯০৭ সালে রুহ্ আফজাকে প্রথম উৎপাদন করে। অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অব মেডিকেল সায়েন্সেস, নয়াদিল্লির ফার্মাকোলজি বিভাগের ইনচার্জ এস. কে. গুপ্ত রুহ্ আফজার ওপর একটি বৈজ্ঞানিক গবেষণা পরিচালনা করেন। তিনি তার গবেষণা ফলাফলের সারসংক্ষেপ নিম্নোক্তভাবে তুলে ধরেন :


♦ রুহ্ আফজাতে বিভিন্ন খনিজ উপাদান যথা- সোডিয়াম, পটাশিয়াম, ক্যালসিয়াম, ম্যাগনেশিয়াম, ফসফরাস, সালফার, জিংক বিদ্যমান।
♦ রুহ্ আফজা দেহের ইলেকট্রোলাইটের ভারসাম্য রক্ষা করে বিভিন্ন কারণে সৃষ্ট পানি ঘাটতি দূর করে।
♦ রুহ্ আফজা ডায়রিয়াতে শরীরের ইলেকট্রোলাইটের ভারসাম্য বজায় রাখে।
♦ রুহ্ আফজা একটি মানসিক চাপ দূরকারক পানীয়।
♦রুহ্ আফজা অতিরিক্ত দাবদাহে মূর্ছা যাওয়া, কায়িক পরিশ্রান্তি, অবসাদগ্রস্ততা, অত্যধিক ঘাম নিঃসরণজনিত ক্লান্তিসহ অন্যান্য অস্বস্তি দূর করে।
♦এলিমেন্টোলজিক্যাল ও জৈব রাসায়নিক পরীক্ষণে প্রমাণিত হয়েছে রুহ্ আফজা দেহের সর্বজনীন প্রয়োজন মেটাতে সক্ষম একটি স্বয়ংসম্পূর্ণ ফর্মুলেশন।

রুহ্ আফজা হৃৎপিণ্ডের শক্তি ও কার্যক্ষমতা বৃদ্ধি করে। রুহ্ আফজা অতিরিক্ত হৃদস্পন্দন ও অনিয়মিত হৃদস্পন্দনের গতি স্বাভাবিক করে। স্বল্প পরিশ্রমে হাঁপিয়ে ওঠা বা বুক ধড়ফড় করা প্রতিরোধ করে। হৃৎপিণ্ডের সংকোচন ও প্রসারণের স্বাভাবিক ছন্দ ফিরিয়ে আনে। এছাড়া রুহ্ আফজা মস্তিষ্কের বিভিন্ন অংশ, কিডনি, মেরুদণ্ড, পাকস্থলী, অন্ত্র, যকৃত, প্লীহা, হাড়, ত্বকসহ দেহের বিভিন্ন অঙ্গ প্রত্যঙ্গে রক্ত সরবরাহের উপর বিরূপ প্রভাব না ফেলেই হৃৎপিণ্ডের মায়োকার্ডিয়ামে রক্ত সরবরাহ বৃদ্ধি করে। মিরাটের এল. এল. আর. এম মেডিকেল কলেজের এ. কে. গুরওয়ারা আরেকটি গবেষণায় দেখতে পান যে, রুহ্ আফজার ব্যথা নাশ করার ক্ষমতা রয়েছে। গবেষণায় প্রমাণিত হয় যে, অপারেশনের পূর্বে ৩ দিন যাবৎ দিনে ২ বার ও অপারেশনের ২ ঘণ্টা আগে ৩০ মিলি রুহ্ আফজা সেবন করলে অপারেশনজনিত ব্যথা ও অপারেশনে সুক্সামেথোনিয়াম প্রয়োগ পরবর্তী ব্যথা প্রতিরোধ করা যায়।

তাই সারাদিন রোজা শেষে এক গ্লাস রুহ আফজার শরবত আপনার ক্লান্তি দূর করে দিতে পারে নিমিষেই।ইফতারির পানীয় হিসেবে নির্বাচিত করার আগে শুধুমাত্র স্বাদের কথা বিবেচনা না করে দেখে নিন তাতে কি কি উপাদান রয়েছে। আপনার সারাদিনের পানিশূন্যতা দূর করার ক্ষমতা আছে কিনা নির্বাচিত পানীয়টির।

৭৫০ মিলি এবং ৩০০ মিলি’র সাদা বোতলে রুহ আফজা কিনতে পাওয়া যায়। মূল্যও একেবারে হাতের নাগালে। যথাক্রমে ২০০ টাকা ও ১০০ টাকা। সারা দেশের যে কোনো ডিপার্টমেন্টাল স্টোর কিংবা ফার্মেসীতে কিনতে পাওয়া যাবে রুহ আফজা। এ ছাড়া হামদর্দের নির্দিষ্ট আউটলেট তো আছেই। এছাড়া মিলবে অনলাইন শপেও, আজকের ডিল রমজানের আয়োজন হিসেবে রেখেছে নানাধরনের ফুড আইটেম, সেখান থেকেও চাইলে রুহ আফজা অর্ডার করতে পারেন ।

*রুহ-আফজা* *ইফতার* *শরবত* *ঠান্ডাপানীয়* *হেলথড্রিঙ্কস*

বেশতো সাইট টিতে কোনো কন্টেন্ট-এর জন্য বেশতো কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

কনটেন্ট -এর পুরো দায় যে ব্যক্তি কন্টেন্ট লিখেছে তার।

...বিস্তারিত

QA

★ ঘুরে আসুন প্রশ্নোত্তরের দুনিয়ায় ★