★ছায়াবতী★: একটি বেশব্লগ লিখেছে

জন্মঃ আগস্ট ১৩, ১৯২৬ - মৃত্যুঃ নভেম্বর ২৫, ২০১৬) যিনি ফিদেল কাস্ত্রো বা শুধুই কাস্ত্রো নামে পরিচিত; তিনি একজন কিউবান রাজনৈতিক নেতা ও সমাজতন্ত্রী বিপ্লবী। কিউবার পূর্বাঞ্চলে বিরান জেলায় স্পেনীয় বংশোদ্ভূত এক অভিবাসী পরিবারে। পুরো নাম ফিদেল আলেজান্দ্রো কাস্ত্রো রুজ। বাবা ছিলেন আখের খামারী।
১৯৫৯ সালে সশস্ত্র বিপ্লবের মধ্য দিয়ে কিউবার মার্কিন সমর্থিত একনায়ক ফুলগেন্সিও বাতিস্তাকে উৎখাত করে যুক্তরাষ্ট্রের নাকের ডগায় একটি সমাজতান্ত্রিক রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার পর থেকেই বিশ শতকের কিংবদন্তীতে পরিণত হয়েছিলেন ফিদেল কাস্ত্রো। স্নায়ুযুদ্ধ এবং বিশ্বব্যাপী মার্কিন নেতৃত্বাধীন পুঁিজবাদের জয়জয়কারের মধ্যেও সমাজতান্ত্রিক কিউবাকে টিকিয়ে রেখে সমাজতান্ত্রিক বিপ্লবের প্রবাদ পুরুষ হিসেবে পরিচিতি পান তিনি।
কিউবা বিপ্লবের নেতা থেকে বিশ্বজুড়ে সাম‌্যবাদের স্বপ্নচারীদের নায়ক বনে যাওয়া ফিদেল কাস্ত্রো তার জীবনের সঙ্গে পাঁচ দশকের শাসনকালে নানা বক্তব‌্য দিয়েও ছিলেন আলোচিত-
“আমাকে অপরাধী বানাতে পারো, এটা কোনো গুরুত্ব বহন করে না। ইতিহাস আমাকে মুক্তি দেবে”

(এই উক্তি করেছিলেন বাতিস্তা সরকারকে উৎখাতে ১৯৫৩ সালে মনকাদা ব্যারাকে হামলা চালানোর পর গ্রেপ্তার কাস্ত্রো বিচার চলাকালীন)
“বিপ্লব গোলাপের শয্যা নয়. বিপ্লব হচ্ছে মৃত্যু পর্যন্ত অতীত ও ভবিষ্যতের মধ্যকার সংগ্রাম”

(১৯৫৯ সালে এই উক্তি করেন)
“তথ্যে বিদ্ধ হতে হবে এবং মেনে নিতে হবে, সমাজতান্ত্রিক শিবিরের পতন হয়েছে।”

(১৯৯১ সালে সোভিয়েত রাশিয়ার পতনের পর কাস্ত্রো)

“তারা সমাজতন্ত্রের ব্যর্থতার কথা বলে, কিন্তু এশিয়া, আফ্রিকা আর দক্ষিণ আমেরিকায় পুঁজিবাদের সাফল্য কী?”

(১৯৯১ সালে সমাজতান্ত্রিক শিবিরের পতনের পর দেয়া এক বক্তব্যে)
“দ্রুতই আমি অন্যদের মতো বিদায় নেব। এটা আমাদের সবার জীবনেই আসবে, কিন্তু কিউবার কমিউনিস্টদের ধারণা এ গ্রহে প্রমাণ হিসেবে টিকে থাকবে, যদি তারা ঐকান্তিকতা ও মর্যাদার সঙ্গে কাজ করে।…

(২০১৬-র এপ্রিলে কিউবান কমিউনিস্ট পার্টির কংগ্রেসে দেওয়া বিদায়ী ভাষণে)
বিদায়!!!!!!!!!

পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?


অথবা,

এক্ষনি একাউন্ট তৈরী কর

বেশতো সাইট টিতে কোনো কন্টেন্ট-এর জন্য বেশতো কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

কনটেন্ট -এর পুরো দায় যে ব্যক্তি কন্টেন্ট লিখেছে তার।

...বিস্তারিত