আলোহীন ল্যাম্পপোস্ট: একটি বেশব্লগ লিখেছে

দশম শ্রেণিতে উঠার পর মেয়েটির বিয়ে হয় ।স্বামী প্রবাসে থাকে পড়ালেখায় স্কুলের গন্ডি পার হতে পারে নি।গ্রামীণ পরিস্হিতিতে বিয়ের পরে মেয়েদের পড়ালেখা করা নিতান্তই যুদ্ধে জয়ী হওয়ার মত ।তবে তার স্বামীর শিক্ষার প্রতি যথেষ্ট অনুরাগ ছিল ।স্বামীর কাছে তার মনের আকুতি জানায়, পড়ালেখা করার ইচ্ছে ।স্বামী বেচারাও একমত হয়ে গেল ।আবার শুরু হল সেই বই হাতে স্কুল পানে যাত্রা ।স্বামী ছুটি কাঁটিয়ে চলে গেল আবার প্রবাস জীবনে ।এদিকে চলছে মেয়েটির পড়ালেখা ।স্কুল শেষ করে কলেজে পা দিয়েছে ।এর মাঝে কোলে এসেছে একটি ফুটফুটে কন্যাসন্তান ।ভালই চলছে জীবন ।পড়ালেখায় মেয়েটির সুনাম আছে ।ভাল রেজাল্ট করে এইস.এস.সি পাশ করলো ।এবার স্বামীর কাছে বায়না ধরলো অনার্স করবে ।স্বামীতো আর ইচ্ছে করলেই সব করতে পারে না ।বাবা, মা, পরিবারের সবাইকে রাজি করাতে হবে ।তবুও সায় দিয়ে দিল ।মেয়েটি অনার্সে ভর্তি হলো ।ধীরে ধীরে অনার্সও শেষের দিকে ।বিসিএস পরীক্ষার প্রতি তার ঝোঁক ।একসময় সেই বিসিএস ও দিল ।

এখন আর স্বামীর প্রতি অতটা নির্ভরশীল না ।এত পড়ালেখা করেও যদি স্বামীর অনুমতির দিকে তাকিয়ে থাকতে হয়ে কিরকম অদ্ভুত লাগে না !

এখন তার চিন্তা চেতনার রঙ বদলিয়েছে । স্বামীর সাথে কথা বলে মানষিক চাহিদার খোরাক জোগাতে পারে না ।অশিক্ষিত একটি লোক যে এস.এস.সি ও পাশ করে নি ।আর সে বিসিএস দিচ্ছে ।ভাবনা গুলো তার মনে আসতে আশেপাশের মানুষগুলো জ্বালানি যোগায় ।

BCS এ প্রিলিতে ভাল রেজাল্ট ।এরপর Written test এর জন্য উঠেপড়ে লাগলো ।এরপর ভাইভা ।ধীরে ধীরে সবগুলো ধাপ অতিক্রম করে সে এখন বিসিএস ক্যাডার ।

চলার পথে একজনের সাথে পরিচয় হল পড়ালেখার সুবাধে ।এখন আর সেই প্রবাসী অশিক্ষিত স্বামীর কথা তেমন একটা মনে পড়ে না ।লোকটির সাথে সম্পর্ক ধীরে ধীরে প্রেমের দিকে এগুলো ।অবশেষে সেই শিক্ষানুরাগী অশিক্ষিত স্বামীর বুকে আঘাত দিয়ে চলে গেলো ।নতুন ঘর বাঁধলো ।এর মাঝে একদিন স্বামী এসে তার মেয়েটিকে নিয়ে গেল ।সাথে একরাশ ঘৃণা দিয়ে গেল ।

এভাবেই কেটে গেল কয়েকটি বছর ।
ভাগ্যের নির্মম পরিহাস তার নতুন বাঁধা ঘরটি ভেঙে গেল ।তাকে তালাক দিলো ।হয়ত তার পূর্বের স্বামীর অভিশাপ লেগেছে ।

এখন সে একা, বড় একা ।যদিও আগের স্বামীটির কাছে ফিরে যেতে চেয়েছিল কিন্তু কাজ হল না ।মেয়েটি এখন একটা মন্ত্রণালয়ের উপসচিব ।তার সম্মান, টাকা কোনটার ই অভাব নাই ।কিন্তু একটি পারিবারিক বন্ধনের বড় অভাব ।তার যেই অশিক্ষিত স্বামী তাকে এতটুকু আসতে সাহায্য করলো তার মনে আঘাত দিতে একটুও দ্বিধা করলো না ? একটা মানুষের ভালবাসাকে খুব সহজে টুকরো টুকরো করে দিল ।তার অশিক্ষিত স্বামী কোন সচিবকে স্ত্রী হিসেবে চায় না সেই স্কুল জীবনের মেয়েটিকে চায় যেটা অসম্ভব।অতীতের সেই ভালবাসার নির্যাস এখন আর কোন সচিব বউ এর কাছ থেকে পাওয়া যাবে না ।
এখন সে ভাবে মেয়েটিকে এতটুকু পড়ালেখা করানোটা জীবনের বড় বোকামী ছিল ।তবে এখন তাকে গ্রহণ না করাটা সঠিক সিদ্বান্তই ভাবছে ।

*প্রতারণা*
কমেন্ট

M.M. Tariquel Islam: এইটাই নিয়ম. কর্মের ফল তো পেতেই হবে. গল্প টি পড়ে ভালো লাগলো .

1422167078000 ভালো ১

নাহিন: [বেশবচন-জোশহইছে]

1422167202000 ভালো ০

পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?


অথবা,

এক্ষনি একাউন্ট তৈরী কর

বেশতো সাইট টিতে কোনো কন্টেন্ট-এর জন্য বেশতো কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

কনটেন্ট -এর পুরো দায় যে ব্যক্তি কন্টেন্ট লিখেছে তার।

...বিস্তারিত