হ্যাট

হ্যাট নিয়ে কি ভাবছো?

শপাহলিক: একটি বেশব্লগ লিখেছে

বিভিন্ন আচার অনুষ্ঠানে পাশ্চাত্যে বরাবরই ব্যাপকভাবে হ্যাট নামক টুপির প্রচলন আছে। সামাজিক স্ট্যাটাসের প্রচলিত রীতি থেকে বের হয়ে বর্তমানে ফ্যাশন অনুষঙ্গ হিসেবে হ্যাট এদেশেও বেশ জনপ্রিয়। ফ্যাশন মানেই যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলা। আর যারা ফ্যাশনপ্রেমী তারা ফ্যাশন আর স্টাইলের সমন্বয়ে আরামদায়ক অনুষঙ্গটি তাদের ফ্যাশন হিসেবে বেছে নেন। মাথায় একটা লাল রঙের হ্যাট, চোখে সানগ্গ্নাস, গায়ে টি-শার্ট, পরনে জিন্স, আর পায়ে এক জোড়া চমৎকার জুতা। ভাবছেন এমন সাজ পোশাকে নিজেকে অবশ্যই স্মার্ট লাগবে। হ্যাঁ, আপনার অন্য সব সাজপোশাকের সঙ্গে গোলাকার এক টুকরো কাপড়ের হ্যাট আপনাকে করে তুলতে পারে ফ্যাশনেবল।

         কিনতে ক্লিক করুন                                        কিনতে ক্লিক করুন 

এক সময় মানুষ হ্যাট পরত ধর্মীয় বিভিন্ন আচার-অনুষ্ঠানে। আবার সামাজিক স্ট্যাটাসের প্রতীক হিসেবেও হ্যাটের প্রচলন ছিল। কিন্তু বর্তমানে ফ্যাশন অনুষঙ্গ হিসেবে হ্যাট অনেক জনপ্রিয়। ক্যাপের পাশাপাশি হ্যাটের চাহিদা এখন তুমুল। তবে একুশ শতক থেকেই তরুণ প্রজন্মের পছন্দের তালিকায় চলে আসে হ্যাট। জনপ্রিয় পপ তারকা লেডি গাগাও হ্যাট বেছে নেন পছন্দের অনুষঙ্গ হিসেবে। ছেলেমেয়ে উভয়ের পছন্দের তালিকায় রয়েছে হ্যাট। যদিও এখন কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয় পড়ূয়া ছেলেমেয়েদের খুব একটা হ্যাট পরতে দেখা যায় না, কিন্তু যারা একটু আলাদা ঢঙে চলতে পছন্দ করেন তারা ঠিকই নিজেদের সাজে বৈচিত্র্য নিয়ে আসেন।

                 কিনতে ক্লিক করুন                                    কিনতে ক্লিক করুন

জিন্স, টপসের সঙ্গে নিজেকে সবার থেকে আলাদা করতে হ্যাটের জুড়ি মেলা ভার।' সাধারণত রোদ থেকে রক্ষা পেতেই ছেলেদের দেখা যায় হ্যাট পরতে। মেয়েদের হ্যাটের ডিজাইনে রয়েছে বেশ বৈচিত্র্য। মেয়েদের হ্যাট আকারে একটু বড় হয়। আর এই হ্যাট বিশেষভাবে লেস দিয়ে ডিজাইন করা থাকে। আবার রঙের ক্ষেত্রেও রয়েছে বেশ বৈচিত্র্য। যেমন লাল, গোলাপি, কমলা, হলুদ ইত্যাদি। কাপড়ের তৈরি হ্যাট ছাড়াও মেয়েদের জন্য রয়েছে বেতের আকর্ষণীয় ডিজাইনের হ্যাট।

                    কিনতে ক্লিক করুন                               কিনতে ক্লিক করুন

ধরা যায় ফ্যাশনে হ্যাটের আগমন আঠারো শতকেই। প্রথমে এর বিশদ প্রচলন দেখা যায় সামরিক বাহিনীর বিভিন্ন সম্মাননা দেওয়ার ক্ষেত্রে। পরবর্তী সময়ে তা সমাজের প্রভাবশালীদের নজরে এলে ধীরে ধীরে বিস্তার ঘটে জনসাধারণে। হ্যাট শুধু ফ্যাশন আর সম্মাননাতেই নয়, সূর্যালোক থেকেও তা নিশ্চিন্ত রাখে। তাই গ্রীষ্মের রোদে বাংলাদেশে হ্যাট ফ্যাশনের গুরুত্বটাও একটু বেশি। স্পোর্টসেও ব্যবহৃত হয় হ্যাট। তবে ফ্যাশনের জন্য তার বিচিত্রতা ভিন্ন। বিশ্বের সব রকম হ্যাটের ব্যবহার আমাদের দেশে না থাকলেও দেখা মেলে প্রচলিত কয়েকটির। বিভিন্ন গেটআপের জন্য নেওয়া উচিত ভিন্ন ভিন্ন হ্যাট।

