বিটলা + আতেল

@bitlaatel

আমি আসছি বিটলামি করতে আর আতলামি করতে
business_center প্রফেশনাল তথ্য নেই
school এডুকেশনাল তথ্য নেই
location_on লোকেশন পাওয়া যায়নি
1436844657000  থেকে আমাদের সাথে আছে

❤ তমা ❤: একজনকে সুপারিশ করেছে

বিটলা + আতেল

@bitlaatel

আমি আসছি বিটলামি করতে আর আতলামি করতে
৮৫ জন ফলো করছে
জোকস

শামীমা নাসরীন দিবা জোকসটি শেয়ার করেছে

(হাসি২)(ভেঙ্গানো)
ছবি

ফাহিম মাশরুর ফটোটি শেয়ার করেছে

পুরাই জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং

ওয়াসিম (একলা আমি ) বেশটুনটি শেয়ার করেছে

ইয়েহ , আইজকা বলে বিষ্যুদবার... তার মানে কাইল্যা ছুটি ... খালি ঘুম আর ঘুম .... বাহ .. বেশতো

দীপ্তি: একজনকে সুপারিশ করেছে "ঈদের আগের প্রতিযোগিতার বিজয়ী ছিলেন উনি (খিকখিক) "

বিটলা + আতেল

@bitlaatel

আমি আসছি বিটলামি করতে আর আতলামি করতে
৮৫ জন ফলো করছে

আমানুল্লাহ সরকার: একজনকে সুপারিশ করেছে

বিটলা + আতেল

@bitlaatel

আমি আসছি বিটলামি করতে আর আতলামি করতে
৮৫ জন ফলো করছে

ফাহিম মাশরুর: একজনকে সুপারিশ করেছে

বিটলা + আতেল

@bitlaatel

আমি আসছি বিটলামি করতে আর আতলামি করতে
৮৫ জন ফলো করছে

নাফিসা আনজুম রাফা বেশব্লগটি শেয়ার করেছে

মুসলিম প্রধান দেশ বাংলাদেশ l ঈদ কথাটা শুনলেই খুশির জোয়ার বয়ে যায়, আর রোজার ঈদ তো সব সময় অন্য আবেদন নিয়ে আসে l  সেটা কি খুশির নাকি ভোগান্তির?!!!!

রমজান শুরু হওযার সাথে সাথে শুরু হয় পণ্য মূল্যের উর্ধ্বগতি, যানজট সেত নিত্য দিনের বন্ধুই কিন্তু রমজানে আমার মনে হয় সিটিং সার্ভিস না দিয়ে লায়িং সার্ভিস দিলে আমরা কেউ আপত্তি করতাম না l  কেন বাবা  ঈদ এর একদিন এর জন্য তোমাকে ১০ দিন শপিং এ আসতে হবে?

কেন যাকাত এর কাপড় ঈদ এ দিতেই হবে? সারাবছর কি ওদের কাপড় এর দরকার হয় না? ফাজলামির একটা লিমিট থাকা উচিত l

আবার কিছু কিছু জায়গায় দেখি গরিব রোজাদারদের জন্য একদিনের ইফতার মাহফিল l  আরেক তামাশা l  বাকি উনত্রিশদিন কি তার ইফতার করতে হয় না? ২০০ জন কে একদিন না খাওয়ায়ে ২০ জন কে ৩০ দিন খাওয়াও, তাতে কিছু উপকার হয় l  তারচেয়ে ভালো হয় ২ জন বেকারকে সারাবছর এর খাবার এর জন্য কিছু একটা ব্যবস্থা করে দিলে l আবার কিছু আজাইরা লোক তো আছেই " proud feeling" করার জন্য এসব ইভেন্ট এর সাথে  যুক্ত হতে পেরে l

অনেকেই যুক্তি দেয় এরকম চেষ্টা করা হয়েছিল কিন্তু ম্যাক্সিমাম ক্ষেত্রে তা সফল হয়নি, তার মানে মিনিমাম তো হয়েছে l আইন এ একটা কথা আছে, "দশজন অপরাধীকে মুক্তি দেয়া হোক , কিন্তু একজন নিরপরাধী যেন কোনো ভাবে শাস্তি না পায় " l  ১০ জন এর মাঝে ৯ জন সঠিক ভাবে ব্যবহার না করুক আপনার দান, একজন যে করবে সেটাই আপনার সার্থকতা l

যাকাত এর টাকাটা এক ই ভাবে প্রযোজ্য l

সংযম এর কথা তো আর কি বলবো , টিভি আর বিলবোর্ড এর দিকে তাকালেই বোঝা যায় কার সংযম কতটুকু l আগে তো শুধু মেয়েদেরকেই ব্যবহার করা হত, ইদানিং ছেলেদের ও যেসব বিলবোর্ড দেখা যাচ্ছে (ওমা)  l এই টেলিভিশন এ বলছে রমজান উপলক্ষ্যে কুরআনের বাণী নিয়ে অনুষ্ঠান, আবার কিছুক্ষণ পর ইফতার এর র্রেসিপি নিয়ে অনষ্ঠান, ঈদ এর নাচ এই এর এই ঈদ এর সেই  ব্লা ব্লা ব্লা l  না শুধু বিশেষ কিছু গোষ্ঠীই ধর্ম নিয়ে ব্যবসা করেনা, সবাই করে l 

তাই ঈদ আসলে কতটুকু খুশির আর কত টুকু ব্যবসার, কত কান্নার তারাই জানে জানে যখন বাচ্চা দুটো কাঁদতে থাকে ঈদ এর নতুন জামার জন্য, কিন্তু কারো কাছে চাইতে না পারার অক্ষমতা, নিজের কিনতে না পারার অক্ষমতা কে কিছুতে ঢেকে দেয়া যায় না তখন ঈদ কে মনে হয় নির্মম পরিহাস  l

যেখানে কেউ ১০ দিনে ও শপিং শেষ করতে না পারার কারণে আমরা বাস এর হ্যান্ডেল ধরে ঝুলি, আর কেউ টিভি রেসিপি শো দেখে চিন্তা করি বড়লোকেরা তাহলে এগুলা খায়!!! আর কেউ যাকাত এর কাপড় আনতে গিয়ে মারা যায় কারণ অন্য সময় তো সিজন নাই, তারা দিবে না l আর দ্রব্যমূল্যের হিসাব কষতে কষতে যখন ক্যালকুলেটার এ ভেঙ্গে যায় তখনই মাথায় চিন্তা আসে

ঈদ খুশি নাকি যন্ত্রণা ??

