ঈশান রাব্বি: একটি বেশব্লগ লিখেছে

ভ্যাপসা গরমে বড়রাই আইঢাই করেন, ছোটদের অবস্থা তো আরও খারাপ! তাই এ সময়ে নিতে হবে শিশুদের বিশেষ যত্ন। সবচেয়ে বেশি যত্নবান হতে হবে খাবারের প্রতি। তা না হলে অসুখ-বিসুখ লেগেই থাকবে। দেখা যায়, গরমে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত শিশুর সংখ্যা বেশি থাকে। 

বারডেম জেনারেল হাসপাতালের শিশুরোগ বিভাগের প্রধান তাহমীনা বেগম বলেন, গরমে শিশুকে বাইরের খাবার, বিশেষ করে ফাস্টফুড জাতীয় খাবার দেওয়া যাবে না। গরমে প্রতিদিন গোসল করাতে হবে। সামান্য কাশি হলেও গোসল বন্ধ রাখা যাবে না। সম্ভব হলে আদাপানি, তুলসীপানিও খাওয়াতে পারেন। নবজাতক হলে ভেজা কাপড় দিয়ে গা মুছিয়ে দিতে পারেন।
গরমে শিশুর খাবারের কোন কোন দিকে খেয়াল রাখবেন, সে বিষয়েও পরামর্শ দিতে গিয়ে তাহমীনা বলেন, ‘ঠান্ডা-গরমের এ আবহাওয়ায় শিশুদের খাবারের দিকে প্রথমে খেয়াল রাখতে হবে। এ সময় ডায়রিয়ার প্রকোপ দেখা যায়। এ কারণে বাইরের খাবার, বাসি খাবার খাওয়ানো উচিত নয়।’ তিনি বলেন, ‘এ সময় পানিতে নানা রোগ-জীবাণু থাকে। ফলে পানি ভালোভাবে ফুটিয়ে, সম্ভব হলে ফিল্টার করে পান করানো উচিত। শিশুকে সরাসরি ফ্রিজের ঠান্ডা পানি খাওয়ানো ঠিক নয়। ওরা খেতে চাইলে বুঝিয়ে বলতে হবে। তবে ঠান্ডা পানির সঙ্গে স্বাভাবিক পানি মিলিয়ে খাওয়ানো যায়।’
ঘরে তৈরি হালকা ধরনের খাবারের ব্যাপারে জোর দিলেন তাহমীনা। তেল-মসলাযুক্ত খাবার এড়িয়ে যাওয়া ভালো। শিশুরা পুষ্টিকর খাবার, শাকসবজি খেতে না চাইলে জোর করা যাবে না; কৌশলে খাটিয়ে এসব খাবার ওদের পাতে তুলে দিন।
এ সময় বাজারে নানা ধরনের গ্রীষ্মকালীন ফল পাওয়া যাচ্ছে। বোতলজাত জুস, কোমল পানীয় না কিনে এসব ফলমূল শিশুর স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী। বেশি করে পানি বা পানীয় জাতীয় ফল খুব ভালো কাজে দেয়। তবে ফলের জুস যেন কোনোভাবেই যেন বেশি ঠান্ডা না হয়। এতে শিশুর মাথাব্যথা বা সাইনোসাইটিসের সমস্যা হতে পারে। শিশুদের কাছে গরমে আরেকটি লোভনীয় খাবার হলো আইসক্রিম। শিশুরা আইসক্রিম খেতে চাইলে তাদের বিরত রাখুন। রাগ না করে শিশুর পছন্দের অন্য কোনো জিনিস কিনে দিতে পারেন। ডায়রিয়া বা পেটের অসুখ হলে সঙ্গে সঙ্গে হাসপাতালে নিতে হবে। ব্যবস্থা নিতে হবে চিকিৎসকের পরামর্শমতো। শিশুর যেন পানিস্বল্পতা না হয়, সেটাও খেয়াল রাখতে হবে

*শিশুরখাবার* *গরমেশিশুরযত্ন*

পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?


অথবা,

এক্ষনি একাউন্ট তৈরী কর

বেশতো সাইট টিতে কোনো কন্টেন্ট-এর জন্য বেশতো কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

কনটেন্ট -এর পুরো দায় যে ব্যক্তি কন্টেন্ট লিখেছে তার।

...বিস্তারিত