হ্যাটের আছে প্রকারভেদ

সামার হ্যাট :এই হ্যাট অনেক ফ্যাশনেবল এক্সেসরিস। জিন্স এবং টি-শার্টের সঙ্গে তরুণ-তরুণীরা তাদের পছন্দের হ্যাট বেছে নিতে পারে।

গিয়ান্ট সান হ্যাট :হ্যাট মূলত দিনের বেলায় পরা হয়। আর এ ধরনের ফ্লপি হ্যাট শীতকালে ভালো মানায়। নিউজবয় হ্যাট :এই হ্যাট ভিন্টেজ মুভির হকার পরত। তাই এর নামকরণ করা হয়েছে নিউজবয়।

ইভিনিং হ্যাট :মেয়েরা শুধু রোদ থেকে সুরক্ষা পেতেই হ্যাট পরেন না, বরং পার্টিতে রয়েছে হ্যাট পরার স্টাইল। মিনি টপ হ্যাট, ককটেল জাতীয় হ্যাট মেয়েরা অনায়াসে পার্টিতে পরতে পারেন।

বেনি হ্যাট :বেনি হ্যাট কিন্ট হ্যাট নামে পরিচিত। আবার এটাকে স্কালি হ্যাটও বল হয়। সাধারণত শীতকালে এই হ্যাট ব্যবহৃত হয়।

ফ্লপি হ্যাট :এটি ক্ল্যাসিক হ্যাট। এই হ্যাটের কিনারা অনেক প্রশস্ত। রোদ থেকে রক্ষার জন্য ভালো।

টপ হ্যাট :আব্রাহম লিংকন প্রথম আমেরিকান, যিনি টপ হ্যাটের প্রচলন করেন। ১৯ ও ২০ শতক থেকে এই হ্যাটের জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি পায়।

থ্রিলবাই হ্যাট : আধুনিক ফ্যাশন ট্রেন্ডে জনপ্রিয় পপ তারকা মাইকেল জ্যাকসন তরুণদের মধ্যে এই হ্যাটের জনপ্রিয়তা ছড়িয়েছিলেন। এ ছাড়াও রয়েছে রানি হ্যাট, বেসবল হ্যাট, বাকেট হ্যাট, ক্লসি হ্যাট, ফ্ল্যাট হ্যাট, গলফ হ্যাট, পানামা হ্যাট, স্ট্র হ্যাট, ওয়াটারপ্রুফ হ্যাট।

ফেডোরা : এই হ্যাটের প্রচলন সারাবিশ্বের সঙ্গে বাংলাদেশেও বেশি দেখা যায়। একটু ফরমাল কাটের ফেডোরা পরা যায় বিভিন্ন ক্যাজুয়াল এবং ফরমাল পোশাকের সঙ্গে। ক্যাজুয়াল শার্ট ও প্যান্টের সঙ্গে খুব সহজেই মানিয়ে নেওয়া যায় ফেডোরা। তেমনি তা কোটি, বো-টাইয়ের মতো ফরমালেও খাপে খাপ। প্রায় এই কাছাকাছি গড়নের আরেকটি হ্যাটের নাম 'পানামা' হ্যাট।


কাউবয় হ্যাট : যারা একটু ড্যাশিং, ফাঙ্কি লুক পছন্দ করেন তাদের জন্য বিশ্বব্যাপী কাউবয় হ্যাটের রাজত্ব। একটু বড় আকারের হওয়ায় এই হ্যাট রোদের তীব্রতা থেকে বাঁচাতে বেশিই সহায়ক। কাউবয় গেটআপের সঙ্গেই বেশি মানায় এই হ্যাট। তবে কেউ চাইলে টি-শার্ট, কার্গো প্যান্ট ড্রেসআপেও নিতে পারেন।


বোলার : এই হ্যাটের চারদিকটা অনেক কম ছড়ানো থাকে। বোলারের সবচেয়ে ইতিবাচক দিক হচ্ছে, তা ছেলেমেয়ে উভয়েই পরতে পারে। ক্যাজুয়াল পোশাকেই বেশি মানানসই এ ধরনের হ্যাট। তবে পশ্চিমাদের অনেক সময় পার্টি টাইপের ফরমালে ব্যবহার করতে দেখা যায় বোলার। কোনো ক্ষেত্রে এই একই গড়নের অথবা একটু ভিন্ন গড়নের হ্যাটকে 'ডেরবি'ও বলা হয়ে থাকে। তবে ডেরবিতে ফ্লোরাল ডিজাইন থাকলে তা আবার শুধু মেয়েদের উপযোগী।