তবুও চাই জগতের সকল প্রাণী সুখী হোক . হ্যাপি ঈদ (রুবেল কে এখানে টানিয়া লজ্জা দিবেন না )



বিম্ববতী বেশব্লগটি শেয়ার করেছে
"তাই ঈদ আসলে কতটুকু খুশির আর কত টুকু ব্যবসার, কত কান্নার তারাই জানে জানে যখন বাচ্চা দুটো কাঁদতে থাকে ঈদ এর নতুন জামার জন্য, কিন্তু কারো কাছে চাইতে না পারার অক্ষমতা, নিজের কিনতে না পারার অক্ষমতা কে কিছুতে ঢেকে দেয়া যায় না তখন ঈদ কে মনে হয় নির্মম,,,"

মুসলিম প্রধান দেশ বাংলাদেশ l ঈদ কথাটা শুনলেই খুশির জোয়ার বয়ে যায়, আর রোজার ঈদ তো সব সময় অন্য আবেদন নিয়ে আসে l  সেটা কি খুশির নাকি ভোগান্তির?!!!!

রমজান শুরু হওযার সাথে সাথে শুরু হয় পণ্য মূল্যের উর্ধ্বগতি, যানজট সেত নিত্য দিনের বন্ধুই কিন্তু রমজানে আমার মনে হয় সিটিং সার্ভিস না দিয়ে লায়িং সার্ভিস দিলে আমরা কেউ আপত্তি করতাম না l  কেন বাবা  ঈদ এর একদিন এর জন্য তোমাকে ১০ দিন শপিং এ আসতে হবে?

কেন যাকাত এর কাপড় ঈদ এ দিতেই হবে? সারাবছর কি ওদের কাপড় এর দরকার হয় না? ফাজলামির একটা লিমিট থাকা উচিত l

আবার কিছু কিছু জায়গায় দেখি গরিব রোজাদারদের জন্য একদিনের ইফতার মাহফিল l  আরেক তামাশা l  বাকি উনত্রিশদিন কি তার ইফতার করতে হয় না? ২০০ জন কে একদিন না খাওয়ায়ে ২০ জন কে ৩০ দিন খাওয়াও, তাতে কিছু উপকার হয় l  তারচেয়ে ভালো হয় ২ জন বেকারকে সারাবছর এর খাবার এর জন্য কিছু একটা ব্যবস্থা করে দিলে l আবার কিছু আজাইরা লোক তো আছেই " proud feeling" করার জন্য এসব ইভেন্ট এর সাথে  যুক্ত হতে পেরে l

অনেকেই যুক্তি দেয় এরকম চেষ্টা করা হয়েছিল কিন্তু ম্যাক্সিমাম ক্ষেত্রে তা সফল হয়নি, তার মানে মিনিমাম তো হয়েছে l আইন এ একটা কথা আছে, "দশজন অপরাধীকে মুক্তি দেয়া হোক , কিন্তু একজন নিরপরাধী যেন কোনো ভাবে শাস্তি না পায় " l  ১০ জন এর মাঝে ৯ জন সঠিক ভাবে ব্যবহার না করুক আপনার দান, একজন যে করবে সেটাই আপনার সার্থকতা l

যাকাত এর টাকাটা এক ই ভাবে প্রযোজ্য l

সংযম এর কথা তো আর কি বলবো , টিভি আর বিলবোর্ড এর দিকে তাকালেই বোঝা যায় কার সংযম কতটুকু l আগে তো শুধু মেয়েদেরকেই ব্যবহার করা হত, ইদানিং ছেলেদের ও যেসব বিলবোর্ড দেখা যাচ্ছে (ওমা)  l এই টেলিভিশন এ বলছে রমজান উপলক্ষ্যে কুরআনের বাণী নিয়ে অনুষ্ঠান, আবার কিছুক্ষণ পর ইফতার এর র্রেসিপি নিয়ে অনষ্ঠান, ঈদ এর নাচ এই এর এই ঈদ এর সেই  ব্লা ব্লা ব্লা l  না শুধু বিশেষ কিছু গোষ্ঠীই ধর্ম নিয়ে ব্যবসা করেনা, সবাই করে l 

তাই ঈদ আসলে কতটুকু খুশির আর কত টুকু ব্যবসার, কত কান্নার তারাই জানে জানে যখন বাচ্চা দুটো কাঁদতে থাকে ঈদ এর নতুন জামার জন্য, কিন্তু কারো কাছে চাইতে না পারার অক্ষমতা, নিজের কিনতে না পারার অক্ষমতা কে কিছুতে ঢেকে দেয়া যায় না তখন ঈদ কে মনে হয় নির্মম পরিহাস  l

যেখানে কেউ ১০ দিনে ও শপিং শেষ করতে না পারার কারণে আমরা বাস এর হ্যান্ডেল ধরে ঝুলি, আর কেউ টিভি রেসিপি শো দেখে চিন্তা করি বড়লোকেরা তাহলে এগুলা খায়!!! আর কেউ যাকাত এর কাপড় আনতে গিয়ে মারা যায় কারণ অন্য সময় তো সিজন নাই, তারা দিবে না l আর দ্রব্যমূল্যের হিসাব কষতে কষতে যখন ক্যালকুলেটার এ ভেঙ্গে যায় তখনই মাথায় চিন্তা আসে

ঈদ খুশি নাকি যন্ত্রণা ??

