আমানুল্লাহ সরকার: একটি বেশব্লগ লিখেছে


জন্মনিয়ন্ত্রণে যে সকল  নন ক্লিনিক্যাল পদ্ধতি রয়েছে তার মধ্যে খাবার বড়ি একটি। যে পদ্ধতিগুলো অন্যের সাহায্য ছাড়া নারী-পুরুষ নিজেই ব্যবহার করতে পারে সেগুলোকে মূলত নন-ক্লিনিক্যাল পদ্ধতি বলে। চলনু তাহলে জন্মনিয়ন্ত্রণে খাবার বড়ির ব্যবহার সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক।

জন্মনিয়ন্ত্রণে খাবার বড়ির ব্যবহার
খাবার বড়ির প্রকার ও মাত্রা জন্ম নিয়ন্ত্রনের জন্য বিভিন্ন প্রকারের খাবার বড়ি পাওয়া যায়। যেমন: নরকোয়েস্ট, ওভাষ্ট্যাট, ওভাকন, মারভেলন, সি-৫, সুখী (স্বল্পমাত্রার বড়ি)। প্রত্যেক প্রকার বড়িতে হরমোনের মাত্রার পার্থক্য থাকতে পারে।

কার্যপদ্ধতি
ডিম্বাশয়ের ডিম্বকে পরিপক্ক হতে ও বের হতে বাধা দেয়।
সুবিধা
• সাফল্যের হার বেশী।
 • অনাকাংখিত গর্ভসঞ্চার খুবই কম হয়।
• অতিরিক্ত সতর্কতা ছাড়া যৌন সহবাস করা যায়।
• মাসিক নিয়মিত হয়।
• মাসিকের রক্তস্রাব কম হয়। মাসিকের ব্যাথা থাকলে তা কমে যায়।
• নিয়মিত বড়ি খাওয়ার ফলে অনেক মহিলার স্বাস্থ্য ভাল হয়।
• আয়রন বড়ির জন্য রক্তস্বল্পতা কম হয়।
• ডিম্বাশয় ও জরাযু ঝিল্লি¬তে ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায়। পি.আই.ডি (পেলভিসের সংক্রমণ ) কম হয়।
• বড়ি খাওয়া বন্ধ করলে গর্ভধারণ করা যায়।

অসুবিধা
• প্রতিদিন মনে করে খেতে হয়।
• যারা ধূমপান করে তাদের বেশী জটিলতা দেখা দেয়।
• টিউমার বা জন্ডিস থাকলে ব্যবহার করা যাবেনা। মাসিকের পরিবর্তন ঘটতে পারে।
• ওজন বেড়ে যেতে পারে।
• মেজাজ খিটখিটে হয়।
• পদ্ধতি বন্ধ করে দেওয়ার পর গর্ভধারণে দেরী হতে পারে।
• এইচআইভি/এইডস প্রতিরোধ করার ক্ষেত্রে কোন ভূমিকা নাই।

কার্যকারীতা
সাফল্যের হার বেশী। অনাকাংখিত গর্ভসঞ্চার খুবই কম হয়।
*জন্মনিয়ন্ত্রণ* *পরিবারপরিকল্পনা* *হেলথটিপস*

পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?


অথবা,

এক্ষনি একাউন্ট তৈরী কর

বেশতো সাইট টিতে কোনো কন্টেন্ট-এর জন্য বেশতো কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

কনটেন্ট -এর পুরো দায় যে ব্যক্তি কন্টেন্ট লিখেছে তার।

...বিস্তারিত