দীপ্তি: একটি বেশব্লগ লিখেছে

পৃথিবীতে যত খাবার রয়েছে সব খাবারের পুষ্টিগুণ ও উপাদেয়তার দিকটি বিবেচনা করে যদি আমরা একটি তালিকা করি, তবে সে তালিকার প্রথম সারিতেই থাকবে 'মধু'র নাম। মধু একটি খুব উপকারী খাদ্য, পথ্য ও ঔষধ। জন্মের পর নানা দাদীরা মখে মধু দেয় নাই এমন লোক খুঁজে পাওয়া কঠিন। প্রাচীনকাল থেকে মানুষ প্রাকৃতিক খাদ্য হিসেবে,মিষ্টি হিসেবে, চিকিৎসা ও সৌন্দর্যচর্চাসহ নানাভাবে মধুর ব্যবহার করে আসছে। হাজার বছর পূর্বেও মধু ছিল সমান জনপ্রিয়। ইতিহাস পর্যালোচনা করে দেখা যায়, অনেক সভ্যতায় মধু ‘ঔষধ’ হিসেবেও ব্যবহৃত হত। এমনকি প্রতিটি পবিত্র ধর্মগ্রন্থেও মধু সেবনের উপকারিতা এবং কার্যকারিতার কথা উল্লেখ রয়েছে। 

চলুন জেনে নেই মধুর ৩০ টি  যুগান্তকারী উপকারিতা সমন্ধে: 

• হৃদরোগ প্রতিরোধ করে। রক্তনালী প্রসারণের মাধ্যমে রক্ত সঞ্চালনে সহায়তা করে এবং হৃদপেশীর কার্যক্রম বৃদ্ধি করে।

• মধুর রয়েছে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট ক্ষমতা, যা দেহকে নানা ঘাট প্রতিঘাতের হাত থেকে রক্ষা করে।

•   অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট ক্যান্সার প্রতিরোধ করে ও কোষকে ফ্রি রেডিকেলের ক্ষতি থেকে রক্ষা করে।

• মধুর ক্যালোরি রক্তের হিমোগ্লোবিনের পরিমান বাড়ায়, ফলে রক্ত বর্ধক হয়।

• শরীরের বিভিন্ন ধর ের নিঃসরণ নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করে এবং উষ্ণতা বৃদ্ধি করে।

• ভিটামিন-বি কমপ্লেক্স এবং ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ মধু স্নায়ু ও মস্তিষ্কের কোলা সুদৃঢ় করে।

• মধুতে স্টার্চ ডাইজেস্টি এঞ্জাইম্স এবং মিনারেলস থাকায় চুল ও ত্বক ঠিক রাখতে অনন্য ভূমিকা পালন করে থাকে।

• গলা ব্যাথা, কাশি-হাঁপানি এবং ঠান্ডা জনিত রোগে বিশেষ উপকার করে।

• গ্লাইকোজেনের লেভেল সুনিয়ন্ত্রিত করে।

• আলসার ও গ্যাস্ট্রিক রজার জন্য উপকারী।

• বার্ধক্য অনেক দেরিতে আসে।

• মধু কোষ্ঠ্য কাঠিন্য দূর করে।

• ক্ষুধা, হজমশক্তি ও রুচি বৃদ্ধি করে।

• শিশুদের দৈহিক গড়ন ও ওজন বৃদ্ধি করে।

• রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে।

• দৃষ্টিশক্তি ও স্মরণশক্তি বৃদ্ধি করে।

• দুর্বল শিশুদের মুখের ভিতর পচনশীল ঘা'র জন্য খুবই উপকারী।

• রক্ত পরিশোধন করে।

• শরীর ও ফুসফুসকে শক্তিশালী করে।

• জিহবার জড়তা দূর করে।

• মুখের দুর্গন্ধ দূর করে।

• বাতের ব্যথা উপশম করে।

• মাথা ব্যথা দূর করে।

• দাঁত পরিষ্কার ও মজবুত করে ।

• মধু তাপ ও শক্তির ভালো উৎস। মধু দেহে তাপ ও শক্তি জুগিয়ে শরীরকে সুস্থ রাখে।


• মধু রক্তের হিমোগ্লোবিন গঠনে সহায়তা করে বলে এটি রক্তশূন্যতায় বেশ ফলদায়ক।কারণ এতে থাকে খুব বেশি পরিমাণে কপার, লৌহ ও ম্যাঙ্গানিজ।

• মধু অনিদ্রার ভালো ওষুধ। রাতে শোয়ার আগে এক গ্লাস পানির সঙ্গে দুই চা চামচ মধু মিশিয়ে খেলে এটি গভীর ঘুম ও সম্মোহনের কাজ করে।

• শীতের ঠান্ডায় এটি দেহকে গরম রাখে। এক অথবা দুই চা চামচ মধু এক কাপ ফুটানো পানির সঙ্গে খেলে শরীর ঝরঝরে ও তাজা থাকে।

• ডায়রিয়া হলে এক লিটার পানিতে ৫০ মিলিলিটার মধু মিশিয়ে খেলে দেহে পানিশূন্যতা রোধ করা যায়।

• মেয়েদের রূপচর্চার ক্ষেত্রে মাস্ক হিসেবে মধুর ব্যবহার বেশ জনপ্রিয়। মুখের ত্বকের মসৃণতা বৃদ্ধির জন্যও মধু ব্যবহৃত হয়।

 

*মধু* *স্বাস্থ্যতথ্য* *হেলদিফুড* *লাইফস্টাইলটিপস*

পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?


অথবা,

এক্ষনি একাউন্ট তৈরী কর

বেশতো সাইট টিতে কোনো কন্টেন্ট-এর জন্য বেশতো কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

কনটেন্ট -এর পুরো দায় যে ব্যক্তি কন্টেন্ট লিখেছে তার।

...বিস্তারিত