তবুও চাই জগতের সকল প্রাণী সুখী হোক . হ্যাপি ঈদ (রুবেল কে এখানে টানিয়া লজ্জা দিবেন না )



উদয় বেশব্লগটি শেয়ার করেছে

মুসলিম প্রধান দেশ বাংলাদেশ l ঈদ কথাটা শুনলেই খুশির জোয়ার বয়ে যায়, আর রোজার ঈদ তো সব সময় অন্য আবেদন নিয়ে আসে l  সেটা কি খুশির নাকি ভোগান্তির?!!!!

রমজান শুরু হওযার সাথে সাথে শুরু হয় পণ্য মূল্যের উর্ধ্বগতি, যানজট সেত নিত্য দিনের বন্ধুই কিন্তু রমজানে আমার মনে হয় সিটিং সার্ভিস না দিয়ে লায়িং সার্ভিস দিলে আমরা কেউ আপত্তি করতাম না l  কেন বাবা  ঈদ এর একদিন এর জন্য তোমাকে ১০ দিন শপিং এ আসতে হবে?

কেন যাকাত এর কাপড় ঈদ এ দিতেই হবে? সারাবছর কি ওদের কাপড় এর দরকার হয় না? ফাজলামির একটা লিমিট থাকা উচিত l

আবার কিছু কিছু জায়গায় দেখি গরিব রোজাদারদের জন্য একদিনের ইফতার মাহফিল l  আরেক তামাশা l  বাকি উনত্রিশদিন কি তার ইফতার করতে হয় না? ২০০ জন কে একদিন না খাওয়ায়ে ২০ জন কে ৩০ দিন খাওয়াও, তাতে কিছু উপকার হয় l  তারচেয়ে ভালো হয় ২ জন বেকারকে সারাবছর এর খাবার এর জন্য কিছু একটা ব্যবস্থা করে দিলে l আবার কিছু আজাইরা লোক তো আছেই " proud feeling" করার জন্য এসব ইভেন্ট এর সাথে  যুক্ত হতে পেরে l

অনেকেই যুক্তি দেয় এরকম চেষ্টা করা হয়েছিল কিন্তু ম্যাক্সিমাম ক্ষেত্রে তা সফল হয়নি, তার মানে মিনিমাম তো হয়েছে l আইন এ একটা কথা আছে, "দশজন অপরাধীকে মুক্তি দেয়া হোক , কিন্তু একজন নিরপরাধী যেন কোনো ভাবে শাস্তি না পায় " l  ১০ জন এর মাঝে ৯ জন সঠিক ভাবে ব্যবহার না করুক আপনার দান, একজন যে করবে সেটাই আপনার সার্থকতা l

যাকাত এর টাকাটা এক ই ভাবে প্রযোজ্য l

সংযম এর কথা তো আর কি বলবো , টিভি আর বিলবোর্ড এর দিকে তাকালেই বোঝা যায় কার সংযম কতটুকু l আগে তো শুধু মেয়েদেরকেই ব্যবহার করা হত, ইদানিং ছেলেদের ও যেসব বিলবোর্ড দেখা যাচ্ছে (ওমা)  l এই টেলিভিশন এ বলছে রমজান উপলক্ষ্যে কুরআনের বাণী নিয়ে অনুষ্ঠান, আবার কিছুক্ষণ পর ইফতার এর র্রেসিপি নিয়ে অনষ্ঠান, ঈদ এর নাচ এই এর এই ঈদ এর সেই  ব্লা ব্লা ব্লা l  না শুধু বিশেষ কিছু গোষ্ঠীই ধর্ম নিয়ে ব্যবসা করেনা, সবাই করে l 

তাই ঈদ আসলে কতটুকু খুশির আর কত টুকু ব্যবসার, কত কান্নার তারাই জানে জানে যখন বাচ্চা দুটো কাঁদতে থাকে ঈদ এর নতুন জামার জন্য, কিন্তু কারো কাছে চাইতে না পারার অক্ষমতা, নিজের কিনতে না পারার অক্ষমতা কে কিছুতে ঢেকে দেয়া যায় না তখন ঈদ কে মনে হয় নির্মম পরিহাস  l

যেখানে কেউ ১০ দিনে ও শপিং শেষ করতে না পারার কারণে আমরা বাস এর হ্যান্ডেল ধরে ঝুলি, আর কেউ টিভি রেসিপি শো দেখে চিন্তা করি বড়লোকেরা তাহলে এগুলা খায়!!! আর কেউ যাকাত এর কাপড় আনতে গিয়ে মারা যায় কারণ অন্য সময় তো সিজন নাই, তারা দিবে না l আর দ্রব্যমূল্যের হিসাব কষতে কষতে যখন ক্যালকুলেটার এ ভেঙ্গে যায় তখনই মাথায় চিন্তা আসে

ঈদ খুশি নাকি যন্ত্রণা ??

তবুও চাই জগতের সকল প্রাণী সুখী হোক . হ্যাপি ঈদ (রুবেল কে এখানে টানিয়া লজ্জা দিবেন না )



পূজা বেশব্লগটি শেয়ার করেছে

মুসলিম প্রধান দেশ বাংলাদেশ l ঈদ কথাটা শুনলেই খুশির জোয়ার বয়ে যায়, আর রোজার ঈদ তো সব সময় অন্য আবেদন নিয়ে আসে l  সেটা কি খুশির নাকি ভোগান্তির?!!!!

