মনের দরজা

@MonerDorja

মনের যত কথা
business_center প্রফেশনাল তথ্য নেই
school এডুকেশনাল তথ্য নেই
location_on লোকেশন পাওয়া যায়নি
1349805600000  থেকে আমাদের সাথে আছে

মনের দরজা: মেয়েরা সবার সামনে সাজে আর ছেলেরা আড়ালে সাজে (খিকখিক) সাজতে আবার কে ভালোবাসেন না বলুন তো (শয়তানিহাসি) তাহলে এখন কেন মেয়েদের রূপচর্চা নিয়ে এত হাসি-তামাশা হয় বলুন তো (চিন্তাকরি) আমরা যেমন হাইজেনিক কারণে দাঁত মাজি সেরকমই হাইজেনিক কারনেই স্কিন বা চুলের যত্নও নেওয়া উচিত (খুকখুকহাসি) আমার তো মনে হয় সৌন্দর্য্যতা এবং বুদ্ধিমত্তা একে অন্যের পরিপূরক (থাম্বসআপ)

মনের দরজা: আমাদের সমাজের রীতিটাই এমন যে মেয়েরা যত উচ্চশিক্ষিত বা বুদ্ধিমতি হোক না কেন পরিবার কিংবা সংসারের কোন গুরুত্বপুর্ণ সিদ্ধান্ত গ্রহনের ক্ষেত্রে তাদেরকে সব সময় পাশ কাটিয়ে যাওয়া হয় (মনখারাপ)

*সমাজের-রীতি* *পুরুষতান্ত্রিক* *একতরফা* *সিদ্ধান্ত*

মনের দরজা: আজ অনেকদিন পর আবার বেশতোতে এলাম। সবাই কেমন আছেন? (হ্যালো)

মনের দরজা: বহুদিন পর বেশতোতে এলাম। আবারও চেনা মুখগুলোকে দেখতে পেয়ে খুব ভালো লাগছে। সবার দিনকাল কেমন যাচ্ছে?

মনের দরজা: ঈদ মুবারক সবাইকে! :)

মনের দরজা: মাঝে মাঝে কোন একটা কাজ করলে, কোথাও গেলে, কিছু দেখলে, অথবা কিছু শুনলে মনে হয়-“আরে এটা তো আমি আগেও একবার করেছি বা দেখেছি। পরিচিত লাগছে!” এই মনোভাবের সাথে প্যারালাল ওয়ার্ল্ড এর কোন যোগাযোগ আছে বলে আমার মনে হয়। আচ্ছা, আপনাদের এমন অনুভূতি হয় না?

মনের দরজা: জয়েন্ট ফ্যামিলিতে যারা বড় হয়েছে তারা বুঝে জয়েন্ট ফ্যামিলির মাহাত্ম্য। শৈশব কৈশোরে দাদা দাদি চাচা চাচি ফুপা ফুপুর আদরে মানুষ হওয়া আমি- এখন হা হুতাশ করি আমার ছোট ভাইকে একলা মানুষ হতে দেখে। ও তো ওসবের কিছুই পেল না।

মনের দরজা: ঐদিন আব্বু ঘোষণা দিল-“টাকা পয়সা খরচ করে পড়াশুনা করিয়েছি, এখন চাকরি করে সেসব টাকা ফেরত দেয়ার চিন্তা কর না। যা কামাই করছ তা দিয়ে নিজের খরচ চালাতে শিখো”। কথাটা শুনে এই ভেবে ভালো লাগলো যে- নাহ, আমি তাহলে আমাদের ফ্যামিলির ছেলে! :D

মনের দরজা: ইউনিভার্সিটি ছাড়লাম আজ অনেক দিন হয়ে গেল। খুব মনে পড়ে ওই দিনগুলো। আমার এক ভাবি বলতো যখন ইউনিভার্সিটি লাইফ শেষ হয়ে যাবে, তখন বুঝবি কি সোনার দিন পার করেছিস! এখন বুঝি তার কথার তাৎপর্য!

