আমানুল্লাহ সরকার: একটি বেশব্লগ লিখেছে

স্বপ্নের দেশ ভ্রমন কিংবা সেখানে গিয়ে কিছুদিন অবস্থান করার ইচ্ছা সকলেই মনের মাঝে লালন করে। আর স্বপ্নের দেশটি যদি হয় আমেরিকা তাহলে তো সোনায় সোহাগা, বলতে গেলে হাতের মুঠোয় সোনার হরিণ পাওয়ার মত। তবে এখানে একটি বিষয় লক্ষণীয় তা হল, বিভিন্ন উপায়ে অনেকেই আমেরিকাতে প্রবেশ করছে অনেকের আবার যোগ্যতা থাকার পরেও আমেরিকাতে যেতে পারছেনা। এর পিছনে প্রধান কারণ হচ্ছে ভিসা সমস্যা।  তবে আজকে আমার এই পোষ্টটিতে আমি আমেরিকা যেতে আগ্রহীদের জন্য ভিসার ধরণ ও পদ্ধতিসমূহ নিয়ে আলোচনা করব।

আমেরিকার ভিসার ধরণঃ

আমেরিকার ভিসাকে মূলত দুই ভাগে বিভক্ত করা যায়। তবে এর ধরণ সংখ্যা প্রায় ১৮০টির ও উপরে। তবে মূল দুই ধরণের মধ্যের রয়েছে।
১. ইমিগ্রান্ট (স্থায়ী বসবাসের জন্য)
২. নন-ইমিগ্রান্ট (সাময়িক অবস্থানের জন্য)।
আইনগতভাবে ভিসার প্রয়োজনীয় শর্তাবলি পূরণ যোগ্য যে কোন ব্যক্তি বৈধ প্রক্রিয়ায় ভিসার আবেদন করতে পারে এবং পেতে পারে।

নিচে গুরুত্বপূর্ণ ও বহুল উপযোগিতা সম্পন্ন ক্যাটাগরি সমূহ তুলে ধরা হলো।

নন-ইমিগ্রান্ট সেকশন
B-1/B-2 ভিসাঃ এটি মূলত ট্যুরিষ্ট বা পর্যটক ভিসা। যারা ব্যবসায়িক উদ্দেশ্যে আসতে চায় এবং যারা অবকাশ যাপন করতে চায় তাদের জন্য উন্মুক্ত বলা যায়। তবে এই ভিসায় এসে চাকরি করার কোন অনুমোদন নেই।

E-1/E-2 ভিসাঃ
এটা বিশেষ করে যারা USA তে বিনিয়োগ করতে আগ্রহী তাদের জন্য। বিনিয়োগকারী এবং প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তারা এই ভিসা পায় ।তবে এর জন্য অবশ্যই স্বাগতিক দেশ ও USA এর মধ্যকার বাণিজ্যিক চুক্তি থাকতে হয়।

F-1ও M-1ভিসাঃ
শুধুমাত্র যারা USA তে পড়াশুনা করতে ইচ্ছুক এবং পড়াশুনা বিষয়ের সাথে সম্পর্কিত কোন প্রশিক্ষণ নিতে চায়, তারাই আবেদন করতে পারবে এবং যোগ্য বিবেচিত হলে ভিসা পাবে।

H-1B ভিসাঃ
এটা পেশা সম্পর্কিত। অভিজ্ঞ ও যোগ্যতা সম্পন্ন ব্যক্তি যিনি কোন প্রতিষ্ঠান কর্তৃক নিয়োগ প্রাপ্ত হন এবং নিয়োগকারী সেই ব্যক্তির পারিশ্রমিক প্রদান করবেন তা যদি লিখিত ভাবে প্রদর্শন করা হয়। তখন ভিসার প্রক্রিয়া শুরু হয়।

K-1ভিসাঃ
এটি USA নাগরিকের ভিনদেশি বাগদত্ত /বাগদত্তার জন্য প্রযোজ্য । যাদের ৯০ দিনের মধ্যে বিয়ে হবে-এমন শর্ত সাপেক্ষ।

P-1 ও R-1 ভিসাঃ
নিয়ম-নীতি অনুসারে যথাযথ তথ্য প্রদান করে, নির্দেশিত প্রক্রিয়ায় খেলোয়াড়, শিল্পী,অভিনেতা/নেত্রীরা P-1 ভিসাতে এবং ধর্মীয় ক্ষেত্রে কাজের জন্য বিশেষ ব্যক্তি R-1 ভিসায় USA আসতে পারেন।

ইমিগ্রান্ট সেকশন
স্থায়ী বসবাসের ভিসার বিশেষ কিছু পদ্ধতি রয়েছে। যেমন-
পরিবার ভিসাঃ
ভিনদেশি কেউ যখন USA নাগরিকত্ব পান তখন তিনি তার পরিবারের দায়িত্ব বা জামিনদার হয়ে মা,বাবা,স্বামী-স্ত্রই,সন্তানের জন্য স্থায়ী বসবাসের আবেদন করার মাধ্যমে পরিবারকে আনতে পারেন।

নিয়োগকর্তা স্পন্সর ভিসাঃ
এই ভিসার আওতায় বিভিন্ন বিভাগে নিয়োগ প্রাপ্ত হয়ে এবং labor certification প্রক্রিয়া সম্পন্ন করার মাধ্যমে বিজ্ঞানী,গবেষক,অধ্যাপক,ধর্ম মন্ত্রী আবেদন করে আসতে পারেন। এছাড়া বিনিয়োগকারী স্থায়ী বসবাসের আবেদন করতে পারে যদি তার বিনিয়োগের পরিমাণ ৫০০ হাজার ডলার বা তার বেশি হয়। আশ্রয়হীন,নিরাপত্তাহীন,জীবনের হুমকি ইত্যাদি ইস্যুতে বিশেষ প্রক্রিয়ায় স্থায়ী বসবাসের আবেদন করতে পারে।
বন্ধুরা আমরা যারা বাংলাদেশী তাদের জন্য বলছি, বাংলাদেশ থেকে আমেরিকার ভিসা সংক্রান্ত যে কোন বিষয়ে যোগাযোগ করতে নিম্নোক্ত ওয়েবসাইটে যোগাযোগ করুন।
http://dhaka.usembassy.gov/contact.html
সূত্রঃ নিজ ও পরামর্শ.কম

*ভিসা* *আমেরিকা* *বিদেশভ্রমন*

পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?


অথবা,

এক্ষনি একাউন্ট তৈরী কর

বেশতো সাইট টিতে কোনো কন্টেন্ট-এর জন্য বেশতো কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

কনটেন্ট -এর পুরো দায় যে ব্যক্তি কন্টেন্ট লিখেছে তার।

...বিস্তারিত