রমজান শুরু হওযার সাথে সাথে শুরু হয় পণ্য মূল্যের উর্ধ্বগতি, যানজট সেত নিত্য দিনের বন্ধুই কিন্তু রমজানে আমার মনে হয় সিটিং সার্ভিস না দিয়ে লায়িং সার্ভিস দিলে আমরা কেউ আপত্তি করতাম না l  কেন বাবা  ঈদ এর একদিন এর জন্য তোমাকে ১০ দিন শপিং এ আসতে হবে?

কেন যাকাত এর কাপড় ঈদ এ দিতেই হবে? সারাবছর কি ওদের কাপড় এর দরকার হয় না? ফাজলামির একটা লিমিট থাকা উচিত l

আবার কিছু কিছু জায়গায় দেখি গরিব রোজাদারদের জন্য একদিনের ইফতার মাহফিল l  আরেক তামাশা l  বাকি উনত্রিশদিন কি তার ইফতার করতে হয় না? ২০০ জন কে একদিন না খাওয়ায়ে ২০ জন কে ৩০ দিন খাওয়াও, তাতে কিছু উপকার হয় l  তারচেয়ে ভালো হয় ২ জন বেকারকে সারাবছর এর খাবার এর জন্য কিছু একটা ব্যবস্থা করে দিলে l আবার কিছু আজাইরা লোক তো আছেই " proud feeling" করার জন্য এসব ইভেন্ট এর সাথে  যুক্ত হতে পেরে l

অনেকেই যুক্তি দেয় এরকম চেষ্টা করা হয়েছিল কিন্তু ম্যাক্সিমাম ক্ষেত্রে তা সফল হয়নি, তার মানে মিনিমাম তো হয়েছে l আইন এ একটা কথা আছে, "দশজন অপরাধীকে মুক্তি দেয়া হোক , কিন্তু একজন নিরপরাধী যেন কোনো ভাবে শাস্তি না পায় " l  ১০ জন এর মাঝে ৯ জন সঠিক ভাবে ব্যবহার না করুক আপনার দান, একজন যে করবে সেটাই আপনার সার্থকতা l

যাকাত এর টাকাটা এক ই ভাবে প্রযোজ্য l

সংযম এর কথা তো আর কি বলবো , টিভি আর বিলবোর্ড এর দিকে তাকালেই বোঝা যায় কার সংযম কতটুকু l আগে তো শুধু মেয়েদেরকেই ব্যবহার করা হত, ইদানিং ছেলেদের ও যেসব বিলবোর্ড দেখা যাচ্ছে (ওমা)  l এই টেলিভিশন এ বলছে রমজান উপলক্ষ্যে কুরআনের বাণী নিয়ে অনুষ্ঠান, আবার কিছুক্ষণ পর ইফতার এর র্রেসিপি নিয়ে অনষ্ঠান, ঈদ এর নাচ এই এর এই ঈদ এর সেই  ব্লা ব্লা ব্লা l  না শুধু বিশেষ কিছু গোষ্ঠীই ধর্ম নিয়ে ব্যবসা করেনা, সবাই করে l 

তাই ঈদ আসলে কতটুকু খুশির আর কত টুকু ব্যবসার, কত কান্নার তারাই জানে জানে যখন বাচ্চা দুটো কাঁদতে থাকে ঈদ এর নতুন জামার জন্য, কিন্তু কারো কাছে চাইতে না পারার অক্ষমতা, নিজের কিনতে না পারার অক্ষমতা কে কিছুতে ঢেকে দেয়া যায় না তখন ঈদ কে মনে হয় নির্মম পরিহাস  l

যেখানে কেউ ১০ দিনে ও শপিং শেষ করতে না পারার কারণে আমরা বাস এর হ্যান্ডেল ধরে ঝুলি, আর কেউ টিভি রেসিপি শো দেখে চিন্তা করি বড়লোকেরা তাহলে এগুলা খায়!!! আর কেউ যাকাত এর কাপড় আনতে গিয়ে মারা যায় কারণ অন্য সময় তো সিজন নাই, তারা দিবে না l আর দ্রব্যমূল্যের হিসাব কষতে কষতে যখন ক্যালকুলেটার এ ভেঙ্গে যায় তখনই মাথায় চিন্তা আসে

ঈদ খুশি নাকি যন্ত্রণা ??

তবুও চাই জগতের সকল প্রাণী সুখী হোক . হ্যাপি ঈদ (রুবেল কে এখানে টানিয়া লজ্জা দিবেন না )



রং নাম্বার বেশব্লগটি শেয়ার করেছে

মুসলিম প্রধান দেশ বাংলাদেশ l ঈদ কথাটা শুনলেই খুশির জোয়ার বয়ে যায়, আর রোজার ঈদ তো সব সময় অন্য আবেদন নিয়ে আসে l  সেটা কি খুশির নাকি ভোগান্তির?!!!!

রমজান শুরু হওযার সাথে সাথে শুরু হয় পণ্য মূল্যের উর্ধ্বগতি, যানজট সেত নিত্য দিনের বন্ধুই কিন্তু রমজানে আমার মনে হয় সিটিং সার্ভিস না দিয়ে লায়িং সার্ভিস দিলে আমরা কেউ আপত্তি করতাম না l  কেন বাবা  ঈদ এর একদিন এর জন্য তোমাকে ১০ দিন শপিং এ আসতে হবে?