মনের দরজা: পেপারে দেখি বা শুনি আন্দোলন, মীটিং, মিছিল করতে লোক ভাড়া করা হয় টাকা দিয়ে। কতটুকু সত্যি এটা-জানি না। হয়ত একারণেই এত সমাবেশের ফলাফল শুন্য। যেদিন মানুষ সত্যিকার অর্থে, মন থেকে ন্যায় কিছু পেতে রাস্তায় নামবে সেদিনই আমরা কিছু একটা অর্জন করতে পারবো।

মনের দরজা: কিন্তু তবুও কেন আমরা শুধুমাত্র সামাজিক যোগাযোগ রক্ষাকারী সাইটে প্রতিবাদ করে বসে থাকি? “একটা মেয়ে হয়ে কিভাবে রাস্তায় নামি প্রতিবাদ করতে”-এই চিন্তা বহু পুরনো। তারপরও কিছুই কি করার নেই?

মনের দরজা: একটা দেশের নাগরিক হওয়ার সুবাদে দেশে কি চলছে না চলছে-এসব জানার অধিকার এমন একটা গণতান্ত্রিক দেশের প্রত্যেকটা মানুষের আছে। শুধু জানা না, প্রয়োজনে মতামত জানানো এমনকি রাস্তায় নেমে প্রতিবাদ করার সুযোগও আছে।

মনের দরজা: কিন্তু এমন ধরণের সহিংসতা অনেক আগে থেকেই ঘটছে এদেশে। হয়ত দু-চার দিনের প্রতিবাদের পর কয়েক বছর সব চুপ থাকে, তারপর আবার ঘটে। এদের মধ্যে বেশীরভাগ ঘটনাই মানুষের অজানা থেকে যাচ্ছে। কে জানে, হয়ত রাজনৈতিকভাবে এসব ঘটনা প্রকাশ করা হচ্ছে না।

মনের দরজা: গতকাল “সংখ্যালঘু” কথাটা লিখলেও এই শব্দের প্রতি আমার আপত্তি আছে। এখানে জায়গার স্বল্পতার কারণে লিখতে হল। বাস্তবে যাদের কথা বলছি এরা সবাই এই দেশেরই মানুষ। অল্প কিছু ‘’ মানুষের জন্য সবাই সাফার করবে-এটা হতে পারে না।

মনের দরজা: কিছু মানুষ আছে যারা কখনই কখনই বদলায় না। এই ধরণের ঘটনায় বিবেকবান সব মানুষের এগিয়ে আসা উচিত, কিন্তু তারা কি তা করছে? আমি নিজেই কি করছি? শুধুমাত্র নিজের হতাশা,দুঃখ শেয়ার করে নিরীহ মানুষগুলোর কি উপকার করছি?

মনের দরজা: রামুতে বৌদ্ধ বিহার পোড়ানো এবং সংখ্যালঘুদের উপর হামলার খবর পড়ে খুব কষ্ট পেলাম। কিছু মানুষ আছে যারা হুজুগে নাচে। কেউ একটু উসকানি দিলেই হল, ভালো খারাপ কোন কিছু চিন্তা না করেই নেমে পড়ে ধ্বংসাত্মক কাজে। এদের ঠিক করার কি কেউ নেই?

মনের দরজা: আজকাল অনেক ডিভোর্সের কথা শুনছি। “কাউকে পছন্দ করে বিয়ে করলাম, কিন্তু বিয়ের পর তার সাথে আর থাকতে ভালো লাগলো না। তাই ডিভোর্স দিয়ে দিলাম”-এমন ব্যাখ্যাই বেশী শুনি। আসলেও কি মানুষের বিয়ের আগে এক চেহারা, বিয়ের পর এক চেহারা?

মনের দরজা: কতটা অসহায় হলে একটা মানুষ আরেকটা মানুষের সাথে থাকতে চায় না? আর ভালবাসতে চায় না? আসলেও কি সম্ভব, এতগুলো বছর যেই মানুষটার পাশে থাকলাম তাকে ছেড়ে চলে আসলেও ভুলে থাকা?

মনের দরজা: একটা প্রশ্ন আজকাল উঁকি দিচ্ছে মনে-বহুদিনের ভালবাসার সম্পর্ক,কোন একটা কারণে ছেদ করতে চাইলে ঠিক কিভাবে বলা যায়?

মনের দরজা: আমি হিন্দি মুভির দারুণ ভক্ত। কাল রাতে সালমান খানের নতুন হিন্দি মুভিটা দেখলাম। খুব ভালো লাগলো। একেবারে পয়সা উসুল সিনেমা।

পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?


অথবা,

আজকের
গড়
এযাবত

বেশতো সাইট টিতে কোনো কন্টেন্ট-এর জন্য বেশতো কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

কনটেন্ট -এর পুরো দায় যে ব্যক্তি কন্টেন্ট লিখেছে তার।

...বিস্তারিত