হোমবার্গ : মাঝারি গড়নের এবং খুবই ছিমছাম দেখতে হোমবার্গ হ্যাট। শুধু ফরমালে ব্যবহারের জন্য জুড়ি নেই হোমবার্গের। ফরমাল বলতে তা ছেলেদের শার্ট, প্যান্ট, কোট, টাই, পাইপার টাইপের ফরমাল বোঝায়। একই গেটআপে তা মানানসই মেয়েদের ক্ষেত্রেও। তবে বাংলাদেশের বাজারে খুব বেশি দেখা যায় না এ ধরনের হ্যাট।


ক্লোচি : একটু কম ছড়ানো আর সাধারণত ফুলেল ডিজাইনে সাজানো থাকে মেয়েদের হ্যাট ক্লোচি। ক্লোচি দেখা যায় বার্বির মাথায়। বাংলাদেশে লেডিস হ্যাটের মধ্যে সবচেয়ে বেশি প্রচলন এই হ্যাটের। সাধারণত গাউনের মতো জমকালো পার্টি ড্রেসের সঙ্গেই এই হ্যাটের চল দেখা যায় পশ্চিমা বিশ্বে। তবে আমাদের দেশে তা সাধারণ কোনো জমকালো পোশাকের সঙ্গেই মানানসই বলা চলে।

               কিনতে ক্লিক করুন                                              কিনতে ক্লিক করুন

হ্যাট শুধু ফ্যাশন কিংবা রোদের হাত থেকে রক্ষার জন্যই নয়, যারা খেলাধুলার কাজে ব্যস্ত থাকেন তাদের জন্য রয়েছে স্পোর্টস হ্যাট। তবে স্পোর্টস হ্যাট আকারে একটু বড় হয়। আর রঙের ক্ষেত্রেও রয়েছে বেশ বৈচিত্র্য। আপনার পছন্দের হ্যাট কিনতে পারেন যে কোনো ক্যাপের দোকান থেকে। ঢাকার বসুন্ধরা সিটি, নিউ মার্কেট, এলিফ্যান্ট রোড, ফার্মগেট, গুলশান, মিরপুরে পাবেন আপনার মনের মতো হ্যাট। আর স্পোর্টস হ্যাট কিনতে আপনাকে যেতে হবে স্পোর্টস সামগ্রী পাওয়া যায় এমন দোকানে। ফার্মভিউ মার্কেটের দোতলা থেকে আপনি সংগ্রহ করতে পারেন স্পোর্টস হ্যাট। এছাড়া দেশের সবচেয়ে বড় অনলাইন শপিং মল আজকের ডিলেও পেয়ে যাবেন আকর্ষনীয় সব হ্যাট। স্পোর্টস হ্যাট কিনতে দাম পড়বে ৪৫০ টাকা। এছাড়া ছেলেদের হ্যাটের দাম পড়বে ৩৪০-৩৭০ টাকা আর মেয়েদের ফ্যাশনেবল হ্যাটের দাম পড়বে ৫০০ থেকে ৮০০ টাকা। গ্রীষ্মকালে প্রচণ্ড রোদের হাত থেকে রক্ষা পেতে পাতলা হ্যাট পরা ভালো। হ্যাট পরার সময় মেয়েদের রঙ বাছাই করে পরা উচিত। এ ছাড়া ফেস এবং মুখের সঙ্গে মানায় এমন হ্যাট নির্বাচন করতে হবে। হ্যাট কোট এবং বেলেজারের সঙ্গে পরা যায়। হ্যাট পরার সময় ভদ্রতার বিষয় মাথায় রাখা উচিত। হ্যাট পরার পর নিয়মিত কোট ব্রাশ দিয়ে পরিষ্কার করতে হয়। মাঝে মাঝে ধুয়ে দিতে হবে।
 

*হ্যাট* *মেয়েদেরফ্যাশন* *হালফ্যাশন* *ফ্যাশন*

বেশতো সাইট টিতে কোনো কন্টেন্ট-এর জন্য বেশতো কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

কনটেন্ট -এর পুরো দায় যে ব্যক্তি কন্টেন্ট লিখেছে তার।

...বিস্তারিত

QA

★ ঘুরে আসুন প্রশ্নোত্তরের দুনিয়ায় ★