কেন যাকাত এর কাপড় ঈদ এ দিতেই হবে? সারাবছর কি ওদের কাপড় এর দরকার হয় না? ফাজলামির একটা লিমিট থাকা উচিত l

আবার কিছু কিছু জায়গায় দেখি গরিব রোজাদারদের জন্য একদিনের ইফতার মাহফিল l  আরেক তামাশা l  বাকি উনত্রিশদিন কি তার ইফতার করতে হয় না? ২০০ জন কে একদিন না খাওয়ায়ে ২০ জন কে ৩০ দিন খাওয়াও, তাতে কিছু উপকার হয় l  তারচেয়ে ভালো হয় ২ জন বেকারকে সারাবছর এর খাবার এর জন্য কিছু একটা ব্যবস্থা করে দিলে l আবার কিছু আজাইরা লোক তো আছেই " proud feeling" করার জন্য এসব ইভেন্ট এর সাথে  যুক্ত হতে পেরে l

অনেকেই যুক্তি দেয় এরকম চেষ্টা করা হয়েছিল কিন্তু ম্যাক্সিমাম ক্ষেত্রে তা সফল হয়নি, তার মানে মিনিমাম তো হয়েছে l আইন এ একটা কথা আছে, "দশজন অপরাধীকে মুক্তি দেয়া হোক , কিন্তু একজন নিরপরাধী যেন কোনো ভাবে শাস্তি না পায় " l  ১০ জন এর মাঝে ৯ জন সঠিক ভাবে ব্যবহার না করুক আপনার দান, একজন যে করবে সেটাই আপনার সার্থকতা l

যাকাত এর টাকাটা এক ই ভাবে প্রযোজ্য l

সংযম এর কথা তো আর কি বলবো , টিভি আর বিলবোর্ড এর দিকে তাকালেই বোঝা যায় কার সংযম কতটুকু l আগে তো শুধু মেয়েদেরকেই ব্যবহার করা হত, ইদানিং ছেলেদের ও যেসব বিলবোর্ড দেখা যাচ্ছে (ওমা)  l এই টেলিভিশন এ বলছে রমজান উপলক্ষ্যে কুরআনের বাণী নিয়ে অনুষ্ঠান, আবার কিছুক্ষণ পর ইফতার এর র্রেসিপি নিয়ে অনষ্ঠান, ঈদ এর নাচ এই এর এই ঈদ এর সেই  ব্লা ব্লা ব্লা l  না শুধু বিশেষ কিছু গোষ্ঠীই ধর্ম নিয়ে ব্যবসা করেনা, সবাই করে l 

তাই ঈদ আসলে কতটুকু খুশির আর কত টুকু ব্যবসার, কত কান্নার তারাই জানে জানে যখন বাচ্চা দুটো কাঁদতে থাকে ঈদ এর নতুন জামার জন্য, কিন্তু কারো কাছে চাইতে না পারার অক্ষমতা, নিজের কিনতে না পারার অক্ষমতা কে কিছুতে ঢেকে দেয়া যায় না তখন ঈদ কে মনে হয় নির্মম পরিহাস  l

যেখানে কেউ ১০ দিনে ও শপিং শেষ করতে না পারার কারণে আমরা বাস এর হ্যান্ডেল ধরে ঝুলি, আর কেউ টিভি রেসিপি শো দেখে চিন্তা করি বড়লোকেরা তাহলে এগুলা খায়!!! আর কেউ যাকাত এর কাপড় আনতে গিয়ে মারা যায় কারণ অন্য সময় তো সিজন নাই, তারা দিবে না l আর দ্রব্যমূল্যের হিসাব কষতে কষতে যখন ক্যালকুলেটার এ ভেঙ্গে যায় তখনই মাথায় চিন্তা আসে

ঈদ খুশি নাকি যন্ত্রণা ??

তবুও চাই জগতের সকল প্রাণী সুখী হোক . হ্যাপি ঈদ (রুবেল কে এখানে টানিয়া লজ্জা দিবেন না )



অক্সিজেন বেশব্লগটি শেয়ার করেছে
"ভালো লাগলো "

মুসলিম প্রধান দেশ বাংলাদেশ l ঈদ কথাটা শুনলেই খুশির জোয়ার বয়ে যায়, আর রোজার ঈদ তো সব সময় অন্য আবেদন নিয়ে আসে l  সেটা কি খুশির নাকি ভোগান্তির?!!!!

রমজান শুরু হওযার সাথে সাথে শুরু হয় পণ্য মূল্যের উর্ধ্বগতি, যানজট সেত নিত্য দিনের বন্ধুই কিন্তু রমজানে আমার মনে হয় সিটিং সার্ভিস না দিয়ে লায়িং সার্ভিস দিলে আমরা কেউ আপত্তি করতাম না l  কেন বাবা  ঈদ এর একদিন এর জন্য তোমাকে ১০ দিন শপিং এ আসতে হবে?

কেন যাকাত এর কাপড় ঈদ এ দিতেই হবে? সারাবছর কি ওদের কাপড় এর দরকার হয় না? ফাজলামির একটা লিমিট থাকা উচিত l

আবার কিছু কিছু জায়গায় দেখি গরিব রোজাদারদের জন্য একদিনের ইফতার মাহফিল l  আরেক তামাশা l  বাকি উনত্রিশদিন কি তার ইফতার করতে হয় না? ২০০ জন কে একদিন না খাওয়ায়ে ২০ জন কে ৩০ দিন খাওয়াও, তাতে কিছু উপকার হয় l  তারচেয়ে ভালো হয় ২ জন বেকারকে সারাবছর এর খাবার এর জন্য কিছু একটা ব্যবস্থা করে দিলে l আবার কিছু আজাইরা লোক তো আছেই " proud feeling" করার জন্য এসব ইভেন্ট এর সাথে  যুক্ত হতে পেরে l

অনেকেই যুক্তি দেয় এরকম চেষ্টা করা হয়েছিল কিন্তু ম্যাক্সিমাম ক্ষেত্রে তা সফল হয়নি, তার মানে মিনিমাম তো হয়েছে l আইন এ একটা কথা আছে, "দশজন অপরাধীকে মুক্তি দেয়া হোক , কিন্তু একজন নিরপরাধী যেন কোনো ভাবে শাস্তি না পায় " l  ১০ জন এর মাঝে ৯ জন সঠিক ভাবে ব্যবহার না করুক আপনার দান, একজন যে করবে সেটাই আপনার সার্থকতা l

যাকাত এর টাকাটা এক ই ভাবে প্রযোজ্য l

সংযম এর কথা তো আর কি বলবো , টিভি আর বিলবোর্ড এর দিকে তাকালেই বোঝা যায় কার সংযম কতটুকু l আগে তো শুধু মেয়েদেরকেই ব্যবহার করা হত, ইদানিং ছেলেদের ও যেসব বিলবোর্ড দেখা যাচ্ছে (ওমা)  l এই টেলিভিশন এ বলছে রমজান উপলক্ষ্যে কুরআনের বাণী নিয়ে অনুষ্ঠান, আবার কিছুক্ষণ পর ইফতার এর র্রেসিপি নিয়ে অনষ্ঠান, ঈদ এর নাচ এই এর এই ঈদ এর সেই  ব্লা ব্লা ব্লা l  না শুধু বিশেষ কিছু গোষ্ঠীই ধর্ম নিয়ে ব্যবসা করেনা, সবাই করে l 

তাই ঈদ আসলে কতটুকু খুশির আর কত টুকু ব্যবসার, কত কান্নার তারাই জানে জানে যখন বাচ্চা দুটো কাঁদতে থাকে ঈদ এর নতুন জামার জন্য, কিন্তু কারো কাছে চাইতে না পারার অক্ষমতা, নিজের কিনতে না পারার অক্ষমতা কে কিছুতে ঢেকে দেয়া যায় না তখন ঈদ কে মনে হয় নির্মম পরিহাস  l

যেখানে কেউ ১০ দিনে ও শপিং শেষ করতে না পারার কারণে আমরা বাস এর হ্যান্ডেল ধরে ঝুলি, আর কেউ টিভি রেসিপি শো দেখে চিন্তা করি বড়লোকেরা তাহলে এগুলা খায়!!! আর কেউ যাকাত এর কাপড় আনতে গিয়ে মারা যায় কারণ অন্য সময় তো সিজন নাই, তারা দিবে না l আর দ্রব্যমূল্যের হিসাব কষতে কষতে যখন ক্যালকুলেটার এ ভেঙ্গে যায় তখনই মাথায় চিন্তা আসে

ঈদ খুশি নাকি যন্ত্রণা ??

তবুও চাই জগতের সকল প্রাণী সুখী হোক . হ্যাপি ঈদ (রুবেল কে এখানে টানিয়া লজ্জা দিবেন না )



মিশু বেশব্লগটি শেয়ার করেছে

মুসলিম প্রধান দেশ বাংলাদেশ l ঈদ কথাটা শুনলেই খুশির জোয়ার বয়ে যায়, আর রোজার ঈদ তো সব সময় অন্য আবেদন নিয়ে আসে l  সেটা কি খুশির নাকি ভোগান্তির?!!!!

রমজান শুরু হওযার সাথে সাথে শুরু হয় পণ্য মূল্যের উর্ধ্বগতি, যানজট সেত নিত্য দিনের বন্ধুই কিন্তু রমজানে আমার মনে হয় সিটিং সার্ভিস না দিয়ে লায়িং সার্ভিস দিলে আমরা কেউ আপত্তি করতাম না l  কেন বাবা  ঈদ এর একদিন এর জন্য তোমাকে ১০ দিন শপিং এ আসতে হবে?

কেন যাকাত এর কাপড় ঈদ এ দিতেই হবে? সারাবছর কি ওদের কাপড় এর দরকার হয় না? ফাজলামির একটা লিমিট থাকা উচিত l

আবার কিছু কিছু জায়গায় দেখি গরিব রোজাদারদের জন্য একদিনের ইফতার মাহফিল l  আরেক তামাশা l  বাকি উনত্রিশদিন কি তার ইফতার করতে হয় না? ২০০ জন কে একদিন না খাওয়ায়ে ২০ জন কে ৩০ দিন খাওয়াও, তাতে কিছু উপকার হয় l  তারচেয়ে ভালো হয় ২ জন বেকারকে সারাবছর এর খাবার এর জন্য কিছু একটা ব্যবস্থা করে দিলে l আবার কিছু আজাইরা লোক তো আছেই " proud feeling" করার জন্য এসব ইভেন্ট এর সাথে  যুক্ত হতে পেরে l

অনেকেই যুক্তি দেয় এরকম চেষ্টা করা হয়েছিল কিন্তু ম্যাক্সিমাম ক্ষেত্রে তা সফল হয়নি, তার মানে মিনিমাম তো হয়েছে l আইন এ একটা কথা আছে, "দশজন অপরাধীকে মুক্তি দেয়া হোক , কিন্তু একজন নিরপরাধী যেন কোনো ভাবে শাস্তি না পায় " l  ১০ জন এর মাঝে ৯ জন সঠিক ভাবে ব্যবহার না করুক আপনার দান, একজন যে করবে সেটাই আপনার সার্থকতা l

যাকাত এর টাকাটা এক ই ভাবে প্রযোজ্য l

সংযম এর কথা তো আর কি বলবো , টিভি আর বিলবোর্ড এর দিকে তাকালেই বোঝা যায় কার সংযম কতটুকু l আগে তো শুধু মেয়েদেরকেই ব্যবহার করা হত, ইদানিং ছেলেদের ও যেসব বিলবোর্ড দেখা যাচ্ছে (ওমা)  l এই টেলিভিশন এ বলছে রমজান উপলক্ষ্যে কুরআনের বাণী নিয়ে অনুষ্ঠান, আবার কিছুক্ষণ পর ইফতার এর র্রেসিপি নিয়ে অনষ্ঠান, ঈদ এর নাচ এই এর এই ঈদ এর সেই  ব্লা ব্লা ব্লা l  না শুধু বিশেষ কিছু গোষ্ঠীই ধর্ম নিয়ে ব্যবসা করেনা, সবাই করে l 

তাই ঈদ আসলে কতটুকু খুশির আর কত টুকু ব্যবসার, কত কান্নার তারাই জানে জানে যখন বাচ্চা দুটো কাঁদতে থাকে ঈদ এর নতুন জামার জন্য, কিন্তু কারো কাছে চাইতে না পারার অক্ষমতা, নিজের কিনতে না পারার অক্ষমতা কে কিছুতে ঢেকে দেয়া যায় না তখন ঈদ কে মনে হয় নির্মম পরিহাস  l

যেখানে কেউ ১০ দিনে ও শপিং শেষ করতে না পারার কারণে আমরা বাস এর হ্যান্ডেল ধরে ঝুলি, আর কেউ টিভি রেসিপি শো দেখে চিন্তা করি বড়লোকেরা তাহলে এগুলা খায়!!! আর কেউ যাকাত এর কাপড় আনতে গিয়ে মারা যায় কারণ অন্য সময় তো সিজন নাই, তারা দিবে না l আর দ্রব্যমূল্যের হিসাব কষতে কষতে যখন ক্যালকুলেটার এ ভেঙ্গে যায় তখনই মাথায় চিন্তা আসে

ঈদ খুশি নাকি যন্ত্রণা ??

তবুও চাই জগতের সকল প্রাণী সুখী হোক . হ্যাপি ঈদ (রুবেল কে এখানে টানিয়া লজ্জা দিবেন না )



দীপ্তি বেশব্লগটি শেয়ার করেছে

মুসলিম প্রধান দেশ বাংলাদেশ l ঈদ কথাটা শুনলেই খুশির জোয়ার বয়ে যায়, আর রোজার ঈদ তো সব সময় অন্য আবেদন নিয়ে আসে l  সেটা কি খুশির নাকি ভোগান্তির?!!!!

রমজান শুরু হওযার সাথে সাথে শুরু হয় পণ্য মূল্যের উর্ধ্বগতি, যানজট সেত নিত্য দিনের বন্ধুই কিন্তু রমজানে আমার মনে হয় সিটিং সার্ভিস না দিয়ে লায়িং সার্ভিস দিলে আমরা কেউ আপত্তি করতাম না l  কেন বাবা  ঈদ এর একদিন এর জন্য তোমাকে ১০ দিন শপিং এ আসতে হবে?

কেন যাকাত এর কাপড় ঈদ এ দিতেই হবে? সারাবছর কি ওদের কাপড় এর দরকার হয় না? ফাজলামির একটা লিমিট থাকা উচিত l

আবার কিছু কিছু জায়গায় দেখি গরিব রোজাদারদের জন্য একদিনের ইফতার মাহফিল l  আরেক তামাশা l  বাকি উনত্রিশদিন কি তার ইফতার করতে হয় না? ২০০ জন কে একদিন না খাওয়ায়ে ২০ জন কে ৩০ দিন খাওয়াও, তাতে কিছু উপকার হয় l  তারচেয়ে ভালো হয় ২ জন বেকারকে সারাবছর এর খাবার এর জন্য কিছু একটা ব্যবস্থা করে দিলে l আবার কিছু আজাইরা লোক তো আছেই " proud feeling" করার জন্য এসব ইভেন্ট এর সাথে  যুক্ত হতে পেরে l

অনেকেই যুক্তি দেয় এরকম চেষ্টা করা হয়েছিল কিন্তু ম্যাক্সিমাম ক্ষেত্রে তা সফল হয়নি, তার মানে মিনিমাম তো হয়েছে l আইন এ একটা কথা আছে, "দশজন অপরাধীকে মুক্তি দেয়া হোক , কিন্তু একজন নিরপরাধী যেন কোনো ভাবে শাস্তি না পায় " l  ১০ জন এর মাঝে ৯ জন সঠিক ভাবে ব্যবহার না করুক আপনার দান, একজন যে করবে সেটাই আপনার সার্থকতা l

যাকাত এর টাকাটা এক ই ভাবে প্রযোজ্য l

সংযম এর কথা তো আর কি বলবো , টিভি আর বিলবোর্ড এর দিকে তাকালেই বোঝা যায় কার সংযম কতটুকু l আগে তো শুধু মেয়েদেরকেই ব্যবহার করা হত, ইদানিং ছেলেদের ও যেসব বিলবোর্ড দেখা যাচ্ছে (ওমা)  l এই টেলিভিশন এ বলছে রমজান উপলক্ষ্যে কুরআনের বাণী নিয়ে অনুষ্ঠান, আবার কিছুক্ষণ পর ইফতার এর র্রেসিপি নিয়ে অনষ্ঠান, ঈদ এর নাচ এই এর এই ঈদ এর সেই  ব্লা ব্লা ব্লা l  না শুধু বিশেষ কিছু গোষ্ঠীই ধর্ম নিয়ে ব্যবসা করেনা, সবাই করে l 

তাই ঈদ আসলে কতটুকু খুশির আর কত টুকু ব্যবসার, কত কান্নার তারাই জানে জানে যখন বাচ্চা দুটো কাঁদতে থাকে ঈদ এর নতুন জামার জন্য, কিন্তু কারো কাছে চাইতে না পারার অক্ষমতা, নিজের কিনতে না পারার অক্ষমতা কে কিছুতে ঢেকে দেয়া যায় না তখন ঈদ কে মনে হয় নির্মম পরিহাস  l

যেখানে কেউ ১০ দিনে ও শপিং শেষ করতে না পারার কারণে আমরা বাস এর হ্যান্ডেল ধরে ঝুলি, আর কেউ টিভি রেসিপি শো দেখে চিন্তা করি বড়লোকেরা তাহলে এগুলা খায়!!! আর কেউ যাকাত এর কাপড় আনতে গিয়ে মারা যায় কারণ অন্য সময় তো সিজন নাই, তারা দিবে না l আর দ্রব্যমূল্যের হিসাব কষতে কষতে যখন ক্যালকুলেটার এ ভেঙ্গে যায় তখনই মাথায় চিন্তা আসে

ঈদ খুশি নাকি যন্ত্রণা ??

তবুও চাই জগতের সকল প্রাণী সুখী হোক . হ্যাপি ঈদ (রুবেল কে এখানে টানিয়া লজ্জা দিবেন না )



দীপ্তি বেশব্লগটি শেয়ার করেছে

মুসলিম প্রধান দেশ বাংলাদেশ l ঈদ কথাটা শুনলেই খুশির জোয়ার বয়ে যায়, আর রোজার ঈদ তো সব সময় অন্য আবেদন নিয়ে আসে l  সেটা কি খুশির নাকি ভোগান্তির?!!!!

রমজান শুরু হওযার সাথে সাথে শুরু হয় পণ্য মূল্যের উর্ধ্বগতি, যানজট সেত নিত্য দিনের বন্ধুই কিন্তু রমজানে আমার মনে হয় সিটিং সার্ভিস না দিয়ে লায়িং সার্ভিস দিলে আমরা কেউ আপত্তি করতাম না l  কেন বাবা  ঈদ এর একদিন এর জন্য তোমাকে ১০ দিন শপিং এ আসতে হবে?

কেন যাকাত এর কাপড় ঈদ এ দিতেই হবে? সারাবছর কি ওদের কাপড় এর দরকার হয় না? ফাজলামির একটা লিমিট থাকা উচিত l

আবার কিছু কিছু জায়গায় দেখি গরিব রোজাদারদের জন্য একদিনের ইফতার মাহফিল l  আরেক তামাশা l  বাকি উনত্রিশদিন কি তার ইফতার করতে হয় না? ২০০ জন কে একদিন না খাওয়ায়ে ২০ জন কে ৩০ দিন খাওয়াও, তাতে কিছু উপকার হয় l  তারচেয়ে ভালো হয় ২ জন বেকারকে সারাবছর এর খাবার এর জন্য কিছু একটা ব্যবস্থা করে দিলে l আবার কিছু আজাইরা লোক তো আছেই " proud feeling" করার জন্য এসব ইভেন্ট এর সাথে  যুক্ত হতে পেরে l

অনেকেই যুক্তি দেয় এরকম চেষ্টা করা হয়েছিল কিন্তু ম্যাক্সিমাম ক্ষেত্রে তা সফল হয়নি, তার মানে মিনিমাম তো হয়েছে l আইন এ একটা কথা আছে, "দশজন অপরাধীকে মুক্তি দেয়া হোক , কিন্তু একজন নিরপরাধী যেন কোনো ভাবে শাস্তি না পায় " l  ১০ জন এর মাঝে ৯ জন সঠিক ভাবে ব্যবহার না করুক আপনার দান, একজন যে করবে সেটাই আপনার সার্থকতা l

যাকাত এর টাকাটা এক ই ভাবে প্রযোজ্য l

সংযম এর কথা তো আর কি বলবো , টিভি আর বিলবোর্ড এর দিকে তাকালেই বোঝা যায় কার সংযম কতটুকু l আগে তো শুধু মেয়েদেরকেই ব্যবহার করা হত, ইদানিং ছেলেদের ও যেসব বিলবোর্ড দেখা যাচ্ছে (ওমা)  l এই টেলিভিশন এ বলছে রমজান উপলক্ষ্যে কুরআনের বাণী নিয়ে অনুষ্ঠান, আবার কিছুক্ষণ পর ইফতার এর র্রেসিপি নিয়ে অনষ্ঠান, ঈদ এর নাচ এই এর এই ঈদ এর সেই  ব্লা ব্লা ব্লা l  না শুধু বিশেষ কিছু গোষ্ঠীই ধর্ম নিয়ে ব্যবসা করেনা, সবাই করে l 

তাই ঈদ আসলে কতটুকু খুশির আর কত টুকু ব্যবসার, কত কান্নার তারাই জানে জানে যখন বাচ্চা দুটো কাঁদতে থাকে ঈদ এর নতুন জামার জন্য, কিন্তু কারো কাছে চাইতে না পারার অক্ষমতা, নিজের কিনতে না পারার অক্ষমতা কে কিছুতে ঢেকে দেয়া যায় না তখন ঈদ কে মনে হয় নির্মম পরিহাস  l

যেখানে কেউ ১০ দিনে ও শপিং শেষ করতে না পারার কারণে আমরা বাস এর হ্যান্ডেল ধরে ঝুলি, আর কেউ টিভি রেসিপি শো দেখে চিন্তা করি বড়লোকেরা তাহলে এগুলা খায়!!! আর কেউ যাকাত এর কাপড় আনতে গিয়ে মারা যায় কারণ অন্য সময় তো সিজন নাই, তারা দিবে না l আর দ্রব্যমূল্যের হিসাব কষতে কষতে যখন ক্যালকুলেটার এ ভেঙ্গে যায় তখনই মাথায় চিন্তা আসে

ঈদ খুশি নাকি যন্ত্রণা ??

তবুও চাই জগতের সকল প্রাণী সুখী হোক . হ্যাপি ঈদ (রুবেল কে এখানে টানিয়া লজ্জা দিবেন না )



পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?


অথবা,

আজকের
গড়
এযাবত
৩৯৪

বেশতো সাইট টিতে কোনো কন্টেন্ট-এর জন্য বেশতো কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।

কনটেন্ট -এর পুরো দায় যে ব্যক্তি কন্টেন্ট লিখেছে তার।

...বিস্তারিত